Jump to content

Leaderboard


Popular Content

Showing content with the highest reputation since মঙ্গলবার 13 আগ 2019 in all areas

  1. 5 points
    Forex Trading is not banned in anywhere if you trade in online. But if you are trading as a visible person(means not as a dealer) then its a problem since Bangladesh maintaining managed floating exchange rate and if you are buying and selling currency without any license then its promotes money laundering. Reason is that it creates trouble to the reserve of foreign currency. On that case, trading in online doesn't bother to the government since it doesn't create any trouble to BB reserve. But the problem is that there are no clear rules about it and many government officials also don't have any clear knowledge about it. So its better don't talk too much about your business with your friend or colleague to keep yourself safe. And of course, its the most dangerous business in the world so better don't attract others to gain your commission. Hope you understand. Thank you
  2. 2 points
    আপনি স্ক্রিল বা নেটেলার দিয়ে সরাসরি ব্যাংকে উইথড্র করে টাকা আনবেন। ব্যাংকে জিজ্ঞেস করলে অনলাইনে কাজ করে আয় হিসেবে বলবেন। যারা ফ্রিল্যান্সিং করে তারাও স্ক্রিল থেকে ব্যাংক উইথড্র দেই। তাহলে তো একদম বৈধ পথেই রেমিটেন্স আয় হিসেবে আসবে। এবং সরাসরি নেটেলার স্ক্রিল কেনাবেচা অবৈধ। ব্যাংকে আনলে এ বিষয়ে সমস্যা নেই। এবং আয়কর বিবরণী তেও অনলাইন থেকে আয় হিসেবে দেখতে পারবেন।
  3. 2 points
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেটের ১.১০৯৫ একটি রেজিস্ট্যান্স লেভেল এবং ১.১০৮৫ সেল পজিশন দেওয়া হয়েছে। ১.১০৯৫ প্রাইস লেভেল ভেঙ্গে নিচে নামলে বিয়ারিশ ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.১০৬৫,১.১০৫০,১.১০২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.১০৯৫,১.১১০৫,১.১১২০ সেল এন্ট্রি: ১.১০৮৫ স্টপ লস: ১.১০৯৫ টেক প্রফিট: ১.১০৫০,১.১০২০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.১১২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.১০৬৫ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.১০৬৫,১.১০৪৫,১.১০১৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.১১২০,১.১১৫০,১.১২০০ টেক প্রফিট: ১.১০৪৫,১.১০১৫ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছেছে। আমরা ১.২৯৭৫ প্রফিট লেভেলে স্টপ লস নেব। আশা করছি মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২৮৮০,১.২৮৫০,১.২৮০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৯৭০,১.৩০০০,১.৩০৫০ সেল এন্ট্রি: ১.২৯৭৫ স্টপ লস: ১.২৯৭৫ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.২৯৪৫,১.২৯০০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.৩০৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২৮০০,১.২৭০০,১.২৫৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.৩০৬০,১.৩১৫০,১.৩২৯০
  4. 2 points
    পারিবারিক অস্বচ্ছলতা থাকলে ভুলেও ফরেক্স ট্রেডিং করার দরকার নেই। শুনতে খারাপ লাগলেও এটাই বাস্তব। এখানে দেখুন অনেক বছর ধরে ট্রেড করছে এরকম অনেক ট্রেডার আছে যারা নিয়মিত লাভ করতে পারছে না। সত্যি বলতে টুকটাক ট্রেডিং করলে মাঝে মাঝেই ভালো লাভ করা যায়। কিন্তু সেরকম ভালো লসও হয়। সব মিলিয়ে মাস শেষে অংক কষলে অনেকেই দেখে যে লাভের চেয়ে লস বেশি। শুধু ফরেক্স না, যেকোনো ধরনের বিনিয়োগ সংক্রান্ত ব্যবসাতেই এটা মাথায় রেখেই নামা উচিত যে লস হতে পারে। আপনি ৫০০ ডলার দিয়ে ট্রেডিং শুরু করতে চাইলে আগে ভাবতে হবে ঐ ৫০০ ডলারের মায়া আপনি ছাড়তে পারবেন কিনা। প্রথম দিকে লস হবেই, আর পরের দিকে লস হবে কিনা সেটা আপনার মানিসিক দক্ষতার ব্যপার। চাকরির পড়াশোনার পাশাপাশি ফরেক্স করা অসম্ভব কিছু নয়। কিন্তু আপনি যতটুকু বোঝেন, তার অনুপাতেই ছোট রিস্ক নিয়েই ট্রেড করতে হবে। আর আরেকটা ব্যাপার আমার কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। তা হল ফরেক্স থেকেই সম্পূর্ণ জীবিকা নির্বাহের চেষ্টা না করাই ভালো। কারন আপনার মাথায় যদি এই প্রেসার আসে যে এই মাসে আমাকে অমুক পরিমাণ লাভ করতেই হবে, তা নাহলে চলতে পারবো না, তাহলেই আপনি শেষ। আমি মেন্টরিং করতে পারবো না, তবে বিডিপিপসে অনেকে আছেন যারা আপনাকে সাহায্য করতে পারবে, এবং অনেক অনেক ভালো লেখা আছে যারা আপনাকে অনেক ভালো গাইড করবে। কিন্তু দিনশেষে কোন মেন্টর আপনাকে সফল হতে সাহায্য করবে না। প্রতিটি ট্রেড আলাদা এবং আপনাকেই তো ট্রেড করতে হবে, সিদ্ধান্তগুলো নিতে হবে। আমার অনুরোধ থাকবে শিখুন, সবার সাহায্য নিন, বড় ধরনের বিনিয়োগ করার আগে নিজে বুঝে শুনে সব করুন। আর ফেসবুক, ফোরাম, ইউটিউবে ফরেক্স প্রতারকে সয়লাব। সতর্ক না থাকলে ধাপে ধাপে ধরা খাবেন। সিগন্যাল, রোবট, ফান্ড ম্যানেজমেন্ট এসবের প্রলোভন থেকে সতর্ক থাকবেন। সাবধান থাকার অনুরোধ রইল এবং শুভ কামনা।
  5. 2 points
    Forex এখন 7days আমরা জানি ফরেক্স সপ্তাহে ৫ দিন সোম- শুক্রবার। তাই বলে অনেকে মন খারাপ করে।বলে ট্রেড যদি 7 দিনই হত।তাহলে ভালো হতো। কিন্তু আপনি কি জানেন শনি রবি দুই দিন ও ট্রেড হয়। হ্যাঁ এই দুইদিন শুধু ট্রেড করতে পারবেন BTCUSD তে।
  6. 1 point
    সম্প্রতি নেটেলার - একটি জনপ্রিয় অনলাইন পেমেন্ট মাধ্যম বাংলাদেশি অধিকাংশ অ্যাকাউন্ট ডিজেবল বা চিরতরে বন্ধ করে দিচ্ছে। আর এ কারণে অনলাইনে আয়কারীরা পড়ছে বিপাকে। কারণ অনলাইনে আয়কৃত ডলার দেশে আনতে সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম ছিল নেটেলার। কিন্তু নেটেলারের রয়েছে আরও ৩টি সেরা বিকল্প যা অনলাইনে আয় দেশে আনার জন্য ইউজাররা ব্যবহার করতে পারেন। সবগুলো মাধ্যমেই খুব সহজে ব্যাংকের মাধ্যমেও আয় দেশে আনা যায় এবং ইউজার টু ইউজার ট্রান্সফার করা যায়। চলুন দেখে নেয়া যাক নেটেলারের সেরা ৩ বিকল্প পেমেন্ট মাধ্যমঃ Skrill (স্ক্রিল) অনলাইনে পেমেন্ট এবং উইথড্রয়ের জন্য স্ক্রিল এক দশকের বেশি সময় ধরে জনপ্রিয়। পূর্বের মানিবুকারস নাম পরিবর্তন করে বর্তমানে স্ক্রিল নামে পরিবর্তন করা হয়েছে। বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সার এবং ফরেক্স ট্রেডারদের মধ্যে স্ক্রিল সবচেয়ে জনপ্রিয় কারণ প্রায় সব ফরেক্স ব্রোকার, ফ্রিল্যান্সার এবং মার্চেন্ট ওয়েবসাইট স্ক্রিল সমর্থন করে। এছাড়াও সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, স্ক্রিল থেকে খুব সহজে বাংলাদেশের যেকোনো ব্যাংকে সম্পূর্ণ লিগ্যাল ভাবে টাকা উইথড্র করা যায়, এবং তা মাত্র ২ দিনের মধ্যেই ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা হয়ে যায়। স্ক্রিলে অ্যাকাউন্ট খুলতে এখানে ক্লিক করুন। Perfect Money (পারফেক্ট মানি) অনলাইনে পেমেন্টের আরেকটি বেশ পুরনো, কিন্তু নির্ভরযোগ্য পেমেন্ট মাধ্যম হল পারফেক্ট মানি। পারফেক্ট মানি বেশ জনপ্রিয় কারণ তারা সহজে কোন ইউজারের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয় না, এবং ভেরিফাই না করেও পারফেক্ট মানি ব্যবহার করা যায়। ভেরিফাই করলে ইউজার টু ইউজার মানি ট্রান্সফারের ফি মাত্র ০.৫%, এ কারণে অনলাইনে পারফেক্ট মানির অন্য রকম গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। পারফেক্ট মানি থেকে ব্যাংকে উইথড্র করার ব্যবস্থা রয়েছে। পারফেক্ট মানিতে অ্যাকাউন্ট খুলতে এখানে ক্লিক করুন। Webmoney (ওয়েবমানি) রাশিয়ান পেমেন্ট মাধ্যম ওয়েবমানিও বেশ জনপ্রিয়, যদিও বাংলাদেশে এর ব্যবহারকারী একদমই কম। তবে বিভিন্ন সাইট এবং প্রায় সকল ফরেক্স ব্রোকার ওয়েবমানি সমর্থন করে, এবং মাধ্যমটি বেশ নিরাপদ। তবে রাশিয়ান প্রতিষ্ঠান হওয়ায় এবং ব্যবহার করতে একটু জটিল হওয়ায় অনেক ইউজারই ওয়েবমানি ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না। ওয়েবমানি থেকেও বাংলাদেশে ব্যাংক উইথড্র করা যায়। ওয়েবমানিতে অ্যাকাউন্ট করতে এখানে ক্লিক করুন। ওপরের ৩টি পেমেন্ট মাধ্যমই বেশ জনপ্রিয়, নিরাপদ এবং সবগুলোই বাংলাদেশি ব্যবহারকারীরা ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়াও ফরেক্স ব্রোকার XM সহ প্রায় সকল ব্রোকারই এই ৩টি মাধ্যম সমর্থন করে ডিপোজিট এবং উইথড্র এর জন্য। সবগুলো মাধ্যম থেকেই লিগ্যালভাবে ব্যাংকে উইথড্র করে বাংলাদেশে টাকা আনার সুব্যবস্থা রয়েছে। তাই ফরেক্স ট্রেডারদের কাছে নেটেলারের সেরা বিকল্প হতে পারে এই ৩টি মাধ্যম।
  7. 1 point
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেটের ১.১৪৫-তে বাই এন্ট্রি এবং ১.১৪৫০-তে রেজিস্ট্যান্স লেভেল দেওয়া হয়েছে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্টেক ঊর্ধ্বমূখী শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১৩৭০,১.১৩৩০,১.১২৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৪৮০,১.১৫২০,১.১৫৮০ বাই এন্ট্রি: ১.১৪৫০ স্টপ লস: ১.১৩৭০ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.১৫০০,১.১৫৮০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছেছে। আমরা ১.১৩৭০ লেভেলে স্টপ লস নেব। আশা করছি মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিটে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখী শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১৩৭০,১.১৩১০,১.১২০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৪৮০,১.১৫৪০,১.১৬৭০ বাই এন্ট্রি: ১.১৩৭০ স্টপ লস: ১.১৩৭০ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.১৪৩০,১.১৫৪০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছেছে। আমরা ১.265০ লেভেলে স্টপ লস নেব। আশা করছি মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিটে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখী শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৬৫০,১.২৬২,১.২৫৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৭০০,১.২৭৩০,১.২৭৮০ বাই এন্ট্রি: ১.২৫৭৫ স্টপ লস: ১.২৬৫০ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.২৬০৫,১.২৭০০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.২৬০০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখী শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২৬০০,১.২৫৪০,১.২৪৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৭৩০,১.২8১০,১.২৯৩০
  8. 1 point
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.১৩১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৫০,১.১২৩০,১.১২০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৩১০,১.১৩৪০,১.১৩৮০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছে। বর্তমানে আমরা পরবর্তী সুযোগের অপেক্ষা করছি।পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.১২৫০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৫০,১.১২০০,১.১১০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৩৭০,১.১৪২০,১.১৫০০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১.১২৫৭০ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.২৬৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.২৫০০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৫৭০,১.২৫০০,১.২৪০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৬৭০,১.২৭৩০,১.২৮২০ টেক প্রফিট: ১.২৭৩০,১.২৮২০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.২৫০০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২৫০০,১.২৪০০,১.২২৪০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৬৭০,১.২৯৩০,১.৩৩৪০
