Jump to content

Litefinance দিচ্ছে আকর্ষণীয় উপহার এই ক্রিস্টমাসে iPHONE 13 Pro Max, MacBook Pro এবং iPad Pro


Recommended Posts

Lite Finance বেশ কিছুদিন পর পর এই এরকম অফার এবং ক্যাম্পেইন দিয়ে থাকে। তবে এবার এর ক্যাম্পেইন বেশ আকর্ষণীয় মনে হয়েছে আমার।  মাত্র ৩ ক্লিক এ জিতে নিন  iPhone 13 Pro Max, MacBook Pro এবং iPad Pro বিস্তারিত LiteFinance এ।

Link to comment
Share on other sites

Join the conversation

You can post now and register later. If you have an account, sign in now to post with your account.

Guest
Reply to this topic...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoji are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...
 Share

  • Similar Content

    • By dianamalkova
      The popularity of the international forex market has made it the largest financial market in the world. According to a 2019 BIS report, the daily volume of forex traded amounts to $6.6 trillion. Around 3.5% of the total turnover was retail in 2013 as per a report by BIS.
      The internet has facilitated retail forex trading such that anyone from anywhere can engage in the trade. However, this seamless access to the market guaranteed by the internet has created a rat-race for traders among forex brokers.
      Today, scam forex brokers use every form of gimmick to hoodwink ignorant individuals into trading and investing in the forex market in the guise of an easy path to wealth.
      The African continent has seen massive growth in the number of retail online forex brokers in recent times. Currently, there are an estimated 1.3 million active forex traders on the continent and the number is growing rapidly by the day. This is coming at a time when there are no regulations for retail forex trading among many countries on the continent.
      Currently, only Kenya, South Africa, and Mauritius have regulations guiding online retail forex trading. Tanzania like many of its continental counterparts does not have. The absence of regulation is one of the many risks and challenges faced by retail forex traders in Tanzania.
      Forex traders and those intending to participate in the international forex market should first understand how the forex market work. Forex is the exchange of one currency for another for different purposes. Most retail forex traders participate in the forex market with the aim of profiting off the price difference in currency pair at the end of the trade.
      In reality, forex trading is not as forex brokers and their marketers make it to be. It is much more difficult and complex. This article will discuss three truths about forex trading.
      1. People Lose Money In Retail Forex Trading
      Many individuals, especially newbie forex traders, believe they can make a fortune off forex trading. This belief stems from the aggressive marketing gimmick of online retail forex brokers.
      While it is possible to earn money and even make a living from forex trading, especially from day trading the odds are stacked against you.
      When you trade a currency pair let's say USD/EUR, you are betting on the USD to rise against the EUR. However, someone in another part of the world is betting on the EUR to rise against the USD. Your success depends on the failure of that person.
      According to financial analysts, around 65 to 89 percent of forex traders encounter losses in their trade. The stats for CFDs is even higher with an average of 74% losing out on trades.
      2. Forex Trading Requires In-Depth Training And Education
      The international forex market is the most liquid financial market in the world. Price movements in this market happen at a pace only highly skilled and professional traders can handle. One cannot master the complexities of the market within a short period of time.
      In recent times, some brokers with sugar-coated tongues offer short training aimed at providing traders with instant proficiency in trading in the forex market. This is not true. To master the art of forex trading, you must give yourself knowledge and practice over a considerable period of time
      The knowledge and understanding of the technical intrigues of the market are not one a neophyte can master on a weekend or a short course. It can take years to fully grasp the nitty-gritty of the market and become a professional. Even at that, the volatile nature of the market makes it immune to any form of professional handling.
      Also, forex trading has a motley of technical registers peculiar to it. Terms like leverage, pip, spread, forex pair, margin, bid/ask price, etc., must be properly mastered if one is to avoid the mistake of losing his investment.
      However, many forex brokers now provide demo accounts and other forms of investor education that aim to train and educate new forex traders
      3. There Are Scams In Forex Trading
      Like every other venture, there are scams in forex trading. These scams range from nefarious, unregulated brokers, to those who make forex seem like a get-rich-quick scheme, hackers, etc.
      As per findings by broker research firm Safe Forex Brokers, there are so many scam brokers that target the general public in East Africa to their HYIPs in the name of forex trading.
      if you are a Tanzania-based trader involved in forex trading, you must ensure your broker is regulated by top-tier regulators such as UK's Financial Conduct Authority, Cyprus's CySEC, Australia's ASIC, etc. A broker who has a license with one of these regulators can be considered safer than a broker that is not regulated or is offshore regulated.
      This is an important step because online retail forex trading in Tanzania is not regulated. It is not illegal per se. That is your trade and invest at your own risk without local government protection. Trading with a broker that is not regulated or regulated by some less rigid regulators is highly risky as they can run away with your investment.
      Also, you should avoid those who make forex trading seem like a Ponzi scheme where you invest and get a guaranteed return. Some go as far as deceiving novice traders that they can provide some robots that can facilitate trade and deliver consistent profit. This is absolutely wrong and you should be careful.
      As per Forexscopes, Trading with an unknown unregulated broker can open you up to hackers who might steal your important private data such as credit card numbers, background information, etc., and use such to steal from you or scam you.
      Conclusion
      Forex trading is not all gloom and doom. You can earn a good income from the market if you practice & follow strict risk management.
      However, you should be careful, well-trained, and educated about the fundamental and technical analysis of the forex market. You should also have a defined and tested trading strategy. Learn as much as you can about risk management.
      Also, do not enter the forex market with funds you cannot afford to lose. Forex trading as said earlier is not a Ponzi scheme where you invest and get paid back without risks. As said earlier, the chances of you making a profit are very low since most of the retail traders lose.
      Also, remember that if you are making a profit means that another person is losing. If your broker is a market maker, then if you are making a profit then your broker is losing.
      So, a bad broker is incentivized to make you lose. You can earn income through forex trading but remember that the chances are very low. You must know how you apply the truths about forex trading. Source: The citizen
    • By dianamalkova
      Users have been warned against a new malware designed to steal crypto from browser extension wallets such as MetaMask and Coinbase Wallet.
      Security was never the strong suit of browser-based crypto wallets to store Bitcoin (BTC), Ether (ETH), and other cryptocurrencies.
      However, new malware makes the safety of online wallets even more complicated by directly targeting crypto wallets.

