Jump to content

ফরেক্স নিউজ

  • entries
    471
  • comments
    10
  • views
    2,991

Contributors to this blog

  • মার্কেট আপডেট 471

About this blog

ফরেক্স ট্রেডিং সংক্রান্ত সব নিউজ, অ্যানালাইসিস এবং মার্কেট আপডেট পাবেন এখানেই।

Entries in this blog

কমার্জব্যাংকের আলোচনায় EURUSD

EURUSD পেয়ার তৃতীয় দিনের মতো ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখে ১.১৫৫০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট টিম প্রধান কারেন জনসের মতে, EURUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ১.১৬৪০-তে যেতে পারে। অপরদিকে পেয়ারটি ১৫ মাসের নিন্ম প্রাইস ১.১৫২২ অতিক্রমে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে।  সেক্ষেত্রে পরবর্তী সাপোর্ট হতে ২০২০ সালের মার্চ মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৪৯০। ২০০৮ সালে পেয়ারটি ১.১৩৯৫ প্রাইসে গিয়েছিল।  কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট টিম প্রধাম কারেন জনসের মতে, পেয়ারটি ১.১৬৪

৬ মাসের পুরনো রেজিস্ট্যান্সে যাচ্ছে GBPJPY

কয়েকমাস GBPJPY পেয়ারের প্রাইস কমলেও অক্টোবরে বেশ ভালভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে পেয়ারটি ১৫৪.৫০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, খুব তাড়াতাড়ি পেয়ার ৬ মাসের পুরনো রেজিস্ট্যান্স ১৫৬.০৬-তে যেতে পারে। পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ১৫৫.০০। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে  ১৫৫.৯০। MACD ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ার ওভারবটে অবস্থান করছে। এর ফলে পেয়ারের প্রাইস কমার সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে। পেয়ারের প্রাইস পুনরায় কমতে শুরু হলে ১৫৩.৬৮ হরিজোনটাল সাপোর্টে যেতে পারে। পরবর্তী সা

Symmetrical Triangle তৈরি করেছে GBPUSD

বেশ কিছুদিন GBPUSD পেয়ার  Symmetrical Triangle এর মধ্যে মুভমেন্ট করছে। পেয়ারটি উক্ত রেঞ্জ অতিক্রমে আপ-ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। বর্তমানে পেয়ারটি বিয়ারিশে থেকে ন্যারো রেঞ্জে ট্রেড করছে। GBPUSD ১.৩৫৮০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। ২১ দিনের সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ১.৩৬২৯ রেজিস্ট্যান্স হিসেবে কাজ করছে। MACD ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ার ওভারসোল্ড জোনে অবস্থান করছে। যা পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধির  ইঙ্গিত দিচ্ছে।  পেয়ারটি ২১ SMA অতিক্রমে সক্ষম হলে পরবর্তীতে ১.৩৬৫০ হরিজোনটাল রেজিস্ট্যান

মার্কিন ডলার ডেইলি ক্যান্ডেলে বিয়ারিশে থাকলেও বছরের সর্বোচ্চ প্রাইসের কাছাকাছি

মেজর পেয়ারগুলোর বিপরীতে ডলার বছরের সর্বোচ্চ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। পরবর্তী মাসে ফেডারের রিজার্ভের টেপারিং ও ২২ সালে ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির সম্ভাবনা ডলারের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করছে। ক্লারিডার ভাইস চেয়ারম্যান রিচার্ডসহ ফেডারেল রিজার্ভের ৩ জন কর্মকর্তা বলেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সম্পদ ক্রয়-কর্মসূচি ফিরিয়ে আনার জন্য মার্কিন ইকোনমি যথেষ্ট সচল হয়েছে। গতকাল ডলার ৯৪.৫১ প্রাইসে ক্লোজ হলেও বর্তমানে কমে ৯৪.৩৪ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। অ্যানার্জি প্রাইস মুদ্রাস্ফীতি উদ্বেগ বাড়িয়ে

