Jump to content

ফোরাম ফিড

This stream auto-updates

  1. Yesterday
  2. AUD/USD and NZD/USD Might Regain Bullish Momentum AUD/USD traded higher but faced sellers near 0.7075. NZD/USD is correcting gains and approaching a key support zone near the 0.6350 level. Important Takeaways for AUD/USD and NZD/USD The Aussie Dollar started a fresh increase from the 0.6850 support zone against the US Dollar. There is a key bullish trend line forming with support near 0.7000 on the hourly chart of AUD/USD. NZD/USD also started a decent increase after it cleared the 0.6300 resistance zone. There was a move above a major contracting triangle with resistance near 0.6355 on the hourly chart of NZD/USD. AUD/USD Technical Analysis The Aussie Dollar formed a base above the 0.6850 level and started a fresh increase against the US Dollar. The AUD/USD pair gained pace for a move above the 0.6950 resistance zone. There was a clear move above the 0.7000 resistance zone and the 50 hourly simple moving average. The pair traded as high as 0.7072 on FXOpen and is currently correcting gains. There was a move below the 0.7025 support zone. AUD/USD Hourly Chart The pair is now trading near the 50% Fib retracement level of the upward move from the 0.6949 swing low to 0.7072 high. On the downside, an initial support is near the 0.7000 level. There is also a key bullish trend line forming with support near 0.7000 on the hourly chart of AUD/USD. The trend line is near the 61.8% Fib retracement level of the upward move from the 0.6949 swing low to 0.7072 high. The next support could be the 0.6950 level. If there is a downside break below the 0.6950 support, the pair could extend its decline towards the 0.6900 level. Any more downsides might send the pair toward the 0.6850 level. On the upside, the AUD/USD pair is facing resistance near the 0.7040 level. The next major resistance is near the 0.7075 level. A close above the 0.7075 level could start a steady increase in the near term. The next major resistance could be 0.7150. Read Full on FXOpen Company Blog...
  3. আজ শুক্রবার মার্কিন ডলার প্রধান কারেন্সিগুলোর বিপরীতে ফেব্রুয়ারির পরবর্তীতে সবচেয়ে খারাপ সপ্তাহের দিকে যাত্রা শুরু করেছে। ডলারের প্রাইস কমে বর্তমানে ১০২.৯৫-এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। গত শুক্রবার মার্কিন ডলার ২০০৩ সালের পরবর্তীতে সর্বোচ্চ ১০৫.১১- তে উঠলেও চলতি সপ্তাহে ১.৪২% কমেছে। এমনকি ফেডারেল রিজার্ভ হকিশ অবস্থানে থাকলেও কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে চীনের লকডাউন শিথিলতা নিরাপদ কারেন্সি ডলারের চাহিদা হ্রাস করছে। মে মাসের শুরুতে মার্কিন ট্রেজারি ইয়েলড ৩.২% বেড়ে সাড়ে তিন বছরের সর্বোচ্চে উঠলেও তিন সপ্তাহের মধ্যে ২.৭২%-এ নেমে এসেছে। OANDA-এর সিনিয়র বিশ্লেষক এডওয়ার্ড মোয়া ক্লায়েন্টদের উদ্দেশ্য করে একটি নোটে লিখেছেন, বোর্ড জুড়ে ডলারের দুর্বলতা আরও কিছুক্ষণ থাকতে পারে। মার্কিন ডলারের প্রাইস কমার ফলে রাতারাতি গোল্ডের প্রাইস বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। এদিকে চীনের লকডাউন শিথিলতাকে কেন্দ্র করে আজ শুক্রবার এশিয়ান স্টকগুলো রিকভার হতে শুরু করেছে। সুইস ফ্রাঙ্ক ২০২০ সালের মার্চের পরবর্তীতে সবথেকে ভাল পারফর্ম করছে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  4. Nasdaq-তালিকাভুক্ত সফটওয়্যার কোম্পানি মাইক্রোস্ট্র্যাজির সিইও মাইকেল স্যালর বৃহস্পতিবার ফাইন্যান্স লাইভের সাথে একটি সাক্ষাৎকারে Bitcoin সম্পর্কে আলোচনা করেন। Nasdaq হলো স্টক মার্কেট নিউ ইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত একটি আমেরিকান স্টক এক্সচেঞ্জ। এটি নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জের পেছনে লেনদেন করা শেয়ারের মার্কেট ক্যাপিটাল স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। Bitcoin বর্তমানে সেল প্রেশারে থাকা সত্ত্বেও মাইকেল স্যালর বুলিশ অবস্থানে রয়েছে। মাইক্রোস্ট্র্যাজির কোম্পানির কাছে বর্তমানে ১২৯,২১৮ Bitcoin হোল্ডিংয়ে রয়েছে। সিইও তার আলোচনায় জোর দিয়ে বলেন, আমরা দীর্ঘমেয়াদে Bitcoin হোল্ড করতে চাচ্ছি। তিনি আরও বলেন: ‘‘আমাদের কৌশল হল Bitcoin বাই এবং হোল্ড করে রাখা। Bitcoin সম্পর্কে আমাদের নির্দিষ্ট কোন প্রাইস নেই যেখানে আমরা সেল করবো। বর্তমান লক্ষ্য Bitcoin বাই করা। আলোচনার এক পর্যায়ে বলেন: আমি আশা করি Bitcoin মিলিয়নে যেতে চলেছে। সুতরাং আমরা খুব ধৈর্যশীল এবং এটাকে ভবিষ্যত সম্পদ হিসেবে গ্রহণ করছি। Microstrategy-এর CEO-এর কাছে LUNA এবং UST-এর বিপর্যয় সম্পর্কে মতামত জানতে চাওয়া হলে বলেন: আমি মনে করি LUNA এবং UST- এর এই বিপর্যয়, যা স্টেবলকয়েন এবং সিকিউরিটি টোকেনগুলোকে ত্বারান্বিত করবে এবং ক্রিপ্টো শিল্পের জন্য ভাল জিনিস হবে। তিনি আরও বলেন: সময়ের সাথে সাথে, মানুষ শিখতে থাকে এবং তারা আরও প্রস্তুত হয়, আমি মনে করি মার্কেট এই ডাউনট্রেন্ড থেকে পুনরুদ্ধার হবে। গত বছরের ডিসেম্বরে বলেছিলেন, Bitcoin ১০০ ট্রিলিয়ন ডলারের সম্পদ হিসেবে আবির্ভূত হবে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  5. পাকিস্তানি ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জের একজন নির্বাহী বলেন, পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ যদি ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেনের উপর ১৫% কর আরোপের ডিসিশন নেয় তবে ইসলামাবাদ অন্তত ৯০ মিলিয়ন ট্যাক্স রাজস্ব আয় করতে পারে। রেইন ফাইন্যান্সিয়াল ইনকর্পোরেডের কান্ট্রি জেনারেল ম্যানেজার জিশান