      P.S: Trade with a trusted Forex broker (LiteFinance)!
      That works as browser extensions such as MetaMask, Binance Chain Wallet, or Coinbase Wallet.
      Named Mars Stealer by its developers, the new malware is a powerful upgrade on the information-stealing Oski trojan of 2019, according to security researcher 3xp0rt.

      It targets more than 40 browser-based crypto wallets, along with popular two-factor authentication (2FA) extensions.
      Metaverse, Nifty Wallet, Coinbase Wallet, MEW CX, Ronin Wallet, Binance Chain Wallet, and TronLink are listed as some of the targeted wallets.
      The security expert notes that the malware can target extensions on Chromium-based browsers except Opera. Sadly, it means some of the most common browsers such as Google Chrome,

      Microsoft Edge and Brave made it to the list. Also, while they are safe from extension-specific attacks, Firefox and Opera are also vulnerable to credential-hijacking.
      Mars Stealer can be spread through various channels such as file-hosting websites, torrent clients, and any other shady downloaders.
      After infecting a system, the first thing the malware does is check the device language.

      If it matches the language ID of Kazakhstan, Uzbekistan, Azerbaijan, Belarus, or Russia, the software leaves the system without any malicious action.
      For the rest of the world, the malware targets a file that holds sensitive information such as crypto wallets’ address info and private keys.
      It then leaves the system by deleting any presence once the theft is complete. Hackers are currently selling Mars Stealer for $140 on dark web forums.

