Jump to content

masteroffx2018

Members
  • Content count

    10
  • Joined

  • Last visited

  • Days Won

    3

masteroffx2018 last won the day on May 18

masteroffx2018 had the most liked content!

Community Reputation

4 Neutral

About masteroffx2018

  • Rank
    My charts talks to me

Contact Methods

  • Website URL
    https://www.facebook.com/mbfxguru
  • Skype
    live:masteroffx2018

Profile Information

  • Gender
    Male
  • লোকেশন
    Canada
  1. আসুন আজ আমরা জেনে এই এমন একজন কিংবদন্তী ফরেক্স ট্রেডারের সম্পর্কে, যাকে বলা হয়, “ দ্য ম্যান, যিনি ব্যাংক অব ইংল্যান্ডকে ভেঙ্গে দিয়েছেন!” শান্তির এই পৃথিবীতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলছে।চারিদিকে হামলা আর হামলা। ভেঙ্গে পড়েছে ইতালী ও জাপানের শাসন ব্যবস্থা। এদিকে হিটলার তার ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে শুরু করেছেন ইহুদী হত্যা। হাঙ্গেরি নামের একতি রাজ্য ছিল সেই সময় জার্মানির দখলে। আজ যা স্বাধীন হাঙ্গেরি দেশ নামে পরিচিত। সেসময়ের এই হাঙ্গেরী রাজ্য থেকে হিটলারের হামলার খবর পেয়ে প্রান বাচাতে নিজের দেশ ত্যাগ করলেন ছোট্ট এক বালক তার বাবাকে সাথে নিয়ে।তাদের ভয়, তারা ইহুদী। হিটলারের নাৎসি বাহিনী যদি তাদের খবর পেয়ে যায়, তবে তাদেরকেও মেরে ফেলবে! দীর্ঘদিন পালিয়ে বেরিয়ে, একবেলা খেয়ে না খেয়ে অবশেষে ইমিগ্রেশন নেন ইংল্যান্ডে। এদিকে ২য় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়ে যায়। হিটলারের শাসনেরও পতন হয়। এই বালক ও তার পরিবার আর নিজের দেশে ফিরে যান না। থেকে যান ইংল্যান্ডেই। শুরু করেন পড়াশোনা। গ্রাজুয়েশন ও পোস্ট গ্রাজুয়েশন করেন ইংল্যান্ড থেকেই ফিলসফি বিষয়ের উপরে। এরপর নেমে পড়েন কারেন্সী লেনদেনের ব্যবসায়। নানান চড়াই উতরাই পার হয়ে আসা এই মানুষটি আলোচনায় আসেন ১৯৯২ সালে। ১৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৯২ সালে UK Currency Crisis নিউজের উপর ফান্ডামেন্টালি এনালাইসিস করে তিনি GBP কারেন্সীর উপরের সেল ট্রেড নিয়েছিলেন এবং এই ট্রেডে তিনি ১ বিলিয়নেরও বেশি প্রফিট করে ফেলেন। যে দিনটিকে ফরেক্স এর ইতিহাসে Black Wednesday বলা হয়। আর এই মানুষটি হয়ে যান ফরেক্স এর ইতিহাসে এক অনন্য ব্যক্তিত্ব। মুলত তার এই ট্রেড ফরওয়ার্ড করা হয়েছিল খোদ The Bank of England এর ফান্ডে। অর্থাৎ এখানে লিকুইডিটি প্রোভাইডার হিসেবে ছিলেন এই ব্যাংকে। সুতরাং প্রফিতের পুর অর্থ এই ব্যাংককে দিতে হয়েছিল। এই ব্যক্তির নাম “জর্জ সরোস’। জর্জ সরোসের এই বিপুল পরিমানের প্রফিটের ফলে গোটা ব্যাংকিং সিস্টেম হতবাক ও থমকে গেছিল। এরপর থেকে জর্জ সরোসকে বলা হয়, “The Man, Who broke The bank of England”। স্বভাবতই তিনি তাইই করেছিলেন। জর্জ সরোস বর্তমানে ‘দ্য কোয়ান্টাম এন্ডোমেন্ট ফান্ড’ নামের ফান্ড ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠানের কো-ফাউন্ডার ও ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন। তার প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে ২৭ বিলিয়নেরও বেশি ফান্ড নিয়ে ট্রেড করে যাচ্ছে। তিনি ও তার প্রতিষ্ঠানটি ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিসের সাহায্য নিয়ে মুলত প্রাইস একশন ফলো করে ট্রেড করে থাকেন। আপনি যদি ফরেক্স ট্রেডার হয়ে থাকেন, তবে আপনার নিজের ট্রেডিং পেশার এসকল সফল ও কিংবদন্তী মানুষদের ব্যাপারে আপনার পরিস্কার ধারনা থাকা উচিত। তবেই আপনিও তাদের দেখানো পথ অনুসরন করতে শিখবেন। অন্যথায় পাল বিহীন ও মাঝিবিহীন নৌকা হয়ে মাঝ দরিয়ায় (ফরেক্স মার্কেট) হাবুডুবু খেয়েই যাবেন অনবরত। যতদিন না আপনার সর্ব শেষ শক্তিটুকুও (একাউন্ট ব্যালান্স) একেবারে শেষ না হচ্ছে!! সবার জন্য শুভকামনা রইল। অনেক অনেক ভাল থাকবেন সবাই <3 <3 <3
  2. USA এর ট্রাম্প সরকার নানা দিক দিয়ে ইরানের উপরে আরও অবরোধ বাড়াতে চায়। মধ্যপ্রাচ্যে তাদের একমাত্র হুমকী ইরান বলেই মনে করে তারা। এদিকে এমন পরিস্থিতির মুখেই ইরাক সরাসরি ঘোষনা দিয়েছে তারা ইরানের উপর আমেরিকার কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দেবে না। রাশিয়াও গত পরশু কাস্পিয়ান সাগর ব্যবহার করে তাদের বানিজ্য প্রসারে ইরানের সাহায্য নেবে মর্মে চুক্তিও করে ফেলেছে। এটিও ট্রাম্প সরকারের উপরে চাপ ফেলেছে প্রচুর পরিমানে। এদিকে ইরান তাদের বানিজ্যিক চুক্তি বাড়িয়ে পাকিস্তানের সাথেও গতকাল বৈঠক করে ফেলেছে। উভয় দেশ সকল বৈরিতা মোকাবেলায় একে অপরের পাশে থাকবে বলে সম্মতিও হয়েছে!! অন্যদিকে ট্রাম্প সরকার তার দেশে চায়নিজ পন্যের শুল্ক কয়েকগুন বৃদ্ধি করার মৌন প্রতিশোধ হিসেবে চিনও ঘোষনা দিয়েছে, তারা ইরানের উপর আর কোন অবরোধ দেখতে চায় না। আমেরিকার বন্ধুরাষ্ট জার্মানির এঞ্জেলা মার্কেলও ঘোষনা দিয়েছে তারা ইরানের উপরে আমেরিকার অবরোধ আরোপের চিন্তাকে সমর্থন করেনা।