Jump to content
needmoney

আজকের গুরুত্বপূর্ণ খবর

Recommended Posts

00:00 US USD Fed Interest Rate Decision

Oct 31 00:00 GMT+6

 

The Board of Governors of the Federal Reserve announces an interest rate. This interest rate affects the whole range of interest rates set by commercial banks, building societies and other institutions for their own savers and borrowers. It also tends to affect the exchange rate. Generally speaking, if the Fed is hawkish about the inflationary outlook of the economy and rises the interest rates it is positive, or bullish, for the USD.

 

http://www.fxstreet.com/economic-calendar/event.aspx?id=fcfae951-09a7-449e-b6fe-525e1335aaba

Share this post


Link to post
Share on other sites
আবার পিপ খাওয়া চলবে আগের মত..................

ভাই আগামি কই দিনের মধ্যে মার্কেট ডাওন হবে হবে বলে মনে হয় মার্কেট শুদু উপরে উটচেই উটচেই ............কিচু একটা বলুন

Share this post


Link to post
Share on other sites

news post korar shata shata banglay ar bistarito and ar provab ki hota para ta ullok korar jonno needmoney vai ar dristi akorson korci.

  • Love 1

Share this post


Link to post
Share on other sites

USD High News : Unemployment Claims

 

Why Traders give it Importance Care :

 

The number of individuals who filed for unemployment insurance for the first time during the past week. Although it's generally viewed as a lagging indicator, the number of unemployed people is an important signal of overall economic health because consumer spending is highly correlated with labor-market conditions.

 

আজ ৬:৩০ রিলিজ হতে যাচ্ছে Unemployment Claims নিউজটি। তবে বর্তমান বিশ্ববাজার অর্থনীতির কিছু নিউজ আনালাইসিস করলে আমরা দেখি যে ইউএসডি কারেন্সিটি ভাল পজিসন ধরে রাখবে। বেশকিছু দিন ধরে আমরা ইউএসএ এর অর্থনীতি বিশ্লেষন করলে আমরা দেখি রিপাবলিকানরা নতুন বাজেট আটকে দেয়ায় অর্থের অভাবে ইউএসএ এর বহু সরকারি প্রতিষ্ঠান ১ অক্টোবর থেকে বন্ধ রয়েছে এবং ৭ লাখের মতো মানুষ তাতে কাজ হারিয়েছে। কিন্তু গত সপ্তাহে দেশটির কংগ্রেস অবশেষে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ঋণ চুক্তির বিলে অনুমোদন দিয়েছে। এতে করে ৭ লাখের সরকারী কর্মকর্তারা কাজে পুনরায় যোগ দেবার সুযোগ পেল। যা ইউএসডি কারেন্সিকে অন্যান্য কারেন্সি এর বিপকে ভাল পজিশনে রাখবে।

 

 

বি:দ্র: এটি কোন সিগন্যাল নয়, সেহেতু আপনারা এটি Knowledge Tool হিসেবে দেখবেন আসা করি। আর ইতোমধ্যে @Jashim002 ভাই সিগন্যাল রিলেটেট তথ্য জানতে চেয়েছেন। আর এই জন্য আমি @needmoney ভাই এর দৃষ্টি আকর্ষন করছি। যা আমাদের সবার ট্রেডিং এর জন্য খুবই ভাল হয়। কিছু ভুল হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এই আশা রইল।

  • Love 2

Share this post


Link to post
Share on other sites
এটি কোন সিগন্যাল নয়, সেহেতু আপনারা এটি Knowledge Tool হিসেবে দেখবেন আসা করি। ।

 

(y) (y) ঠিক বলেছেন। কারন এই টপিকটিতে মুলত গুরুত্বপূর্ণ খবর সংগ্রহ থাকবে। যে যার মত ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস করে নিবে। তবে নিউজ দ্বারা মার্কেটের প্রভাব সম্পর্কে যারা ভাল বুঝেন তারা এখানে অংশগ্রহন করতে পারেন।

 

** আমি ট্রেডের জন্য মূলত টেকনিক্যাল এনালাইসিস ফলো করি, নিউজ ফলো করি না।

 

** আল্লাহ চাইলে ভবিষ্যতে সকলের জন্য ভাল কিছু করার প্লানিং আছে।

:hug:

  • Love 1

Share this post


Link to post
Share on other sites

ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য আরেf একটি গুরুত্বপূর্ণ সপ্তাহ শুরু হতে যাচ্ছে

 

 

নতুন সপ্তাহটির প্রায় প্রতিদিনই গুরুত্বপূর্ণ খবর রয়েছে

বিশেষ করে যে সকল ট্রেড্রারগন নিউজ ট্রেড করে সফল হচ্ছেন তাদের জন্য অধিকগুরুত্বপূর্ন নিউজগুলির ১টি চার্ট দেয়া হলো

lvmbaKC.png

 

 

** উপরের নিউজগুলি ছাড়াও এর চেয়ে ৩ গুন নিউজ রয়েছে এই সপ্তাহে।

** এছাড়া প্রায় প্রতিদিন সকালে জাপানিজ পেয়ারগুলিতে ও বিকালে জিবিপি তে ভাল মুভমেন্ট হতে পারে।

** নিউজ এর সময়ে টেকনিক্যাল এনালাইসিস ফলো করলে সফলতার হার বেড়ে যাবে।

<> > < <>

:party:স্কালপিং উইক <> > < <>

 

 

>>নিউজ ট্রেডিং নিয়ে আলোচনা, সমালোচনায় আপনি ১টি ভোট দিন <<

  • Love 3

Share this post


Link to post
Share on other sites

:analyzing:USD High News : Pending Home Sales :analyzing:

1380070_231231567045095_1682476804_n.jpg

 

Why Traders Care :

 

Tracks residential housing contract activity of existing single-family homes. The Pending Home Sales report is an advanced read on trends in the US housing market. Housing is typically correlated to the overall state of the economy; particularly indicative of economic turning points. A sharp drop in housing demand typically acts as a warning signal of economic slowdown as buyers are reluctant to purchase houses when interest rates are high, disposable income is low, or consumer confidence is low. Conversely, a rebound in the housing market is often a leading indicator of an economic recovery. The report headline is expressed in percentage change in pending home sales from previous month.

