Jump to content
Sign in to follow this  
shopnil

তেল (Oil) - কোন দেশের উত্পাদন খরচ কত?

Recommended Posts

আমরা সবাই জানি যে, তেলের মূল্য বর্তমানে ব্যারেলপ্রতি ৩০ ডলারেরও নীচে নেমে এসেছে। তেলের মূল্য গত এক বছরে ৭০ শতাংশেরও বেশি কমে যাওয়ায় প্রশ্ন উঠেছে, এই পতনের শেষ কোথায়? ১ ব্যারেল তেল বলতে প্রায় ১৫৯ লিটার তেলকে বুঝায়। সে হিসেবে ব্যারেলপ্রতি মূল্য ৩০ ডলার ধরলেও, প্রতি লিটার তেলের মূল্য দাড়ায় বর্তমানে মাত্র  ১৯ মার্কিন সেন্ট বা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ১৬ টাকা। অর্থাৎ, ১ লিটার বোতলজাত পানি থেকে বর্তমানে ১ লিটার তেলের মূল্য কম।

 

 

CnCSnHl.png

 

 
আর এটাই ভুরু কুচকে দিচ্ছে অনেকের। এত সস্তায় তেল বিক্রি হলে উত্পাদনকারী দেশগুলো লাভ করছে কিভাবে? আর তেল উত্পাদনেরও তো খরচ আছে। তেলের বর্তমান মূল্যে উত্পাদন খরচ মেটানো আদৌ কি সম্ভব? 
 
অয়েল ট্রেডারদের এমনটা জানার আগ্রহের পেছনে মূল কারনটি হচ্ছে, তেলের মূল্য কোথায় গিয়ে ঠেকতে পারে, তা অনুমান করা। তবে, বিশ্বের সবদেশের তেল উত্পাদন খরচ কিন্তু সমান নয়। সবচেয়ে সস্তায় তেল উত্পাদন করে কুয়েত, ব্যারেলপ্রতি মাত্র ৮.৫০ ডলারে। অপরদিকে, যুক্তরাজ্যের ক্ষেত্রে এই খরচটা প্রায় ৬ গুন বেশি। প্রতি ব্যারেল তেল উত্পাদন করতে যুক্তরাজ্যের খরচ হয় গড়ে ৫২.৫০ ডলার। তার মানে, তেলের মূল্য ব্যারেলপ্রতি ৩০ ডলার থাকলেও তা রপ্তানি করে কুয়েত প্রতি ব্যারেল থেকে প্রায় ২১.৫ ডলার লাভ করতে পারবে, অপরদিকে যুক্তরাজ্য লাভের বদলে উল্টো লোকসান দিবে প্রতি ব্যারেলে ২২.৫০ ডলার। তেলের মূল্য দীর্ঘদিন ব্যারেলপ্রতি ৩০ ডলারে আটকে থাকলে যে একসময় যুক্তরাজ্যকে তেল উত্পাদন বন্ধ করে দিতে হবে, তা বলাই বাহুল্য (কোন ধরনের সরকারী সহযোগিতা না পেলে)।
 
তো চলুন, সিএনএন এর সৌজন্যে এক নজরে দেখে নেই, দেশভেদে প্রতি ব্যারেল তেল উত্পাদনের খরচঃ
 


bdpips_1453137040__oil-production-cost-f

 
উপরের চিত্র থেকে দেখা যাচ্ছে যে, ওপেকভুক্ত বা মধ্যপ্রাচ্যের প্রায় সবগুলো দেশেরই উত্পাদন খরচ উন্নত বিশ্বের দেশগুলোর তুলনায় অনেক কম। এর একটি প্রধান কারণ হচ্ছে উন্নত দেশগুলোতে কর্মচারীদের বেতনসহ উত্পাদন সংশ্লিস্ট অন্যান্য খরচ অনেক বেশি। তাছাড়া ওপেকভুক্ত দেশগুলোর অধিকাংশেরই তেলের মজুদ ভূপৃষ্ঠের একেবারে কাছাকাছি। তাই, সহজেই এই তেল উত্তোলন করা যায় এবং এই তেলের গুণগতমানও অনেক ভালো।
 
পরবর্তী লেখায় আলোচনা করা হবে - ওপেক কি? ওপেকের কাজ কি? এবং ওপেকভুক্ত দেশ কোনগুলো?

