Jump to content

Xtrader

Members
  • Content count

    68
  • Joined

  • Last visited

  • Days Won

    14

Xtrader last won the day on June 16

Xtrader had the most liked content!

Community Reputation

129 Excellent

About Xtrader

  • Rank
    Forex in the blood

Profile Information

  • Gender
    Not Telling
  1. যেকোনো সাধারন মানুষই হোক বা ফরেক্স ট্রেডার, আমরা সবাই অভ্যাসের দাস। আসল ব্যাপারটি এমন, আমরা যদি কোন কাজে সফল হই বা সত্যিকারভাবে কাজ করে এমন কোন কিছুর সন্ধান পাই, তখন সে কাজটিই আমরা বারবার করতে থাকি। আর ফরেক্স ট্রেডেও ঠিক এমন ব্যাপারটিই ঘটে। যখন আমরা নতুন ফরেক্স ট্রেডিং করতে শুরু করি, তখন মূলত একটি বা ২টি কারেন্সি পেয়ার নিয়ে ট্রেড করতে থাকি। কিন্তু অনেক বছর পেরিয়ে গেলেও দেখা যায় সে পেয়ারগুলো থেকে আমরা আর বের হতে পারি না। নতুন ট্রেডারদের জন্য অল্প কারেন্সি পেয়ার নিয়ে ট্রেড করায় ভালো। কিন্তু, আপনি যখন একজন পরিনত ফরেক্স ট্রেডার হবেন, তখন আপনি একটি বা দুটি পেয়ারের পেছনে পড়ে না থেকে, অন্যান্য পেয়ারের খোঁজ খবর রাখাটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। নতুন ফরেক্স ট্রেডারগন প্রতিনিয়ত ইউরো/মার্কিন ডলার (EUR/USD) এবং ব্রিটিশ পাউন্ড/মার্কিন ডলার (GBP/USD), পেয়ার দুটির প্রতি বেশী মনযোগী হয়। ফরেক্স মার্কেটে ট্রেড করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কারেন্সি পেয়ার রয়েছে, এবং বিভিন্ন ধরনের পেয়ার ট্রেড করতে বিভিন্ন রকম পড়াশোনা বা জ্ঞান থাকা দরকার। আর হাজার কারেন্সি এবং পেয়ারের ভীরে আপনার কোনগুলো ট্রেড করা সবচেয়ে উপযুক্ত হবে বা কিভাবে এগোতে পারেন তাই নিয়েই এ আলোচনা। যেহুতু আপনি ফরেক্স ট্রেড করছেন, তাই আপনার সামনে যতরকমের সুযোগ আছে ট্রেড করার, সবগুলো সম্পর্কেই আপনার জানা উচিত। EURUSD এবং GBPUSD এর পাশাপাশি আরোও দুটি গুরুত্বপূর্ণ পেয়ার ফরেক্স ট্রেডারদের বেশ পছন্দের। কিন্তু অনেক ট্রেডাররাই এই পেয়ার ২টিকে গুরুত্ব দেন না। পেয়ার দুটি হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ান ডলার/ মার্কিন ডলার (AUD/USD) এবং নিউজিল্যান্ড ডলার/মার্কিন ডলার (NZD/USD)। মজার ব্যাপার হচ্ছে, নিউজিল্যান্ড ডলার এবং অস্ট্রেলিয়ান ডলার উভয়ই ফরেক্স মার্কেটে অন্যতম ২টি বেশ পরিবর্তনশীল কারেন্সি পেয়ার। তাই বুঝতেই পারছেন, বুঝে শুনে কোপ মারতে পারলে লাভও বেশ ভালোই করা সম্ভব এই পেয়ারগুলোতে। নতুন পেয়ার ট্রেড করতে গেলে প্রথমে নিশ্চিত করে নেয়া জরুরী যে আপনার ফরেক্স ব্রোকার আপনাকে উক্ত পেয়ার দুটিতে ট্রেড করার সুযোগ দিচ্ছে কিনা। এই পেয়ার ২টি মেজর পেয়ার বিধায় প্রায় সব ব্রোকারেই AUD/USD এবং NZD/USD ট্রেড করা যায়। XM ব্রোকারে এই পেয়ার দুটির স্প্রেড অন্য ব্রোকারগুলোর তুলনায় বেশ কম। বর্তমান মার্কেটের প্রেক্ষাপটে অস্ট্রেলিয়ান ডলার এবং নিউজিল্যান্ড ডলার দুটি কারেন্সিই ট্রেড করার জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। গ্লোবাল