Jump to content

ফরেক্স নিউজ

  • entries
    1,092
  • comments
    16
  • views
    9,155

Contributors to this blog

  • মার্কেট আপডেট 1092

About this blog

ফরেক্স ট্রেডিং সংক্রান্ত সব নিউজ, অ্যানালাইসিস এবং মার্কেট আপডেট পাবেন এখানেই।

Entries in this blog

EURJPY পেয়ারের পরবর্তী লক্ষ্যমাত্রা হতে পারে ১৩০.৫০

চতুর্থ দিনের মতো EURJPY পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১৩০.০০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। ৫৫ দিনের SMA অনুযায়ী পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ১৩০.১৭। পেয়ারটি ১৩০.১৭ রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমে সক্ষম হলে পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ২৯ জুলাইয়ের সর্বোচ্চ প্রাইস ১৩০.৫০। অপরদিকে ২০০ দিনের SMA অনুযায়ী ১২৯.২৫ সাপোর্টের নিচে আসলে পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড পুনরায় শক্তিশালী হতে পারে। EURJPY ডেইলি চার্ট আজই শেষদিন XM সকলে জিতবে প্রমোশনে $5-$400 নিশ্চিত পুরস্কার

গোল্ডের সম্ভাব্য সাপোর্ট-রেজিস্ট্যান্স

আজকের সেশনে গোল্ড ১৮০৯ প্রাইসে ওপেন হলেও বৃদ্ধি পেয়ে  ১৮১৪ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। গত সপ্তাহে ফেডারেল রিজার্ভের চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েলের আলোচনা গোল্ডের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছিল।  যদিও বিনিয়োগকারীরা ডেল্টা ভেরিয়েন্টের বৃদ্ধির ফলে নিরাপদ কারেন্সি হিসেবে ডলারের দিকে ঝুঁকলেও ফেড চেয়ার‌ম্যানের আলোচনা আস্থাকে সংকীর্ণ করেছে। মার্কিন ডলার প্রধান ছয়টি কারেন্সির বিপরীতে দুর্বল অবস্থানে রয়েছে।  চেয়ারম্যানের আলোচনা ডলারকে বিয়ারিশে আনতে সক্ষম হয়েছে। মার্কিন হোম সেলস জুলাই মাসে ৮.৫%

২ সপ্তাহের সর্বোচ্চ প্রাইসে মুভমেন্ট করছে GBPUSD

আজ ইউরোপিয়ান সেশনের শুরুর দিকে GBPUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ২ সপ্তাহের সর্বোচ্চ ১.৩৮০০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। গতকাল পেয়ারটি এক মাসের নিন্ম প্রাইস ১.৩৬০০ থেকে রিকভার হতে শুরু করেছে। মূলত যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের প্রেসিডেন্ট জেরেমি পাওয়েলের নেতিবাচক আলোচনা ডলারকে দুর্বল করেছে। এ সুযোগে ডলারের বিপরীতে ব্রিটিশ পাউন্ড শক্তিশালী হয়ে ২ সপ্তাহের সর্বোচ্চে অবস্থান করছে। জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামে ফেড চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েল বলেন ব্যাংক রেট বৃদ্ধিতে তাড়াহুড়া কর

১.১৯৯০ প্রাইসের যেতে পারে EURUSD- কমার্জব্যাংক

টানা তৃতীয় দিন  EURUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১.১৮২৫ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট টিম প্রধান কারেন জনসের মতে, পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে জুলাই মাসের সর্বোচ্চ ১.১৯০৯-তে যেতে পারে। পেয়ারটি ১.১৯০৯ প্রাইসে যেতে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।  সেক্ষেত্রে পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.১৯০০ এবং আপট্রেন্ড দীর্ঘস্থায়ী হলে ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী মার্চ মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.২০০৫ যেতে পারে। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট ১.১

USDJPY সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ৩০ আগস্ট – ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১)

