Jump to content
bmfxanalyst

প্রফেশনাল ট্রেডারদের দৃষ্টিতে জেনে নিন, কেন আপনি লস করে চলেছেন? আর কিভাবে এই লস কাটিয়ে প্রফিটে ফিরবেন।

Recommended Posts

 

একথা নতুন করে বলার কিছু নাই যে, ফরেক্স মার্কেট বিশ্বের সবচেয়ে বড় লিকুইডিটি মার্কেট। যেখানে ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলার লেনদেন হয় প্রতিদিন। এই মার্কেটে আমার আপনার মত যারা ট্রেড করি তারা শুরুতেই একটা কথা শুনে আসি যে, এই মার্কেটে ৯৫% লুজার!! কিন্ত কেন এতো বড় অংশ লুজার তা কি কেউ জানি??
 

=> আজ এই লেখায় আপনি অনেক নতুন বিষয় জানতে চলেছেন, তা হয়তো আপনি আগে ভাবেননি কখনো। অথবা ভেবেছেন, কিন্ত সিরিয়াস হিসেবে নেন নি কখনো অথবা জেনেও থাকতে পারেন, কিন্ত ততোটা গুরুত্ব দেননি। আজ থেকে সেসব গুরুত্ব দিতে শিখবেন আশা করছি।
হাতে সময় আছে তো? একটু সময় নিয়ে লেখাটা পড়ুন। বোঝার চেষ্ঠা করুন। দরকার হলে আরেকবার পড়ুন। নয়তো বুকমার্কে সেইভ করে রাখুন, আপনার ফেসবুক ওয়ালেও শেয়ার করে রাখুন যাতে সবাই জানতে পারে ফরেক্স মার্কেটের এই নিগুঢ় রহস্যের ব্যাপারে।

 

                                                                                          hqdefault.jpg.3608f0856ce3ca4bc49a3f2bd6db6e40.jpg

 

সবার প্রথমে আপনাকে জানতে হবে এই ফরেক্স মার্কেটে ব্যবসা করে দুই শ্রেনীর ব্যবসায়ী। এক রাঘব বোয়ালেরা, আর দুই চুনোপুঁটিরা।

এখানে রাঘব বোয়াল কারা?
এখানে রাঘব বোয়াল হিসেবে কাজ করে বিশ্বের বড় বড় ব্যাংক, বড় বড় ফিন্যান্সিয়াল করপোরেশানগুলো। তবে তারা কিন্ত বাংলাদেশের শেয়ার মার্কেটের মত এই মার্কেটকে ম্যানিপুলেট করার কোন ক্ষমতাই রাখে না। মার্কেট মার্কেটের মতোই চলে।

এবার আসি চুনোপুঁটিদের কথায়। এই চুনোপুঁটিই হচ্ছে আমার আপনার মত ট্রেডারেরা। বলা হয় এই মার্কেটে ৯৫% লুজার। এই লুজার কারা? ঐ সব রাঘব বোয়ালেরা?
কখনোই না! তারা কিন্ত এই ৯৫% লুজারের মাঝে পড়েনা। কেন?

কারন তারা এখানেই তাদের অর্থ যথাযথ ব্যবহার করে। বিভিন্ন ব্রোকারেরা তাদের কাছ থেকে কমিশনের ভিত্তিতে স্বত্ব কিনে নিয়ে আমাদের মত ট্রেডারদের ট্রেড করার সুযোগ করে দেয়।

আর লুজারদের তালিকায় আমাদের মত ট্রেডারেরা থাকে। এই যে আপনি ৯৫% লুজারের কথা শুনছেন, তারা কিন্ত আমার আপনার মতোই ট্রেডারেরা। নয়তো সেই সব রাঘব বোয়ালেরা লস করলে ফরেক্স মার্কেটে লিকুইডিটি সংকট দেখা দিত। এই ট্রিলিয়ন ডলারের লেনদেনও কমে আসত যদি এখানে সেই রাঘব বোয়ালদেরও ৯৫% লুজার হতো। কিন্ত বাস্তবে সেই মার্কেট আরও বড় হচ্ছে। এতেই বোঝা যাচ্ছে বাস্তবতা।

