Jump to content

ফরেক্স নিউজ

  • entries
    348
  • comments
    9
  • views
    2,013

Contributors to this blog

  • মার্কেট আপডেট 348

About this blog

ফরেক্স ট্রেডিং সংক্রান্ত সব নিউজ, অ্যানালাইসিস এবং মার্কেট আপডেট পাবেন এখানেই।

Entries in this blog

গোল্ডের প্রাইস কমবে?

গতকাল গোল্ডের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১৮৩১-তে উঠলেও পরবর্তীতে ১৮১১ প্রাইসে ক্লোজ হয়েছিল। আজকের সেশনে গোল্ডকে নেতিবাচক অবস্থানে দেখা যাচ্ছে। গোল্ডের প্রাইস এ সপ্তাহে ট্রেডিং রেঞ্জের নিচের সীমানায় এসেছে। মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধির কারণে গোল্ড ২১ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ ১৮১১ এর কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে।  ফেড কর্ককর্তাদের হক্কিশ মন্তব্য এবং মুদ্রানীতি স্বাভাবি করণের প্রত্যাশা সামনে নিয়ে আসার পর বুধবার মার্কিন ডলারের প্রাইস বেশ ভালভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এশিয়ায় ডেল্টা কোভিডের ছড়িয়ে পড়া নিয়ে ব

০.৯২৬৪ রেজিস্ট্যান্সে যেতে পারে USDCHF-ক্রেডিট সুইস

USDCHF পেয়ারের প্রাইস দ্বিতীয় দিনের মতো বৃদ্ধি পাচ্ছে।  বর্তমানে পেয়ার ০.৯২২৩ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। ক্রেডিট সুইস অ্যানালাইসিস্টদের মতে, পেয়ারের প্রাইস বেড়ে ০.৯২৬৪ রেজিস্ট্যান্সে যেতে পারে।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৯৩৫৬। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ০.৯১৯৭। পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ০.৯১৩৮। ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ০.৯১৫ সাপোর্টে যেতে পারে। XM সকলে জিতবে প্রমোশনে $5-$400 নিশ্চিত পুরস্কার

১.৩৭৯৬ সাপোর্টে যেতে পারে GBPUSD – কমার্জব্যাংক

কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট অ্যাক্সেল রুডলফের মতে,  পেয়ারটি ১.৩৯০০ রেজিস্ট্যান্সের উপরে অবস্থান করছে।  তবে ১.৩৯০০ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। সেক্ষেত্রে  ১.৩৭৯৬ সাপোর্টে যেতে পারে। অপরদিকে GBPUSD আপট্রেন্ড অব্যাহত রাখতে সক্ষম হলে ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী এপ্রিলে মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.৩৯৭৭-তে যেতে পারে।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.৪০৮২।

USDCHF সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট (১৯ – ২৩ জুলাই, ২০২১)

সপ্তাহের শেষের দিন USDCHF পেয়ারের প্রাইস সবচেয়ে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছিল।  এর ফলে পেয়ার গত সপ্তাহের সর্বোচ্চ প্রাইসে উঠেছিল।  পেয়ারটি ০.৯২০০ প্রাইস অতিক্রমে সক্ষম হয়েছিল এবং আজকের সেশনের শুরুর দিকে পেয়ারের প্রাইস কমলেও পরবর্তীতে বৃদ্ধি পেয়ে ০.৯২০০ প্রাইসের উপরে অবস্থান করছে। এর ফলে নিরাপদ কারেন্সি হিসেবে সুইস ফ্রাঙ্কের বিপরীতে মার্কিন ডলারের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও কারেন্সি কয়েক সপ্তাহ ন্যারো রেঞ্জে মুভমেন্ট করছে।  যা USDCHF পেয়ারকে আরও উপরে তুলতে সক্ষম হবে কিনা

