Jump to content
forexnews

ফরেক্স ট্রেডারদের ফেসবুক মেসেজ চেক করে দেখা হবে

Recommended Posts

প্রথাগত ইমেইল ব্যবস্থাকে ফাঁকি দিযে ফেসবুকে ম্যাসেজিং  ব্যবহার করে তারা ভেবেছিল সবার চোখ ফাকি দেওয়া গিয়েছে। কিন্তু, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অ্যান্টি ট্রাষ্ট রেগুলেটরি কমিশনও নাছোড়বান্দা । বড় বড় ব্যাংক ও ব্রোকাররা ক্লায়েন্টদের সাথে যোগসাজশ করে মার্কেট প্রাইসকে মাঝে মাঝে ম্যানিপুলেট করার চেষ্টা করছে, এমন অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করছে অ্যান্টি ট্রাষ্ট রেগুলেটরি কমিশন।

 

বড় বড় ব্যাংক ও ব্রোকারগুলোর কিছু কিছু কর্মকর্তা গ্রাহকদের সাথে সিন্ডিকেট তৈরি করে আগেভাগেই গ্রাহকদের বড় বড় ক্লায়েন্টদের ট্রেডিং অর্ডার কোন প্রাইসে আছে, তা জানিয়ে দিচ্ছে। আর এ জন্য তারা গ্রাহকদের সাথে যোগাযোগের প্রথাগত মাধ্যম ইমেইলের পরিবর্তে ব্যবহার করছে ফেসবুক অথবা এমন ইন্সটান্স ম্যাসেঞ্জিং যেগুলোতে ম্যাসেজ একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর স্বয়ংকৃতভাবে সার্ভার থেকে মুছে যায়। তবে এ ব্যাপারটি নজরে এসেছে রেগুলেটরি কমিশনেরও। আর তাই, ব্যাংকগুলোকে তারা নির্দেশ দেযেছে, গ্রাহকদের সাথে সোশ্যাল নেটওয়ার্কসহ সমস্ত ধরনের যোগাযোগ তাদের কাছে জমা দিতে।

 

যা ঘটেছিল

 

ফরেক্স মার্কেটে বিভিন্ন সময়েই কোন কারেন্সি পেয়ারের মার্কেট প্রাইস শক্তিশালী সাপোর্ট বা রেজিস্টান্সের কাছাকাছি পৌঁছে। তখন, অধিকাংশ ট্রেডার যদি মনে করে, কারেন্সি পেয়ারটি আরো শক্তিশালী হবে, তাহলে তারা মূল বেজ কারেন্সিটি কেনা অব্যাহত রাখে, যার ফলশ্রুতিতে প্রাইস রেজিস্টান্স ব্রেক করে আরো উপরে উঠে যায়।

 

বড় বড় ট্রেডাররা কিছুটা ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে। তারা যদি মনে করে, প্রাইস  রেজিস্টান্স ব্রেক করবে, তাহলে রেজিস্টান্সের ঠিক উপরে বা কাছাকাছি তারা বাই অর্ডার দেয়, অন্যথায় সেল অর্ডার করে। বড় বড় ট্রেডার বলতে মূলত আর্থিক ব্যাংক, হেডজ ফান্ড অথবা বিলিওনিয়ার ট্রেডারদেরই বোঝায়। আর তাদের লট সাইজ সাধারণ ট্রেডারদের থেকে অনেক বেশি থাকে বলে, মার্কেট প্রাইসের উপর তাদের প্রভাবও বেশি থাকে।

 

তবে, ফরেক্স মার্কেটের আকৃতি অনেক বিশাল বলে এবং বিভিন্ন ট্রেডাররা বিভিন্ন ব্রোকারে ট্রেড করে বলে, এটা বোঝা সহজ নয়, অধিকাংশ বড় ট্রেডার বাই অর্ডার দিয়েছে নাকি সেল অর্ডার দিয়েছে। আর এটা জানা গেলে, পরবর্তী মার্কেট মুভমেন্ট কিরকম হতে পারে, তা ধারণা করা বেশ সহজ হয়ে যায়।