এই বিশাল মার্কেটে বড় বড় বিজনেসম্যানদের সঙে আপনিও যখন নিজেকে শামিল করছেন, তখন আপনার চিন্তাধারাও তাদের চিন্তাধারার সাথে মেলাতে হবে। যদি তা না করতে পারেন, তবেই আপনি লুজার হবেন নিশ্চিত। আর লুজারদের পার্সেন্টেজ দেখে বোঝাই যায় যে শতকরা ৯৫ জন ট্রেডারেরাই নিজেদের সেই সব বিজনেসম্যানদের চিন্তাধারার সাথে নিজেদের মেলাতে পারেনি। ফলাফল এমন বিশাল লুজারের সংখ্যাবৃদ্ধি।

এবার আসি বড় বড় ব্যাবসায়ীদের সাথে আমাদের মত ট্রেডারদের স্ট্র্যাটেজিক্যাল পার্থক্যের বিষয়েঃ

আপনি সাড়ে পাঁচ’ফুট বা ছ’ফুট উচ্চতার মানুষ। আপনি হাটার সময় এক ধাপেই প্রায় দুই ফুট পার হয়ে যেতে পারেন। এই দু ফুট রাস্তায় হালকা কাদা পানি, খানা খন্দ যাই থাকুক না কেন। আপনার কিন্ত সেসব না দেখলেও চলে। কিন্ত এই পথ যদি একটা পিপড়া অতিক্রম করতে চায়? তাহলে কি হবে?

তাকে প্রতি ইঞ্চি ইঞ্চি হিসেব করে এগতে হবে, নয়তো কাদায় আটকে যেতে পারে, খানাখন্দের ভিতর পানি থাকলে সেখানেও প্রান সংশয় দেখা যেতে পারে। তাই তাকে হিসেব করে করে এগোতে হয়। চারদিকে দেখেশুনে নিয়ে এগোতে হয়। ঠিকঠাক ভাবে এগোতে পারলে সেই পথ পারি দিয়ে পারে। অথবা কোন ভুল করলে প্রানটাও হারাতে পারে।
এই উদাহরনের সাথে ফরেক্স এর কি সম্পর্ক??
জ্বি, সম্পর্ক আছে। এটাই আসল সম্পর্ক। যারা যারা রাঘব বোয়াল, তারা মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের ব্যালান্স নিয়ে একবারে মাসের পর মাস ট্রেড ওপেন করে বসে থাকে, টাইমফ্রেমের দিক দিয়ে তারা এক লাফে দুই-আড়াই ফুট যাবার মত এগিয়ে থাকে, এই সময়ের মাঝে আমাদের মত ছোট ছোট ট্রেডারদের কেউ এক মিনিট, কেউ ৫ মিনিট, কেউ ৩০ মিনিট, কেউ ১ ঘন্টা, কেউ ৪ ঘন্টা আবার কেউ এক দিনের টাইমফ্রেম নিয়ে সেই পিপড়ার মত হিসেব করে করে সামনে এগোতে চায়। ফলাফল আমাদের মত ট্রেডারদের রিস্ক কয়েক হাজার গুন বৃদ্ধি পায়।

এই ঝুঁকিপুর্ণ পথ পার হতে হতেই বেশিরভাগ ট্রেডার ঝড়ে পড়ে অনায়াসে। কারন তারা হয় ঝুঁকি সম্পর্কে তেমন সচেতন থাকেন না। নয়তো তারা ঝুঁকিটাকে ঠিকমত ম্যানেজ করতে শেখেন না। ফলাফল একের পর এক একাউন্ট ডাম্প হয়ে যাওয়া।আর লুজারদের পার্সেন্টেজ বাড়তে থাকা।