      Meaning the barrier to access the trojan is relatively low for malicious actors. Users who hold their crypto assets on browser-based wallets.
      Or use browser extensions like Authy to utilize 2FA are warned to be cautious against clicking dubious links or downloads.
    • By dianamalkova
      মানি ম্যানেজমেন্ট হল এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে ফরেক্স ট্রেডাররা তাদের অ্যাকাউন্ট ম্যানেজ করে থাকে। ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য মানি ম্যানেজমেন্ট খুবই জরুরী। একটি ভাল মানি ম্যানেজমেন্ট আপনার অ্যাকাউন্টকে ব্যাঙ্কর*্যাপ্টসি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। একটি ভাল মানি ম্যানেজমেন্ট ফলো করলে আপনার ক্যাপিটাল হারানোর সম্ভাবনা খুব কম।
      ভাল মানি ম্যানেজমেন্টের কিছু নিয়ম রয়েছেঃ
      ১. অ্যাকাউন্টের ছোট পার্সেনটেজ নিয়ে রিস্ক নিনঃ
      অ্যাকাউন্টের ছোট পার্সেনটেজ রিস্ক নেয়া কেন গুরুত্বপূর্ণ? এর কারন হচ্ছে আপনাকে আপনার অ্যাকাউন্ট টিকিয়ে রাখতে হবে। প্রথমে আপনার অ্যাকাউন্ট টিকিয়ে রাখতে হবে, তারপর প্রফিটের কথা ভাবতে হবে।
      ভালো ট্রেডার তারাই যারা তাদের অ্যাকাউন্ট টিকিয়ে রাখতে পারে এবং এ ব্যাপারে সচেতন।
      যদি আপনি কম রিস্ক নিয়ে ট্রেড করেন তবে কোন ট্রেডে আপনার লস অনেক বেশী হলেও চাইলে আপনি আপনার ট্রেডটিকে হোল্ড করতে পারবেন।
      ট্রেডে আপনার অ্যাকাউন্টের মোট পার্সেনটেজের কম এবং বেশী রিস্ক নিয়ে ট্রেডের একটি উদাহরন নিচে দেখা যাক। দেখুন টানা ১০টি ট্রেডে লস আপনার অ্যাকাউন্টের কতটুকু ক্ষতি করতে পারে।
      বিঃ দ্রঃ নতুন বছর শুরু হোক লাইটফিনান্স এবং iphone13 Pro MAX এর সাথে (বিস্তারিত লাইটফিনান্স এ)
      ২. হারান ক্যাপিটাল পুনরুদ্ধার করা কঠিনঃ
      কেউ যদি তার অ্যাকাউন্টের কিছু অংশ হারায়, তাহলে তা পুনরুদ্ধার করা কতটা কঠিন?
      আপনি যদি আপনার অ্যাকাউন্টের ৫০% হারান, তাহলে আপনাকে লস রিকভার করতে আপনার নতুন ব্যালেন্সের ১০০% লাভ করতে হবে। আর যদি ৭৫% হারান, তবে নতুন ব্যালেন্সের ৩০০% প্রফিট করতে হবে শুধুমাত্র পূর্বের লস রিকভার করার জন্য। তাই আপনি যদি একবার বিরাট লস করে তারপর সেই লস রিকভার নিয়ে ব্যস্ত থাকেন, তবে প্রফিট করবে কে?
      এখানেই চ্যালেঞ্জ। চেষ্টা করে দেখুন ডেমো অ্যাকাউন্টে ৩০০% অথবা আপনার রিয়েল অ্যাকাউন্টে অন্তত ১০০% প্রফিট করতে পারেন কিনা। এটা অতটা সহজ হবেনা। মানি ম্যানেজমেন্ট এই জন্যেই গুরুত্বপূর্ণ।
      ৩. ট্রেড করার আগে রিস্কঃরিওয়ার্ড রেশিও হিসাব করুনঃ
      যখন একটি ট্রেডে লস করার সম্ভবনা প্রফিট করার থেকে বেশী, তখন ট্রেড করা থেকে বিরত থাকুন। সবসময় ট্রেড করতে হবে এমন কোন কথা নেই।
      উদাহরনসরূপঃ
      ১. ৪০ পিপস লস vs ৩০ পিপস প্রফিট
      ২. ২০ পিপস লস vs ২০ পিপস প্রফিট
      ২টি উদাহরনই বাজে রিস্ক ম্যানেজমেন্টের উদাহরন।
      একটি ট্রেড ওপেন করার আগে এটা নিশ্চিত করুন যে রিস্ক:রিওয়ার্ড রেশিও অন্তত ১:২ (১:৩ রেশিও বা এর থেকে বেশী ভাল)।
      এর মানে হচ্ছে আপনার এমন একটি ট্রেডই ওপেন করা উচিত যেটাতে আপনার লস করার সম্ভবনা থেকে লাভের সম্ভবনা ততগুন হবে। যেমনঃ আপনি ৩০ পিপস লস করার পরিপেক্ষিতে ১০০ পিপস লাভ করতে পারবেন এমন ট্রেডে এন্ট্রি করাই বুদ্ধিমানের কাজ।
      আপনি যদি মানি ম্যানেজমেন্টের এই রুলসটি সঠিকভাবে মেনে চলেন, তবে তা পরবর্তীতে আপনাকে সাফল্য পেতে এবং স্ট্যাবল প্রফিট পেতে সাহায্য করবে।

