Jump to content

New BoyTM

Members
  • Content count

    89
  • Joined

  • Last visited

  • Days Won

    2

New BoyTM last won the day on September 13 2014

New BoyTM had the most liked content!

Community Reputation

77 Excellent

About New BoyTM

  • Rank
    Forex in the blood
  • Birthday February 2

Profile Information

  • Gender
    Male
  • লোকেশন
    ,Elephant Road... Dhaka, Bangladesh
  • Interests
    Only Forex, Forex and Forex
  1. ধন্যবাদ তানভীর ভাই, ঠিক ধরেছেন দৃষ্টিভঙ্গিটাই আসল, আর একটা কথা, সাফল্যের চালিকাশক্তি আসে সিদ্ধিলাভের জ্বলন্ত আকাঙ্ক্ষা থেকে । নেপোলিয়ন হিল লিখেছেন," মানুষের মন যা কল্পনা করে এবং বিশ্বাস করে, মানুষ তা অর্জন করতেও পারে ।" এক তরুণ সক্রেটিসকে জিজ্ঞাসা করেছিল, সাফল্য লাভের রহস্য কি; সক্রেটিস তাকে পরের দিন নদীর ধারে দেখা করতে বললেন । দেখা হবার পর দু'জনে জলের দিকে এগোতে থাকলেন এবং একগলা জলে গিয়ে দাঁড়ালেন । হঠাৎ কিছু না বলে সক্রেটিস ছেলেটিকে ঘাড় ধরে জলের মধ্যে ডুবিয়ে দিলেন । ছেলেটি জলের উপরে মাথা তোলবার যতই চেষ্টা করে সক্রেটিস ততই তাকে শক্তহাতে জলের নীচে ডুবিয়ে রাখলেন । বাতাসের অভাবে নীল হয়ে গেল ছেলেটির মুখ । সক্রেটিস তখন তার মাথাটি জলের উপর তুললেন । ছেলেটি হাঁসফাঁস করে বুকভরে নিশ্বাস নিল । সক্রেটিস জিজ্ঞেস করলেন, "যতক্ষণ জলের নীচে ছিলে ততক্ষণ তুমি সবচেয়ে আকুলভাবে কি চাইছিলে ?" ছেলেটি জবাব দিল 'বাতাস'। সক্রেটিস বললেন এটিই সাফল্যের রহস্য । তুমি যেভাবে বাতাস চাইছিলে সেইভাবে যখন সাফল্য চাইবে তখন তুমি সাফল্য পাবে । সাফল্যের কোন গভীর রহস্য নেই । কোন কাজ সুসম্পন্ন করতে হলে শুরু করতে হয় একটি জ্বলন্ত আকাঙ্ক্ষা দিয়ে । অল্প আগুন যেমন অনেক উত্তাপ দিতে পারে না তেমনি দুর্বল ইচ্ছাশক্তি কোন মহৎ সিদ্ধিলাভ করতে পারে না । সবাই ভালো থাকবেন।
  2. ব্যর্থতা সাফল্যের শিখরে পৌঁছবার পথ । সিনিয়র টম ওয়াটসনের কথায়, "যদি সফল হতে চাও তবে ব্যর্থতার হার দ্বিগুণ করে দাও ।" ইতিহাস পড়লে দেখা যায় যে সমস্ত সাফল্যের কাহিনীর সঙ্গে আছে ব্যর্থতার কাহিনীও। একটিই শুধু তফাৎ যে প্রতিটি ব্যর্থতা সাফল্য লাভের জন্য উজ্জীবিত করে একেই বলে পরাস্ত হয়েও সামনে এগিয়ে যাওয়া, পরাস্ত হলেও পিছিয়ে পড়া নয় । ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে ক্রমাগত সামনে এগিয়ে যেতে হয় । কিন্তু সফলতা লাভের পর ব্যর্থতা মানুষের নজরে পড়ে না । সবাই ছবির একদিক দেখে মনে করে লোকটি ভাগ্যবান, " ঠিক সময়ে ঠিক জায়গায় ছিল বলেই সফল হয়েছে । এই প্রসঙ্গে একজনের জীবনকাহিনীর উল্লেখ করি । তিনি ২১ বৎসর বয়সে ব্যবসায় ক্ষতিগ্রস্থ হন, ২২ বছর বয়সে আইনসভার নির্বাচনে পরাস্ত হন । ব্যবসায় আবার ব্যর্থ হলেন ২৪ বৎসর বয়সে । ২৬ বৎসর বয়সে তার স্ত্রী মারা গেলেন । কংগ্রেসের নির্বাচনে পরাস্ত হলেন ৩৪ বৎসর বয়সে । ৪৫ বৎসর ব্যসে হারলেন সাধারণ নির্বাচনে । ভাইস প্রেসিডেন্ট হওয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হলেন ৪৭ বৎসর বয়সে । সিনেটের নির্বাচনে আবার হারলেন ৪৯ বৎসর বয়সে । প্রেসিডেন্ট হিসাবে নির্বাচিত হলেন ৫২ বৎসর বয়সে । এই ব্যক্তির নাম আব্রাহাম লিঙ্কন । একে কি ব্যর্থ বলবেন ? তিনি রাজনীতির পথ ছেড়ে দিতে পারতেন । কিন্তু লিঙ্কনের নিকট পরাজয় মানেই সমাপ্তি নয়- যাত্রা একটু দীর্ঘ হওয়া মাত্র । সফল মানুষেরা খুব বিরাট কিছু কাজ করেন না । তারা সামান্য কাজকেই তাঁদের নিষ্ঠা ও সততা দিয়ে বৃহৎ করে তোলেন । একদিন কানে আংশিকভাবে কালা ৪ বৎসরের একটি বাচ্চা স্কুল থেকে বাড়িতে ফিরল তার মাস্টারমশাইয়ের একটি ছোট চিটি নিয়ে । মাস্টারমশাই তার মাকে লিখেছেন, "আপনার টমি এত বোকা যে তার পক্ষে লেখাপড়া শেখা সম্ভব নয় । তাকে স্কুল থেকে ছাড়িয়ে নিন"। বালকটির মা প্রতিজ্ঞা করলেন, "আমার টমি মোটেই বোকা নয় আমি তাকে নিজেই পড়াব" এবং সেই টমি পরবর্তীকালে বিখ্যাত টমাস এডিসন হিসেবে পরিচিত হয়েছিলেন । এডিসন মাত্র ৩ মাস স্কুলের শিক্ষা লাভ করেছিলেন এবং তিনি ছিলেন আংশিকভাবে বধির । ১৯১৪ সালে ৬৭ বৎসর বয়সে টমাস এডিসনের কয়েক মিলিয়ন ডলারের কারখানা আগুনে বিনষ্ট হয় । কারখানাটির বিমা করা ছিল না । বয়স্ক এডিসন দেখলেন তার জীবনের সমস্ত প্রচেষ্টার ফলশ্রুতি ভস্মে পরিণত হল এবং তিনি মনে মনে বললেন, "বিপর্যয়ের মধ্যে একটা মহৎ শিক্ষা আছে, আমাদের সমস্ত ত্রুটি বিচ্যুতি পুড়ে ছাই হয়ে গেল। আল্লাহ্‌কে ধন্যবাদ আমরা আবার নতুন করে শুরু করব ।" এই বিপর্যয় সত্ত্বেও মাত্র ৩ সপ্তাহ পরে তিনি 'phonograph' যন্ত্র আবিষ্কার করেন । কি অসাধারণ গঠনমূলক দৃষ্টিভঙ্গি ! তাই দুর্বল মানসিকতার মানুষ কখনই সফলতা লাভ করতে পারবে না । সফলতার জন্য প্রয়োজন প্রবল ইচ্ছা, অক্লান্ত পরিশ্রম, অসাধ্য সাধন করার জ্বলন্ত আকাঙ্ক্ষা ও গঠনমূলক দৃষ্টিভঙ্গি । তাই এই জ্বর ই হোক ফরেক্স জয়ের প্রথম সিঁড়ি।
  3. indicator problem