USDJPY পেয়ার তৃতীয় সপ্তাহের মতো আপট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে।  যদিও গত সপ্তাহে পেয়ারের প্রাইস কমে ১১০.০০ এর নিচে এসেছে। বুধবার ফেডারেল রিজার্ভ তার বন্ড ক্রয় কর্মসূচি হ্রাসের প্রত্যাশার কারণে দুসপ্তাহের মধ্যে প্রথম বারের মতো পেয়ার ১১০.০০ প্রাইসে উঠেছিল। পরবর্তীতে পুনরায় পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হয়।  বৃহস্পতিবার ফেড কর্মকর্তাদের থেকে হার কমানোর নির্দেশনা পেয়ারের প্রাইস কমাতে সহায়তা করেছে। এ সপ্তাহে যা হতে পারে চলতি সপ্তাহে জাপানী ইয়েনকে প্রভাবিত করার মতো তেমন কোন ইভেন্ট নেই।

USDCAD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ৩০ আগস্ট – ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১)

কয়েক সপ্তাহ কানাডিয়ান ডলারের বিপরীতে মার্কিন ডলার শক্তিশালী অবস্থানে থাকলেও গত সপ্তাহে পরিবর্তন ঘটে।  চলতি সপ্তাহে শুক্রবার প্রকাশিত মার্কিন NFP রিপোর্ট গুরত্বের সাথে দেখা হচ্ছে। গত সপ্তাহে মার্কিন ডলারের বিপরীতে কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস বৃদ্ধির অন্যতম কারণ ক্রুড তেলের প্রাইস বৃদ্ধি।  বর্তমানে USDCAD পেয়ার ১.২৬০০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। এ সপ্তাহে যা হতে পারে চলতি সপ্তাহে বিনিয়োগকারীরা কানাডিয়ান জিডিপি রিপোর্ট গুরুত্বের সাথে দেখবেন।  এছাড়া বাকি ইভেন্টগুলোর মুভমেন্ট স

AUDUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ৩০ আগস্ট – ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১)

গত সপ্তাহে AUDUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়েছিল।  মূলত প্রাইস বৃদ্ধির পেছনে মার্কিন ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট কাজ করেছে।পূর্বের সপ্তাহে AUDUSD বিয়ারিশে থাকলেও গত সপ্তাহে বৃদ্ধি পেয়ে ০.৭৩০০ প্রাইসে ক্লোজ হয়েছিল। মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভ আর্থিক সহায়তা বজায় রাখবে এমন গুজবের পরিপ্রেক্ষিতে, ওয়াল স্ট্রিট রেকর্ড উচ্চতায় পৌছেছে।  এর ফলে অস্টেলিয়ান ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেতে থাকে। বৃহস্পতিবার ফেড কর্মকর্তাদের নেতিবাচক মন্তব্য ডলারের প্রাইস কমাতে সহায়তা করেছিল। সেন্ট লুই ফেডারেল রিজার্ভের সভাপতি জেমস বুলার

GBPUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ৩০ আগস্ট – ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১)

কোভিড উদ্বিগ্নতা এবং ব্রেক্সিট ইস্যু পেয়ারকে প্রভাবিত করছে। গত সপ্তাহে পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১.৩৭৫৫-তে ক্লোজ হয়েছিল।  এছাড়াও গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের প্রেসিডেন্ট জেরেমি পাওয়েলের আলোচনা ডলারের বিপরীতে পাউন্ড শক্তিশালী করেছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে কোভিড-১৯ বৃদ্ধি ডলারকে নেতিবাচক অবস্থানে রেখেছে।  যুক্তরাষ্ট্র গত সপ্তাহে সম্পূর্ণরূপে ফাইজার/ বায়োটেক টিকার অনুমোধন দিয়েছে। যা সংক্রামণ কমাতে সহায়তা করবে। ব্রিটেন এবং উত্তর আয়ারল্যান্ডের মধ্য

EURUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ৩০ আগস্ট – ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১)

মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জেরেমি পাওয়েলের আলোচনা কেন্দ্র করে গত সপ্তাহে ডলারের প্রাইস কমেছিল। যা EURUSD পেয়ারকে বুলিশে রেখেছিল। টেপারিং আলোচনা পেয়ারকে প্রভাবিত করতে পারে।গত সপ্তাহে পেয়ার কিছুটা রিকভার করে ১.১৭৯৫ প্রাইসে ক্লোজ হয়েছিল।  ডেল্টা করোনাভাইরাস সংক্রমণ পুনরায় বৃদ্ধিতে দেশের জিডিপি হ্রাসের সম্ভাবনায় সপ্তাহের প্রথমার্ধে ডলার ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছিল। গত সপ্তাহের প্রথমদিন আগস্ট মাসের মার্কিন Business Activity ( PMI ) ডেটা রিলিজ হয়েছিল। রিপোর্টে দেখা যায় Business Activi

০.৮৭ প্রাইসে যাওয়ার চেষ্টায়  EURGBP- ক্রেডিট সুইস

দ্বিতীয় দিনের মতো পেয়ার আপট্রেন্ড অব্যাহত রাখতে শুরু করেছে। ক্রেডিট সুইস অ্যানালাইসিস্ট টিমের মতে, EURGBP পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ০.৮৭০৩-তে যেতে পারে। পেয়ারটি উক্ত রেজিস্ট্যান্সে যাওয়ার পূর্বে বেশ কয়েকটি লেভেল বাধা পেতে পারে। পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ০.৮৫৯৫ এবং পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৮৬৭১। ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৮৭০০। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ০.৮৫৬০। পরবর্তী সাপোর্টগুলো  হতে পারে ০.৮৫৪০ এবং ০.৮৫০৫।

 জ্যাকসোন হোলকে ফোকাসে রেখে দিনের সর্বোচ্চ প্রাইসে EURUSD

EURUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে দিনের সর্বোচ্চ ১.১৭৭০ এর কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। মনে হচ্ছে সপ্তাহের শেষের দিকে EURUSD পজিটিভ অবস্থানে ক্লোজ হতে পারে। পেয়ারটি গত দুমাসের পুরানো রেজিস্ট্যান্স ১.১৮০০ প্রাইসে যেতে পারে। মার্কিন ডলারের দুর্বলতা পুনরায় EURUSD পেয়ারকে ১.১৮০০ প্রাইসের নিয়ে যাচ্ছে। পেয়ারটি ১.১৮০০ প্রাইস ব্রেকআউট করতে সক্ষম হলে সেল প্রেসার কমতে পারে এবং আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। আজ শুক্রবার জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামে ফেড চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েলের আলোচনার পূর্বে মার্কেট সা

জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামে জেরেমি পাওয়েলের আলোচনার পূর্বে ডলারের প্রাইস কমছে

মার্কিন ডলারের ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রয়েছে। জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামে চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েরের আলোচনার পূর্বে ডলারের প্রাইস কমছে। ডালাস ফেডের প্রেসিডেন্ট রবার্ট কাপলান বলেন, তিনি আশা করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংক ২০২২ সালে সুদের হার বাড়াবে। কানসাস সিটি ফেডের প্রেসিডেন্ট ইষ্টার জার্জ এবং সেন্ট লুইস ফেডারেল রিজার্ভের প্রেসিডেন্ট জেমস বুলার্ডও পৃথক হাকিশ মন্তব্য করেছিলেন। তাদের হাকিশ মন্তব্য সত্ত্বেও জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামকে কেন্দ্র করে ডলারের ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রয়েছে। সুতরাং বোঝা যাচ্ছে