 

ঠিক এ কারণেই বড় বড় বেশ কিছু ফরেক্স ট্রেডার মিলে (যাদের মধ্যে স্বনামধন্য কিছু ব্যাংকও রযেছে )  বেশ কিছু ব্যাংক ও  বড় ব্রোকারের কর্মকর্তাদের নিয়ে সিন্ডিকেট গড়ে তোলে। এসব কর্মকর্তারা ফেসবুক অথবা ইনস্ট্যান্ট মেসেঞ্জারের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস মুভমেন্টের সময় আগেভাগেই অধিকাংশ বড় ট্রেডারের বাই ও সেল অর্ডার কই আছে, তা সিন্ডিকেটের সদস্যদের জানিয়ে দেয়। এভাবে, বড় বড় কয়েকটি ব্রোকারের বড় বড় ক্লায়েন্টদের ট্রেডিং অর্ডারের তথ্য সংগ্রহ করে, এই সিন্ডিকেট সহজেই ধারনা করতে পারে, পরবর্তী মার্কেট মুভমেন্ট কি হতে যাচ্ছে এবং সে অনুযায়ী তাদের ট্রেডিং অর্ডার বাস্তবায়ন করে।

 

এছাড়াও এ সিন্ডিকেটের ট্রেডাররা একই সময়ে বাই বা সেল করে মার্কেটকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছে, এমন অভিযোগও রয়েছে।

 

কঠিন পদক্ষেপ নিচ্ছে ইউরোপিয়ান অ্যান্টি ট্রাষ্ট রেগুলেটরি কমিশন

 

তবে এ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে জোরেশোরেই নেমেছে ইউরোপিয়ান অ্যান্টি ট্রাষ্ট রেগুলেটরি কমিশন। কারন এ ধরনের অবৈধ চর্চার ফলে মুক্তভাবে কোন একটি দেশের কারেন্সির মূল্যমান ব্যাহত হয় এবং দেশগুলো তাতে ক্ষতির সম্মুখীন হয়। যদিও ফরেক্স মার্কেটের আকার অত্যন্ত বিশাল হওয়ার কারনে কোন ধরনের সিন্ডিকেট দ্বারাই এ মার্কেটকে স্টক মার্কেটের মত বড় ধরনের ম্যানিপুলেশন করা সম্ভব নয়। তারপরেও সাময়িক সময়ের জন্য হলেও তা সবার জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করে না। আর সে কারনেই ইউরোপিয়ান কমিশন সম্প্রতি বিশ্বের নামকরা সব আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে রেকর্ড ১,৭ বিলিয়ন ইউরো (প্রায ১৭০০০ কোটি টাকা) জরিমানা করেছে। এই তালিকায় রয়েছে যুক্তরাজ্যের বিখ্যাত বার্কলে ব্যাংক, জার্মানির ডয়েচে ব্যাংক, আরবিএস, ইউবিএস, আরপি মার্টিন ইত্যাদি। আর তার সাথে নির্দেশ দিয়েছে সন্দেহবাজন প্রত্যেকের সাথে যোগাযোগের সমস্ত তথ্য সরবরাহ করতে। যদিও ধারনা করা হচ্ছে, ফেসবুকের অনেক ম্যাসেজই আলামত নষ্ট করার জন্য মুছে ফেলা হয়েছে। তবে ফেসবুকের সার্ভারে মুছে ফেলা মেসেজগুলো এখনো রয়ে গেছে কিনা আর থাকলেও তা ইউরোপিয়ান কমিশনকে দেয়া হবে কিনা, এ নিয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ফেসবুক কতৃপক্ষ।

 

তবে নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন আপনি। আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে নজরদারি করতে যাচ্ছে না ইউরোপিয়ান রেগুলেটরি কমিশন।

  • Love 7

Share this post


Link to post
Share on other sites

এই পুটি মাছের (আমার)ফেবু চেক করলে আমি নিশ্চিত বলতে পারি তারা হার্ট এটাক করতে পারে।

  • Love 2

Share this post


Link to post
Share on other sites

লে হালুয়া !