  9. 1 point
    জুন-জুলাই মাসে ফরেক্স ব্রোকার XM শুধুমাত্র বাংলাদেশী ট্রেডারদের জন্য Yamaha FZ V3 মোটরবাইকসহ মোট $৪,০০০ প্রাইজ জেতার সুযোগসহ সহজ একটি প্রোমোশন নিয়ে এসেছে। মোটরবাইক ছাড়াও Samsung Galaxy S10+ মোবাইল বা $৬০০, ASUS Intel Core i7 ল্যাপটপ বা $৪০০ ডলার, ক্যাশ $৪০০ প্রাইজ, HUAWEI MediaPad T3 7 ট্যাবলেটসহ মোট ১০টি আকর্ষণীয় প্রাইজ জেতার সুযোগ থাকছে। যেভাবে সহজেই অংশ নেবেনঃ XM এর যেকোনো ট্রেডারই খুব সহজেই এই প্রোমোশনে অংশ নিতে পারবেন। আপনার যদি XM এ কোন রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্ট না থেকে থাকে, তাহলে এখান থেকে একটি নতুন অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিয়েও এই প্রোমোশনে অংশ নেয়া যাবে। শুধুমাত্র ৩টি ধাপ সম্পন্ন করতে হবেঃ প্রথমে এখানে থেকে রেজিস্ট্রেশন ফর্মটি পূরণ করে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে আপনার XM অ্যাকাউন্টে নুন্যতম $১০০ ডিপোজিট থাকতে হবে অথবা নতুন করে ডিপোজিট করতে পারবেন ১৫ জুন - ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে ১ স্ট্যান্ডার্ড লট অথবা ১০০ মাইক্রো লট ট্রেডিং সম্পন্ন করতে হবে এই ৩টি সহজ ধাপ সম্পন্ন করলেই আপনি একটি লাকি ড্রয়ের জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্বাচিত হবে। ২৭ জুলাই ২০২০ তারিখে লাকি ড্রটি অনুষ্ঠিত হবে এবং বিজয়ীদের সাথে যোগাযোগ করা হবে। ৭ আগস্ট ২০২০ তারিখে অফিসিয়াল ভাবে ফলাফল প্রকাশ করা হবে। কারা কারা অংশ নিতে পারবেন? XM এর যেকোনো বাংলাদেশী বর্তমান বা নতুন ট্রেডার অ্যাকাউন্টে $১০০ থাকলেই বা নতুন করে $১০০ ডিপোজিট করে এই প্রোমোশনে অংশ নিতে পারবেন। ১ স্ট্যান্ডার্ড লট অথবা ১০০ মাইক্রো লট ট্রেডিং সম্পন্ন করলেই বিজয়ী হওয়ার জন্য লাকি ড্রয়ের জন্য বিবেচিত হবেন। এছাড়াও প্রতি অতিরিক্ত ২ স্ট্যান্ডার্ড লট বা ২০০ মাইক্রো লট ট্রেড করলে অতিরিক্ত ১টি করে লাকি ড্র কুপন পাওয়া যাবে। কি কি পুরষ্কার থাকছে? প্রোমোশনটিতে নিম্নোক্ত আকর্ষণীয় ১০টি পুরষ্কার থাকছেঃ সুতরাং, আর দেরি কেন? যেহুতু প্রোমোশনটি শুধুমাত্র বাংলাদেশী ট্রেডারদের জন্য, আপনারও সুযোগ থাকছে Yamaha FZ V3 মোটরবাইকটিসহ আকর্ষণীয় পুরষ্কার জিতে নেয়ার। আমি নিজেও প্রোমোশনটিতে অংশ নিচ্ছি। এ বিষয়ে কোন প্রশ্ন থাকলে আমাকে জিজ্ঞেস করতে পারেন। [>>] বিস্তারিত জানুন । [>>] রেজিস্ট্রেশন করুন
  10. 1 point
    আপনার ব্র্যান্ড-নিউ Yamaha FZ V3 বাইকে একটি রাইড অথবা অফারের যেকোন একটি সেরা আইটেমে নিজের করে নিতে চান? এই 15 জুন - 15 জুলাই 2020 তারিখ পর্যন্ত চলা XM প্রমোশনে অংশগ্রহন করে বিজয়ীদের একজন হওয়ার সুযোগ নিন। বাংলাদেশে বসবাসরত আমাদের নতুন এবং পুরাতন সকল ক্লায়েন্টদের জন্য প্রযোজ্য, একটি উত্তেজনাপূর্ণ গ্রীষ্মের প্রমোশনে 10 টি দুর্দান্ত প্রাইজ আপনার জন্য অপেক্ষা করছে। লাকি ড্র রেফেলে অংশগ্রহন করতে, আপনাকে অ্যাকাউন্টে $100 (অথবা মুদ্রার সমতুল্য) পরিমান ফান্ড অ্যাকাউন্টে ডিপোজিট করে, ফরেক্স, গোল্ড অথবা সিলভারে 15 জুন - 15 জুলাই 2020 তারিখের মধ্যে 1 স্ট্যান্ডার্ড রাউন্ড টার্ন লট (অথবা 100 মাইক্রো রাউন্ড টার্ন লট) ট্রেড করতে হবে। https://www.xm.com/bn/motorbike-promo-bangladesh-june-2020
  11. 1 point
    1. Yamaha FZ V3 মোটরবাইক, অথবা XM MT4/MT5 রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্টে $2500 (অথবা মুদ্রার সমতুল্য) ক্যাশ ব্যালেন্স 2. Samsung Galaxy S10+ স্মার্টফোন, অথবা XM MT4/MT5 রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্টে $600 (অথবা মুদ্রার সমতুল্য) ক্যাশ ব্যালেন্স 3. ASUS Intel Core i7 ল্যাপটপ, অথবা XM MT4/MT5 রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্টে $400 (অথবা মুদ্রার সমতুল্য) ব্যালেন্স
  12. 1 point
    EURUSD ১.১৩১৫ থেকে কমে ১.১২৮৫ প্রাইসে অবস্থান করছে। জেরেমি পাওয়েলের কনফারেন্সকে কেন্দ্র করে পেয়ারটি নেতিবাচক অবস্থানে রয়েছে। পেয়ারটির আজকের ফোকাস ইউরোজোন জিডিপি(GDP) এবং এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট। বি কে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের ক্যাথি লিয়েনের মতে,বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের চেয়ারম্যান জেরেমি পাওয়েলের কনফারেন্স রয়েছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এ কনফারেন্স থেকে আশাব্যঞ্জক নিউজ আসতে পারে। যা যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমির সহায়ক হতে পারে।এর ফলে ইউরোর বিপরীতে মার্কিন ডলারের প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আজকের ট্রেডিং সেশনে ইউরোজোন জিডিপি(GDP) এবং এমপ্লোয়মেন্ট ডাটা পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে।প্রত্যাশা করা হচ্ছে,গতবারের মতো এবারও জিডিপি ৩.২%-এ অপরিবর্তনীয় থাকতে পারে।জিডিপি প্রত্যাশিত লেভেলের নিচে আসলে পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে।তবে প্রত্যাশিত লেভেল বা তার উপরে আসলে পেয়ারটির আপট্রেন্ড অব্যাহত থাকতে পারে।১ম প্রান্তীকে ইউরোজোন এমপ্লোয়মেন্ট ০.২% এ অপরিবর্তনীয় থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। রিপোর্টটি বিকাল ০৩:০০ প্রকাশিত হবে। পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো আজকের সেশনে যুক্তরাষ্ট্রের তেমন কোন ইভেন্ট না থাকলে রাজনৈতিক নিউজের কারণে পেয়ারটি প্রভাবিত হতে পারে। ইউরো/ডলার পেয়ারটি আজকে দিনের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১৩১৫ থেকে কমে ১.১২৮৫ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে।পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.১২৬৯ এবং পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল ১.১২৪৩। অপরদিকে পেয়ারটি গত তিন সপ্তাহের ঊর্ধ্বমূখী অবস্থান অব্যাহত রাখলে ১.১৩৪৬ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে আসতে পারে এবং পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.১৩৭১।
  13. 1 point
    EURUSD sell. 1.09230 Haven't set tp or sl yet.
  14. 1 point
    ইউরো/ডলার পেয়ারটি গত তিনদিন ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে।তবে আজকের সেশনে পেয়ারটি ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রাখবে কিনা সেটা দেখার বিষয়। পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো আজ বেশ কয়েক ইভেন্ট রয়েছে। ইভেন্টগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার,সার্ভিস পিএমআই এবং রিটেইল সেলস রিপোর্ট।অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলোর মধ্যে এপ্রিল মাসের এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। দুপুর ১২:০০ দিকে মার্চ মাসের জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে।ফেব্রুয়ারিতে জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার ১.৪% কমেছিল।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মার্চে ১০% কমতে পারে। দুপুর ০২:০০ দিকে এপ্রিল মাসের ইউরোজোন সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট রিলিজ হবে।রিপোর্টগুলোর মধ্যে জার্মান সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট মার্কেটে মুভমেন্ট সৃষ্টি করতে পারে।মার্চ মাসে জার্মান সার্ভিস পিএমআই থেকে ১৫.৯ পয়েন্ট এসেছিল। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলেও ১৫.৯ পয়েন্টে অপরিবর্তনীয় থাকতে পারে। তবে প্রত্যাশিত লেভেলের নিচে আসলে পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে এবং প্রত্যাশিত লেভেলের উপরে আসলে প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট রিলিজের কিছুক্ষণ পর ইউরোজোন রিটেইল সেলস রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে। ফেব্রুয়ারি মাসের রিটেইল সেলস ৩% বেড়েছিল। তবে মার্চে ১০.৫% কমার সম্ভাবনা রয়েছে। যা ইউরো/ডলার পেয়ারটিকে ডাউনট্রেন্ডে নিয়ে আসতে পারে। এছাড়াও ইউরোজোনের গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউরোপিয়ান কমিশন কর্তৃক প্রকাশিত ইকোনমিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস যা মার্কেটে ভোলাটিলিটি বাড়াতে পারে। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলোর মধ্যে অন্যতম এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মার্চ মাসের তুলনায় এপ্রিলে সেক্টরটি খারাপ করার সম্ভাবনা রয়েছে।তবে ইভেন্টটিকে কেন্দ্র করে পেয়ারটির প্রাইস বাড়লেও পরবর্তীতে পুনরায় ডাউনট্রেন্ডে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.০৮৩০ প্রাইসের উপর অবস্থান করছে।পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৮০০।পেয়ারটি ১.০৮০০ সাপোর্ট লেভেল অতিক্রম করতে সক্ষম হলে পরবর্তীতে ১.০৭৮০ সাপোর্ট লেভেলে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.০৮৫০। পেয়ারটির পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.০৮৮০।
  15. 1 point
    রমজান মাসে ফরেক্স ব্রোকার XM নিয়ে এসেছে তাদের ট্রেডারদের জন্য আকর্ষণীয় এক প্রোমোশন। বাংলাদেশসহ ৬টি দেশের ২০ জন ট্রেডার $৫০০০ করে সর্বমোট $১,০০,০০০ ডলার প্রাইজ জিতবেন রমজান মাসে XM ব্রোকারে মাত্র ৪ লট ট্রেড করেই। এই প্রোমোশনে আপনার বিজয়ী হওয়ার সুযোগ থাকবে অনেক বেশি, কারণ XM এর বেশিরভাগ প্রোমোশন বিশ্বব্যাপী হলেও রমজান প্রমোটি শুধুমাত্র বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, আলজেরিয়া, ইজিপ্ট এবং মরক্কো এই ৬টি দেশের ট্রেডারদের জন্য। রামাদান ২০২০ প্রোমোশনে কত প্রাইজ জেতা যাবে? ২০ জন ট্রেডার লাকি ড্রয়ের মাধ্যমে নির্বাচিত হবেন। প্রত্যেকে $৫,০০০ করে ক্যাশ প্রাইজ পুরষ্কার পাবেন। প্রাইজ মানি সাথে সাথেই উইথড্র করা যাবে। কিভাবে অংশ নিতে হবে? রমজান প্রমোশনে অংশ নেয়ার শর্তগুলো খুবই সহজ। আপনার XM ট্রেডিং অ্যাকাউন্টে নুন্যতম $৪০০ বা সমপরিমাণ ব্যালেন্স থাকতে হবে। যদি ইতিমধ্যে তা না থাকে, তবে আপনি নতুন করে ডিপোজিট করতে পারেন। এরপর আপনাকে প্রোমোশনটির জন্য এই পেইজ থেকে নিবন্ধন করতে হবে। এরপর ২০ এপ্রিল থেকে ২২ মে এই সময়ের মধ্যে আপনি যদি মাত্র ৪ স্ট্যান্ডার্ড লট বা ৪০০ মাইক্রো লট ট্রেড সম্পন্ন করেন, তাহলেই আপনি লাকি ড্রয়ের জন্য বিবেচিত হবে। ২৯ মে ২০২০ তারিখে লাকি ড্র অনুষ্ঠিত হবে এবং XM থেকে বিজয়ীদের সাথে যোগাযোগ করা হবে। ৫ জুন ২০২০ তারিখে ওয়েবসাইটে ফলাফল ঘোষণা করা হবে। XM ব্রোকারে আপনার কোন সক্রিয় রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্ট না থেকে থাকলে এখান থেকে নতুন একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। [ >> রমজান প্রোমোশনে রেজিস্ট্রেশন করুন ] ১০ বছর অ্যানিভার্সারি লাকি ড্র - মে ২০২০ এছাড়াও ১ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত XM এর আরেকটি লাকি ড্র প্রোমোশন শুরু হতে যাচ্ছে প্রতি মাসেরই মত। মাত্র $৫০০ ডলার অ্যাকাউন্টে থাকলে এবং ৩ লট ট্রেড করলেই আপনি অ্যানিভার্সারি লাকি ড্রতেও অংশ নিতে পারবেন। তাই যেকোনো ট্রেডার চাইলেই ২টি প্রমোশনেই একসাথে অংশ নিতে পারবেন একটির জন্য ট্রেড করেই। অ্যানিভার্সারি লাকি ড্র সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। [ >> ১০ বছর অ্যানিভার্সারি লাকি ড্রতে রেজিস্ট্রেশন করুন ]
