Jump to content

Recommended Posts

                      Monthly 100% profit strategy

 

Forex market পৃথিবীর সবচেয়ে বড় market.এই মাকেটে আমরা যারা ব্যাবসা করি তারা সবাই কোন না কোন অনলইন সোস থেকেই forex market সস্পকে জেনেছি।অথবা কারও কাছ থেকে জেনেছি।

কিন্তু এই মাকেট সম্পকে কার প্রাতিষ্ঠানিক কোন ট্রেডিং থাকে না।আবার অনেকেই এই মাকেট ১/২টি trade এ লাভ করে অত্যান্ত লোভী হয়ে পড়ে এবং খুব অল্প সময়ের অনেক বেশী লাভের আশায় money management এর কোন তোয়াক্কা না করে trade করে ১৫দিন থেকে ১ মাসের মধ্যেই account শুন্য করে ফেলেন।

কিন্তু আপনি যদি একটি ভাল strategy তৈরী করতে পারেন বা কারও কাছ থেকে একটি ভাল strategy পান তাহলে এই market থেকে খুব ভাল পরিমন আয় করা যায় যা অন্য কোন প্রচলিত ব্যবসা থেকে করা সম্ভব নয়।

 

Monthly 100% profit strategy

যা যা প্রয়োজন

1.moving average-period 14

             MA methord simple

             Apply to close

2.super signal v2

3.cci minimum -200

    Maximum 200

4.auto pivot

 

Trading ধরনঃscalping

Time frame মুলত ৫মিনিট তবে অন্যন্য time frame ও trade করা যায়

যেভাবে entry নিবেন

sell enty:

5c7f95b115bfd_sellentrypoint1.thumb.jpg.3321ef9de6b24fd46ba4658008834928.jpg

 

উপর থেকে market down এ আসার সময় moving average cross করে যখন নিচে নামবে এবং cci –(মইনাস) এর মধ্যে ঢুকবে তখন sell entry নিবেন এবং super signal v2 আসলে tade close কররেন অথবা ৯-১০ pips নীচে take profit লাগাবেন।

Stop loss-moving average লাইন থেকে ৫ পিপ্স উপরে লাগাবেন।

Buy entry:

5c7f9613b9921_buyentrypoint1.thumb.jpg.9773d53ffd08f106d9b75c41fabca8b1.jpg

 

নীচ থেকে market up এ আসার সময় moving average cross করে যখন উপরে উঠবে এবং cci

+(প্লাস) এর মধ্যে ঢুকবে তখন buy entry নিবেন এবং super signal v2 আসলে tade close কররেন অথবা ৯-১০ pips উপরে take profit লাগাবেন।

Stop loss-moving average লাইন থেকে ৫ পিপ্স নীচে লাগাবেন।

 

Auto pivot দিয়ে day time frame এর pivot point দেখে নিন।pivot এর উপর বাজার থাকলে buy entry নেওয়ার সুযোগ বেশী খুজুন।

pivot এর নীচে বাজার থাকলে sell entry নেওয়ার সুযোগ বেশী খুজুন।

 

time:ওভার ল্যাপিং পিরিয়ড অথাৎ যখন market এ ২ট session চালু থাকে তখন entry নিবেন।কখনই Sydney session-এ trade করবেন না।

বাংলাদেশ সময় দুপুর 2.00 থেকে রাত্রী ৪.00 মধ্যে trade করুন। 

 

Money management:100 usd invest বা equity থাকল 0.5 lot এ entry নিবেন।

 

যেভাবে মাসে 100% profit হবে:

এই strategy তে আপনি দিনে কয়েক বার entry নেওয়ার সুয়োগ পাবেন। দিনে যদি মাত্র ১টি entry নেন ও 10 pips profit পান তহলে 5dollar profit হবে এবং ২০দিনে 100dollars profit হবে।

এই strategy তে success rate 85-90%

অথাৎ আপনি ১০টি trade entry নিলে 8-9টি তে profit হবে।

এই strategy তে মাসে ৫০টি trade open করে যদি আপনি ৪০ trade এ profit করেন ও ১০টি trade ও loss করেন তাহলে

৪০*৫=200 profit

10*2.5=২৫ loss

Net profit 200-25=175

তার মানে ১৭৫% profit

25.02.2019 থেকে 06.03.2019 পযন্ত

5c7f97524cb82_profithistory.thumb.png.d258ef652faa03d54b1e95bc67e0f36b.png

 

সুতরাং 100% monthly profit সম্ভব।

 

For more info and any help please contact 01718306480

                             IMO 01718306480

Facebook এ আমি

Facebook page https://www.facebook.com/Monthly-100-profit-in-forex-400110730558655/?modal=admin_todo_tour

