Jump to content

বৈশ্বিক অতি ধনীদের সংখ্যা বেড়ে এখন প্রায় ১,৭৩,০০০


Recommended Posts

বিশ্বের অতি ধনীদের সম্পদ কমার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না! গত বছর কমপক্ষে ৩০ মিলিয়ন ডলারের সম্পদধারীদের সংখ্যা বেড়ে এখন ১ লাখ ৭২ হাজার ৮৫০ জনে এসে দাঁড়িয়েছে। তাদের নিয়ন্ত্রিত সম্মিলিত সম্পদের পরিমাণ ২২ ট্রিলিয়ন ডলার, যা যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির সম্মিলিত জিডিপির চেয়েও বেশি। খবর গার্ডিয়ান।

গত বছর ৫ হাজার ৩০০ জন ধনী আলট্রা-হাই-নেট-ওর্থের (ইউএইচএনডব্লিউআই) তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। যাদের সম্পদের পরিমাণ ন্যূনতম ৩০ মিলিয়ন ডলার, তারাই এ তালিকায় স্থান পান। গত বছর তারা সম্মিলিতভাবে যোগ করেছেন ৭ বিলিয়ন ডলার। বাণিজ্যিক ও আবাসন সম্পদ পরামর্শক নাইট ফ্রাংক বলছে, আগামী দশকজুড়ে এ ধনীদের সংখ্যা ২ লাখ ৩০ হাজারে উন্নীত হবে।

ইউএইচএনডব্লিউআইয়ের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে এখন বিলাসবহুল ও ব্যয়বহুল পণ্যগুলোর প্রতি চাহিদা আরো বেড়ে যাবে। এশিয়ার ধনীরা এখন ওয়াইন শিল্পের প্রতি তাদের আগ্রহ আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন। আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের ধনীরা বিনিয়োগ বাড়াচ্ছেন আবাসন খাতে এবং ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকার ধনীরা এখন আল্পস বা রকি পবর্তমালায় বিলাসবহুল রিসোর্ট নির্মাণেই বেশি আগ্রহী।

তিন বছর ধরে সবচেয়ে বেশি অতি ধনীদের আভাসভূমিতে পরিণত হয়েছে লন্ডন। ২০১৪ সালে এ শহরে অতি ধনীদের সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ৩৬৪ জন। এর পরই রয়েছে নিউইয়র্ক। নাইট ফ্রাংক বলছে, ১০ বছর পরও শীর্ষে থাকবে লন্ডন। তবে সে সময়ে শহরটির ঘাড়ে এসে নিঃশ্বাস ফেলবে সিঙ্গাপুর। এ ১০ বছরে লন্ডনের ধনীদের সম্পদ ২১ শতাংশ বাড়লেও বিপরীতে ৫৪ শতাংশ বাড়বে সিঙ্গাপুরের ধনীদের।

তবে অতি ধনীদের সম্পদ ও সংখ্যা দ্রুতগতিতে বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সবচেয়ে এগিয়ে ভিয়েতনাম। প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ কাজাখস্তানের অতি ধনীদের সংখ্যাও বেশ দ্রুত হারে বাড়ছে। আগামী ১০ বছরে দেশটির অতি ধনীদের বৃদ্ধির হার ১১৪ শতাংশ। অন্যদিকে অর্থনৈতিক সংকটের কারণে অনেক রাশিয়ান ধনী নিজ দেশ ছেড়ে অন্য দেশে ভিত্তি সরিয়ে নিচ্ছে। তাই আগামী এক দশকে দেশটিতে অতি ধনীদের বৃদ্ধির হার কিছুটা কম, ৪৬ শতাংশ।

নাইট ফ্রাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ধনীরা যেসব বিষয় নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে উচ্চ কর হার নিয়ে বিশ্বব্যাপী সরকারগুলোর প্রচারণা ও পদক্ষেপ, ব্যক্তিগত ও করপোরেট সম্পদ নিয়ে সরকারগুলোর তদন্ত এবং পরবর্তী প্রজন্মের কাছে সম্পত্তি হস্তান্তরে প্রক্রিয়াগত জটিলতা।

অন্য দেশে অভিবাসনের জন্য দেশের আয়করকেই সবচেয়ে বড় কারণ হিসেবে দেখিয়েছেন এ ধনীরা। এর মধ্যে সম্পত্তি কর নিয়ে সবচেয়ে বেশি চিন্তিত লন্ডন ও হংকংয়ের ধনীরা। নাইট ফ্রাংকের গবেষণা বিভাগের প্রধান লিয়াম বেইলি বলেন, পাঁচ বছর আগেও লন্ডনসহ যুক্তরাজ্যের অন্যান্য শহরে উচ্চমূল্যের সম্পত্তিগুলো কর অব্যাহতির অংশ ছিল। কিন্তু এখন আর সে সুবিধা নেই।

Link to comment
Share on other sites

  • 9 months later...

অতি ধনীদের সংখ্যা bere jawa mane gorib ra aro gorib howa. Oishob desher govt. er uchit higher amount er upor income tax up to 70% kora

হা..হা.. হা..বাংলা পিপ ভাই সরকার যদি তাই করে তবে বিশ্বের ধনীরা আপনার প্রোফাইলের ইমেজের মতো কম্পিউটারের না ভেঙ্গে প্রেসিডেন্টের মাথা ভাঙ্গবে!!!!!!!!!!!!!!!!

Link to comment
Share on other sites

Join the conversation

You can post now and register later. If you have an account, sign in now to post with your account.

Guest
Reply to this topic...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoji are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...
 Share

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...