  16. 1 point
    WTI (West Texas Instruments) তেলের এমন দরপতন বিশ্ব আর কখনো দেখেনি। একদিনে তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ১৫ ডলার থেকে (আজকেই তৈরি হওয়া ২১ বছরের সর্বনিম্ন প্রাইস) নেমে এসেছে মাত্র ০.০৫ ডলারে। অর্থাৎ, পানির চেয়েও এখন WTI তেলের দাম কম, ১ ডলারে আপনি ২০ ব্যারেল তেল পাবেন। তেলের চাহিদা এত কম যে, নতুন করে উৎপাদিত হওয়া তেল রাখার জায়গা আর পাওয়া যাচ্ছে না, যা তেলের মূল্যকে এই অস্বাভাবিক প্রাইসে নামিয়ে নিয়ে এসেছে। আমাদের জানা মতে, কোন ব্রোকারদের সাথেই এই মুহূর্তে আর স্পট WTI Oil ট্রেড করা যাচ্ছে না। তেলের দাম মাঝে মাঝে এমনকি নেগেটিভ প্রাইসেও চলে যাচ্ছে, কেননা তেল সংরক্ষণ এর খরচ আছে। এখানে উল্লেখ্য যে, অধিকাংশ ব্রোকার তেল এর স্পট ট্রেড না, শুধুমাত্র ফিউচার ট্রেড অফার করে। তাই, আপনি যদি আপনার ব্রোকার একাউন্টে WTI তেলের দাম এই মুহূর্তে ১৪ ডলারের কাছাকাছি দেখে থাকেন, তাহলে সেটা হচ্ছে জুন মাসের ফিউচার প্রাইস, যেটা স্পট/বর্তমান প্রাইসের থেকে ভিন্ন। আপনি oilprice.com অথবা গুগল থেকে WTI Oil এর বর্তমান প্রাইস দেখতে পারবেন।
  17. 1 point
  18. 1 point
    ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.০৮৫০ প্রাইসের কাছাকাছি ট্রেডিং করছে। করোনাভাইরাসের দ্বারা প্রভাবিত হচ্ছে ইউরো। আজকের সেশনের গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউরোজোন সার্ভিস পিএমআই এবং যুক্তরাষ্ট্রের NEP রিপোর্ট। ইউরো/ডলার পেয়ারটি গতকাল ছয় দিনের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.০৮২০-তে এসেছিল। ইউরোজোন সার্ভিস পিইএমআই প্রত্যাশিত লেভেলের নিচে আসলে পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ইউরোজোন সার্ভিস পিএমআই দুপুর ১-২ টার মধ্য রিপোর্টগুলো প্রকাশিত হবে। ফেব্রুয়ারিতে স্পেন এবং ইতালির সার্ভিস পিএমআই ৫২.১ পয়েন্ট এসেছিল। তবে ফেব্রুয়ারিতে কমে স্পেনে ২৫.৬ এবং ইতালিতে ২২.৪ পয়েন্ট আসতে পারে।ফ্রান্স পিএমআই ২৯ পয়েন্টে অপরিবর্তনীয় এবং জার্মান পিএমআই ৩৪.৫ থেকে কমে ৩৪.৩ পয়েন্ট আসতে পারে। এছাড়াও মার্চ মাসের রিপোর্টে ইউরোজোন সার্ভিস পিএমআই ২৮.৪ থেকে কমে ২৮.২ পয়েন্ট আসতে পারে। সুতরাং মার্চ মাসের সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট ফেব্রুয়ারির তুলনায় কিছুটা খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।এর ফলে ইউরো/ডলারের প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে প্রত্যাশিত লেভেলের উপরে আসলে পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে পারে। ইউরোজোন সার্ভিস পিএমআই রিপোর্ট ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের NEP,মেনুফেকচারিং এবং বেকারত্বের হার রিপোর্ট পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলোও ফেব্রুয়ারি মাসের তুলনায় মার্চে খারাপ আসতে পারে। অতএব, ইউরোজোন সার্ভিস রিপোর্টকে কেন্দ্র করে পেয়ারটির প্রাইস কমলেও যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলোকে কেন্দ্র করে পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা বাড়তে পারে। তবে পেয়ারটির আপট্রেন্ড স্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা কম ।
  19. 1 point
    ক্যাথি লিয়নের মতে, এ মাসে পেয়ারটি ১.০৫ প্রাইসে আসতে পারে। ইউরোর ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। লন্ডন সেশন ওপেন হওয়ার পূর্বে পেয়ারটি ১.১০৩০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। গতকাল ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.১১৮০ প্রাইস থেকে কমে ১.০৯৫০ প্রাইসে এসেছিল। ২০১৮ সালের ১৪ জুন এ ধরণের ডাউনট্রেন্ডে দেখা গিয়েছিল। গতকাল ইউরোর প্রাইস কমার পিছনে মার্কিন ডলারের শক্ত অবস্থান এবং জার্মান ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট কাজ করেছিল। ফেব্রুয়ারিতে জার্মান ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট ৮.৭ পয়েন্ট বাড়লেও মার্চে ৪৯.৫ পয়েন্ট কমেছে। যেখানে প্রত্যাশা করা হয়েছিল মার্চ মাসে ২৯.৭ পয়েন্ট কমবে। সুতরাং প্রত্যাশিত লেভেলর নিচে আসার কারণে পেয়ারটির প্রাইস কমেছিল। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইভেন্টগুলো ভাল অবস্থানে ছিল। আজকের ইভেন্টগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউরোজোন ফাইনাল CPI রিপোর্ট। গত রিপোর্টের মতো এবারও CPI ১.২% এ অপরিবর্তনীয় থাকতে পারে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে Core CPI রিপোর্টও ১.২% এ অপরিবর্তনীয় থাকতে পারে। CPI রিপোর্ট প্রত্যাশিত লেভেলের উপরে আসলে পেয়ারটির প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অপরদিকে প্রত্যাশিত লেভেলে বা তার নিচে আসলে পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। বি কে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্টের ক্যাথি লিয়েন বলেন,করোনাভাইরাসের ফলে ইউরোজোন ইকোনমি ক্রমাগত খারাপ করছে। বিশেষ করে ইউরোজোনের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তি জার্মান করোনাভাইরাসের প্রভাবে বর্ডার,স্কুল, পাবলিক প্লেস এবং অতি প্রয়োজনীয় দোকান ব্যতীত সকর কিছু বন্ধ ঘোষণা করেছে। ক্যাথি লিয়নের মতে, এর ফলে ইউরোজোন ইকোনমি আরও অস্থিতিশীল হতে পারে । ইউরোজোনে এ ধরণের অবস্থা চলমান থাকলে পেয়ারটির প্রাইস কমে ১.৫ –তে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। বর্তমানে ইউরো/ডলার পেয়ারটির প্রাইস বাড়লেও পরবর্তীতে পুনরায় ডাউনট্রেন্ডে আসার সম্ভাবনা রয়েছে।
  20. 1 point
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেটের ১.১২০০বাই এন্ট্রি দেওয়া হয়েছে।১.১০৮০ প্রাইস ভেঙ্গে নিচে নামলে বুলিশ ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১০৮০,১.১০১০,১.০৯১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৪০,১.১৩০০,১.১৩৮০ বাই এন্ট্রি: ১.১২০০ স্টপ লস: ১.১০৮০ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.১২৭০,১.১৩৮০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.১২৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.১০৫০ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১০৫০,১.০৯৫০,১.০৭৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৫০,১.১৩৫০,১.১৫০০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেটের ১.২২৫০ সেল এন্ট্রি দেওয়া হয়েছে।১.২২৫০ সাপোর্ট লেভেল দেওয়া হয়েছে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২১৫০,১.১৯৮০,১.১৬৮০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৪২০,১.২৫৫০,১.২৭৩০ সেল এন্ট্রি: ১.২২৫০ স্টপ লস: ১.২৪৫০ ট্রেডের সম্ভাবনা: হাই টেক প্রফিট: ১.২১৫০,১.১৯৮০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.২৫০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২১৫০,১.১৯৮০,১.১৬৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৫০০,১.২৬৪০,১.২৮৫০
  21. 1 point
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেটের ১.০৭৮২ সেল সিগন্যাল এবং ১.০৭৮২ একটি সাপোর্ট লেভেল দেওয়া হয়েছে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.০৭৬০,১.০৭২০,১.০৬৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.০৮১৫,১.০৮৩৪,১.০৮৬৫ সেল এন্ট্রি: ১.০৭৮২ স্টপ লস: ১.০৮১৫ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.০৭৬০,১.০৭২০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.০৮৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.০৭৫০ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। সেক্ষত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.০৭৫০,১.০৭২০,১.০৬৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.০৮৫০,১.০৮৯০,১.০৯৬০ টেক প্রফিট: ১.০৭৬০,১.০৭২০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছেছে। ১.২৯৬৫ প্রফিট লেভেলে আমরা স্টপ লস নেব। আশা করছি মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিট লেভেলে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৮৫০,১.২৮২০,১.২৮০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৯৬৫,১.৩০০০,১.৩০৫০ সেল এন্ট্রি: ১.২৯৬৫ স্টপ লস: ১.২৯৬৫ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.২৯২০,১.২৮৫০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.২৯৯০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২৮৬০,১.২৭৮০,১.২৬৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৯৯০,১.৩০৭০,১.৩১৭০
  22. 1 point
    ইউরোজোনের প্রধান ইভেন্টগুলোর মধ্যে জার্মান ফ্যাক্টরি অর্ডার বেশ গুরুত্বপূর্ণ ছিল। প্রত্যাশা করা হয়েছিল ডিসেম্বরে ফ্যাক্টরি অর্ডার ০.৬% বাড়বে। তবে রিপোর্টে ২.১% কমেছে। সুতরাং রিপোর্টটি পেয়ারটির উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। ইউরো/ডলার বর্তমানে ১.১০০০ প্রাইসের উপরে অবস্থান করছে। কনফ্লুয়েন্স ইনিডিকেটর এবং বলিঞ্জার ব্যান্ড অনুয়াযী পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৯৯৪। পেয়ারটির পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল ১.০৯২৬। ৬১.৮% ফিবোনাসি অনুযায়ী পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে শুরু হলে ১.১০২৯ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে আসতে পারে এবং ২৩.৬% ফিবোনাসি পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.১০৫১।
  23. 1 point
