Jump to content

Recommended Posts

খুব সুন্দর হয়েছে। ধন্যবাদ। আর আপনার কনফারেন্স এ ও যোগ দিতে চাই।

  • Love 2

Share this post


Link to post
Share on other sites

খুব সুন্দর হয়েছে। ধন্যবাদ। আর আপনার কনফারেন্স এ ও যোগ দিতে চাই।

আপনাকেও অনেক অনেক  ধন্যবাদ।   অবশ্যই আপনি চাইলে জয়েন করতে পারবেন...

Share this post


Link to post
Share on other sites

It's really good. Thanks.

আপনাকেও অনেক অনেক  ধন্যবাদ।

Share this post


Link to post
Share on other sites

অাবীর ভাই,

অাশা করি অাল্লাহ্ অাপনাক ভাল রেখেছেন। 

পরসমাচার এই যে, এই মেথডটিকে অাপনি অাউট করে, টুইজার টপস এবং টুইজার বটমস ক্যান্ডেল প্যাটার্নস মেথডটিকে ইন করান। অামার ক্ষুদ্র জ্ঞানে মনে হয় যে, তাহলে নতুন / পুরাতন সবার জন্য খুবই ভাল হবে।

অাপনার লেখনি অাল্লাহর রহমতে ভাল। অাপনাকে অাল্লাহ্ অারো বেশি করে জ্ঞান দান করুন এবং মানুষদেরকে উপকার করার তোফিক বেশি বেশি দান করুন। বলা যায় যে, অামিও অাপনার লেখনির একজন ভক্ত। তাই অাপনাকে এই ভাবে বলা।

-ধন্যবাদ

Share this post


Link to post
Share on other sites

Create an account or sign in to comment

You need to be a member in order to leave a comment

Create an account

Sign up for a new account in our community. It's easy!

Register a new account

লগিন

Already have an account? Sign in here.

Sign In Now

  • Similar Content

    • By abir0162

       
       
      প্রবিত্র মাহে রামজানের শুভেচ্ছা জানাই সকলকে।
       
      আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন। ট্রেডিং ও নিশ্চয় ভালই চলতেছে।
      জানি প্রতিবারের ন্যায় আমার উপর আপনারা রাগে আছেন, আপনাদের কে এতো অপেক্ষায় রাখার জন্য।
      আসলে কয়েকদিন ধরে আমি একটু সিক ছিলাম, তাছাড়া নিজের ট্রাডিং স্টাডি এবং অনন্য ঝামেলার কারনে তেমন লেখা লেখি করতে পারিনি।
      যেহেতু  আগে থেকে স্ক্রিপ্ট তইরি করা থাকেনা তাই একটু টাইম লাগে এই আর কি।
       
       আমার উপর রেগে  গেলেন তো হেরে গেলেন।
                     
       
       
      যাইহোক চলে যাই আজকের টপিকে 
       
       
       

       
       
