Jump to content

EURUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট (০৫ -০৯ জুলাই, ২০২১)


২০২১ সালের প্রথমার্ধ শেষ হলো গত সপ্তাহের মাধ্যমে।  প্রথমার্ধটি মার্কিন ডলারের আধিপত্য এবং ইউরোর দুর্বলতার মাধ্যমে শেষ হয়েছে। এ সপ্তাহটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক, ইউরোজোন ডাটা এবং নতুন ভাইরাস ভেরিয়েন্টের উদ্বেগের মধ্যে থাকতে পারে।

EURUSD এবং NFP প্রতিক্রিয়া

গত সপ্তাহে প্রকাশিত জুন মাসের মার্কিন NFP ডাটা ডলারের পক্ষে কাজ করেছিল।  দেশটির ইকোনমিতে ৮ লক্ষ ৫০ হাজারের মতো জব যোগ হয়েছে।  যা প্রত্যাশার উপরে ছিল। যাইহোক মার্কিন ননফার্ম পেরোলস ডাটা প্রত্যাশার উপরে আসলেও ডলারের প্রাইস বৃদ্ধির ক্ষেত্রে পর্যাপ্ত ছিল না।

মার্কিন NFP ডাটা EURUSD পেয়ারকে সর্বনিন্ম ১.১৮০০ প্রাইসে নিয়ে এসেছিল।  তবে কিছু অ্যানালাইসিস্টদের ধারণা ছিল, পেয়ারটি ১.১৭০০ প্রাইসে স্পর্শ করতে পারে।

Untitled-1.jpg

ফেডের হাকিশ মনোভাব

ফেডের গর্ভনর ক্রিস্টোফার ওয়ালার  প্রত্যাশার চেয়ে বেশি বন্ড-বাই কমানোর বিষয়ে জোরদার করার সাথে সাথে ফেডের মনোভাব হাকিশ হয়ে উঠেছে।  এর আগে রবার্ট কাপলান বন্ড-বাই কমানোকে সমর্থন করেছিলেন।  যা মার্কিন ডলারের প্রাইস আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

ডেল্টা ভাইরাসের ভয়

ডেল্টা করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ব্রিটিশসহ ইউরোজোনের বিভিন্ন দেশে দ্রুত বিস্তার করছে।  যদিও ইতিমধ্যে ইউরোজোনে ভ্যাকসিন কার্যক্রম দ্রুত আগাচ্ছে।  ভাইরাসের ভয় ইউরোজোনে গ্রীষ্ম পর্যন্ত আগাতে পারে। যা অর্থনীতি পুনরায় খোলার ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করতে পারে।

Untitled-2.jpg

ইউরোজোন ডাটা এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ইউরোজোন CPI ইউরোকে দুর্বল  করেছে।  বাৎসরিক ব্যবধানে CPI ১.৯% এবং কোর CPI ০.৯% কমেছে।  ইকোনমিক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী সার্ভিস পিএমআই এবং ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতি-নির্ধারকদের মিটিং মার্কেটকে প্রভাবিত করতে পারে।

এ সপ্তাহে যা হতে পারে

চলতি সপ্তাহে ইউরোজোন সার্ভস পিএমআই এবং জার্মান বিজনেস ক্লাইমেট ডাটা EURUSD পেয়ারের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মিটিং গুরুত্বপূর্ণ।ৎ

এদিকে মার্কিন ISM মেনুফেকচারিং রিপোর্ট ও ফেডারেল রিজার্ভের মিটিং মিনিটস এ সপ্তাহে পেয়ারকে প্রভাবিত করতে পারে।  অ্যানালাইসিস্টদের ধারণা, ইভেন্টগুলো EURUSD পেয়ারের ক্ষেত্রে নেতিবাচক থাকতে পারে।

Untitled-3.jpg

EURUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস

গত মাসে পেয়ারের প্রাইস কমে ২০০ দিনের SMA- এর নিচে এসেছিল।  পেয়ারটি ২০০ SMA অতিক্রম করে উপরে উঠতে ব্যর্থ হয়েছিল।  শুক্রবারের বুশিল বার পেয়ারের রিভার্সেলের দিকে ইঙ্গিত দিচ্ছে।  পেয়ারটি ২০০ দিনের SMA (১.১৯৩০) অতিক্রমে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।

২০ দিনের SMA অনুযায়ী ( ১.১৯৯২) প্রাইসে আসতে পারে।  ৫০ দিনের SMA অনুযায়ী ১.২০২৫ রেজিস্ট্যান্সে যেতে পারে।  অপরদিকে পেয়ারটি শুক্রবারের নিন্ম প্রাইস ১.১৮০০ অতিক্রমে সক্ষম হলে ১.১৭৭০ ও ১.১৭৪০ প্রাইসে আসতে পারে।

চার ঘন্টার চার্ট

Screenshot_1-4-1078x516 (1).png

শেষ কথা

ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী মনে হচ্ছে, এ সপ্তাহে EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমতে পারে। অপরদিকে টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী পেয়ার নিরপেক্ষ অবস্থানে রয়েছে।

XM ব্রোকারে জুলাই মাসে ডিপোজিটে ৫০% বোনাস

 Share

0 Comments


Recommended Comments

There are no comments to display.

Guest
Add a comment...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoji are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...