    কাজল ভাই, তানভীর ভাই অনেক সুন্দর করে বলেছেন তবুও তার সাথে আমি আর একটু যোগ করলাম, ইন্ডিকেটরগুলি প্রধানত: দুই উপায়ে ক্রয় এবং বিক্রয় সিগনাল তৈরী করে থাকে-ক্রসওভার (Crossovers) এবং ডাইভারজেন্স (divergence)। ক্রসওভার দেখা দেয় যখন ইন্ডিকেটরগুলো একটি গুরুত্বপূর্ণ লেভেলের মধ্য দিয়ে য়ায় অথ্যাৎ মোভিং এ্যাভারেজের মধ্য দিয়ে যায়। এটি সিগনাল দেয় যে, ইন্ডিকেটরটির ট্রেড বদলাতে শুরু করেছে এবং এই ট্রেড পরিবর্তন সিকিউরিটিজটির মূল্যের(price) কিছু নড়াচড়া বা পরিবর্তনের আভাষ দেয়। উদাহরনস্বরুপ, যদি আরএসআই (Relative Strength Index) ক্রস করে ৭০ এর নিচে নেমে যায় এটি সিগনাল দেয় যে, সিকিউরিটিজটি ওভারবট অবস্থা থেকে দুরে সরে যাচ্ছে এবং এটি তখনই দেখা দেয় যখন সিকিউরিটিজটির দাম নীচে নামে। ইন্ডিকেটরগুলির দ্বিতীয় ব্যবহার হচ্ছে ডাইভারজেন্স যেটি দেখা দেয় যখন মূল্যের ট্রেড (Price Trend) এবং ইন্ডিকেটরের ট্রেন্ড (indicator Trend)পরস্পর বিপরীত দিকে চলে। এটি সিগনাল দেয় যে, মূল্যের ট্রেন্ডটি ক্রমশ: দূর্বল হচ্ছে। দুই ধরনের ডাইভারজেন্স রয়েছে- পজিটিভ (Positive) এবং নেগেটিভ (Negative) । পজিটিভ ডাইভারজেন্স দেখা যায় যখন ইন্ডিকেটর উপরের দিকে উঠতে থাকে এবং সিকিউরিটিব এর মূল্য নীচের দিকে নামতে থাকে। এ বুলিশ (bulish) সিগনাল বলে যে, গতিধারাটি বিপরীতমূখী হতে শুরু করেছে এবং ট্রেডারগণ শীঘ্রই নেগেটিভ ডাইভারজেন্স একটি বিয়ারিশ (bearish) সিগনাল দেয় যাতে গতিধারাটি উপরের দিকে উঠতে বেশ দূর্বল হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে , ধরুন আরএসআই ট্রেন্ড উপরের দিকে উঠেছে এবং সিকিউরিটিজএর মূল্য নীচের দিকে নামছে। এই নেগেটিভ ডাইভারজেন্স বলে যে, যদিও মূল্য নীচে পড়ে আছে, যেটা আরএসআই দেখাচ্ছে , ট্রেডারগন আশা করতে পারে যে, বুল (bulls) পুণরায় নিয়ন্ত্রণ নিতে যাচ্ছে এবং ইন্ডিকেটরটির ভবিষ্যৎবাণী সত্য হবে। টেকনিক্যাল বিশ্লেষণে ইন্ডিকেটরগুলি অতীব কার্যকরী উপাদান হিসেবে কাজ করে । এই ইন্ডিকেটরগুলি সিকিউরিটিজএর ১) মোমেনটাম , ২) ট্রেন্ড , ৩) ভোলাটাইটি ইত্যাদি দেখে যার দ্বারা ট্রেডারগণ ভাল সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে, কোন একটি ইন্ডিকেটর দ্বারা ক্রয়-বিক্রয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার চেয়ে এর সাথে মূল্যের নড়াচড়া , চার্ট প্যাটার্ণ এবং অন্য আরও ইন্ডিকেটর ব্যবহার করলে সবচেয়ে ভাল ফল পাওয়া যায়। টেকনিক্যাল বিশ্লেষণের ধরণ ও সীমাবদ্ধতা টেকনিক্যাল বিশ্লেষণের প্রধান বিষয় হচ্ছে ট্রেন্ড। টেকনিক্যাল বিশ্লেষণের তিনটি ধরণ রয়েছে যা নিম্মরুপ- ১) ট্রেন্ডকে অনুসরণ করে এমন ইন্ডিকেটর Moving Average (MA) Moving Average Convergence-Divergence (MACD) Average Directional Index (ADX) ২) ওসসিলেটরস Stochastics Rate-of-Change (ROC) Commodity Channel Index (CCI) ৩) সেন্টিমেন্ট ইন্ডিকেটর Put-Call ratios Commitment of Traders Report Data টেকনিক্যাল বিষয়গুলি ট্রেডারদের মূল্যবান মূলধন বৃদ্ধির লক্ষ্যেই নিবেদিত। তবুও এটি অনেকসময় একটি কারণে পিছিয়ে আছে- এটি ট্রেডারদের বর্তমান মূল্য অনুযায়ী ভবিষৎ করণীয় কি হবে এবং কিভাবে তা সার্বিক মার্কেট চিত্র কর্তৃক প্রভাবিত। যেমন ধরুন- একটি ষ্টকের MACD পজিটিভ, মানে উর্ধমূখী। এটি ভাল তথ্য কিন্তু এই নিম্মবর্ণিত বিষয়গুলির উত্তর মেলেনা- এই ট্রেন্ডটি কি নতুন না পুরাতন? পরিপক্ক কি না ! এই উর্ধমূখী ট্রেন্ডটি কতদূর যাবে? মূল্য টার্গেট কত ! এই বিষয় দুটি নিজস্ব ধ্যান ধারনায় পার হতে হবে।
  4. দুরন্ত পথিক -২

    Wish you all the best
  5. দুরন্ত পথিক -২

    Wish you All the best............
  6. EMA= Exponential Moving Average, MA = Moving average, SMA= Simple Moving Average, L/WMA= Linear or Weighted Moving Average
  7. Eid Mubarak..........

  8. Great work vaiya...ekkothai outstanding effort...very much appriciated vaiya...thanx a lot and Eid Mubarak..
  9. MT4 A Multi Account Manager (MAM)Kivabe use korte hoi? Plz vaiya keu ki bolben?
  10. nice post...thanx...ভাইয়া, Assalamulaykum, kemon achen? vaiya MT4 a Multi account manager (MAM) kivabe use korte hoi ekto bolben plz vaiya....PM me..
  11. Chart Pattern updated with Triangles, Flag and Pennant http://bdpips.com/to...chart-patterns/

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×