 

টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস :

 

আসুন এই নিউজের গত কিছু এফেক্ট দেখা যাক। গত সেপ্টেম্বর মাস এ Previous ছিল -১.৪%, Forecast ছিল -০.৯% এবং Actual ছিল -১.৬% যা ইউএসডি নিউজ এ নেগেটিভ রেজাল্ট দেখাচ্ছে। আগষ্ট মাস এ Previous ছিল -০.৪%, Forecast ছিল ০.২% এবং Actual ছিল -১.৩% যা ইউএসডি নিউজ এ নেগেটিভ রেজাল্ট দেখাচ্ছে। জুলাই এ Previous ছিল ৫.৮%, Forecast ছিল -১.১% এবং Actual ছিল -০.৪% যা ইউএসডি নিউজ এ পজেটিভ রেজাল্ট দেখাচ্ছে। জুন মাস এ Previous ছিল -০.৫%, Forecast ছিল ১.১% এবং Actual ছিল ৬.৭% যা ইউএসডি নিউজ এ পজেটিভ রেজাল্ট দেখাচ্ছে। মে মাস এ Previous ছিল ১.৫%, Forecast ছিল ১.৩%এবং Actual ছিল ০.৩% যা ইউএসডি নিউজ এ নেগেটিভ রেজাল্ট দেখাচ্ছে।

 

লক্ষ্য করলে একটি বিষয় দেখা যায় ইউএসএ এর অর্থনীতিতে খারাপ সময় আসার সাথে সাথে এই নিউজটি নেগেটিভ রেজাল্ট প্রকাশ করেছে গত সেপ্টেম্বর ও আগষ্ট মাসে। যেহেতু সাময়িকভাবে ইউএসএ এর অর্থনীতেতে কিছুটা ভাল সময় এসেছে সেহেতু আমরা আশা করতে পারি এই নিউজটি পজেটিভ আসার সম্ভাবনা আছে আগামীকাল। তবে আমি বলেছি "সাময়িকভাবে ইউএসএ এর অর্থনীতেতে ভাল সময়" হয়তবা এই নিউজটিকে তেমন জোরালো হাওয়া নাও দিতে পারে। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি নিউজ আসার আগে কোন সিদ্ধান্ত না নিয়ে, নিউজ পরবর্তি রেজাল্ট নির্ভর ট্রেডিং সিদ্ধান্ত আমাদের ভাল প্রফিট দিবে।

 

বি:দ্র: এটি কোন সিগন্যাল নয়, সেহেতু আপনারা এটিকে Knowledge Tool হিসেবে দেখবেন আসা করি। কিছু ভুল হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এই আশা রইল কারণ আমিও আপনাদের মত একজন সাধারণ ট্রেডির যে সবসময় শিক্ষার চেষ্টা করছি। সবার ট্রেডিং এর জন্য সুব কামনা রইল।

  • Love 1

Share this post


Link to post
Share on other sites

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যর্থতা বিশ্বকে মন্দার মুখে ঠেলে দেবে

 

 

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আই-এমএফ) প্রধান ক্রিস্টিন ল্যাগার্দে বলেছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ-নৈতিক ব্যর্থতা বিশ্বকে মন্দার মুখে ঠেলে দেবে।

এক টিভি সাক্ষাৎকারে তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের ব্যর্থতার কারণে বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ সমস্যা সৃষ্টি হবে।’ তাঁর মতে, যুক্তরাষ্ট্র কঠোরভাবে ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করলে তা বিশ্ব অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়াকে ঝুঁকির মুখে ঠেলে দেবে।

যুক্তরাষ্ট্র যদি ঋণ গ্রহণের ঊর্ধ্বসীমা নির্ধারণ করতে না পারে, তাহলে দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার থেকে তহবিল সংকটের মুখে পড়তে শুরু করবে।

দেশটির সরকারি ও বিরোধীদল ঋণ গ্রহণের সীমা বাড়ানোর বিষয়ে একমত হতে পারেনি।

 

সূত্র: এএফপি।

Share this post


Link to post
Share on other sites

যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ির দাম সাত বছরের সর্বোচ্চ

 

যুক্তরাষ্ট্রে গত জুলাই মাসে বাড়ির দাম ১২ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়েছে। দেশটিতে ২০০৬ সাল-পরবর্তী সাত বছরের মধ্যে এটিই হলো বাড়ির দামে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি।

এসঅ্যান্ডপি/কেইস-শিল্লার হোম প্রাইস ইনডেক্স বা সূচকে যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ির দাম বৃদ্ধি পাওয়ার এই তথ্য উঠে এসেছে। এই সূচকে দেশটির ২০টি শহরের একক পরিবার বসবাস করে, এমন বাড়ির দাম নিয়ে জরিপ চালিয়ে সূচকটি তৈরি করা হয়েছে। এতে দেখা গেছে, ১৩টি শহরেই বাড়ির দাম বেড়েছে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ দেশের অর্থনীতিকে চাঙা করে তোলার লক্ষ্যে প্রতি মাসে সাড়ে আট হাজার কোটি ডলারের সম্পদ ক্রয়ের সিদ্ধান্ত নেয় গত সপ্তাহে। ২০০৮ সালের দিকে বন্ধকি ঋণের সংকটের কারণে দেশটিতে বাড়ির দামে রেকর্ড পতনের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরে তা বাড়ানোর পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