১.১৯৫০ প্রাইসে যেতে পারে EURUSD- ক্রেডিট সুইস

আজ মঙ্গলবার EURUSD সর্বোচ্চ ১.১৮৯০ প্রাইসে উঠলেও বর্তমানে ১.১৮৮০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  ক্রেডিট সুইস অ্যানালাইসিস্টদের মতে, পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১.১৯৪৯ যেতে পারে। পেয়ারটি ১.১৯৫০ প্রাইসে যাওয়ার পূর্বে কয়েকটি রেজিস্ট্যান্সের মুখোমুখি হতে হবে।  সেক্ষেত্রে পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ১.১৮৯৬ এবং পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.১৯৪৫ বা ৫০। পেয়ারের আপট্রেন্ড অব্যাহত থাকলে জুন মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৯৭৬ রেজিস্ট্যান্স হতে পারে।  ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ১.১৯৮৫ রেজ

ফেড মন্তব্যে বৃদ্ধি পাচ্ছে ডলারের প্রাইস

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের হাক্কিশ মন্তব্যের পরবর্তীতে মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে সপ্তাহের সর্বোচ্চে অবস্থান করছে। মার্কিন ডলরের প্রাইস বৃদ্ধির কারণে অন্যান্য কারেন্সিগুলোর প্রাইস বিপরীতে কমতে শুরু করেছে।  EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমে ১.১৮৩৩ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  যদিও গতকাল পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১.১৮৯৯-তে আসলেও ১.১৯০০ প্রাইসে যেতে ব্যর্থ হয়ে রাতারাতি কমে ১.১৮৩২ প্রাইসে ক্লোজ হয়েছে। এছাড়াও USDJPY পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১০৯.৭৫ এর কাছাকাছি

১.১৯৪৫ প্রাইসে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হচ্ছে EURUSD পেয়ারের- ক্রেডিট সুইস

ক্রেডিট সুইস অ্যানালাইসিস্ট, EURUSD  পেয়ারের ১৩ দিনের মুভমেন্ট পর্যালোচনা করে বলেন EURUSD ১.১৯১১-১৭ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে আসতে পারে। পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.১৯৪৫। মূলত শুক্রবার মার্কিন ননফার্ম পেরোলস রিপোর্ট প্রকাশের পরবর্তীতে পেয়ারের প্রাইস রিকভার হতে থাকে।  যদিও আজকের সেশনে পেয়ারের প্রাইস পুনরায় কমছে। তবে পরবর্তীতে বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারটি বর্তমানে ১.১৮৪৫ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। তবে EURUSD ১.১৮৮৫ প্রাইসে কিছুটা বাধা প্রাপ্ত হতে পারে। পেয়ারের আপট্রেন্ড

EURUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ০৬-১০ সেপ্টেম্বর,২০২১)

প্রত্যাশার নিচে মার্কিন জব রিপোর্ট ডলারের দুর্বলতা আরও বাড়িয়েছে। সপ্তাহের শেষের দিন অর্থাৎ শুক্রবার EURUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ৩০ জুলাইয়ের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৯১০-তে এসেছিল। ফেড চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েলের সিদ্ধান্তহীনতা এবং লোকাল জব মার্কেটের হাতাশাজনক তথ্য ইঙ্গিত দিচ্ছে টেপারিংয়ের গতি বিলম্বিত হতে পারে, যা এই সপ্তাহে ডলারের দুর্বলতাকে আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। পাওয়েলের মতে, মার্কিন জব ভিন্ন পথে ধীর গতিতে রিকভার করছে। সাম্প্রতিক সামষ্টিক অর্থনৈতিক সূচকগুলো তার কথা নিশ্চিত করেছে, যা

EURUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ২৩ – ২৭ আগস্ট, ২০২১)