 

এই জন্যই তো ভাবি এতো ভালোভাবে এনালাইসিস করে ট্রেড দেয়ার পরেও সেটি স্টপ লস হিট করছে কেন?

 

শালাদের কাছ আমার এ পর্যন্ত ........ এমাউন্ট লসের ক্ষতিপূরণ আদায় করে নিতে হবে । অঙ্কটা এত বিশাল পরিমাণ যে, অামার পিছনে এনএসআই, ডিজিএফআই এইসব গোয়েন্দা লেগে যেতে পারে। তাই এমাউন্ট উল্লেখ করা সঙ্গত মনে করলাম না। তবে যথাস্থানে ঠিকই উল্লেখ করব।

  • Love 2

Share this post


Link to post
Share on other sites

আমিও দেখেছি যে সব এনালাইসিস ঠিক থাকার পরেও আমার ট্রেড ক্রমাগত লসে যাচ্ছে। এখন বুঝতে পারছি ঘটনা কী? ক্ষতি পূরণ নিতে হবে বইকি।

Share this post


Link to post
Share on other sites

Create an account or sign in to comment

You need to be a member in order to leave a comment

Create an account

Sign up for a new account in our community. It's easy!

Register a new account

লগিন

Already have an account? Sign in here.

Sign In Now

  • Similar Content

    • By fxshanto
      What’s next? – USDJPY 23.03.18
      The dollar was trading 0.28 percent lower vs the Japanese yen at 105.75 as of 04:50 GMT on Thursday, with traders preparing for a fresh batch of economic data while digesting Fed’s move. The US central bank raised its benchmark rate by 25 basis points and reinforced the idea of further monetary policy adjustments for the near future.
      The Federal Reserve rose interest rates to a range between 1.50 and 1.75 percent. The move was widely anticipated and therefore little reaction was seen following the announcement.
      The US dollar index, which measures the greenback against six major currencies, was trading 0.24 percent lower at 89.16 by the time of this writing.
      Analysts had previously warned that this monetary meeting was likely turn into a buy-the-rumor-sell-the-fact event. Investors opted to take profits after the rate hike, pushing the American currency to the downside by the end of the session.
      This monetary policy meeting has been the first one with Jerome Powell as Chair of the Federal Reserve. Overall, he remained on a hawkish side, insisting that the economy won’t overheat.
      Among different topics mentioned during his remarks, the Fed chief recognized that "a number of participants in the [FOMC] did bring up the issue of [Donald Trump’s import] tariffs"
      Investment bank Wells Fargo said it forecasts for four interest rate hikes in 2018 remains in place, as they see inflation picking up in the next few months and strong labor conditions.
      “Financial market and geopolitical uncertainties could keep gold at relatively high levels despite the strong economic growth that should favor interest rate hikes,” Desjardins Group said.
      On the data front, existing home sales for February came in at a 5.54 million rate, displaying a better-than-expected increase of 3.0 percent against a forecasted 0.5 percent.
      Ahead in the day, traders will keep an eye on initial jobless claims at 12:30 GMT and preliminary readings on the manufacturing and services PMIs for March at 13:45 GMT.
    • By masteroffx2018
      আসুন আজ আমরা জেনে এই এমন একজন কিংবদন্তী ফরেক্স ট্রেডারের সম্পর্কে, যাকে বলা হয়, “ দ্য ম্যান, যিনি ব্যাংক অব ইংল্যান্ডকে ভেঙ্গে দিয়েছেন!”
       