মাসিক হিসাবে অবশ্য জুনের চেয়ে জুলাইয়ে দেশটিতে বাড়ির দাম শূন্য দশমিক ৬ শতাংশ বেড়েছে।

বার্ষিক হিসাবে বাড়ির দাম সর্বোচ্চ ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে লাসভেগাস শহরে। অন্য শহরগুলোর মধ্যে সান ফ্রান্সিসকো, লস এঞ্জেলেস ও সান ডিয়েগোতে ২০ শতাংশের বেশি বেড়েছে।

 

সূত্র: বিবিসি।

Share this post


Link to post
Share on other sites

বিস্ময়কর ও স্ববিরোধীভাবে সম্পদের মূল্য নির্ধারণ হয়

অর্থনীতিতে নোবেল তিন আমেরিকানের

1378572_231693053665613_1109622606_n.png

 

অর্থনীতিতে নোবেল মানেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই সত্য প্রতিষ্ঠিত হলো আরেকবার যখন তিনজন মার্কিন অর্থনীতিবিদের নাম গতকাল সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করল রয়েল সুইডিশ একাডেমি অব সায়েন্স।

এ বছর অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের লারস পিটার হ্যানসেন (৬১) ও ইউজেনে ফেমা (৭৪) এবং ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের রবার্ট শিলার (৬৭)। তাঁদের বাজারে সম্পদের মূল্যের প্রবণতা নিয়ে নিবিড়ভাবে কাজ করার জন্য নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

নোবেল কমিটি বলেছে, ‘এঁরা তিনজন সম্পদের মূল্যের প্রবণতা বোঝার জন্য ভিত্তি রচনা করেছেন। এটা ঝুঁকি ও ঝুঁকি বৃদ্ধির প্রবণতা এবং আংশিকভাবে ব্যবহারজনিত পক্ষপাত ও বাজার সংঘাতের ওপর নির্ভরশীল।’

সহজ ভাষায় বললে, এই অর্থনীতিবিদেরা স্টক ও বন্ডের মতো সম্পদেরও মূল্য নিয়ে কাজ করেছেন এবং দেখিয়েছেন যে বিশ্ব অর্থনীতি এখনো আর্থিক বাজারের সংকট থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি।

এই তিনজনের কাজের মধ্যে বেরিয়ে এসেছে স্বল্প মেয়াদে স্টক ও বন্ডের এবং অন্যান্য সম্পদের মূল্য নির্ধারণের জটিলতার বিষয়টি যা একাধারে ‘বিস্ময়কর ও স্ববিরোধী’।

নোবেল বিজয়ী এই তিন অর্থনীতিবিদ দেখিয়েছেন যে আগামী কয়েক দিন বা কয়েক সপ্তাহ স্টক ও বন্ডের বাজারদর কী হবে, তার পূর্বাভাস দেওয়ার কোনো উপায় নেই। তবে দীর্ঘ মেয়াদে যেমন তিন থেকে পাঁচ বছরে দামদর কোন দিকে যেতে পারে, তা আগে থেকে বোঝা সম্ভব।

অবশ্য নোবেলপ্রাপ্তির ঘোষণা শুনে রবার্ট শিলার তা বিশ্বাস করতে চাননি। তিনি বলেন, ‘অনেকেই আমাকে বলেছেন যে আমি নোবেল পুরস্কার পেতে পারি। তবে আমি সব সময়ই মনে করেছি যে আমার চেয়ে অনেক যোগ্য লোক আছেন। তাই এটা আমার কাছে অবিশ্বাস্যই মনে হচ্ছে।’

অর্থাৎ সারা জীবন অর্থনীতির পূর্বাভাস নিয়ে কাজ করা ব্যক্তিটিই নিজের বিষয়ে পূর্বাভাস করতে পারেননি। তিনি আশির দশকেই গবেষণা করে দেখান যে কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশের তুলনায় শেয়ারের দরের উত্থানপতন বেশি ঘটে।

তার চেয়ে বড় কথা, ২০০৭-০৮ সালে আমেরিকায় সৃষ্ট আর্থিক সংকট সম্পর্কে যে গুটি কয়েক অর্থনীতিবিদ আগে থেকে পূর্বাভাস দিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন রবার্ট শিলার। যদিও এই পূর্বাভাস অনেক সুস্পষ্টভাবে দেওয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি নাম এসেছে নুরিয়েল রুবিনির।

শিলার ২০০০ সালে ইররেশনাল একজিউবারেনস (অযৌক্তিক প্রাচুর্য) নামে যে বইটি রচনা করেন, তাতে সুস্পষ্টভাবে আমেরিকার শেয়ারবাজারের অস্বাভাবিক স্ফীতির পূর্বাভাস দেওয়া হয়। ২০০৫ সালে দ্বিতীয় সংস্করণে শিলার বলেন যে আমেরিকার গৃহায়ণ খাত ‘বিপজ্জনকভাবে অতিমূল্যায়িত’ হয়ে পড়েছে।

জর্জ অ্যাকেরলফের সঙ্গে মিলে শিলারের আরেকটি বই লিখেন, যার নাম এনিমেল স্পিরিট (জৈবিক প্রফুল্লতা)। এতে দেখানো হয় যে কীভাবে মানুষের মনস্তত্ত্ব অর্থনীতিতে তাড়িত করে এবং তা কীভাবে বিশ্বায়িত পুঁজিবাদের সঙ্গে সম্পর্কিত।