আহমেদ দ্য ইন্টারন্যাশনাল নিউজে প্রকাশিত মন্তব্যে বলেন, পাকিস্তানের প্রতিবেশী ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যে বিলিয়ন ডলারের কর রাজস্ব পাচ্ছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারত ক্রিপ্টো ট্রেডিং থেকে অর্জিত লাভের উপর ৩০% করের মাধ্যমে বিলিয়ন ডলার সংগ্রহ করছে। আমরা ১৫% ট্যাক্স দিয়ে শুরু করতে পারি। পাকিস্তানে ক্রিপ্টোকে যেভাবে দেখা হচ্ছে আহমেদের সাথে একমত ছিলেন তার সহযোগী নির্বাহী আতিকা লতিফ, ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জের পাবলিক পলিসির পরিচালক। নির্বাহী আতিকা লতিফ বলেন, তার কোম্পানি ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পর্কে নিয়ন্ত্রকদের ধারণা পরিবর্তন করতে সহায়তা করছে। ‘‘আমরা এসবিপি, পিটিএ, এফবিআর এবং বিভিন্ন নিয়ন্ত্রকদের সাথে ক্রমাগত যোগাযোগ করছি এবং তাদের সহায়তা করার জন্য প্রস্তুত থাকব,’’ লতিফ আরও বলেন পাকিস্তান সরকার বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য কমিটি গঠন করেছে। আশা করা হচ্ছে, কমিটিগুলো ক্রিপ্টোকারেন্সিকে ইতিবাচক হিসেবে বিবেচনা করবে। লতিফ ইতিমধ্যে স্বীকার করেছেন পাকিস্তান সরকারের ডিসিশন নিতে ১২ থেকে ১৪ মাস সময় লাগতে পারে। বাংলাদেশের প্রতিবেশি দেশ ভারত ইতিমধ্যে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে ট্যাক্স আরোপ করেছে। পাকিস্তানও একই পথে যাচ্ছে। বাংলাদেশও খুব তাড়াতাড়ি একই রাস্তায় যাবে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  6. Last week
  7. ETHUSD and LTCUSD Technical Analysis – 19th MAY, 2022 ETHUSD: Double Top Pattern Below $2,121 Ethereum was unable to sustain its bullish momentum last week, and after touching a high of 2,151 on 16th May started to decline heavily against the US dollar. We can see the continuation of the bearish momentum this week, and the decline continues pulling down the prices of Ethereum below the 2,000 handle in the European trading session today. With the increase in the market liquidity many of the medium-term investors are selling their stakes amid the ongoing proposed Ethereum 2.0 network upgrade. The prices touched an intraday low of $1,902 in the Asian trading session, and an intraday high of $1,971 in the European trading session today. We can clearly see a double-top pattern below $2,121 which is a bearish pattern and signifies the end of a bullish phase and the start of a bearish phase in the markets. ETH is now trading just below its pivot level of 1,954 and moving into a consolidation channel. The price of ETHUSD is now testing its classic support level of 1,917, and Fibonacci support level of 1,945 after which the path towards 1,800 will get cleared. The relative strength index is at 43 indicating a WEAK demand for Ethereum and the continuation of the bearish trend. The StochRSI is indicating an overbought level which means that the price is due to decline further in the short term. Most of the technical indicators are giving a STRONG SELL market signal. All of the moving averages are giving a STRONG SELL signal, and we are now looking at the levels of $1,900 to $1,800 in the short-term range. ETH is now trading below its 100 hourly and exponential MAs. Ether: a bearish reversal seen below the mark of $2,121 Short-term range appears to be mildly BEARISH The daily RSI is below 50 at 32 indicating a bearish market The average true range is indicating LESS market volatility Ether: Bearish Reversal Seen Below $2,121 ETHUSD is now moving in a mildly bearish channel with the prices trading below the $2,000 handle in the European trading session today. We can see an SMA10 crossover pattern located at 1,940, which means that a potential bullish reversal is possible after touching these levels. We have detected a bearish harami crossover pattern in the M15 chart which further validates the ongoing trends in the markets. The key resistance levels to watch are $1,966 and $1,990, and the prices of ETHUSD need to cross these levels for a potential bullish reversal. ETH has declined by 4.41% with a price change of 89.48$ in the past 24hrs, and has a trading volume of 18.320 billion USD. We can see an Increase of 5.27% in the total trading volume in the last 24 hrs which appears to be normal. The Week Ahead The ongoing correction in the prices of Ethereum is also because of the pending ETH 2.0 network upgrade which is delayed from its original schedule. Many of the Ethereum investors are willing to wait till the new upgrade is launched before investing their funds. The immediate short-term outlook for Ether has turned mildly BEARISH; the medium-term outlook has turned neutral; and the long-term outlook for Ether is NEUTRAL in present market conditions. This week, Ether is expected to move in a range between $1,800 and $2,000, and next week, it is expected to enter into a consolidation phase above the level of $2,000. Technical Indicators: The Williams percent range: at -55.74 indicating a SELL The moving averages convergence divergence (12,26): at -20.99 indicating a SELL The ultimate oscillator: at 47.46 indicating a SELL The rate of price change: at -1.364 indicating a SELL Read Full on FXOpen Company Blog...