  • Love 3

Share this post


Link to post
Share on other sites


Join the conversation

You can post now and register later. If you have an account, sign in now to post with your account.

Guest
Reply to this topic...

×   Pasted as rich text.   Paste as plain text instead

  Only 75 emoji are allowed.

×   Your link has been automatically embedded.   Display as a link instead

×   Your previous content has been restored.   Clear editor

×   You cannot paste images directly. Upload or insert images from URL.

Loading...
Sign in to follow this  

  • Similar Content

    • By shopnil
      Crude Oil বা ক্রুড তেল বলতে যে অপরিশোধিত তেলকে বোঝায়, তা আমরা জানি। “তেল নিয়ে তেলসামাতি” পড়ে থাকলে আপনি এটাও জানেন যে বিশ্বে বিভিন্ন ধরনের অপরিশোধিত তেল রয়েছে এবং এগুলোর মধ্যে Brent Crude, WTI Crude এবং Opec Basket Crude সবচেয়ে বেশী জনপ্রিয়।
      এখন আপনি প্রশ্ন করতে পারেন যে, এই তেলগুলো কি জিনিস সেটা জেনে আমার কি লাভ? সত্যি বলতে তেমন কোন লাভ নেই, তাই এ নিয়ে বিস্তারিত কোন আলোচনায় যাবো না। কিন্তু, তেলের যে বিভিন্ন ধরন আছে, আর কোনটা কি, তা জানার দরকার আছে। না জানলে কি ঝামেলায় পড়বেন, তা নিচের উদাহরন দেখলেই বুঝতে পারবেনঃ
      বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় অপরিশোধিত তেল হচ্ছে Brent Crude (মোট ব্যবহৃত অপরিশোধিত তেলের দুই তৃতীয়াংশই হচ্ছে Brent Crude বা ব্রেন্ট ক্রূড)। আর XM এ Brent Crude Oil এর নাম হচ্ছে Brent, মানে mt4/mt5 এ Brent খুজে বের করলেই হবে। কিন্তু, আপনি যদি না জানেন যে Brent বলতে আসলে এক ধরনের অপরিশোধিত জ্বালানি তেলকে বোঝায়, তাহলে আপনি যেটা খুজে পাবেন, সেটা হচ্ছে Oil. XM এ শুধু OIL ট্রেডিং কোডটি দিয়ে West Texas Intermediate বা WTI ক্রুড তেলকে বোঝায়। OILMn নামে আরেকটি ট্রেডিং কোড আছে যেটি WTI ক্রুড এরই মিনি লটকে নির্দেশ করে, যেটিতে প্রতি পিপসের ভ্যালু মাত্র ১০ সেন্ট। তারমানে, Brent কি তা না জানলে আপনি সবচেয়ে জনপ্রিয় তেলটি ট্রেডের সুযোগ থেকেই বঞ্চিত হবেন। মোটামুটি সব ব্রোকারেই Brent Crude তেল শুধু Brent নামেই পরিচিত। তাই, নাম না জানলে বিপদ। আবার, Brent, OIL এবং OILMn, এই তিনটি দিয়ে যে যথাক্রমে Brent Crude, WTI Crude এবং WTI Crude এর মিনি লটকে বোঝাচ্ছে, সেটাও বুঝতে পারবেন না। আমি নতুনদের সবসময় পরামর্শ দিব OILMn ট্রেড করতে, কেননা এটাতে প্রতি পিপসের ভ্যালু সর্বনিম্ন ১০ সেন্ট, অন্যগুলোতে ১ ডলার করে। তেলের ক্ষেত্রে XM এ ১ লট বলতে ১০০ ব্যারেল তেল বোঝায় (১ ব্যারেল মানে ১৫০ লিটার)।