লারস পিটার হ্যানসেন সম্পদের মূল্য নির্ধারণের তত্ত্বগুলো পরীক্ষা করার জন্য একটি পরিসংখ্যান মডেল তৈরি করেন।

ফামা, হ্যানসেন ও শিলার যৌথভাবে পুরস্কারের ১২ লাখ ডলার যৌথভাবে ভাগ করে নেবেন।

অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার অবশ্য আলফ্রেড নোবেলের উইলে উল্লেখ ছিল না। তাই এটাকে প্রকৃতপক্ষে নোবেল পুরস্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয় না। বরং ১৯৬৮ সালে সুইডিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক এই পুরস্কার চালু করে। ১৯৬৯ সালে প্রথম অর্থনীতিতে নোবেল দেওয়া হয়। এটা আনুষ্ঠানিভাবে ‘আলফ্রেড নোবেলে স্মরণে অর্থনীতিতে সেভরিগস রিজব্যাংক পুরস্কার’ নামে অভিহিত। মূল নোবেল দেওয়া হয় পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, চিকিৎসা, সাহিত্য ও শান্তিতে।

 

সূত্র: এএফপি ও বিবিসি।

Share this post


Link to post
Share on other sites

'No More Upside' In EUR/USD: 4 Reasons - Nordea

 

 

The USD has taken a beating over the past few weeks as the market focus has switched from the government shutdown perils to the “bad news is good news”, notes Nordea markets.

 

In the short term, however, we expect the USD to gain ground...The longer EURUSD hovers around yearly highs, the more risk to the downside ultimately Nordea projects.

 

Nordea outlines 4 main reasons behind this call:

 

First: The market expectations of tapering have been postponed to March – and even later – which can be changed by a few better macro figures from the US. (Nordea's economists still call for a January taper.) The weaker payrolls in September may still be revised as they used to in previous years.

 

Second: Various short-term indicator models suggest that the EURUSD has overshot.

 

Third: The ECB does not care about the broad USD weakness, which we have seen during September and the first half of October. But the moment it becomes generalized EUR strength, it does become a worry for the ECB. We have seen the EUR firm against several other major currencies over the past week.

 

Fourth: Excess liquidity in the Euro system has now fallen to below EUR 200bn, increasing the risks of at least talk from the ECB’s side.

 

 

 

সূত্র: ইফএক্সনিউজ

Share this post


Link to post
Share on other sites

ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য আরো একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সপ্তাহ শুরু হতে যাচ্ছে

 

 

 

>একসাথে পুরো সপ্তাহের সকল নিউজের সময় ও লিষ্ট >ফরেক্স ফ্যাক্টরী<

  • Love 1

Share this post


Link to post
Share on other sites

Outlooks & Strategies For EUR/USD, USD/JPY, & AUD/USD

 

 

The following are the latest outlooks and strategies for EUR/USD, GBP/USD, USD/JPY, and AUD/USD

 

EUR/USD: headed higher on the back of positive risk sentiment and bids in yen crosses. We still prefer to be short but recommend caution ahead of Draghi as the market seems to be expecting too much for him to deliver. We are on the sidelines now and will only get back into short near 1.3580-00. We expect some pain above 1.3550. Support should hold at 1.3450.

 

 

USD/JPY: headed into the 90.90 resistance zone on the back of bids in yen crosses. The pair remains rangebound, looking bid at the top and offered at the bottom. Stay short ahead of 99.00 and rethink in case of a break.

 

AUD/USD: price action looks constructive with a short-term uptrend line forming around 0.9490 on the hourly chart. We remain long with a tight stop at 0.9480. Only a break of yesterday's high will maintain the upside momentum. The first pivot is 0.9540, a break of which will create room up to 0.9600.

Share this post


Link to post
Share on other sites

USD and CAD High Effect News Info

 

অনেক দিন পরে BDpips এ আসা হল, আশা করি সবার ট্রেডিং অনেক ভাল যাচ্ছে। প্রতি মাসের মত আজ সন্ধ্যা ৭:৩০ প্রকাশ হতে যাচ্ছে কিছু হাই ইউএসডি নিউজ Non-Farm Employment ChangeUnemployment Rate। এর সাথে আছে কেড এর হাই নিউজ Employment Change Unemployment Rate। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি আজ USD/CAD পেয়ার এ ট্রেডিং না করা সাধারণ ট্রেডারদের জন্য ভাল হবে। এই পেয়ারটি আজ উপরে ও নিচে দুই পাশে ভাল মোভ শো করতে পারে। ভাল নিউজ ট্রেডার হলে আজ আপনি এই পেয়ার থেকে অনেক প্রফিট আশা করতে পারেন।

 

USD High News :

 

USD Change in Non-farm Payrolls

 

Monthly change in employment excluding the farming sector. Non-farm payrolls is the most closely watched indicator in the Employment Situation, considered the most comprehensive measure of job creation in the US. Such a distinction makes the NFP figure highly significant, given the importance of labor to the US economy. Specifically, political pressures come into play, as the Fed is responsible for keeping employment in a healthy range and utilizes interest rate changes to do so. A surge in new Non-farm Payrolls suggests rising employment and potential inflation pressures, which the Fed often counters with rate increases. On the other hand, a consistent decline in Non-farm Employment suggests a slowing economy, which makes a decline in rates more likely.