এতোক্ষন তো আলোচনা করা হল কেন এতো লুজার হয়। এবার আসেন আমরা একটু জেনে নেই কিভাবে এই ঝুকিপুর্ন পথ নিরাপদে পর হতে পারবেন।

আমি পয়েন্ট আকারে বিষয়গুলো ব্যাখ্যা করি। তাতে হয়তো বুঝতে সুবিধা হবে।
১) সেহেতু ফরেক্স এর পথ সমতল নয়, উঁচুনিচু আর খানা-খন্দে ভরা, সেহেতু আপনাকে সর্বপ্রথম এই পথ পাড়ি দেবার মত একটা স্ট্র্যাটেজী ঠিক করতে হবে।

২) স্ট্র্যাটেজীটা যেমনই হোক না কেন, আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে নুন্যতম প্রফিট রেশিও যেন রিস্ক রেশিওর থেকে তিনগুন হয়। অর্থ্যাত আপনার স্টপ লস ১০ পিপ্স হলে যেন টেক প্রফিট ৩০ পিপ্স হয় কমপক্ষে।

৩) এমন স্ট্র্যাটেজীর সুফল আপনি এভাবে পাবেন যে, আপনার একটা ট্রেড প্রফিটে গেলে সেই প্রফিট আপনার পরবর্তী তিনটা ট্রেড লসে গেলেও আপনার মুল ব্যালান্স অক্ষুন্ন থাকবে।

৪) যে স্ট্র্যাটেজীই ব্যবহার করেন না কেন, সবসময় ট্রেন্ডের পক্ষে ট্রেড নেবেন। সাগরে ঢেউ বেশি হলে মাঝি নৌকার পাল কিন্ত যেদিকে বাতাস বইতে থাকে ঠিক সেদিকে তুলে ধরে, কারন বাতাসের উল্টোদিকে যেতে চাইলে প্রানটা হারাতে হতে পারে।

ফরেক্স মার্কেটে ট্রেন্ডটাও ঠিক তেমনি। আপনি ট্রেন্ডের পক্ষে থাকলে নিজেকে বেশ নিরাপদে রাখতে পারবেন। কিন্ত ট্রিলিয়ন ডলারের সমুদ্রে নিজের কয়েকশত বা কয়েকহাজার ডলারের মুলধন নিয়ে ট্রেন্ডের বিপক্ষে যাবার সাহস করলে ফলাফল কি হতে পারে তা নিশ্চয় আপনি নিজেই আঁচ করতে পারছেন।

৫) কখনোই বিশ্বাস করবেন না যদি কেউ বলে যে, সে এই মার্কেটে কেউ ৮০% বা ৯০% টানা প্রফিট করে চলছে। তার মানে আপনিও তেমনটি করতে পারবেন। সুতরাং আপনি তার কথা শুনেই ছুটে চললেন তার কাছে, তার তালীম নেবার আশায়, কিন্ত ফলাফল দেখলেন নেগেটিভ। অর্থ্যাত আপনি আবারও লস করেছেন।

বিখ্যাত এক ট্রেডারের এক বানী জেনে রাখুনঃ

“In this business if you’re good, you’re right six times out of ten. You’re never going to be right nine times out of ten.” -Peter Lynch

৬) মনে রাখবেন ১০ টা ট্রেডের ৮-৯ টা ট্রেডে আপনি ১০ পিপ্স করে প্রফিট নিলেন এভারেজে, কিন্ত বাকি ১-২ টা ট্রেডেই আপনি লস করেছেন ৫০-১০০ পিপ্স করে টোটাল ১০০-২০০ পিপ্স। এখানে আপনার ট্রেডগুলোর প্রফিট রেশিও ৮০%-৯০% হলেও আল্টিমেটলি কিন্ত আপনি বেশ ভালোই লসের স্বীকার হয়ে চলেছেন। এখন কি বুঝতে পারছেন সমস্যাটা কোথায় ??