  8. চলতি সপ্তাহের প্রথম দুদিন EURUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও বুধবার কমেছিল। যদিও EURUSD গত কয়েক মাস ডাউনট্রেন্ডে রয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মিটিং রয়েছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, ব্যাংক ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধি করার কথা বলবে বা হকিশ অবস্থানে থাকবে। যা ডলারের বিপরীতে আজকের সেশনে ইউরোকে শক্তিশালী করেছে। বিশ্বব্যাপী মুদ্রাস্ফীতি এবং ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে বিনিয়োগকারীরা উদ্বিগ্ন হওয়ার ফলে ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। বৃহস্পতিবার প্রায় দুই মাসের মধ্যে প্রথমবারের মতো সাংহাইয়ের বাসিন্দাদের কেনাকাটা করার স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, খুব তাড়াতাড়ি চীন ইকোনমিক কার্যকলাপ শুরু করবে। যা পরোক্ষভাবে ডলারের প্রাইসকে প্রভাবিত করতে পারে। এদিকে মার্কিন ডলার গত তিনদিন কমলেও গতকাল বৃদ্ধি পেয়েছিল। আজকের সেশনে পুনরায় কমতে শুরু করেছে। ডলার বর্তমানে ১০৩.৭৭ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। ডয়েচে ব্যাংকের বৈদেশিক ‍মুদ্রার প্রধান গবেষক ডয়েচে জর্জ সারাভেলোস বলেন: আমরা এখন এমন একটি পর্যায়ে রয়েছি যেখানে আর্থিক অবস্থার আরও অবনতি ফেডের কড়াকড়ির প্রত্যাশাকে ক্ষুন্ন করে। বিনিয়োগকারীদের বর্তমান নজর ইউরোপিয়ান কেন্দ্রী ব্যাংকের দিকে। যা EURUSD পেয়ারের মুভমেন্টে প্রভাব ফেলতে পারে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  9. গত কয়েকমাস USDJPY পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও চলতি মাস থেকে কমতে শুরু করেছে। অনেক বিশেষজ্ঞদের ধারণা, ফেডারেল রিজার্ভের আক্রমনাত্মক ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধি পেয়ারটিকে পুনরায় দুই দশকের সর্বোচ্চে (১৩১.০০) নিয়ে যেতে পারে। USDJPY বর্তমানে ১২৭.৮৫ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট হিসেবে দেখা হচ্ছে ১২ মে-এর সর্বনিন্ম প্রাইস ১২৭.৫২। ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ২৬ এপ্রিলের নিন্ম প্রাইস ১২৬.৯৫। বর্তমানে পেয়ারের রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১২৮.০০। ১৪ দিনের RSI ইনডিকেটর অনুয়ায়ী অনুয়ায়ী পেয়ারটি ৫০ পয়েন্ট অতিক্রমের চেষ্টা করছে। USDJPY পেয়ার ৫০ অতিক্রমে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। অন্যথায় পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যাচ্ছে। USDJPY ২০ ও ৫০ EMA অনুযায়ী ১২৮.৯৭ ও ১২৯.২৪ রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমের পরবর্তীতে ১৩০.০০ রেজিস্ট্যান্সে যেতে পারে। পরবর্তীতে ১৩০.০০ অতিক্রমের পরবর্তীতে পুনরায় দুই দশকের সর্বোচ্চ প্রাইস ১৩১.৩৫ যেতে পারে। অপরদিকে পেয়ার মে মাসের ১২ তারিখের নিন্ম প্রাইস ১২৭.৫২ অতিক্রমের পরবর্তীতে ২৬ এপ্রিলের নিন্ম প্রাইস ১২৬.৯৫-তে যেতে পারে। পরবর্তী সাপোর্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ১৩ এপ্রিলের সর্বোচ্চ প্রাইস ১২৬.৩২। USDJPY চার ঘন্টার চার্ট ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  10. এপ্রিলে মালয়েশিয়ার বাণিজ্য ভারসাম্য কমেছে! আজ বৃহস্পতিবার মালয়েশিয়ার পরিসংখ্যান অফিসের তথ্য দেখিয়েছে যে, এপ্রিলে মালয়েশিয়ার বাণিজ্য ভারসাম্য হ্রাস পেয়েছে এবং রপ্তানি ও আমদানি কম গতিতে বৃদ্ধি পেয়েছে। মার্চ মাসে 25.3 শতাংশ বৃদ্ধির পর এপ্রিল মাসে রপ্তানি বছরে 20.7 শতাংশ বেড়েছে। অর্থনীতিবিদরা 19.7 শতাংশ বৃদ্ধির আশা করেছিলেন। এপ্রিল মাসে আমদানি বার্ষিক 22.0 শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা আগের মাসে 29.9 শতাংশ বৃদ্ধির পরে। অর্থনীতিবিদরা 22.0 শতাংশ বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছেন। মার্চ মাসে MYR 26.648 বিলিয়ন থেকে এপ্রিলে বাণিজ্য উদ্বৃত্ত MYR 23.548 বিলিয়ন কমেছে। গত বছরের একই মাসে, উদ্বৃত্ত ছিল MYR 20.359 বিলিয়ন। ঋতুভিত্তিক সামঞ্জস্যের ভিত্তিতে, মার্চ মাসে রপ্তানি কমেছে 2.8 শতাংশ এবং আমদানি কমেছে 3.3 শতাংশ। ইকোনমিক নিবন্ধটিগুলো পেতে ভিজিট করুন: https://cutt.ly/xRPEzX9 *মার্কেট এর নিউজ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  11. EUR/USD-এর টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস, ১৯ মে, ২০২২ এনালাইসিসটি তৈরী করেছেন ইন্সটা ফরেক্স টিমের এনালিটিক্যাল এক্সপার্ট সেবাস্টিয়ান সেলিগ (Sebastian Seliga) টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুসারে মার্কেট পরিস্থিতি: EUR/USD পেয়ার 1.0564-এর স্তরে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে এবং বাজার অতিরিক্ত ক্রয় অঞ্চল থেকে বেরিয়ে আসছে। বাজারের বিয়ারিশ প্রবণতার সীমানা 1.0635-এর স্তরে অবস্থিত। তাই বুলিশ প্রবণতার আবার র্যালি করার প্রচেষ্টা চালানোর আগে বিয়ারিশ নিম্নমুখী প্রবণতা পুনরায় অব্যাহত রাখার চেষ্টা করার সম্ভাবনা বেশি। পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করে