লকডাউন থাকা সত্ত্বেও বৃদ্ধি পাচ্ছে NZDUSD পেয়ারের প্রাইস

NZDUSD পেয়ার ধীরগতিতে ০.৭০ রেজিস্ট্যান্সে যাচ্ছে। গত সপ্তাহে NZDUSD পেয়ারের প্রাইস কমলেও চলতি সপ্তাহে বৃদ্ধি পাচ্ছে। নিউজিল্যান্ডের শক্তিশালী ডাটা নিউজিল্যান্ড ডলারের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করছে। ২০২১ সালের দ্বিতীয় কোয়াটারে নিউজিল্যান্ড রিটেইল সেলস ৩.৩% বৃদ্ধি পেয়েছে। যদিও প্রথম কোয়াটারে ২.৮% বৃদ্ধি পেয়েছিল। এছাড়াও চলতি সপ্তাহে নিউজিল্যান্ড কনজিউমার রিপোর্টগুলোও প্রত্যাশার উপরে ছিল। প্রায় সম্পূর্ণ বছর নিউজিল্যান্ড কর্তৃপক্ষ সফলভাবে করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রনে রেখেছিল। দেশটিকে মহাম

মার্কিন জিডিপি যেভাবে প্রভাবিত করতে পারে EURUSD

আজ বৃহস্পতিবার প্রধান ইভেন্টগুলোর মধ্যে জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামের পাশাপাশি দ্বিতীয় প্রান্তিকের জিডিপি রিপোর্ট মার্কেটে প্রভাব ফেলতে পারে। কিছুক্ষণের মধ্যে মার্কিন জিডিপি রিপোর্ট রিলিজ হতে যাচ্ছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, দ্বিতীয় প্রান্তিকে জিডিপি ৬.৫% থেকে বেড়ে ৬.৭% আসতে পারে। যা মার্কিন ডলারকে শক্তিশালী করতে পারে।  তবে সিম্পোজিয়াম ইভেন্ট মার্কেটের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। EURUSD পেয়ারের প্রাইস গত চারদিন বৃদ্ধি পেলেও আজকের সেশনে ওপেন প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। বর্তমানে পেয়ারটি ১.১৭৬

জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামের পূর্বে নমনীয় হচ্ছে মার্কিন ডলার

আজ বৃহস্পতিবার জ্যাকসোন হোল সিম্পোজিয়ামের পূর্বে মনেটারী পলিসিতে টেপারিংয়ের সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে মার্কিন ডলারের প্রাইস সপ্তাহের নিন্মে অবস্থান করছে। মার্কিন ডলার ৪ দিনের মতো ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখে সপ্তাহের সর্বনিন্ম প্রাইস ৯২.৮০ এর সামান্য উপরে ৯২.৮৮ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  এছাড়াও মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন সোমবার ফাইজার এবং বায়োটেক কোভিড-১৯ এর টিকা সম্পূর্ণ অনুমোধনের পরবর্তীতে বিনিয়োগকারীদের অনেকের আস্থা নিরাপদা কারেন্সি হিসেবে মার্কিন ডলারের চাহিদা কমতে থাকে।

১৫১.০০ প্রাইসের কাছাকাছি উচু-নিচু মুভমেন্ট করছে GBPJPY

GBPJPY পেয়ারের প্রাইস চারদিনের মতো বৃদ্ধি পাচ্ছে।  আজকের সেশনে পেয়ার ১৫১.৩০ প্রাইসে ওপেন হলেও বর্তমানে বৃদ্ধি পেয়ে ১৫১.৪০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। ২০০ SMA অনুযায়ী GBPJPY পেয়ার ১৫১.৭৫ প্রাইসে যেতে পারে। পেয়ারটি যদি ১৫১.৭৫ প্রাইস অতিক্রমে সক্ষম হয়, সেক্ষেত্রে ১৫২.০০ প্রাইসে যেতে পারে।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ২৬ জুলাইয়ের সর্বোচ্চ প্রাইস  ১৫২.৬০-৬৫। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট ১৫১.০০ এবং পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ১৫০.৫০। ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত থাকলে সেক্ষেত্রে ১৫০.০০ প্রাইস অতিক্