৭) আমি ১:৩ রেশিওতে ট্রেড করতে বলেছি, তার কারন আপনি যদি ৫০% উইনও করেন , তবুও আপনি ভাল রকমের প্রফিটে থাকবেন।

১০টা ট্রেডের ৫টা ১০ পিপ্স করে লস করলেন, তার মানে ৫০ পিপ্স লস হলো, আর বাকি ৫টা তিনগুন করে প্রফিট করলেন।তার মানে ১৫০ পিপ্স প্রফিট হলো। লাভ লস মিলে কিন্ত আরও ১০০ পিপ্স প্রফিট করলেন আপনি। এখানেই প্রকৃতপক্ষে লাভ লসের হিসেব লুকিয়ে থাকে।

৮) নিজের ব্যালান্স নিয়ে সবসময় যত্নবান হবেন। কখনোও নেগেটিভ হলে হাল ছেড়ে দেবেন না। ঠান্ডা মাথায় ভেবে এর কারন বের করুন। ইমোশনালি কোন ট্রেড চালু করবেন না। ফরেক্স মার্কেট কারও ইমোশনকে পাত্তা দেয় না।

জেনে রাখুন এই সফল ট্রেডার কি বলেছেনঃ
 “Don’t focus on making money; focus on protecting what you have.” – Paul Tudor Jones

৯) এরপর কারেন্সী পেয়ার বাছাই করতে সচেতন হোন। মনে রাখবেন আলাদা দেশ, আলাদা কারেন্সি মুভমেন্ট। সুতরাং একই ব্যবসা পদ্ধতি দিয়ে আলাদা দেশের কারেন্সি মুভমেন্টকে নিজের কন্ট্রোলে নিয়ে আসা অনেক কষ্টের। কারন মাছের ব্যবসা পদ্ধতি দিয়ে আপনি আলুর ব্যবসা করতে গেলে লস খাবেনই। সুতরাং পারতপক্ষে একটি কারেন্সী পেয়ার বাছাই করুন যা আপনার স্ট্র্যাটেজীর সাথে মানানসই হয়।

নয়তো কোন একটা কারেন্সী বাছাই করুন, এরপর সেই কারেন্সীর যতগুলো পেয়ার আছে, সেগুলোতে ট্রেড করুন।

১০) যতগুলো পেয়ারই বাছাই করেন না কেন। এখানে মানি ম্যানেজমেন্ট আপনাকে ফলো করতেই হবে। এই বিষয়টা অনেকেই জানে না। আজ পরিস্কার হয়ে জেনে নিন।
মানি ম্যানেজমেন্ট হচ্ছে, আপনার মুলধনকে নিরাপদ রাখা।
ধরুন আপনার ব্যালান্স ১০০ ডলার। আপনি ৫% রিস্ক নিবেন। তাহলে কি করবেন?
এখানে, আপনি যতগুলো ট্রেডই নেন না কেন, আপনার সকল স্টপ লসের হিসেব মিলিয়ে যেন ৫ ডলারের বেশি না লস হয়। কারন একবার সবগুলো লস হয়ে গেলেও আপনি আরও ১৯ বার একই ভাবে ট্রেড করার সুযোগ পাবেন। আগের লস রিকভারি করে আবারও প্রফিটে নিয়ে আসার সুযোগ পাবেন।

এ বিষয়ে আরেকজন সফল ট্রেডারের বানী শুনুনঃ

“Frankly, I don’t see markets; I see risks, rewards, and money.” – Larry Hite

১১) বাংলা একটা প্রবাদ আছে, “ভাবিয়া করিও কাজ, করিয়া ভাবিও না”

এটা এখানে প্রযোজ্য হবে। সুতরাং ট্রেড ওপেন করার আগে ট্রেন্ড, আপনার স্ট্র্যাটেজী, সব দিক বিবেচনা করে পারফেক্ত হলে তবেই ট্রেড ওপেন করুন। টেক প্রফিট লেভেল, স্টপ লস লেভেল সেট করুন। এরপর বার বার চার্ট দেখতে যাবেন না। তাতে অস্থিরতা বাড়ে শুধু। আর অস্থির মনই আপনাকে ভুল ডিরেকশান দিয়ে ভুল কিছু সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করে।