    FXSVPS | DataCenter in USA, Canada & Europe | FXSVPS.COM সাধ্যের ভিতর সেরা VPS নিয়ে নিন আপনার পছন্দের VPS আপনার বাজেটের মধ্যেই মাত্র ২.৫০ ডলার থেকে শুরু যেটা মার্কেটের সবথেকে সর্বনিম্ন দাম। বাড়িয়ে নিন Trade Execution স্প্রিড আমাদের ultra low latency VPS দিয়ে। ২৪ ঘন্টা চুালু রাখেন আপনার MT4, Expert advisor ও অন্যান্য Software। আপনি Guaranteed নিরাপত্তা পাবেন DDoS Attack, Virus, Malware, data loss ইত্যাদী থেকে। প্রতিটি VPS এর সাথে পাচ্ছেন ৩০ দিনের Money Back Guarantee। আপনি VPS পেতে পারেন আপনার পছন্দের লোকেশন থেকে যেমন USA, Canada and EUROPE এর গুরুত্বপূর্ন লোকেশন থেকে যেমন UK, France, Germany ইত্যাদি। FXSVPS আপনাকে দিবে World Class VPS যেখানে পাবেন দ্রুতগতির কানেকশন, দ্রুতগতির Desktop Interface, affordable pricing, favorable terms and condition। আপনি অবশ্যই satisfied হবেন। DISCOUNT: Order any FOREX VPS PACKAGE and get 10% discount. This offer exclusively for BDPIPS MEMBER. Promo CODE: 10%OFF কিছু গুরুত্বপূর্ন বৈশিষ্ট: • Market lowest price that start from 2.50 USD. • Fully managed VPS with professional support. • Administrator access and no restrictions on the software you can install. • Dedicated IP address and guaranteed hardware resource. • Compatible with any RDP or remote desktop client. • Windows server 2008 R2, 2012 R2. • According to 12 months survey we can ensure you 100% up time without any major technical issue. এবার আসুন দেথে নিই VPS এর প্লান এবং দাম: ECONOMY STARTER: ( 1 MT4/5 recommended): 800 MB RAM 1x CPU Core @ 2.60GHz 1 Dedicated IP 16 GB Disk Space Unlimited Bandwidth Price: Only $ 2.5/Monthly ECONOMY ZONE: ( 1 or 2 MT4/5 recommended) 1024 MB RAM 1x CPU Core @ 2.70GHz 1 Dedicated IP 20 GB Disk Space Unlimited Bandwidth Price: Only $ 4.50/Monthly ECONOMY PRO: ( 1 or 2 MT4/5 recommended) 1024 MB RAM 1x CPU Core @ 2.70GHz 1 Dedicated IP 20 GB Disk Space Unlimited Bandwidth Price: Only $ 5.99/Monthly LITE PACKAGE: ( 3 MT4/5 recommended) 2 GB RAM 2x CPU Core @ 3.70GHz 1 Dedicated IP 40 GB pure SSD Unlimited Bandwidth Price: Only $ 10.99/Monthly BASIC PACKAGE: ( 1-8 Running MT4/5) 3 GB RAM 2x CPU Core @ 3.70GHz 1 Dedicated IP 60 GB Disk Space Unlimited Bandwidth Price: Only $14.99/Monthly PREMIUM PACKAGE: ( 1-8 Running MT4/5) 5 GB RAM 2x CPU Core @ 4.70GHz 1 Dedicated IP 60 GB Disk Space Unlimited Bandwidth Price: Only $24.99/Monthly বিস্তারীত জানতে ভিজিট করুন: www.fxsvps.com Please note: All VPS plans can be upgraded or downgraded at any time. Just ask if you need to deploy a custom specification. Accepted Payments: Paypal, Payza, Skrill, Neteller, Perfect Money, Payeer, UK local Bank transfer, BitCoin & Crypto, Payeer etc For Bangladesh: Bikash, Brac Bank, and other E currency as well. Our Discount: Our all package now by default 50% discount, all exclusive package 3 months free for yearly package. Refund Policy: We offer 7 Days no question money back guarantee. If you unhappy with our service, please contact us we will refund you without any question. If you have any question, please don't hesitate to contact with us at [email protected] Thank you On behalf of FXVPS www.fxsvps.com Phone support: +191 76755105 HEAD OFFICE: 7 Bullands Close, Bovey Tracey, Devon, TQ13 9JF, United Kingdom
  24. 1 point
    ডিসেম্বর মাসে XM ব্রোকারে ট্রেড করে লাকি ড্রতে ২০০০ ডলার জিতে নিয়েছেন এক বাংলাদেশী। তার নাম মোশাররফ। তিনি লাকি ড্রতে ১০ তম পুরষ্কার ২০০০ ডলার জিতেছেন। জনপ্রিয় ফরেক্স ব্রোকার XM সম্প্রতি পা দিয়েছে ১০ বছরে। ১০ বছরের পথচলা ক্লায়েন্টদের সাথে উদযাপনের জন্য XM নিয়ে এসেছে ১০ মাস ব্যাপী ১ মিলিয়ন ডলারের প্রোমোশন। প্রতি মাসে তারা ৮০,০০০ ডলার করে পুরস্কৃত করে তাদের ট্রেডারদের। ডিসেম্বর ২০১৯ এ ২য় রাউন্ডের র‍্যাফেল ড্র হয়েছে। আরও ৮টি রাউন্ডে XM এর যেকোন ট্রেডারের সুযোগ থাকবে এই পুরষ্কার জেতার। প্রোমোশনটি ২টি ভাগে বিভক্ত। প্রথম থাপে ১০ মাস ধরে ১০টি রাউন্ড চলবে যেখানে ৫০০ জন বিজয়ী পুরস্কার পাবেন। প্রতিটি রাউন্ডে $৮০,০০০ করে প্রাইজ পুল থাকবে এবং ৫০ জন করে বিজয়ী হবেন। ১০টি রাউন্ড শেষে গালা রাউন্ড অনুষ্ঠিত হবে এবং ১০ জন বিজয়ী বিলাসবহুল গাড়িসহ $২০০,০০০ সমপরিমাণ প্রাইজের পুরস্কার জিতবেন। কিভাবে প্রাইজ জিতবেন? ১০ বছর পূর্তি প্রমোশনে রেজিস্ট্রেশন করার পূর্বে আপনার XM MT4/MT5 রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্টে নুন্যতম $৫০০ ডলার থাকতে হবে। প্রতি মাসে আলাদা আলাদা ভাবে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এবং আপনি ১০ মাসে ১০টি রাউন্ডেই অংশ নিতে পারবেন। প্রোমোশনে রেজিস্ট্রেশন করার পর আপনাকে সেই মাসের মধ্যে ৩ স্ট্যান্ডার্ড লট অথবা ৩০০ মাইক্রো লট ট্রেডিং করতে হবে। তাহলে আপনি মাসিক লাকি ড্র এর 1 টি টিকেট সহ 1 টি গ্র্যান্ড গালা লাকি ড্র এর টিকেট পাবেন। কোন অতিরিক্ত 1 স্ট্যান্ডার্ড রাউন্ড লট ( অথবা 100 মাইক্রো লট) ট্রেড করা হলে, মাসিক লাকি ড্রতে 1 টি অতিরিক্ত টিকেট + গ্র্যান্ড গালা ডিনারের জন্য 1 অতিরিক্ত টিকেট পাবেন। এভাবে আপনি আনলিমিটেড টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন এবং লাকি ড্রতে আপনার জেতার সুযোগ বাড়াতে পারবেন। গালা রাউন্ডের লাকি ড্রয়ের প্রাইজঃ নভেম্বর রাউন্ডে অংশ নিনঃ জানুয়ারি মাসের লাকি ড্রতে রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়ে গেছে। ৫০ জন বিজয়ী এবার $৮০,০০০ প্রাইজ জিতবেন। প্রমোশনের সময়ঃ ১ - ৩১ জানুয়ারি ২০২০. নিচের লিংকগুলোতে বিস্তারিতঃ [বিস্তারিত জানুন এবং রেজিস্ট্রেশন করুন] । [XM রিয়েল অ্যাকাউন্ট খুলুন এখান থেকে]
  25. 1 point
    কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট কারেন জনের মতে, ইউরো/ডলারের প্রাইস গতকাল থেকে কমছে এবং প্রত্যাশা করা হচ্ছে, পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। ৫৫ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী, পেয়ারটির বর্তমানে সাপোর্ট লেভেল ১.১০৯৪ হতে পারে। ১০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী, পেয়ারটির সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ১.১০৬৫। পেয়ারটির ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হলে পরবর্তী পদক্ষেপ হতে পারে ১.১০৫০। অপরদিকে পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে শুরু হলে ৫৫ সপ্তাহের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ১.১১৯৭ শক্তিশালী একটি সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করতে পারে। তবে পেয়ারটি ১.১১৯৭ রেজিস্ট্যান্স লেভেলকে অতিক্রমের পরবর্তীতে ১.১২৪০ প্রাইসে যেতে পারে। বর্তমানে ট্রেডেরদের ১.১০৬৫ সাপোর্ট এবং ১.১২৪০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে নজর রাখা প্রয়োজন।
  26. 1 point
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.১১৭০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.১২১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হতে পারে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.১১৭০,১.১১৫০,১.১১১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.১২১০,১.১২২০,১.১২৪০ টেক প্রফিট: ১.১২২০,১.১২৪০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ সপ্তাহ) পেয়ারটি ১.১১৭০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.১১৭০,১.১১৪০,১.১০৯০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.১২৫০,১.১২৮০,১.১৩৩০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.৩০৭০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.৩০৭০,১.৩০৪০,১.২৯৯০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.৩১৩০,১.৩১৫০,১.৩১৮০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ সপ্তাহ) পেয়ারটি ১.৩০০০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.৩০০০,১.২৯০০,১.২৭৪০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.৩১৫০,১.৩২৫০,১.৩৪০০
  27. 1 point
    গত সপ্তাহে পাউন্ড/ডলার পেয়ারটি ডাউনট্রেন্ডে ছিল।এ সপ্তাহে পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো মাত্র একটি ইভেন্ট রয়েছে।এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং GBPUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে ব্রিটিশ ডাটাগুলো দুর্বল আসার কারণে পাউন্ড/ডলার পেয়ারটির প্রাইস কমেছিল। এছাড়াও ব্রিটিশ মেনুফেকচারিং এবং সার্ভিস পিএমআই তেমন ভাল অবস্থানে ছিল না। এ সেক্টর দুটি ৫০ পয়েন্টের নিচে ছিল এবং প্রত্যাশিত লেভেলের বেশ নিচে এসেছিল। ব্রিটিশ ওয়েজ বৃদ্ধি তেমন ভাল অবস্থানে ছিল না। ওয়েজ শতকরা ৩.২% বেড়েছিল। এপ্রিল মাসের পর এটা সর্বনিন্ম লেভেল। রিটেইল সেলস গত চার মাসের মধ্যে তিনবার খারাপ অবস্থানে রয়েছে। এবারের রিপোর্টে রিটেইল সেলস শতকরা ০.৬% কমেছিল। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড ইন্টারেস্ট রেট শতকরা ০.৭৫% নির্ধারণ করেছে। পাউন্ডের প্রাইস কমাতে এ ইভেন্টটি বেশ সহায়তা করেছিল। ব্রিটিশ GDP গতবারের থেকে ভাল অবস্থানে রয়েছে। এবারের রিপোর্টে ব্রিটিশ GDP ০.৩% থেকে বেড়ে ০.৪% এসেছে। ডিসেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের মেনুফেকচারিং পিএমআই বেড়ে ৫২.৫ পয়েন্ট এসেছে। সেক্টরটি প্রত্যাশিত লেভেল ৫২.৬ থেকে কিছুটা নিচে এসেছে। মার্চের পর এটা সর্বোচ্চ লেভেল। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমি বেশ ভাল অবস্থানে রয়েছে। ১.High Street Lending শুক্রবার,দুপুর ০৩:৩০। ব্রিটিশ ইকোনমির ক্ষেত্রে এ সেক্টরটি বেশ ‍গুরুত্বপূর্ণ একটি ইভেন্ট। অক্টোবরে যুক্তরাজ্যে হাউজিং অনুমোধন ৪২ হাজার ৩০০ থেকে কমে ৪১ হাজার ২০০ এসেছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, নভেম্বরে ৪১ হাজার ৫০০ আসতে পারে। GBPUSD প্রতিদিনের রেজিস্ট্যান্স এবং সাপোর্ট লাইনগুলো দেওয়া হলো GBPUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো আমরা ১.৩৩৭৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেল থেকে শুরু করছি। পরবর্তীতে ১.৩৩০০ একটি রাউন্ড নাম্বার ছিল। গত সপ্তাহে পেয়ারটির ক্ষেত্রে ১.৩১৭০ গুরুত্বপূর্ণ একটি রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। ২০১৮ সালের নভেম্বরে ১.৩০৭০ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। গত সপ্তাহে ১.৩০০০ গুরুত্বপূর্ণ একটি সাপোর্ট লেভেল ছিল। ডিসেম্বরের শুরুর দিকে ১.২৯১০ গুরুত্বপূর্ণ একটি সাপোর্ট লেভেল ছিল। পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল ছিল ১.২৮৫০। অক্টোবরের মাঝামাঝিতে ১.২৭২৮ গুরুত্বপূর্ণ একটি সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। পেয়ারটির সর্বশেষ সাপোর্ট লেভেল ১.২৬১৬। শেষ কথা ফরেক্স বিশেষজ্ঞদের মতে, এ সপ্তাহে GBPUSD পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে। গত সপ্তাহে ব্রিটিশ ডাটাগুলো নমনীয় থাকার কারণে পেয়ারটির প্রাইস কমেছিল। নির্বাচনের পর লন্ডন এবং ব্রুসেলস মধ্যে বানিজ্য চুক্তি নিয়ে একটি আলোচনা এসেছে। এর ফলে পাউন্ড প্রভাবিত হতে পারে।
  28. 1 point