ইকুইটি বৃদ্ধির সাথে সাথে, বিশেষ করে ইউএস এবং চায়নার স্টক মার্কেটে পরিবর্তনের ফলে ফরেক্স মার্কেটেও পরিবর্তনের সুযোগও বেশি তৈরি হয়। তাই ফরেক্সে বিনিয়োগকারীরা সেফ হেভেন কারেন্সি যেমন আমেরিকান ডলার, জাপানিজ ইয়েন, সুইস ফ্র্যাঙ্ক ইত্যাদি থেকে সরে এসে বেশি লাভ হতে পারে এমন কারেন্সি যেমন Aussie (অস্ট্রেলিয়ান ডলার) এবং Kiwi (নিউজল্যান্ড ডলার) এর প্রতি আকৃষ্ট হয়। এছাড়াও, বিভিন্ন গবেষনামূলক প্রতিবেদনে দেখা গেছে , প্রধান প্রধান কারেন্সিগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়ান ডলার ফান্ডামেন্টাল দিক থেকে বেশ স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে। বিশ্বের অর্থনীতিতে মন্দা চললেও অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতিতে এর প্রভাব পড়েনি। রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্ট্রেলিয়া স্বভাবতই তাদের সুদের হার একটু বেশী রেখেছিল যেটা মূলত অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতিকে চাঙ্গা রাখতে সহায়তা করেছে। গোল্ড ট্রেডারের কাছেও কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান ডলার খুবই গুরুত্ব পায়, কারণ স্বর্ণের দাম বৃদ্ধির সাথে সাথে অস্ট্রেলিয়ান ডলারের দামও বৃদ্ধি পায় কারণ স্বর্ণ রপ্তানিতে অস্ট্রেলিয়া অন্যতম বৃহতম দেশ। কিউই (Kiwi) অর্থাৎ নিউজিল্যান্ড ডলার বেশ প্রাধান্য পায় কারণ এর মূল্য স্টক প্রাইসের সাথে সম্পর্কযুক্ত। S&P 500 ইন্ডেক্স ওপরের দিকে গেলে, নিউজিল্যান্ড ডলার (Kiwi) মার্কিন ডলারের (USD) বিপরীতে শক্তিশালী হয়। তাই ফরেক্স ট্রেডাররা নতুন পেয়ার নির্বাচনের সময় NZD/USD পেয়ারটিকে তাদের তালিকায় রাখতে পারেন। কমোডিটিগুলোর চাহিদা বৃদ্ধি পেলেও নিউজিল্যান্ড ডলারের দাম বৃদ্ধি পায়, যদিও নিউজিল্যান্ড বিশেষ কোন কমোডিটি উৎপাদন বা রপ্তানীর জন্য বিখ্যাত নয়। পরিশেষে বলা যায়, যদি আপনি ফরেক্স ট্রেড করেই থাকেন, তাহলে সচরাচর ট্রেডকৃত পেয়ারগুলোর পাশাপাশি অন্য কোন পেয়ার ট্রেড করলে লাভ করা যেতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আর সেদিক থেকে AUD/USD এবং NZD/USD পেয়ার দুটি আপনার চার্টে ওপরের দিকে রাখার কথা ভাবতে পারেন।
  2. অনেক সময় অনেক নিউজের ফরেকাস্ট বা আনুমানিক ফলাফল রিলিজ হতে দেরি হয়। তাই ফরেক্স ক্যালেন্ডারে আপডেট হতেও দেরি হয়। নিচের ছবিতে দেখুন যে gbp Halifax HPI m/m এর forecast, previous সবই দেখাচ্ছে। ডাটা সংক্রান্ত নিউজগুলোর forecast প্রায় সব সময়ই বের হয়। শুধু ইন্টারেস্ট রেট, সেন্ট্রাল ব্যাংক কর্মকর্তাদের স্পিচ/বক্তব্য, মিটিং এ ধরনের রিপোর্টের ফরেকাস্ট সাধারণত দেয়া হয় না। কারণ এগুলো চলাকালীন সময়ে এগুলো সম্পর্কে ধারনা পাওয়া যায়। এছাড়াও অনেক সময় কিছু রিপোর্টের ফরেকাস্ট প্রকাশ হয় না, কারণ ওগুলো সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেয় না। যদি কোন নিউজের ফরেকাস্ট না থাকে, কিন্তু previous দেয়া থাকে, তবে সেই নিউজগুলোর প্রভাব একটু