সপ্তাহজুড়ে EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমলেও শেষের দিন বৃদ্ধি পেয়েছিল।  আজ সোমবার সপ্তাহের প্রথমদিন পেয়ার আপট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে।  গত সপ্তাহে EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমে ২০২০ সালের নভেম্বরের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.১৬৬০-তে গিয়েছিল। ফেড টেপারিং আলোচনা মার্কিন ডলার টেপারিং বৃদ্ধির সম্ভাবনা এবং করোনাভাইরাসের ডেল্টা ভেরিয়েন্টের প্রভাবে প্রভাবিত হচ্ছে।  এদিকে ফেডারেল রিজার্ভের পরবর্তী FOMC মিটিং মিনিটে টেপারিং বিষয়ে আলোচনা হবে। ফেড টেপারিং বৃদ্ধি করবে নাকি কমাবে সেটা মিটিংয়ের আলোচনায় ইঙ্গিত পাওয়া যাবে

জুনের সর্বনিন্ম প্রাইস অতিক্রমের পরবর্তীতে ১.১৭০৪ প্রাইসে যেতে পারে EURUSD – কমার্জব্যাংক

EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমে ১.১৮৫০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনসের মতে, পেয়ারটি  জুন মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.১৮৪৭ অতিক্রমের পরবর্তীতে ১.১৭০৪ প্রাইসে আসতে পারে। ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ৭৮.৬% অনুযায়ী  EURUSD মাসের নিন্ম প্রাইস অতিক্রমের পরবর্তীতে ১৮৩৫ প্রাইসে কিছুটা বাধা-প্রাপ্ত হতে পারে।  যা এপ্রিলের সর্বনিন্ম প্রাইস হতে পারে। পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে মার্চ মাসের নিন্ম প্রাইস ১.২০০০। অপরদিকে ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভাজের অনুযায়ী ১.২০৫০ রেজিস্ট্যান্স অতি

GOLD নির্দিষ্ট রেঞ্জে মুভমেন্ট করছে

গোল্ড ১৭৮০ প্রাইসের উপরে রিকভারের চেষ্টা করছে।  এক্ষেত্রে পেয়ারটি পুনরায় ১৭৭০ সাপোর্টেও আসতে পারে।  ডেল্টা কোভিডের ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের প্রতিক্রিয়া সত্ত্বেও মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। বেশ কিছুদিন গোল্ড ১৭৯৬-১৭৬০ রেঞ্জে মুভমেন্ট করছে।  প্রত্যাশা করা হচ্ছে, গোল্ড উল্লেখিত প্রাইস অতিক্রম ব্যতীত আপ-ডাউনট্রেন্ড সম্পর্কে সন্দেহ থেকে যাচ্ছে। আর্টিকেল লেখার সময় গোল্ড ১৭৮০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। গোল্ডের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ১৭৯৬ এবং সাপোর্ট ১৭৬০।  মার্কিন ডলার বর্তমা

US ডাটার পূর্বে ১.১৮০০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে EURUSD

আজ মঙ্গলবার ইউরোপিয়ান সেশন ওপেন হওয়ার পূর্বে ১.১৮০০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে EURUSD।  সপ্তাহের শুরুতে আশাবাদী ভাইরাস সম্পর্কিত সংবাদ এবং মূল ইভেন্টগুলোর পূর্বে পেয়ার বুলিশ অবস্থান ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। গত সপ্তাহের শেষের দিকে অস্ট্রেলিয়া এবং যুক্তরাজ্যে কোভিড সংখ্যা নমনীয় হওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মনভাব কিছুটা পজিটিভ হয়েছে।  যুক্তরাজ্য-অস্ট্রেলিয়ায় করোনা প্রভাব কিছুটা স্থিতিশীল হলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপে নতুন ডেল্টা ভাইরাসের ভয় দেখা দিচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র-চীনের কূটনীতিক

১.৪০০০ প্রাইসে যেতে পারে GBPUSD

ব্রিটেনে কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা কমার সাথে সাথে ব্রিটিশ পাউন্ডের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে।  দেশটিতে প্রতিদিন যেখানে ৫০ হাজারের মতো লোক আক্রান্ত হতো এখন তা ২০ হাজারের কাছাকাছি নেমে এসেছে। ব্রিটেন এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন উত্তরাঞ্চলীয় আইরিশ প্রোটোকলের উপর নতুন পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত রয়েছে।  যা পাউন্ডের প্রাইস বৃদ্ধির পেছেনে অন্যতম কারণ। ফরেক্স বিশেষজ্ঞ যোহয়ে এলামের মতে, পেয়ার ১.৩৯০০ প্রাইস অতিক্রম করেছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, GBPUSD পরবর্তীতে ১.৪০ প্রাইসের দিকে যেতে পারে। সবচেয়ে