    গত এক সপ্তাহ আগে ইউরো/ডলার পেয়ারটি বুলিশ অবস্থানে থাকলেও, গত সপ্তাহে পেয়ারটি বিয়ারিশ অবস্থানে ছিল।এ সপ্তাহে পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো জার্মান আমদানি প্রাইস (German Import Prices) ইভেন্ট বেশ গুরুত্বপূর্ণ।এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং EURUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। জার্মান মেনুফেকচারিং সেক্টর স্থবিরতার মধ্যে রয়েছে। নভেম্বরে মেনুফেকচারিং সেক্টরে ৪৩.৮ থেকে কমে ৪৩.৪ পয়েন্ট এসেছিল। যদিও প্রত্যাশা করা হয়েছিল,এ সেক্টরটি অক্টোবরের থেকে নভেম্বরে বেড়ে ৪৪.৬ আসবে। একই ধরণের স্থবিরতা ইউরোজোন মেনুফেকচারিং পিএমআই সেক্টরে পরিলক্ষিত হচ্ছে। এবারের রিপোর্টে ইউরোজোন মেনুফেকচারিং পিএমআই থেকে ৪৫.৯ পয়েন্ট এসেছে। তবে জার্মান এবং ইউরোজোনের সার্ভিস সেক্টর গত কয়েকবার থেকেই ভাল করছে। ডিসেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের মেনুফেকচারিং পিএমআই বেড়ে ৫২.৫ পয়েন্ট এসেছে। সেক্টরটি প্রত্যাশিত লেভেল ৫২.৬ থেকে কিছুটা নিচে এসেছে। মার্চের পর এটা সর্বোচ্চ লেভেল। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমি বেশ ভাল অবস্থানে রয়েছে। ১.German Import Prices সোমবার,দুপুর ০১:০০। গত ছয় বারের মধ্যে এ সেক্টরটি পাঁচবারের মতো খারাপ অবস্থানে রয়েছে। অক্টোবরে এ সেক্টরে শতকরা -০.১% কমেছিল। তবে প্রত্যাশিত লেভেল -০.২% থেকে কিছুটা ভাল এসেছিল। EURUSD প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো EURUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো আমরা ১.১৫১৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেল থেকে শুরু করছি। জানুয়ারির শেষের দিকে এটা সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে ১.১৪৩৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। জুন মাস পর্যন্ত ১.১৩৯০ গুরুত্বপূর্ণ একটি রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। পরবর্তীতে ১.১৩৪৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেলকে অনুসরণ করা হয়। জুলাই মাসে পেয়ারটি ১.১২৯০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল টেস্ট করেছিল। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল ১.১২১৫। পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১১১৯ হতে পারে। গত সপ্তাহে পেয়ারটির ক্ষেত্রে ১.১০২৫ গুরুত্বপূর্ণ একটি সাপোর্ট লেভেল ছিল। পরবর্তীতে ১.১০ এবং ১.০৯২৫ গুরুত্বপূর্ণ দুইটি সাপোর্ট লেভেল। ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে ১.০৮২৯ গুরুত্বপূর্ণ একটি সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। সর্বশেষ সাপোর্ট লেভেল ১.০৬৯০। শেষ কথা ফরেক্স বিশেষজ্ঞদের মতে, এ সপ্তাহে EURUSD পেয়ারটি নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে পারে। ইউরোজোন ইকোনমি নমনীয় অবস্থানে রয়েছে। এছাড়াও ইউরোজোনের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তি হিসেবে পরিচিত জাপানের ইকোনমিও খারাপ অবস্থানে রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমি মোটামুটি ভাল অবস্থানে রয়েছে। এ সপ্তাহে জার্মান ইমপোর্ট রিপোর্ট মার্কেটে প্রভাব ফেলতে পারে।
  29. 1 point
    EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.১১৩০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.১১০৫ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে।সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১১০৫,১.১০৯০,১.১০৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১১৩০,১.১৫৫০,১.১১৮০ টেপ প্রফিট: ১.১১৯০,১.১১৭০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বভাবে শক্তিশালী। মার্কেট ১.১১০০ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে।আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.১২০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.১০৫০। সাপোর্ট লেভেল : ১.১১০০,১.১০৫০,১.০৯৮০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৪০,১.১২৫০,১.১৩৪০ টেপ প্রফিট: ১.১২৫০,১.১৩৪০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১.৩০৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে টেস্টিং করছে।আমরা সেল পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.২৯৮৫ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.৩০৯০। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৮৫,১.২৯৫৫,১.২৯০৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০৫০,১.৩০৯০,১.৩১৫০ টেক প্রফিট: ১.২৯৫৫,১.২৯০৫ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.৩২০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২৯৫০,১.২৮৪০,১.২৬৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.৩২০০,১.৩৩২০,১.৩৫০০
  30. 1 point
    কমার্জব্যাংক অ্যানালাইসিস্ট রুডলফের মতে, ইউরো/ডলার পেয়ারটি ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ ১.১১৫২ প্রাইসের নিচে অবস্থান করছে। পেয়ারটির বর্তমানে ১.১১৪০ প্রাইসের কাছাকাছি ট্রেডিং করছে।পেয়ারটি ১.১১৩০ প্রাইসের নিচে আসলে বিয়ারিশ ট্রেন্ড শক্তিশালী হতে পারে। সেক্ষেত্রে পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ১.১১১৬। পরবর্তী পেয়ারটি ২১ নভেম্বরের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১০৯৭-তে আসতে পারে। অপরদিকে পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে শুরু হলে ১.১১৫২ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে আসতে পারে। পেয়ারটি ১.১১৫২ রেজিস্ট্যান্স লেভেল অতিক্রমের পরবর্তীতে ৫৫ সপ্তাহের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী ১.১২০৮ প্রাইসে আসতে পারে।
  31. 1 point
    জনপ্রিয় ফরেক্স ব্রোকার XM পা দিল ১০ বছরে। আর এই ১০ বছরের পথচলা ক্লায়েন্টদের সাথে উদযাপনের জন্য XM নিয়ে এসেছে ১০ মাস ব্যাপী ১ মিলিয়ন ডলারের প্রোমোশন। ১০ বছর পূর্তির প্রোমোশনটি এমন ভাবেই সাজানো হয়েছে যেন যেকোন ট্রেডারের পক্ষে প্রাইজ জেতার সমান সুযোগ থাকবে। প্রোমোশনটি ২টি ভাগে বিভক্ত। প্রথম থাপে ১০ মাস ধরে ১০টি রাউন্ড চলবে যেখানে ৫০০ জন বিজয়ী পুরস্কার পাবেন। প্রতিটি রাউন্ডে $৮০,০০০ করে প্রাইজ পুল থাকবে এবং ৫০ জন করে বিজয়ী হবেন। ১০টি রাউন্ড শেষে গালা রাউন্ড অনুষ্ঠিত হবে এবং ১০ জন বিজয়ী বিলাসবহুল গাড়িসহ $২০০,০০০ সমপরিমাণ প্রাইজের পুরস্কার জিতবেন। কিভাবে প্রাইজ জিতবেন? ১০ বছর পূর্তি প্রমোশনে রেজিস্ট্রেশন করার পূর্বে আপনার XM MT4/MT5 রিয়েল ট্রেডিং অ্যাকাউন্টে নুন্যতম $৫০০ ডলার থাকতে হবে। প্রতি মাসে আলাদা আলাদা ভাবে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এবং আপনি ১০ মাসে ১০টি রাউন্ডেই অংশ নিতে পারবেন। প্রোমোশনে রেজিস্ট্রেশন করার পর আপনাকে সেই মাসের মধ্যে ৩ স্ট্যান্ডার্ড লট অথবা ৩০০ মাইক্রো লট ট্রেডিং করতে হবে। তাহলে আপনি মাসিক লাকি ড্র এর 1 টি টিকেট সহ 1 টি গ্র্যান্ড গালা লাকি ড্র এর টিকেট পাবেন। কোন অতিরিক্ত 1 স্ট্যান্ডার্ড রাউন্ড লট ( অথবা 100 মাইক্রো লট) ট্রেড করা হলে, মাসিক লাকি ড্রতে 1 টি অতিরিক্ত টিকেট + গ্র্যান্ড গালা ডিনারের জন্য 1 অতিরিক্ত টিকেট পাবেন। এভাবে আপনি আনলিমিটেড টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন এবং লাকি ড্রতে আপনার জেতার সুযোগ বাড়াতে পারবেন। গালা রাউন্ডের লাকি ড্রয়ের প্রাইজঃ নভেম্বর রাউন্ডে অংশ নিনঃ নভেম্বর মাসের লাকি ড্রতে রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়ে গেছে। ৫০ জন বিজয়ী এবার $৮০,০০০ প্রাইজ জিতবেন। প্রমোশনের সময়ঃ ১ - ৩০ নভেম্বর ২০১৯. নিচের লিংকগুলোতে বিস্তারিতঃ [বিস্তারিত জানুন এবং রেজিস্ট্রেশন করুন] । [XM রিয়েল অ্যাকাউন্ট খুলুন এখান থেকে]
  32. 1 point
    Crude Oil বা ক্রুড তেল বলতে যে অপরিশোধিত তেলকে বোঝায়, তা আমরা জানি। “তেল নিয়ে তেলসামাতি” পড়ে থাকলে আপনি এটাও জানেন যে বিশ্বে বিভিন্ন ধরনের অপরিশোধিত তেল রয়েছে এবং এগুলোর মধ্যে Brent Crude, WTI Crude এবং Opec Basket Crude সবচেয়ে বেশী জনপ্রিয়। এখন আপনি প্রশ্ন করতে পারেন যে, এই তেলগুলো কি জিনিস সেটা জেনে আমার কি লাভ? সত্যি বলতে তেমন কোন লাভ নেই, তাই এ নিয়ে বিস্তারিত কোন আলোচনায় যাবো না। কিন্তু, তেলের যে বিভিন্ন ধরন আছে, আর কোনটা কি, তা জানার দরকার আছে। না জানলে কি ঝামেলায় পড়বেন, তা নিচের উদাহরন দেখলেই বুঝতে পারবেনঃ বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় অপরিশোধিত তেল হচ্ছে Brent Crude (মোট ব্যবহৃত অপরিশোধিত তেলের দুই তৃতীয়াংশই হচ্ছে Brent Crude বা ব্রেন্ট ক্রূড)। আর XM এ Brent Crude Oil এর নাম হচ্ছে Brent, মানে mt4/mt5 এ Brent খুজে বের করলেই হবে। কিন্তু, আপনি যদি না জানেন যে Brent বলতে আসলে এক ধরনের অপরিশোধিত জ্বালানি তেলকে বোঝায়, তাহলে আপনি যেটা খুজে পাবেন, সেটা হচ্ছে Oil. XM এ শুধু OIL ট্রেডিং কোডটি দিয়ে West Texas Intermediate বা WTI ক্রুড তেলকে বোঝায়। OILMn নামে আরেকটি ট্রেডিং কোড আছে যেটি WTI ক্রুড এরই মিনি লটকে নির্দেশ করে, যেটিতে প্রতি পিপসের ভ্যালু মাত্র ১০ সেন্ট। তারমানে, Brent কি তা না জানলে আপনি সবচেয়ে জনপ্রিয় তেলটি ট্রেডের সুযোগ থেকেই বঞ্চিত হবেন। মোটামুটি সব ব্রোকারেই Brent Crude তেল শুধু Brent নামেই পরিচিত। তাই, নাম না জানলে বিপদ। আবার, Brent, OIL এবং OILMn, এই তিনটি দিয়ে যে যথাক্রমে Brent Crude, WTI Crude এবং WTI Crude এর মিনি লটকে বোঝাচ্ছে, সেটাও বুঝতে পারবেন না। আমি নতুনদের সবসময় পরামর্শ দিব OILMn ট্রেড করতে, কেননা এটাতে প্রতি পিপসের ভ্যালু সর্বনিম্ন ১০ সেন্ট, অন্যগুলোতে ১ ডলার করে। তেলের ক্ষেত্রে XM এ ১ লট বলতে ১০০ ব্যারেল তেল বোঝায় (১ ব্যারেল মানে ১৫০ লিটার)। আগেই বলেছি যে কোন তেল কি, সেটা জেনে আপনার তেমন কোন লাভ নেই, আপনার শুধু জানা দরকার কোন তেলগুলো বিশ্ববাজারে সবচেয়ে বেশী ট্রেড করা হয় এবং ব্রোকারগুলোতে সেগুলোর নাম কি। সেটা আপনি ইতিমধ্যেই জেনে আছেন। তারপরেও প্রধান তেলগুলো সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করছিঃ প্রধান অপরিশোধিত তেলগুলো আমার সবার প্রথমে মাথায় এটা প্রশ্ন জেগেছিল যে, অপরিশোধিত তেলের আবার আলাদা আলাদা ধরন কেন? নারিকেল তেল, সয়াবিন তেলের মতই কি এগুলো আলাদা আলাদা ধরনের জ্বালানী তেল নির্দেশ করে? এগুলো সবগুলোই কি একই কাজে ব্যবহৃত হয়, নাকি নারিকেল তেল, সয়াবিন তেলের মত আলাদা আলাদাভাবে ব্যবহৃত হয়? বিশ্বে ১৬০ ধরনের তেল ট্রেড করা হয়, আমরা এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশী যে তেলগুলো ট্রেড করা হয়, মানে Brent, WTI এবং Opec Basket, সেগুলোর মধ্যে তুলনা করব। জ্বালানী তেলের গুনগতমান কিভাবে নির্ধারন করা হয়? জালানী তেলের ক্ষেত্রে গুনগতমান নির্ধারন করা হয়, এতে কতটুকু সালফার আছে এবং এটি কতটুকু ভারি তা দিয়ে। কোন তেলে সালফারের পরিমান শতকরা যত কম থাকবে, সেটিকে তত বেশী sweet বলা হবে। এখানে, sweet দিয়ে শুধুমাত্র সালফারের পরিমান কত কম, সেটাই নির্দেশ করছে, মিষ্টিজাতীয় কিছু না। আরেকটি বিবেচ্য বিষয় হচ্ছে API Gravity, যেটা ওজন নির্দেশ করে। কোন তেলের API Gravity যত বেশী, সেটা ওজনে তত হালকা, একইভাবে API Gravity যত কম, ওজনে তত ভারী। যদি কোন তেলের API Gravity ১০ এর বেশী হয়, তাহলে সেটা পানিতে ডুবে যাবে, নাহলে পানির উপর ভেসে থাকবে। যেই তেলের API Gravity যত বেশী হবে, মানে যত হালকা হবে আর সালফারের শতকরা পরিমান যত কম হবে, মানে তেলটি যত sweet হবে, তার গুনগতমান তত বেশী হবে, বেশী পরিমানে উন্নতমানের গ্যাসোলিন উৎপন্ন করা যাবে। তাহলে, এবার দেখা যাক, ব্রেন্ট, WTI আর ওপেক বাস্কেট, কোনটার গুনগত মান সবচেয়ে ভালো। WTI বা West Texas Intermediate তিন ধরনের তেলের মধ্যে সবচেয়ে ভালো তেল হচ্ছে এবং খুবই উন্নতমানের তেল হচ্ছে WTI বা West Texas Intermediate. এতে সালফার আছে শতকরা মাত্র ০.