 

সতকতা:high impact news যেমন NFP, FOMC METING, US CENTRAL BANK INTEREST RATE প্রকাশিত হওয়ার আগ মূহুত্বে এই stratery তে trade করবেন না।     

 

Share this post


Link to post
Share on other sites
Guest
You are commenting as a guest. If you have an account, please sign in.
Reply to this topic...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoticons maximum are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...
Sign in to follow this  

  • Similar Content

    • By bmfxanalyst
       
      একথা নতুন করে বলার কিছু নাই যে, ফরেক্স মার্কেট বিশ্বের সবচেয়ে বড় লিকুইডিটি মার্কেট। যেখানে ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলার লেনদেন হয় প্রতিদিন। এই মার্কেটে আমার আপনার মত যারা ট্রেড করি তারা শুরুতেই একটা কথা শুনে আসি যে, এই মার্কেটে ৯৫% লুজার!! কিন্ত কেন এতো বড় অংশ লুজার তা কি কেউ জানি??
       
      => আজ এই লেখায় আপনি অনেক নতুন বিষয় জানতে চলেছেন, তা হয়তো আপনি আগে ভাবেননি কখনো। অথবা ভেবেছেন, কিন্ত সিরিয়াস হিসেবে নেন নি কখনো অথবা জেনেও থাকতে পারেন, কিন্ত ততোটা গুরুত্ব দেননি। আজ থেকে সেসব গুরুত্ব দিতে শিখবেন আশা করছি।
      হাতে সময় আছে তো? একটু সময় নিয়ে লেখাটা পড়ুন। বোঝার চেষ্ঠা করুন। দরকার হলে আরেকবার পড়ুন। নয়তো বুকমার্কে সেইভ করে রাখুন, আপনার ফেসবুক ওয়ালেও শেয়ার করে রাখুন যাতে সবাই জানতে পারে ফরেক্স মার্কেটের এই নিগুঢ় রহস্যের ব্যাপারে।
       
                                                                                                
       