কৌশল খাটয়ে বুঝতে হয়। যেমন দেখবেন এ সপ্তাহের Canadian Employment Report এর কোন ফরেকাস্ট নেই। ২টি রিপোর্ট এই Canadian Employment Report এর অংশ। Employment Change এর মাধ্যমে বোঝা যায় গত মাসে কি পরিমাণ মানুষের নতুন কর্মসংস্থান হয়েছে। এখন যত বেশি মানুষের কর্মসংস্থান হবে, ততই কিন্তু কানাডার অর্থনীতির জন্য ভালো। আপনাকে দেখতে হবে গত মাসের থেকে এ মাসের কি অগ্রগতি বা অবনতি হল। গত মাসে ১২,০০০ চাকরী বেড়েছে। এবার যদি আরও বেশি বাড়ে তাহলে তা অর্থনীতির জন্য ভালো হবে। কিন্তু যদি কমে যায় তবে খারাপ হবে। তাই ফরেকাস্ট ছাড়াও কিন্তু আমরা এগুলো ট্রেড করতে পারি বা এক প্রকার প্রভাব শনাক্ত করতে পারি। আবার Unemployment Rate এর মাধ্যমে বোঝা যায় গত মাসে কি পরিমাণ মানুষ বেকার ছিল এবং চাকরীর সন্ধানে ছিল। গত মাসে এ হার ছিল ৭.১%. এখন বেকার মানুষ যত কম থাকবে ততই তো ভালো। তাই এ মাসে যদি ৭.১% থেকে আরও বাড়ে তবে তা অর্থনীতির জন্য খারাপ, আর যদি কমে তবে তা ভালো। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। ফরেক্স নিউজের জন্য ফরেক্স-ফ্যাক্টরি সেরা। নিউজ সম্পর্কে আরও প্রশ্ন থাকলে করতে পারেন।
  3. তালহা ভাই, $৩০০ডলার নিয়ে ECN অ্যাকাউন্ট খুলে কোন লাভ নেই। ECN অ্যাকাউন্টে সর্বনিম্ন পিপ ভ্যালু $১. আপনি ৩০০ পিপস ব্যাকআপ নিয়ে ট্রেড করতে পারবেন না। $১০০০ ডলারও নয়, $১০০০০ হলে আমার মতে ECN অ্যাকাউন্টের কথা ভাবা উচিত। তবুও ECN অ্যাকাউন্টের সুবিধার মত অসুবিধাও রয়েছে। স্প্রেড + কমিশন ২টিই দিতে হবে। আর প্রচলিত ব্রোকার FBS, Octafx ইত্যাদি যেসব ECN অ্যাকাউন্ট অফার করে ওগুলো ফেইক। কোনটিই রিয়েল ECN নয়। আপনি সাধারন STP অ্যাকাউন্টে ট্রেড করুন, সেটাই সবচেয়ে ভাল। আমরা বাংলাদেশিরা যেরকম লো ব্যালেন্স নিয়ে ট্রেড করি, তার জন্য ECN অ্যাকাউন্ট প্রয়োজন পরে না। ভাল ব্রোকারের STP অ্যাকাউন্ট অনেক ভাল।
  4. ফরেক্স মার্কেট HYIP না যে ইন্সট্যান্ট উইথড্র লাগবে। কোন ফরেক্স ব্রোকারই ইন্সট্যান্ট উইথড্র দেয়না এক্সনেস ছাড়া। এক্সনেসে রিকোটসের জ্বালায় ট্রেড করাই দুস্কর। সবচেয়ে অনিরাপদ ব্রোকার বর্তমানে। সেরা ফরেক্স ব্রোকার বলতে আপনি কি বুঝেন সেটা আগে বলুন। সব দিক থেকে সার্ভিস + নিরাপত্তা খুঁজে XM সেরা, কিন্তু ওদের স্প্রেড এভারেজ। কম স্প্রেড খুজলে এক্সনেস, অক্টাএফএক্সে যেতে হবে। ওগুলোতে ট্রেড করলে আর প্রফিট করতে পারবেন না ম্যানিপুলেশনের জ্বালায়। বোনাস বেশি দিলে সেরা মনে হলে ইন্সটাফরেক্সে যান। একেকজনের প্রায়োরিটি একেকরকম। সবচেয়ে সেরা বলতে কিছুই নেই।
  5. ভিন্ন ভিন্ন টাইমফ্রেম অ্যানালাইসিস করতে গিয়ে ভিন্ন ভিন্ন সিগন্যাল দেখে বিভ্রান্ত হননি এমন ট্রেডার পাওয়া ভার। হয়তো আপনি H1 (এক ঘন্টার চার্ট) দেখছেন, সেখানে প্রাইস বাড়তে পারে বলে মনে হচ্ছে। M30 (৩০ মিনিটের চার্ট) দেখেও মনে হচ্ছে প্রাইস বাড়বে। কিন্তু D1 (এক দিনের চার্ট) আবার নির্দেশ করছে প্রাইস কমবে। ফরেক্স মার্কেটে এরকম ভিন্ন ভিন্ন পরস্পরবিরোধী সিগন্যাল প্রায়ই পাওয়া