২৪ ভাগ আর API Gravity হচ্ছে ৩৯.৬ ডিগ্রি। নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে যে, এটি যুক্তরাষ্ট্রে উৎপাদিত হয়। খুবই হালকা এবং সালফারের পরিমান খুব কম বলে, এটি গ্যাসোলিন উৎপাদনের জন্য সর্বোত্তম। WTI তেলের ব্যবহার সবচেয়ে বেশী হয় আমেরিকা বা যুক্তরাষ্ট্রে। Brent Crude Oil এর পরেই আসবে Brent Crude Oil. এতে সালফারের পরিমান শতকরা ০.৩৭ ভাগ আর API Gravity হচ্ছে ৩৮.৩ ডিগ্রি। WTI এর মত এত ভালো না হলেও, এই তেলও হালকা এবং এতে সালফারের পরিমান খুব বেশী না। মূলত ডিজেল, গ্যাসোলিন পরিশোধনের জন্যেই Brent Crude Oil বেশী ব্যবহৃত হয়। মূলত উত্তর সাগরের চারটি ভিন্ন ভিন্ন জায়গা থেকে এই তেল আহরন করা হয়। Brent তেলের ব্যবহার সবচেয়ে বেশী হয় ইউরোপে এবং আফ্রিকাতে। Opec Basket সবশেষে আসবে ওপেক বাস্কেট। ওপেক নাম শুনেই বুঝতে পারছেন যে এই তেল কোথা থেকে আহরন করা হয়। ঠিক, মূলত ওপেকভুক্ত দেশগুলো থেকে, যেমনঃ সৌদি আরব, আলজেরিয়া, ভেনিজুয়েলা ইত্যাদি। এগুলোতে সালফারের পরিমান খুবই বেশী, আবার তুলনামুলকভাবে ভারী। তাই, WTI বা ব্রেন্টের সাথে তুলনা করলে ওপেক বাস্কেট তেল বেশ নিম্নমানের। কিন্তু, সুবিধা হল ওপেক দেশগুলোতে প্রচুর তেল মজুদ আছে এবং তারা চাইলেই যেভাবে উৎপাদন বাড়াতে পারে, সেইভাবে অন্য তেলগুলোর উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব না। তাই, বিশ্ববাজারে ওপেক বাস্কেট এর গুরুতবপূর্ন ভুমিকা আছে। কোন তেলের দাম সবচেয়ে বেশী? আরেকটা ব্যাপার হচ্ছে দাম। ওপেক বাস্কেট তেলের দাম প্রধান তেলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সস্তা। Brent তেলের দাম সাধারনত ওপেক বাস্কেট থেকে ব্যারেলপ্রতি ৪ ডলার বেশী হয়। WTI এর দাম তো আরও বেশী। ওপেক বাস্কেট থেকে WTI ব্যারেলপ্রতি ৫-৭ ডলার বেশী দামে বিক্রি হয়, মানে Brent তেল থেকে WTI তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ১-৩ ডলার বেশী।
  33. 1 point
    আমি জিহান, বয়স ২৭, একটা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলে জব করছি। বিগত ২ বছর যাবত Instagram Marketing এ ফ্রিলেন্সিং করছি। কিন্তু এই সেক্টরে ভবিষ্যৎ kharap dekhe বিগত ৩/৪ মাস ধরে Instagram Marketing থেকে সরে আসতে হয়েছে। এর ই মাঝে YouTube, Babypips থেকে Forex বেসিক Ta জেনেছি। কিন্তু কিছু সমস্যার কারণে মাঠে নামতে ভয় পাচ্ছি। যেমনঃ ১। পরিবারের আর্থিক অসচ্ছলতা, পারবারিক দায়িত্ব er কারণে risk নিতে ভয় পাচ্ছি। ২। চাকরি এর পরাশুনা করছি। তাই forex স্টাডি মেটেরিয়ালে মনোযোগ কম দেয়া হচ্ছে । ট্রেডিং এর প্রতি অনেক আগ্রহ এবং আজীবন ট্রেডিং করে সফল ট্রেডার হতে চাই। তাই একজন মেন্টর/ ট্রেইনার er খোজ করছিলাম। যার কাছে শিখতে পারবো, গাইডেড হবো এবং আজীবন এক সাথে ট্রেডিং করে যাব। এর জন্য সম্মানী দিতে প্রস্তুত ami. আগেই বলে নেই. আমি একজন সৎ এবং বিশ্বাসী মানুষ এবং ভাল শ্রোতা।
  34. 1 point
    আমরা প্রত্যেকেই তো কোন না কোন ফরেক্স ব্রোকারের সাথে ট্রেড করি। এই ব্রোকারগুলোর আবার সম্পর্ক আছে বিভিন্ন ব্যাংকের সাথে। বিশ্বের বড় বড় সব ব্যাংকগুলো তাদের গ্রাহকদের সরাসরিই ফরেক্স মার্কেটে ট্রেড করার সুযোগ দেয়। তবে হ্যাঁ, চাইলেই আমি বা আপনি এই সুবিধা নিতে পারবো না। এর জন্য থাকতে হবে ডিপোজিট করার মত অনেক অনেক অর্থ। যেমন, আন্তর্জাতিক ব্যাংক Citi ব্যাংকের সাথে (বাংলাদেশের সিটি City Bank না) কারেন্সি ট্রেড করতে চাইলে, অ্যাকাউন্ট এ থাকতে হবে নুন্যতম দেড় লক্ষ পাউন্ড বা প্রায় ২ লক্ষ ডলার, যা বাংলাদেশি টাকায় দেড় কোটি টাকারও বেশি। মাথায় হাত দিলেন? অবাক হওয়ার কিছু নেই। ফরেক্স মার্কেট তো আগে শুধু এলিটদের জন্যেই ছিল, একথা ভুলে গেলে কি চলবে? আরও মজার তথ্য হচ্ছে, প্রধান দশটি ব্যাংকের মাধ্যমেই ফরেক্স মার্কেটের প্রায় ৭৫% কারেন্সি এক্সচেঞ্জ হয়। এ ব্যাংকগুলো নিজেরাও গ্রাহকদের পাশাপাশি কারেন্সি ট্রেড করে থাকে এবং কোন কারেন্সি কিনলে মাঝে মাঝে এত বিশাল পরিমানে কিনে যে ওই কারেন্সি নিজেই এর ফলে শক্তিশালী বা দুর্বল হয়ে যায়। আর একারনেই আন্তর্জাতিক ফরেক্স মিডিয়ায় প্রতি ২০ টা নিউজ পড়লে অন্তত একটি রিপোর্ট পাবেন কোন না কোন ব্যাংক নিয়ে। যেমন, কোন ব্যাংক কোন কারেন্সি বাই/সেল করল, কোন ব্যাংকের অ্যানালাইসিস কি ইত্যাদি। ব্যাংকের নাম শুনলেই আপনার জানা উচিত, কোন ব্যাংক কত বড় আর ওই ব্যাংকের মার্কেটে প্রভাবই বা কেমন। তাহলে, কথা না বাড়িয়ে চলুন দেখে নেওয়া যাক, ফরেক্স মার্কেটের শীর্ষ প্রভাবশালী ব্যাংক কোনগুলো। ইউরোমানি গত বছর যে ফরেক্স সার্ভে করেছে, সে অনুসারে ফরেক্স মার্কেটের শীর্ষ ১৫ টি ব্যাংক ও তাদের মার্কেট শেয়ার হলঃ HSBC আর Standard Chartered তো আমাদের আগে থেকেই পরিচিত, মতিঝিলে যে Citi ব্যাংকের একটা অফিস আছে, তা অনেকেরই অজানা। আমি নিজেও প্রথমে Citi Bank কে আমাদের দেশের City Bank ভেবে ভুল করেছিলাম। যাই হোক, চলুন এই ব্যাংকগুলো সম্পর্কে খুব অল্প করে কিন্তু প্রয়োজনীয় কিছু তথ্য জেনে নেইঃ ১। Citibank এই মুহূর্তে ফরেক্স মার্কেটে এই ব্যাংকের মার্কেট শেয়ারই সবচেয়ে বেশি, ১৬.১১%। নামে Citibank হলেও যুক্তরাষ্ট্রের এই ব্যাংকটিকে আদর করে Citi বলে ডাকা হয়। ব্যাংকটির স্লোগানও বেশ মজার, "Citi never sleeps". ২০৪ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত এবং বর্তমানে Citi Group এর মালিকানাধীন এই ব্যাংকটির হেড কোয়ার্টার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে। ২। Deutsche Bank AG জার্মানরা ইঞ্জিনিয়ারিং এ ভালো, দামী দামী গাড়ি, মেশিন ইত্যাদি বানায়। তার বাইরেও যে কত বিখ্যাত জার্মান কোম্পানি আছে, তা অনেকেই জানে না। যেমন, জানে না যে, ফরেক্স মার্কেটের দ্বিতীয় প্রধান ব্যাংকটিও জার্মানদের। জার্মানরা সবকিছুতেই জার্মান ভাষা ব্যবহার করতে ভালোবাসে। তাই, ব্যাংকের নামও রেখেছে জার্মানে। তা নাহলে, ইংলিশে যদি "German Bank" বলা হত, তাহলে কি আর কারও বুঝতে সমস্যা হত? যাইহোক, গত বছর ৩৩ বিলিয়ন ইউরো রেভিনিউ করা ব্যাংকটির সদরদপ্তর জার্মানিরই ফ্রাংকফুর্টে। ফরেক্স মার্কেটের ১৪.৫৪% শেয়ার নিয়ে Citi র ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছে ব্যাংকটি। ৩। Barclays Brexit এর ফলে ইউকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ায় অনেক ব্যাংকই লন্ডন থেকে অধিকাংশ কার্যক্রম কমিয়ে এনে জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে বা ফ্রান্সের প্যারিসে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করছে। কিন্তু, এরকম কিছু করার সুযোগ নেই Barclays এর। কারন, ব্যাংকটি স্বয়ং ইউকেরই আর এর সদরদপ্তর অবস্থিত লন্ডনে। ফরেক্স মার্কেটে শেয়ার ৮% হলেও নামের দিক দিয়ে ৩২৫ বছরের পুরনো এই ব্যাংকটি অনেক বিখ্যাত। ৪। JPMorgan আমেরিকান ব্যাংক, সদরদপ্তর নিউইয়র্কে। কুখ্যাত জে.পি.মরগ্যানকে নিয়ে বিডিপিপসে একদিন লেখার প্লান আছে। গত বছর ব্যাংকটির মোট সম্পদের পরিমান ছিল ২.৩৫ ট্রিলিয়ন আর আয় ছিল ২৪.৪৪ বিলিয়ন। ৫। UBS সুইস বৈশ্বিক আর্থিক সংস্থা, সদরদপ্তর যৌথভাবে সুইজারল্যান্ডের জুরিখ ও বাসেলে অবস্থিত। ফরেক্স মার্কেটে প্রতিস্থানটির শেয়ার ৭.৩০% ৬। Bank of America Merrill Lynch নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে এটি আমেরিকান ব্যাংক। কিন্তু, নামের শেষে Merrill Lynch কেন? আসলে Bank of America ২০০৯ সালে Merrill Lynch & Co কে কিনে নেয় আর ব্যাংকটির কর্পোরেট ও ইনভেস্টমেন্ট সেকশনের নামকরন করে "Bank of America Merrill Lynch". ফরেক্স মার্কেটে ব্যাংকটির শেয়ার বর্তমানে ৬.২২%, আর সদরদপ্তর নিউইয়র্কে। ৭। HSBC HSBC শব্দের অর্থ হচ্ছে The Hongkong and Shanghai Banking Corporation Limited। ১৮৬৫ সালে হংকং ও চীনের সাইহাইয়ে কে কেন্দ্র করে ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠিত হলেও এখন এর হেডকোয়ার্টার যুক্তরাজ্যের লন্ডনে। মাত্র ৫.৪০% মার্কেট শেয়ার নিয়ে ফরেক্স মার্কেটে সপ্তম অবস্থানে থাকলেও সম্পদের দিক দিয়ে এটি বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম ব্যাংক। ৮। BNP Paribas বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যাংকগুলোর একটি ফ্রেঞ্চ বহুজাতিক ব্যাংক BNP Paribas. ২০১২ সালে ফোর্বস ও ব্লুমবার্গের জরীপে মোট সম্পদের ভিত্তিতে এটি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম ব্যাংক। ৯। Goldman Sachs এটিও নিউইয়র্ক ভিত্তিক বহুজাতিক আমেরিকান ব্যাংক। ১৮৬৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এই ব্যাংকটির ২০১৫ সালে আয় ছিল ৩৯ বিলিয়ন ডলার। ২০১৪ সালে ব্যাংকটি বিশ্ববাজারে বাংলাদেশের বন্ড ছাড়ার দায়িত্ব নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে। এ নিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সাথে তার সম্মেলন কক্ষে গোল্ডম্যান স্যাকসের প্রতিনিধি দলের একটি মীটিংও অনুষ্ঠিত হয়। ১০। RBS The Royal Bank of Scotland কে সংক্ষেপে RBS ডাকা হয়। ফরেক্স মার্কেট শেয়ার মাত্র ৩.৩৮% হলেও ব্যাংকটি কিন্তু অনেক পুরনো। সেই ১৭২৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ব্যাংকটি। ব্যাংকটির কার্যক্রম মূলত যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডকে ঘিরে। ব্যাংকটির সদরদপ্তর অবস্থিত স্কটল্যান্ডের এডিনবার্গে। ১১। Société Générale ফ্রান্সের প্যারিসভিত্তিক ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯০৬ সালে। বিশ্বজুড়ে খুব বেশি পরিচিত না হলেও ফরেক্স মার্কেটে ব্যাংকটির ২.৪৩% মার্কেট শেয়ার রয়েছে। ১২। Standard Charterd এটি একটি ব্রিটিশ ব্যাংক, হেড কোয়ার্টারও লন্ডনে কিন্তু ব্রিটেনে কোন রিটেইল ব্যাংকিং সুবিধা প্রদান করে না। মজার ব্যাপার হলো ব্যাংকটি ব্যবসা করে মূলত এশিয়া, আফ্রিকা ও মিডল ইস্টে। একারনেই বাংলাদেশে এত পরিচিত ব্যাংকটি। ২০১৫ সালে ব্যাংকটির আয় ছিল ১৪.৬ বিলিয়ন ডলার। ১৩। Morgan Stanley আরেকটি নিউইয়র্কভিত্তিক আমেরিকান ব্যাংক। ফরেক্স মার্কেট শেয়ার Standard Charterd থেকে কম হলেও, ২০১৫ সালে ব্যাংকটির আয় ছিল ৩২.৪৯ বিলিয়ন যা SC থেকে দ্বিগুণেরও বেশি। ১৪। Credit Suisse ইউরোপে বেশ জনপ্রিয় ব্যাংকটি। এর সদরদপ্তর অবস্থিত সুইজারল্যান্ডের জুরিখে। Credit Suisse প্রায়শই বিভিন্ন কারেন্সির টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস প্রকাশ করে। ফরেক্স মার্কেটে ব্যাংকটির শেয়ার মাত্র ১.৬৬% ১৫। State Street আমেরিকার ম্যাসাচুসেটসে অবস্থিত এর সদরদপ্তর। এক সময়ে ব্যাংকিং সুবিধা প্রদান করলেও এটি এখন আর কোন ব্যাংক নয়, বরং বিনিয়োগসহ বিভিন্ন অর্থনৈতিক কার্যক্রমের সাথে যুক্ত। ১৭৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত State Street, যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাচীন ব্যাংক। ফরেক্স মার্কেটে বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির মার্কেট শেয়ার ১.৫৫%
  35. 1 point
    Dhaka te ki kono training centre ache jekhane Forex basic-to-advanced shekhano hoy? Ami akta offline course chachi jekhane Forex hate dhore shekhano hobe. Please help!
