Jump to content
Sign in to follow this  
মার্কেট আপডেট

চীন-যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক উত্তেজনায় মার্কিন ডলার

Recommended Posts

গত কয়েক মাস মার্কিন ডলারের বিপরীতে অন্যান্য কারেন্সিগুলো বেশ ভাল করছে।মার্কিন ডলারের প্রাইস কমার পিছনে করোনাভাইরাসের প্রভাব,অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক দ্বন্দ ছাড়াও চীন-যুক্তরাষ্ট্রের চিরাচরিত দ্বন্দ কাজ করছে।

করোনাভাইরাস থেকে মার্কিন ইকোনমি পুনরুদ্ধারের জন্য দ্বিতীবারের মতো যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক প্যাকেজ ঘোষণা করার কথা ছিল ।রিপাবলিকিয়ান দল ১ ট্রিলিয়ন এবং ডেমোক্রাটিক দল ৩ ট্রিলিয়ন ডলার ব্যয়ের কথা বলেন।এ নিয়ে দুই দলের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এছাড়াও বিশ্বে চীনের প্রভাব দিন দিন বেড়ে চলেছে। যা যুক্তরাষ্ট্রের ঘুমকে হারাম করে ফেলেছে। তাই বেইজিংকে কোণঠাসা করতে অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক নানা তৎপরতা শুরু করেছে ট্রাম্প প্রশাসন। গত মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যের লন্ডন সফরে এসে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও প্রকাশ্যে চীনের বিষোদগার করেছেন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন,চীনকে মোকাবিলা করার জন্য তারা বৈশ্বিক জোট গঠন করতে চায়। এমন পরিস্থিতে যুক্তরাষ্ট্রে চীনের একটি কনস্যুলেট বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে মার্কিন প্রশাসন।

us-chin.jpg

বানিজ্য সমস্যা,হংকংয়ে চীনের নিরাত্তা আইন কার্যকর ও করোনাভাইরাস মোকাবিলা নিয়ে চীনের সঙ্গে উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ার মধ্যে পম্পেও মঙ্গলবার লন্ডন সফরে আসেন। তিনি সাক্ষাৎ করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোমিনিক রারের সঙ্গে। ব্রিটেনে ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক নির্মাণকাজ থেকে চীনের প্রতিষ্ঠানকে বাদ দেওয়ার ঘোষণা দেওয়ায় বরিস জনসনের উচ্চ প্রশংসা করেন পম্পেও। তিনি বলেন, এটা করা না হলে ব্রিটেনের নাগরিকদের তথ্য চীনের কমিউনিস্ট পার্টির হাতে চলে যেতে পারতো।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্প ইতিমধ্যে বলে দিয়েছেন,চীন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান শত্রু। বাণিজ্য সুবিধা নেওয়ার জন্য চীনের প্রসিডেন্ট সি চিন পিংকে অভিযুক্ত করেন ট্রাম্প।একসঙ্গে করোনাভাইরাসকে ‘চীনা প্লেগ’ নাম দিয়ে ট্রাম্প বলেছেন,করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের সত্য লুকেয়ছেন সি চিন পিং।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ট্রাম্পের সুরে বলেন, বেইজিং করোনাভাইরাস মহামারির সত্য ঘটানা ধামাচাপা দিয়েছে এবং নিজেরদের স্বার্থ হাসিলের জন্য এটাকে ব্যবহার করছে। একই সঙ্গে চীনকে আগ্রাসী উল্লেখ করে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,বেইজিং অবৈধবাবে সমুদ্র দখর করেছে এবং হিমালয়ের দেশগুলোতে উসকানি দিয়েছে।

Untitled-1.jpg2.jpg

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাবকে পাশে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আমার এমন একটি জোট গঠন করতে পারি,যেটি চীনের হুমকি মোকাবিলা করবে এবং এক জোট হয়ে কাজ করে চীনের কমিউনিস্ট পার্টিকে বুঝিয়ে দেওয়া,তাদের এ ধরণের আচরণে কোনো স্বার্থ সিদ্ধি হবে না। তিনি আরও বলেন,যারা গণতন্ত্র ও স্বাধীনতায় বিশ্বাসী, এ রকম দেশগুলোকে এই জোটে আমরা দেখতে চাই এবং ওই দেশগুলোকে বুজতে হবে,চীনের কমিউনিস্ট পার্টি তাদের জন্য হুমকি তৈরি করছে।

কনস্যুলেট বন্ধের প্রতিশোধ নিলো চীন

গতকাল মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের হিউস্টনে চীনের কনস্যুলেট আজকের মধ্যে বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে।যুক্তরাষ্ট্রের এমন পদক্ষেপের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়েনবিন বলেন,যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপে ভয়ংকর এবং বিচারবহির্ভূত। এ সিদ্বান্ত প্রত্যাহার না হলে উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে। এটি একটি রাজনৈতিক উসকানি ও আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্গন।

চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় চেংদু শহরে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের কনস্যুলেট বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বেইজিং। আজ শুক্রবার এই নির্দেশ দেওয় হয়। মূলত বদলা হিসেবে চেংদুতে মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধের নির্দেশ দিল চীন।

us.jpg

মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধের সিদ্বান্ত সম্পর্কে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় একটি বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে তারা বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের অযৌক্তিক পদক্ষেপের পাল্টা জাবার হিসেবে আইনসম্মত ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে বেইজিং।চীনের পরারাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্রে সম্পর্ক বর্তমানে যে অবস্থায় পৌঁছেছে,তা বেইজিং প্রত্যাশা করে না। তবে যা কিছু ঘটেছে, এর সব কিছুর জন্য যুক্তরাষ্ট্রই দায়ী।

যুক্তরাষ্ট্রে ৩ চীনা নাগরিক গ্রেফতার

চীনের চার নাগরিকের বিরুদ্ধে ভিসা জালিয়াতির অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। অভিযুক্ত চার চীনার মধ্যে তিন জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।গ্রেপ্তার এড়ানো অপর চীনা নাগরিক যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রানসিসকোতে অবস্থিত চীনের কনস্যুলেটে অবস্থান করছেন বলে বলা হচ্ছে। তকেও গ্রেপ্তার করতে চাচ্ছে,যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা এফবিআই

Untitled-1.jpg

মার্কিন কর্তৃপক্ষ বলছে,চীনের চার নাগরিককে ভিসা জারিয়াতির অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছে।চীনের সশস্ত্র বাহিনীতে তাদের সদস্যপদ বিষয়ে তারা মিথ্যা বলেছেন।মার্কিন কৌঁসুলিদের দাবি,চীনা সামরিক বিজ্ঞানীদের যুক্তরারষ্ট্রে ঢুকিয়ে দেওয়ার একটা পরিকল্পনা অনেক দিন ধরেই চীনের রয়েছে। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে চীনা সামরিক বাহিনীর সদস্যরা পরিচয় গোপন ককে যুক্তরাষ্ট্রে এষেছেন।

এমন উত্তেজনা মার্কিন ডলারের উপর প্রভাব ফেলছে। যার ফলে মার্কিন ডলারের বিপরীতে অন্যান্য কারেন্সি যেমন EUR,GBP,JPY,AUD CAD প্রাইস বাড়ছে। সুতারাং মার্কিন ডলারকে প্রভাবিত করে এমন নিউজগুলো ট্রেডারদের জানা উচিত।

Share this post


Link to post
Share on other sites

Join the conversation

You can post now and register later. If you have an account, sign in now to post with your account.

Guest
Reply to this topic...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoji are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...
Sign in to follow this  

×
×
  • Create New...