      সবার প্রথমে আপনাকে জানতে হবে এই ফরেক্স মার্কেটে ব্যবসা করে দুই শ্রেনীর ব্যবসায়ী। এক রাঘব বোয়ালেরা, আর দুই চুনোপুঁটিরা।
      এখানে রাঘব বোয়াল কারা?
      এখানে রাঘব বোয়াল হিসেবে কাজ করে বিশ্বের বড় বড় ব্যাংক, বড় বড় ফিন্যান্সিয়াল করপোরেশানগুলো। তবে তারা কিন্ত বাংলাদেশের শেয়ার মার্কেটের মত এই মার্কেটকে ম্যানিপুলেট করার কোন ক্ষমতাই রাখে না। মার্কেট মার্কেটের মতোই চলে।
      এবার আসি চুনোপুঁটিদের কথায়। এই চুনোপুঁটিই হচ্ছে আমার আপনার মত ট্রেডারেরা। বলা হয় এই মার্কেটে ৯৫% লুজার। এই লুজার কারা? ঐ সব রাঘব বোয়ালেরা?
      কখনোই না! তারা কিন্ত এই ৯৫% লুজারের মাঝে পড়েনা। কেন?
      কারন তারা এখানেই তাদের অর্থ যথাযথ ব্যবহার করে। বিভিন্ন ব্রোকারেরা তাদের কাছ থেকে কমিশনের ভিত্তিতে স্বত্ব কিনে নিয়ে আমাদের মত ট্রেডারদের ট্রেড করার সুযোগ করে দেয়।
      আর লুজারদের তালিকায় আমাদের মত ট্রেডারেরা থাকে। এই যে আপনি ৯৫% লুজারের কথা শুনছেন, তারা কিন্ত আমার আপনার মতোই ট্রেডারেরা। নয়তো সেই সব রাঘব বোয়ালেরা লস করলে ফরেক্স মার্কেটে লিকুইডিটি সংকট দেখা দিত। এই ট্রিলিয়ন ডলারের লেনদেনও কমে আসত যদি এখানে সেই রাঘব বোয়ালদেরও ৯৫% লুজার হতো। কিন্ত বাস্তবে সেই মার্কেট আরও বড় হচ্ছে। এতেই বোঝা যাচ্ছে বাস্তবতা।
      এই বিশাল মার্কেটে বড় বড় বিজনেসম্যানদের সঙে আপনিও যখন নিজেকে শামিল করছেন, তখন আপনার চিন্তাধারাও তাদের চিন্তাধারার সাথে মেলাতে হবে। যদি তা না করতে পারেন, তবেই আপনি লুজার হবেন নিশ্চিত। আর লুজারদের পার্সেন্টেজ দেখে বোঝাই যায় যে শতকরা ৯৫ জন ট্রেডারেরাই নিজেদের সেই সব বিজনেসম্যানদের চিন্তাধারার সাথে নিজেদের মেলাতে পারেনি। ফলাফল এমন বিশাল লুজারের সংখ্যাবৃদ্ধি।
      এবার আসি বড় বড় ব্যাবসায়ীদের সাথে আমাদের মত ট্রেডারদের স্ট্র্যাটেজিক্যাল পার্থক্যের বিষয়েঃ
      আপনি সাড়ে পাঁচ’ফুট বা ছ’ফুট উচ্চতার মানুষ। আপনি হাটার সময় এক ধাপেই প্রায় দুই ফুট পার হয়ে যেতে পারেন। এই দু ফুট রাস্তায় হালকা কাদা পানি, খানা খন্দ যাই থাকুক না কেন। আপনার কিন্ত সেসব না দেখলেও চলে। কিন্ত এই পথ যদি একটা পিপড়া অতিক্রম করতে চায়? তাহলে কি হবে?
      তাকে প্রতি ইঞ্চি ইঞ্চি হিসেব করে এগতে হবে, নয়তো কাদায় আটকে যেতে পারে, খানাখন্দের ভিতর পানি থাকলে সেখানেও প্রান সংশয় দেখা যেতে পারে। তাই তাকে হিসেব করে করে এগোতে হয়। চারদিকে দেখেশুনে নিয়ে এগোতে হয়। ঠিকঠাক ভাবে এগোতে পারলে সেই পথ পারি দিয়ে পারে। অথবা কোন ভুল করলে প্রানটাও হারাতে পারে।
      এই উদাহরনের সাথে ফরেক্স এর কি সম্পর্ক??
      জ্বি, সম্পর্ক আছে। এটাই আসল সম্পর্ক। যারা যারা রাঘব বোয়াল, তারা মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের ব্যালান্স নিয়ে একবারে মাসের পর মাস ট্রেড ওপেন করে বসে থাকে, টাইমফ্রেমের দিক দিয়ে তারা এক লাফে দুই-আড়াই ফুট যাবার মত এগিয়ে থাকে, এই সময়ের মাঝে আমাদের মত ছোট ছোট ট্রেডারদের কেউ এক মিনিট, কেউ ৫ মিনিট, কেউ ৩০ মিনিট, কেউ ১ ঘন্টা, কেউ ৪ ঘন্টা আবার কেউ এক দিনের টাইমফ্রেম নিয়ে সেই পিপড়ার মত হিসেব করে করে সামনে এগোতে চায়। ফলাফল আমাদের মত ট্রেডারদের রিস্ক কয়েক হাজার গুন বৃদ্ধি পায়।
      এই ঝুঁকিপুর্ণ পথ পার হতে হতেই বেশিরভাগ ট্রেডার ঝড়ে পড়ে অনায়াসে। কারন তারা হয় ঝুঁকি সম্পর্কে তেমন সচেতন থাকেন না। নয়তো তারা ঝুঁকিটাকে ঠিকমত ম্যানেজ করতে শেখেন না। ফলাফল একের পর এক একাউন্ট ডাম্প হয়ে যাওয়া।আর লুজারদের পার্সেন্টেজ বাড়তে থাকা।