      ইনসাইড বার
        অনেক ট্রেডাররা ইনসাইড বারকে খুবই পছন্দ করে থাকে মার্কেটে এন্টার করার জন্য। এর প্রধান কারন তারা রেগুলার ভাবে যে কোন চার্ট বা টাইমফ্রেমে তা পেয়ে থাকে। ইনসাইড বার হচ্ছে একটি ইনডিসিশন বার, যেটি আমাদেরকে জানায় যে মার্কেটে বুলিশ আর বেয়ারিশ দুটোই কন্ট্রোল করছেন,তাই মার্কেট যে কোন দিকে যেতে পারে। ঠিক এই কারনে ইনসাইড বার ট্রেডারদের সঠিক সিগন্যাল দিতে পারেনা, ট্রেড করলে চান্স ৫০/৫০, এছাড়াও অনেক একাউন্টের অকাল মিত্যুর জন্য ইনসাইড বার দায়ী।    ইনসাইড বারে এন্ট্রি নেয়া খুবই চ্যালেঞ্জই হবে সাধারণ ট্রেডারদের জন্য,যদি না আপনি অভিজ্ঞতা অর্জন করেন এবং মার্কেট সম্বন্ধে আপনার ভালো ধারনা থেকে থাকে। ইনসাইড বার ছারা অনেক ক্যান্ডল প্যাটার্ন আছে যা আমাদের অনেক পরিস্কার সিগন্যাল দিতে পারে। ইনসাইড বার কিন্তু বেস্ট এন্ট্রি সিগন্যাল না, এর মানে এই নয় যে আমরা এর তথ্য গুলো ব্যাবহার করবোনা যা ইনসাইড বার আমাদের দিচ্ছে, আমরা তা অবশ্যই ব্যাবহার করবো। এটি আমদেরকে সাহায্য করবে আমাদের ট্রেডিং এ, এবং আরো অনেক ভাবে আমরা ইনসাইড বারের ব্যাবহার করতে পারি, ইনসাইড বার বর্তমান মার্কেটে কি বোঝাতে চাচ্ছে, বা ট্রেড মানেজ করার জন্য,স্টপ, এক্সিট ইত্যাদি।     ইনসাইড বার কি?   ইনসাইড বার এমন একটি প্যাটার্ন যা ২টি ক্যান্ডল নিয়ে গঠিত। প্রথম ক্যান্ডলটিকে মাদার ক্যান্ডল বলা হয় এবং পরেরটিকে ইনসাইড বার বলা হয়ে থাকে।গঠন অনুসারে মাদার ক্যান্ডলটি বড় হবে ইনসাইড বারের থেকে, ইনসাইড বার ক্যান্ডলটিকে সম্পূর্ণরুপে মাদার ক্যান্ডল ঢেকে রাখবে। যদি প্রাইস ইনসাইড বারের পরের ক্যান্ডলটি মাদার ক্যান্ডলের হাই প্রাইসকে ব্রেক করে উপরে উঠে তবে বাই সিগন্যাল আর লো প্রাইসকে ব্রেক করে নিচে নামলে সেল সিগন্যাল প্রদান করে থাকে।   উধাহরন স্বরূপ; নিচের ইনসাইড বারটি’ বাম পাশে মাদার ক্যান্ডল এবং ডান পাশে ইনসাইড বার। এই ইনসাইড বারটি সম্পূর্ণরূপে মাদার ক্যান্ডলের ভিতরে অবস্থান করছে।         ইনসাইড বার হতে আমরা কি কি তথ্য সংগ্রহ করতে পারি?   ইনসাইড বারটি কথায় গঠিত হয়েছে তার উপর নির্ভর করে ইনসাইড বার হতে আমরা কি কি তথ্য সংগ্রহ করতে পারি। প্রথমে আমাদের মনে রাখা উচিৎ ইনসাইড আমাদেরকে দেখায় মার্কেট এখন ইনডিসিশন এর মধ্যে আছে,এবং হাইলাইট করে বুলিশ আর বেয়ারিশ যুদ্ধ করছে মার্কেটকে কন্ট্রোলে নেয়ার জন্য।    ইনসাইড বার গঠনের সময় দুটি খুবই সাধারণ বিষয়;   ১; মার্কেট ঘুরে যেতে পারে ২; মার্কেট কন্টিনিউ করতে পারে থামার আগে   আমরা প্রায় এক দিকে শক্তিশালী মুভমেন্টের পর ইনসাইড বারকে দেখতে পাই। উধাহরন স্বরূপ; মার্কেট মুভ করলো উপরের দিকে তার মানে বুলিশ কন্ট্রোল করছে মার্কেটকে।ঠিক এই পয়েন্টে একটি ইনসাইড বার তৈরি হল, যা আমাদেরকে সিগন্যাল দিচ্ছে বুলিশ গণ খুবই কম বা বুলিশ কন্ট্রোলে নেই। অন্য দিকে বেয়ারিশ গণ মার্কেটকে কন্ট্রোল করতে সক্ষম হল, যার ফলে আমরা দেখতে পাই মার্কেটকে নিচে নিয়ে যাচ্ছে। এখানে আমরা দেখতে পাই কিভাবে মার্কেটের ডিরিকশন পরিবর্তন হয়ে গেলো।   ইনসাইড বার আমাদের দেখাচ্ছে যে, যেই টিম কিছুক্ষন আগে মার্কেটকে কনট্রোল করেছে তারা যে কোন দিকে যেতে পারে হাই বা লো, বর্তমানে মার্কেট একটি নির্দিষ্ট ভারসাম্যের মধ্য রয়েছে, তাই প্রাইস যে কোন দিকে পারে বা দিক পরিবর্তন হতে পারে।   উধাহরন হিসাবে নিচের চার্টটি দেখুন। লক্ষ্য করুন বুলিশ খুব কন্ট্রোল করছিল মারকেতকে।জার ফলে পাইস অনেক উপরে গিয়েছিল ইনসাইড বার তৈরি হওয়ার আগ পর্যন্ত। এই ইনসাইড বারটি সিগন্যাল দিচ্ছে প্রাইস হয়তবা দিক পরিবর্তন করতে পারে, কারন বুলিশ শক্তিমত্তা অনেক কমে গিয়েছে।     অন্য পরিস্থিতিতে আমরা যদি দেখি তবে বড় ধরনের মুভমেন্ট হয় একটি দিকে এবং ইনসাইড বার গঠন হল মার্কেটকে কন্টিনিউ করার জন্য। আমরা সাধারণত জানি যে মার্কেট শুধু উঠতেই থাকে বা নামতেই থাকে না এবং এর একটি বিবেচনামূলক অংশ আছে,এবং কিভাবে সে মুভ করবে।   প্রায় প্রাইস মুভ করতে পারে শক্তিশালী ভাবে উপরে বা নিচে পরে থেমে থাকবে। ঠিক এই মুহূর্তগুলোতে প্রাইস উৎপাদন করবে একটি ইনসাইড বারকে। এই ইনসাইড বার সিগন্যাল দিবে মার্কেটে কন্ট্রোল ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে।এই ইনসাইড বার বুলিশ কন্ট্রোলে আছে নাকি বেয়ারিশ কন্ট্রোলে আছে দুটোর মধ্যে আমাদের কোনটিও বলে না, শুধু বলে যে প্রাইস যে কোন দিকে যেতে পারে। নির্ভর করতেছে ইনসাইড বার হতে কে কন্ট্রোল ক্ষমতা অর্জন করতে সক্ষম হচ্ছে তার উপর।   উধাহরন; প্রাইস শক্তিশালী ভাবে নিচের দিকে মুভ করলো এবং এটি পরিস্কার যে মার্কেটে বেয়ারিশ কন্ট্রোলে আছে।একটি ইনসাইড বার তৈরি হল মার্কেটের সব থেকে তলানিতে, যেটি আমাদের হাইলাইট করে মার্কেট বর্তমানে অমীমাংসিত এবং ঠিক নেই পরবর্তীতে মার্কেট কোন দিকে যেতে পারে। নিচের দিকে বড় ধরণের পতনের পর অনেক ট্রেডার প্রফিট নিয়ে বের হয় যায় ঠিক এই থামার মুহূর্তে। যদি যথেষ্ট পরিমানে অর্ডার ফ্ল থাকে ইনসাইড বারকে সেল বিল্ডআপ করার জন্য তবে প্রাইসকে আমরা আবার নিচের দিকে যেতে দেখতে পারি এবং কন্টিনিউ করবে আরেকটি নতুল লোয়ার প্রাইস তৈরি করার জন্য।এছাড়াও মার্কেট বড় ধরণের মুভের পর বিবেচনায় যায় এবং নিচের দিকে কন্টিনিউ করে থাকে।   উধাহরনটি নিচে দেখুন। প্রথমে বেয়ারিশ কন্ট্রোলে ছিল এবং ধাক্কাতে ধাক্কাতে নিয়ে যাচ্ছিল মার্কেটকে নিচের দিকে। পরে একটি ইনসাইড বার গঠন হয় যা সিগন্যাল দেয় যুদ্ধে যে জয়ী হবে সেই কনট্রোল করবে মার্কেটকে। বেয়ারিশ কন্ট্রোল ক্ষমতা অর্জন করতে সক্ষম হল যথেষ্ট পরিমানে অর্ডার ফ্ল এর কারনে, প্রাইস ব্রেক করলো আগের লোয়ার প্রাইসকে,এবং কন্টিনিউ নিচের দিকে মুভ করা শুরু করলো।       আপনাদের বুঝার স্বার্থে নিচে আর কয়েকটি পিকচার এড করে দিলাম।       এখানে  লক্ষ্য করুন একটা ট্রেন্ড কন্টিনিউ করার ক্ষেত্রে ইনসাইড বার গুলো বড় ধরণের ভূমিকা রাখছে।     এখানে দেখেন, রেঞ্জ এবং রেঞ্জের বাহিরে ইনসাইড বার গুলো কি ধরণের প্রভাব ফেলেছে মার্কেটে।       এখানে দেখেন, ব্রেকাউট ও কন্টিনিউ কনফার্ম করার ক্ষেত্রে ইনসাইড বারটি ভালই ভূমিকা নিয়েছিল।   এখন আশা করি আপনার ইনসাইড বার গঠন সম্বন্ধে ভালো নলেজ হয়েছে,কিভাবে সে মার্কেটে আসে এবং কাজ করে থাকে। আশা করি আপনাকে এই তথ্যটি মার্কেটের সম্বন্ধে ভালো ধারনা দিতে সক্ষম হবে, এর থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল কিভাবে আপনি পজিসন নিবেন বা সুযোগ গ্রহন করবেন এর থেকে। আমি আশা করি আপনাদের আমার পোস্টটি ভালো লেগেছে।     যারা যারা আমার ফ্রি কনফারেন্সের বিষয় জানেন না তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, আমি পোস্ট লেখার পাশাপাশি ধারাবাহিক ভাবে ফ্রি কনফারেন্সে করে প্রাইস অ্যাকশান শিখাই।   তাই যারা যারা কনফারেন্সের মাধ্যমে শিখতে আগ্রহী তারা আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আমি ব্যাচ অনুযায়ী আপনাদেরকে সময় দিবো ইনসাল্লাহ। নেক্সট ব্যাচ কয়েকদিনের মধ্যে শুরু করে দিব। 
        স্কাইপ;  Abirtorik   মোবাইল; 01741660327   ফেসবুক       ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন নিরাপদে ট্রেড করুন সফল হন।        পূর্বে প্রকাশিত 
    • By abir0162
      অনেক দিন পর ফিরে এলাম,  জানি অনেকেই গালাগালি করতেছেন,  আমি আসলে প্রচণ্ড দুঃখিত।
      কি আর বলবো আমার উপর দিয়ে প্রচুর ঝর ঝাপট যাচ্ছে।
      অনেক বেস্ততার মাঝে ধারাবাহিক ভাবে লেখালেখি হয়না। তাছাড়া আমি আগে থেকে কন স্ক্রিপ্ট  তৈরি  করিনি বা লেখে রাখিনি।
      প্রতিনিয়ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো লেখে লেখে পোস্ট করে থাকি, এবং এভাবেই যতদূর করা জায় করে যাবো ইনশাল্লাহ।
      হয়তোবা একটু বেশী দেরি করে পোস্ট দিচ্ছি বাট কথা দিলাম আপনাদের পরিপূর্ণ প্রাইস অ্যাকশান এর উপর ধারণা না দিয়ে মাঝ পথে ছেঁড়ে যাবনা।
       
       

       
       
      যারা আমার আগের পোস্ট গুলো পরেন নি তারা নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন
       
       
       