      রিস্ক:রিওয়ার্ড রেশিওর নিচের চার্টটি দেখুন। এখানে ১:৩ রিস্ক:রিওয়ার্ড রেশিও নিয়ে ১০টি ট্রেড করা হয়েছে।
      একজন যখন কোন ট্রেডে লস করে, তখন সে $১০০ ডলার হারিয়েছে। কিন্তু তার প্রতিটি প্রফিটেবল ট্রেডে সে $৩০০ ডলার প্রফিট করেছে।
      সুতরাং, দেখা যাচ্ছে কোন ট্রেডার যদি ১:৩ রিস্ক:রিওয়ার্ড রেশিও নিয়ে যদি ৫০% ট্রেডেও সফল হয়, তবুও সে ভাল পরিমান লাভ করতে পারে।
    • By dianamalkova
      Forex (বৈদেশিক মুদ্রার বাজার) মুদ্রা বিনিময়ের একটি তরুণ এবং বিকাশমান মার্কেট, যার দৈনিক টার্নওভার বিশ্বের সকল ফিনান্সিয়াল মার্কেটকে ছাড়িয়ে যায়। ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল সেটেলমেন্টস এর মতে, আমেরিকান স্টক এক্সচেঞ্জের দৈনিক টার্নওভার, যা মাত্র 300 বিলিয়ন মার্কিন ডলার, এর তুলনায় দৈনিক টার্নওভার 2010 সালে 4 ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার লেভেলে পৌঁছেছে।
      Forex মার্কেটে পরিচালিত সকল অপারেশনকে কয়েকটি গ্রুপে বিভক্ত করা যেতে পারেঃ Speculative, Hedging, Trading এবং Regulating.
      Forex এর ইতিহাসঃ কিভাবে বৃহত্তম ওয়ার্ল্ডয়াইড ফিনান্সিয়াল মার্কেট প্রদর্শিত হয়েছিল?
      কারেন্সি এক্সচেঞ্জ মার্কেটটি ১৯৭১ সালে স্বর্ণের মান বাতিলকরণের সময়কাল থেকে এর ইতিহাস শুরু করেছিল। আমেরিকার ৩৭তম রাষ্ট্রপতি রিচার্ড নিকসন ছিলেন এই মার্কেটের দীক্ষক। স্বর্ণের মান বাতিল হওয়ার কারণে, স্থিতিশীল মুদ্রার হারের সিস্টেমটি বিধস্ত হয়ে গিয়েছিল। ১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে স্মিথসোনিয়ান চুক্তির ফলস্বরূপ, মূদ্রার ওঠানামার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল ৪.৫% (মার্কিন ডলারের বিপরীতে) এর মধ্যে (অন্যান্য মুদ্রা জোড়ার জন্য ৯% এর মধ্যে)। কেবলমাত্র 8 জানুয়ারী ১৯৭৬ সালে জামাইকার কিংস্টনে একটি নতুন মুদ্রা ব্যবস্থার নীতি সম্পর্কিত সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছিল । আইএমএফ-এর সমস্ত অংশগ্রহণকারী-সদস্যগণ স্বর্ণের সরকারী মূল্য নির্ধারণ করতে এবং মুদ্রার হার পরিবর্তনের সীমাবদ্ধতা প্রত্যাখান করেছিলেন। এই সিদ্ধান্তের সাথে মুদ্রা মার্কেটের বিকাশ শুরু হয়।
      Forex মার্কেটে পরিচালিত সকল অপারেশনকে কয়েকটি গ্রুপে বিভক্ত করা যেতে পারেঃ Speculative, Hedging, Trading এবং Regulating.
      স্টকের বিপরীতে Forex হলো একটি ওভার-দ্য কাউন্টার (OTC) মার্কেট, যার ট্রেডিংয়ের জন্য নির্দিষ্ট কোনো স্থান এবং কাজের সময় নেই । এর কারণ হলো যে সমস্ত লেনদেনের মূল ভলিউম বিশ্বের বড় বড় ব্যাংকগুলির মধ্যে হয়ে থাকে। সকল ব্যাংক বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত হওয়ায়, ২৪ ঘন্টা (ব্যাংক ছুটির দিন বাদে) অপারেশন পরিচালিত হয়।
      Forex এ অংশগ্রহণকারী – কে মার্কেট নিয়ন্ত্রণ করে?