GBPUSD প্রাইস অ্যানালাইসিস

বেশ কিছুদিন  GBPUSD পেয়ার ১.৩৬৭২ থেকে ১.৩৫৪৩ প্রাইসের মধ্যে মুভমেন্ট করছে। গতকাল পেয়ারের প্রাইস কমলেও আজকের সেশনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ব্রিটিশ পাউন্ড একটি রেঞ্জের মধ্যে মুভমেন্ট করছে।  রেঞ্জটি অতিক্রমে পেয়ারের আপ-ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। GBPUSD পেয়ার বর্তমানে ১.৩৬২০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। ১.৩৬৭২ রেঞ্জ অতিক্রমে সক্ষম হলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.৩৭০০। আপট্রেন্ড অব্যাহত থাকলে সেক্ষেত্রে ১.৩৭২০ অতিক্রমের পরবর্তীতে ১.৩৭৫০ প্রাইসে যেতে পারে

বিয়ারিশ টেকনিক্যাল সেটাপে USDCAD পেয়ারের আপট্রেন্ড সীমিত মনে হচ্ছে

মার্কিন ডলার প্রধান কারেন্সিগুলোর বিপরীতে শক্তিশালী অবস্থানে থাকলেও কানাডিয়ান ডলারের বিপরীতে দুর্বল অবস্থানে রয়েছে। অক্টোবরে USDCAD পেয়ারের প্রাইস কমে মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.২৪৬৪ এর কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের প্রাইস বৃদ্ধির ফলে কানাডিয়ান ডলার শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। চার ঘন্টার চার্টে দেখা যাচ্ছে, আজকের সেশনে পেয়ারটি ১.২৫০০ রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমে ব্যর্থ হয়েছে।  সুতরাং পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে পেয়ারটি ১.২৪৪৬ অতিক্রমে সক্ষম

ব্রিটিশ জব রিপোর্টে যেভাবে প্রভাবিত হতে পারে GBPUSD

ব্রিটিশ জাতীয় পরিসংখ্যান (ONS) সেপ্টেম্বর মাসের জব রিপোর্ট কিছুক্ষণের মধ্যে রিলিজ করবে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, আগস্টে বেকারত্বের হার ৪.৬% থেকে কমে ৪.৫% আসতে পারে। ব্রিটিশ ইকোনমি যেহেতু রিকভার করছে সেহেতু প্রত্যাশা করা হচ্ছে, সেপ্টেম্বরে জব রিপোর্ট বৃদ্ধি পেতে পারে। যা পাউন্ডের বিয়ারিশ কিছুটা সংকুচিত করতে পারে। GBPUSD বর্তমানে ১.৩৬০০ প্রাইস কেন্দ্র করে মুভমেন্ট করছে। পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ১.৩৬২০। চার ঘন্টার চার্ট অনুযায়ী ৫০ বার SMA অনুযায়ী ১.৩৫৬০ সাপোর্ট হতে পারে। GBPUSD ১.

ডলারের বিপরীতে ৩ বছরের নিন্ম প্রাইসে ইয়েন

আজ মঙ্গলবার এশিয়ান সেশনে মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর ফলে ডলারের বিপরীতে ইয়েনের প্রাইস কমে ৩ বছরের নিন্মে অবস্থান করছে। এনার্জি প্রাইসের ফলে জাপানী ইয়েনের প্রাইস ক্রমাগত কমছে। এছাড়াও মার্কিন ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির সম্ভাবনা ডলারের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করছে। ডলারের প্রাইস বেড়ে ৯৪.৪০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। এর ফলে USDJPY পেয়ারের প্রাইস বেড়ে পাঁচ মাসের সর্বোচ্চ ১১৩.৩৬-তে অবস্থান করছে। কারেন্সি মার্কেটে লক্ষ করে দেখা যাচ্ছে, নভেম্বরের মার্কিন টেপারিং ঘোষণা মার্কেটে প্রভাব ফ

GOLD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ১১ – ১৫ অক্টোবর, ২০২১)