      আগেই বলেছি যে কোন তেল কি, সেটা জেনে আপনার তেমন কোন লাভ নেই, আপনার শুধু জানা দরকার কোন তেলগুলো বিশ্ববাজারে সবচেয়ে বেশী ট্রেড করা হয় এবং ব্রোকারগুলোতে সেগুলোর নাম কি। সেটা আপনি ইতিমধ্যেই জেনে আছেন। তারপরেও প্রধান তেলগুলো সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করছিঃ
      প্রধান অপরিশোধিত তেলগুলো
      আমার সবার প্রথমে মাথায় এটা প্রশ্ন জেগেছিল যে, অপরিশোধিত তেলের আবার আলাদা আলাদা ধরন কেন? নারিকেল তেল, সয়াবিন তেলের মতই কি এগুলো আলাদা আলাদা ধরনের জ্বালানী তেল নির্দেশ করে? এগুলো সবগুলোই কি একই কাজে ব্যবহৃত হয়, নাকি নারিকেল তেল, সয়াবিন তেলের মত আলাদা আলাদাভাবে ব্যবহৃত হয়?
      বিশ্বে ১৬০ ধরনের তেল ট্রেড করা হয়, আমরা এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশী যে তেলগুলো ট্রেড করা হয়, মানে Brent, WTI এবং Opec Basket, সেগুলোর মধ্যে তুলনা করব।
      জ্বালানী তেলের গুনগতমান কিভাবে নির্ধারন করা হয়? 
      জালানী তেলের ক্ষেত্রে গুনগতমান নির্ধারন করা হয়, এতে কতটুকু সালফার আছে এবং এটি কতটুকু ভারি তা দিয়ে। কোন তেলে সালফারের পরিমান শতকরা যত কম থাকবে, সেটিকে তত বেশী sweet বলা হবে। এখানে, sweet দিয়ে শুধুমাত্র সালফারের পরিমান কত কম, সেটাই নির্দেশ করছে, মিষ্টিজাতীয় কিছু না। আরেকটি বিবেচ্য বিষয় হচ্ছে API Gravity, যেটা ওজন নির্দেশ করে। কোন তেলের API Gravity যত বেশী, সেটা ওজনে তত হালকা, একইভাবে API Gravity যত কম, ওজনে তত ভারী। যদি কোন তেলের API Gravity ১০ এর বেশী হয়, তাহলে সেটা পানিতে ডুবে যাবে, নাহলে পানির উপর ভেসে থাকবে। যেই তেলের API Gravity যত বেশী হবে, মানে যত হালকা হবে আর সালফারের শতকরা পরিমান যত কম হবে, মানে তেলটি যত sweet হবে, তার গুনগতমান তত বেশী হবে, বেশী পরিমানে উন্নতমানের গ্যাসোলিন উৎপন্ন করা যাবে।
      তাহলে, এবার দেখা যাক, ব্রেন্ট, WTI আর ওপেক  বাস্কেট, কোনটার গুনগত মান সবচেয়ে ভালো।
      WTI বা West Texas Intermediate
      তিন ধরনের তেলের মধ্যে সবচেয়ে ভালো তেল হচ্ছে এবং খুবই উন্নতমানের তেল হচ্ছে WTI বা West Texas Intermediate. এতে সালফার আছে শতকরা মাত্র ০.২৪ ভাগ আর API Gravity হচ্ছে ৩৯.৬ ডিগ্রি। নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে যে, এটি যুক্তরাষ্ট্রে উৎপাদিত হয়। খুবই হালকা এবং সালফারের পরিমান খুব কম বলে, এটি গ্যাসোলিন উৎপাদনের জন্য সর্বোত্তম। WTI তেলের ব্যবহার সবচেয়ে বেশী হয় আমেরিকা বা যুক্তরাষ্ট্রে।
      Brent Crude Oil
      এর পরেই আসবে Brent Crude Oil. এতে সালফারের পরিমান শতকরা ০.৩৭ ভাগ আর API Gravity হচ্ছে ৩৮.৩ ডিগ্রি। WTI এর মত এত ভালো না হলেও, এই তেলও হালকা এবং এতে সালফারের পরিমান খুব বেশী না। মূলত ডিজেল, গ্যাসোলিন পরিশোধনের জন্যেই Brent Crude Oil বেশী ব্যবহৃত হয়। মূলত উত্তর সাগরের চারটি ভিন্ন ভিন্ন জায়গা থেকে এই তেল আহরন করা হয়। Brent তেলের ব্যবহার সবচেয়ে বেশী হয় ইউরোপে এবং আফ্রিকাতে।
      Opec Basket
      সবশেষে আসবে ওপেক বাস্কেট। ওপেক নাম শুনেই বুঝতে পারছেন যে এই তেল কোথা থেকে আহরন করা হয়। ঠিক, মূলত ওপেকভুক্ত দেশগুলো থেকে, যেমনঃ সৌদি আরব, আলজেরিয়া, ভেনিজুয়েলা ইত্যাদি। এগুলোতে সালফারের পরিমান খুবই বেশী, আবার তুলনামুলকভাবে ভারী। তাই, WTI বা ব্রেন্টের সাথে তুলনা করলে ওপেক বাস্কেট তেল বেশ নিম্নমানের। কিন্তু, সুবিধা হল ওপেক দেশগুলোতে প্রচুর তেল মজুদ আছে এবং তারা চাইলেই যেভাবে উৎপাদন বাড়াতে পারে, সেইভাবে অন্য তেলগুলোর উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব না। তাই, বিশ্ববাজারে ওপেক বাস্কেট এর গুরুতবপূর্ন ভুমিকা আছে।
      কোন তেলের দাম সবচেয়ে বেশী?
      আরেকটা ব্যাপার হচ্ছে দাম। ওপেক বাস্কেট তেলের দাম প্রধান তেলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সস্তা। Brent তেলের দাম সাধারনত ওপেক বাস্কেট থেকে ব্যারেলপ্রতি ৪ ডলার বেশী হয়। WTI এর দাম তো আরও বেশী। ওপেক বাস্কেট থেকে WTI ব্যারেলপ্রতি ৫-৭ ডলার বেশী দামে বিক্রি হয়, মানে Brent তেল থেকে WTI তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ১-৩ ডলার বেশী।
    • By forexshishir0000
      this is by no means signal providing . i am justing writing my own mind. no need to follow it but i will answer related question.
       