যায়। কেন একেক টাইমফ্রেমে একেক রকম সিগন্যাল দেখায়? এটা মনে রাখা খুব জরুরী যে আমরা যে টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস করি, তার বেশিরভাগই কিছু অ্যালগরিদমের ওপর ভিত্তি করে করা হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে X ঘটলে Y ঘটবে, এভাবেই আমরা ট্রেড করি। একটি প্রবাদ আছে, History repeats itself. তাই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে X প্যাটার্ন ঘটলে Y ঘটনা ঘটে। এবং এরকম বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আসলেই ঘটে। তাই আমরা যখন ৩০ মিনিটের চার্ট নিয়ে ট্রেড করি, আমরা যেই অ্যানালাইসিস ম্যাথডে ট্রেড করছি, সেটা গত ৩০ মিনিটের কার্যক্রম বিবেচনা করে আপনাকে একটি ফলাফল দেখায়। তাই বিগত ৩০ মিনিটে প্রাইস বাড়লে আপনি বাই সিগন্যাল পেতে পারেন। আবার D1 পুরো ১ দিনের প্রাইস বিবেচনা করে আপনাকে ফলাফল দেখায়। তাই সেখানে আপনি ভিন্ন ফলাফল পাবেন। এভাবে ভিন্ন ভিন্ন টাইমফ্রেম আমাদের ভিন্ন ফলাফল দেখায়। তাহলে কোনটি সঠিক? এখন আপনার চিন্তা করার পালা যে একেক টাইমফ্রেম যদি একেক ফলাফলই দেখায়, তবে কোনটি সঠিক? আমি কোন টাইমফ্রেম মেনে ট্রেড করবো? বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় সব টাইমফ্রেমই সঠিক। কিন্তু এটা নির্ভর করছে আপনি কোন টাইমফ্রেম মেনে কেমন ট্রেড করতে চাচ্ছেন। যেমন - M30 প্রতি ৩০ মিনিটের ওপর নির্ভর করে ক্যান্ডেল ফর্ম করে। তাই আপনি যদি একটি ট্রেড ওপেন করতে চান, এবং অল্প সময় তা ধরে রাখতে চান, তবে আপনি M30 অনুসরণ করতে পারেন। এর কারণ হল এটি সমসাময়িক সময়ের ট্রেন্ড বুঝে আপনাকে সিগন্যাল দেখাবে, যেই ট্রেন্ডটি আরও কিছু সময় ধরে বজায় থাকতে পারে। অনেকসময় এমন হয় যে লংটার্ম আপট্রেন্ডের মধ্যে কিছু সময়ের জন্য প্রাইস কারেকশন হয়, অর্থাৎ প্রাইস কমে। এ ধরনের ট্রেড আপনি ধরতে চাইলে বড় টাইমফ্রেমে আপনি তা ধরতে পারবেন না। আপনাকে ছোট টাইমফ্রেমে অ্যানালাইসিস করে ট্রেড করতে হবে। আবার আপনি যদি লংটার্ম ট্রেড করতে চান এবং ১০০/২০০/৩০০ পিপস ধরার ইচ্ছা থাকে, তবে আবার আপনাকে বড় টাইমফ্রেম যেমন - H4, D1 অনুসরণ করতে হবে। এবং ধরুন এ টাইমফ্রেমগুলো আপনাকে বাই সিগন্যাল দিচ্ছে, এবং M30 সেল সিগন্যাল দিচ্ছে, তাই এই ট্রেড চলাকালীন সময়ে প্রাইস কমতেও পারে কিছুটা, কিন্তু যেহুতু আপনার ট্রেডটি লংটার্মের কথা বিবেচনা করে নেয়া, তাই প্রাইস কিছুটা কমলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রাইস আবার বেড়ে যাবে কারণ মার্কেটের আসল ট্রেন্ড ওপরের দিকে। তাই আপনি যে ধরনের ট্রেড করতে চান, তার ওপর ভিত্তি করে সে ধরনের টাইমফ্রেম নির্বাচন করে ট্রেড করতে হবে।