গত সপ্তাহে মার্কিন জব রিপোর্ট প্রত্যাশার নিচে আসায় গোল্ড বুলিশে আসার সম্ভাবনা থাকলেও পরবর্তীতে বিয়ারিশে এসেছিল। ফেডারেল রিজার্ভের সেন্টিমেন্ট ও মার্কিন রাজনৈতিক উত্তেজনা গত সপ্তাহে মার্কিন ডলারের শক্তিশালী অবস্থান ধরে রাখতে সহায়তা করেছিল। ফেডারেল রিজার্ভের সেন্টিমেন্ট ও মার্কিন ট্রেজারি রিপোর্টকে কেন্দ্র করে গত সপ্তাহের প্রথমার্ধে গোল্ড বিয়ারিশে ছিল। এ সপ্তাহে যে বিষয়গুলো গোল্ডকে প্রভাবিত করতে পারে বিনিয়োগকারীদের বর্তমান নজর সেপ্টেম্বরের মেনুফেকচারিং PMI রিপোর্টের দিকে। প্রত

GBPUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ১১ – ১৫ অক্টোবর, ২০২১)

দ্বিতীয় সপ্তাহের মতো GBPUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। শুক্রবার প্রকাশিত মার্কিন জব প্রত্যাশার নিচে আসায় ডলারের বিপরীতে ব্রিটিশ পাউন্ডের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়েছিল। যা সাপ্তাহিক চার্টে GBPUSD পেয়ারকে বুলিশ অবস্থানে রেখেছে। এ সপ্তাহের প্রথমদিন GBPUSD পেয়ার প্রাইস বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। গত কয়েক সপ্তাহ ব্রিটিশ অ্যানার্জি সংকট ব্রিটিশ পাউন্ডের নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। কিছু বিশেষজ্ঞদের ধারণা GBPUSD পেয়ারের পুলব্যাক অস্থায়ী হতে পারে এবং বিয়ারিশে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গত সপ্তাহে প্রকাশিত স

EURUSD সাপ্তাহিক ফরেকাস্ট ( ১১ – ১৫ অক্টোবর, ২০২১)

‍তৃতীয় সপ্তাহ  EURUSD পেয়ারের প্রাইস কমছে। চলতি সপ্তাহেও প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে যেহেতু মার্কিন ডলারের প্রাইস ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। সপ্তাহের শেষের দিন ৮ অক্টোবর EURUSD পেয়ারের বিয়ারিশ অবস্থান কিছুটা সংকুচিত হয়েছিল কারণ সেপ্টেম্বরে মার্কিন জব প্রত্যাশার নিচে এসেছিল।  পেয়ারের পুলব্যাক ছিল সামান্য সময়ের জন্য এবং EURUSD বিয়ারিশ অবস্থান অব্যাহত রেখেছিল। EURUSD পেয়ার গত সপ্তাহে ২০২১ সালের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.১৫২৮-তে এসেছিল।  বিশ্বব্যাপী ইকোনমিক রিকভারের বৈষম্যতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।  যা

কানাডিয়ান জব রিপোর্টের আলোকে কানাডিয়ান ডলারের মুভমেন্ট যেভাবে দেখা হচ্ছে

বৃহস্পতিবারের মতো আজকের সেশনে USDCAD পেয়ারের মুভমেন্টে তেমন চাঞ্চল্য দেখা যাচ্ছে না। কারণ মার্কিন ও কানাডিয়ান উভয় দেশের সেপ্টেম্বরের জব রিপোর্টের অপেক্ষায় কারেন্সিগুলো। কানাডিয়ান ডলার বেশ কিছু দিনের ধারা অব্যাহত রেখে মার্কিন ডলারকে বিয়ারিশ চাপে রেখেছে। এরই ধারাবাহিকতায় পেয়ারটি চার সপ্তাহের নিন্ম প্রাইসে পৌঁছেছে। তবে কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস বৃদ্ধির পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে ক্রুড তেলের প্রাইস। সাধারনত কানাডিয়ান জিডিপিতে ক্রুড তেলের ভূমিকা অপরিসীম। ক্রুড তেলের সাম্প্রতিক