      Forex মার্কেটের প্রধান অংশগ্রহণকারীরা হলো বিশ্বের ব্যাংকসমূহ (বাণিজ্যিক এবং কেন্দ্রীয়)। বড় কর্পোরেশনগুলি যারা বিদেশী অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপে, বিনিয়োগে জড়িত এবং হেজ ফান্ড, ব্রোকারেজ ফার্ম, ডিলিং সেন্টার এবং ব্যক্তিরাও এই প্রক্রিয়াতে অংশ নেয়।
      Note: Check out the New Year Promo Event of LiteFinance!

      বাণিজ্যিক ব্যাংক
      বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলি ট্রেডিংয়ের মূল ভলিউম বহন করে। তারা ব্যক্তি এবং আইনী সত্তাদের কাছ থেকে আমানত গ্রহণ এবং তাদের লক্ষ্য অনুসারে মালিকদের কাছে পরবর্তী অর্থ ফেরতের পরিচালনার সাথে জড়িত।
      কেন্দ্রীয় ব্যাংক
      কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলির মূল লক্ষ্য হচ্ছে তাদের দেশের সরকারী এবং বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলিতে আর্থিক পরিষেবা প্রদান করা।
      তাদের প্রধান কাজগুলি হলোঃ
      অর্থ সরবরাহ এবং এক্সচেঞ্জ রেট নিয়ন্ত্রণ; জাতীয় মুদ্রার নোট প্রকাশের নিয়ন্ত্রণ; বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলি থেকে আমানত গ্রহণ এবং ঋণদান, পাশাপাশি তাদের কার্যকলাপের নিয়ন্ত্রণ; দেশের ঋণ পরিচালনা; দেশের স্বর্ণ মুদ্রার মজুদ রক্ষণাবেক্ষণ; অন্যান্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলির সাথে মিথস্ক্রিয়া। আপনি এই নিবন্ধ থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং তাদের কার্যাদি সম্পর্কে আরও তথ্য জানতে পারেন। Forex দিনের পর দিন আরও বেশি লোককে আকর্ষণ করে কারণ অনেক লোক রেট ওঠানামা থেকে উপকৃত হতে চান।
      বড় কর্পোরেশন