০.৭৬৪৫-৭০ প্রাইসে যেতে পারে AUDUSD- কমার্জব্যাংক

মার্কিন ডলারের দুর্বলতাকে কেন্দ্র করে AUDUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ০.৭৬ এর দিকে যাচ্ছে। কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনসের মতে, পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৭৬৭০। জুন মাসের ৩ তারিখে পেয়ারকে ০.৭৬৪৫-৭০ প্রাইসে এসেছিল।  পেয়ারটি উক্ত রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমে সক্ষম হলে ২৫ জুনের সর্বোচ্চ প্রাইস ০.৭৬১৬ আসতে পারে।  ২০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৭৫৮৬। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট শুক্রবারের সর্বনিন্ম প্রাইস ০.৭৪৪৩।  পরবর্তী  সাপ

FOMC মিটিংয়ের পরবর্তীতে মার্কিন ডলারের প্রাইস বেড়ে ৩ মাসের সর্বোচ্চে উঠেছে

বিশ্বের সবথেকে বড় কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ জুন মাসের পলিসি মিটিংয়ে এ বিষটি নিশ্চিত করেছেন যে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তারা এ বছরে সম্পদ ক্রয়ের দিকে যাচ্ছেন। এ দিকে মার্কিন ডলার অন্যান্য প্রধান কারেন্সিগুলোর বিপরীতে  বেড়ে ৩ মাসের সর্বোচ্চে অবস্থান করছে। এখন পর্যন্ত মার্কিন ডলার সর্বোচ্চ ৯২.৮৪ প্রাইসে উঠেছে।  ৫ এপ্রিলের পরবর্তীতে ডলার প্রথমবারের মতো ৯২.৮৪ প্রাইসে এসেছে। এছাড়াও FOMC মিটিংয়ে ফেড কর্ককর্তারা বলেছেন, অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের বিষয়ে উল্লেখযোগ্যভাবে আরও অগ্রগতি প্রয়োজন। 

EURUSD সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্স

EURUSD বর্তমানে ১.১৮৫০ প্রাইসের নিচে ১.১৮৩৫ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.১৭৮৫।  পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে বছরের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.১৭০৪। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স আজকের সেশনের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৮৫০।  পেয়ারটি ১.১৯০০ প্রাইসে যাওয়ার পূর্বে ২৫ জুনের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৮৬৫ বাধা প্রাপ্ত হতে পারে তবে পেয়ারটি ১.১৯০০ প্রাইস অতিক্রমে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।  সেক্ষেত্রে জুন মাসের শেষের দিকের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৯৭৫ এবং ২০০ দিনের মুভ

GBPUSD পেয়ারের সম্ভাব্য সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্স

GBPUSD মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.৩৭২৬ থেকে বেড়ে ১.৩৭৫০ এর উপরে অবস্থান করছে।  বর্তমানে পেয়ার ১.৩৭৫৬ প্রাইসে রয়েছে। ডেইলি চার্টে RSI ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ার মিড লাইনের নিচে অবস্থান করছে।  যা সেলারদের উৎসাহিত করছে। ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ১.৩৭৬৮ রেজিস্ট্যান্স হতে পারে।  অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট মাসের নিন্ম প্রাইস ১.৩৭২৬ এবং পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ১.৩৭০০। ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হলে জুলাইয়ের নিন্ম প্রাইস ১.৩৬৭০ যেতে পারে।  GBPUSD ডেইলি চার্ট XM সকলে জিতবে