তারা আলোচনা করে সমস্যা সমাধানের পক্ষে। এতোসব ঘটনার মাঝে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা, আয়াতুল্লাহ খোমেনী প্রকাশ্যে ঘোষনা দিয়েছে, আমেরিকার সাথে এবার যদি তাদের নুন্যতম কোন যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি হয়,তবে তারা কোন আলোচনার চিন্তাও করবেনা। সরাসরি আক্রমন করা শুরু করে দেবে।আর তার উপরে একটি ক্ষেপনাস্ত্রের জবাব তারা ১০ টি ক্ষেপনাস্ত্র দিয়ে দেবে। এতসবের প্রেক্ষিতে ট্রাম্প সরকার বর্তমানে বুদ্ধিবৃত্তিমুলক সমস্যায় ভুগছেন। তার কোন সিদ্ধান্তই সঠিকভাবে কাজ করছে না। পায়ের নিচে থাকা ইরাকও আজ মুখের উপর কথা বলছে, আফগান সিরিয়ায় চরম বিপর্যয়ের পর বর্তমানে সারা বিশ্ব থেকে এমন চোখ রাঙ্গানী, সব কিছু মিলিয়ে USD এর মুল্যমান চরম অস্থিতিশীল অবস্থায় সময় পার করছে। আর তাই ইউএস ডলারের দুর্বল হবার আশংকাই অনেক বেশি হয়ে দেখিয়েছে।যা ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে কিছু কিছু কারেন্সী পেয়ারে। তবে ট্রাম্প সরকার গুরুত্বপুর্ন কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারলেই কেবল এমন সংকটময় অবস্থা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এখন দেখার পালা, কেমন পদক্ষেপ নেয় ট্রাম্প সরকার নিজেদের অবস্থান শক্তপোক্ত করতে। সবাইকে আন্তর্জাতিক নিউজ সম্পর্কে ধারনা রাখার জন্য অনুরোধ করা হল, কারন এসব নিউজের ইফেক্ট আপনাকে নিমিষেই আপনার সকল টেকনিক্যাল এনালাইসিসকে বোকা বানিয়ে আপনাকে লুজার বানিয়ে দিতে পারে, আবার যদি ভালভাবে নিউজ ধরে ধরে ট্রেড করতে পারেন, তবে নিয়মিত ও ভালভাবে প্রফিটও করে যেতে পারেন অনায়াসে। সকলের জন্য শুভকামনা রইল <3 <3 <3 Trade with real ECN broker:
  3. #USDJPY D1 চার্টে আমরা দেখতে পাচ্ছি Head & Shoulder প্যাটার্ন তৈরী করেছে, এমনকি উপর থেকে আসা একটা ডাউনট্রেন্ড লেভেল ব্রেক করেও ফেলেছে। আবার নিচের দিক থেকে আপট্রেন্ড কন্টিনিউ করেই চলেছে। এখন এন্ত্রি কনফার্মেশনের অপেক্ষা শুধু। আপনার নিজের ট্রেডিং স্ট্রাটেজীতে যদি এমন পজিশনে কোন এন্ট্রি কনফার্মেশন পেয়ে যান, তবে সুন্দর একটা এন্ট্রি পেয়ে যাবেন, এমন আশা করছি। পরিশেষে, ইরান ও রাশান নেতাদের বৈঠক ইস্যুতে আমেরিকাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রাশিয়া কাস্পিয়ান সাগরে ইরানের সাথে বানিজ্য কন্টিনিউ রাখার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে কি সিদ্ধান্ত নেবেন ট্রাম্প সরকার, এমন সকল ইউএস এর বানিজ্যিক সংক্রান্ত ইস্যুর দিকে নজর রাখা উচিত ফান্ডামেন্টালি। কারন ট্রাম্প প্রশাসনের একটি সিদ্ধান্ত ইউএসডি কারেন্সির মুভমেন্ট যে কোন দিকে ঘটাতে পারে। তাই, সেদিকেও একটি চোখ দিয়ে রাখা উচিত। সবার জন্য শুভকামনা রইল। Trade with real ECN Broker:
  4. আপনি সাধারন যে কোন একটি ব্যবসা করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাহলে কি করবেন? প্রথমে সেই ব্যবসা সম্পর্কে ধারনা নেবার চেষ্ঠা করবেন। তা ইউটিউব, অনলাইন বিভিন্ন আর্টিকেল, পত্রিকা ইত্যাদি থেকেই মুলত বেশি চেষ্ঠা করবেন। তাই না? কারন এসব অনলাইন মাধ্যম থেকে বিভিন্নজনের মন্তব্যও জানতে পারা যায়, যারা কিনা আগে থেকেই এই ব্যবসা করছে। আপনি অনলাইনেই তাদের স্বচ্ছলতার কথা শুনে পুলকিত হোন, আপনার ভাল লাগে এই ভেবে যে এই ব্যবসা করলে আপনিও এমন স্বচ্ছল অবস্থায় যেতে পারেন। এরপর কি করেন আপনি? অনলাইন থেকে তথ্য ও বিভিন্নজনের মন্তব্য জানার পর থেকেই কি ব্যবসা শুরু করেন? উত্তর হবে না। কারন এতো কিছু জানার পরেও এই ব্যবসায় স্বচ্ছল হওয়া অভিজ্ঞ ঐসব লোকেদের মাঝে যার সঙ্গে আপনার পক্ষে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়, তার কন্ট্যাক্ট নাম্বার নিয়ে হলেও আপনি তার সাথে সরাসরি কথা বলেন, প্রয়োজনে তার বাসায় যান। কেউ কেউ উনাদের সাথে কিছুদিন থাকারও চেষ্ঠা করেন ব্যবসা ভালভাবে বোঝার জন্য। এরপর নিজে নিজে সেই ব্যবসা শুরু করার চেষ্ঠা করেন। আমার উপরের বক্তব্যের সাথে কি আপনি দ্বিমত পোষন করবেন? যদি করেন, তবে এই লেখা আপনার জন্য নয়। আপনি এভোয়েড করতে পারেন আমাকে। আর যদি একমত হোন, বা একমত হবেন কি না বুঝতে পারছেন না, তারাই লেখাটা পড়বেন। লেখাটা পড়ার পরই একটা সিদ্ধান্তে আসতে পারবেন আশা করি। উপরের বিষয় হতে এটা পরিস্কার হওয়া যায় যে, আপনি যাই করেন না কেন, যে কাজই শুরু করতে যান না কেন, নিজে নিজে চেষ্ঠা করলে সেসকল কাজ সম্পর্কে বেসিক একটা আইডিয়া পাওয়া যায় মাত্র। প্রফেশনাল হতে হলে প্রফেশনাল কারও সংস্পর্শে থাকাটা জরুরী। তাহলে আন্তর্জাতিক মুদ্রা লেনদেনের ব্যবসাক্ষেত্র ফরেক্স মার্কেটে ব্যবসা করতে আসলে কেন বয়ান করেন যে, নিজে নিজে চেষ্ঠা করেন তাহলে শিখে যাবেন, নিজে নিজেই ফরেক্স এর সব শিখতে পারবেন, নিয়মিত প্রফিট ভী করতে পারবেন, ইত্যাদি ইত্যাদি!! আপনার জানা মতে এমন কোন প্রফেশনাল ট্রেডার আছে, যারা নিজেরা নিজেরাই শিখে প্রফেশনাল হতে পেরেছে? যারা প্রফেশনাল, খোজ নিয়ে দেখবেন তারা নিশ্চয়ই কোন না কোন মেন্টরের সাপোর্ট নিয়েই কোন না কোন বিষয়ে এক্সপার্ট হয়েছে। তবেই না তারা প্রফেশনাল হতে পেরেছে। এই