মার্কিন জব ও আজকের ফরেক্স রিভিউ

চলতি সপ্তাহের আকর্ষণ সেপ্টেম্বর মাসের মার্কিন ননফার্ম পেরোলস রিপোর্ট। যা আজ সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটে প্রকাশ করা হবে। সাপ্তাহিক ক্যান্ডেলে দেখা যাচ্ছে ডলার দ্বিতীয় সপ্তাহের মতো আপট্রেন্ডে থাকলেও চলতি সপ্তাহে কিছুটা বিয়ারিশে রয়েছে। বিয়ারিশে থাকা সত্ত্বেও ডলার ইউরো, ইয়েনের মতো বেশ কিছু কারেন্সির বিপরীতে শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। মার্কিন ননফার্ম পেরোলস রিপোর্টগুলো ছাড়াও সামনের গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টগুলোর মধ্যে রয়েছে ৩ নভেম্বর ও ১৫ ডিসেম্বরের ফেডারেল রিজার্ভ মিটিং। যদিও আগস্টের মিটিংয়ে ফেড

০.৭৩৭০ প্রাইসের নিচে নেতিবাচক অঞ্চলে থাকতে পারে AUDUSD- কমার্জব্যাংক

চলতি সপ্তাহে পেয়ারটি সর্বোচ্চ ০.৭৩০৩ প্রাইসে উঠলেও বর্তমানে ০.৭২৮২ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। কমার্জব্যাংক টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস্ট প্রধান কারেন জনসের মতে, পেয়ারটি ০.৭৩৭০ প্রাইসের উপরে না উঠা পর্যন্ত বিয়ারিশ মনোভাব থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ০.৭৩১৩ রেজিস্ট্যান্স হিসেবে কাজ করার সম্ভাবনা রয়েছে। অপরদিকে পেয়ারের প্রাইস পুনরায় কমতে শুরু হলে আগস্ট মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস ০.৭১০৬ রেজিস্ট্যান্স হতে পারে। পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে সেপ্টেম্বর এবং ন

আন্তর্জাতিক বাজারে দ্বিতীয় দিন তেলের প্রাইস কমছে

আজ বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিন আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের প্রাইস কমছে। অপ্রত্যাশিতভাবে মার্কিন ক্রুড তেলের স্টক বৃদ্ধি পাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে উদ্বিগ্নতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যা তেলের প্রাইসে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। মার্কিন ক্রুড তেল ৫২ সেন্ট কমে প্রতি ব্যারেল ৭৬.৯১ ডলারে অবস্থান করছে। যদিও বুধবার প্রতি ব্যারেল ৭৯.৭৮ ডলারে উঠেছিল। যা ২০১৪ সালের নভেম্বরের সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। ব্রেন্ট ক্রুড তেল ৮ সেন্ট কমে প্রতি ব্যারেল ৮১.০০ ডলারে অবস্থান করছে। EIA ডাটা অনুযায়ী গত সপ্তাহে কমার্শিয়াল স্টক বৃদ্ধ

০.৯১৮৯ প্রাইসের নিচে USDCHF পেয়ারের আপট্রেন্ড প্রশমিত হতে পারে- কমার্জব্যাংক

দ্বিতীয় দিনের মতো  USDCHF পেয়ার বিয়ারিশ অবস্থানে রয়েছে। কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনসের মতে, পেয়ারটি ০.৯১৮৯ প্রাইসের নিচে আসলে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। অপরদিকে পেয়ার আজকের সর্বোচ্চ প্রাইস ০.৯২৮৩ এর উপরে উঠলে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ০.৯১৮৯  সাপোর্ট হতে পারে। পেয়ারটি ০.৯২৮৯ রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমের পরবর্তীতে ০.৯৩৫৭ প্রাইসে যেতে পারে। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ০.৯৪৭২। সাপ্তাহিক চার্টে ২০০ সপ্তাহের মুভি

০.৭৩০০ রেজিস্ট্যান্সের নিচে AUDUSD

ইউরোপিয়ান সেশনের শুরুর দিকে AUDUSD পেয়ারের প্রাইস কমে সর্বনিন্ম ০.৭২৭০ এর কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। ২০০ HMA অনুযায়ী পেয়ারের প্রাইস কমে ০.৭২৫৩ যেতে পারে। AUDUSD পেয়ারের পরবর্তী সাপোর্ট  হতে পারে ২৩ সেপ্টেম্বরের নিন্ম প্রাইস ০.৭২৪৮। পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড ক্রমাগত শক্তিশালী অবস্থানে থাকলে ০.৭২২৫ সাপোর্ট  হিসেবে কাজ করতে পারে। অপরদিকে পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স ০.৭২৯০। পরবর্তীতে মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ০.৭৩০০ রেজিস্ট্যান্সে হতে পারে।  আপট্রেন্ড শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে ০.৭৪১০ অতিক্রমের