মনে হচ্ছে বুলিশ প্রবণতা প্রদর্শন করে মূল্যের আরও উপরে উঠার সম্ভাবনা নেই। দৈনিক এবং সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমের চার্টে অতিরিক্ত বিক্রয় বাজার পরিস্থিতির নিম্নমুখী প্রবণতার ধারাবাহিকতা নির্দেশ করে এবং এখনও প্রবণতা শেষ বা বিপরীতমুখী হওয়ার কোন ইঙ্গিত নেই। নিকটতম প্রযুক্তিগত সহায়তা 1.0529 এবং 1.0469-এর স্তরে দেখা যাচ্ছে। সাপ্তাহিক পিভট পয়েন্ট: WR3 - 1.0771 WR2 - 1.0681 WR1 - 1.0526 সাপ্তাহিক পিভট - 1.0438 WS1 - 1.0274 WS2 - 1.0195 WS3 - 1.0032 ট্রেডিংয়ের দৃষ্টিভঙ্গি: বাজার এখনও বুলিশ প্রবণতার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে যা মূল্যকে 1.0639-এর স্তরের নীচে ঠেলে দিয়েছে, তাই দীর্ঘমেয়াদে উর্ধ্বমুখী প্রবণতার জন্য বুলিশ প্রবণতাকে অপরিহার্যভাবে এই স্তরের উপরে একটি ব্রেকআউট করতে হবে। 1.1186-এর স্তরে অবস্থিত পরবর্তী দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যমাত্রার দিকে উর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত রাখা যেতে পারে শুধুমাত্র যদি বুলিশ চক্রের দৃশ্যপটে 1.0726 স্তরের উপরে ব্রেকআউট নিশ্চিত করা হয়। অন্যথায় বুলিশ প্রবণতা এই পেয়ারের মূল্যকে পরবর্তী দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যমাত্রা 1.0336 বা আরও নীচের স্তরে ঠেলে দিবে। ফরেক্স টেকনিক্যাল অ্যনালাইসিসগুলো পেতে ভিজিট করুন: https://cutt.ly/LfRWnM6 *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  12. অস্টেলিয়ার জব রিপোর্টের পূর্বে AUDUSD পেয়ার নির্দিষ্ট রেঞ্জের মধ্যে মুভমেন্ট করছে। AUDUSD পেয়ারের এক ঘন্টার চার্টে দেখা যাচ্ছে, AUDUSD পুলব্যাগের চেষ্টা করছে। এপ্রিলের মাঝিমাঝি থেকে পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড তীব্র হতে থাকে। বর্তমানে পেয়ারটি পুনরায় ০.৭০০০০ থেকে ০.৭১০০০ প্রাইসের মাঝামাঝির রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমের চেষ্টা করছে। টেকনিক্যাল ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ারটি ১০০ - ২০০ SMA-এর উপরে অবস্থান করছে। যা পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধির সম্ভাবনা বৃদ্ধি করছে। অপরদিকে ফান্ডামেন্টালি মার্কিন ডলারের বিপরীতে অস্টেলিয়ান ডলার দুর্বল হতে পারে। এর ফলে বিয়ারিশ অবস্থান শক্তিশালী হলে সুইং লো ০.৬৮৩০ অতিক্রমের পরবর্তীতে চ্যানেলের বটোম ০.৬৮০০ অতিক্রম করতে পারে। মার্কিন রিটেইল সেলস রিপোর্ট প্রত্যাশার চেয়ে বেশি শক্তিশালী হওয়ায় ডলার শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। যাইহোক, AUDUSD পরবর্তী মুভমেন্টের ক্ষেত্রে অস্টেলিয়ান জব রিপোর্ট গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে এপ্রিলে বেকারত্বের হার অপরিবর্তনীয় থাকলেও জব ২০ হাজার ৩০০ থেকে বেড়ে ৩০ হাজার আসতে পারে। চীনা কোভিড-১৯ কিছুটা কমতে শুরু করেছে, এর ফলে অস্টেলিয়ান ডলার রিকভার করলেও শক্তিশালী অস্টেলিয়ান ডলার বিপরীতে প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  13. USD/JPY পেয়ারের পূর্বাভাস, ১৯ মে, ২০২২ বুধবার, দৈনিক টাইমফ্রেমে মার্লিন অসিলেটরের হ্রাসের সাথে USD/JPY পেয়ারের মূল্য 116 পয়েন্ট কমেছে। লাল ব্যালেন্স সূচক লাইন বিয়ারিশ প্রবণতার বিকাশে বাধা প্রদান করেছে এবং এই লাইন মূল্যের কাছাকাছি পৌঁছেছে। কিন্তু এই পেয়ারের মূল্য প্রবণতা মূলত নিম্নমুখী এবং এটি বিদেশী বাজারের স্টক সূচকের পতনের কারণে হয়েছে। গতকাল S&P 500 সূচকের 4.04% পতন হয়েছে। ইয়েনের প্রথম লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে 126.95-এর স্তর। ইয়েনের দ্বিতীয় লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে 125.11 যা 28শে মার্চের সর্বোচ্চ লেভেল। চার ঘন্টার চার্টে, ব্যালেন্স এবং MACD লাইনের নীচে এই পেয়ারের মূল্যপতন হচ্ছে। মার্লিন অসিলেটর বিয়ারিশ প্রবণতার অঞ্চলে স্থির অবস্থান গ্রহণ করেছে। আমরা আরও দরপতনের জন্য অপেক্ষা করছি। *এখানে পোস্ট করা মার্কেট বিশ্লেষণ আপনার সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রদান করা হয়, ট্রেড করার নির্দেশনা প্রদানের জন্য প্রদান করা হয় না। বিভিন্ন পেয়ারের ফরেক্স আনাল্যসিসগুলো পেতে এই লিঙ্কটি ভিজিট
  14. এপ্রিলে অস্ট্রেলিয়ার বেকারত্বের হার ৩.৯%-এ নেমে এসেছে বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার পরিসংখ্যান ব্যুরো জানিয়েছে যে, এপ্রিলে অস্ট্রেলিয়ায় ঋতুভিত্তিক সমন্বয়কৃত বেকারত্বের হার 3.9 শতাংশে নেমে এসেছে। এই ফলাফল প্রত্যাশার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ রেখে এবং মার্চ মাসের 4.0 শতাংশ থেকে হ্রাস পেয়েছে। এপ্রিলে অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতিতে 4,000টি কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। এটি মার্চ মাসে সৃষ্ট 17,900টি নতুন কর্মসংস্থানের তুলনায় অনেক কম। এপ্রিল মাসে 30,000 টি নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল। দেশটিতে 92,400টি পূর্ণ-কালীন কর্মসংস্থান, সৃষ্টি হয়েছে, তবে 88,400টি খণ্ডকালীন