      প্রাইস অ্যাকশান ট্রেডিং কি
       
      ট্রেন্ড ট্রেডিং
       
      সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স ১ম
       
      সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স ২য়
       
      পিনবার ট্রেডিং
       
      যাইহোক অনেক ভূমিকা নিলাম,
      এখন চলে আসি আর্টিকেলে    
       এই আর্টিকেলে আমরা জানবো শক্তিশালী এবং বিশ্বাসী ফরেক্স প্রাইস অ্যাকশান সেটআপ সম্বন্ধে। এটি বেয়ারিশ বা বুলিশ এংলাফ বার বলা হয়ে থাকে। অনেক ট্রেডার এটাকে বেয়ারিশ বা বুলিশ আউটসাইড বার বলে থাকে। বেয়ারিশ ও বুলিশ এংলাফ বারের ডাকনাম হচ্ছে BEEB এবং BUEB ।
        এংলাফ বারের গঠন;   এংলাফ বার তখনি গঠন হয় যখন এটি সম্পূর্ণভাবে তার আগের ক্যান্ডলটিকে ঢেকে ফেলে। এংলাফ বার শুধুমাত্র এংলাফ করবে তার আগের ক্যান্ডলটিকে। ট্রেডাররা প্রায় কনফিউস হয়ে যায় ক্যান্ডলের বডি এবং শেড নিয়ে। এংলাফ বারকে অবশ্যই বড় হতে হবে আগের ক্যান্ডলের থেকে, বডি এবং শেড দুটি এংলাফ করবে আগের ক্যান্ডলকে। যদি সম্পূর্ণরুপে তা করে তবে তা ভ্যালিড এংলাফ বার।    ভ্যালিড বেয়ারিশ এংলাফ বার       ভ্যালিড বুলিশ এংলাফ বার     যখন এংলাফ বার দেখবো আমরা তখন আমদের উচিৎ বড় এবং পরিস্কার এংলাফ বার দেখা । বড় এংলাফ বার বেস্ট ট্রেড করার জন্য, এংলাফ বারকে গতিবেগ বার ও বলা চলে, এবং আমরা চাই ট্রেড করতে গতির সাথে মানে ট্রেন্ডের সাথে। যত বড় এংলাফ বার হবে ট্রেন্ডের গতির পরিমান বারার সম্ভাবনা বেশী।   সব এংলাফ বারে ট্রেড করা যায়না, এংলাফ বার ট্রেড করতে হয় সঠিক এরিয়াতে।   এংলাফ বার ২টি সাধারণ নির্ণয়ের মাধ্যমে ট্রেডযজ্ঞ বলে ধারনা করা হয়।    অবশ্যই বড় এবং পরিস্কার হতে হবে অবশ্যই সুইং পয়েন্টে গঠন হতে হবে   এগুল খুবই সাধারণ ২টি বিষয় যা আমাদের প্রয়োজন যখন আমরা এংলাফ বার নির্ণয় করব।   এংলাফ বারকে সুইং পয়েন্টে অবশ্যই গঠন হতে হবে, মানে যদি আপট্রেন্ড হয় তবে এটাকে সুইং লো তে গঠন হতে হবে, আর যদি ডাউন ট্রেন্ডে হয় তবে এটাকে অবশ্যই সুইং হাই তে গঠন হতে হবে। যদি সব কিছু ঠিকমত হয়ে থাকে তবে এংলাফ বারটি ভ্যালিড।   উধাহরন কিছু হাই কোয়ালিটি এংলাফ বার     রিভারসাল বুলিশ এংলাফ বার          রিভারসাল বেয়ারিশ এংলাফ বার    আপট্রেন্ড মার্কেট    ডাউন ট্রেন্ড মার্কেট      যদি আমরা হায়ার টাইমফ্রেম গুলোর দিকে তাকাই, যেমন উইকলি বা ডেইলি চার্ট, এবং যদি ব্যাবহার করি সঠিক মানি ম্যানেজমেন্ট করা যায় তবে এংলাফ বার হতে পারে খুবই বিশ্বাসযোগ্য এবং লাভজনক সিগন্যাল ট্রেড করার জন্য। তাই প্রত্যেক ট্রেডারদের উচিৎ এটিকে তাদের হাতিয়ার হিসাবে রাখা।       এর পরের স্টেপ হবে ট্রেডারদের কথায় বেস্ট স্পট এংলাফ বার ট্রেড করার জন্য, কথায় তা ভালো কাজ করে এবং কিভাবে মেনেজ করতে হয় কিভাবে এন্টার করতে হয় সঠিক ভাবে। সব এংলাফ বার কিন্তু কাজ করে না, এংলাফ দেখলেই ট্রেড এন্টার করা উচিৎ নয়, চার্টের পারিপার্শ্বিক অবস্থা বুঝে ট্রেড এন্টার করা বুদ্ধিমানের কাজ। আশা করি আপনাদের হাতে ট্রেড করার জন্য আরেকটা বেস্ট অস্ত্র তুলে দিতে পেরেছি।     আমি প্রাইস অ্যাকশান টিউটোরিয়াল এর পাশাপাশি স্কাইপে ব্যাচ করে ফ্রি প্রাইস অ্যাকশান শিখাই। হয়তোবা তেমন কিছু জানিনা, বাট যতটুকু জানি সবার সাথে শেয়ার করতে চাই।   ইতিমধ্যে কয়েকটি ব্যাচ করাচ্ছি চাইলে যে কেউ জয়েন করতে পারেন। আরেকটি বিষয় ; অনেক নতুন ট্রেডার যারা ফরেক্সের কিছুই বুঝেনা বা জানেনা, আমাকে অনেকেই নক করেছিলো, যেহেতু তাদেরকে শিখানো অনেক কষ্টের ব্যাপার তাই তাদের কে এভয়েট করেছিলাম।   বাট এখন চিন্তা করলাম নতুন দের কেও ফ্রি শিখাব ব্যাচ করে। জানি বিষয়টা অনেক কঠিন হবে, বাট আমার হাত ধরে কেউ শুরু থেকে যদি শিখে এবং ভালভাবে প্রফিট করতে পারে, তা ভাবতেই নিজের মদ্ধে অন্নরকম একটা ফিল হয়। যাইহোক। নতুন হক আর পুরাতন যে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এবং যেই কোন বিডিপিপ্সের মেম্বার যে কোন দরকারে আমাকে নক দিতে পারেন ফিল ফ্রি। আমি জথা সাধ্য চেষ্টা করবো হ্লেল্প করার।   আজকের জন্য এখানেই বিদায় নিচ্ছি, আবার দেখা হবে নতুন কোন টিউটোরিয়ালে। আল্লাহ্‌ হাফিয।     আমার স্কাইপ; abirtorik মোবাইল ; 01741660327     নিরাপদে ট্রেড করুন সফল হন।  
    • By abir0162
      সবাই কেমন আছেন?
      আশা করি ভালই আছেন।
       
      আমি শুরুতেই আপনাদের সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি, দেরি করে পোস্ট দেয়ার জন্য।
      আমি অনেক দেরি করে পোস্ট দেয়ার জন্য  আপনারা অনেকেই হয়তাবা  আমার উপর রাগ করেছেন । 
       
      তবে দেরি হলেও আপনাদের জন্য একটা পজিটিভ দিক আছে, তা হল একটা পোস্টের সম্বন্ধে পজিটিভ নেগিটিভ  ধারণা পাওয়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় পাচ্ছেন।
      একটা বিষয় সম্বন্ধে আপনি যদি পজিটিভ নেগিটিভ সব কিছু জানেন , তবে আপনি সেই বিষয় সম্বন্ধে অনেক জ্ঞান লাভ, যা আপনার ট্রেডিং এর জন্য অনেক ভাল দিক।
       
      যাইহোক যারা যারা আমার আগের পোস্ট গুলো পরেননি তারা নিচের লিঙ্কে ক্লিক করলে কাঙ্খিত পোস্টে চলে যাবেন।
       
       প্রাইস অ্যাকশান পরিচিতি
       
       ট্রেন্ড ট্রেডিং
       
       সাপোর্ট এন্ড রেজিস্টেন্স ১ম পার্ট
       
       সাপোর্ট এন্ড রেজিস্টেন্স ২য় পার্ট
       
       
      যারা সব সব পোস্ট গুলো পরেছেন আশা করি মার্কেট সম্বন্ধে ভাল ধারণা পাচ্ছেন।  আপনারা চাইলে এখন রিয়েল ট্রেডিং করতে পারেন।
      কিন্তু রিয়েল ট্রেডিং করার জন্য আপনাদের কি দরকার জানেন?  প্রাইস অ্যাকশান সিগন্যাল ।
      কারণ , যতো কিছুই করেন না কেন মার্কেটে তো আর সিগন্যাল ছাড়া এন্টার করা যায়না।  তাই আজকে আপনাদের জন্য নিয়ে আসলাম  প্রাইস অ্যাকশান এর সব থেকে বেস্ট সিগন্যাল টি।
       