  6. কিছু ট্রেডার নিউজ পাবলিশ হওয়ার কিছুক্ষন আগেই ট্রেড দেয়। তবে ভালো ট্রেডার বলতে কিছুই নেই, সবই মিডিয়ার সৃষ্টি। ফরেক্সে ফান্ডামেন্টাল নিউজ পাবলিশ হওয়ার আগে কোন ডাটার ইঙ্গিত সহজে পাওয়া যায় না। কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় কিছু ডাটার ফাইনাল রিলিজের আগে preliminary রিলিজ হলেই ইফেক্ট অনেকটা কমে যায়। অনেকে ঐ preliminary রিলিজের ওপর ভিত্তি করে ফাইনাল ডাটা প্রকাশের আগেই ট্রেড দেয়। কিন্তু অনেক ট্রেডার হাই ইম্প্যাক্ট নিউজের আগে বাই-সেল গ্যাম্বলিং করে থাকে। যেমন - এক সময় আমি NFP তে করতাম। ডাটা রিলিজ হওয়ার আগে বর্তমান প্রাইসের ২ দিকেই ১০-২০ পিপস দূরত্বে বাই এবং সেল পেন্ডিং ট্রেড দিয়ে আরও কিছু দূরত্বে টেক প্রফিট রাখতাম। এসব নিউজের ক্ষেত্রে দেখা যায় প্রথমে প্রাইস যেকোনো একদিকে অনেক চলে যায়। তখন আপনার যেকোনো একদিকের ট্রেড এক্সিকিউট হয়ে অনেক প্রফিট হয়। কিন্তু সবসময় তা হয় না। অনেক নিউজে রিভার্স ইফেক্ট হয়। যেমন একটু বেড়ে সাথে সাথে আবার অনেক কমে যায়। তখন দেখা যায় আপনার ২টি ট্রেডই ট্রিগার হয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকে। খুব বেশি যে কাজের স্ট্রাটেজিটি তা নয়। বেশ কয়েকবার লসও খেয়েছি। এক সময় দেখতাম সবাই এই মেথডে নিউজ ট্রেড নিয়ে মাতামাতি করতো, এবং নিউজ রিলিজের পর সবাই ফোরামে পোস্ট দিত কে কত লস করেছে।
  7. ১. বেশি লিভারেজ আপনাকে বড় ট্রেড ওপেন করার ক্ষমতা দিবে। আপনি $৪০০০ ডলার থাকলে যেই ট্রেড ওপেন করতে পারতেন, তা আপনি $২০ দিয়েই পারবেন। কিন্তু লস $২০ এর বেশি করতে পারবেন না। ২. যখন খুশি তখন এটা পরিবর্তন করতে পারবেন। এখানে কোন ব্রোকারেরই কোন আপত্তি নেই। ৩. যদি হুবুহু আপনার নামেই কার্ডটা করা থাকে, তবে সমস্যা নেই।
  8. ৭ বছর আগে ২০০৮ সালে এক্সনেস যাত্রা শুরু করে। আর আপনি ৯ বছর আগে থেকেই মানে ২০০৬ সাল থেকেই ট্রেড করছেন এক্সনেসে। আবার বিশ্বাস করার প্রতিও জোর দিচ্ছেন। ব্যাপারটা কেমন জানি। হাইপ ওয়েবসাইটগুলোও কিন্তু ইন্সট্যান্ট উইথড্র দেয়। তাই বলে করবেন নাকি কিছু ডিপোজিট হাইপে? যাই হোক আপনার সাথে দ্বিমত প্রকাশ করছি। এক্সনেস পৃথিবীর বৃহত্তম ব্রোকার নয়। এটা মাঝারী মানের একটি ব্রোকার। বর্তমানে এদের কোন শক্তিশালী রেগুলেশন নেই। ডিপোজিট করার জন্য কোন বুঝসম্পন্ন ট্রেডার এক্সনেসে বড় ধরনের ডিপোজিট করবে না। এবং বর্তমানে নিউজল্যান্ড থেকে প্রত্যাবর্তন করে তারা St, Vincent and Grenadines এ আখরা গেড়েছে। আজ তারা পালিয়ে গেলে কাল আপনি নিজেও তাদের খুঁজে পাবেন না।
  9. প্রত্যেক ট্রেডারের ব্রোকার সম্পর্কে ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি থাকে। কারো কাছে একটি বিষয় বেশি গুরুত্বপূর্ণ, তো কারো কাছে অন্যটি। তাই অন্যের পছন্দের ব্রোকার যে আপনার পছন্দ হবে এমন কোন কথা নেই। আমি ৩+ বছর ধরেই XM এ ট্রেড করছি, কোন ধরনের এমন সমস্যায় পড়িনি যে অভিযোগ করতে হবে। এছাড়া XM এর সাপোর্ট খুবই ভালো এবং যেকোনো সমস্যায় বা জিজ্ঞাসায় তানভীর ভাইকে (xm এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি) অবহিত করলে উনি খুব আন্তরিকভাবে সাহায্য করেন। তাই কেউ যদি বলেন XM এ উনি সত্যিই কোন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন, তবে আমার মনে হয় উনি তা সমাধান করার পর্যাপ্ত চেষ্টা করেননি।
  10. About broker...