       
      Oil is one of the most trending pair i have seen so it's a good choice for trending and daily trend base scalp. i will keep here my daily overview on oil and market prediction
    • By shopnil
      অয়েল ট্রেড করতে গেলে এবং এ সংক্রান্ত মার্কেট আপডেট পেতে গেলে আপনি প্রায়ই ওপেক বা ওপেকভুক্ত দেশগুলো সম্পর্কে নিউজ পাবেন।
       
      ওপেক হচ্ছে তেল রপ্তানীকারক দেশগুলোর সংগঠন, The Organization of the Petroleum Exporting Countries এর সংক্ষিপ্ত রূপ। বলা হয়ে থাকে যে, তেল রপ্তানীকারক দেশগুলোর সবচেয়ে শক্তিশালী সংগঠন হচ্ছে ওপেক।
       
       

       
      শীর্ষ তেল উত্পাদনকারী ৫ টি দেশ, সৌদি আরব, ইরান, ইরাক, কুয়েত ও ভেনিজুয়েলার উদ্যোগে ১৯৬০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাগদাদ কনফারেন্সে ওপেক প্রতিষ্ঠিত হয়. পরে এতে আরো যোগ দেয়, কাতার, ইন্দোনেশিয়া, লিবিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, আলজেরিয়া, নাইজেরিয়া, ইকুয়েডর, আঙ্গোলা এবং গেবন। তবে, ইন্দোনেশিয়া ২০০৯ সালের জানুরারী মাসে ওপেক থেকে তার সদস্যপদ প্রত্যাহার করে নেয়.
       