১০ DMA অনুযায়ী ১.২৬০০ প্রাইসে মুভমেন্ট করছে USDCAD

আজ বৃহস্পতিবার ইউরোপিয়ান সেশনে ১.২৬২২ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে USDCAD।  ১০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী পেয়ারের ক্ষেত্রে ১.২৬৫০ রেজিস্ট্যান্স কাজ করছে। পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ২০ জুলাইয়ের নিন্ম প্রাইস ১.২৬৮০।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ৫ সপ্তাহের পুরানো রেজিস্ট্যান্স ১.২৮১০।  আপট্রেন্ড শক্তিশালী হলে ২০২১ সালের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.২৯৫০ যেতে পারে। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট ১.২৫৮৫ এবং পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ২০০ DMA অনুযায়ী ১.২৫৪৫। পেয়ারের পরবর্তী সাপোর্ট

০.৬৯৫০ প্রাইস ব্রেকের চেষ্টায় NZDUSD

বেশ কিছুদিন NZDUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও আজকের সেশনে কমতে শুরু করেছে।  পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড কতটুকু স্থায়ী হবে সেটা দেখার বিষয়। চলতি সপ্তাহে পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ০.৬৯৮০-তে উঠলেও আজ কমে ০.৬৯৫০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  পেয়ারের প্রাইস পুনরায় বৃদ্ধি পেতে শুরু হলে ০.৬৯৬০ প্রাইসে যেতে পারে।  পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৬৯৭২।  পেয়ারটি পুনরায় ০.৬৯৮০ প্রাইসের উপরে আসলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।   অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান সাপোর্ট ০.৬৯৫০।  পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে গতকালের নিন

০.৮৫৫০ প্রাইসে বুলিশের চেষ্টায় EURGBP

গতকাল EURGBP পেয়ারের প্রাইস কমলেও আজ এশিয়ান সেশনে প্রাইস বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। বর্তমানে পেয়ারটি ০.৮৫৫৫ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছি। পেয়ারটি বিয়ারিশ চার্ট প্যাটার্নে মুভমেন্ট করছে। MACD ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ার বুলিশ ট্রেন্ডে আসার চেষ্টা করছে।  ৫০ DMA অনুযায়ী পেয়ারের ক্ষেত্রে ০.৮৫৫৫ সাপোর্ট কাজ করছে। পেয়ারটি ০.৮৫৫০ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে সেক্ষেত্রে মাসের নিন্ম প্রাইস ০.৮৪৫-তে যেতে পারে । পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে জুলাই মাসের নিন্ম প্রাইস ০.৮৫০০। অপরদিকে

১.১৮০০ প্রাইসের নিচে মুভমেন্ট করছে EURUSD

আজ বৃহস্পতিবার এশিয়ান সেশনের  শুরুর দিকে EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমে ১.১৮০০ এর নিচে ১.১৭৭০ প্রাইসে অবস্থান করছে। যদিও গত চারদিন EURUSD বছরের নিন্ম প্রাইস থেকে আপট্রেন্ড অব্যাহত রেখে সর্বোচ্চ ১.১৭৪৪ প্রাইসে উঠেছিল। RSI ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ার ৫০ পয়েন্টের নিচে অবস্থান করছে। পেয়ার ২০ DMA ১.১৮০০ প্রাইসের নিচে অবস্থান করছে। সুতরাং ১.১৮০০ প্রাইস অতিক্রম পর্যন্ত সেলারদের সুযোগ রয়েছে। পেয়ারটি ১.১৮০০ প্রাইস অতিক্রমে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে সেক্ষেত্রে ১.১৯০০ প্রাইসে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পার

কমার্জব্যাংকের আলোচনায় সিলভারের সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্স

কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট প্রধান কারেন জনস সিলভারের (XAG/USD) কিছু সাপোর্ট ও রেজিস্ট্যান্স নির্ধারণ করেছে।  গত দুদিন সিলভারের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও আজকের সেশনে প্রাইস কমছে। বর্তমানে সিলভারের প্রাইস কমে ২৩.৭০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে।  সিলভারের ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে ২২.৮৫ প্রাইসে যেতে পারে।  ধাতব পদার্থের পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ২১.৬৭।  ২০২০ সালের নভেম্বরে সিলভারের প্রাইস কমে ২১.৮৭ এর কাছাকাছি এসেছিল। অপরদিকে সিলভারের আপট্রেন্ড শক্তিশালী হলে ২৭ জুলাইয়ের নিন্ম প্রা