      এতোক্ষন তো আলোচনা করা হল কেন এতো লুজার হয়। এবার আসেন আমরা একটু জেনে নেই কিভাবে এই ঝুকিপুর্ন পথ নিরাপদে পর হতে পারবেন।
      আমি পয়েন্ট আকারে বিষয়গুলো ব্যাখ্যা করি। তাতে হয়তো বুঝতে সুবিধা হবে।
      ১) সেহেতু ফরেক্স এর পথ সমতল নয়, উঁচুনিচু আর খানা-খন্দে ভরা, সেহেতু আপনাকে সর্বপ্রথম এই পথ পাড়ি দেবার মত একটা স্ট্র্যাটেজী ঠিক করতে হবে।
      ২) স্ট্র্যাটেজীটা যেমনই হোক না কেন, আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে নুন্যতম প্রফিট রেশিও যেন রিস্ক রেশিওর থেকে তিনগুন হয়। অর্থ্যাত আপনার স্টপ লস ১০ পিপ্স হলে যেন টেক প্রফিট ৩০ পিপ্স হয় কমপক্ষে।
      ৩) এমন স্ট্র্যাটেজীর সুফল আপনি এভাবে পাবেন যে, আপনার একটা ট্রেড প্রফিটে গেলে সেই প্রফিট আপনার পরবর্তী তিনটা ট্রেড লসে গেলেও আপনার মুল ব্যালান্স অক্ষুন্ন থাকবে।
      ৪) যে স্ট্র্যাটেজীই ব্যবহার করেন না কেন, সবসময় ট্রেন্ডের পক্ষে ট্রেড নেবেন। সাগরে ঢেউ বেশি হলে মাঝি নৌকার পাল কিন্ত যেদিকে বাতাস বইতে থাকে ঠিক সেদিকে তুলে ধরে, কারন বাতাসের উল্টোদিকে যেতে চাইলে প্রানটা হারাতে হতে পারে।
      ফরেক্স মার্কেটে ট্রেন্ডটাও ঠিক তেমনি। আপনি ট্রেন্ডের পক্ষে থাকলে নিজেকে বেশ নিরাপদে রাখতে পারবেন। কিন্ত ট্রিলিয়ন ডলারের সমুদ্রে নিজের কয়েকশত বা কয়েকহাজার ডলারের মুলধন নিয়ে ট্রেন্ডের বিপক্ষে যাবার সাহস করলে ফলাফল কি হতে পারে তা নিশ্চয় আপনি নিজেই আঁচ করতে পারছেন।
      ৫) কখনোই বিশ্বাস করবেন না যদি কেউ বলে যে, সে এই মার্কেটে কেউ ৮০% বা ৯০% টানা প্রফিট করে চলছে। তার মানে আপনিও তেমনটি করতে পারবেন। সুতরাং আপনি তার কথা শুনেই ছুটে চললেন তার কাছে, তার তালীম নেবার আশায়, কিন্ত ফলাফল দেখলেন নেগেটিভ। অর্থ্যাত আপনি আবারও লস করেছেন।
      বিখ্যাত এক ট্রেডারের এক বানী জেনে রাখুনঃ
      “In this business if you’re good, you’re right six times out of ten. You’re never going to be right nine times out of ten.” -Peter Lynch
      ৬) মনে রাখবেন ১০ টা ট্রেডের ৮-৯ টা ট্রেডে আপনি ১০ পিপ্স করে প্রফিট নিলেন এভারেজে, কিন্ত বাকি ১-২ টা ট্রেডেই আপনি লস করেছেন ৫০-১০০ পিপ্স করে টোটাল ১০০-২০০ পিপ্স। এখানে আপনার ট্রেডগুলোর প্রফিট রেশিও ৮০%-৯০% হলেও আল্টিমেটলি কিন্ত আপনি বেশ ভালোই লসের স্বীকার হয়ে চলেছেন। এখন কি বুঝতে পারছেন সমস্যাটা কোথায় ??
      ৭) আমি ১:৩ রেশিওতে ট্রেড করতে বলেছি, তার কারন আপনি যদি ৫০% উইনও করেন , তবুও আপনি ভাল রকমের প্রফিটে থাকবেন।
      ১০টা ট্রেডের ৫টা ১০ পিপ্স করে লস করলেন, তার মানে ৫০ পিপ্স লস হলো, আর বাকি ৫টা তিনগুন করে প্রফিট করলেন।তার মানে ১৫০ পিপ্স প্রফিট হলো। লাভ লস মিলে কিন্ত আরও ১০০ পিপ্স প্রফিট করলেন আপনি। এখানেই প্রকৃতপক্ষে লাভ লসের হিসেব লুকিয়ে থাকে।
      ৮) নিজের ব্যালান্স নিয়ে সবসময় যত্নবান হবেন। কখনোও নেগেটিভ হলে হাল ছেড়ে দেবেন না। ঠান্ডা মাথায় ভেবে এর কারন বের করুন। ইমোশনালি কোন ট্রেড চালু করবেন না। ফরেক্স মার্কেট কারও ইমোশনকে পাত্তা দেয় না।
      জেনে রাখুন এই সফল ট্রেডার কি বলেছেনঃ
       “Don’t focus on making money; focus on protecting what you have.” – Paul Tudor Jones
      ৯) এরপর কারেন্সী পেয়ার বাছাই করতে সচেতন হোন। মনে রাখবেন আলাদা দেশ, আলাদা কারেন্সি মুভমেন্ট। সুতরাং একই ব্যবসা পদ্ধতি দিয়ে আলাদা দেশের কারেন্সি মুভমেন্টকে নিজের কন্ট্রোলে নিয়ে আসা অনেক কষ্টের। কারন মাছের ব্যবসা পদ্ধতি দিয়ে আপনি আলুর ব্যবসা করতে গেলে লস খাবেনই। সুতরাং পারতপক্ষে একটি কারেন্সী পেয়ার বাছাই করুন যা আপনার স্ট্র্যাটেজীর সাথে মানানসই হয়।