      ওপেক প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যঃ
      ওপেকের উদ্দেশ্য হচ্ছে সদস্য দেশগুলোর জ্বালানী তেল রপ্তানীকরণ পলিসিতে সমন্নয় ও মতৈক্য সাধন করে তেলের সঠিক মূল্য নিশ্চিত করা। অতীতে, যখনই বিশ্ববাজারে তেলের মূল্য পড়ে গিয়েছে, ওপেকভুক্ত দেশগুলো তেলের উত্পাদন কমিয়ে এনে তেলের মূল্যবৃদ্ধিতে ভুমিকা রেখেছে।
       
      এক নজরে ওপেকঃ
       
      প্রতিষ্ঠাঃ ১৯৬০ সালের ১০-১৪ সেপ্টেম্বর, বাগদাদ কনফারেন্সে।
      বর্তমান সদর দপ্তরঃ ভিয়েনা, অস্ট্রিয়া (১ সেপ্টেম্বর ১৯৬৫ থেকে)
      প্রতিষ্ঠাকালীন ৫ টি দেশঃ সৌদি আরব, ইরান, ইরাক, কুয়েত ও ভেনিজুয়েলা
      ওপেকভুক্ত অন্যান্য দেশঃ কাতার, , লিবিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত, আলজেরিয়া, নাইজেরিয়া, ইকুয়েডর, আঙ্গোলা, গেবন এবং ইন্দোনেশিয়া (বর্তমানে সদস্যপদ প্রত্যাহার করে নিয়েছে)
      বৃহৎ তেল উত্পাদক কিন্তু ওপেকের সদস্য নয়ঃ রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, চীন, মেক্সিকো
    • By forexnews
      সৌদিদের দম্ভ চূর্ণের পথে। একতরফা তেলের উত্পাদন বাড়িয়ে যাওয়ার কারণে, সরবরাহ বৃদ্ধির প্রভাবে বিশ্বজুড়ে তেলের মূল্যের যে ব্যাপক দরপতন ঘটেছে বিগত মাসগুলোতে, তার পেছনে তেল উত্পাদনকারীদের সংগঠন ওপেকের সদস্য দেশগুলো দায়ী করছে সৌদি আরবকেই। 
       
      ঘটনা শুরু যুক্তরাষ্ট্রকে ঘিরে। নতুন প্রযুক্তিতে শেল ভেঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব তেল উত্পাদন/উত্তোলন বাড়ছে। ফলে আন্তর্জাতিক বিশ্বে দাম কমছিল জ্বালানী তেলের। তাই ওপেক চাচ্ছিল তার সদস্য দেশগুলো উত্তোলন কমাক, যাতে সরবরাহ কমে যাওয়ায় বিশ্বজুড়ে পুনরায় তেলের দাম বৃদ্ধি পায়। অতীতেও তেলের দাম কমে গেলে এভাবে দাম বৃদ্ধি করত ওপেকভুক্ত দেশগুলো। তবে, প্রায় সবগুলো সদস্য দেশ একমত হলেও এবার বাদ সাধে সৌদি আরব। দেশটি ঘোষণা দেয় তেলের দাম যতই কমে যাক, এমনকি ব্যারেলপ্রতি ২০ ডলারে নেমে এলেও উত্পাদন কমাবে না দেশটি। উল্টো ব্যাপকভাবে আরো বেশি তেলের উত্তোলন শুরু করে দেশটি। ফলে আন্তর্জাতিকভাবে তেলের সরবরাহ আরো বেড়ে যায়। সাথে সন্ত্রাসী সংগঠন আইএস সিরিয়া ও ইরাকের খনিগুলো লুট করে বিপুল পরিমান তেল সস্তায় কালোবাজারে বিক্রি করে তেলের দামে আরো ধ্বস নামায়। লাফিয়ে লাফিয়ে পড়তে থাকে তেলের দাম। ব্যারেলপ্রতি তেলের দাম ১১৩ ডলার থেকে দ্রুত নেমে আসে সর্বশেষ ৪৪ ডলারে মাত্র। ফলে তেলের উপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল উত্তোলনকারী দেশগুলোর, তেল বিক্রি বাবদ আয় কমে যায় দুই তৃতীয়াংশেরও বেশি।
       