       
      শান্তির এই পৃথিবীতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলছে।চারিদিকে হামলা আর হামলা। ভেঙ্গে পড়েছে ইতালী ও জাপানের শাসন ব্যবস্থা। এদিকে হিটলার তার ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে শুরু করেছেন ইহুদী হত্যা। হাঙ্গেরি নামের একতি রাজ্য ছিল সেই সময় জার্মানির দখলে। আজ যা স্বাধীন হাঙ্গেরি দেশ নামে পরিচিত।
      সেসময়ের এই হাঙ্গেরী রাজ্য থেকে হিটলারের হামলার খবর পেয়ে প্রান বাচাতে নিজের দেশ ত্যাগ করলেন ছোট্ট এক বালক তার বাবাকে সাথে নিয়ে।তাদের ভয়, তারা ইহুদী। হিটলারের নাৎসি বাহিনী যদি তাদের খবর পেয়ে যায়, তবে তাদেরকেও মেরে ফেলবে!
      দীর্ঘদিন পালিয়ে বেরিয়ে, একবেলা খেয়ে না খেয়ে অবশেষে ইমিগ্রেশন নেন ইংল্যান্ডে।
      এদিকে ২য় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়ে যায়। হিটলারের শাসনেরও পতন হয়। এই বালক ও তার পরিবার আর নিজের দেশে ফিরে যান না। থেকে যান ইংল্যান্ডেই। শুরু করেন পড়াশোনা। গ্রাজুয়েশন ও পোস্ট গ্রাজুয়েশন করেন ইংল্যান্ড থেকেই ফিলসফি বিষয়ের উপরে।
      এরপর নেমে পড়েন কারেন্সী লেনদেনের ব্যবসায়।
       
      নানান চড়াই উতরাই পার হয়ে আসা এই মানুষটি আলোচনায় আসেন ১৯৯২ সালে। ১৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৯২ সালে UK Currency Crisis নিউজের উপর ফান্ডামেন্টালি এনালাইসিস করে তিনি GBP কারেন্সীর উপরের সেল ট্রেড নিয়েছিলেন এবং এই ট্রেডে তিনি ১ বিলিয়নেরও বেশি প্রফিট করে ফেলেন। যে দিনটিকে ফরেক্স এর ইতিহাসে Black Wednesday বলা হয়। আর এই মানুষটি হয়ে যান ফরেক্স এর ইতিহাসে এক অনন্য ব্যক্তিত্ব।
      মুলত তার এই ট্রেড ফরওয়ার্ড করা হয়েছিল খোদ The Bank of England এর ফান্ডে। অর্থাৎ এখানে লিকুইডিটি প্রোভাইডার হিসেবে ছিলেন এই ব্যাংকে। সুতরাং প্রফিতের পুর অর্থ এই ব্যাংককে দিতে হয়েছিল।
       
      এই ব্যক্তির নাম “জর্জ সরোস’। জর্জ সরোসের এই বিপুল পরিমানের প্রফিটের ফলে গোটা ব্যাংকিং সিস্টেম হতবাক ও থমকে গেছিল।
      এরপর থেকে জর্জ সরোসকে বলা হয়, “The Man, Who broke The bank of England”। স্বভাবতই তিনি তাইই করেছিলেন।
       
      জর্জ সরোস বর্তমানে ‘দ্য কোয়ান্টাম এন্ডোমেন্ট ফান্ড’ নামের ফান্ড ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠানের কো-ফাউন্ডার ও ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন। তার প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে ২৭ বিলিয়নেরও বেশি ফান্ড নিয়ে ট্রেড করে যাচ্ছে। তিনি ও তার প্রতিষ্ঠানটি ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিসের সাহায্য নিয়ে মুলত প্রাইস একশন ফলো করে ট্রেড করে থাকেন।
       
      আপনি যদি ফরেক্স ট্রেডার হয়ে থাকেন, তবে আপনার নিজের ট্রেডিং পেশার এসকল সফল ও কিংবদন্তী মানুষদের ব্যাপারে আপনার পরিস্কার ধারনা থাকা উচিত। তবেই আপনিও তাদের দেখানো পথ অনুসরন করতে শিখবেন। অন্যথায় পাল বিহীন ও মাঝিবিহীন নৌকা হয়ে মাঝ দরিয়ায় (ফরেক্স মার্কেট) হাবুডুবু খেয়েই যাবেন অনবরত। যতদিন না আপনার সর্ব শেষ শক্তিটুকুও (একাউন্ট ব্যালান্স) একেবারে শেষ না হচ্ছে!!
       