 

USD Unemployment Rate

 

The US Unemployment Rate reflects the percentage of people considered unemployed in the United States. Unemployment is the single most popularly used figure to give a snapshot of US labor market conditions. Because the Federal Reserve is under strict pressure to keep unemployment under control, high unemployment puts downward pressure on interest rates, as the Fed will look to bolster the economy to remedy the employment situation. More generally, unemployment is indicative of the economy's production, private consumption, workers' earnings, and consumer sentiment. A lower unemployment rate translates into more employed individuals with paychecks, which leads to higher consumer spending, economic growth and potential inflationary pressures. Conversely, high levels of unemployment are connected with lower incomes, lower spending, and economic stagnation

 

CAD High News :

 

Employment Change

 

The net change in the number of people employed in Canada . Increases in employment are generally accompanied by higher consumption and expenditure levels. At the same time, higher employment, consumption and expenditures may lead to heightened inflationary pressures that encourage central banks to tighten monetary policy. If the Bank of Canada were to raise interest rates, it would put upward pressure on the Canadian dollar. Because this is the main employment report in Canada it tends to have significant impact on the market. The headline figure is the change in employment in thousands.

 

Unemployment Rate

 

The percentage of people in the total - labor force without jobs but willing to work and are actively seeking employment. Lower unemployment bodes well for the economy, translating into more income-earning workers and greater consumption. While such increased expenditure accelerates economic growth, it can also heighten inflationary pressures. On the other hand, a higher unemployment rate tends to lead to lower consumer spending and a contracting economy. The Unemployment Rate is one of the most watch headline indicators of Canada 's labour market.

 

মনে রাখবেন আমি এইখানে শুধু নিউজ এর তথ্য গুলো উপস্হাপন করেছি। এখন আপনাদের নিউজের রেজাল্ট দেখে ট্রেডিং শুরু করা ভাল হবে। প্রতি NFP তে অনেক ট্রেডার চান তাদের এক্যাউন্ট এর ব্যালেন্স দিগুন করার কিন্তু ৯৫% ট্রেডার মনে হয় ব্যালেন্স ০০/শূন্য করে ফেলেন। আপনি যদি ভাল নিউজ ট্রেডার না হোন তবে রিয়াল এক্যাউন্ট এ NFP নিউজ ট্রেডিং না করা ভাল। এই জন্য ডেমো অথবা কনস্টেস এক্যাউন্ট ব্যবহার করা উত্তম। সবার ট্রেডিং এর জন্য শুভ কামনা রইল, Trend follow করার চেষ্টা করেন তাইলে সবাই কিছু না কিছু প্রফিট অবশ্যই করতে পারবেন।

caution_newstrade.png

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণঃ অত্যাধিক ঝুঁকি নিয়ে নিউজ ট্রেড করা অসংখ্য ট্রেডিং অ্যাকাউন্টের অকাল মৃত্যুর অন্যতম কারণ।

  • Love 1

Share this post


Link to post
Share on other sites

ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য নতুন একটি সপ্তাহ শুরু হতে যাচ্ছে। ট্রেড ওপেন করার জন্য তাড়াহুড়া করবেন না, ভাল ট্রেড কনফার্ম হয়ে ওপেন করবেন । যে ধরনের এন্ট্রি পয়েন্টে আপনি ট্রেড করলে প্রফিট পেয়ে থাকেন ধৈর্য্য ধরে শুধু মাত্র সেই ভাল এন্ট্রি পয়েন্টে ট্রেড ওপেন করার জন্য বড়শী নিয়ে মাছ ধরার মত করে চুপচাপ অপেক্ষা করবেন ।

 

 

পুরো সপ্তাহের গুরুত্বপূর্ণ খবরের তালিকা

  • Love 1

Share this post


Link to post
Share on other sites

Create an account or sign in to comment

You need to be a member in order to leave a comment

Create an account

Sign up for a new account in our community. It's easy!

Register a new account

লগিন

Already have an account? Sign in here.

