Jump to content
  • Similar Content

    • By আহমদ মীর
      আমার বেশ কিছু দিনের ফরেক্স অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছি ফরেক্স মার্কেটে যারা ফান্ডামেন্টাল এ্যানালাইসিসে অভিজ্ঞ তারাই ফরেক্স-এ বেশী সফল। যেহেতু প্রতিটা কারেন্সির মূল্যমান  সেদেশের অর্থনীতি ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্তে উপর নির্ভর করে, তাই সে দেশের অর্থনীতি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্ত ও সে দেশের সার্বিক বিষয়ে অবহিত থাকা আবশ্যক। তবে ট্যাকনিক্যাল এ্যানালাইসিসও জানা অত্যাশ্যক। আমি দেখেছি ফান্ডামেন্টাল এ্যানালাইসিস-ই ফরেক্স মার্কেটে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ফান্ডামেন্টাল এ্যানালাইসিস শিখতে ও বুঝতে কি কি করণীয় অভিজ্ঞ ও বড় ভাইদের সাহায্য কামনা করছি।
    • By Megamind
      লর্ড ব্রোকারওয়ালিস সাহেব খুবই উত্তেজিত। তাহার ক্ষুদ্র দালালসংস্থা আজিকে আঙ্গুল ফুলিয়া কদলিগাছ হইয়া গিয়াছে। পাইক পেয়াদা ডাকিয়া কহিলেন “I want to go BANG-LA-DESH (উনারা এইভাবেই উচ্চারন করিয়া থাকেন) right now”। সুজলা সুফলা পিপ শ্যামলা বঙ্গদেশের মাটিতে পা রাখিয়া লাট সাহেবের  চক্ষুদ্বয় বিষ্বয়ের সাপোর্ট গগণে আবারো রিটেস্ট করিল।আকাশ বাতাস বিদীর্ণ করিয়া ধ্বনিত হইতেছে লাখো জনতার মুখরিত শ্লোগান-
       
                              “আমার লস আমি খাইব, যত খুশি তত খাইব”
       
      কতিপয় উৎসাহি জনতা অধিকতর আবেগে কহিল-
       
                                “মন চাহিলে কামলা লাগাইয়া খাইব”
       
      আনন্দে আত্বহারা হইয়া লাট সাহেব জনৈক ট্রেডারকে বুকে জড়াইয়া কহিলেন-
      “How How?”
       
      বিদেশি লাট সাহেব এবং তাহার সহিত স্বল্পবসনা ললনা দেখিয়া দ্বিগুন আত্বহারা হইয়া ট্রেডার কহিল-
      “You know Money is coming from the backside of the Cow”
       
      অতঃপর অধিকতর আবেগে আবারও সিকান্দার বাক্স -
       

       
       
      আশা করি উপরওয়ালার অশেষ কৃপাগুনে কূশলে আছেন সবাই। কিছু আভিযোগ পাইয়াছি যে কিহেতু রাঙ্গা মামার বাণী  আরও বেশি প্রকাশিত হইতেছে না। জনতার আদালতে আত্বপক্ষ সমর্থণ করিয়া শুধু এইটুকুই কহিব-
       
      “জাতের মেয়ে কালোও ভালো”
       
      কি নেই আমাদের এই বাংলাদেশে? ভাবিতে অবাক হই। কেনই বা থাকিবে না, আমরা যে প্রতিটি পহেলা বৈশাখে পুরাতন কে ফেলে নতুন কে বরন করি। হা এটাই আমাদের ঐতিহ্য। বিগত পহেলা বৈশাখে রাঙ্গা মামা বলেছিলেন,
       
                         “মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা
                                 ফেলে দিস না স্ক্রিণশট, পরে খাবি ধরা”
       
      স্ক্রিণশট!!!!!! এটা আবার কি?
       