       

          পিনবার   পিনবার হল প্রাইস অ্যাকশান এর একটি রূপ, যা পাওয়া যায় যে কোন টাইমফ্রেমে যে কোন মার্কেটে। পিনবারের ফুল নাম হচ্ছে pinocchio bar,এই নামটি দেয়ার কারণ সিগন্যাল মিথ্যা বলে মার্কেটে বা ট্রেডারদের সাথে প্রতারনা করে পাইস এক দিকে যায় পরে অন্য দিকে ঘুরে যায়, মানে রিভার্স করে। পিনবার মিথ্যা বলে ট্রেডারদের ট্রাপে ফেলায় যা আমাদের সতর্ক করে যে মার্কেটে প্রচুর পরিমানে লট ব্যাবহার হচ্ছে যা মার্কেটকে অন্য দিকে ঘুড়িয়ে নে। একটি পিনবার তখনি বেস্ট কাজ করবে যখন তার স্টিক পাশের সব গুলো ক্যান্ডলকে ছারিয়ে যাবে এবং খুবি পরিস্কার হবে। খুবই বড় এবং পরিস্কার পিনবার শক্তিশালী এবং অনেক সম্ভাবনাময়ী হয়ে থাকে তখন, যখন তা গঠন হয় সঠিক এরিয়াতে।   এই টাইপের সিগন্যালকে অনেক সম্ভাবনাময়ী সিগন্যাল প্রাইস অ্যাকশান ট্রেডারদের জন্য। যেই পিনবার গুলো ছোট এবং পরিস্কার নয় সেখানে আমদের ট্রেড করা উচিৎ না।     একটি পিনবারে যা থাকতে হবে;   ওপেন এবং ক্লোজ আগের ক্যান্ডলের মধ্যে হতে হবে, ক্যান্ডলের লওয়ার শেড ৩গুন বড় হবে ক্যান্ডলের বডী থেকে, দীর্ঘ শেড থাকবে যা অন্যান্য বার গুলোকে ছারিয়ে যাবে,   নিচে উধারন দেয়া হল একটি বেয়ারিশ পিনবার এর,       পিনবার ট্রেড করা যাবে সব ধরণের মার্কেটে। পিনবারের গঠন হচ্ছে রিভার্স সিগন্যাল। প্রায় আপনি পিনবারকে পাবেন ট্রেন্ড পরিবর্তনের সময়।     কিভাবে শক্তিশালী ডাউনট্রেন্ডকে একটি পিনবার আপট্রেন্ডে পরিবর্তন করে দিয়েছে, তা নিচের পিকচারটি দেখলেই বুঝা যায়।       বুলিশ পিনবার গঠন হয়েছে একটি  সাপোর্ট লেভেলে, দ্বিতীয়বার বুলিশ পিনবার তৈরি হওয়ার কারণে এই সাপোর্ট লেভেলটি থেকে মার্কেট বুল হওয়ার প্রবণতা বেরে গেছে।         নিচের পিকচারটি দেখুন,  এখানে একটি কী এরিয়াতে বেয়ারিশ পিনবার হয়েছে। আর আমাদের মেইন ফকাস থাকবে কী এরিয়া গুলোতে সিগন্যাল খোজার।   বুলিশ পিনবার তৈরি করছে ফলস ব্রেক সাপোর্ট লেভেল থেকে, যা আমাদের কনফার্ম করতেছে যে, এখানে পর্যাপ্ত পরিমানে বায়ার আছে, যারা মার্কেটের পরিবর্তন ঘটাতে সক্ষম।   সুধুই কি পিনবার পেলে আমরা ট্রেড করব? নাকি আর অনেক বিষয় আছে?   ট্রেডারদের এছাড়াও প্রয়োজন আছে কিছু বিষয়ের;   যেমনঃ কথায় ট্রেড করতে হবে পিনবার গঠন হলে   কিভাবে মেনেজ করতে হবে পিনবারের স্টপ লস   কোন পিনবারটি ট্রেড করার জন্য বেস্ট   কিভাবে এন্টার করতে হবে পিনবারে   কিভাবে মানেজ করতে হবে ট্রেডটিকে কতটুকু রিস্ক গ্রহন করা যায় মিনিমাম   কখন টেক প্রফিট নিতে হবে   কখন পিনবার সেটআপে ট্রেড করা জাবেনা   কখন পিনবার ট্রেড করার ভালো সময়   আপনারা যদি উপরের সকল বিষয় সম্পূর্ণ  ভাবে মেনে চলেন তবে আশা করা যায়, ইনশাল্লাহ আপনারা ভাল ভাল পিনবার সেটআপ গুলোতে ট্রেড করে প্রফিট করতে পারবেন।  আমি অনেক সহজভাবে আমার সকল লেখা গুলো  আপনাদের সামনে উপস্থাপন করেছি । অনেকেই মনে করেন এত সহজভাবে ফির ট্রেড করা যায় নাকি, সিস্টেম এত সহজ হবে  তা  অনেকেই  মেনে নিতেই  পারেনা। আমাকে একজন তো প্রশ্ন করেই ফেলছে, ভাই এত সহজ সিস্টেমে ট্রেড করে প্রফিট করা যাবে তো ? হা হা হা,  খুবই মজা পাইছি কথাটা শুনে।   সুপার ইম্পরট্যান্ট ;  যদি কেউ তাদের মেথডকে ক্রিটিকাল করেন তবে, তারা সুধু তাদের মেথডকেই ক্রিটিকাল করলনা, তারা তাদের প্রফিট করার সম্ভাবনাকে ক্রিটিকাল করে তুলল।     যারা যারা আমার ফ্রি কনফারেন্সের বিষয় জানেন না তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, আমি পোস্ট লেখার পাশাপাশি ধারাবাহিক ভাবে ফ্রি কনফারেন্সে করে প্রাইস অ্যাকশান শিখাই। তাই যারা যারা কনফারেন্সের মাধ্যমে শিখতে আগ্রহী তারা আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আমি ব্যাচ অনুযায়ী আপনাদেরকে সময় দিবো।     স্কাইপঃ abirtorik মোবাইলঃ 01741660327     আমি আশা করি আপনাদের ভালো লাগতেছে আমার পোস্ট গুলো। সাথেই থাকুন।   ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন এবং নিরাপদে ট্রেড করুন  
       
       
    • By abir0162
      আমি শুরুতে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি এতদিন পর পোস্ট করার জন্য। আমি বেশ কয়েকদিন ধরে খুবই অসুস্থ, এবং এই মুহূর্ত পর্যন্ত অসুস্থ। তাই আপনাদের জন্য পরের পোস্ট গুলো লিখতে পারিনি, তবে খুবই কষ্টে কনফারেন্স গুলো চালিয়ে গেছি। যাইহোক, আমার জন্য আপনারা দোয়া করবেন, যাতে জলদি আল্লাহ্‌র রহমতে সুস্থ হতে পারি।
       
      আপনারা যারা যারা আমার আগের পোস্ট গুলো পড়েনি, তারা নিচের লিঙ্কের মাধ্যমে আগের পোস্ট গুলো পড়তে পারবেন।
       
       
       
      ১ম পোস্টঃ    প্রাইস অ্যাকশান পরিচিতি 
       
      ২য় পোস্টঃ     ট্রেন্ড ট্রেডিং
       
      ৩য় পোস্টঃ    সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স পার্ট ১
       
       
      উপরের লেখা গুলোর মধ্যে ক্লিক করলেই আপনার কাঙ্খিত পোস্টে চলে যাবেন।
       
      আরেকটি বিষয় হল, যারা যারা আমার পোস্ট পরবেন তারা দোয়া করে ফিডব্যাক দিবেন কমেন্টে, ভালো খারাপ যাই হোক না কেন, যদি পোস্ট পড়ে আগের থেকে বেটার বুঝতে পারেন জানাবেন, যদি কিছুই না বুঝতে পারেন তবুও  জানাবেন। আসলে পোস্ট তো অনেক মানুষ ভিউ করে, বাট যদি জানতেই পারলাম যে, আমার পোস্ট কারো ভালো বা খারাপ লাগছে, তবে আমার এত কষ্ট এত পরিশ্রম সব বৃথা ।
       