      নয়তো কোন একটা কারেন্সী বাছাই করুন, এরপর সেই কারেন্সীর যতগুলো পেয়ার আছে, সেগুলোতে ট্রেড করুন।
      ১০) যতগুলো পেয়ারই বাছাই করেন না কেন। এখানে মানি ম্যানেজমেন্ট আপনাকে ফলো করতেই হবে। এই বিষয়টা অনেকেই জানে না। আজ পরিস্কার হয়ে জেনে নিন।
      মানি ম্যানেজমেন্ট হচ্ছে, আপনার মুলধনকে নিরাপদ রাখা।
      ধরুন আপনার ব্যালান্স ১০০ ডলার। আপনি ৫% রিস্ক নিবেন। তাহলে কি করবেন?
      এখানে, আপনি যতগুলো ট্রেডই নেন না কেন, আপনার সকল স্টপ লসের হিসেব মিলিয়ে যেন ৫ ডলারের বেশি না লস হয়। কারন একবার সবগুলো লস হয়ে গেলেও আপনি আরও ১৯ বার একই ভাবে ট্রেড করার সুযোগ পাবেন। আগের লস রিকভারি করে আবারও প্রফিটে নিয়ে আসার সুযোগ পাবেন।
      এ বিষয়ে আরেকজন সফল ট্রেডারের বানী শুনুনঃ
      “Frankly, I don’t see markets; I see risks, rewards, and money.” – Larry Hite
      ১১) বাংলা একটা প্রবাদ আছে, “ভাবিয়া করিও কাজ, করিয়া ভাবিও না”
      এটা এখানে প্রযোজ্য হবে। সুতরাং ট্রেড ওপেন করার আগে ট্রেন্ড, আপনার স্ট্র্যাটেজী, সব দিক বিবেচনা করে পারফেক্ত হলে তবেই ট্রেড ওপেন করুন। টেক প্রফিট লেভেল, স্টপ লস লেভেল সেট করুন। এরপর বার বার চার্ট দেখতে যাবেন না। তাতে অস্থিরতা বাড়ে শুধু। আর অস্থির মনই আপনাকে ভুল ডিরেকশান দিয়ে ভুল কিছু সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করে।
      সুতরাং ট্রেড ওপেন করুন এবং তার কথা ভুলে যান। পরের এন্ট্রি খোঁজ করুন।
      সমসময় মনে রাখবেন এই সফল ট্রেডারের কথাঃ
      The goal of a successful trader is to make the best trades. Money is secondary.” – Alexander Elder
      সবশেষে বলতে পারি যে, ট্রেড বাই ট্রেড হিসেব না করে মাসে কয়টা ট্রেড নিলেন, তার টোটাল হিসেব করুন। কত পিপ্স প্রফিট পেলেন, কত পিপ্স লস করলেন তার হিসেব বের করুন।
      একই ভাবে ব্যাকটেস্ট করুন। মাসে কেমন প্রফিট এর সুযোগ ছিল সেসব মাসে তা বের করুন। একটা পরিস্কার ধারনা পাবেন। এভাবে টানা ২-৩ মাস করে যান, এতে অভ্যস্ত হয়ে যাবেন একসময়। আর একবার অভ্যস্ত হয়ে গেলে আপনি নিজেকে সেই ৫% প্রফিটেবল ট্রেডারদের মাঝে দেখতে পাবেন আমি নিশ্চিত।
      পরিশেষে, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা আমাকে সুস্থ রাখেন। আর ফরেক্স মার্কেটের কল্যানে আরও বেশি বেশি মানুষের মেহনত করতে পারি।
      অনেকেই ভালভাবে ফরেক্স জানতে ও শিখতে আগ্রহ দেখিয়েছেন, অনেকে আবার ট্রেডিং সিগনাল ফলো করার আগ্রহের কথাও জানিয়েছেন, তারা আমাকে মেসেজ দিতে পারেন অথবা আমার ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে ইনবক্সে একটা মেসেজ দিয়ে রাখবেন। আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেবার চেষ্ঠা করা হবে ইনশাল্লাহ। অত্যন্ত স্বল্প ফী’র মাধ্যমে যে কেউ এখানে সিগনাল পেতে পারেন নিজেদের ফরেক্স শেখার পাশাপাশি বাড়তি কিছু প্রফিট পাবার আশায়।
      আমার ফেসবুক পেইজ লিংকঃ https://www.facebook.com/bmfxanalystbd/
      আমার স্কাইপ আইডীঃ live:bmfxanalyst
      পরিশেষেঃ ব্যবসা নিজে ভালভাবে শিখে নিয়ে নিজের বুদ্ধি ব্যবহার করে করাই সবচেয়ে ভাল। এতে ব্যবসায় আন্তরিকতা বজায় থাকে। আর আন্তরিকতার উপর নির্ভর করে সৃষ্টিকর্তা ব্যবসায় বরকত দিয়ে থাকেন। কারন আল্লাহ তায়ালা ব্যবসাকে হালাল করেছেন। আর মহানবী (স) বলেছেন, “তোমরা ব্যবসা করো, ব্যবসায়ে ১০ ভাগের ৯ ভাগ রিজিকের ব্যবস্থা আছে।”
      সৃষ্টিকর্তা আমাদের কবুল করুন। আমীন।