    ভালো ব্রোকারের স্প্রেড কখনও ফিক্সড সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে আপনাকে স্প্রেডের সিস্টেমটি বুঝতে হবে। একটি ব্রোকার যদি ফিক্সড ২ পিপস স্প্রেড দেয়, এবং নিউজ টাইম বা হাই ভোলাটাইল সময়ে যখন লিকুইডিটি প্রভাইডার এর থেকে স্প্রেড widen হয়, তখন ব্রোকার কিভাবে আপনাকে ফিক্সড স্প্রেড দিবে? variable স্প্রেড প্রদানকারী ব্রোকার আপনার স্প্রেড বাড়িয়ে দিবে, আর ফিক্সড স্প্রেড ব্রোকার আপনাকে নানান তাল বাহানা যেমন রিকোটস, অফ কোটস, ট্রেড ডিজেবল ইত্যাদি মেসেজ দেখিয়ে ট্রেড থেকে বিরত রাখবে। সুতরাং, ফিক্সড স্প্রেড ব্রোকার থেকে দূরে থাকুন। কম ডিপোজিটের জন্য XM এর মাইক্রো অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে পারেন। এই অ্যাকাউন্টে কম ক্যাপিটাল দিয়েও ছোট লটে ট্রেড করা সম্ভব। যারা কম ব্যালেন্স দিয়ে ট্রেড করেন, স্ট্রাটেজি বা নতুন রোবট টেস্ট করেন তাদের জন্য এই অ্যাকাউন্ট টাইপটি সুবিধাজনক।
  11. একেক ট্রেডারের কাছে একেক ব্রোকার ভালো লাগে, কারণ একেক জনের priority একেক রকম। হটফরেক্স মোটামুটি। তবে রেগুলেশন, সাপোর্ট এবং অনান্য বিষয় সবকিছু বিবেচনা করলে হটফরেক্স থেকে XM ভালো ব্রোকার।
  12. স্ক্যাল্পিংয়ের ক্ষেত্রে মানি ম্যানেজমেন্ট মেনে চলা কঠিন। কারণ আমরা স্ক্যাল্পিংয়ে দেখা যায় টেক প্রফিট নেই ১০-২০ পিপস। কিন্তু বেশিরভাগ ট্রেডারই ৪০-৫০ পিপস পর্যন্ত স্টপ লস বহন করে। তাই দেখা যায় আমাদের ১টি ট্রেডের লস, ৫টি ট্রেডের লাভের সমান হয়ে যায়। যদি আমরা ২০ পিপস টেক প্রফিট টার্গেট করে মানি ম্যানেজমেন্ট করতে যাই, তবে রিস্কঃরিওয়ার্ড রেশিও মেনে চলতে হলে স্টপ লস হওয়া উচিত ১০ বা ১৫ পিপস। ১০ বা ১৫ পিপস লস হিট নিমিষেই করতে পারে। তাই স্ক্যাল্পিং করতে গেলে স্টপ লস ব্যবহার করাটা কঠিন। বাঁচার উপায় হল স্ক্যাল্পিং পরিত্যাগ করে লং ট্রেডের প্রস্তুতি নেয়া। অথবা লং ট্রেডের প্রস্তুতিতে যদি ১০-২০ পিপস প্রফিট চলে আসে, তবে তখন স্বল্প লাভে ট্রেডটিকে ক্লোজ করে স্ক্যাল্পিং বলে নিজেকে সান্ত্বনা দেয়া।
  13. ফরেক্স ফ্যাক্টরিতে যেটা দেয়া থাকে, ওটা নিউজের সচরাচর ফর্মুলা যে মুভমেন্ট কেমন হতে পারে। কিন্তু সবসময় সব নিউজের প্রভাব একই হয় না। তাই একেবারে ফলাফল দেখেই অনুসরন না করে একটু অপেক্ষা করা ভালো। নিচের লিংকের টপিকটি পড়লে আপনি মোটামুটি ধারনা পাবেন কখন আপনার নিউজটি ট্রেড করা উচিত, এবং কখন নয়। কখন আপনার নিউজটি ট্রেড করা উচিত, এবং কখন নয়