সুতরাং ট্রেড ওপেন করুন এবং তার কথা ভুলে যান। পরের এন্ট্রি খোঁজ করুন।

সমসময় মনে রাখবেন এই সফল ট্রেডারের কথাঃ

The goal of a successful trader is to make the best trades. Money is secondary.” – Alexander Elder

সবশেষে বলতে পারি যে, ট্রেড বাই ট্রেড হিসেব না করে মাসে কয়টা ট্রেড নিলেন, তার টোটাল হিসেব করুন। কত পিপ্স প্রফিট পেলেন, কত পিপ্স লস করলেন তার হিসেব বের করুন।
একই ভাবে ব্যাকটেস্ট করুন। মাসে কেমন প্রফিট এর সুযোগ ছিল সেসব মাসে তা বের করুন। একটা পরিস্কার ধারনা পাবেন। এভাবে টানা ২-৩ মাস করে যান, এতে অভ্যস্ত হয়ে যাবেন একসময়। আর একবার অভ্যস্ত হয়ে গেলে আপনি নিজেকে সেই ৫% প্রফিটেবল ট্রেডারদের মাঝে দেখতে পাবেন আমি নিশ্চিত।

পরিশেষে, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা আমাকে সুস্থ রাখেন। আর ফরেক্স মার্কেটের কল্যানে আরও বেশি বেশি মানুষের মেহনত করতে পারি।

অনেকেই ভালভাবে ফরেক্স জানতে ও শিখতে আগ্রহ দেখিয়েছেন, অনেকে আবার ট্রেডিং সিগনাল ফলো করার আগ্রহের কথাও জানিয়েছেন, তারা আমাকে মেসেজ দিতে পারেন অথবা আমার ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে ইনবক্সে একটা মেসেজ দিয়ে রাখবেন। আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেবার চেষ্ঠা করা হবে ইনশাল্লাহ। অত্যন্ত স্বল্প ফী’র মাধ্যমে যে কেউ এখানে সিগনাল পেতে পারেন নিজেদের ফরেক্স শেখার পাশাপাশি বাড়তি কিছু প্রফিট পাবার আশায়।

আমার ফেসবুক পেইজ লিংকঃ https://www.facebook.com/bmfxanalystbd/

আমার স্কাইপ আইডীঃ live:bmfxanalyst

পরিশেষেঃ ব্যবসা নিজে ভালভাবে শিখে নিয়ে নিজের বুদ্ধি ব্যবহার করে করাই সবচেয়ে ভাল। এতে ব্যবসায় আন্তরিকতা বজায় থাকে। আর আন্তরিকতার উপর নির্ভর করে সৃষ্টিকর্তা ব্যবসায় বরকত দিয়ে থাকেন। কারন আল্লাহ তায়ালা ব্যবসাকে হালাল করেছেন। আর মহানবী (স) বলেছেন, “তোমরা ব্যবসা করো, ব্যবসায়ে ১০ ভাগের ৯ ভাগ রিজিকের ব্যবস্থা আছে।”

সৃষ্টিকর্তা আমাদের কবুল করুন। আমীন।

hqdefault.jpg

Share this post


Link to post
Share on other sites

ভাই আপনার পুরা আর্টিকেলটি পড়লাম অনেক ভালো লাগলো । আপনাকে 100/100% র্মাক দিতে পারতাম যদি না আপনি টেডিং সিগনাল দেয়ার বেপারে কথা না বলতেন । ভাই যে খানে কোনো দেশের ইকোনোমি, ব্যাংক, সুদের হার ও নানা কিছুর উপর ভিত্তি করে মার্কেট মুভ করে সেক্ষেত্রে আপনি কিভাবে সিগনাল দিবেন ??? প্রথমে আপনি কারো সিগনাল না মানার কথা বললেন, পরে আপনি সিগনাল দেওয়ার কথা বললেন ব্যাপরটা আনেকটা ইন্টারেস্টিং মনে হলো আমার কাছে ।