Sign In Now

  • Similar Content

    • By fxshanto
      What’s next? – USDJPY 23.03.18
      The dollar was trading 0.28 percent lower vs the Japanese yen at 105.75 as of 04:50 GMT on Thursday, with traders preparing for a fresh batch of economic data while digesting Fed’s move. The US central bank raised its benchmark rate by 25 basis points and reinforced the idea of further monetary policy adjustments for the near future.
      The Federal Reserve rose interest rates to a range between 1.50 and 1.75 percent. The move was widely anticipated and therefore little reaction was seen following the announcement.
      The US dollar index, which measures the greenback against six major currencies, was trading 0.24 percent lower at 89.16 by the time of this writing.
      Analysts had previously warned that this monetary meeting was likely turn into a buy-the-rumor-sell-the-fact event. Investors opted to take profits after the rate hike, pushing the American currency to the downside by the end of the session.
      This monetary policy meeting has been the first one with Jerome Powell as Chair of the Federal Reserve. Overall, he remained on a hawkish side, insisting that the economy won’t overheat.
      Among different topics mentioned during his remarks, the Fed chief recognized that "a number of participants in the [FOMC] did bring up the issue of [Donald Trump’s import] tariffs"
      Investment bank Wells Fargo said it forecasts for four interest rate hikes in 2018 remains in place, as they see inflation picking up in the next few months and strong labor conditions.
      “Financial market and geopolitical uncertainties could keep gold at relatively high levels despite the strong economic growth that should favor interest rate hikes,” Desjardins Group said.
      On the data front, existing home sales for February came in at a 5.54 million rate, displaying a better-than-expected increase of 3.0 percent against a forecasted 0.5 percent.
      Ahead in the day, traders will keep an eye on initial jobless claims at 12:30 GMT and preliminary readings on the manufacturing and services PMIs for March at 13:45 GMT.
    • By masteroffx2018
        USA এর ট্রাম্প সরকার নানা দিক দিয়ে ইরানের উপরে আরও অবরোধ বাড়াতে চায়। মধ্যপ্রাচ্যে তাদের একমাত্র হুমকী ইরান বলেই মনে করে তারা।   এদিকে এমন পরিস্থিতির মুখেই ইরাক সরাসরি ঘোষনা দিয়েছে তারা ইরানের উপর আমেরিকার কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দেবে না। রাশিয়াও গত পরশু কাস্পিয়ান সাগর ব্যবহার করে তাদের বানিজ্য প্রসারে ইরানের সাহায্য নেবে মর্মে চুক্তিও করে ফেলেছে। এটিও ট্রাম্প সরকারের উপরে চাপ ফেলেছে প্রচুর পরিমানে। এদিকে ইরান তাদের বানিজ্যিক চুক্তি বাড়িয়ে পাকিস্তানের সাথেও গতকাল বৈঠক করে ফেলেছে। উভয় দেশ সকল বৈরিতা মোকাবেলায় একে অপরের পাশে থাকবে বলে সম্মতিও হয়েছে!!   অন্যদিকে ট্রাম্প সরকার তার দেশে চায়নিজ পন্যের শুল্ক কয়েকগুন বৃদ্ধি করার মৌন প্রতিশোধ হিসেবে চিনও ঘোষনা দিয়েছে, তারা ইরানের উপর আর কোন অবরোধ দেখতে চায় না।   আমেরিকার বন্ধুরাষ্ট জার্মানির এঞ্জেলা মার্কেলও ঘোষনা দিয়েছে তারা ইরানের উপরে আমেরিকার অবরোধ আরোপের চিন্তাকে সমর্থন করেনা।তারা আলোচনা করে সমস্যা সমাধানের পক্ষে।   এতোসব ঘটনার মাঝে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা, আয়াতুল্লাহ খোমেনী প্রকাশ্যে ঘোষনা দিয়েছে, আমেরিকার সাথে এবার যদি তাদের নুন্যতম কোন যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি হয়,তবে তারা কোন আলোচনার চিন্তাও করবেনা। সরাসরি আক্রমন করা শুরু করে দেবে।আর তার উপরে একটি ক্ষেপনাস্ত্রের জবাব তারা ১০ টি ক্ষেপনাস্ত্র দিয়ে দেবে।   এতসবের প্রেক্ষিতে ট্রাম্প সরকার বর্তমানে বুদ্ধিবৃত্তিমুলক সমস্যায় ভুগছেন। তার কোন সিদ্ধান্তই সঠিকভাবে কাজ করছে না। পায়ের নিচে থাকা ইরাকও আজ মুখের উপর কথা বলছে, আফগান সিরিয়ায় চরম বিপর্যয়ের পর বর্তমানে সারা বিশ্ব থেকে এমন চোখ রাঙ্গানী, সব কিছু মিলিয়ে USD এর মুল্যমান চরম অস্থিতিশীল অবস্থায় সময় পার করছে।   আর তাই ইউএস ডলারের দুর্বল হবার আশংকাই অনেক বেশি হয়ে দেখিয়েছে।যা ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে কিছু কিছু কারেন্সী পেয়ারে। তবে ট্রাম্প সরকার গুরুত্বপুর্ন কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারলেই কেবল এমন সংকটময় অবস্থা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এখন দেখার পালা, কেমন পদক্ষেপ নেয় ট্রাম্প সরকার নিজেদের অবস্থান শক্তপোক্ত করতে।   সবাইকে আন্তর্জাতিক নিউজ সম্পর্কে ধারনা রাখার জন্য অনুরোধ করা হল, কারন এসব নিউজের ইফেক্ট আপনাকে নিমিষেই আপনার সকল টেকনিক্যাল এনালাইসিসকে বোকা বানিয়ে আপনাকে লুজার বানিয়ে দিতে পারে, আবার যদি ভালভাবে নিউজ ধরে ধরে ট্রেড করতে পারেন, তবে নিয়মিত ও ভালভাবে প্রফিটও করে যেতে পারেন অনায়াসে।   সকলের জন্য শুভকামনা রইল <3 <3 <3   Trade with real ECN broker: 
    • By তানভীর™
      নিয়মিত ট্রেড করে থাকলে পাউন্ড যে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় কারেন্সি, তা আর আপনার অজানা থাকার কথা না। নিয়মিত ট্রেড করতে গিয়ে কম-বেশি প্রত্যেক ট্রেডারই উপলব্ধি করেছেন যে, পাউন্ড সম্পর্কিত প্রায় সবগুলো কারেন্সিই বেশ ভোলাটাইল, অর্থাৎ হুটহাট মার্কেটে প্রচুর পরিমান প্রাইস পরিবর্তনে সক্ষম। ফরেক্স ট্রেড করতে গেলে পাউন্ড সম্পর্কে প্রতিটি ট্রেডারের কি কি জানা উচিত, তা নিয়ে বিডিপিপসে একটি বিস্তারিত লেখা রয়েছে। আজকে আমরা জানবো কোন ৫ ধরনের নিউজ রিপোর্ট পাউন্ডকে অর্থাৎ পাউন্ড সম্পর্কিত পেয়ারগুলোকে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করে।