মেন্টরশিপ হতে পারে অফলাইন বা অনলাইন যে কোনটা। মেডিকেল ভর্তি হয়ে অভিজ্ঞ চিকিতসকের অধীনে থেকে সার্জারি অপারেশন করা না শিখলে শুধু বই পরে কোনদিন আপনি অপারেশন সার্জারি করা শিখতে পারবেন না, এটা কি বিশ্বাস করেন? বই বা আর্টিকেল আপনাকে বেসিক আইডিয়া জানাবে, কিন্ত প্র্যাকটিক্যাল, সাইকোলজিক্যাল? তার জন্য চাই সরাসরি তত্বাবধান। অনেকে আবার ভিডিও টিউওরিয়াল দেখেই সব শিখতে চায়। আমি মানছি ভিডিও টিউটরিয়াল দেখে সরাসরি শেখার মতই জানতে পারেন। কিন্ত শেখার মাঝে কোন প্রশ্ন মনে আসলে তা কিভাবে করবেন আপনি? আর হ্যা, সেই প্রশ্ন না করার কারনে বা প্রশ্নের উত্তর না পাবার কারনে আপনার মনে ভুল তথ্য জমা হয়ে থাকতে পারে, যা আপনাকে লুজার বানাতে যথেষ্ঠ। আশা করি পরিস্কার বুঝতে পারছেন আমার কথা। এবার আসুন সঠিক গাইডলাইনের কথায় আসি, যার মাধ্যমে আপনি ধীরে ধীরে প্রফেশনাল ট্রেডারের পর্যায়ে যেতে থাকবেনঃ ð যে কোন ব্যবসা করতে যান, যে কোন একটা আইটেমের পন্য নিয়েই ত আপনি ব্যবসা শুরু করবেন। তাই না? তাহলে ফরেক্স করতে এসে কেন আপনি একাধারে ২৮ টি পেয়ার নিয়ে আপনার চর্চা শুরু করে দেন? আপনি কি জানেন, একেকটি পেয়ার একেকটা আলাদা আলাদা দেশের অর্থনৈতিক বিষয়কে প্রতিনিধিত্ব করে? আপনি কেবল ফরেক্স ট্রেডিং শিখছেন, সেখানে আপনি এক সাথে ২৮ টি পেয়ার নিয়ে এনালাইসিস করার মত ভুল পরামর্শ কই থেকে পান? যা আপনাকে শুধু লসই করে দিতে পারে? ð যে কোন একটা স্ট্রাটেজী ভালভাবে শিখে নির্দিষ্ট কোন কারেন্সী পেয়ারে তা প্রয়োগ করতে থাকুন ও টানা ৫-৬ মাস তা ফলো করে যান। লাভ হোক বা লস হোক, অন্ধের মত এটা ফলো করবেন আপনি। কয়েকটা ট্রেড লস হলেই ধুম করে সিদ্ধান্ত নেবেন না যে, এটি বোধহয় খারাপ স্ট্রাটেজী, এটা দিয়ে হবে না, এটা চেঞ্জ করে ফেলি!! এমন করতে থাকলে সারা জীবনই শুধু স্ট্রাটেজী চেঞ্জ করতে করতে ও লস করতে করতেই আপনার সময় চলে যাবে! লসগুলো রিকভার করা ও প্রফিট করা আর হয়ে উঠবে না। ð কোন স্ট্রাটেজীর ব্যাক টেস্ট করে যদি দেখতে পান, কোন স্ট্রাটেজী কোন একটি নির্দিষ্ট পেয়ারে ভাল কাজ করছে। তাহলে সেই স্ট্রাটেজী দিয়ে ঐ একটা পেয়ারেই ট্রেড করতে থাকুন। ভুলেও একের অধিক পেয়ারে এপ্লাই করতে যাবেন না। মনে রাখবেন, মাছের ব্যবসার সিস্টেম দিয়ে আলুর ব্যবসা করতে পারবেন না। আবার পিয়াজ রসুনের ব্যবসার সিস্টেম দিয়ে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা করতে পারবেন না। তাহলে কোন যুক্তিতে আপনি একটি ট্রেডিং সিস্টেম দিয়ে একাধিক পেয়ারে ট্রেড করার সাহস পান? আবার নিয়মিত প্রফিটও করতে চান? যেখানে আলাদা আলাদা দেশের মুদ্রা আছে, ভুলে যাবেন না আলাদা আলাদা দেশ মানে আলাদা আলাদা অর্থনৈতিক ব্যবস্থা। যেমন সাধারন ব্যবসায় আলাদা আলাদা পন্য হচ্ছে মাছ, আলু, রসুন ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসাও!! ð তাহলে আপনি কি পেলেন?নির্দিষ্ট একটা পেয়ার বেছে নিলেন, ভাল একটা স্ট্র্যাটেজী হাতে পেলেন। এবার চর্চা শুরু করুন। ৫-৬ মাস ডেমোতে চর্চা করুন। এর সাথে সাপোর্ট রেসিস্ট্যান্স ও ট্রেন্ডলাইন ফলো করতে শিখুন। ভুলেও ট্রেন্ড লাইনের বিপরিতে ট্রেড করতে যাবেন না। আবার সাপোর্ট বা রেসিস্ট্যান্স লেভেলেও উলটো ট্রেড প্লেস করবেন না। এগুলো আপনার ট্রেডিং সিস্টেমকে ইউনিক ও আরও প্রফিটেবল করে তুলবে। ট্রেডলাইন ও সাপোর্ট রেসিস্ট্যান্ট লেভেলগুলো দ্বারা আপনি আপনার লসের সম্ভাবনার ট্রেডগুলোকে ফিল্টারিং করে ফেলতে পারেন। আর আপনার ট্রেডিং লাইফকে করে তুলতে পারেন প্রফিটেবল। <3 ð ভুলেও অন্য পেয়ারে যাবেন না, অন্যের প্রফিট দেখে তার দিকে নজর দিতে যেয়ে নিজের সিস্টেমকে অকেজো মনে করবেন না। নিজের কাজ নিয়ে থাকুন, প্রফেশনাল কোন মেন্টরের তত্বাবধানে থেকে এগুলি ফলো করতে পারলে আপনি আরও বেশি পারফেক্ট হয়ে উঠতে পারবেন সহজেই। আপনার ভুল করার সম্ভাবনা একেবারেই কমে যাবে। কারন সেই মেন্টর আপনার ভুল ধরিয়ে দেবে। এতে আপনার সাইকোলজি পজিটিভ হতে শুরু করবে, নিজের উপর কন্ট্রোল আসতে শুরু করবে। ভুলে যাবেন না, আর্মি বা সেনাবাহিনীর ট্রেনিং এ সবসময়ের জন্য একজন মেন্টর থাকে। যার নাঙ্গা লাঠির বাড়ী খাবার ভয়েই সেনারা ত্রুটি মুক্ত ট্রেনিং করে যেতে পারে। ফলে একেকজন চৌকস প্রতিরক্ষাবাহিনীর সদস্য হয়ে গোটা জীবন রুটিন মাফিক নিজেদের রাষ্ট্রকে রক্ষা করে যেতে পারে চৌকস থেকেই। নিজে নিজে কয়েক জনম চেষ্ঠা করেও সেই ট্রেনিং আপনি নিজের মাঝে নিতে পারবেন না। এটা সম্ভব হয় না। ফরেক্স ট্রেডিংও ঠিক তেমনি। আশা করি বুঝতে কোন অসুবিধা হচ্ছে না কোন প্র্যাকটিক্যাল কিছু ভালভাবে আয়ত্ত করতে হলে মেন্টরের গুরুত্ব কতটুকু। ð এবার ফান্ডামেন্টাল বিষয়ে একটু ধারনা দেই। ট্রেড করার জন্য যে কোন একটা কারেন্সি পেয়ার বেছে নিন। এরপর সেই পেয়ারে থাকা দুই দেশের অনলাইনে যে কয়টা পাওয়া যায়, ইংরেজী ভাষার নিউজ পোর্টাল এর লিংক বুকমার্ক করে রাখুন। এবার সেই অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোর উপরে রেগুলার চোখ বুলাবার দেখার চেষ্ঠা করুন। অর্থনৈতিক পেইজ ভিজিট করার চেষ্ঠা করবেন