      মামা বলেছিলেন, “ট্রেডার তোমার নাম কি? স্ক্রিণশটে পরিচয়”
       
      স্ক্রিণশট লইয়া রাঙ্গা মামার আরও কিছু মহান বাণী রহিয়াছে-
       
      “সর্বদা ডেমো ট্রেডিং এর স্ক্রিণশট রাখিয়ো, অন্ধকারে ইহাই তোমাকে ডলার দেখাইবে ”
       
       “দুনিয়া ও হাশরের মাঠে স্ক্রিণশট সাক্ষ্য দিবে যে ইনি একজন প্রফেশনাল ট্রেডার”
       
      এতক্ষনে নিশ্চয় বুঝিয়া গিয়াছেন একজন ফরেক্সারের জীবনচক্রে স্ক্রিণশট খুবই গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করিয়া আছে। এই স্ক্রিণশট লইয়া  বিভিন্ন মহাপুরুষগণ  তাহাদের গুরুত্বপূর্ণ বাণী প্রদান করেছেন এবং অনেক অলৌকিক কার্য সম্পাদন করিয়াছেন। চলুন আমরা এমনই কিছু মহাপুরুষের জীবনকাহিনির উপর আলোকপাত করি।
       
      কাহিনিঃ ১
       
      পীর এ কামেল বাবা শাহ সুফী রোবটবাগী আল ইন্ডিকেটরী ওয়াল ফেসবুকি ঘোষণা দিলেন “আমি একটি রোবট পয়দা করিব”।কি ঝারা দিলেন আর পরদিন এ একটা রোবোট বাহির হইয়া গেল। সবাই বলেন সুবহানাল্লাহ।
       
      মুরিদান ও আশেগান কহিল “বাবা প্রফিট কেমন হইতেছে?”
       
      তখনই বাবা রোবোটবাগী স্ক্রিণশট দেখানো শুরু করিয়া দিলেন। আহা কি স্ক্রিণশট, কি তার মরতবা,কি তার সুরত, কি তার জেল্লা, সুবহানাল্লাহ,সুবহানাল্লাহ।
       
      ঐদিন হইতে আজ অবধি বাবা শাহ সুফী রোবটবাগী আল ইন্ডিকেটরী ওয়াল ফেসবুকি তাহার দরবারে গায়েবী এবং মারেফতি রোবোট পয়দা করিতেছেন এবং উনি যত পারসেন্ট বলিয়া ফুক দেন তাহার রবট তত পারসেন্ট আউট করিয়া থাকেন। বিশ্বাস না হইলে বাবার দরবার এ গিয়ে স্ক্রিণশট দেখুন আপনিও কহিবেন মারহাবা, মারহাবা।
       

       
       
      কাহিনিঃ ২
       
      “কোনো রোবোট নয় আমরা ম্যানুয়াল করি” ফেবুআশ্রমের প্রবেশদ্বারে কথাটি দেখিয়া কিঞ্চিত ঝাকি অনুভুত হইল। ঢুকিয়া দেখিলাম তাহার মহান বানী
      “ট্রেডারনং স্ক্রিনশটনং তপহ”
       
      হ্যা উনিই হইলেন প্রভু পিপানন্দ। সূদুর কামাক্ষ্যা হইতে সিদ্ধি লাভ করিয়া, হিমালয় কাশী কেদারনাথ ভ্রমন করিয়া প্রভূ পিপানন্দ এই বঙ্গদেশে লাখো ভক্তবৃন্দ লইয়া আশ্রম খুলিয়াছেন।  প্রভু পিপানন্দ পিপধ্যান করিয়া থাকেন আর ভাবাবেগে বলিয়া ঊঠেন -
      “বোল হরি, চল সিগনাল ধরি” ।
       
      হ্যা প্রভূ ট্রেড করিয়াছেন,  স্বর্গের STP  ব্রোকার “অপ্সরা fx” এ ট্রেড ধরিয়াছেন।
      অপেক্ষা করুন, উনি স্ক্রিণশট দেখাইবেন আর প্রফিটের ঢল দেখিয়া নরনারী বিভেদ ভুলিয়া ঢোল খোল শাখ বাজাইয়া উলুদ্ধনি করিবে, “জয় প্রভু পিপানন্দের জয়”।
       

       
      অতঃপর প্রভু ট্রেডিং মহামন্ত্র জপ করিতে থাকিবেন-
      “বোম কালী, একাঊন্ট খালি,
      হরে ডেমু হরে ডেমু, ডেমু একাঊন্ট হরে হরে”
       