১.৩৬৩৫ প্রাইসের নিচে GBPUSD সেলারদের সুযোগ রয়েছে

GBPUSD সপ্তাহের সর্বনিন্ম থেকে রিকভার করছে।  বর্তমানে পেয়ারটি ১.৩৫৯০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, পেয়ারটি ১৭ সেপ্টেম্বরের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.৩৬৩৫ এর নিচে থাকা পর্যন্ত সেলারদের সুযোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। চার ঘন্টার চার্টে MACD ইনডিকেটর অনুযায়ী সেলারদের সুযোগ রয়েছে। ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ৬১.৮% অনুযায়ী ১.৩৬৬০ রেজিস্ট্যান্সের পরবর্তীতে ১.৩৭২০ রেজিস্ট্যান্স হতে পারে। পরবর্তী হরিজোনটাল রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ১.৩৭৫০। ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ২৩.৬% অনুযায়ী ১.৩৫৩০ সাপোর্ট হ

০.৮৫০০ প্রাইসের নিচে যেতে পারে EURGBP

আজ বৃহস্পতিবার EURGBP লোয়ার প্রাইসে মুভমেন্ট করছে। পঞ্চম দিনের মতো পেয়ারের প্রাইস কমলেও বর্তমানে ওপেন প্রাইস থেকে কিছুটা বেড়ে ০.৮৫০৩ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। ডেইলি চার্টে দেখা যাচ্ছে, পেয়ারটি ২৯ সেপ্টেম্বর সর্বোচ্চ ০.৮৬৫৮ প্রাইসে উঠলেও পরবর্তীতে পঞ্চম দিনের মতো ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে। যেহেতু আজকের সেশনে পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। সেহেতু ২১ দিনের সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ০.৮৫৫৫ প্রাইসে যেতে পারে। পেয়ারের পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স হতে পারে ০.৮৫৮০। অপরদিকে পে

ওপেন প্রাইসে মার্কিন ডলার ইউরোর বিপরীতে ১৪ মাসের সর্বোচ্চে

আজ বৃহস্পতিবার এশিয়ান সেশনে ডলার ওপেন প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। তবে ইউরোর বিপরীতে ১৪ মাসের সর্বোচ্চে। বিনিয়োগকারীরা অ্যানার্জি প্রাইস ও মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে উদ্বিগ্নতার মধ্যে রয়েছে। বিনিয়োগকারীদের নজর মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভ টেপারিং আলোচনার দিকে। EURUSD বর্তমানে ১.১৫৬০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। যদিও গতকাল প্রথমবারের মতো পেয়ার জুলাই মাসের ১.১৫২৯ প্রাইসে নেমেছিল। বর্তমানে মার্কিন ডলার ৯৪.২৪ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। আজকের সেশনে তেমন কোন মার্কিন ইভেন্ট না থ

EURUSD প্রাইস অ্যানালাইসিস

টানা তৃতীয় দিনের মতো  EURUSD বিয়ারিশে অবস্থান করছে। আজ বৃহস্পতিবার এশিয়ান সেশনে পেয়ারটি ১.১৫৬০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। ২০২০ সালের জুলাই মাসে পেয়ারকে ১.১৫৩০ প্রাইসে দেখা গিয়েছিল। গতকাল পেয়ারের প্রাইস কমে ১.২৫৩০-তে এসেছিল। পেয়ারের রিকভার স্থায়ী হলে ১.১৫৯০ রেজিস্ট্যান্স অতিক্রমের পরবর্তীতে ১.১৬৫০ প্রাইসে যেতে পারে। পেয়ারটি আগস্ট মাসের নিন্ম প্রাইস ১.১৬৬৫ অতিক্রমের পরবর্তীতে ১.১৭৫০ প্রাইসে যেতে পারে। অপরদিকে পেয়ারের ডাউনট্রেন্ড দীর্ঘস্থায়ী হলে ২০২০ সালের মার্চ মাসে পেয়ারটি সর্বোচ