বেশি। ডেইলি আপডেট জানার চেষ্ঠা করবেন। প্রয়োজনে নোট করে রাখবেন সেগুলো। সেই দেশের কারেন্সির উপরে ফান্ডামেন্টাল একটা বেইজ তৈরি হবে আপনার মাঝে ধীরে ধীরে। যা আপনাকে ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস বুঝতে ও শিখতে সাহায্য করবে। যদিও আরও বিষয় আছে ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস এর ভিতরে। তবে আমি যা বললাম তা আপনাকে একটা ফান্ডামেন্টাল বেইজ তৈরি করে দিতে সাহায্য করবে মাত্র। বাকি বিষয়গুলো আপনি আরও বেশি স্টাডি করলে আরও পরিস্কার হতে পারবেন বা আপনার ফরেক্স গুরু বা মেন্টরদের কাছ থেকে ভালভাবে জানতে পারবেন আশা করি। ð সর্বশেষ বলি, যে প্রফিট করে, সে লাল শাক বিক্রি করেও প্রফিট করে। আর যে প্রফিট করতে পারে না, সে অন্যের মুখে শুনে স্টক মার্কেটে কোটি টাকার শেয়ার কিনেও ফতুর হয়ে যায়। লাখ লাখ রুপি খরচ করে বিশাল ব্যবসা দাড় করিয়েও কয়েক মাসের লসে একেবারে নিঃস্ব হয়ে যায়। সুতরাং ব্যবসাকে মন থেকে ভালবাসতে শিখুন। নিজের সন্তানের মত মনে করুন। দুই একটি ট্রেড ভুল হলেই যে সেই ট্রেডিং সিস্টেম বাদ দিয়ে নতুন সিস্টেম ফল করা শুরু করবেন এমন মেন্টালিটি ত্যাগ করুন। সন্তান দুই একটা ভুল করলে বাবা-মা কিন্ত সন্তানকে বাদ দিয়ে নতুন সন্তান নিয়ে আবার শুরু করতে চায় না। আগের সন্তানকেই বুঝিয়ে শুনিয়ে ভালভাবে বেড়ে তোলার চেষ্ঠা করে। আপনিও তাই করুন না। আপনার ট্রেডিং সিস্টেমকে আদর দিয়ে, আন্তরিকতা দিয়ে ভালভাবে কন্টিনিউ ফলো করার মাধ্যমে ধীরে ধীরে আপনার একাউন্ট ব্যালান্সকে বড় করে তুলুন। তবেই না আপনি নিজেকে সফল ট্রেডার হিসেবে মনে করতে পারবেন। তা নয়তো বৃদ্ধাশ্রমে জায়গা পাওয়া বাবা-মায়ের মত আপনিও দেনার দায়ে, লোনের দায়ে, ফরেক্স মার্কেটে লুজার হয়ে নিজেকে একসময় আত্মবন্দি করে ফেলবেন। আর এমন নিদারুন ভাবেই আপনার মুল্যবান জীবনের করুণ ইতি ঘটতে পারে। নিশ্চয় আপনি তা চান না। আমরা কেউই তা চাই না। সুতরাং ফরেক্স নামের বিশাল সম্ভাবনাময় মার্কেটে যদি নিয়মিত আপনার রিজিক সন্ধান করতেই চান, তবে ভালভাবে ও সঠিকভাবেই শুরু করুণ না। কেন আপনার মুখ দিয়ে এমন কথা বের হবে- “দাদা, আমি ফরেক্স করছি ৩-৪ বছরেরও বেশি সময় ধরে, কিন্ত আজও ভাল ট্রেডিং সিস্টেম পাইনি, আর হাজার হাজার ডলার লস করে ফেলেছি! প্লিজ আমায় একটু সাপোর্ট দিন না!!” পরিশেষে, আপনার সার্বিক দিক দিয়ে সাফল্য কামনা করছি। আর আমার লেখা এখানেই শেষ করছি। সবাই ভাল থাকবেন। সকলের জন্য শুভকামনা রইল।। আমার অন্যান্য লেখাগুলো আমার ফেসবুকে দেখতে পারেনঃ M B FX Facebook Trade with real ECN broker:
  5. ব্রোকার নিয়ে অনেক ভ্রান্তি ও ভুল ধারনা রয়েছে অনেকের মাঝে। অনেকে আবার ভুল জানার কারনে অনেক ব্রোকারকেও ভুল বুঝে থাকেন। অনেকে আবার ভুল জানার কারনে অন্যদেরও ভুল জানাতে সাহায্য করছেন। যার ফলে ফরেক্স মার্কেটে ভাল ব্রোকার যে আসলেই কোনটা, এটা নিয়ে নতুন পুরাতন সকল ট্রেদারের মাঝেই এক ধরনের দুশ্চিন্তা বা উৎকন্ঠা কাজ করে। আজ ব্রোকার বিষয়ক অল্প কথায় সঠিকভাবে জানানোর চেষ্ঠা করব সবাইকে। যাতে এরপর হতে কেউ ভুল ধারনার স্বীকার না হতে পারেন। প্রথমে আসি মার্কেট মেকার ব্রোকার এর কথায়। সারা বিশ্বে ৯০% ব্রোকারই মার্কেট মেকার। এটা আপনাকে জানতে হবে ও মানতেই হবে। এখানে ডিলিং ডেস্ক সুবিধা থাকে। যার কারনে বড় বড় ইনভেস্টর বাই ফোনে ব্রোকারে থাকা ডিলারদের সাহায্যে ট্রেড ওপেন বা ক্লোজ করে থাকে উন্নত বিশ্বে। এটিই ফরেক্স মার্কেটের আদিমতম সিস্টেম। শুরুর দিকে যখন শুধু লাইসেন্সপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা এই মার্কেটে ব্যবসা করার অনুমতি পেত, তখন এভাবেই তারা ব্রোকারদের সাহায্য নিয়ে তাদের ট্রেড পরিচালনা করত। আজও বিভিন্ন স্টক মার্কেটে এই সিস্টেম চালু আছে। অনেকেই এই ডিলিং ডেস্ককে নেগেটিভ ভাবে প্রচার করতে চেষ্ঠা করে। ফলে নো ডিলিং ডেস্ক ব্রোকারগুলো নিজেদের ফলাও করে প্রচার করে যে তারা ডিলিং ডেস্ক এর কল সিস্টেম এলাউ করে না। তবে বর্তমানে বিশ্বায়নের যুগে এমন পুরাতন সিস্টেমের দরকারও পড়ে না। বিশ্বে কোটি কোটি ট্রেদার, এদের ট্রেদ যথাসময়ে মার্কেটে প্লেস করতেও প্রচুর ব্রোকার ডিলার দরকার হত, যা বাস্তবে নিয়গ দেওয়া সম্ভব হবে না। তাই এমটি ফোর, বা বিভিন্ন প্লাটফর্ম দিয়ে তারা ট্রেডারদের অর্ডার রিসিভ করে। তবে এখান থেকে একটা বিষয় পরিস্কার যে, মার্কেট মেকার ব্রোকারে ট্রেদারের ট্রেড আগে নিজেদের কাছে রিসিভ করে, এরপর মার্কেটের ফান্ডে ফরওয়ার্ড করে দেয়। আর এটা করতে গিয়ে কখনো ট্রেড ওপেন হতে একটু সময় নেয়, কখনও মার্কেট ক্যান্ডেল স্পাইক মারে, আগের মুভমেন্ট চার্টে দেখাতে ফেইক ক্যান্ডেল তৈরি করা, এমন আরও কিছু সমস্যা দেখা যায়। বিশেষ করে নিউজ টাইমের ট্রেডের ক্ষেত্রে। মার্কেট এত দ্রুত মুভ করে যে, ক্লায়েন্টের ট্রেড রিসিভ করে প্লেস করতে করতে মার্কেট অনেক মুভ করে ফেলে। যার ফলে নিউজ টাইমে এসব ব্রোকারে ট্রেড করা নিয়ে অনেক অভিযোগ শোনা যায়। তবে বড় বড় ইনভেস্টর যখন এসব ব্রোকারের সাথে ডিল করে, তখন অনেক বিষয় তারা