    • By Ayan22691
      Technical parameters | (18th – 22nd ) December
       
       
         

       
       
       
       
       
       
       
      Possible entry point with critical support and resistance level.But when you trade this level make sure that you are using price action confirmation signal.We have prepared these key support and resistance level based on the Fibonacci retracement levels,100&200 SMA, key swings point and chart patterns formed in the higher time frame.Focus on AUDUSD technical analysis
       
       
       
       
      EURUSD
      Look for buying opportunity near the first critical support
      First critical Resistance: click here to see
      Second critical Resistance: 1.20916
      First critical Support: click here to see
      Second Critical Support: 1.16036
      Overall Sentiment: Slightly Bullish
       
      All the technical parameters are applicable from  18th December to 22nd December 2017.The overall sentiment indicates the prevailing trend of the market.We highly recommend you to trade in favor of the market sentiment (overall sentiment ) to reduce the risk exposure in trading.Trade the critical support and resistance level with price action confirmation signal.If you want to get the technical chart analysis along with logical explanations, feel free to contact us.
      We provide high-quality Forex trading signals, trading consultancy, and price action trading course.Please feel free to contact us for any query. A simple 5-minute conversation with our expert will change your trading career.
    • By munim123
      ট্রেডিং strategy হল একটা trading setup or trading method - যেটা follow করে আপনি trade a entry and exit করেন। ট্রেডিং strategy আপনি নিজে নিজে develop করতে পারেন বা অন্য কারও follow করতে পারেন।Forex trading a profit - করতে হলে আপনাকে অবশ্যই একটা trading strategy follow or develop করতে হবে তা না হলে আপনি কোন দিনই Forex trading- এ profit করতে পারবেন না। ৯৫% নতুন trader Forex market -টিকে থাকতে পারে না তার main কারন হল ট্রেডিং strategy খুজেঁ না পাওয়া।
      ট্রেডিং strategy খুঁজে পেতে হলে আপনাকে প্রথমে জানলে হবে আপনি আসলে কোন ধরনের trader। মানে আপনি কি দরনের ট্রেডিং strategy follow করতে পারবেন।এটি psychological or mind set up-এর ব্যাপার। Forex market a ৫ -রকমের strategy বা mind set up-আর trader থাকে।
      ১।Swing or position strategy.
      ২। Range bond strategy.
      ৩। Break out strategy.
      ৪। Pull back strategy.
      ৫। Reversal strategy.
      একজন trader - 2 টি এর বেশি trading strategy - তে trade করতে পারেনা বা market move ধারতে পারে না। এখন আপমন যদি একজন trader-কে আপনার trading strategy follow করতে বলেন তাহলে সে কিভাবে follow করবে।মানে ধারেন আপনি swing or position strategy and pull back strategy combination করে trading strategy develop করছেন।কিন্তু সে break out and reversal strategy এর mind set up এর trader।তাহলে কি সে আপনার strategy follow করতে পারবে।এটা কখনও সম্ভব না।কারন Forex market -এ এক এক trader এক এক রকম এর। আসলে main কাজ তা হল কার জন্যে কোন trading strategy follow করা সম্ভব সেটা খুঁজে বের করা।এটা একটা সময় সাপেহ্ম ব্যাপার। আপনি কি ধরনে trader or strategy follow করতে পারবেন সেটা আপনাকে নিজে নিজে বের করতে হবে। এই জন্য আপনাকে একজন ভাল trader-এর trading strategy follow করতে হবে এবং কোন কারনেই সেই strategy follow করা বাদ দেওয়া যাবেনা। আমার কাছে Nail fuller -এর price action trading strategy follow করা সবচেয়ে ভাল বলে মনে হয়। কারন fuller-এর price action strategy-তে সব ধরনের trading strategy -এর combination-এ develop করা শুধু range bond strategy-টা নাই।তাই আপনি তাকে follow করলে আপনার mind set up-এর trading strategy খুঁজে পাবেন বলে আশা করছি। অথবা আপনি অন্য কোন ভাল trader-এর strategy follow করতে পারেন সেটা আমাদের দেশের কোন strategy ।But কোন ভাবেই trading strategy follow করা বাদ দেওয়া যাবেনা।আপনি যারে follow করেন না কেন।আমার কাছে Best মনে হয় Nail fuller -এর price action strategy follow করা।
    • By এস.এইচ. সজীব
      সারা দিন-রাত চার্টের সামনে বসে না থেকে অল্প সময় এনালাইসিস করে লো রিস্কে (সর্বোচ্চ ৩%) সপ্তাহের ৫ দিনে ২ থেকে ৫ টা ট্রেড করে ২০ পিপস আয় করার সবচাইতে সহজ কিন্তু কার্যকারী মেথড/স্ট্র্যাটেজি/সিস্টেম কি হতে পারে।
      অভিজ্ঞ ট্রেডারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
    • By মহাপুরুষ
      একজন ফরেক্স ট্রেডার যখন এন্ট্রি নেন তখন উনি বুঝেই নেন। এইটা আমার মনে হয়। এন্ট্রি নেয়া যায় কয়েক ভাবে । অন্যর সিগনাল থেকে, নিজের এনালাইসিস থেকে, নিউজ দেখে এবং মার্কেট এর আপ – ডাউন দেখে ও আন্দাজে। যেভাবেই নেয় না কেন একজন ট্রেডার তার ট্রেড এর উপর কনফিডেন্স রাখে ।
       