  14. ১. স্লিপেজ কি?কেন নির্দিষ্ট সময়ে পেজ স্লিপ করে বা স্লিপেজ কেন হয়? - নিউজ টাইমে খুব দ্রুত প্রাইস পরিবর্তন হয়। দেখা যায় খুব কম সময়ে অনেক বেশি মুভমেন্ট হচ্ছে। অনেক সময় দেখা যায় এরকম সময়ে প্রাইস বাউন্স করে। যেমন - ১.২৪০০ থেকে প্রাইস বারলে যে সবসময় ১.২৪০১, ১.২৪০২, ১.২৪০৩, ১.২৪০৪, ১.২৪০৫, ১.২৪০৬, ১.২৪০৭ এভাবে বাড়বে তা নয়। বাউন্স করে ১.২৪১৫ তেও চলে যেতে পারে। কারণ available price থাকতে হবে liquidity provider এর কাছে। একেক ব্রোকার একেক liquidity provider ব্যবহার করে। ভালো ব্রোকারগুলোর ৬০-৭০ টি liquidity provider ও থাকে। তাই অনেক ক্ষেত্রে বিভিন্ন ব্রোকারে স্লিপেজ কিছুটা ভিন্ন হতে পারে। তবে হলেও খুব বেশি পিপসের নয়। তাই আপনি ১.২৪১০ এ ট্রেড দিয়ে রাখলেও যদি প্রাইস বাউন্স করে, তবে তা ১.২৪১৫ তে গিয়েও সরাসরি ওপেন হতে পারে। বড় নিউজের সময় স্লিপেজ ৪০-৫০ পিপস হওয়াও অসম্ভব নয়। আবার মার্কেট ওপেনিং-ক্লোজিংয়ের সময়ও ট্রেডিং ভলিউম অত্যাধিক কম থাকায় available price না থাকায় স্লিপেজ হতে পারে অনেকসময়। ২. নিউজ ট্রেডিং এ স্পাইক , এ্যাকচুয়াল পজেটিভ আসার পরেও নেগেটিভ মুভমেন্ট কেন? - স্পাইক হওয়াটা স্বাভাবিক। বড় ট্রেডার, ব্যাংকগুলো শর্ট টার্ম লাভ নেয়ার চেষ্টা করে নিউজের সময়। দেখা যায় অনেক বেশি ট্রেড দিয়ে মার্কেট যেকোনো একদিকে অনেক নেমে যায়, পরক্ষনেই আবার ফিরে আসে। আর সব নিউজেরই যে প্রভাব পড়বে এমন কোন কথা নেই। ট্রেডাররা নিউজটিকে কীভাবে নিচ্ছে, সমকালীন সময়ে অন্যান্য নিউজের প্রভাব, অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে যে আসলেই নিউজটিকে ট্রেডাররা কীভাবে নিবে। দেখা গেলো কোন নিউজ প্রাইস বাড়বে সিগন্যাল দিচ্ছে। কিন্তু এর আগেই অন্য কোন গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টের কারণে ট্রেডাররা সেল সেন্টিমেন্টে বসে আছে। তাই নেগেটিভ হতেই পারে। শুধুমাত্র নিউজের ফলাফল না দেখে ট্রেড করে, মুভমেন্ট ট্রেন্ড কনফার্ম হওয়ার পর ট্রেড দেয়া উচিত। এই টপিক দেখতে পারেনঃ কখন আপনার নিউজটি ট্রেড করা উচিত, এবং কখন নয় ৩. কেন মার্কেট একটা নির্দিষ্ট পজিশান নেয় ? অর্থাৎ S-R লেভেল টার্চ করে! - মার্কেট বা ট্রেডাররা historic বা technical point গুলোকে respect করে