  • Thanks 2

Share this post


Link to post
Share on other sites
25 minutes ago, JOTON1456 said:

ভাই আপনার পুরা আর্টিকেলটি পড়লাম অনেক ভালো লাগলো । আপনাকে 100/100% র্মাক দিতে পারতাম যদি না আপনি টেডিং সিগনাল দেয়ার বেপারে কথা না বলতেন । ভাই যে খানে কোনো দেশের ইকোনোমি, ব্যাংক, সুদের হার ও নানা কিছুর উপর ভিত্তি করে মার্কেট মুভ করে সেক্ষেত্রে আপনি কিভাবে সিগনাল দিবেন ??? প্রথমে আপনি কারো সিগনাল না মানার কথা বললেন, পরে আপনি সিগনাল দেওয়ার কথা বললেন ব্যাপরটা আনেকটা ইন্টারেস্টিং মনে হলো আমার কাছে ।

 

পুরো আর্টিকেল পড়ার জন্য ধন্যবাদ। রিস্কি মার্কেটে কিভাবে উত্তরন করবেন তারও যথাযথ রাস্তা বলে দেওয়া হয়েছে আর্টিকেলে। এইসব মেথড মাথায় রেখে কেউ ট্রেড করলে তবেই সে প্রফিট পেতে পারে অন এভারেজে।

আর আপনার ইন্টারেস্টিং এর ব্যাপারে বলি, খুব কম ট্রেডারই আছে এভাবে ট্রেড করে। আর যারা করে তারাই প্রফিটেবল ট্রেডার।
লেখাটা নিজের অভিজ্ঞতা থেকেই লেখা, আবার সঠিক ভাবে ট্রেড করার চেষ্ঠায় আজও থাকতে পারছি বলেই সার্ভিসটার কথা উল্লেখ করেছি। কেউ শিখতে চাইলে শেখার পাশাপাশি সার্ভিসটা নিতেই পারে। দোষনীয় কিছু হয়েছে কি? 
যদি হয়ে থাকে তবে ধরে নেবেন দোষে গুনেই মানুষ। অনেক অনেক ধন্যবাদ। :money::bijoy:

Share this post


Link to post
Share on other sites

অনেক সুন্দর আর্টিকেল, কিন্তু আমি আপনার সিগনাল নিয়ে ট্রেডিং এর সাথে একমত হতে পারলাম না। ফরেক্স এ প্রফিট করার জন্য ভালো ট্রেডিং বোঝার পাশাপাশি একটা ভালো ব্রোকার চুজ করতে হবে। আমি ForexChief এ ট্রেডিং করি তাদের সার্ভিস আমার ভালো লাগে। 

Share this post


Link to post
Share on other sites

আপনার টপিক থেকে অনেক কিছু শিখলাম। আপনাকে ধন্যবাদ।তবে সিগনাল বিক্রয়  বিষয়টা অনেকেই ভালো চোখে দেখেনা।ভালোটুকু অবশ্যই গ্রহনযোগ্য।আপনার কাছ থেকে আরো ভালো টপিকের প্রত্যাশায় রইলাম।

Share this post


Link to post
Share on other sites
Guest
You are commenting as a guest. If you have an account, please sign in.
Reply to this topic...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoticons maximum are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...

  • Similar Content

    • By Mohaimenul

       
      If you want to trade a currency you don’t already have, there are many ways to do so. There are numerous different kinds of arrangements you can harness to invest in currencies you don’t own. For precedent, you could trade the euro without owning it by buying or selling options that involve the currency. Call and put options on EUR/USD would provide methods to trade the common currency’s exchange rate with the U.S. dollar.
       