  36. 1 point
    আজকের সেশনে EUR/USD পেয়ারটি ওপেন হয়েছে১.১০৭০ প্রাইসে। পরবর্তীতে পেয়ারটির প্রাইস বেড়ে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১.১০৭৫ প্রাইসে উঠেছিল এবং সর্বনিন্ম ১.১০৩৬ প্রাইসে নেমেছিল। বর্তমানে পেয়ারটির ১.১০৫৯ প্রাইসে ট্রেড করছে।পেয়ারটি জন্য বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল নির্ধারণ করা হয়েছে ১.১০৭০ । পেয়ারটি ১.০৯৭০ প্রাইসকে অতিক্রম করলে পেয়ারটির পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে গত তিন সপ্তাহের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১১০০ এর কাছাকাছি। ৫৫ দিনের এসএমএ অনুযায়ী, পেয়ারটির পরবর্তী টার্গেট হতে পারে ১.১১২৯।পেয়ারটি ১.১১২৯ প্রাইসকে অতিক্রম করলে, পরবর্তী টার্গেট হতে পারে ১.১১৬৩। ইউরো/ডলারের আজকের চার্ট
  37. 1 point
    ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.১০৫০ প্রাইস থেকে কমতে শুরু করেছে এবং পেয়ারটি তার ডাউনটার্ম অব্যাহত রেখেছে । যার ফলে পেয়ারটির প্রাইস কমে ক্রমাগত ১.১০ প্রাইসের দিকে যাচ্ছে। ইসিবি ইভেন্টকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে পেয়ারটির প্রাইস কমতে শুরু করেছে। ১০০ দিনের এসএমএ অনুযায়ী, পেয়ারটি ১.১০২০ প্রাইসের দিকে যেতে পারে এবং পেয়ারটির পরবর্তী টার্গেট হবে ১.০৯২৫ প্রাইস। এমনকি ইসিবি ইভেন্টকে কেন্দ্র করে পেয়ারটি ২০১৭ সালের মে মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস ১.০৮৩৫-৩০ প্রাইসেও যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সুতরাং পেয়ারটি এখন সেলিং প্রেসারে রয়েছে এবং তাই সেল এন্ট্রি নেওয়া যেতে পারে।
  38. 1 point
    ইউরো/ডলার পেয়ারটি বর্তমানে শান্ত অবস্থানে রয়েছে। বর্তমানে বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় কারেন্সি পেয়ারটি জার্মান মুদ্রাস্ফীতি (Inflation) ডাটার অপেক্ষায় রয়েছে। ১ থেকে ১০ ঘন্টার এসএমএ, এক সপ্তাহের ফিকোনাসি ২৩.৬% ও টেকনিক্যাল কনফ্লিুয়েন্স ইনডিকেটর অনুযায়ী পেয়ারটি বর্তমানে ১.১০৮২ প্রাইসে ট্রেডিং করছে। এক সপ্তাহের ফিবোনাসি ৬১.৮% এবং ১ থেকে ২০০ ঘন্টার এসএমএ অনুযায়ী পেয়ারটি পরবর্তীতে ১.১০৯৫ প্রাইসির ট্রেডিং করতে পারে। ২৩.৬% ফিবোনাসি অনুযায়ী পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে শুরু করলে, পেয়ারটির পরবর্তী টার্গেট হতে পারে ১.১১৩৪ প্রাইস। পেয়ারটির প্রাইস কমতে শুরু করলে পেয়ারটির পরবর্তী টার্গেট হতে পারে ১.১০৬৫। তাহলে ১.১০৬৫ প্রাইস এ মাসের সর্বনিন্ম প্রাইস হবে। পেয়ারটি ১.১০৬৫ প্রাইসকে অতিক্রম করলে,পেয়ারটির পরবর্তী টার্গেট হতে পারে ১.০৯৭৩।
  39. 1 point
    গত পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে গত সপ্তাহে GBP/USD পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা বেড়েছিল। এ সপ্তাহে পেয়ারটির ভোলাটিলিটি কম দেখা যেতে পারে। পেয়ারটির জন্য এ সপ্তাহে মাত্র তিনটি ইভেন্ট রয়েছে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং GBP/USD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। যুক্তরাজ্যে চাকরি (employment ) ডাটা মিশ্র অবস্থানে রয়েছে। বেতন (Wage) শতকরা ৩.৭% বেড়েছে। এটা গত ৯ বছরের তুলনায় বেশ ভাল রিপোর্ট। যুক্তরাজ্যে ২৮.০ হাজার বেকার রয়েছে। এটা প্রত্যাশিত লেভেল ৪২.০ হাজারের তুলনায় কম রয়েছে। যুক্তরাজ্যে CPI শতকরা ২.১% বৃদ্ধি পেয়েছে এবং Core CPI ১.৯% বৃদ্ধি পেয়েছে।Retail sales ০.২% কমেছে। জুলাই মাসে যুক্তরাষ্ট্রের কনজিউমার মুদ্রাস্ফীতি এবং কনজিউমার ব্যয় প্রত্যাশিত লেভেল ০.৩% এসেছে। Core CPI যদিও ধীরগতিতে চলছিল,তারপরও প্রত্যাশিত লেভেল ০.২% এসেছে। Retail Sales শতকরা ০.৭% বেড়েছিল,এটা খুব সহজেই প্রত্যাশিত লেভেল ০.৪% অতিক্রম করেছিল। Core retail sales শতকরা ১.০% বেড়েছিল। এটা মার্চ মাসের প্রত্যাশিত লেভেল অনুযায়ী এসেছে। মেনুফেকচারিং সেক্টরের দিকে তাকালে দেখা যাচ্ছে, Philly Fed Manufacturing Index ১৬.৮ দেখানো হয়েছিল, এটা প্রত্যাশিত লেভেল ১০.১ খুব সহজেই অতিক্রম করেছিল। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প চীনা পণ্যের উপর নতুন করে শুল্ক আরোপের ঘোষণা দিয়েছিল, এটা ১ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে। যদিও দুই দেশের মধ্যে বানিজ্য উত্তেজনা লাঘব হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়ে ছিল। কিন্তু পুনরায় এটার সূত্রপাত শুরু হয়েছে। GBP/USD প্রতিদিনের রেজিস্ট্যান্স এবং সাপোর্ট লাইনগুলো দেওয়া হলো: ১.CBI Industrial Order Expectations মঙ্গলবার, বিকাল ০৪:০০। The Confederation of British Industry এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, জুলাই মাসে মেনুফেকচারিং অর্ডার কমে -৩৪ এসেছে। প্রত্যাশিত পয়েন্ট -১৫ এর থেকে খারাপ এসেছে। আগস্ট মাসেও এ ধরণের ফলাফলের প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এটা -২৫ এর কাছাকাছি আসতে পারে। ২.Public Sestor Met Borrowing বুধবার,দুপুর ০২:৩০। এ সেক্টরে ঘাটতি ৪.৫ বিলিয়ন থেকে ৬.৫ বিলিয়ন বেড়েছে। আশা করা হচ্ছে, জুলাই মাসে -৩.৭ বিলিয়ন আসবে। ৩.CBI Realized Sales বৃহস্পতিবার,বিকাল ০৪:০০। জুন মাসে সেলস ভলিউম নিন্মগামী অবস্থানে রয়েছে। তবে এটা গতবারের -৪২ এর তুলানায় কিছুটা ভাল এসেছে, এবার -১৬ এসেছে। আশা করা হচ্ছে, জুলাই মাসে -১৩ আসতে পারে। GBP/USD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো আমরা ১.২৫৩৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেল থেকে শুরু করছি। জুলাইয়ের মাঝামাঝি পর্যন্ত এটা সর্বোচ্চ লেভেল ছিল। পরবর্তীতে ১.১৪২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলকে অনুসরণ করা হয়েছিল। বছরের প্রথমার্ধে ১.২৩৩০ একটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ছিল। তবে জুলাই মাসে এ সাপোর্ট লেভেলকে অতিক্রম করেছিল। পরবর্তীতে ১.২২ একটি রাউন্ড নাম্বার ছিল। ২০১৬ সালের অক্টোবরে ১.১৯০৪ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। বর্তমান এবং সর্বশেষ রাউন্ড নাম্বার ১.১৮। শেষ কথা ফরেক্স বিশেষজ্ঞরা ধারণা করেছেন, GBP/USD পেয়ারটির প্রাইস এ সপ্তাহে কমতে পারে। গত সপ্তাহে পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা বেড়েছিল। তারপরও পেয়ারটি এখনও বেশ দুর্বল অবস্থানে রয়েছে। এছাড়াও বেক্সিট প্রভাব থেকে পাউন্ড এখনও মুক্ত নয়। যার ফলে পাউন্ডের প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে।
  40. 1 point
    Xm is one of the best broker
  41. 1 point
    All idiot gambler who try to profit 100% per month. Of course you will burn your account every time.
  42. 1 point
    Only beginner could dream to 100% profit per month. When I was beginner I dream to do that. Now I have eight years plus experience and happy to profit 30-40% per year.