      সবার জন্য শুভকামনা রইল।
      অনেক অনেক ভাল থাকবেন সবাই <3 <3 <3
    • By Mohaimenul

       
      If you want to trade a currency you don’t already have, there are many ways to do so. There are numerous different kinds of arrangements you can harness to invest in currencies you don’t own. For precedent, you could trade the euro without owning it by buying or selling options that involve the currency. Call and put options on EUR/USD would provide methods to trade the common currency’s exchange rate with the U.S. dollar.
       
      Future Contracts are standardized contracts to buy or sell an instrument at a future date and at a specified price. Being traded on the stock exchange, future contracts follow a daily settlement procedure. The buyer and seller basically enter into an agreement with the exchange and not with each other.
      Purchasing future contracts seems to be an ideal way to take advantage of exchange rate inconstancies. The excellent part of it you don’t need to actively own the currency while entering into the contract. A currency future contract lets you hedge toward foreign exchange risk. You agree to exchange one currency for another at a future date but at a price fixed on the present date.
       
      Options give you the right but not the obligation to buy or sell the underlying assets. Options are primarily of two types:
      Call Option: This gives you the right to buy something at a later date at a given price.
      Put Option: This gives you the right to sell something at a later date at a given price.
      So, entering into options deal gives you a different good opportunity to earn from currency trading without holding actual currency.
       
      Price action guide is the Perfect solutions for any kind of forex traders. You can get the latest technical analysis and best trading signal.
       
      In addition, purchasing spot contracts or forward contracts involving your currency of choice would also provide exposure. The above currency derivative instruments can be easily bought and sold through the online trading platform. You just need to open a share trading account with a reliable stockbroker.
    • By Mohaimenul

      Market conditions dictate trading activity on any given day. As a reference, the average small to medium trader might trade as often as 10 times a day. Most importantly, because most Forex Brokers don't charge commission, traders can take positions as often as necessary without worrying about excessive transaction costs. 

      As a newbie, you can think of excessive trading or authority - so how many trades should be done daily? How to win those trades? The answer is both simple and complicated. The simple answer is to trade your proven strategy just as you would like to trade. However, if you are surprised at over or overriding, then you can’t be in a position to be a procedure that has proven to be profitable. First, develop yourself, or look for a strategy to aligns with how active you want to be. Price action guide will be your best option to develop yourself.
      Strategy Dictates Frequency
      A well-outlined strategy puts you exactly when to enter, and in any situation, as well as where to go for any profit or loss. As the day traders take their strategies to take their trading volume and frequency will change every day.
      You should work as a filter for how often your strategy is to trade.
      Maximum Daily Trades
      Your strategy determines how often you trade, when overtrading may occur when you take more trades than dictates your strategy. This is often a result of monotony or lack of discipline. As these trades come out of the tested strategy, they are less likely to perform well, reduce profits and increase the cost of unnecessary commissions.
      If you want to trade all day, develop the adaptation of the conditions of different market positions, as you will face changing circumstances every day, when things are more volatile, less volatile, tremendous, low, and higher volume resources and time.
       
    • By fxshanto
      স্ট্যাস্টিকস নিউজিল্যান্ড ২৩শে ফেব্রুয়ারি এমটি সময় ১১:৪৫ মিনিটে তাদের দেশের রিটেইল সেলস ঘোষণা করবে। একই সংখ্যা অন্যান্য দেশের তুলনায় পরে প্রকাশনা করা সত্ত্বেও, এটা মার্কেটে প্রবল প্রভাব ফেলে।  ফোরকাস্টের চেয়ে যদি প্রকাশিত ফলাফল ভালো হয়, তাহলে NZD এর মূল্য অন্যান্য কারেন্সির তুলনায় বাড়বে।   

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×