      বড় কর্পোরেশনগুলি বিদেশী অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত, তারা বিদেশী মুদ্রায় জাতীয় মুদ্রা বিনিময় করতে ও স্বল্প-মেয়াদী আমানত পরিচালনা করতে এবং তাদের ভবিষ্যতের চুক্তিগুলি হেজেড করতে Forex ব্যবহার করে। এই সংস্থাগুলি বাণিজ্যিক ব্যাংকের পরিষেবাগুলি ব্যবহার করে, কারণ কারেন্সি এক্সচেঞ্জ মার্কেটের সাথে তাদের সরাসরি কোনো অভিগমন নেই।
      বিনিয়োগ এবং হেজ ফান্ড
      বিদেশী সম্পদ বহনকারী সংস্থাগুলি বিনিয়োগকারীদের তহবিলগুলিকেও বিভিন্ন নিরাপত্তার মধ্যে রাখে।
      Forex কোম্পানিগুলি (দালাল ও বেচাকেনা কেন্দ্রগুলো)
      এজেন্টরা ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের একসাথে লেনদেন রূপান্তর করার জন্য নিয়ে আসেন। তারা কোনও ট্রেডিংয়ের জন্য একটি স্প্রেড যুক্ত করে বা কমিশন ফি নিয়ে তাদের কাজের জন্য অর্থ গ্রহণ করে।
      ব্যক্তিগত
      এরা হলো যারা মুদ্রা বিনিময়ের বাণিজ্যিক ক্রিয়াকলাপে জড়িত নয়, উদাহরণস্বরূপ; অর্থ স্থানান্তর, বিদেশে সফরকালে মুদ্রা বিনিময় ইত্যাদি। এই ব্যক্তিরা শুধুমাত্র ১৯৮৬ সালে অনুমানমূলক উদ্দেশ্যে Forex ব্যবহারের সুযোগ পেয়েছিল। তারা Forex সংস্থাগুলির মাধ্যমে অনুমানমূলক অপারেশন পরিচালনা করতে পারে।
      Forex দিনের পর দিন আরও বেশি লোককে আকর্ষণ করে কারণ অনেক লোক রেট ওঠানামা থেকে উপকৃত হতে চান। তবে, আপনি কাজ শুরু করার আগে, আপনাকে অবশ্যই প্রাথমিক জ্ঞান অর্জন করতে হবে যা আপনাকে এই কাজে সহায়তা করবে।
    • By shopnil
      বছরে আটবার , সাধারনত  সবসময়ই বুধবার, গুণে গুণে  ঠিক বাংলাদেশ সময় রাত ১২ টায় যুক্তরাষ্ট্রের  কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ফেড (FED)  তার গুরুত্বপূর্ণ পদস্থ কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসার পর একটি বিবৃতি দেয়। সেই বিবৃতির  প্যাটার্ন  কি, তাও আবার আগে থেকেই ঠিক করা। এই বৈঠকই Federal Open Market Committee Meeting বা সংক্ষেপে FOMC মীটিং নামে  পরিচিত।  ফেড হয় এক বিশেষ  ধরনের সুদের হার বাড়াবে , কমাবে অথবা আগের মতই রাখবে। এই বিশেষ ধরনের সুদের হারের নাম হচ্ছে Overnight Borrowing Rate. মানে, একদিনের জন্য কোন ব্যাংক অপর ব্যাংকের কাছ থেকে তার জন্য যে সুদ দিতে হবে। কিন্তু,  এই এতটুকু সিদ্ধান্তই যে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের  জীবনে কি ব্যাপক প্রভাব রাখতে পারে, তা বলাই বাহুল্য়। কিভাবে, তা জানতে চান?
      কারণ এই একদিনের জন্য টাকা ধার করাটাই অর্থনীতির অন্যতম ঝুকিপূর্ণ কাজ। আর সেই ধার করার পেছনে খরচ যত বাড়বে, তার উপর ভিত্তি করে মানুষ যা যা করতে চায়, সেগুলোর খরচও বাড়বে। আর তাই, ব্যাঙ্ক, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অথবা ব্যক্তিবিশেষ কেউই বেশি একটা এই ঝুকিতে যেতে চাইবে না। ফলশ্রুতিতে কি হবে? তারা ধারও কম করবে, বিনিয়োগ ও কম করবে। তার মানে, সামগ্রিকভাবে কমে যাবে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড। 
      তো ফেড তাহলে সুদের হার বাড়ায়  কেন? সবসময় কমিয়ে রাখতে পারে না? আসলে অর্থনীতি বেশি চাঙ্গা থাকলে প্রবলেম (মূল্যস্ফীতি  বেড়ে যাবে), আবার বেশি স্থবির হলেও প্রবলেম (ব্যবসা বাণিজ্য ক্ষতির সম্মুখীন হবে). তাই, সুদের হার বাড়িয়ে  কমিয়ে সবসময় একটা ভারসাম্য তৈরি করার চেস্টা করা হয়.  এখন দেখুন, একজন সাধারণ কৃষকের কাছেও ফেডের  এই Overnight Borrowing Rate কতটা গুরুত্বপূর্ণ:
