Jump to content

Leaderboard


Popular Content

Showing content with the highest reputation since শনিবার 25 এপ্রি 2020 in all areas

  1. 2 points
    আপনি স্ক্রিল বা নেটেলার দিয়ে সরাসরি ব্যাংকে উইথড্র করে টাকা আনবেন। ব্যাংকে জিজ্ঞেস করলে অনলাইনে কাজ করে আয় হিসেবে বলবেন। যারা ফ্রিল্যান্সিং করে তারাও স্ক্রিল থেকে ব্যাংক উইথড্র দেই। তাহলে তো একদম বৈধ পথেই রেমিটেন্স আয় হিসেবে আসবে। এবং সরাসরি নেটেলার স্ক্রিল কেনাবেচা অবৈধ। ব্যাংকে আনলে এ বিষয়ে সমস্যা নেই। এবং আয়কর বিবরণী তেও অনলাইন থেকে আয় হিসেবে দেখতে পারবেন।
  2. 1 point
    EURUSD sell. 1.09230 Haven't set tp or sl yet.
  3. 1 point
    ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.০৯৩০ প্রাইসের উপরে অবস্থান করছে।গত সপ্তাহে পেয়ারটি ডাউনট্রেন্ডে থাকলেও এ সপ্তাহে দ্বিতীয় দিনের মতো পেয়ারটির প্রাইস বাড়ছে। তবে পেয়ারটির ঊর্ধ্বমূখী অবস্থান কতদূর শক্তিশালী হবে সেটা দেখার বিষয়। এ সপ্তাহের প্রথমদিন অর্থাৎ গতকাল পেয়ারটির প্রাইস বাড়ার পিছনে জার্মান এবং ফ্রান্সের মধ্যকার চুক্তি কাজ করেছিল।জার্মান এবং ফ্রান্স ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে ৫০০ বিলিয়নের একটি চুক্তিতে সম্মত হয়েছে।যার ফলে দেশগুলো নিজেদের ফান্ড রিকভার করতে সক্ষম হবে।এমন প্রত্যাশাকে কেন্দ্র করে গতকাল পেয়ারটির প্রাইস বেড়েছিল।আজও পেয়ারটি ঊর্ধ্বমূখী অবস্থানে রয়েছে। জার্মান ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট আজকের ট্রেডিং সেশনে ইউরো/ডলার পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। রিপোর্টটি বিকাল ০৩:০০ দিকে প্রকাশ করা হবে। এপ্রিলে জার্মান ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট থেকে ২৮.২ পয়েন্ট এসেছিল।প্রত্যাশা করা হচ্ছে,মে মাসে ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট বেড়ে ৩২ পয়েন্ট আসার সম্ভাবনা রয়েছে। এর ফলে ইউরো/ডলার পেয়ারটির প্রাইস বর্তমানেও আপট্রেন্ডে রয়েছে এবং ১.০৯৩০ প্রাইসের উপরে অবস্থান করছে। অপরদিকে ফেড চেয়ারম্যান পাওয়েলের কনফারেন্সকে কেন্দ্র করে মার্কেটে মুভমেন্ট বৃদ্ধি পেতে পারে।তবে আজকের সেশনে পেয়ারটির প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.০৯৫০। পেয়ারটির পরববর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১০। অপরদিকে পেয়ারটির প্রাইস কমতে শুরু হলে ১.০৯ সাপোর্ট লেভেলে আসতে পারে।পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ১.০৮৫০।
  4. 1 point
    1000 নেটেলার + ৫০০ স্কীল আছে । কারো লাগলে নিতে পারেন । রেফারেন্স এই সাইটের এডমিন । যোগাযোগ - Skype : ashiqur.rahman233 Telegram Username : @ripon65
  5. 1 point
    চীনা পিপিআই(PPI) গত কয়েক বছরের নিচে এসেছে। যা মেনুফেকচারিং সেক্টরের দুর্বলতাকে নির্দেশ করছে। জার্মানে করোনাভাইরাস ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। চীন এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় দ্বিতীয়বারের মতো আঘাত হানছে করোনা। এশিয়ান সেশনে ইউরো/ডলার নিন্ম প্রাইস থেকে রিকভার হতে শুরু করেছে।আজকের ট্রেডিং সেশনে পেয়ারটি ১.০৭৮৪ প্রাইসে ওপেন হলেও বর্তমানে পেয়ারটির প্রাইস বেড়ে ১.০৮ এর উপরে ট্রেডিং করছে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে পেয়ারটির আপট্রেন্ড বেশি দূর স্থায়ী নাও হতে পারে। ইউরোজোনের ইকোনমিক চালিকাশক্তি জার্মানের অর্থনীতি স্থবিরতার দিকে।দেশটিতে ক্রমাগত করোনাভাইরাসের সংক্রামণ বাড়ছে।জার্মান রোগ ও মহামারী নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র রবার্ট কোচ ইনস্টিটিউট (RkI)-এর তথ্য অনুযায়ী, মঙ্গলবার জার্মানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী বৃদ্ধি পেয়ে ১ লক্ষ ৭০ হাজার ৫০৮ জন হয়েছে এবং মোট মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে ৭ হাজার ৫৩৩ জন হয়েছে। ট্রেডিং সেশনের দ্বিতীয়দিন অর্থাৎ গতকাল জার্মানে ৩৫৭ জন নতুন আক্রান্ত হলেও মঙ্গলবার পুনরায় ৯৩৩ জন আক্রান্ত হয়েছে এবং ১১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাস পুনরায় দক্ষিণ কোরিয়া ও চীনে আঘাত হেনেছে।গতকাল চীনে নতুন করে পাঁচজন ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।চীনের প্রডিউসার প্রাইস ইনডেক্স (PPI) এপ্রিলে কমে ৩.১% এসেছে। যা গত চার বছরের সর্বনিন্ম।