      আজকে আমাদের টপিকস হচ্ছে একটা খুবই সহজ স্ট্রেটেজি এবং যা বহুল ব্যবহৃত । এই স্ট্রেটেজি এর আগেই অনেকে শেয়ার করেছে। আমি জাস্ট আমার মতো করে আজকে শেয়ার করছি। চেষ্টা করেছি সহজ ভাবে বুঝিয়ে দেয়ার জন্য । ভাষার জটিলতার কারনে বুঝতে সমস্যা হলে কমেন্ট করবেন বিস্তারিত বুঝিয়ে দেয়ার চেষ্টা করবো।
       
      স্ট্রেটেজিঃ
       
      টাইমফ্রেমঃ H4 & D1
      ইন্ডিকেটরঃ মুভিং এভেরাজ ( 200 EMA Close)
      প্রথমেই আপনি আপনার ট্রেড পেয়ারের ডে চার্টটি ওপেন করুন । ধরে নিলাম আমাদের পেয়ার NZDUSD.
       
      ১নং ছবিঃ
       

       
      দেখে নিবেন বর্তমান প্রাইস মুভমেন্ট কি ২০০ EMA এর উপরে নাকি নিচে। যদি উপরে হয় তাহলে বুলিশ মুভমেন্ট এবং ২০০ EMA এর নিচে হলে বিয়ারিশ মুভমেন্ট। দেখা যাচ্ছে আমাদের পেয়ার এর প্রাইস মুভমেন্ট ২০০ EMA এর উপরে এবং ফুল বুলিশ ক্যান্ডেল সৃষ্টি হয়েছে। লক্ষ্য করুন গোলাকার বৃত্তের দিকে। তার মানে NZD USD বুলিশ ট্রেন্ড।
      আসুন আমরা এইবার দেখি কিভাবে ট্রেড করবো।
       
       
       
       
      ২নং ছবিঃ
      এখন আপনি দেখবেন H4 টাইম্ফ্রেম ।
       

       
      দেখুন H4 200 EMA ক্রস করেছে এবং শক্তিশালি বুলিশ ক্যান্ডেল সৃষ্টি করেছে। বুলিশ ক্যান্ডেলটি শেষ হওয়ার পর আপনি ট্রেডে প্রবেশ করতে পারবেন । অবশ্যই BUY ট্রেড।
       
      ৩নং ছবিঃ
       

       
      এই ছবিতে দেখুন প্রাইস ড্রপ হয়েছে এবং ২০০ EMA এর খুব কাছে গিয়ে প্রাইস রিভার্স করেছে।
       
       
       
      দুইবার নিয়ারলি রিজেকশন এর পর ফুল বুলিশ বডি সৃষ্টি হয়েছে এবং সেইসাথে লক্ষ্য করুন D1 এর প্রাইস ২০০ EMA এর উপরে আছে কিনা । যদি উপরে হয়ে থাকে তবে BUY নিন । ( লিখার সময় দেখেছি D1 ওই মুহূর্তে বুলিশ ছিলো )
       