      তেল উত্পাদনকারী দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থায় ছিল সৌদি আরব। কারণ, দেশটির বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল। তাই, অন্যান্য দেশগুলো বড় ধরনের ধাক্কা খেলেও তার প্রাথমিক প্রভাব পড়েনি সৌদি আরবের উপর। কিন্তু, সৌদি আরবের অর্থনীতি ৮০ শতাংশেরও বেশি নির্ভরশীল তেলের উপর। তাই, ভঙ্গুর হয়ে এসেছে সৌদির অর্থনীতিও। অবশেষে তেলের মুল্য ৪৪ ডলারে নেমে আসায় টনক নড়েছে সৌদি আরবের। দেশটি গতকাল ঘোষণা করেছে, ওপেকভুক্ত দেশগুলোর সাথে সহযোগিতা করতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত সৌদি আরব. আর তা প্রকাশের পরপরই কয়েক ঘন্টার মধ্যে তেলের দাম বেড়েছিল ২ ডলার প্রতি ব্যারেল।
       
      এখানেই শেষ হলে ভালো হত। কিন্তু, সৌদি ও ওপেকভুক্ত দেশগুলোর জন্য অপেক্ষা করছে আরেকটি বড় দুঃসংবাদ। নতুন তেলের মজুদের সন্ধান পাওয়া গেছে এবং যুক্তরাষ্ট্রের তেলের মজুদ এখন বিগত ১৪ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ, আর প্রতি বছরই নতুন নতুন মজুদের সন্ধান পাওয়ায় বাড়ছে সর্বমোট মজুদ। এই সংবাদ প্রকাশের পর পরই আবার ব্যারেলপ্রতি ১ ডলার দাম কমে গেছে তেলের দাম। ফলে ভবিসসতে তেলের দাম বাড়বে নাকি আরও কমবে তা নিয়ে শঙ্কা আর কাটল না। 
       
      ফলে, তেল নিয়ে তেলসামাতি চলছেই। ভবিষ্যতই বলে দিবে তেলের দাম সামনে কোথায় যায়। এ জন্য আমাদের নির্ভর করতে হবে সামনের দিনগুলোর ঘটনাপ্রবাহের উপর।
       
      XM এ ওয়েল/তেল ট্রেড করতে গিয়ে অনেকে বিপাকে পড়ছেন। কেননা, XM এ ওয়েল ট্রেড করার জন্য দুটি symbol  রয়েছে, OIL এবং OILMn। দুটোই একই, পার্থক্য হচ্ছে OIL সিম্বল এ প্রতি লটের ভ্যালু ১০০ ব্যারেল আর OILMn বা (OIL Mini) তে প্রতি লটের ভ্যালু ১০ ব্যারেল। সহজ করে বললে, OIL সিম্বলে প্রতি পিপসের সর্বনিম্ন ভ্যালু হচ্ছে ১ ডলার (০.০১ লটে) আর OILMn সিম্বলে প্রতি পিপসের সর্বনিম্ন ভ্যালু হচ্ছে ১০ সেন্ট (০.০১ লটে)। তাই, OILMn সিম্বলে এ OIL ট্রেড করাই ভালো। 
       

বিডিপিপস চ্যাট রুম

বিডিপিপস চ্যাট রুম

    চ্যাট করতে লগিন বা রেজিস্ট্রেশন করুন।
    ×
    ×
    • Create New...