এটা চীনের জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ইকোনমি এবং মেনুফেকচারিং সেক্টরের উপর প্রভাব বিস্তার করতে পারে। আজ ইউরোজোনে তেমন কোন ইভেন্ট না থাকলেও মার্কিন কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। সন্ধ্যা ০৬:৩০ মিনিটে রিপোর্টটি রিলিজ হবে।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলে মার্কিন সিপিআই(CPPI) -০.৪% থেকে কমে -০.৭% আসতে পারে এবং কোর সিপিআই ( Core CPPI) -০.১ থেকে কমে -০.২% আসার সম্ভাবনা রয়েছে।সংকটময় সময়ে নিরাপদ কারেন্সি হিসেবে মার্কিন ডলার বিনিয়োগকারীদের আস্থা ধরে রেখেছে। সুতরাং আজ শুরুর দিকে পেয়ারটির প্রাইস বাড়লেও পরবর্তীতে পুনরায় কমার সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.০৮২০। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স ১.০৮৩৯ এবং ১.০৮৬৯।পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত থাকলে বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৮। পরবর্তী সাপোর্ট লেভেলগুলো হতে পারে ১.০৭৮৯ এবং ১.০৭৭। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মার্কিন ডলারকে আরও শক্তিশালী করার সম্ভাবনা রয়েছে।
  6. 1 point
    ইউরো/ডলার পেয়ারটি গত তিনদিন ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে।তবে আজকের সেশনে পেয়ারটি ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রাখবে কিনা সেটা দেখার বিষয়। পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো আজ বেশ কয়েক ইভেন্ট রয়েছে। ইভেন্টগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার,সার্ভিস পিএমআই এবং রিটেইল সেলস রিপোর্ট।অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলোর মধ্যে এপ্রিল মাসের এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। দুপুর ১২:০০ দিকে মার্চ মাসের জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে।ফেব্রুয়ারিতে জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার ১.৪% কমেছিল।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মার্চে ১০% কমতে পারে। দুপুর ০২:০০ দিকে এপ্রিল মাসের ইউরোজোন সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট রিলিজ হবে।রিপোর্টগুলোর মধ্যে জার্মান সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট মার্কেটে মুভমেন্ট সৃষ্টি করতে পারে।মার্চ মাসে জার্মান সার্ভিস পিএমআই থেকে ১৫.৯ পয়েন্ট এসেছিল। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলেও ১৫.৯ পয়েন্টে অপরিবর্তনীয় থাকতে পারে। তবে প্রত্যাশিত লেভেলের নিচে আসলে পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে এবং প্রত্যাশিত লেভেলের উপরে আসলে প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট রিলিজের কিছুক্ষণ পর ইউরোজোন রিটেইল সেলস রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে। ফেব্রুয়ারি মাসের রিটেইল সেলস ৩% বেড়েছিল। তবে মার্চে ১০.৫% কমার সম্ভাবনা রয়েছে। যা ইউরো/ডলার পেয়ারটিকে ডাউনট্রেন্ডে নিয়ে আসতে পারে। এছাড়াও ইউরোজোনের গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউরোপিয়ান কমিশন কর্তৃক প্রকাশিত ইকোনমিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস যা মার্কেটে ভোলাটিলিটি বাড়াতে পারে। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলোর মধ্যে অন্যতম এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মার্চ মাসের তুলনায় এপ্রিলে সেক্টরটি খারাপ করার সম্ভাবনা রয়েছে।তবে ইভেন্টটিকে কেন্দ্র করে পেয়ারটির প্রাইস বাড়লেও পরবর্তীতে পুনরায় ডাউনট্রেন্ডে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.০৮৩০ প্রাইসের উপর অবস্থান করছে।পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৮০০।পেয়ারটি ১.০৮০০ সাপোর্ট লেভেল অতিক্রম করতে সক্ষম হলে পরবর্তীতে ১.০৭৮০ সাপোর্ট লেভেলে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.০৮৫০। পেয়ারটির পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.০৮৮০।
  7. 1 point
    অনেক ভাল লাগলো এটা দেখে যে , আপনি ক্রিপ্টো নিয়ে টপিক খুলেছেন!! আসলে ব্যাপারটা হচ্ছে কি ভাই???!! ক্রিপ্টো জিনিশটা যে কত বড় গেইম চেঞ্জিং তা মানুষ ৪ - ৫ বছর পড়ে টের পাবে!! ২০১৮ সাল থেকে আছি এই মার্কেটে ! অবশ্যই লং টার্ম প্ল্যান নিয়ে !!