বলে এই লেভেলগুলো বেশিরভাগ সময় কাজ করে। XM এর সাপোর্ট-রেসিসট্যান্স সংক্রান্ত ওয়েবিনারে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। গুগল, ইউটিউবে সার্চ করলেও এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন উদাহরণসহ। ৪. কেন কিছু কিছু ব্রোকারে ফেইক ক্যান্ডেল তৈরি করে? - খারাপ ব্রোকারগুলো অনেকসময়ই এরকম করে থাকে। বেশিরভাগ নন-রেগুলেটেড ব্রোকারে এরকম সমস্যা হয়ে থাকে। তারা ইচ্ছাপূর্বক ফেইক ক্যান্ডেল দিয়ে প্রাইস manipulate করে। কিন্তু অনেকসময় রেগুলেটেড ব্রোকারেও এ সমস্যা পেতে পারেন liquidity provider এর সমস্যার কারণে। হয়তো কোন একটি প্রভাইডার কোন কারণে ভুল ফিড দিলো যার কারণে ফেইক ক্যান্ডেল আসতে পারে। যদিও তা খুব rare. আমার একবার XM এ এরকম হয়েছিল। পরবর্তীতে তাদের অ্যাকাউন্ট ম্যানেজার আমাকে ফোন করে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করে, এবং ঐ ভুলের কারণে আমার যে লস হয়েছিল তা আমাকে ফেরত দেয়া হয়। সব ব্রোকার এমন নাও করতে পারে। তাই এ ধরনের সমস্যা হলে প্রথমেই অন্য ব্রোকারের চার্টের সাথে মিলিয়ে ব্রোকারের লোকাল রিপ্রেজেন্টেটিভ বা আপনার পার্সোনাল অ্যাকাউন্ট ম্যানেজারকে অবহিত করুন। তাদের সমস্যা হলে তারা অবশ্যই সমাধান করে দিবে। ৫.অনেক সময় নিউজ ট্রেডিং এ স্পাইক , এ্যাকচুয়াল পজেটিভ আসার পরেও নেগেটিভ মুভমেন্ট হয় কেন? - ২ নং আর ৫ নং প্রশ্ন দেখছি একই।
  15. ১. অসুবিধাগুলোর কথা আমি ঐ পোস্টেই লিখে দিয়েছি। যেমন বেশিরভাগ নিউজের সময়ে স্প্রেড বাড়বেই, এবং যেহুতু খুব দ্রুত বেশি পরিমান প্রাইস মুভ হয়, তাই স্লিপেজ হবার সুযোগ থাকে। ২. কিছু নিউজের প্রভাব কম থাকে, কিছু বেশি। যেমন এনএফপি নিউজে বেশিরভাগ সময় ১০০+ পিপস পরিবর্তন হয়, fomc তেও এরকমই বা কখনও আরও বেশি। কিছু নিউজে আবার ৪৫-৫০ পিপস। তাই নিউজের গতিবিধি বুঝে আপনাকে স্টপ লস দিতে হবে। সব নিউজে বাধা-ধরা এক স্টপ লস দিলে হবে না। আবার সবসময় সব নিউজের একই প্রভাব থাকে না। কিছু কিছু মাসের বিভিন্ন রিপোর্ট গুরুত্বপূর্ণ থাকে। তখন মুভমেন্ট বেশি হয়। কিছু মাসে দেখবেন গুরুত্বপূর্ণ নিউজগুলোতে তেমন কম মুভমেন্ট নেই। ফরেক্স বিষয়ক সাইটগুলোতে খোঁজ-খবর রাখলে এগুলো সম্পর্কে ধারনা পাওয়া যায়। ৩. fxstreet.com, dailyfx.com, forexcrunch.com ইত্যাদি

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×