      Future Contracts are standardized contracts to buy or sell an instrument at a future date and at a specified price. Being traded on the stock exchange, future contracts follow a daily settlement procedure. The buyer and seller basically enter into an agreement with the exchange and not with each other.
      Purchasing future contracts seems to be an ideal way to take advantage of exchange rate inconstancies. The excellent part of it you don’t need to actively own the currency while entering into the contract. A currency future contract lets you hedge toward foreign exchange risk. You agree to exchange one currency for another at a future date but at a price fixed on the present date.
       
      Options give you the right but not the obligation to buy or sell the underlying assets. Options are primarily of two types:
      Call Option: This gives you the right to buy something at a later date at a given price.
      Put Option: This gives you the right to sell something at a later date at a given price.
      So, entering into options deal gives you a different good opportunity to earn from currency trading without holding actual currency.
       
      Price action guide is the Perfect solutions for any kind of forex traders. You can get the latest technical analysis and best trading signal.
       
      In addition, purchasing spot contracts or forward contracts involving your currency of choice would also provide exposure. The above currency derivative instruments can be easily bought and sold through the online trading platform. You just need to open a share trading account with a reliable stockbroker.
    • By xtreamforex26
      Technical Overview of GBP/USD, EUR/USD and USD/CAD Currency Pairs
      GBP USD
      The GBP traded higher against the USD and closed at 1.3068. Overnight, it was another loss for UK Prime Minister May which now means lawmakers are likely to push for a delay to the 29 March deadline. However, 149-vote loss sets the bar seriously high for Theresa May to turn the tables around. 
      Spring Forecast Statement is a statement made annually by HM Treasury to Parliament upon publication of economic forecasts.
      The statement features analysis of the economic situation in the UK and in the world, describes economic outlooks and provides previews of the government budget for the next year. The event has a short-term impact on financial markets depending on the HM Treasury rhetoric. Positive outlooks have a positive impact on the pound sterling.
      According to the Analysis, Four hour chart shows that the pair is expected to find support at 1.29535, and a fall through could take it to the next support level of 1.28386. The pair is expected to find its first resistance at 1.32341, and a rise through could take it to the next resistance level of 1.33998.
      Previous Day range was 280.6 and Current Day Range is 30.6.
      EUR USD
      The EUR traded lower against the USD and closed at 1.1287.
      The Nondefense Capital Goods Orders Excluding Aircraft, released by the US Census Bureau, measures the cost of orders received by manufacturers for capital goods (capital goods are durable goods used in the production of goods or services), which means goods planned to last for three years or more, excluding the defense and aircraft sectors. As those durable products often involve large investments they are sensitive to the US economic situation. Generally speaking, a high reading is bullish for the USD, while a low reading is seen as Bearish.
      The pair is expected to find support at 1.12530, and a fall through could take it to the next support level of 1.12185. The pair is expected to find its first resistance at 1.13133, and a rise through could take it to the next resistance level of 1.13391.
      EUR USD previous Day range was 60.3 and Current Day Range is 6.8.
      USD CAD
      The USD traded little higher against CAD and closed at 1.3353.
      Core Durable Goods Orders m/m reflect the value of orders received by manufacturers of durable goods in the given month compared to the previous one. The production of transport industry is excluded from the calculation.
      The index allows forecasting future production volumes in the short term. The value growth can have a positive effect on dollar quotes.
      According to the analysis, pair is expected to find support at 1.33307, and a fall through could take it to the next support level of 1.33089. The pair is expected to find its first resistance at 1.33957, and a rise through could take it to the next resistance level of 1.34389.
       USD CAD previous day range was 65 and current day range is 21.1.
    • By xtreamforex26
      Hi,
      My name is Anu 
      I am officially representative of Xtreamforex
      XtreamForex is a forex broker, Member of Grandinvesting Group
      Incorporated in MIS
      Registration number 84516 IBC 2016
      Company number: 84516
      If you have any question regarding this broker about the services and promotion feel free to ask me here. i will be happy to assist you.
      Regards
      Anu
       

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×