GOLD সাপোর্ট-রেজিস্ট্যান্স

বেশ কিছুদিন গোল্ড নির্দিষ্ট রেঞ্জের মধ্যে মুভমেন্ট করছে। চলতি সপ্তাহে তৃতীয় দিনের মতো গোল্ডের প্রাইস কমছে। বর্তমানে গোল্ড দিনের সর্বনিন্ম প্রাইস ১৭৪৫ এর কাছাকাছি অবস্থান করছে। সাপ্তাহিক চার্টে ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ৬১.৮% অনুযায়ী পেয়ারের সাপোর্ট হতে পারে ১৭৩৮।  গোল্ডের বিয়ারিশ অবস্থান শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে ১৭৩৩ সাপোর্ট হতে পারে। গোল্ডের আপট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার ক্ষেত্রে ডেইলি চার্টে ফিবোনাসি রিট্রেসমেন্ট ৬১.৮% অনুযায়ী ১৭৫৪ রেজিস্ট্যান্সে বাধা পেতে পারে। গোল্ডের পরবর্তী বাধা-

পঞ্চম সপ্তাহ মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধির চেষ্টা

অ্যানার্জি সংকট, ঊর্ধ্ব মুদ্রাস্ফীতির অস্থিরতা থাকা সত্ত্বেও ফেডারেল রিজার্ভের ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির সম্ভাবনা ডলারের প্রাইস বৃদ্ধিতে সহায়তা করছে। ট্রেডাররা মার্কিন জব ডাটা থেকে কোন ক্লু খুজছেন। যা ফেডারেল রিজার্ভের পলিসি মিটিংয়ে প্রভাব ফেলতে পারে। ব্যাংক অব নিউজিল্যান্ড ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধি এবং হাকিশ সুরে থাকা সত্ত্বেও নিউজিল্যান্ড ডলারের বিপরীতে মার্কিন ট্রেজারি রিপোর্টকে কেন্দ্র করে মার্কিন ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। NZDUSD পেয়ারের প্রাইস কমে বর্তমানে ০.৬৮৮০ এর কাছাকাছি অবস্থান

২০১৮ সালের অক্টোবরের সর্বোচ্চ প্রাইসে যেতে পারে USDJPY- কমার্জব্যাংক

সপ্তাহের শেষের দিকে USDJPY পেয়ারের প্রাইস কমলেও চলতি সপ্তাহের প্রথমদিন পেয়ারটি ডজি ক্যান্ডেল তৈরি করেছিল। পরবর্তীতে দ্বিতীয় দিনের মতো পেয়ারটি রিকভার করে ১১১.৬০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। কমার্জব্যাংক টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস্ট টিমের প্রধান কারেন জনস বলেন, পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৮ সালের অক্টোবরের সর্বোচ্চ প্রাইস ১১৪.৫৫-তে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারের বর্তমান রেজিস্ট্যান্স চলতি মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১১২.০৭। যা ২০১৯ সালের পরবর্তীতে সর্বোচ্চ প্রাইস। পেয়ারের প্রাইস কমতে

GBPUSD পেয়ারের আপট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার ক্ষেত্রে ১০০ SMA অতিক্রম করা প্রয়োজন

পঞ্চমদিনের মতো GBPUSD পেয়ারের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও আজ বুধবার এশিয়ান সেশনে পেয়ারটি ১.৩৬০০ প্রাইসের কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে। চার ঘন্টার চার্ট অনুযায়ী পেয়ারটি ১০০-SMA অতিক্রমে আপট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অপরদিকে ৫০-SMA অতিক্রমে ১.৩৫৮২ ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। পেয়ারটি ১.৩৫২০ সাপোর্ট অতিক্রমের পরবর্তীতে সেপ্টেম্বরের নিন্ম প্রাইস ১.৩৪১৫ যেতে পারে। GBPUSD ১০০-SMA ১.৩৬৬৫ অতিক্রমের পরবর্তীতে সেপ্টেম্বরের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.৩৭৫০ যেতে পারে।  আপট্রেন্ড শক্তিশালী হলে সেক্ষেত্রে

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...