চুক্তিবদ্ধ হয়েই ডিল করে। আর সেখানেই তারা তাদের ফান্ড সিকিউরিটি নিয়ে রাখে। কিন্ত সমস্যা হয় এশিয়ান বা অন্য দেশের ব্যক্তিগত ট্রেডারদের ক্ষেত্রে। তারা তো এসব স্পাইক, ফেক ক্যান্ডেল প্রটেকশানের জন্য কোন ডিল করতে পারেনা ব্রোকারের সাথে, ফলাফল কি হয়? কোন অভিযোগ প্রমাণ সহ দেখালে তারা স্রেফ “we are Sorry” টাইপের বিনয় দেখিয়ে খালাস। আর আপনি কি করেন এমন ভুক্তভোগী হয়ে? দুই একদিন ফেসবুকে বিষেদাগার করে আবার ভুলে যান। সবাই ভুলে যায় সেই কথা। তাই না? আরও একটি অভিযোগ বারবার দেখা যায় মার্কেট মেকার ব্রোকারের বিরুদ্ধে। তা হচ্ছে, তারা ট্রেডারদের ট্রেডের বিরুদ্ধে ট্রেড নেয়। এজন্য নাকি ট্রেডারেরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। কিন্ত আসলে কি তাই? আসুন আমরা একটু দেখি বিষয়টাঃ মার্কেট মেকার ব্রোকার ট্রেদারদের ট্রেদ রিসিভ করে কোন লিকুইডিটি প্রোভাইডারের ফান্ডে ফরওয়ার্ড করে দেয়। এখানে লিকুইডিটি প্রোভাইডার বলতে বিভিন্ন ইন্তার ব্যাংক, বড় বড় ফাইন্যান্সিয়াল ফার্ম বা এমন বড় বড় ইনভেস্টর। এর অর্থ হচ্ছে, ঐ সব ইনভেস্টরদেরও বিজনেস আছে এখানে। আপনার ট্রেড তার একাউন্টে প্লেস হলে, আপনি লস করলে সেই লস এমাউন্ট তার ফান্ডে জমা হবে। আপনি প্রফিট করলে সেই এমাউন্ট তার ফান্ড থেকে আপনার একাউন্টে জমা হবে। এখন মার্কেট মেকার ব্রোকার অনেক সময় তাদের ব্যবসার অংশ হিসেবে এই লিকুইডিটি প্রোভাইডারের কাজ নিজেরাই করে। নিজেদের বড় এমাউন্ট রেডি করে ট্রেদারদের ত্রেড অর্ডার সেই ফান্ডে প্লেস করে দেয়। আপনি প্রফিট করলে তা ব্রোকারের সেই ফান্ড থেকে আপনার একাউন্তে আসে। আর লস করলে তা ব্রোকারের সেই ফান্ডে জমা হয়। আর স্প্রেড তো আছেই ব্রোকারের কমিশন হিসেবে। এটা তাদের ব্যবসা। তারা এই ব্যবসা করতেই পারে। আরা তাদের ট্রেদারদের ট্রেদ অর্ডার কোথায় প্লেস করলে তা তাদের ব্যাপার, ঠিকমত প্রফিট বা লস কাউন্ট ও উইথড্র ঠিকভাবে হলেই তো ঠিক আছে। তাই না? তবে এখানে একটু সমস্যা আছে। তা হচ্ছে, বিগ ফান্ড যখন ব্রোকারের নিজের থাকে, আর কোন ট্রেদার যখন হিউজ প্রফিট করতে থাকে, তখন বাড়তি একটু নজর রাখে ব্রোকার তার দিকে। কারন ট্রেডারের এই প্রফিট এমাউন্ট যে তাকে নিজেদের ফান্ড থেকেই দিতে হচ্ছে! আর তাই অনেক সময় স্পাইক দিয়ে, ফেক ক্যান্ডেল দিয়ে, স্লো এক্সিকিউশান দিয়ে হলেও চেষ্ঠা করে বাড়তি কিছু প্রফিট উঠিয়ে নিয়ে আসতে মার্কেট থেকে। কারন ২-৩ পিপ্স এর স্পাইক ফেইক দেওয়া মানে সেখান থেকেই কয়েক হাজার ডলার লস করানো যায় ট্রেদারদের। আর সেসব তাদের ফান্ডেই চলে আসে স্বভাবতই। বুঝতে পেরেছেন আশা করি। তবে এখানে অনেকমার্কেট মেকার ব্রোকার আছে যারা সত্যিই লিকুইডিটি প্রভাইডার বা ইনভেস্টরদের ফান্ডে ট্রেড প্লেস করে দেয় তাদের ট্রেডারদের। আর স্প্রেড তো তাদের কমিশন হিসেবে আসছেই। এর সাথেই তারা আরেকটি কাজ করে থাকে, তা হচ্ছে, যেহেতু ৯৫% লস করে এই মার্কেটে, সেহেতু তারা তাদের ক্লায়েন্ট এর ত্রেডগুলর বিপরিতে নিজেদের একাউন্ট থেকেই সেই লিকুইডিতি প্রভাইডারদের ফান্ডে উলটো ট্রেড ওপেন করে। অর্থাৎ আপনি আপনার একাউন্ট থেকে কোন পেয়ারে বাই ওপেন করলে, তারা তাদের সেই একাউন্ট থেকে একই পেয়ারে সেইম লটে একটি সেল ট্রেড ওপেন করে। এটা তারা এ জন্যই করে যে, ওরা জানে ৯৫% ট্রেডার লস করলে তাদের বিপরীতে ট্রেদ নিলে ৯৫% প্রফিট করা যায় সহজেই। আর এ জন্য ট্রেদারদের ত্রেদের কোন সমস্যাই হয় না। তারা এমনিতেই লস করত। ব্রোকার এর ফায়দা নেয় শুধু ট্রেদারদের উলটো ট্রেড ওপেন করে। আর এখানে পরিস্কার থাকবেন যে, মার্কেট মুভমেন্টকে কেউ ম্যানিপুলেট করতে পারে না। এটা সারা বিশ্বে একইভাবে চলে। সুতরাং আপনার ট্রেদের বিপরিতে কেউ ট্রেদ নিলে আপনার কিছুই যায় আসে না। কারন মার্কেট তার নিজের পথেই চলে সারা বিশ্বে একভাবে। সুতরাং এটা নিয়ে অযথা চিন্তা করবেন না। আরেকটা অভিযোগ জানা যায়, তা হচ্ছে মার্কেটে একজনের লস আরেকজনকে দেওয়া হয়। বিষয়টা কখনোই এমন নয়। প্রথমে আপনাকে বুঝতে হবে আপনি কি করছেন মার্কেটে। কম মুল্যে কারেন্সি কিনে বেশি মুলে বেচে দিচ্ছেন। এখানে আপনার সাথে অন্য ট্রেডারের কি সম্পর্ক? কম মুল্যে সারা বিশ্বের ট্রেডার কারেন্সী কিনে রাখলে কারেন্সি মূল বেশি হলে তা সবাই বেচে দিলে কি সবাই লাভবান হবে না? এটাই তো করছেন আপনি। তাহলে আপনার সাথে আরেকজনের ট্রেদের কি সম্পর্ক? আসলে কোন সম্পর্কেই নাই। আপনারা কেউ মার্কেটে না থাকলেও মার্কেট তার নিজের মতই চলবে। কারন সারাবিশ্বের অর্থনৈতিক লেনদেন চলবেই, মুদ্রার মুল্যমান উঠানামা করতেই থাকবে। তবে সমস্যা একটাই, আর তা হলে ইন্সট্যান্ত এক্সিকিউশান এর সময় মাঝে মাঝে দেরি করা, ট্রেড ওপেন বা ক্লোজ না হওয়া, অস্বাভাবিক স্প্রেড নিজেদের ইচ্ছেমত বাড়িয়ে দেওয়া, স্পাইক মারা, ফেইক ক্যান্ডেল দেখিয়ে ঘোরাবুঝ দেবার চেষ্ঠা করা, এসব সমস্যাই লোকাল ট্রেদারদের জন্য বেশ অসুবিধা হিসেবে দেখা যায়। মার্কেট মেকার নিয়ে অনেক ফিরিস্তি দিলাম, এবার আসি STP ব্রোকার নিয়ে। STP ব্রোকার ট্রেদারদের ট্রেদ রিসিভ করে ও ১০০% নিশ্চয়তার সাথে