       
       
       
       
      ৪নং ছবিঃ
       
      নিচের ছবিটি লক্ষ্য করুনঃ
       

       
      লাল পয়েন্টটাতে দেখা যাচ্ছে প্রাইস মুভ করে নিচে নেমে গিয়েছে এবং আপ-ডাউন হচ্ছে। এই টিউটোরিয়াল লিখার সময় আমি চেক করে দেখেছি তখনো D1 ক্যান্ডেল ২০০ EMA এর উপরে । যদি H4 এর প্রাইস মুভমেন্ট D1 এর বিপরীত সিগন্যাল প্রদান করে তখন আমরা ট্রেড নেয়া থেকে বিরত থাকবো।
       
      ৫নং ছবিঃ
       

       
      ছবিতে দেখা যাচ্ছে D1 এর সাথে H4 এর সিগন্যাল পুরোপুরি মিলে যাচ্ছে এবং লক্ষ্য করুন ফুল বুলিস ক্যান্ডেল সৃষ্টি হয়েছে ।
       
       
       
      ৬ নং ছবিঃ
       

       
      ছবিটি একটি রিজেকশনের ছবি এবং D1 তখনো বুলিশ। তাই BUY সিগন্যাল।
       
      ৭ নং ছবিঃ
       

       
      ছবিটি একটি রিজেকশনের ছবি এবং D1 তখনো বুলিশ। তাই BUY সিগন্যাল।
       
       
      ৮ নং ছবিঃ
       

       
      এই ছবিটি দেখলেই বুঝবেন কেন ট্রেড নেয়া হয়নি । আমার প্রশ্ন কেন ট্রেড নেয়া হয়নি, আপনি বলুন কমেন্টে ?
      লিখাটা বুঝে থাকলে আশা করি উত্তরটা নিজেই খুজে পাবেন এবং উত্তর দিতে পারবেন। :D
       
      ৯ নং ছবিঃ
       
       

       
      বর্তমান প্রাইস এর লাইভ ট্রেড । কেন ট্রেডটা নেয়া হয়েছে ?
      উপরের লিখাগুলো যথেষ্ট গুছিয়ে লিখার চেষ্টা করেছি। আশা করি বুঝতে পেরেছেন । না পারলে প্রশ্ন করুন চেষ্টা করবো উত্তর দিতে।
       
       
       
      ফুটনোটঃ
       
      ১) D1 এর সাথে H4 এর ট্রেন্ড মিল থাকতে হবে । তারপর আপনি সিদ্ধান্ত নিবেন।
       
      ২) W1 দেখে ট্রেন্ড বুঝলে D1 দেখে কনফারমেশন নিবেন। তদ্রুপ অন্য টাইম্ফ্রেমের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। তবে পরামর্শ হচ্ছে বড় টাইম্ফ্রেমে করবেন ।
       
      ৩) রিজেকশন অথবা ক্রস করার পরেই ট্রেড নিবেন ।
       
      ৪) অবশ্যই মুভমেন্ট এর কনফার্মেশন দরকার । এই যেমন ধরুন একটা শক্তিশালী ক্যান্ডেল বডি। ক্রস করার সাথে সাথেই ট্রেড নিবেন না । H4 ট্রেড নিলে মিনিমাম এক ঘনণ্টা অপেক্ষা করুন । এরপর ট্রেড নিন ।
       
      ৫) স্টপলস এবং টিপি দিবেন নেক্সট সাপোর্ট এবং রেজিসটেন্স । অবশ্যই ২০০ EMA এর উপর অথবা নিচের সাপোর্ট এবং রেজিসটেন্স। ( সাপোর্ট, রেজিসটেন্স এবং ট্রেন্ড লাইন এর কোন বিকল্প হতে পারে না )
       
       
      টিপসঃ এই স্ট্রেটেজিতে সিগন্যাল খুব কম আসে। অতএব মেজর এবং ক্রস পেয়ারে ট্রেড করতে পারেন । ১০-১৫ টা পেয়ারে ট্রেড করলে প্রতিদিন একটা পেয়ারে সিগন্যাল পাবেন। এই স্ট্রেটেজিতে ট্রেড করার সুবিধা হচ্ছে চার্টটা পরিষ্কার দেখা যাই।
       
      হ্যাপি ট্রেডিং
       
      ***  ছবিগুলোতে ডাবল ক্লিক দিয়ে বড় করে দেখুন । 
       
       

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×