EURJPY পেয়ারের ক্ষেত্রে ১২৮.৩০ সাপোর্ট কাজ করছে

EURJPY পেয়ার টানা চতুর্থ দিনের মতো ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে।  আজকের সেশনে পেয়ারটি সর্বনিন্ম ১২৮.৩৫ প্রাইসে আসলেও বর্তমানে প্রাইস বৃদ্ধি চেষ্টা করছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, পেয়ারের প্রাইস পুনরায় কমতে পারে। তারা পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট হিসেবে ১২৮.৩০ উল্লেখ করেছেন।  মার্চ মাসের ২৪ তারিখ পেয়ার ১২৮.৩০ এসে পুনরায় আপট্রেন্ড শুর হয়েছিল। EURJPY সেলারদের ১২৮.৩০ অতিক্রম অপেক্ষা করা উচিত। যা মার্চ মাসের নিন্ম প্রাইস ছিল।  পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে জানুয়ারি থেকে জুন মাসের নিন্ম প্রাইস ১২৭.০০। EU

ডলারের দুর্বলতায় বৃদ্ধি পাচ্ছে গোল্ডের প্রাইস

আজকের সেশনে গোল্ড দুসপ্তাহের নিন্ম প্রাইস ১৭৮২ থেকে রিকভার হতে শুরু করেছে।  ডলার সপ্তাহের সর্বোচ্চ প্রাইস থেকে নিচে নামার ফলে গোল্ডের প্রাইস বেড়ে ১৮০০-তে অবস্থান করছে। চার ঘন্টার চার্ট অনুযায়ী গোল্ড ১০০ SMA অতিক্রমে সক্ষম হয়েছে।  গোল্ডের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ১৮১০।  গোল্ডের ডাউনট্রেন্ড পুনরায় শক্তিশালী হলে এক দিনের চার্টে ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ৩৮.২% অনুযায়ী ১৭৯০ সাপোর্ট হিসেবে কাজ করতে পারে। ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ২৩.৬% অনুযায়ী সাপোর্ট হতে পারে ১৭৮৭ এবং পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে। 

ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের ডোভিশ সুরে EURGBP প্রাইস বাড়ছে

ব্যাংক অব ইংল্যান্ড (DOE) দেশটির অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার এবং মুদ্রাস্ফীতির মাত্রাকে বহুলাংশে ক্ষণস্থায়ী হিসাবে দেখে আশ্চর্যজনকভাবে ডভিশ সুরে আঘাতের পর EURGBP পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে পেয়ারটি ০.৮৫৭০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের মনেটারী পলিসি কমিটি (MPC) এর মতে, মুদ্রাস্ফীতি অস্থায়ী সময়ের জন্য সমস্যা হতে পারে।  বর্তমানে এটা বৃদ্ধি পেলেও পরবর্তীতে পিছিয়ে পড়বে। এদিকে ইংল্যান্ডে ক্রমবর্ধমান কোভিড-১৯ সংক্রামণ মিশ্র অবস্থানে রয়েছে।  যা গতকাল ৪০% বৃদ্ধি পে

EURUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ২৬ – ৩০ জুলাই, ২০২১)

দ্বিতীয় সপ্তাহের মতো ধারাবাহিক EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমেছিল।  যা EURUSD- কে ৩ মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.১৭৫১-তে নিয়ে এসেছে।  বর্তমানে পেয়ারটি ১.১৮০০ প্রাইসে রিবাউন্ড করার চেষ্টা করছে। ইউরোজোন সার্ভিস সেক্টর  থেকে ৬০.৪ পয়েন্ট এসেছিল। যা প্রত্যাশিত ৫৯.৫ পয়েন্টের উপরে ছিল।  অপরদিকে মেনুফেকচারিং সেক্টর ৬৩.৪ থেকে কমে ৬২.৬ পয়েন্ট এসেছে।  যদিও সেক্টরটি প্রত্যাশিত ৬২.৫ পয়েন্টের সামান্য উপরে ছিল। ইউরোজোন বিজনেস একটিভিটি ৬০.৬ পয়েন্ট এসেছে। বিশেষজ্ঞদের প্রত্যাশা ছিল ৬০ পয়েন্ট। ইসিবির সর্বশ

NZDUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ০৬ – ১০ সেপ্টেম্বর,  ২০২১)

গত দুসপ্তাহ  NZDUSD পেয়ার আপট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে।  এ সপ্তাহেরপেয়ারের মুভমেন্ট কেমন হবে সেটা দেখার বিষয়। গত সপ্তাহে পেয়ার ০.৬৯৮৯ প্রাইসে ওপেন হয়ে সর্বোচ্চ ০.৭১৬৯ প্রাইসে উঠেছিল।  যা কয়েক সপ্তাহের সর্বোচ্চ ছিল। গত সপ্তাহে মার্কিন ডলারের দুর্বলতা পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছিল। US ADP And NFP Reports গত সপ্তাহে মার্কিন ডলারকে প্রভাবিত করার মতো ইভেন্টগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল US ADP এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট।  সেক্টরটি প্রত্যাশিত ৬ লক্ষ ৪০ হাজার থেকে কমে ৩ লক্ষ ৭৪ হাজার এসেছে।

EURJPY প্রাইস অ্যানালাইসিস

আজ মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের মতো EURJPY পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১৩০.০০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। EURJPY পেয়ারের আপট্রেন্ড অব্যাহত থাকলে ১৩০.২৯ প্রাইসে যেতে পারে।  পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে মাসের  সর্বোচ্চ প্রাইস  ১৩০.৭০। অপরদিকে ২০০ দিনের SMA অনুযায়ী ১২৯.৫১ সাপোর্ট হিসেবে কাজ করতে পারে।  পেয়ারটি ১২০.৫০ প্রাইসের নিচে আসলে পুনরায় ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।  EURJPY ডেইলি চার্ট সবচেয়ে কম স্প্রেডে EURJPY পেয়ারটি ট্রেড করতে XM Ultra Low অ্যাকাউন্ট খুলুন এখা

GBPUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ১৯ – ২৩ জুলাই, ২০২১)

ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের হাকিশ মন্তব্য দ্বারা সমর্থন থাকা সত্ত্বেও গত সপ্তাহে GBPUSD পেয়ারের প্রাইস কমেছিল।  আগস্টের MPC মিটিং মার্কেটে মুভমেন্ট বাড়িয়ে তুলতে পারে কারণ বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থার সাথে আরও ভালভাবে সামঞ্জস্য করার জন্য ব্যাংক অব ইংল্যান্ড তার আর্থিক নীতি পরিবর্তন করতে পারে। যুক্তরাজ্যে, প্রতিদিনের করোনাভাইরাস সংক্রামণ, হাসপাতালে ভর্তিকরণ এবং মৃত্যুর ফলে স্বাস্থ্য খাতের উপর আগের চিন্তাভাবনার চেয়ে বেশি প্রভাব পড়তে পারে।  স্বাস্থ্য খাতের উপর চাপ বৃদ্ধি পেতে থাকলে প্রধানমন্ত্রী একটি ই

GBPUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ২৩ – ২৭ আগস্ট, ২০২১)

মহামারী ব্রিটিশ পাউন্ডকে প্রভাবিত করছে, এছাড়াও মার্কিন ডলারের শক্তিশালী অবস্থান GBPUSD পেয়ারকে গত সপ্তাহে বিয়ারিশে রেখেছিল। গত সপ্তাহে মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধির কারণে  GBPUSD এক্সচেঞ্জ রেট সেলিং প্রেসারে থেকে ২০০ পিপসের মতো কমেছিল। ফেডারেল রিজার্ভের টেপারিং বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে GBPUSD বড় ধরণের সেলিং প্রেসারে রয়েছে। সপ্তাহের শেষের দিন পূর্বের দিনের তুলনায় ডাউনট্রেন্ড কিছুটা সীমিত ছিল। সর্বোপরি পেয়ার গত পাঁচ দিনের মধ্যে চারদিন ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছিল। যুক্তরাজ্যে

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...