তা লিকুইডিটি প্রোভাইডারের ফান্ডে প্লেস করে দেয়, তাই ট্রেদারদের লাভ বা লসে ব্রোকারের কিছু যায় আসে না। তারা মাঝখান থেকে শুধু স্প্রেডই নেয়। আর তাই অনেক রিয়েল STP ব্রোকারে স্প্রেড তুলনামুলক অন্যান্য ব্রোকারের চেয়ে একটু বেশি থাকে। তবে স্প্রেড একটু বেশি হলেও এসব ব্রোকারে ট্রেড করাটাও মোটামুই নিরাপদ। এরা কখনোই নিজেদের ফান্ডে ত্রেদারদের ট্রেদ নিতে পারবে না, তাহলে এদের রেগুলেশন বাতিল হয়ে যাবে সাত্থে সাথেই। এবার বলি ECN ব্রকার নিয়ে। ECN ব্রোকারে ট্রেডারদের ট্রেড এক্সিকিউশান এর ব্যাপারে কারও কোন হাত থাকে না। এটি অটোমেটেড সফটওয়ার দ্বারা পরিচালিত হয়ে থাকে। ট্রেডারদের ট্রেড অটোমেটিক লিকুইডিটি প্রভাইডারদের ফান্ডে প্লেস হয়ে যায় ইন্সট্যান্টভাবেই। এজন্য ব্রোকারও কোনভাবেই ম্যানিপুলেট করতে পারেনা কারও ট্রেডে। ফেইক ক্যান্ডেল তো নয়ই। তবে হ্যা, এখানে একটি বিষয় পরিস্কার করে রাখি। প্রতিটি ECN ব্রোকারেই লোকাল মার্কেট মেকার অপশন চালু রেখে দেয় তারা। কারন স্বভাবতই অল্প ব্যালান্স দিয়ে ট্রেড করা কোন ECN ব্রোকারে সম্ভব না। আর সেই অবস্থায় ঐ ব্রোকারগুলো তাদের লোকাল মার্কেট মেকার অপশনে ট্রেড করার সুযোগ দেয় ট্রেডারদের। এজতন্য মনে রাখবেন, ব্রোকার যতো ভাল ইসিএন ব্রোকারই হোক না কেন, এদের সেন্ত একাউন্ট, মাইক্রো একাউন্ট বা মিনি একাউন্ট এর অপশনগুলো কখনই ECN এর আওতায় পড়ে না। এ জন্য আপনাকে স্ট্যান্ডার্ড একাউন্ট অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে। আর যেহেতু এখানকার সকল প্রসেস সফটওয়ার সিস্টেমে চলে, সেহেতু এখানে স্প্রেড অন্যান্য ব্রোকারের তুলনায় অনেক কম পাবেন আপনি। এখানে লক্ষ্য রাখবেন, অনেকেই ইসিএন এর নাম করে নরমাল স্ট্যান্ডার্ড একাউন্টও কিন্ত প্রোভাইড করছে ট্রেদারদের। যার পিছনে আইবি হোল্ডারদের স্বার্থ জড়িত থাকে। কারন ECN একাউন্তের আইবি কমিশন একেবারেই নামমাত্র হয়ে থাকে, সেখানে কমিশান বাড়ানোর জন্য ব্রোকারকে অফার করলে ব্রোকারও নরমাল স্ট্যান্ডার্ড একাউন্ট ECN এর নামে প্রোভাইড করে থাকে যাতে আইবি হোল্ডারও খুশি, আর ECN মনে করে ট্রেডারও খুশি! এগুলো লক্ষ্য রাখা জরুরী সকলেরই। ভাল ব্রোকার নির্বাচনঃ এবার আসি ব্রোকার নির্বাচনের ব্যাপারে। আপনি বাংলা ভাষার মানুষ। তারমানে আপনি পশ্চিমবঙ্গে অথবা বাংলাদেশে থাকেন। আপনাকে এমন ব্রোকার ব্যবহার করতে হবে যার রেগুলেশন আপনার ফান্ড পর্যন্ত নিরাপত্তা দেয়। কারন আপনার দেশের সেন্ট্রাল ব্যাংক এর রেগুলেশন কিন্ত আমার এখানে বা কানাডায় একদম খাটবে না। এখন যদি আপনার দেশের কোন ব্যাংক কানাডায় একটা অনলাইন সার্ভিস দিতে যেয়ে প্রতারনা করে, তাহলে আমি কি করতে পারি? চুপচাপ সয়ে যাওয়া ছাড়া। কারন আপনার দেশের রেগুলেশন তো আপনার লোকাল এলাকার জন্য প্রযোজ্য, কানাডায় তার কোন কর্মক্ষমতাই নেই। একই ভাবে যে সকল ব্রোকার শুধু লোকাল রেগুলেশন নিয়ে আপনাকে নিরাপত্তা দেবে ভেবেছেন, তাহলে আপনি ভুল করবেন। এক্ষেত্রে কি করবেন তাহলে আপনি? লক্ষ্য করবেন যে, সেই ব্রোকারে কি FCA UK রেগুলেশন আছে কি না। এখন প্রশ্ন করতে পারেন যে কেন এই রেগুলেশন। আপনি হয়তো জানেন, বৃটিশরা সারা বিশ্বে শাসন করেছে। আজও বিশ্বের অনেক প্রান্তে তাদের উপনিবেশ রয়েছে। আমাদের এই কানাডাতে আজও বৃটিশ কলোনি রয়েছে, যারা নিজেদের বৃটিশ বলে দাবী করে! বিশ্বের সকল জায়গায় এদের নিরাপত্তা দেবার জন্য বৃটিশদের রেগুলেশন সারা বিশ্বে সমানভাবে কার্যকরী করা সম্ভব হয়। অর্থাৎ আপনি ফান্ড ইস্যুতে কোন সমস্যা মনে করলে এদের রেগুলেটরি অথরিটির কাছে যথাযথভাবে অভিযোগ করলে এরা আপনার অভিযোগ এর ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। এক্ষেত্রে বলাই যায় আপনি যেখানেই থাকেন না কেন, আপনার ফান্ড সেইভ থাকবে এই রেগুলেশনের আন্ডারে একাউন্ত হবার কারনে। তবে মনে রাখবেন অনেক মার্কেট মেকার ব্রোকারও এমন রেগুলেশন নিয়েছে, তারা ফেইক ক্যান্ডেল, স্প্রেড বাড়িয়ে দেওয়া, স্পাইক মারা এসব ইস্যুতে আপনার ট্রেডকে লস করালে কিন্ত এসব এই রেগুলেশনের আয়ত্বে পড়বে না। কারন আপনার ডিপোজিত ও উইথড্র এর ব্যাপারে সমস্যা হলে তারা দেখবে। আপনার ট্রেড সংক্রান্ত ইস্যু নিয়ে ব্রোকার তার পক্ষে ব্যাখ্যা দেবেই, আর নিজেদের চার্টের মুভমেন্ট দেখাবে তারা। কোন মুভমেন্ট রিয়েল আর কোনটা ফেইক তা আপনার বুঝানোর কোন অপশন থাকবে না। সুতরাং এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আপনার। তবে আপনার ডিপোজিট ও উইথড্র এর ব্যাপারে আপনি নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন এই রেগুলেশনের আন্ডারে। অথবা আপনি আরেক ভাবেও ব্রোকারের ব্যাপারে নিশ্চিত হতে পারেন। তা হচ্ছে, আগেই জেনে নেবেন যে ব্রোকার ইউএস বা আমেরিকান ও কানাডিয়ান ট্রেডার সাপোর্ট করে কি না। যদি না করে তবে কোন কথা নেই, আর যদি করে তবে আশ্বস্ত হতেই পারেন। কারন যদি কোন ব্রোকার ইউএস ও কানাডিয়ান ক্লায়েন্ট একসেপ্ট করে, তয়াহলে নিশ্চিত হোন যে ব্রোকারটি যথাযোগ্য প্রমাণ দেখিয়েই এই দুই দেশে বিজনেস করার অনুমতি পেয়েছে। কারন এই দুই দেশে