      যাইহোক চলে যাই আজকের টপিকে।
       
       

       
       
       
      প্রাইস অ্যাকশান ট্রেডিং এর গুরুত্বপূর্ণ উপদান হল সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স মার্ক করা। কথায় ট্রেডাররা মার্ক করলো তাদের লেভেলকে সঠিকভাবে অনেক সম্ভাবনাময় ট্রেডের জন্য,যদি তারা সাকসেসফুল হতে চায় তবে। আমি এই আর্টিকেলে আপনাদেরকে সঠিক প্রসেস দেখাবো যা ট্রেডারদের প্রয়োজন। অন্তর্ভুক্ত থাকবে কখন ট্রেডাররা মার্কআপ তাদের চার্ট, কোন টাইমফ্রেম ব্যবহার করবেন একুরেট লেভেল বের করার জন্য এবং মার্কেটের সঠিক সাইডে ট্রেড করার জন্য প্রাইস ফ্লিপকে ব্যাবহার করবে ও কখন প্রাইস তৈরি করবে একটি ব্রেক যে কোন দিকে হায়ার (higher) বা লোয়ার (lower). এই আর্টিকেলে আমি খুবই গভীরভাবে আলোচনা করবো কারণ এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ট্রেডারদেরকে সঠিক প্রসেসে কী (key) লেভেল কিভাবে বের করা হয় তা জানার জন্য। আমার সাথেই থাকুন যতক্ষণ না পর্যন্ত আর্টিকেলটি শেষ হচ্ছে। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।
       
       
       
      চার্ট মার্ক করুন সঠিক দিকে

       
      ট্রেডারদের চার্ট মার্ক করার জন্য বেস্ট উপায় হল সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেল মার্ক করা,অবশ্যই তা ট্রেড করার অনেক আগে থেকে। এটা করা তাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ হল যদি তারা ট্রেড সেটআপ পাওয়ার পরে সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেল মার্ক করে তবে অধিকাংশ সময়ে ফলস ট্রেড সেটআপ পেয়ে থাকে তাও আবার খারাপ কী এরিয়াতে।
       
      কারণ হল যদি তারা আগে চার্ট মার্ক করতো তবে তারা প্রচুর পরিমানে সময় পাচ্ছে ট্রেড সেটআপ এর খুঁটিনাটি জানার জন্য, পরিশেষে যখন আপনার ট্রেডিং প্লান অনুযায়ী 
      সেটআপ পেলে তার প্রফিট হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশী থাকে, কারণ আপনি অনেক সময় পেয়েও কোন ভুল আপনার প্লানিং এর বিপরীতে দ্বার করাতে পারেননি। যদি আপনি হঠাত করে ট্রেড সিগন্যাল পান তবে আপনি সময় পাচ্ছেন না আপনার সিগন্যালটির বিপরীতে কোন যুক্তি দ্বার করানোর, যখন আপনি এন্ট্রি নিয়ে ফেলবেন তখন বার বার ট্রেড দেখতে যেয়ে আপনার ভুল গুলো ধরা পরবে, তখন না পারবেন ট্রেড থেকে বের হয় যাইতে না পারবেন চুপচাপ থাকতে, কারণ আপনি অনেক দেরি করে ফেলছেন।
       
      ট্রেডারদের প্রয়োজন সপ্তাহের শুরুতে ডেইলি চার্টে যেয়ে মার্ক করা শুরু করতে হবে তাদের কী সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেল গুলোকে যেখানে যেখানে তারা ট্রেড করতে চায়। ডেইলি চার্ট হল বেস্ট এবং পরিস্কার চার্ট থাকবে মার্ক করতে হবে লেভেলকে এবং পরে সেই লেভেল গুলোকে চাইলে ব্যাবহার করতে পারেন ইন্টার-ডে চার্টে।
       
      উদাহরন স্বরূপঃ ট্রেড করতে চান ৪ ঘণ্টা বা ৮ ঘণ্টা ইত্যাদি গুলোতে আপনি ব্যাবহার করতে পারবেন একই লেভেল যা আপনি ডেইলি চার্টে মার্ক করেছেন। এই কারনে অনেক বড় বড় ট্রেডাররা মার্ক করে তাদের লেভেল ডেইলি চার্টে এবং এছাড়াও তারা সেই লেভেল গুলোতে ট্রেড করে থাকে তাদের ইন্টার-ডে চার্টে যেমন; ৪ঘণ্টার চার্টে, কারণ হল ছোট ছোট টাইমফ্রেমে অনেক বেশী লেভেল থাকে যার মধ্যে অধিকাংশই অনেক দুর্বল লেভেল। ট্রেডিং করুন ডেইলি চার্ট লেভেল গুলো, কোন ব্যাপার না কোন টাইমফ্রেম ব্যাবহার করবেন,তবে আপনাদেরকে অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে ট্রেড করার আগে সঠিক কী সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলে আছেন কিনা, না হলে আপনি ফাঁদে পরবেন দুর্বল ইন্টার-ডে লেভেল গুলোর।
       
      যদি ট্রেডাররা মার্ক করে তাদের লেভেলকে যে কোন ভাবেই পরে তারা ধরার চেষ্টা করে ট্রেড সেটআপ যেমন; পিনবার এংলাফ বার ইত্যাদি, তাদের ব্রেন প্রায় সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলকে দেখতে চায় কারন হল ট্রেডাররা সর্বদা চায় কনফার্ম করতে তাদের ট্রেড ও এন্টার করা ট্রেড সেটআপ। যাই হোক, ট্রেডাররা মার্ক করে প্রথমে তাদের লেভেল, সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলের ভালো এরিয়াতে যদি এন্টার করতে পারে তবে নিশ্চিন্তে বলা যায় যে ঝুঁকি অনেকাংশ কমে গেছে।
       
      সকল ট্রেডার এটাই করে থাকে, মার্ক করে তাদের কী লেভেল এবং অপেক্ষা প্রাইস তাদের প্রি-মার্ক করা লেভেল গুলোতে যাওয়া পর্যন্ত এবং পরে খুঁজতে থাকে ভালো একটি প্রাইস অ্যাকশান সেটআপ। যদি এইভাবে হয়ে থাকে তবে কোন কনফিউসন থাকেনা কারন প্রাইস মুভ করতেছে একটি কী লেভেলে তাও আবার কোন সেটআপ গঠন হওয়ার অনেক আগেই মার্ক করা লেভেল থেকে।
       
      এইভাবেই আপনাদেরকে চার্ট মার্ক করতে হবে। ট্রেডাররা যদি খুঁজে কোন সেটআপ প্রত্যেকটি টাইমফ্রেমে এবং পরে কিন্তু লক্ষ্য করে সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেলকে,প্রত্যেকটি টাইমফ্রেমের প্রতিটি চার্ট দেখা হয় গেলে তারা চেক করে কোন ট্রিগার সিগন্যাল গঠন হয়েছে কিনা। যদি তারা একটি সেটআপ পেয়ে যায় তবে তারা কাজে লেগে পরে সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলের সাথে এটাকে মেলানোর জন্য।চার্ট সেটআপ এর কার্যকরী পদ্ধতি হল ট্রেডারদেরকে ডেইলি টাইমফ্রেম দেখতে হবে একটার পর একটা যে, যেই লেভেল গুলো আপনি প্রি-মার্ক করে রেখেছেন তার মধ্যে প্রাইস কোন সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলের কাছে গেছে কিনা, যদি আপনার দেয়া কী লেভেলের কাছে প্রাইস যেয়ে থাকে তবে আপাতত দেখা বন্ধ করুন। যদি প্রাইস মুভ করে ডেইলি প্রি-মার্ক করা লেভেল গুলোর কাছাকাছি, তবে ট্রেডারদের এই লেভেল গুলোতে ট্রেড খুঁজা উচিৎ, যদি ডেইলি চার্টে প্রাইস অ্যাকশান কোন সেটআপ না পায় তবে তাদের ইন্টার-ডে চার্টে সেটআপ দেখতে হবে যেমন; ৮ঘণ্টা ৪ঘণ্টা সেটআপ খোঁজার জন্য। এইভাবে করলে নিশ্চিন্তে প্রাইস অ্যাকশান ট্রেডাররা সবসময় সব কী লেভেলে সেটআপ পেতে পারে এবং অপ্রয়োজনীয় চার্ট দেখা ও প্রচুর পরিমানে সময় বেঁচে যেতে পারে।ট্রেডারদেরকে সিগন্যালের জন্য সিঙ্গেল কোন টাইমফ্রেম যেমন;৪ঘণ্টা & ৮ঘণ্টার চার্ট আলাদা আলাদা করে দেখার কোন দরকার নাই। এমনকি আলাদা করে এনালাইসস ও করার কোন দরকার নাই। শুধুমাত্র যখন প্রাইস তাদের কী লেভেলে মুভ করবে তখনই তাদেরকে সেই টাইমফ্রেম চার্ট গুলোতে লক্ষ্য রাখতে হবে এবং তাদেরকে খুঁজতে হবে ট্রিগার সিগন্যাল।
       