      পাউন্ডের বিপুল জনপ্রিয়তার জন্য প্রায় প্রতিটি ফরেক্স ট্রেডারই ডলারের পাশাপাশি পাউন্ডের পেয়ারগুলো দিয়ে তাদের ফরেক্স ট্রেডিং শুরু করে। যেসব ট্রেডার ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস করে ট্রেড করে, অর্থাৎ ট্রেডিংয়ের সময় অর্থনৈতিক রিপোর্টসমূহ এবং ডাটা রিপোর্টগুলোকে বিবেচনায় রাখে, তারা কোন নিউজ রিপোর্টগুলো পাউন্ডকে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করে, তা জানতে পারলে তাদের ট্রেডিংয়ে উপকৃত হবে এবং সেসব বিষয়ে অতিরিক্ত নজর দিতে পারবে। এই লেখায় সেরকমই কিছু গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক রিপোর্ট সম্পর্কে আলোচনা করা হবে যা নতুন এবং পুরাতন ২ রকম ট্রেডারদেরই সাহায্য করবে পাউন্ড ট্রেডিংয়ে ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিসের বিষয়গুলোকে আরও ভালভাবে বুঝতে।
      ৫টি প্রধান অর্থনৈতিক ইন্ডিকেটর
      শুরু  করার আগে এটুকু জানা জরুরী যে, পৃথিবীর প্রায় সবগুলো দেশের কারেন্সিগুলোই মূলত সাধারণ কিছু বিষয় দ্বারা প্রভাবিত হয়ে থাকে। একই  বিষয়গুলো কম-বেশি তাদের দুর্বল বা শক্তিশালী হতে সাহায্য করে। বিশেষ  করে ৫টি বিষয়ে এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি মিল পাওয়া যায় এবং এরাই সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করে সেই কারেন্সিটিকে।  পাউন্ডও তার ব্যাতিক্রম নয়। আর্থিক নীতিমালা (Monetary Policy), মুদ্রাস্ফিতি (Inflation), কনজিউমার কনফিডেন্স ও সেন্টিমেন্ট, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি (GDP), ব্যালেন্স অফ পেমেন্ট এই বিষয়গুলো সবচেয়ে বেশি প্রভাব রাখে। এই ৫ ধরণের রিপোর্ট বিবেচনায় রাখলেই আপনি বুঝতে পারবেন কোন রিপোর্টগুলো একক বা সম্মিলিতভাবে যেকোনো কারেন্সিকে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করতে যাচ্ছে। চলুন জানা যাক এ বিষয়গুলো পাউন্ডকে কিভাবে প্রভাবিত করে।
      ১. মুদ্রাস্ফীতি (Inflation)
      যে রিপোর্টগুলোকে বিবেচনায় রাখতে হবেঃ CPI, PPI
      পাউন্ডের মুল্যায়নের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর একটি হল মুদ্রাস্ফীতি। সাধারণভাবে, যেসব দেশের মুদ্রাস্ফীতি বেশি, সেসব দেশের মুদ্রার মান অন্য দেশের মুদ্রার তুলনায় দুর্বল হয়ে যায়। মুদ্রাস্ফীতি বাড়লে বা কমলে সে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের  জন্য উদ্যোগ নিয়ে থাকে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কেন্দ্রীয় ব্যাংক  অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে সুদের হার বা ইন্টারেস্ট রেট পরিবর্তন করে থাকে।
      কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স (CPI) এই রিপোর্টটি কিন্তু ইউকের মুদ্রাস্ফীতির মাত্রা জানার অন্যতম একটি নির্ণায়ক হিসেবে বিবেচিত হয়। তাই ট্রেডাররাই এই CPI রিপোর্টটির ওপর বেশ নজর রাখেন এবং গুরুত্বের সাথেই নিয়ে থাকেন। ব্রিটেনের অফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিক্স এই রিপোর্টটি প্রকাশ করে। কোন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ভোক্তা বা ক্রেতারা (consumer) কি পরিমান দামের পন্য বা সেবা কিনছে, তার পার্থক্য এই CPI রিপোর্টের মাধ্যমে নির্ণয় করা হয়। এ রিপোর্টটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড (BoE) এ রিপোর্টটি বিবেচনা করে মুদ্রাস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে থাকে। তাই CPI তে কোন নতুন পরিবর্তন এলে তা যদি ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের বর্তমান লক্ষ্যমাত্রার থেকে আলাদা হয়, তবে আশা করা যায় যে তা ভবিষ্যতে BoE এর আর্থিক নীতিমালায় পরিবর্তন আনবে, যা কিনা পাউন্ডকে তাৎপর্যপূর্ণভাবে প্রভাবিত করতে পারে।
      যদিও কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স মুদ্রাস্ফীতির মাত্রা নির্ধারণে ভুমিকা রাখে, পাশাপাশি প্রডিউসার প্রাইস ইনডেক্স (PPI) ও এক্ষেত্রে কিছু ভুমিকা রাখে। PPI কে অনেকেই মুদ্রাস্ফীতির নির্ণায়ক হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ইন্ডিকেটর হিসেবে বিবেচনা করেন। একদম কাঁচামালের পর্যায় থেকেই মুদ্রাস্ফীতি সংক্রান্ত পরিবর্তনগুলো এ রিপোর্টে ধরা পরে, যা কিনা পরবর্তীতে CPI কে প্রভাবিত করে। আর যেহুতু PPI রিপোর্টটি CPI এর আগেই প্রকাশিত হয়, তাই মুদ্রাস্ফীতি সংক্রান্ত সম্পূর্ণ ধারনা পেতে CPI এবং PPI দুটিকেই বিবেচনায় রাখতে হবে।
      ২. আর্থিক নীতিমালা (Monetary Policy)
      যে রিপোর্টগুলোকে বিবেচনায় রাখতে হবেঃ  Bank Interest Rate, BoE Inflation Report
      পাউন্ডের ভবিষ্যৎ বিবেচনায় ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের মনেটারী পলিসি বা আর্থিক নীতিমালাগুলোকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা প্রয়োজন। ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের অন্যতম প্রধান আর্থিক লক্ষ্য হল মুদ্রাস্ফীতির মাত্রা কমের মধ্যে রাখা এবং পাউন্ডের কনফিডেন্স বজায় রাখা। তাই যখনই কেন্দ্রীয় ব্যাংক মনে করে পাউন্ডের মুদ্রাস্ফীতি এমন পর্যায়ে চলে যাচ্ছে যা পাউন্ডের স্থিতিশীলতার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ, ঠিক তখনই BoE বিভিন্ন আর্থিক নীতিমালা আরোপ করে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রন করার চেষ্টা করে। ট্রেডাররা এসব আর্থিক নীতিমালা বা মনেটারী পলিসি, যেমন - ইন্টারেস্ট রেট কখন বা কি পরিমাণে পরিবর্তন হবে সেসব অনুমান করার চেষ্টা করে।
      এই আর্থিক নীতিমালাগুলো সম্পর্কে অবগত থাকতে ট্রেডাররা ব্যাংক রেটের যেকোনো পরিবর্তন অনুসরণ করে। ব্যাংক রেট হল যে ইন্টারেস্ট রেটে কেন্দ্রীয় ব্যাংক BoE অন্যান্য ব্যাংকগুলোকে চার্জ করে। এই রেট সম্পর্কে সিদ্ধান্ত হয় Monetary Policy Committee (MPC) এর একটি মাসিক মিটিংয়ে। আপনি নিয়মিত ফরেক্স ক্যালেন্ডার অনুসরণ করলেই মাঝে মাঝে MPC Meeting নামে বা এরকম কিছু ইভেন্ট দেখতে পারবেন। প্রতি মাসে অনুষ্ঠিত এ মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত এবং ব্যাংক রেট ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। তবে যদি MPC আগের রেটই বজায় রাখে, তবে আর এ সংক্রান্ত কোন আলোচনা হয় না। কিন্তু যদি মনেটারি পলিসি কমিটি (MPC) ব্যাংক রেটে কোন পরিবর্তন আনে, তবে তারা এ সংক্রান্ত একটি স্টেটমেন্ট বা বিবরণী প্রকাশ করে। সাধারণত ট্রেডাররা এই স্টেট্মেন্টকে গুরুত্বের সাথে নিয়ে থাকে, কারণ বেশিরভাগ সময় এ বিবরণী থেকে ভবিষ্যতে পাউন্ড কোনদিকে যেতে পারে সে সম্পর্কে ধারনা পাওয়া যায়।
      ১ম পর্বে আলচনাকরা হল মুদ্রাস্ফীতি (Inflation) এবং আর্থিক নীতিমালা (Monetary Policy) নিয়ে। ২য় পর্বে আলোচনা করা হবে বাকি ৩টি প্রধান অর্থনৈতিক ইন্ডিকেটর কনজিউমার কনফিডেন্স ও সেন্টিমেন্ট, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি (GDP) এবং ব্যালেন্স অফ পেমেন্ট নিয়ে। ১ম পর্বটি কেমন লাগলো নিচে মন্তব্যে জানাতে জানাতে ভুলবেন না।