কর্মসংস্থান হ্রাস পেয়েছে। চাকরিতে অংশগ্রহণের হার 66.3-এ নেমে এসেছে, যা মার্চ মাসের প্রাপ্ত ফলাফল 66.4-এ অপরিবর্তিত থাকবে বলে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল। আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  15. রাশিয়ার বাণিজ্যমন্ত্রী ডেনিস মান্টুরভ বলেছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং সরকার উভয়ই সক্রিয়ভাবে ক্রিপ্টো পেমেন্টে বৈধতা দিতে চাচ্ছে। তবে প্রশ্ন হল এটি কখন থেকে, কীভাবে ঘটবে এবং কীভাবে নিয়ন্ত্রিত হবে তা স্পষ্ট করেনি। রাশিয়ার ফেডারেশনের শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রধান ডেনিস মান্টুরভের মতে, রাশিয়া ক্রিপ্টো পেমেন্টকে শীঘ্রই বৈধতা দিতে যাচ্ছে। যদিও রাশিয়া সরকার ২০২২ সালে ক্রিপ্টোকারেন্সির বৈধতা নিয়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিলেও ডিজিটাল কারেন্সিতে পেমেন্টের বিষয়ে এখনও নির্দিষ্ট নীতি চূড়ান্ত করতে পারেনি। যাইহোক রাশিয়ার অর্থ মন্ত্রণালয় এপ্রিল থেকে ‘‘অন ডিজিটাল কারেন্সি’’ বিলের মাধ্যমে পেমেন্টকে বৈধ করার সুপারিশ করেছে। দেশটির স্থানীয় মিডিয়া আউটলেট TASS থেকে ১৯ মে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, এ সপ্তাহে নিউ হরাইজন শিক্ষামূলক ফোরামে মান্টুরভকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, কিপ্টো পেমেন্ট বৈধ করছেন কিনা? উত্তরে তিনি বলেন প্রশ্ন হল এটি কখন ঘটবে, কীভাবে ঘটবে এবং কীভাবে নিয়ন্ত্রিত হবে। এ বিষয়গুলো নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং সরকার উভয়ই এতে সক্রিয়ভাবে নিয়োজিত রয়েছে। কিন্তু প্রত্যেকেই এটা বুজতে পারছে এটি সময়ের একটি প্রবণতা এবং শীঘ্রই সরকার চালু করবে। তিনি আরও বলেন, ক্রিপ্টো পেমেন্টের সবগুলো আইনী নিয়ম অনুযায়ী হবে। রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক (CBR) এবং অর্থ মন্ত্রনালয় সম্প্রতি ক্রিপ্টো রেগুলেশনের উপর সম্পূর্ণ বিরোধী মত পোষণ করেছিল। যাইহোক, ইউক্রেনের চলমান আক্রমণের পর CBR গত মাসে স্বীকার করেছে ক্রিপ্টোর প্রতি খুব বেশি আক্রমনাত্মক অবস্থান নেওয়া হয়েছে যা এই সেক্টরের বৃদ্ধিকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। ব্যাংকের গর্ভনর এলভিরা নাবিউলিনা উল্লেখ করেছেন দেশের উপর স্থপিত অসংখ্য অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো এড়াতে জিডিটাল কারেন্সিগুলো কাজ করবে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  16. গত সপ্তাহে ফাইন্ডারের বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল Shiba Inu (SHIB) ক্রিপ্টোকারেন্সির মৃত্যুর পূর্বাভাস দিয়েছে। প্যানেলটি Shiba Inu পরবর্তী দশকে কিভাবে পারফর্ম করবে সে সম্পর্কে তাদের চিন্তাভাবনার জন্য ফাইন্ডার এপ্রিল মাসে ৩৬ জন ফিনটেক বিশেষজ্ঞের প্যানেল জরিপ করেছে। তাদের মতে, মেম কয়েন Shiba Inu-কে তারা ভালভাবে দেখছে না, ফাইন্ডারের সংখ্যাগরিষ্ঠ বিশ্বাস করে মেম ক্রিপ্টোর প্রাইস শেষ পর্যন্ত শূন্যে নেমে আসবে। প্যানেলের ৭৩% বলেন, Shiba Inu এখন সেল করার সময়। প্যানেলটি তাদের সমীক্ষায় ব্যাখ্যা করেন, প্যানেল আশা করছে ২০২২ সালের শেষ নাগাদ কয়েনটি ৭.৬% কমে ০.০০০০১৮৭৫ ডলারে যাবে। যদিও ইতিমধ্যে Shiba Inu ২০২২ সালের শেষ নাগাদের পূর্বাভাস অতিক্রম করে ০.০০০০১১৮৭-তে অবস্থান করছে। ফাইন্ডার Bitcoin.com নিউজকে বলেছেন: প্যানেলের ৭০% বলেছেন ২০৩০ সালের শেষ নাগাদ SHIB এর কোন মূল্য থাকবে না। বিশেষভাবে,‘‘প্যানেল আশা করছে টোকেনের মান কমতে থাকবে এবং ২০২৫ ও ২০৩০ সালের শেষ নাগাদ ০.০০০০০০৩২৫ যেতে পারে। প্যানেলের একজন বিশেষজ্ঞ ছিলেন ম্যাথু হ্যারি, ডিজিটালক্স অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের প্রধান। তিনি আশা করেন ক্রিপ্টো মার্কেট পরিপক্ক হওয়ার সাথে সাথে SHIB-সহ মেম কয়েনগুলো সম্পূর্ণরূপে অদৃশ্য হয়ে যাবে। প্যানেলের আরেকজন বিশেষজ্ঞ ছিলেন সুইনবার্ন ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজির ফিনটেক লেকচারার দিমিত্রিওস সালামপাসিস, তিনিও একই রকম ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন SHIB শেষ পর্যন্ত মূল্যহীন হয়ে যাবে। তার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল Shiba Inu সেল বা হোল্ড করার সময় এসেছে কিনা। তিনি উত্তর দেন আমাদের প্যানেলের ৭৩% বলেন, এখন সেল করার সময় ও ২৩% বলেন শিবা ইনু এখন হোল্ড করে রাখা উচিত এবং মাত্র ৩% বলেন বাই করা উচিত। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  17. রয়টার্স প্রতিবেন অনুযায়ী, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড (BOE)-এর আর্থিক স্থিতিশীলতার জন্য ডেপুটি গর্ভনর স্যার জন কানলিফ মঙ্গলবার ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল সম্মেলনে ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারীদের সতর্কবার্তা দিয়েছেন। ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের নির্বাহী সতর্ক করেছেন ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারীদের সামনে আরও কঠিন সময়ের আশা করা উচিত। তিনি ব্যাখ্যা করেন বিশ্বজুড়ে ফেডারেল রিজার্ভ এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো আর্থিক নীতি কঠোর করার ফলে বিনিয়োগকারীরা নিরাপদ সম্পদের প্রতি আকৃষ্ট হবে। ক্রমবর্ধমান সুদের হার ক্রিপ্টোকারেন্সিরগুলোর উপর চাপ বাড়াবে কিনা সে সম্পর্কে একটি প্রশ্নের উত্তরে কানলিফ বলেন: হ্যাঁ, আমি মনে করি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই প্রক্রিয়াটি চলতে থাকলে আমরা অনেক বিনিয়োগকারীদের ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ থেকে সরে যেতে দেখব। মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েল গত সপ্তাহে বলেছিলেন, মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি ২% লক্ষ্যমাত্রায় নেমে যাওয়ার ‘‘স্পষ্ট এবং বিশ্বাসযোগ্য’’ প্রমাণ না পাওয়া পর্যন্ত ফেড তাদের আর্থিক নীতি কঠোর করতে থাকবে। যা ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে থাকবে। গত বছরের নভেম্বরে কানলিফ বলেছিল, ব্রিটিশ আর্থিক ব্যবস্থার স্থিতিশীলতার জন্য ক্রিপ্টোকারেন্সির হুমকি ‘‘ঘনিষ্ঠ হচ্ছে’’ এবং তিনি নিয়ন্ত্রকদের পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে। ডিসেম্বরে, তিনি বলেছিলেন ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর মূল্য তীব্রভাবে হ্রাস পেতে পারে, এমনকি অনেক কয়েন মূন্যে নেমে যেতে পারে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  18. ফরেক্স ব্রোকার XM নিয়ে এসেছে নতুন Everybody Wins প্রমোশন। এই ২ মাসব্যাপী প্রমোশনে ৩টি লেভেলে সব মিলিয়ে ট্রেডারদের ২ মিলিয়ন টাকা জেতার সুযোগ থাকছে। প্রমোশন চলবে ১৬ মে থেকে ১৫ জুলাই ২০২২ পর্যন্ত। নির্দিষ্ট লট ট্রেড করলেই প্রত্যেকে ট্রেডারই বিজয়ী হবেন এবং ২০০ ডলার পর্যন্ত নগদ পুরস্কার বা ট্রেডিং বোনাস পেতে পারেন। এছাড়াও লাকি ড্রয়ের মাধ্যমে থাকবে iPhone 13 Pro Max সহ চারটি প্রিমিয়াম পুরস্কার জিতে নেওয়ার সুযোগ। পুরস্কার লেভেল: 1 5 থেকে 200 ডলারের ট্রেডিং ব্যালেন্স জিততে 4 স্ট্রান্ডার্ড বা (400 মাইক্রো) লট অনুযায়ী ট্রেড করতে হবে। পুরস্কার লেভেল: 2 5 থেকে 200 ডলারের নগদ ব্যালেন্স জিততে 6 স্ট্যান্ডার্ড বা (600 মাইক্রো) লট অনুযায়ী ট্রেড করতে হবে। পুরস্কার লেভেল: 3 পুরস্কার লেভেলে 3-এ 10 স্ট্যান্ডার্ড বা (100 মাইক্রো) লট ট্রেড করলে 5 থেকে 200 ডলার নগদ ব্যালেন্স + লাকি ড্রতে প্রবেশ করার সুযোগ থাকছে। লাকি ড্রতে বিজয়ীরা পাবেন 1: iPhone 13 Pro Max 2: Samsung Galaxy S22+ 5G 3: iPad 9ম জেনারেশন 4: AirPods Pro পুরস্কার জেতার শর্তাবলী: 1. প্রমোশনে রেজিস্টেশনের পূর্বে কমপক্ষে 100 ডলার ব্যালেন্স সহ একটি রিয়েল MT4/MT5 অ্যাকাউন্ট দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এখন থেকে অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করুন: https://rb.gy/8poo9x 2. 16 মে থেকে 15 জুলাই 2022 পর্যন্ত ফরেক্স, গোল্ড বা সিলভার পেয়ার/ইনস্ট্রুমেন্ট ট্রেড করতে হবে। 3. প্রমোশন চলাকালীন সময়ে আপনার ট্রেডিং ভলিউমের উপর নির্ভর করে পুরস্কার লেভেল 1, 2 অথবা 3 এ প্রবেশ করতে পারবেন। এবং লাকি ড্র-তে পুরস্কার জিততে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এবং অংশ নিতে: https://rb.gy/yhp1mn
  19. ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর মধ্যে প্রধান Bitcoin-এর প্রাইস গত ছয় মাসে ৫০%-এর বেশি কমেছে। ২০২১ সালের নভেম্বরে Bitcoin-এর প্রাইস বেড়ে ৭০ হাজারে গেলেও বর্তমানে ৩২ হাজারের নিচে অবস্থান করছে। সময়ের সাথে সাথে ক্রিপ্টো মার্কেট ডাউনট্রেন্ডে যাচ্ছে। ক্রিপ্টো অ্যানালাইসিস্ট লার্ক ডেভিস একটি টুইটে বলেন, বিশ্ব নেতারা Bitcoin-কে আইনি কারেন্সি হিসেবে গ্রহণ করার বিষয়ে আলোচনা করার জন্য প্রায় এক বিলিয়ন লোকের প্রতিনিধিত্বকারী ৪৪ দেশ এল সালভাদরে বৈঠক করেছে। ক্রিপ্টো অ্যানালাইসিস্ট লার্ক ডেভিস-এর টুইটটি ক্রিপ্টো অনুসারীদের থেকে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া সংগ্রহ করেছে। অ্যানালাইসিস্টদের মতে, Bitcoin-কে আইনি কারেন্সি হিসেবে গ্রহণ করা আপট্রেন্ডে আনার জন্য যথেষ্ট নয়। Bitcoin-এর বর্তমান অবস্থান এখনও ২০১৯ সালের প্রাইসের তুলনায় সন্তুষ্টজনক মনে হচ্ছে। Bitcoin-এর প্রতি দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে এমন প্রফেশনার ট্রেডারদের অনেকে বিকটয়েন সংগ্রহ করছে এবং অনেকে সেল করে দিচ্ছে। অনেকে আবার পোর্টফোলিওকে কৌশল করে সাজিয়ে নিচ্ছে। আর্টিকেলটি লেখার সময় বর্তমানে গত ২৪ ঘন্টা বিটকয়েনের ট্রেডিং ভলিউম ২৫ বিলিয়ন ডলারে থেকে ৩০ হাজার ডলারের নিচে মুভমেন্ট করছে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  20. আজ বুধবার পাউন্ড এবং ইউরো আগের দিনের থেকে বেশিরভাগ প্রফিট অর্জনে চেষ্টা করছে। চীনে লকডাউন শিথিলতার প্রত্যাশা মার্কিন ডলারকে কিছুটা দুর্বল করছে। আজকের সেশনে EURUSD পেয়ার ১.০৫০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। যা এ সপ্তাহের সর্বোচ্চ প্রাইস। EURUSD পেয়ার রাতারাতি ১.১% বৃদ্ধি পেয়েছে। মার্চ মাসের পরবর্তীতে পেয়ারটি একদিনে সর্বোচ্চ বেড়েছে। অপরদিকে GBPUSD পেয়ারের প্রাইস গতকাল বেড়ে ১.