       
      ভুলে যাবেননা কেন আপনি সাপোর্ট & রেজিস্টান্স লেভেল মার্ক করেছেন
       

       
       
      প্রায় ট্রেডারদের মধ্যে একটি অভ্যাস দেখা যায় যে,তাদের অনেক গুলো চার্টে সুন্দরভাবে লেভেল মার্ক করা আছে, কিন্তু লংটাইমের পরিপেক্ষিতে তারা ভুলে যায় কোন কারণে তারা
      মার্ক করেছিলো সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলকে প্রথম থেকে।তাদের সকল চার্টে ১০টির বেশী লেভেল থাকতে পারে এবং তাদের একেক জনের কাজ একেক ধরণের হতে পারে
      যদি তা তাদের মনে না থাকে তবে লেভেল মার্ক করা সম্পূর্ণ বৃথা।
       
      ধরুন বর্তমানে আপনি যেই চার্টটি দেখছেন তার বর্তমান প্রাইসের কাছে আপনার প্রি মার্ক করা লেভেল আছে যদি আপনি না মনে করতে পারেন তবে আপনার মার্ক করা লেভেলটি কোন কাজেই আসলোনা।
       
      আমি প্রায় দেখছি অনেক চার্টে যেখানে অনেক ছোট ছোট লেভেল মার্ক করা আছে, যেখানে খুবই জলদি প্রাইস ব্যাক করে ঠিকই কিন্তু ট্রেডাররা ট্রেড করে করেনা কারন হল, অধিকাংশ সময়ে ট্রেড সেটআপই গঠন হয় না বা ট্রেডাররা কনফিউশনে ভুগতে থাকে ট্রেড করবে কি করবেনা।শুধুমাত্র সেই লেভেল গুলো মার্ক করা উচিৎ যেখানে প্রাইস ব্যাক করলে ট্রেডাররা ট্রেড করতে চায়। টার্গেট স্টপলস ইত্যাদি সব কিছু ভালো কাজ করে ট্রেড সেটআপ পাওয়ার পর, কিন্তু আগে আমাদেরকে নির্ণয় করতে হবে যে আমারা সলিড কী এরিয়াতে আছি কিনা।যখন লেভেল দেখবেন তখন সর্বদা মনে রাখবেন; শুধুমাত্র তখনই একটি লেভেল মার্ক করবেন যদি আপনি সেখানে ট্রেড করতে চান তবে। যদি এইটা কোন ছোট লেভেল হয় বা আপনি সেখানে ট্রেড করতে চান না তবে সেখানে মার্ক করা আপনার সময়ের অপচয় ছারা আর কিছুইনা। আপনি যদি এভাবে লেভেল মার্ক করেন তবে আপনার মার্ক করা প্রতিটি লেভেল হবে অনেক কার্যকরী ও আপনি খুবই সহজে মনে রাখতে পারবেন কেন আপনি সেখানে লেভেল তৈরি করছেন।
       
       
      কোনটি ব্যাবহার করবেন ক্যান্ডেল,লাইন বা বার চার্ট?
       
       

       
      প্রাইস অ্যাকশান ট্রেডাররা প্রাইস অ্যাকশান চার্ট থেকে প্রচুর পরিমাণে তথ্য পাবে যা সাহায্য করে তাদের ট্রেডকে। ক্যান্ডেলস্টিক ট্রেডারদেরকে প্রচুর পরিমাণে সাহায্য করে থাকে, কি ধরণের সাহায্য ট্রেডারদের প্রয়োজন, শুধুমাত্র প্রাইসের ওপেন ক্লোজ ট্রেডারদের দেখায় না, এমনকি প্রাইস কোন সেশনে গিয়েছিল তাও দেখায়। এই কারনে যখন সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেল মার্ক করবেন ক্যান্ডেলস্টিক চার্ট অবশ্যই ব্যাবহার করা উচিৎ।
       
      লাইন চার্টের মেজর প্রবলেম হল যখন আপনি সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স মার্ক করতে যাবেন তখন আপনি কোন সঠিক সুইং পয়েন্ট পাবেন না, আপনি দেখতে পাবেন না সত্যিকারের সুইং হাই ও সুইং লো, অন্যদিকে ক্যান্ডেলস্টিক ট্রেডাররা কিন্তু সবকিছুই দেখতে পাবে।যখন ক্যান্ডেলস্টিক ব্যাবহার করবেন তখন আপনি ক্যান্ডেল টু ক্যান্ডেল তথ্য পড়তে পারবেন। যখন ট্রেডাররা মারকিং করবে লেভেল গুলো তখন বডির উইক গুলোর সাহায্যে বেস্ট একটি লেভেল গঠন করতে পারবে। ক্যান্ডেলস্টিক ট্রেডাররা এছাড়াও দেখতে পারে কথায় প্রাইস ক্লোজ হতে পারে সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলের উপরে বা নিচে এবং বলে যে লেভেলতি ব্রেক করবে নাকি ধরে থাকবে ইত্যাদি ।
       
       
      চার্ট পরিষ্কার রাখুন প্রাইস অ্যাকশান পড়ার জন্য
       
      যারা এই মুহূর্তে প্রাইস অ্যাকশান শিখছেন বা  প্রাইস অ্যাকশান ট্রেডার, তারা  একবার চিন্তা  করেন  আপনারা আপনাদের  চার্টে  আগে   এলোমেলো ভাবে  কিভাবে  সাপোর্ট এবং রেসিস্টান্স লেভেল আঁকতেন, আপনাদের  চার্টে ১৫টির  বেশি  আলাদা আলাদা সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স থাকতো ।  সত্যিকার অর্থে সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেল ম্যাক্সিমাম থাকবে ২টি, একটা প্রাইসের উপরে আরেকটি প্রাইসের নিচে , কখনও একটি মাত্র লেভেলও থাকতে পারে ।   যদি প্রাইস ২টা লেভেলের মধ্যে একটি ব্রেক করে তবে আমাদের চাহিদা অনুযায়ী আমারা নতুন আরেকটা লেভেল তৈরি করতে নতুন একটি স্পট ধরার জন্য । যাইহোক, গুরুত্বপূর্ণ  বিষয় হল  চার্ট সবসময় ক্লিন রাখতে হবে   আজগুবি এনালাইসিস করে এলোমেলো ভাবে রাখা যাবেনা, কারণ, ট্রেডারদেরকে সবসময় প্রাইস অ্যাকশান এর সাথে চার্টকে বুঝতে হবে  পড়তে হবে  কি ঘটছে বর্তমানে, যদি আপনি এলোমেলো ভাবে চার্ট রাখেন তবে আপনি সহজে বুঝতে পারবেননা প্রাইস আপনাকে কি বলতে চাচ্ছে ।
       
      যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনারা প্রাইস অ্যাকশান নিয়ে ট্রেড করতেছেন আপনাদের  চার্ট দেখতে নিচের চার্টটির মত হতে পারে, শুধু  আপনারা নন সারা বিশ্বে কত হাজার হাজার লাখ লাখ ট্রেডারদের চার্ট দেখতে ঠিক নিচের চার্টটির মত। একবার চিন্তা করেন এই ধরণের চার্টকি আপনাকে সাহায্য করবে মার্কেটের সঠিক পয়েন্ট খুজে বের করতে নাকি উল্টা কনফিউস করে দিবে? ;  এই ধরণের চার্টে একচুয়াল সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেল কোন কাজ করেনা, কারণ আপনি যদি আইডেন্টিফাই নাই করতে পারেন তবে কাজ করবে কিভাবে।   সুতুরাং আপনাদের চার্ট সবসময়  পরিষ্কার রাখুন, এবং মনে রাখবেন কোন লেভেল আপনি কি কারণে বা কি জন্যে তৈরি করেছিলেন, যা আপনাকে সাহায্য করবে সঠিক প্রাইস অ্যাকশান পড়তে বা বুঝতে।
       
       

       
       
      ফরেক্সে ট্রেড করার জন্য অনেকগুলো পেয়ার রয়েছে, তার মানে এই নয় যে আপনারা সব গুলো পেয়ারে ২টা করে লেভেল মার্ক  করবেন। আমি উপরে আলোচনা করেছিলাম লেভেল মার্ক করা নিয়ে, আমার আলোচনার মূল বিষয় হল আমাদেরকে প্রি মার্ক করতে হবে সেই লেভেল গুলোতে যেখানে আমরা ট্রেড করতে চাই বা ট্রেড পেতে পারি। ফাঁদে পরে এমন চিন্তা কইরেন না যে, আপনাদেরকে প্রত্যেক সিঙ্গেল চার্টে লেভেল মার্ক করতেই হবে। সবসময় মনে রাখবেন, কিছু কিছু চার্টে আপনি লেভেল করতে পারবেন না, কারণ সেখানে পরিষ্কার ভাবে লেভেল মার্ক করার মত কোন পরিস্থিতি নেই।  আপনারা চাইলে লেভেল মার্ক করার সময় নিজেকে একটা প্রশ্ন করতে পারেন,  যদি আমি স্ট্রাগাল করে একটি সাপোর্ট বা রেজিস্টান্স লেভেল মার্ক করি, আমি কি করবো সেখানে কোন ট্রেড এই পেয়ারটিতে, যখন আমি আত্মবিশ্বাসের সাথে এই লেভেলটি মার্ক করতে পারবোনা?  উত্তর হবে অবশ্যই, না।
       
      কিছু কিছু মার্কেটে আপনাকে সুধুমাত্র একটি লেভেল মার্ক করতে হতে পারে, এমনকি কিছু মার্কেটে আপানকে কোন লেভেলই মার্ক করা যাবেনা।  উধাহরন; একটি লেভেল মার্ক করবেন শুধুমাত্র ট্রেন্ডিং মার্কেটে, কারণ আপনাকে এন্ট্রি খুঁজতে হবে ট্রেন্ডের সাথে, তাই সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেল যেটাই হোক না কেন তা আপনাকে আঁকতে হবে বর্তমান ট্রেন্ডের সাথে। আর লেভেল মার্ক না করার উধাহরন; যখন মার্কেট চপি অবস্থায় থাকবে, খুবই টাইট বিবেচনাময় অবস্তায় থাকবে তখন আপনি কোন লেভেল মার্ক করতে পারবেন না, আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে প্রাইস সেই বিবেচনাময় অবস্থা থেকে বের হওয়া পর্যন্ত।
       
      বেস্ট ট্রেডাররা ট্রেড করে বেস্ট সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেল থেকে, এবং সেই লেভেল গুলো হয় থাকে খুবই পরিষ্কার এবং নিয়মমাফিক। ধরেন; একটা লেভেল খুঁজে বের করতে আপনার অনেক টাইম লাগলো তখন বুঝতে হবে সেখানে কোন পরিষ্কার লেভেল নেই, যদি কোন লেভেল দেখামাত্র খুব সহজে বুঝা যায় তবে বুঝতে হবে সেখানে খুবই সুন্দর এবং পরিষ্কার লেভেল আছে, যেখান থেকে আপনি বেস্ট একটা ট্রেড সেটআপ পেতে পারেন।
       
       
      মার্ক করুন পরিষ্কার রিসেন্ট সুইং পয়েন্ট গুলোকে
       
      ট্রেডারদের প্রয়োজন একটি রুটিন তৈরি করা, কখন তারা ডেইলি চার্ট হতে লেভেল মার্কআপ করবে তাদের লেভেলগুলো। যদি আমি আমার কথা বলি, আমি আমার চার্ট গুলো দেখি প্রত্যেক রবিবার রাতে এবং আগামী সপ্তাহের জন্য লেভেল মার্ক করে রাখি। আমি সেই  সব গুলো লেভেল দেখে থাকি  যেখান থেকে সম্ভাব্য ট্রেড করা যাবে আগামী সপ্তাহে। সপ্তাহের মাঝে আমার দেয়া কোন লেভেল যদি প্রাইস ব্রেক করে তবে আমি আমার চাহিদা অনুযায়ী নতুন লেভেল তৈরি করে থাকি, যদি দরকার পরে।
      এই ধরণের মানুষিকতা যদি ট্রেডারদের থাকে লেভেল মার্ক করার সময় তবে তারা কী এরিয়াতে গুড লেভেল গুলো খুঁজে পাবে সহজে এবং সেখান থেকে ভাল ভাল সেটআপ গুলোতে ট্রেড করতে পারবে।এটি হতে পারে তাদের জন্য একটি ভাল দিক বা লক্ষণ। আমি আপনাদেরকে সব থেকে বেস্ট এবং সহজভাবে লেভেল মার্ক করা শিখাব, আপনাদেরকে প্রথমে চার্টের উপর থেকে নিচ পর্যন্ত দেখতে হবে এবং সুইং পয়েন্ট গুলো মিলানো সুরু করতে হবে। সুইং পয়েন্ট হল সাধারণত প্রাইস সব থেকে হাই বা লো যা সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স লেভেল থেকে রিভার্স করা সুরু করছে। যাইহোক, নিচের চার্টে আমি বিস্তারিত আলাচনা করবো।
       
       
      চার্ট ১
       
      এই চার্টে পরিষ্কার সুইং পয়েন্ট গুলো মার্ক করা আছে কোন কী লেভেল মার্ক করা ছারাই। এই পিকচার এর মত করে আপনাদেরকে আগে সুইং পয়েন্ট গুলো মার্ক করতে হবে, পরে কিভাবে সেই সুইং পয়েন্ট ম্যাচ করবেন তা আমি দেখাবো ২য় পিকচারে।
       

       
       
      চার্ট ২
       
      এই চার্টে এখন মার্ক করা আছে সুইং পয়েন্ট গুলো, কিন্তু এখানে কী লেভেলটি মার্ক করা আছে যা আগের পিকচারে ছিলোনা। কিভাবে পরিষ্কার সুইং পয়েন্ট এর দ্বারা সুন্দর এবং সহজভাবে গুরুত্বপূর্ণ লেভেল মার্ক করবেন তা আশা করি বুঝতে পারছেন। 
       

       
      মনে রাখবেন, সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স এর খুবই সাধারন বিষয় হল বুল এবং বেয়ারের মধ্যে ফাইট বা বায়ার ও সেলারের মধ্যে ফাইট। যখন বায়াররা প্রাইসকে পুশ করে উপরের দিকে কিন্তু অবশেষে তা একটি রেজিস্টান্স লেভেলের কাছেই যায়, যেখানে সেলাররা অপেক্ষা করে প্রাইসকে নিচে নিয়ে যাওয়ার জন্য।  যখন সেলাররা প্রাইসকে নিচের দিকে নিয়ে যায় তা কিন্তু অবশেষে সাপোর্ট লেভেলের কাছেই যায়, যেখানে বায়াররা অপেক্ষা করে প্রাইস উপরের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য বা কন্ট্রোলে আসার জন্য।
       