      এই মন্ত্রের মর্ম আপনি আমি কেহই বুঝিতে পারিব না। সাক্ষাত কৃষ্ণই জানেন প্রভুর লীলা। ট্রেডিং মহামন্ত্র জপ করুন পরজন্মে আবারও ট্রেডার হইয়া জন্ম লইবেন।
       
      কাহিনিঃ ৩
       
                “ওহ জিসাস, তুমি এদের ক্ষমা কর, ইহাদের ট্রেন্ড লাইনে পরিচালিত কর”
       
      হা উনি হলেন ফাদার এমটিফোর-ডি-কস্টা । নাওয়া খাওয়া সকলি বাদ দিয়া চাইল্ডদিগকে টেকনিকাল এনালাইসিস শিখাইবার ব্রত লইয়া বিনিদ্র রজণী কাটাইতেছেন ফাদার এমটিফোর-ডি-কস্টা। ফাদার বিশ্বাস করেন রোবট বা সিগনাল দিয়া নয় প্রভুর নামে লাইন আকিয়া আকিয়া একাঊন্টকে ক্রুশে ঝুলাইয়া অপার শান্তি লাভ হয়। তাই প্রতিনিয়ত লাইন আকিয়া সেই স্ক্রিনশট চাইল্ডট্রেডারদের দ্বারে দ্বারে পৌছাইয়া দেন ফাদার এমটিফোর-ডি-কস্টা । মার্কেট যেদিকেই ধাবিত হউক না কেন উনি যে ট্রেন্ড লাইন আকেন তাহাতে মার্কেট এর গতি ক্রুশাবিধ্ব হইবেই।
       
       

       
       
      ইদানিং রোবট, স্ট্র্যাটেজী, সিগ্নাল বিক্রয় করিবার পোস্ট দিলে জনতা উত্তেজিত হইইয়া আকথ্য ভাষায় আক্রমন করিয়া থাকে। এমতাবস্থায় ফাদার অহিংস নীতি ধারণ করিতে বলেছেন-
       
      “যখন কেউ তোমাকে স্ক্যামার বলিয়া গালি দিবে, তুমি স্ক্রিণশট দেখিয়ো
      GOD Bless You”
       
      রাঙ্গা মামা বলেছেন, “আজিকের স্ক্রিণশট আগামীর সঞ্চয়”।
       
      স্ক্রিণশট আপনার আমার সকলের বন্ধু। স্ক্রিণশট  ব্যাবহার করিয়া আপনিও হইতে পারেন একজন সফল উদ্যোক্তা। আসুন বেশী করিয়া স্ক্রিণশট দেই এবং স্বাবলম্বী হই। 
       
       

    • By Megamind
      আসসালামু আলাইকুম ট্রেডার ভাই, বোন, বন্ধু , নাবালক, সাবালক, মুরুব্বি এবং পুরুষ নামধারি মহিলা ইউজারগন, “রাঙ্গা মামা আদর্শ ট্রেডিং সঙ্ঘ” এর পক্ষ হইতে সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা এবং লিবার্টি যাহাদের রিজার্ভ করিয়া দিয়াছে তাহাদের জন্য রইল গভীর সমবেদনা এবং একটি রাঙ্গা মামা বচন –

      “করিলে রিজার্ভ Liberty,


      কপালে আসিবে Poverty”





       
      কিঞ্চিত বিলম্ব করিয়া রাঙ্গা মামার মহান বানীসমূহ লইয়া আবারও হাজির হইয়াছি ।
      আসুন এই কালজয়ী মহাপুরুষের স্মরনে বজ্রকন্ঠে আওয়াজ তুলি,আকাশে বাতাসে প্রতিদ্ধনিত হোক জয়গান-
      “Mt4 এর টার্মিনালে


      মামা তুমি আছো মিশে


      মামা তোমার ভয় নাই


      আমরা ট্রেডিং ছাড়ি নাই


      তোমার আমার ঠিকানা


      রাঙ্গা মামার আস্তানা


      মামা তুমি এগিয়ে চলো


      আমরা আছি তোমার সাথে


      জয় রাঙ্গা মামা.........”