  8. 1 point
    পারিবারিক অস্বচ্ছলতা থাকলে ভুলেও ফরেক্স ট্রেডিং করার দরকার নেই। শুনতে খারাপ লাগলেও এটাই বাস্তব। এখানে দেখুন অনেক বছর ধরে ট্রেড করছে এরকম অনেক ট্রেডার আছে যারা নিয়মিত লাভ করতে পারছে না। সত্যি বলতে টুকটাক ট্রেডিং করলে মাঝে মাঝেই ভালো লাভ করা যায়। কিন্তু সেরকম ভালো লসও হয়। সব মিলিয়ে মাস শেষে অংক কষলে অনেকেই দেখে যে লাভের চেয়ে লস বেশি। শুধু ফরেক্স না, যেকোনো ধরনের বিনিয়োগ সংক্রান্ত ব্যবসাতেই এটা মাথায় রেখেই নামা উচিত যে লস হতে পারে। আপনি ৫০০ ডলার দিয়ে ট্রেডিং শুরু করতে চাইলে আগে ভাবতে হবে ঐ ৫০০ ডলারের মায়া আপনি ছাড়তে পারবেন কিনা। প্রথম দিকে লস হবেই, আর পরের দিকে লস হবে কিনা সেটা আপনার মানিসিক দক্ষতার ব্যপার। চাকরির পড়াশোনার পাশাপাশি ফরেক্স করা অসম্ভব কিছু নয়। কিন্তু আপনি যতটুকু বোঝেন, তার অনুপাতেই ছোট রিস্ক নিয়েই ট্রেড করতে হবে। আর আরেকটা ব্যাপার আমার কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। তা হল ফরেক্স থেকেই সম্পূর্ণ জীবিকা নির্বাহের চেষ্টা না করাই ভালো। কারন আপনার মাথায় যদি এই প্রেসার আসে যে এই মাসে আমাকে অমুক পরিমাণ লাভ করতেই হবে, তা নাহলে চলতে পারবো না, তাহলেই আপনি শেষ। আমি মেন্টরিং করতে পারবো না, তবে বিডিপিপসে অনেকে আছেন যারা আপনাকে সাহায্য করতে পারবে, এবং অনেক অনেক ভালো লেখা আছে যারা আপনাকে অনেক ভালো গাইড করবে। কিন্তু দিনশেষে কোন মেন্টর আপনাকে সফল হতে সাহায্য করবে না। প্রতিটি ট্রেড আলাদা এবং আপনাকেই তো ট্রেড করতে হবে, সিদ্ধান্তগুলো নিতে হবে। আমার অনুরোধ থাকবে শিখুন, সবার সাহায্য নিন, বড় ধরনের বিনিয়োগ করার আগে নিজে বুঝে শুনে সব করুন। আর ফেসবুক, ফোরাম, ইউটিউবে ফরেক্স প্রতারকে সয়লাব। সতর্ক না থাকলে ধাপে ধাপে ধরা খাবেন। সিগন্যাল, রোবট, ফান্ড ম্যানেজমেন্ট এসবের প্রলোভন থেকে সতর্ক থাকবেন। সাবধান থাকার অনুরোধ রইল এবং শুভ কামনা।
  9. 0 points
    ami jnate chai online ay hishebe dekale seketre bank document chai tkn ki koroniyo plz janaben
×
×
  • Create New...