       
      চার্ট ৩
       
      এই চার্টটি দেখেন, এই ধরণের লেভেল আসলে তখনি দেখতে পারবেন যখন আপনি জোর করে লেভেল মার্ক করতে চাবেন। এই ধরণের লেভেলে ট্রেড করা ঠিক নয় এবং ট্রেড গুলো প্রফিট না হয়ার সম্ভবনা খুবই কম থাকে।
       

       
       
       
      চার্ট ৪
       
      এই চার্টটি হচ্ছে পরিষ্কার একটি আপট্রেন্ড, এখানে শুধুমাত্র ক্লিয়ার একটি সাপোর্ট লেভেল মার্ক করা আছে, যখন এই সাপোর্ট লেভেলে ট্রেন্ডের দিকে  কোন প্রাইস অ্যাকশান সিগনাল দিবে তখন আপনাদেরকে ট্রেড করতে হবে।
       

       
       
       
       
       
      প্রাইস ফ্লিপ পদ্ধতিতে লেভেল মার্ক করুন 
       
      প্রাইস ফ্লিপ লেভেল হল সেই লেভেল গুলো যেখানে প্রাইস উভয় পাশে সাপোর্ট এবং রেজিস্টান্স  লেভেল হিসাবে কাজ করেছে এবং নতুন একটি লেভেল তৈরি করেছে। উধাহরন; প্রাইস হয়তবা হল্ড করতে পারে কোন সলিড সাপোর্ট লেভেলে এবং পরে প্রাইস ব্রেক কর সাপোর্ট লেভেলটি যা তৈরি করতে শুরু করল প্রাইস ফ্লিপ লেভেল যা দেখতে নতুন একটি রেজিস্টান্স লেভেল হবে। এই পদ্ধতিটি অনেক ভাল কাজ করে, আপনারা যদি আপনাদের হিস্টরিক চার্ট দেখেন তবে দেখতে পারবেন ফরেক্স মার্কেটে এটি কতো ভাল কাজ করে থাকে। এটি হল আপনাদের জন্য সব থেকে বেস্ট লেসন যদি আপনারা আইডেন্টিফাই করতে পারেন, কারণ এখান থেকেই আপনি পাবেন সব থেকে অনেক বেশি প্রফিটেবল ট্রেড। ওল্ড লেভেল ধারাবাহিক ভাবে ফ্লিপিং করে থাকে এবং পরে সেই একই প্রাইসে প্রাইস ফ্লিপ লেভেল তৈরি করে থাকে এবং বার বার রিস্পেকট করতে থাকে। 
       
      নিচের পিকচারটি দেখুন তবে ক্লিয়ার বুঝতে পারবেন।
       
       

       
       
       
      প্রাইস ফ্লিপ লেভেল কি আশা করি একটু বুঝতে পারছেন। তবে আমি আরেকটু গভীরে যাই, মনে করেন আপনি একটি লেভেল দেখতেছেন, সেই লেভেল হল্ড করতে করতে ব্রেকআউট করলো, আপনি তখন বুঝতে পারলেন আপনি এখানে নতুন একটি লেভেল গঠন হতে দেখতে পারেন, প্রাইস ফ্লিপ লেভেল পদ্ধতি অনুযায়ী। তারপর নতুন তৈরি করা লেভেলে যদি কোন রিজেক্টশন প্রাইস অ্যাকশান সিগন্যাল পাওয়া যায় যা আমি আমার আগের পোস্টে আলোচনা করেছিলাম, তবেই আপনাকে সেখানে ট্রেড প্যালেস করতে হবে।
       
      একবার চিন্তা করেন আপনি একটা লেভেল মার্ক করেছেন, কিন্তু আপনার লেভেলটি কাজ করেনি উল্টা ব্রেক করেছে, এই লেভেল ব্রেক করার ফলেও আপনি যদি ট্রেড করার সুযোগ পান তবে কতইনা ভাল হতো। অনেক বকবক করলাম এখন চলে যাই, কিভাবে প্রাইস ফ্লিপ মেথডে ট্রেড করবো। আশা করি উপরের পিকচারটির মাধ্যমে আপনারা অনেকটাই ক্লিয়ার হবেন কিভাবে প্রাইস ফ্লিপ লেভেল কাজ করে থাকে।
       
      খুবই গুরুত্বপূর্ণঃ  প্রাইস ফ্লিপ লেভেল মানে নতুন সাপোর্ট ও রেজিস্টান্স লেভেলে যতক্ষণ না পর্যন্ত প্রাইস অ্যাকশান সিগন্যাল রিজেক্ট করতেছে নতুন লেভেলকে ততক্ষণ পর্যন্ত ট্রেড প্যালেস করা যাবেনা।
       
       
      চার্ট ১
       
      প্রাইস নিচের দিকে মুভ করতেছিল এবং একটি সময় খুঁজে পেয়ছিল একটা সাপোর্ট লেভেল।  আপনারা দেখেন বড় ধরণের বিস্ফোরণ ঘটার আগে প্রাইস কিন্তু ধরেছিল অনেক্ষন সেই লেভেলে, পরিশেষে সে ব্রেকআউট করলো এবং প্রাইস নিচের দিকেই নামতে থাকলো।

       
       
      চার্ট ২
       
      প্রাইস রিটাচ ব্যাক করেছে উপরের দিকে ওল্ড সাপোর্ট লেভেলকে টাচ করার জন্য, যেটি এখন প্রাইস ফ্লিপ পদ্ধতি অনুযায়ী নতুন রেজিস্টান্স লেভেল হিসাবে তৈরি হচ্ছে। এই ওল্ড সাপোর্ট লেভেল টাচ করলেই আপনাদের ট্রেড করা যাবেনা বা কনফার্ম হবেনা, ট্রেড প্যালেস বা লেভেল কনফার্ম হওয়ার জন্য প্রাইস ফ্লিপ লেভেলকে রিজেক্ট করতে হবে কোন প্রাইস অ্যাকশান সিগন্যাল এর দ্বারা। আশা করি বুঝতে পারছেন।

       
       
       
      চার্ট ৩
       
      এখানে দেখেন, কিভাবে পিনবার রিভারসাল করেছে নতুন প্রাইস ফ্লিপ রেজিস্টান্স এরিয়া থেকে, যা রিজেক্ট করেছে রেজিস্টান্স লেভেলকে। এই ট্রিগার সিগন্যালটি কনফার্ম করতেছে ট্রেডারদেরকে মার্কেটে এন্টার করার জন্য নিউ লেভেল থেকে। 
       

       
       
       
      একই সাথে সবগুলোকে রাখুন
       
      আপনাদের কাছে মনে হইতে পারে ভাই সবকিছুই ত বুঝলাম বাট কোন কোন সিগন্যাল আ ট্রিগার দিবো তা তো কইলেন না। প্রাইস অ্যাকশান এর সবথেকে বেশী সম্ভাবনাময় ক্যান্ডেল প্যাটার্ন গুলো নিচে দেওয়া হল। 
       

       
       
      পিনবার
       

       
       
      এংলাফ বার 
       

       
      ২ বার রিভারসাল
       
      এই সিগন্যাল গুলোর উইনিং রেশিও অনেক বেশী। আরেকটা বিষয় হল আপনারা মনে কইরেন না যে জাস্ট সিগন্যাল এর পিকচার দিলাম দেখে আর সে বিষয় ভাল মত আলোচনা করবনা, আমি প্রত্যেকটি বিষয় আলাদা আলাদা টিউটোরিয়াল করে বুঝাব, তাই রিলেক্সে থাকেন, আর খুব প্র্যাকটিস করেন।
       
      যারা যারা আমার ফ্রি কনফারেন্সের বিষয় জানেন না তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, আমি পোস্ট লেখার পাশাপাশি ধারাবাহিক ভাবে ফ্রি কনফারেন্সে করে প্রাইস অ্যাকশান শিখাই।
      তাই যারা যারা কনফারেন্সের মাধ্যমে শিখতে আগ্রহী তারা আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আমি ব্যাচ অনুযায়ী আপনাদেরকে সময় দিবো।
       
       
      স্কাইপঃ abirtorik
      মোবাইলঃ 01741660327
       
      ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন এবং নিরাপদে ট্রেড করুন

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×