      থমাস মুলার যুক্তরাষ্ট্রের একজন কৃষক। পৈত্রিক সূত্রে  বেশ ভালো পরিমাণ জমিরই মালিক তিনি। এই জমিতে তিনি চাইলে সয়াবিনও চাষ  করতে পারেন আবার অন্যান্য শস্য়ও চাষ  করতে পারেন। সয়াবিনে লাভ অনেক বেশি, কিনতু  এর জন্য তাকে আন্তর্জাতিক বাজারের দিকেও লক্ষ্য রাখতে হয়. কারণ, আন্তর্জাতিক  বাজারে সয়াবিন রপ্তানীতে  ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনাও  যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিদ্বন্দী।  বাপ দাদার মত তাই তাকেও ফেডের  Overnight Borrowing Rate এর দিকে লক্ষ্য রাখতে হয়, কারন তার যে ব্যবসা  তার জন্য ব্যাঙ্ক লোনের প্রয়োজন। আর সুদের হার বেড়ে গেলে তার উত্পাদন খরচ ও বেড়ে যাবে। মড়ার  উপর খরার ঘা হচ্ছে সুদের হার বেড়ে  গেলে বেশি সুদের আশায় মানুষ ডলারও ব্যাংকে বেশি রাখে, আবার অনেক বিদেশী বিনিয়োগকারীয়  বেশি  ডলার কিনতে চায়. ফলে, বাজারের  সরবরাহ যায় কমে, আর ডলারের  দামও যায়  বেড়ে। ফলে, অন্য়  দেশের আমদানীকারকদের যুক্তরাষ্ট্র থেকে সয়াবিন কিনতে গেলে অনেক বেশি খরচ পড়বে,আর তাই তারা চিন্তা করবে সস্তায়  ব্রাজিল  বা আর্জেন্টিনা থেকে কিনতে। ফলে, যুক্তরাষ্ট্রের সয়াবিন উত্পাদকেরা মার খেয়ে যাবে। 
      তাই, সবারই জানার আগ্রহ থাকে, সামনের দিনগুলোতে  Overnight Borrowing Rate কিরকম থাকবে। আর তা জানার একমাত্র উপায় ওই FOMC মিটিংই। কিনতু , তার অপেক্ষায়  কি আর সবসময় বসে থাকলে চলে? সাংবাদিকরা তাই সবসময় ফেডের  উচ্চপদস্থ  কর্মকর্তাদের  পেছনে লেগে থাকেন। তাদের কথাবার্তা  থেকেই তো ইঙ্গিত  পাওয়া যায়, কি হতে যাচ্ছে পরবর্তী  FOMC মিটিংএ। ফেড  সুদের হার বছরে ওই একদুইবারই বাড়ায়  বা কমায়। কিনতু, সেটা কখন, তা জানাই  থমাস বা অন্যদের  কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সেভাবেই তারা ব্যবসার পরিকল্পনা সাজান, সয়াবিন চাষ  করবেন নাকি আলু, টমেটো যা কম লাভ হলেও ডলারের দামের উপর নির্ভরশীল না, স্থানীয় বাজারেই বিক্রি করা যায়। তাই, বছরে ফেডের আটটি মিটিং এর প্রতিই খুব আগ্রহ থাকে সবার। 
      এবার, আপনিই বলুন, টমাসের কাছে যদি FOMC মিটিং এত গুরুত্বপূর্ণ  হয়, তাহলে আমরা যারা ডলার পাউন্ড নিয়েই ফরেক্স মার্কেটে ব্যবসা করি, তাদের জন্য FOMC মিটিং কতটা গুরুত্বপূর্ণ? বুঝতেই পারছেন, সুদের হার বাড়ল  নাকি কমল, শুধু  সেটার উপর ভিত্তি করেই FOMC মিটিং এর পর ডলার শক্তিশালী অথবা দুর্বল  হয় না।  FED সুদের  হার অপরিবর্তিত রাখলেও তা ডলারকে শক্তিশালী অথবা দুর্বল  করতে পারে, যদিনা শুধু এমন জোরালো কোন ইঙ্গিত  পাওয়া যায় যে, কখন সুদের হার বাড়তে বা কমতে যাচ্ছে। সেটা FOMC মিটিং থেকেই জানা যাক, অথবা তার আগে পরে কোন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা থেকে জানা যাক।
      ভালো কথা, আগামী বুধবারেই (২৮ অক্টোবর ) কিনতু  রয়েছে পরবর্তী FOMC মিটিং। আমরা দেখব, এবারের FOMC মিটিং কিরকম প্রভাব ফেলে মার্কেটের উপর।
       


বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...