      [পরবর্তী পর্ব পড়ুনঃ পাউন্ডকে প্রভাবিত করে এমন ৫ ধরনের নিউজ রিপোর্ট - ২য় পর্ব]
    • By Mohaimenul

       
      If you want to trade a currency you don’t already have, there are many ways to do so. There are numerous different kinds of arrangements you can harness to invest in currencies you don’t own. For precedent, you could trade the euro without owning it by buying or selling options that involve the currency. Call and put options on EUR/USD would provide methods to trade the common currency’s exchange rate with the U.S. dollar.
       
      Future Contracts are standardized contracts to buy or sell an instrument at a future date and at a specified price. Being traded on the stock exchange, future contracts follow a daily settlement procedure. The buyer and seller basically enter into an agreement with the exchange and not with each other.
      Purchasing future contracts seems to be an ideal way to take advantage of exchange rate inconstancies. The excellent part of it you don’t need to actively own the currency while entering into the contract. A currency future contract lets you hedge toward foreign exchange risk. You agree to exchange one currency for another at a future date but at a price fixed on the present date.
       
      Options give you the right but not the obligation to buy or sell the underlying assets. Options are primarily of two types:
      Call Option: This gives you the right to buy something at a later date at a given price.
      Put Option: This gives you the right to sell something at a later date at a given price.
      So, entering into options deal gives you a different good opportunity to earn from currency trading without holding actual currency.
       
      Price action guide is the Perfect solutions for any kind of forex traders. You can get the latest technical analysis and best trading signal.
       
      In addition, purchasing spot contracts or forward contracts involving your currency of choice would also provide exposure. The above currency derivative instruments can be easily bought and sold through the online trading platform. You just need to open a share trading account with a reliable stockbroker.
    • By Mohaimenul

      Market conditions dictate trading activity on any given day. As a reference, the average small to medium trader might trade as often as 10 times a day. Most importantly, because most Forex Brokers don't charge commission, traders can take positions as often as necessary without worrying about excessive transaction costs. 

      As a newbie, you can think of excessive trading or authority - so how many trades should be done daily? How to win those trades? The answer is both simple and complicated. The simple answer is to trade your proven strategy just as you would like to trade. However, if you are surprised at over or overriding, then you can’t be in a position to be a procedure that has proven to be profitable. First, develop yourself, or look for a strategy to aligns with how active you want to be. Price action guide will be your best option to develop yourself.
      Strategy Dictates Frequency
      A well-outlined strategy puts you exactly when to enter, and in any situation, as well as where to go for any profit or loss. As the day traders take their strategies to take their trading volume and frequency will change every day.
      You should work as a filter for how often your strategy is to trade.
      Maximum Daily Trades
      Your strategy determines how often you trade, when overtrading may occur when you take more trades than dictates your strategy. This is often a result of monotony or lack of discipline. As these trades come out of the tested strategy, they are less likely to perform well, reduce profits and increase the cost of unnecessary commissions.
      If you want to trade all day, develop the adaptation of the conditions of different market positions, as you will face changing circumstances every day, when things are more volatile, less volatile, tremendous, low, and higher volume resources and time.
       

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×