       
       
       
      (বিঃ দ্রঃ উপরোক্ত শ্লোগানসমূহ দেখিয়া অনৈতিক,রাজনৈতিক এবং কূটনৈতিক ধারনা পোষণ করিবেন না )।
       
      সূচনায় জাতির বিবেকের কাছে একটি প্রশ্নঃ
       
      প্রফেশনাল ট্রেডার কাহাকে বলে? সংগাসহ ও উদাহরন ব্যাতীত আলোচনা কর এবং বৈশিষ্টসহ আম-মুদ্রাব্যাবসায়ী সমাজে তাহাদের ভুমিকা ব্যাখ্যা কর।
       
      অনাহুত এক বিবেকের উত্তরঃ
       
      দিগ্বীজয়ী মহাপুরূষ রাঙ্গা মামা “ট্রেডার” এর সংগাস্বরূপ উল্লেখ করিয়াছেন-
      “ট্রেডারগণ সামাজিক জীব। তাহারা স্কাইপ এবং ফোরামসমূহের মাদ্ধ্যমে সমাজবদ্ধ হইয়া বসবাস করেন এবং কার্ল মার্কস এর বানী দেখিবার বদলে কার্ল ডিটম্যান এর মেইলবাণী পড়িতে পড়িতে সময় আতিবাহিত করেন”
       
      প্রফেশনাল ট্রেডারগণ এই সমাজেই বসবাস করেন। রাঙ্গা মামা বলেছেন,
      “মুদ্রাবাণিজ্যে পরিপক্ক হইয়া যেসকল ব্যবসায়ীগণ সফলতার ট্রেন্ডলাইনে পুলব্যাক করিয়াছেন , শত প্রতিকুলতার মাঝেও যাহাদের চাপার রেজিস্ট্যান্স বজায় থাকে এবং নিজ একাউন্ট ব্যতীত এক বা একাধিক একাউন্টে আধিভৌতিক সাপোর্ট প্রদান করিয়া থাকেন তাহাদিগকে প্রফেশনাল ট্রেডার বলা হয়। অনির্দিষ্টকাল অতিবাহিত করিবার পর তাহারা হারামিসহ বিভিন্ন প্যাটার্ণ ধারণ করিয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসমূহে অদৃশ্য জীবনযাপন করিয়া থাকেন। ”
       
      উহাদের বিস্তৃতি এবং প্রভাব ট্রেডার সমাজে অপরিসীম। সাধারনত ফেসবুক, স্কাইপ এবং চ্যাটবাক্সে উহাদের বিচরন পরিলক্ষিত হয় ।
      কলিযূগের কিশোর এবং যুবকগণ (ইয়ো ইয়ো জেনারেশন) তাহাদিগকে - জোস ট্রেডার, জাক্কাস ট্রেডার,সেরাম ট্রেডার, বিরাট ট্রেডার, মাম্মা ট্রেডার,চুম্মা ট্রেডার ইত্যাদি নামসমূহ দ্বারাও আক্ষ্যায়িত করিয়া থাকেন।
       
      নবাগত ফরেক্সারগন তাহাদিগকে পিপাবতার হিসাবে মর্যাদা প্রদান করিয়া থাকেন এবং পিপবর লাভের আশায় তাহাদের পিপলিংগে ক্রমাগত তৈলভক্তি অর্পণ করিয়া থাকেন।
       
      সাধারনত ৩ খানা প্রশ্নের মাদ্ধ্যমে ট্রেডারগন একজন প্রফেশনাল ট্রেডার এর মানদন্ড নির্ধারন করিয়া থাকেন-
      ১. বড়ভাই কতদিন ধরিয়া ট্রেডিং করেন?
      ২. বস আপনার মাসিক ইনকাম কত?
      ৩.স্যার আপনি কোন সিস্টেম অনুযায়ী ট্রেড করেন?
       