সপ্তাহের নিন্ম প্রাইসের কাছাকাছি মার্কিন ডলার

অত্যন্ত সংক্রামক ডেল্টা করোনাভাইরাস বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে এমন উদ্বেগের মধ্যে সেফ-হ্যাভেন ডলার এক সপ্তাহের সর্বোনিন্ম প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ফাইজার এবং বায়োটেক কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন অনুমোদন পূর্ণমাত্রায় দেয়ার ফলে ডলারের প্রাইস কমছে।  ড অ্যান্টনি ফাউসি মঙ্গলবার বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র আগামী বছরের প্রথম দিকে ভোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে। বর্তমানে মার্কিন ডলার ৯২.৯৮ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে।  যুক্তরাষ

১.৪০১৮ প্রাইসের যাওয়ার চেষ্টায় GBPUSD- কমার্জব্যাংক

GBPUSD পেয়ারের প্রাইস তৃতীয় দিনের মতো বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমান ১.৩৭৩৮ প্রাইসে উঠেছিল।  গতকাল পেয়ারটি সর্বোচ্চ ১.৩৭৪৭ প্রাইসে উঠেছিল। পেয়ারের ক্ষেত্রে গতকালের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.৩৭৪৭ রেজিস্ট্যান্স হতে পারে। কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনসনের মতে, GBPUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১.৪০১৮-তে যেতে পারে। GBPUSD ১.৪০১৮ প্রাইসে যাওয়ার পূর্বে কিছু রেজিস্ট্যান্স লেভেলে বাধা হতে পারে।  সেক্ষেত্রে পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.৩৮০৬।  ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হ

সংকুচিত হবে গোল্ডের আপট্রেন্ড?

কয়েক দিনের ধারাবাহিকতায় গোল্ড গতকাল ১৮১০ প্রাইসে উঠলেও পরবর্তীতে বিয়ারিশে এসেছিল।  আজকের সেশনে গোল্ডের প্রাইস কমে ১৭৯০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। বর্তমানে গোল্ডের প্রাইস কমলেও দিনের শেষে বৃদ্ধির সম্ভাবনা থেকে যাচ্ছে।  গোল্ডকে প্রভাবিত করার মতো আজকের ইভেন্টগুলোর মধ্যে অন্যতম জুলাই মাসের মার্কিন Durable Goods Order। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, সেক্টরটি গতবারের থেকে খারাপ আসতে পারে। এ সুযোগে মার্কিন ডলারের প্রাইস কমতে পারে অপরদিকে গোল্ডের প্রাইস বৃদ্ধি পেতে পারে।  জুনে মার্কিন Durable Good

১০০ DMA অনুযায়ী ০.৯১৫০ প্রাইসে যাচ্ছে USDCHF

গত কয়েকদিন USDCHF পেয়ারের প্রাইস কমলেও আজকের সেশনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। চলতি সপ্তাহে USDCHF পেয়ারের প্রাইস কমে ০.৯১০০ প্রাইসে গেলেও বর্তমানে রিকভার করে ০.৯১৪০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। গতকাল পেয়ার ১০০ DMA এর উপরে বুলিশ ডজি ক্যান্ডেল তৈরি করেছে।  ডজি ক্যান্ডেলের পরবর্তীতে আজকের সেশনে প্রাইস বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। USDCHF পেয়ার ১০০ DMA ( ০.৯১১৫) প্রাইসের নিচে আসলে পুনরায় ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।  সেক্ষেত্রে পেয়ারের পরবর্তী সাপোর্ট হতে পারে ০.৯১০০।  ২০০ DMA অনুযায়ী সাপোর্ট হতে পারে ০.৯০৭৫

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...