২৫০০ প্রাইসে উঠলেও বর্তমানে ১.২৪৮০ এর কাছাছি মুভমেন্ট করছে। ব্রিটিশ বেকারত্বের হার ৪৮ বছরের সর্বনিন্মে নেমেছে। এদিকে ব্রিটিশ মুদ্রাস্ফীতিও বৃদ্ধি পাচ্ছে, এপ্রিলে মুদ্রাস্ফীতি ৯% বেড়েছে। যা ১৯৮০ এর দশকের শেষের দিকের পরবর্তীতে সর্বোচ্চ। তবে এপ্রিলে প্রত্যাশিত ৯.১%-এর তুলনায় কম ছিল। ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের গর্ভনর অ্যান্ড্রু বেইলি বলেন, ১৯৯৭ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে মুদ্রাস্ফীতির ক্রমবর্ধমান অবস্থা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। মার্কিন ডলার দুই সপ্তাহের মধ্যে সর্বনিন্ম প্রাইসে মুভমেন্ট করছে। গতকাল ব্রিটিশ বেকারত্ব রিপোর্ট বৃদ্ধির ফলে পাউন্ড আপট্রেন্ডে আসতে শুরু করেছে। কমনওয়েলথ ব্যাংক অফ অস্ট্রেলিয়ার কারেন্সি বিশেষজ্ঞ বলেন: চীন থেকে লকডাউন সংক্রান্ত কিছু ইতিবাচক নিউজ এবং শক্তিশালী ডেটার ফলে মার্কিন ডলার কিছুটা ডাউনট্রেন্ডে আসবে। চীনের সাংহাইতে টানা চতুর্থ দিন করোনা সংক্রামণ ধরা পরেনি। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, ১ জুন সাংহাই লকডাউন শিথিল করতে পারে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  21. USDJPY বুলিশ ধারাবাহিকতার সম্ভাবনা রয়েছে | ১৮ই মে ২০২২ চার্টে, MACD একটি বুলিশ মোমেন্টামে চলে যাওয়ার সাথে সাথে, আমাদের একটি বুলিশ পক্ষপাত রয়েছে যে মুল্য আমাদের প্রথম সাপোর্ট থেকে 128.996-এ বাড়বে যেখানে 38.2% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট এবং আনুভুমিক ওভারল্যাপ সাপোর্ট 129.603-এ আমাদের প্রথম রেজিস্ট্যান্স 129.603 দিগন্তের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। সুইং হাই রেসিস্ট্যান্স। বিকল্পভাবে, মূল্য প্রথম সাপোর্ট কাঠামো ভেঙ্গে 128.070-এ দ্বিতীয় সাপোর্টের দিকে যেতে পারে যেখানে অনুভূমিক সুইং লো সাপোর্ট। ট্রেডিং পরামর্শ এন্ট্রি: 128.996 এন্ট্রির কারণ: 38.2% ফিবনাচি রেসিসট্যান্স এবং আনুভূমিক ওভারল্যাপ সাপোর্ট টেক প্রফিট 129.603 টেক প্রফিটের কারণ:আনুভূমিক সুইং হাই রেসিস্ট্যান্স স্টপ লস: 128.070 স্টপ লসের কারণ: আনুভূমিক সুইং লো সাপোর্ট *এখানে পোস্ট করা মার্কেট বিশ্লেষণ আপনার সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রদান করা হয়, ট্রেড করার নির্দেশনা প্রদানের জন্য প্রদান করা হয় না। বিভিন্ন পেয়ারের ফরেক্স আনাল্যসিসগুলো পেতে এই লিঙ্কটি ভিজিট
  22. যুক্তরাজ্যের সিপিআই এবং পিপিআই প্রকাশের পরে পাউন্ডের পতন বুধবার ET সময় ভোর 2.00 am জাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয় পারিল মাসের যুক্তরাজ্যের ভোক্তা মূল্য এবং উৎপাদক মূল্য এর পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হয়েছে। এই ডাটা প্রকাশের পরে, পাউন্ড তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী মুদ্রাগুলোর বিপরীতে পতন হয়েছে। ET সময় 2:02 am তে পাউন্ড ডলারের বিপরীতে 1.2409, ইয়নের বিপরীতে 161.16, ফ্রাংকের বিপরীতে 1.2485 এবং ইউরো এর বিপরীতে 0.8439 এ লেনদেন হয়েছিল। আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  23. [B]বুধবার জাপানের জিডিপি ডেটা রিলিজ হবে৷![/B] জাপান আজ বুধবার মোট উৎপাদন এর প্রথম কোয়াটারের পণ্যের সংখ্যা প্রকাশ করবে, যা এশিয়ান সেশনে ট্রেডিংয়ের জন্য একটি বিশেষ দিন হবে। জিডিপি ত্রৈমাসিকে 0.4 শতাংশ এবং 1.8 শতাংশ প্রসারিত হওয়ার পরে ত্রৈমাসিকে 1.1 শতাংশ এবং আগের তিন মাসে 5.4 শতাংশে নেমে যাওয়ার আশা করা হচ্ছে৷ জাপানও শিল্প উৎপাদনের জন্য চূড়ান্ত মার্চ পরিসংখ্যান প্রদান করবে; ফেব্রুয়ারিতে, আউটপুট মাসে 2.0 শতাংশ এবং বছরের তুলনায় 0.5 শতাংশ বেড়েছে। অস্ট্রেলিয়া ওয়েস্টপ্যাক থেকে অগ্রণী অর্থনৈতিক সূচকের জন্য এপ্রিলের ফলাফল, সেইসাথে মজুরির জন্য Q1 ডেটা দেখতে পাবে। মার্চ মাসে, অর্থনৈতিক সূচক মাসে 0.3 শতাংশ বেড়েছে। মজুরির দাম ত্রৈমাসিকে 0.8 শতাংশ এবং আগের তিন মাসে 0.7 শতাংশ এবং বছরের তুলনায় 2.3 শতাংশ বৃদ্ধির পর বছরে 2.5 শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ চীন তার বাড়ির মূল্য সূচকের জন্য এপ্রিল সংখ্যা দেখতে পাবে; মার্চ মাসে, দাম বছরের তুলনায় 1.5 শতাংশ বেড়েছে। ইকোনমিক নিবন্ধটিগুলো পেতে ভিজিট করুন: https://cutt.ly/xRPEzX9 *মার্কেট এর নিউজ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  24. GBPUSD-এর বুলিশ বাউন্সের সম্ভাবনা রয়েছে | ১৮ মে, ২০২২ এনালাইসিসটি তৈরী করেছেন ইন্সটা ফরেক্স টিমের এনালিটিক্যাল এক্সপার্ট Dean Leo চার ঘন্টার চার্টে, GBPUSD-এর মূল্য ইচিমোকু ক্লাউডের উপর দিয়ে যাচ্ছে এবং আমাদের সাম্প্রতিক নিম্নমুখী ট্রেন্ডলাইন ভেদ করে গেছে। আমাদের কাছে একটি বুলিশ প্রবণতার পূর্বাভাস রয়েছে যে এই পেয়ারের মূল্য 23.60% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট এবং অনুভূমিক ওভারল্যাপ সাপোর্টের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ 1.23982-এ প্রথম সাপোর্ট থেকে অনুভূমিক সুইং হাই রেজিস্ট্যান্সের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ 1.26283-এ আমাদের প্রথম সাপোর্টে উঠবে। বিকল্পভাবে, এই পেয়ারের মূল্য প্রথম সাপোর্ট স্ট্রাকচার ভেদ করতে পারে এবং 1.22751-এ দ্বিতীয় সাপোর্টের দিকে যেতে পারে যা অনুভূমিক পুলব্যাক সাপোর্ট এবং 61.8% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট অবস্থিত। ট্রেডিংয়ের পরামর্শ এন্ট্রি: 1.23982 এন্ট্রির কারণ: 23.60% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট এবং অনুভূমিক ওভারল্যাপ সাপোর্ট টেক প্রফিট: 1.26283 টেক প্রফিটের কারণ: অনুভূমিক সুইং হাই রেজিস্ট্যান্স স্টপ লস: 1.22751 স্টপ লসের কারণ: অনুভূমিক পুলব্যাক সাপোর্ট এবং 61.8% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট *এখানে পোস্ট করা মার্কেট বিশ্লেষণ আপনার সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রদান করা হয়, ট্রেড করার নির্দেশনা প্রদানের জন্য প্রদান করা হয় না। আরো ফরেক্স বিশ্লেষন দেখুন: https://cutt.ly/LfRWnM6
  25. আজ বুধবার Bitcoin-এর প্রাইস ৩০ হাজার মার্কিন ডলারের উপরে অবস্থান করছে এবং Ethereum-এর প্রাইস ৪% বেড়ে ২ হাজার ডলারের উপরে মুভমেন্ট করছে। Bitcoin চলতি সপ্তাহের শরুতে Bitcoin-এর প্রাইস কমে ৩০ হাজারের নিচে অবস্থান করলেও আজ বুধবার ৩০ হাজারের উপরে অবস্থান করছে। গত সপ্তাহে Bitcoin ৩০ হাজারের নিচে নামায় ক্রিপ্টো মার্কেট অস্থির হয়ে উঠেছে, কারণ Bitcoin বর্তমানে নতুন রেজিস্ট্যান্স ও সাপোর্ট লেভেল খুঁজছে অর্থাৎ স্থির হতে পারছে না। Bitcoin-এর বর্তমান অবস্থানের পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান সাপোর্ট হিসেবে দেখা হচ্ছে ২৮ হাজার এবং রেজিস্ট্যান্স হিসেবে দেখা হচ্ছে ৩১ হাজার মার্কিন ডলার। চার্টে লক্ষ করে দেখা যাচ্ছে, Bitcoin-এর ১০ ও ২৫ দিনের চলমান গড় এখনও বিয়ারিশ সেন্টেমেন্ট দেখা যাচ্ছে। উভয় এখন ডাউনট্রেন্ডের দিকে নির্দেশ করছে। মার্কেটে অস্থিরতা বিরাজ করার কারণে ট্রেডাররা এখনও তাদের ডিসিশন নেয়ার ক্ষেত্রে মার্কেট পর্যবেক্ষণ করছে। Ethereum Bitcoin-এর প্রাইস বৃদ্ধির কারণে মঙ্গলবার Ethereum-এর প্রাইসও বেড়েছিল। সামগ্রিকভাবে গতকাল অধিকাংশ ক্রিপ্টোর প্রাইস বেড়েছিল। গতকাল Ethereum-এর প্রাইস কমে ১৯৮৮ ডলারে গেলেও, পরবর্তীতে ২০৯৪ ডলারে উঠেছিল। যা সোমবারের নিন্ম প্রাইস থেকে ৩% বেশি ছিল। যদিও ইথেরিয়ামের প্রাইস Bitcoin-এর নিয়ম অনুরণ করে থাকে। বর্তমানে ইথেরিয়ামের সাপোর্ট হিসেবে দেখা হচ্ছে ১৯৫০। অপরদিকে রেজিস্ট্যান্স হিসেবে দেখা হচ্ছে ২১৫০। ১৪ দিনের RSI ইনডিকেটর অনুযায়ী ইথেরিয়াম ৩৫ পয়েন্টের নিচে অবস্থান করছে। এক্ষেত্রে প্রাইস কমার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরদিকে Ethereum ৩৫ ব্রেকে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  26. লয়েড ব্ল্যাঙ্কফেইন একজন প্রাক্তন গোল্ডম্যান শ্যাক্স সিইও যিনি এখন ফার্মের সিনিয়র চেয়ারম্যান, রবিবার প্রচারিত সিবিএস নিউজের সাথে একটি সাক্ষাৎকারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আসন্ন মন্দা সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। তিনি জোর দিয়ে সতর্ক করেন, কোম্পানি এবং গ্রাহকদের এটির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। ব্ল্যাঙ্কফেইন ২০০৬ সেপ্টম্বর থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক গোল্ডম্যান স্যাক্সের চেয়ারম্যান এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তাকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল,‘‘আপনি কি মনে করেন আমরা মন্দার দিকে যাচ্ছি? ব্ল্যাঙ্কফেইন উত্তর দিয়েছেন: আমরা অবশ্যই মন্দার দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। এটি অবশ্যই আমাদের ঝুঁকির কারণ । তিনি আলোচনার এক পর্যায়ে বলেন, আমি যদি একটি বড় কোম্পানি চালাতাম, তাহলে এটির জন্য প্রস্তুত থাকতাম। আমি যদি একজন ভোক্তা হতাম তাহলেও আমি এর জন্য প্রস্তুত থাকতাম। মুদ্রাস্ফীতি সম্পর্কে ফেডারেল রিজার্ভের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘‘আমি মনে করি তারা ভাল সাড়া দিচ্ছে।’’ ব্ল্যাঙ্কফেইনকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, ফেড মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের জন্য যা প্রয়োজন তা করছে কিনা। উত্তরে তিনি বলেন: চাহিদার তুলনায় ভারসাম্যহীনতা রয়েছে এবং ফেডারেল রিজার্ভকে চাহিদা ধীর করার পরামর্শ দিয়েছে। গোল্ডম্যান সিইও বলেছেন: অর্থনীতিকে মন্থর করতে হবে, তাই ফেডকে তাদের ইন্টারেস্ট হার বাড়াতে হবে। তবে শ্রমশক্তির আকার বাড়াতে হবে। যেহেতু ক্রিপ্টোকারেন্সির প্রাইস সম্প্রতি ইক্যুইট মার্কেটের সাথে সম্পর্কযুক্ত হতে শরু করেছে, অর্থনেতিক প্রবৃদ্ধিতে মন্দা Bitcoin (BTC)-সহ ডিজিটাল সম্পদগুলোকে প্রভাবিত করতে পারে। টেসলার সিইও এলন মাস্কও মার্কিন মন্দার ব্যাপারে সতর্ক করেছেন। ফরেক্স এবং কিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিং শিখতে বিডিপিপসের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্কাইব করুন
  1. Load more activity


বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...