      রুপে গুনে আতুলনীয় না হইয়াও ট্রেডিং গুন সম্পন্ন একজন প্রফেশনাল ট্রেডার এর কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট পরিলক্ষিত হয়-
       
      ১.উনারা বিরাট মার্কেট জ্ঞানের অধিকারি হইয়া থাকেন যদিও আমাদের এই দেশে একজনও স্বীকৃত সনদপ্রাপ্ত ট্রেডার পরিলক্ষিত হয় নাই। এই অসাধারন বাজার-জ্ঞান ধারণ বিধায় আম-মুদ্রাব্যাবসায়ীগণ তাহাদিগকে “মাল” হিসাবেও আখ্যায়িত করে থাকেন।
       
      ২.মাত্র ৩ মাসেই একজন আম-মুদ্রাব্যাবসায়ী পরিপক্ক হইয়া উন্নত জাতের অধিক ফলনশীল প্রফেশনাল ট্রেডার এ পরিনত হইয়া থাকেন।
       
      ৩.নিজকর্ম ব্যাহত করিয়া তাহারা অসহায় এবং দুঃস্থ ব্যাবসায়ীদিগকে ফরেক্স শিখাইবার লক্ষে দিবারাত্রি অক্লান্ত পরিস্রম ও সময় ব্যয় করিয়া থাকেন । বৈদেশিক প্রবন্ধসমূহের বাংলা ভাষানুবাদ তাহাদের একমাত্র ব্রত । যদিও উক্ত জ্ঞান তাহারা নিজ নিজ বাণিজ্যে প্রয়োগ করিয়া কতখানি সফল হইয়াছেন তাহার তথ্যসমূহ অত্যন্ত গোপনীয়তার সহিত সংরক্ষণ করা হইয়া থাকে।
       
      ৪.উনারা মুদ্রাবাজারে আইক্কাওয়ালা মোমকাঠি পরিদর্শন করিয়া বেচাকেনার সংকেত প্রদান করেন । কার্যকর না হইলে একাধিক সংকেত প্রদানের মাধ্যমে একখানা লাভজনক ট্রেড বাহির করিয়া থাকেন। অতঃপর তাহা লইয়া ফেসবুকে বিরাট প্রদর্শনীর আয়োজন করা হইয়া থাকে।
       
      ৫.“ওরে নবীণ, ওরে আমার কাঁচা, আধমরাদের ঘাঁ মেরে তুই বাঁচা” এই সংকল্প বক্ষে ধারন করিয়া তাহারা সপরিবারে দুঃস্থ ট্রেডারদের ন্যায্যমুল্যে বিভিন্ন ত্রাণসামগ্রী (স্ট্র্যাটেজী,রোবট,সিডি) সরবরাহ করিয়া থাকেন। রবিঠাকুর বর্ণীত এই ঘাঁ প্রদানকল্পে অনেক বাংলাদেশি নবদম্পতি অগ্রবর্তী ভুমিকা পালন করিয়াছেন এবং একাধিক বিজ্ঞাপন মাধ্যমে তাহা ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করিয়াছে।
       
      ৬,সুদূর সাইবেরিয়া,উগান্ডা, আন্দামান দীপপুঞ্জ, উরুগুয়ে ইত্যাদি রাষ্ট্র হইতে ট্রেডিং পদ্ধতি আমদানি করিয়া এবং উহা মুদ্রাবাণিজ্যে সফলভাবে প্রয়োগ করিবার জন্য উহাদের বিশেষ খ্যাতি রইয়াছে।
       
      ৭, একমাত্র এই শ্রেণীর আশীর্বাদে মুদ্রাবাণিজ্য শায়েস্তা খার শাসনামলের চালবাণিজ্যের পর্যায়ে উপণীত হইয়াছে বিধায় তাহারা একখানা ট্রেড বসাইয়া ৮% লভ্যাংশ পাইয়া থাকেন।
       
      একথা অনস্বীকার্য যে বর্তমান মুদ্রাবাণিজ্যের এই ঊষালগ্নে উন্নত মস্তিস্কধারী প্রফেশনাল ট্রেডারগণ পিপবর্তিকা হাতে পিপহারা বাংলাদেশকে একটি স্বনির্ভর পিপসমৃদ্ধ জাতি হিসাবে গঠন করিবার বিষদ কার্যক্রম পরিচালনা করিতেছেন । তাই উহাদের সাথে তালে তাল মিলাইয়া সকলেই ব্রয়লার পিপগোষ্ঠী গঠনের প্রত্যাশা বক্ষে ধারন করে স্লোগানে মুখরিত হই-

      “পিপে পিপে ভরব দেশ


      গড়ব সোনার বাংলাদেশ”


বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×