বিজনেস করার ব্যাপারে মানের কোয়ালিটির নিশ্চয়তা সবার আগে প্রাধান্য দেওয়া হয়। চায়না কে সস্তা বা কম দামী পন্যের বাজার বলা হয়, কিন্ত সেই চায়নাই যখন আমেরিকায় বিজনেস করতে আসে, তখন তারাই বেষ্ট কোয়ালিটির পণ্য আমেরিকার বাজারে দেয়। কারন বিজনেস পলিসিই আমেরিকায় এমন। সুতরাং নুন্যতম ঘাপলা থাকার সম্ভাবনা থাকলেই কেউই ইউএস এ বিজনেস করার সুযোগ পাবে না। অনেক বড় বড় ব্রোকারও ইউএস ক্লায়েন্ট একসেপ্ট করেনা, তাদের এত কন্ডিশন মানতে পারবে না বলে। এসবের মাঝে যদি কোন ব্রোকার তা করতে পারে, তবে বুঝে নেবেন তারা সাচ্চা কাম করত্যা হ্যায়। ব্যস, এগুলো মনে রাখবেন আর একটু যাচাই বাছাই করে ব্রোকার বেছে নিয়ে ট্রেড শুরু করে দিন। আমি যে ফাইন্যান্সিয়াল ফার্মে কাজ করছি, এখানেও একটি মার্কেট মেকার ব্রোকার একাউন্টে ট্রেড করা হয় ব্রোকারের সাথে ডিরেক্ট কন্ট্র্যাক্টের মাধ্যমে (যা আমার বা আপনার পক্ষে সিঙ্গেলভাবে করা সম্ভব না), আর একটা ECN ব্রোকারের একাউন্টে ট্রেড করা হয়। আপনিও সব দিক বিবেচনা করে ভাল কোন ECN ব্রোকারেই আশা করছি ট্রেড করবেন এটাই আমার সর্বশেষ মতামত। আমি এখানে কোন ব্রোকারের নামই উল্লেখ করলাম না, যাতে কেউ নুন্যতম কষ্ট পায় মনে। সবাইকে এবার বুঝে শুনে ভাল কিছু সাথে নিয়ে ফরেক্স মার্কেটে এগিয়ে চলার অনুরোধ করছি। সকলের জন্য আমার শুভকামনা রইল। Trade with full Trusted ECN broker:
  6. মুল্যবান কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ জানাই। আর নিউজের কথা যখন বলছেন, তখন ১ঃ৩ রেশিও তে স্টপ লস ও টেক প্রফিট তো দেওয়া থাকছেই।। সুতরাং একটা একটা করে ট্রেড না দেখে অন এভারেজ রেজাল্ট দেখার পক্ষপাতি আমি দাদা। মাস শেষে যার পকেটে কিছু প্রফিট আসে সেই সফল। ওনেক শুভকামনা রইল।
  7. #AUDJPY D1 টাইমফ্রেমের চার্টের দিকে লক্ষ্য করি। পরিস্কার সাইড ওয়ে চ্যানেলকে ভেঙ্গে ফেলেছে। এবার কনফার্মেশনের অপেক্ষা শুধু। এখানে ফান্ডামেন্টাল কিছু ইস্যু আছে যেগুলো এখানে লিখতে গেলে ব্যাপক আকারে লিখতে হবে, তাই টেকনিক্যাল পয়েন্টই মেনশন করে দিলাম শুধু। ফান্ডামেন্তাল সবাই শেখার চেষ্ঠা করুন, এরপর টেকনিক্যাল এনালাইসিস এর সাথে মিলিয়ে ট্রেড করার চেষ্ঠা করুন। তবেই রেগুলার প্রফিটের ব্যাপারে আশাবাদি হতে পারবেন। আমার এনালাইসিস যদি আপনার এনালাইসিস এর সাথে মিলে যায়, তবে একটা সুন্দর এন্ট্রি নিতেই পারেন। আপনার জন্য শুভকামনা রইল। <3 <3 <3 Trade with best ECN broker:
  8. #EURCHF H4 টাইমফ্রেমের চার্টের দিকে লক্ষ্য করুন, এটিকে কি প্যাটার্ন বলবেন আপনি? কাপ প্যাটার্ন? বা বাংলা যাকে বলে পাত্র প্যাটার্ন? পাত্রের জল এবার ঢেলে পড়ার মুহুর্তে? মার্কেট এবার নিচে নামতে পারে পাত্রের জল যেভাবে পড়ে থাকে!! তবে অন্যদিকে ফরেক্সের ভাষায় বলতে গেলে, একটি সুন্দর ও পরিস্কার ডাউনট্রেন্ডের টাচিং পয়েন্টে রয়েছে মার্কেট এই মুহুর্তে। কনফার্মেশন পেলেই সেল এন্ট্রি নেওয়া যেতে পারে। আপনার এনালাইসিস কি বলছে? আপনার এনালাইসিসও যদি আমার সাথে মিলে যায় তবে ট্রেড একটা নিতেই পারেন। আপনার জন্য শুভকামনা রইল। Trade with Trusted & True ECN broker:
  9. প্রায়ই একটি প্রশ্ন চোখে পড়ে নতুন ট্রেডারদের কাছ থেকে। প্রশ্নটি হলঃ ভাল ব্রোকার কোনটি? কিভাবে ভাল ব্রোকার চিনতে পারব? এই প্রশ্নের উত্তরে যে যার মত আইবি কমিশন পাওয়ার আশায় একটি বস্তাপচা ব্রোকারকেও দুনিয়ার সেরা ব্রোকার বানিয়ে দিতে উঠে পড়ে লাগে! অর্থাৎ যে ব্রোকার হোয়াইট লেভেল, লোকাল অথরিটি দিয়ে পরিচালিত হয়, যে ব্রোকারের কোন সার্টিফায়েড লিকুইডিটি প্রোভাইডার নেই, যারা নিজেরাই ট্রেডারদের ট্রেড অর্ডার নিজেদের ফান্ডে ফরওয়ার্ড করার মাধ্যমে টোটাল সিস্টেমকে ম্যানিপুলেট করে, তারাও এসব নোংরা মার্কেটিং এর ফাঁদে পড়ে হয়ে যায় দুনিয়ার সেরা ও শ্রেষ্ঠ ফরেক্স ব্রোকার!! ভাবা যায়? আজ আমি সহজেই বুঝিয়ে দেব নির্ভরযোগ্য ব্রোকার চেনার উপায়। বাঙ্গালি ট্রেডার মুলত স্ক্রিল বা নেটেলার পেমেন্ট ওয়েতে ব্রোকারে ডিপোজিট ও উইথড্র করে থাকে। স্ক্রিল, নেটেলার নামের এই পেমেন্ট ওয়ে নিয়ে কোন ট্রেডারই কিন্ত সন্দেহ পোষন করে না। তাহলে ব্রোকার নিয়ে কেন এতো সন্দেহ? স্ক্রিল বা নেটেলার নির্দিষ্ট ফান্ড সিকিউরিটি অথরিটির কাছে দায়বদ্ধ থাকে বলেই তারা ইউজারদের ফান্ডের নিরাপত্তা দেয়। আচ্ছা বিষয়টা যদি এমন হয় যে, এই স্ক্রিল বা নেটেলার তাদের ইউজারদের ফান্ড সিকিউরিটি ইস্যুতে যে রেগুলেশন নিয়ে রেখেছে, কোন ব্রোকার যদি সেই একই রেগুলেশন নিয়ে থাকে ট্রেডারদের ফান্ড সিকিউরিটির জন্য, তাহলে বিষয়টি কেমন হয়? আপনারা জানেন কি, স্ক্রিল বা নেটেলার কোন রেগুলেশন মেনে চলে? আসুন জেনে নেই। স্ক্রিল বা নেটেলার তাদের ইউজারদের জন্য শুধুমাত্র একটি রেগুলেশন নিয়ে রেখেছে। আর এটাই তাদের ইউজারদের ফান্ড সিকিউরিটির জন্য যথেষ্ট। লক্ষ লক্ষ ইউজার নিশ্চিন্তে এই পেমেন্ট মাধ্যম ব্যবহার করছে কোটি কোটি ডলার লেনদেনের জন্য। আর সেই রেগুলেশনের নাম FCA যাকে Financial Conduct Authority বলা হয়। এরা ক্লায়েন্টের যে কোন এমাউন্টের সিকিউরিটি দিয়ে থাকে। আপনার ব্রোকার যদি FCA UK রেগুলেটেড হয়, তবেই স্ক্রিল বা নেটেলারের মত নিশ্চিন্তে ট্রেড করতে পারেন। প্রথমেই জেনে নেবেন যে, ব্রোকার FCA UK রেগুলেটেড কি না? উত্তর হ্যা হলে, এরপর বাকি বিষয় জেনে নিন। যেমন, লেভারেজ, স্প্রেড, কমিশন, হেজিং সুবিধা প্রভৃতি। এগুলো আপনার চাওয়ার সাথে মিলে গেলে তবেই সেই ব্রোকারে ট্রেড করা শুরু করতে পারেন। আশা করছি আজকের পর থেকে ভাল থাকবেন আরও ব্রোকারের ব্যাপারে। Trade with a full trusted & True ECN broker:
  10. প্রথমেই আপনার ধৈর্য্যের প্রমাণ দিবেন লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার মাধ্যমে। কারন ফরেক্স করতে ধৈর্য্যের কোন বিকল্প নেই। আসুন একটি খুবই সিম্পল ট্রেডিং স্ট্রাটেজী শিখুন। বিশেষতঃ যারা একেবারে নতুন, বা যারা একটা সহজ ট্রেডিং সিস্টেম খুঁজছেন তাদের জন্য এই পোস্ট।এই সিস্টেমটি আমার নিজের দ্বারা নির্ধারিত+পরিক্ষিত ও এখনও চর্চাকৃত। বি;দ্রঃ যারা দৈনিক ৫-১০ টি করে ট্রেড ওপেন না করলে শান্তি পান না, মাসের বা দুই/তিন মাসে ব্যালান্স ডাবল না করতে পারলে শান্তি পাননা, তারা এই পোস্ট পড়বেন না। তাদের জন্য এই পোস্ট না। যারা কর্পোরেট ট্রেডিং সিস্টেমে ট্রেড করতে আগ্রহী এবং সত্যিকারের ব্যবসায়ি হিসেবেই ফরেক্স এ ট্রেড করে মাসে ৭-৮% প্রফিট করতে চান নিয়মিতভাবে, তাদের জন্যই আজকের এই পোস্ট। তাহলে কথা আর না বাড়িয়ে চলুন শিখে নেওয়া যাকঃ - পেয়ারঃ GBPUSD - টাইমফ্রেমঃ ৪ ঘন্টা - প্রফিট রেশিওঃ প্রতি ট্রেডে লসের চেয়ে ৩ গুন বেশি প্রফিট। রেশিও- একঃতিন। - প্রফিট টার্গেটঃ বছরে ১০০০+ পিপ্স মোটামুটি নিশ্চিত প্রফিট। - মুভিং এভারেজঃ sma 21 - সিগনালঃ প্রতি সপ্তাহে ১ টি করে(সম্ভাব্য) - ব্রোকারঃ যে কোন ভাল ব্রোকার। তবে বেস্ট সাপোর্ট এর জন্য আমাকে জানাতে পারেন কারন ব্রোকারভেদে ক্যান্ডেল এর ওপেন ও ক্লোজ এর প্রাইস ভিন্ন ভিন্ন হয় ৪ ঘন্টার টাইমফ্রেমে ব্রোকারের ক্যান্ডেল চার্ট ওপেনিং টাইমের ভিন্নতার জন্য। - সিস্টেমঃ ফ্রেশ চার্ট ব্যবহার করবেন। কোন হাজিবাজি ইন্ডিকেটর নেবার দরকার নেই। এবার ডিফল্ট ইন্ডিকেটর থেকে হালকাভাবে ট্রেন্ড বোঝার জন্য সিম্পল মুভিং এভারেজ সিলেক্ট করে তার লেভেল ২১ সেট করে নিন। এবার সাপ্তাহিক বিরতির পর যখন মার্কেট ওপেন হবে, প্রথম ৪ ঘন্টা পর যে ক্যান্ডেল তৈরি হবে h4 টাইমফ্রেমে, সেই ক্যান্ডেলের প্রতি গুরুত্ব দিন ভাল করে। সেই ক্যান্ডেলটির ওপেন ও ক্লোজ হওয়া প্রাইস বের করে ক্যান্ডেলটির উপরে ও নিচের লেভেল চিহ্নিত করুন। নিচের ছবিতে লক্ষ্য করলে আরও পরিস্কার হবেন বিষয়টা। এবার লক্ষ্য করুন, সেই ক্যান্ডেলটি মুভিং এভারেজের উপরে আছে নাকি নিচে আছে। যদি উপরে থাকে তবে মোটামুটিভাবে বলা যায় যে মার্কেট আপট্রেন্ড অবস্থায় আছে। সুতরাং সেক্ষেত্রে সেই ক্যান্ডেলের উপরের লেভেল হতে ৫ পিপ্স উপরে পেন্ডিং বাই অর্ডার ওপেন করবেন। অথবা অপেক্ষায় থাকবেন যে, কখন মার্কেট সেই ক্যান্ডেলের উপরের লেভেলের ৫ পিপ্স উপরের প্রাইসকে ক্রস করে ফেলে। সেই মুহুর্তেই বাই অর্ডার ওপেন করুন। এখন প্রথমেই স্টপ লস বের করুন। স্টপ লস হবে সেই ক্যান্ডেলের নিচের লেভেল হতে ৫ পিপ্স নিচে। এবার টেক প্রফিট দেবার পালা। স্টপ লস যত পিপ্স দিয়েছেন, তার ৩ গুন পিপ্স টেক প্রফিট হিসেবে সেট করে নিন। ব্যস, এবার গোটা সপ্তাহের জন্য এই ট্রেডকে ভুলে যান। ঠিক একইভাবে সেই ক্যান্ডেল যদি মুভিং এভারেজের নিচে থাকে তবে বুঝতে হবে মার্কেট মোটামুটি ডাউনট্রেন্ড অবস্থায় আছে। সেক্ষেত্রে সেল ট্রেড ওপেন করার জন্য প্রস্তত হোন। ক্যান্ডেলের নিচের লেভেল হতে আরও ৫ পিপ্স নিচে মার্কেট গেলে তবে সেল ট্রেড ওপেন করে ফেলুন। ক্যান্ডেলটির উপরের লেভেল হতে ৫ পিপ্স উপরে স্টপ লস সেট করে নিন।আর স্টপ লসের ৩ গুন পিপ্স হিসেব করে বের করে টেক প্রফিট হিসেবে সেট করে দিন। এবার গোটা সপ্তাহের জন্য ভুলে যান ট্রেডের কথা। - আরও পরিস্কার বোঝার জন্য দুটি ছবি এটাচ করে দিলাম লাইভ মার্কেট থেকে নিয়ে। ভালভাবে দেখে নিবেন, তাহলে পরিস্কার বুঝতে পারবেন এই স্ট্রাটেজী সম্পর্কে। ১) ২) - অনেকে বলবেন, বছরে ১০০০+ পিপ্স??? এতো কম!!! আমি বলব, জ্বি দাদা, এটাই প্রকৃত ব্যবসা। আপনি কর্পোরেট ব্যবসায়ী হবেন নাকি খুচরা ব্যবসায়ী হবেন নিজেই ঠিক করে নিন। কর্পরেট ব্যবসায়ী মাসে ৩-৪ টা সেল করে যা প্রফিট করে, খুচরা ব্যবসায়ীরা দৈনিক ৩০-৪০ তা সেল করেও তার কাছাকাছি প্রফিট করতে পারে না। এবার আপনি ঠিক করে নেবেন যে, আপনি কোন ক্যাটাগরীর ট্রেডার হবে। আপনার ব্যালান্স অনুযায়ী প্রতি ১০০০ ডলারে যদি ০.১০ লট সাইজ ব্যবহার করেন, তবে বছরে ১০০০+ ডলার প্রফিট করবেন আপনি। সেই হিসেবে ৮৪ ডলারের মত প্রফিট পাবেন প্রতি মাসে, নিশ্চিন্তে ও চিন্তামুক্ত থেকে। এবার আপনি আপনার সক্ষমতার উপর ভিত্তি করে শুরু করুন আপনার কর্পোরেট ট্রেডিং। সরাসরি আমাদের সাপোর্ট পেতে ও আপনার ট্রেডকে সত্যিকারের প্রফিটেবল করতে আমাদের জানাতে পারেন। ধন্যবাদ আপনাদের সবাইকে। Trade with true ECN broker:

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×