  43. 1 point
    গ্রামের একটা প্রবাদ আছে, যে ...... আকাইম্মা নাপিতের ধামা ভরা *খুড় -কাঁচি* থাকে ......। পিপ্সের হিসাবে ট্রেড করলে ততধিক পেয়ার ঠিক আছে কিন্তু পারসেন্টের হিসাবে ট্রেড করলে আমার মতে একটা বা দুইটা পেয়ারই যথেষ্ট ...... কারণ কারেন্সি পেয়ার গুলোর ধর্ম বেড় করা অনেক প্যারার কাজ এবং সময় সাপেক্ষও । সব চাইতে বড় কথা সেম স্ট্রেটেজি সব / একাধিক পেয়ারে কাজ করে না বা নাও করতে পারে ------- ফলাফল মাস শেষে লব ড ংগা। যাই হোক নতুন হিসাবে অনেক কথা লিখে ফেললাম , এর জন্য *সরি * ...... ধন্যবাদ
  44. 1 point
    ধরুন, আপনি একটি ট্রেডে লাভ করা জন্য একদম প্ল্যান মাফিক সবকিছু করলেন এবং ট্রেডটিতে ইতিমধ্যে অনেক প্রফিটও হয়েছে, কিন্তু আপনার কাঙ্খিত টেক প্রফিট পয়েন্টে ট্রেডটি যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে আপনি কী করবেন? ট্রেডটি চালাতে থাকবেন এবং অপেক্ষা করবেন আপনার টেক প্রফিট পয়েন্ট হিট করার জন্য? নাকি যা লাভ হয়েছে তা নিয়েই বন্ধ করে দিবেন? ট্রেড করতে গিয়ে এরকম দোটানায় পরেননি এমন ট্রেডার বোধহয় খুঁজে পাওয়া যাবে না। ট্রেডিং স্ট্রাটেজি সঠিকভাবে মেনে চলতে হলে ট্রেডিংয়ের সময় কোন আলাদা পরিবর্তন আনা উচিত নয়। ব্যক্তিগতভাবে আমি ট্রেডিং স্ট্রাটেজি নির্ধারণ করে প্রতিনিয়ত তা পরিবর্তন করা সমর্থন করি না। তবে কিছু কিছু বিশেষ অবস্থায় আপনি পরিবর্তন আনতে পারেন এবং দরকার মনে হলে ট্রেডে আংশিক প্রফিট নিয়ে ট্রেডটি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেন। প্রফিট নিশ্চিত করাঃ আংশিক প্রফিট নেয়ার পেছনে যে কারণটি সবচেয়ে বেশি কাজ করে তা হল এটা নিশ্চিত করা যে আপনি যে ট্রেডটি করছেন, তা যেন লাভজনক ট্রেড হয়, অর্থাৎ ট্রেডটিতে কোন লস না হয়ে যেন নূন্যতম হলেও লাভ আসে। যদি আপনি বুঝতে পারেন ট্রেডটি লসের দিকে চলে যাচ্ছে, এবং মার্কেট দেখে মনে হয় ট্রেডটি আর লাভে নাও আসতে পারে, সে ক্ষেত্রে ট্রেডটিতে আংশিক লাভ নিয়ে বন্ধ করে দেয়া যেতে পারে। যখন কারেন্সি পেয়ারটি এক যায়গায় আটকে আছেঃ হয়তো একটি ট্রেড আপনার অ্যানালাইসিস এবং ধারনা মোতাবেকই চলছে। আপনি ভালোই লাভে আছেন। কিন্তু এক পর্যায়ে এসে মার্কেট থমকে গেছে, খুব বেশি প্রাইস মুভমেন্ট হচ্ছে না। এরকম অবস্থায় বেশিরভাগ ট্রেডারই বিভ্রান্ত হন। মার্কেট কি আরও সামনে যাবে আপনার ধারনা মত? নাকি ট্রেন্ড পরিবর্তন হবে? কারেন্সি পেয়ারটি কি ওভারবট বা ওভারসোল্ড অবস্থায় চলে গেছে? ট্রেডটি কি বন্ধ করে দেয়া উচিত? ট্রেড করতে গেলে আমরা কোন কোন সময় এ ধরনের অবস্থার সম্মুখীন হই। এমন সব ক্ষেত্রে আংশিক প্রফিট নিয়ে ট্রেডটি বন্ধ করে দিলেই আপনি এরকম দ্বিধা থেকে মুক্ত হতে পারবেন। অন্য নতুন ট্রেডে আরও ভালো সুযোগ রয়েছেঃ ধরুন একটি ট্রেডে আপনি লাভের জন্য বসে আছেন, কিছুটা লাভও হয়েছে। কিন্তু মার্কেটের গতি ধীর। কিন্তু পাশাপাশি অন্য ট্রেডে আপনি ভালো সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছেন লাভ করার। আপনার মানি ম্যানেজমেন্ট বলছে একসাথে একাধিক বা বেশি লটের ট্রেড করলে তা আপনার অ্যাকাউন্টের জন্য ঝুঁকির কারণ হবে। তাই বর্তমান ট্রেডটি বন্ধ না করলে আপনি ঐ ট্রেডটি করার সুযোগ নিতে পারছেন না। এরকম ক্ষেত্রে অনেকেই উত্তেজিত হয়ে নতুন ট্রেড একই সাথে নিয়ে ফেলে। কিন্তু মানি ম্যানেজমেন্ট আপনার অ্যাকাউন্টের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। মার্কেটে টিকে থাকতে হলে আপনাকে হিসাব করে ট্রেড করতেই হবে। তাই এরকম অবস্থার সম্মুখীন হলে আপনাকে ভালভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আপনি কি বর্তমান ট্রেডটি আংশিক লাভ নিয়ে বন্ধ করে নতুন ট্রেডটি নিবেন কিনা। গুরুত্বপূর্ণ কোন নিউজ রিপোর্টের কারণেঃ গুরুত্বপূর্ণ নিউজ বা রিপোর্টগুলো মার্কেটকে সবসময় প্রভাবিত করে। এরকম গুরুত্বপূর্ণ নিউজ রিপোর্ট থাকলে সতর্কভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কিছু নিউজ ট্রেড করে ভালো লাভ করা সম্ভব, তবে নিউজ বুঝতে না পারলে বা নিউজের বিপরীত প্রভাব হলে অনেক লসের সম্ভাবনা আছে। যেমন ব্রেক্সিটের সময় অনেক ট্রেডাররা পাউন্ডের পেয়ার ট্রেড করে অনেক লাভবান হয়েছেন। কিন্তু একই সাথে বেশিরভাগ পাউন্ড ট্রেডারই তখন প্রচুর পরিমাণ লস করেছেন এবং অ্যাকাউন্ট জিরো করেছেন। এরকম নিউজ রিপোর্ট সামনে থাকলে আপনাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আংশিক লাভ নিয়েই ট্রেডটি বন্ধ করে দেয়া শ্রেয় হবে কিনা। ব্যক্তিগত কাজের কারণেঃ ট্রেডের সময় সারাক্ষণ কম্পিউটার মনিটরের সামনেই বসে থাকেন? অনেকেই আছেন সারাক্ষণ ট্রেড পর্যবেক্ষণ না করলে শান্তিতে থাকতে পারেন না। আবার গুরুত্বপূর্ণ কাজেও যেতে পারেন না। আবার ট্রেড মনিটরিং না করার কারণে অনেক সময় ট্রেডে অপ্রত্যাশিত লস হয়ে যা, যা কিনা আপনি পর্যবেক্ষণ করতে পারলে সময়োনুযায়ী সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন। এমতাবস্থায় কোন চলতি ট্রেড যদি আপনার জীবনকে প্রভাবিত করে, ভালো হবে যদি আপনি আংশিক লাভ নিয়ে ট্রেডটি সে অবস্থায় বন্ধ করে দেন। নিজের মত সময় কাটান এবং রিল্যাক্স হয়ে পরবর্তী অন্য সময় সুযোগ বুঝে ভালো ট্রেড নিন। তাহলে আপনি কি মনে করেন? ট্রেডিং স্ট্রাটেজি থেকে বেড়িয়ে কি আংশিক প্রফিট নেয়া উচিত? ব্যক্তিগতভাবে আমিও ট্রেডিং স্ট্রাটেজিতে হস্তক্ষেপ পছন্দ করি না। কারণ একটি ট্রেডিং স্ট্রাটেজির সঠিক ফলাফল পেতে হলে সেটিকে পরিবর্তন না করেই চালিয়ে যেতে হবে। তাই ট্রেডে আংশিক প্রফিট নেয়া যেন আপনার অভ্যাসে পরিনত না হয়ে যায়। শুধুমাত্র ওপরে উল্লেখিত বিশেষ ক্ষেত্রেই ট্রেডে আংশিক প্রফিট নেয়া যেতে পারে।
  45. 1 point
    সেই সব কারেন্সি পেয়ারগুলোর কথা বলছি, যেগুলো প্রত্যাশার সাথে অনেকটা মিল রেখেই মুভ করে। অর্থাৎ, শক্তিশালী কোন রেজিস্ট্যান্স ভাঙ্গলে প্রত্যাশা অনুযায়ী বাড়তে থাকে, নিউজগুলোর ইমপ্যাক্ট প্রত্যাশা অনুযায়ীই হয়ে যাকে, আর কোন কারন ছাড়াই হটাত হটাত বড় ধরনের রিট্রেসমেন্ট করে না। যারা টেকনিক্যাল এনালাইসিস ফলো করেন, তাদের এই পেয়ারগুলোর দিকে বিশেষ লক্ষ্য রাখা উচিত, কারন এই পেয়ারগুলোর টেকনিক্যাল এনালাইসিস বেশ ভালো মেনে চলার রেকর্ড আছে, তাই অনুমান করা অপেক্ষাকৃত সহজ, কি হচ্ছে সামনের দিনগুলোতে। তো, চলুন এক নজরে দেখি নেই, ফরেক্সক্রাঞ্চের বিশেষজ্ঞদের মতে এরকম ৫ টি মোস্ট প্রেডিক্টেবল কারেন্সি পেয়ার, যেগুলোর মার্কেট মুভমেন্ট প্রায়শই প্রত্যাশা অনুযায়ীই হয়। 1. NZD/USD ট্রেড করার জন্য চমৎকার একটি পেয়ার এই মুহূর্তে। একবার একটি রেঞ্জ তৈরি হলে, সেই রেঞ্জের মধ্যে প্রাইস ঘোরাফেরা করে। আর রেঞ্জ ব্রেক হলে, যদি resistance ব্রেক করে আরো বাড়তে থাকে, তাহলে অপেক্ষা করুন, কখন বাড়তে বাড়তে এক সময় কমা শুরু করে, তাহলেই পেয়ে গেলেন নতুন reisitance. আর আগের resistance ই এখন support হিসেবে কাজ করবে ও পেয়ারটি সুন্দরমত নতুন রেঞ্জে মুভ করবে। আর সাপোর্ট ব্রেক করলে? ঠিক তার উল্টো হবে। 2. AUD/USD বেশি কথা বলার দরকার নেই। একবার বাড়তে শুরু করলে AUD/USD বাড়তেই থাকে আর কমতে শুরু করলে কমতেই থাকে। ট্রেন্ড ফলোইয়িং কারেন্সি পেয়ার হিসেবে খুবই জনপ্রিয় এই কারেন্সি পেয়ারটি। 3. EUR/GBP এই পেয়ারটিতে মুভমেন্ট হয়ত খুব বেশি না, কিন্তু বেশ ভালোই অনুমান করা যায়। রেঞ্জ ট্রেডিং এর জন্য বেশ আদর্শ একটি পেয়ার এই মুহূর্তে, একবার একটি রেঞ্জ তৈরি হলে, বেশ ভালো সময় ধরেই মার্কেট মুভমেন্ট সেই রেঞ্জের মধ্যে ঘোরাফেরা করে, তবে মুভমেন্ট কিছুটা কম বলে অনেকে পছন্দ নাও করতে পারেন। 4. GBP/JPY এই পেয়ারটির স্প্রেড অনেক বেশি, ৫-৭ পিপস। কিন্তু, যাদের প্রচুর মার্কেট মুভমেন্ট দরকার, চোখ বন্ধ করে এই পেয়ারটি বেছে নিতে পারেন, মার্কেটে ভোলাটিলিটি ভালো থাকলে, এক দিনে ৩০০-৪০০ পিপস মুভমেন্ট GBP/JPY এর জন্য কোন ব্যাপারই না। কিন্তু, এই পেয়ারটিও একটি রেঞ্জের মধ্যে থাকে প্রায়ই, সুতরাং ট্রেড করা সহজ, আর রেঞ্জ ব্রেক হলে, কোন দিকে যাবে, সেটা বোঝাও সহজ। 5. EUR/USD এক সময় এই কারেন্সি পেয়ারটিই সবচেয়ে প্রেডিক্টেবল কারেন্সি পেয়ার ছিল। কিন্তু, সাম্প্রতিক সময়ে অনেক কিছুর উপর নির্ভর করছে EUR/USD এর মুভমেন্ট, কখনো গ্রীস ইস্যুর উপর, কখনো ইসিবির উপর। সামনের তিন মাসে, ইসিবি ও ফেডের নীতিনির্ধারণী ব্যাপারগুলোতে আরো পরিবর্তন আসবে বিধায়, EUR/USD এর মুভমেন্ট অনুমান করা আরো কঠিন হয়ে যাবে। তবুও এই পেয়ারটি টপ ৫ লিস্টে সুযোগ পেয়েছে, কেননা ফেড ইন্টারেস্ট রেট বাড়ানোর পরে ও গ্রীস ইস্যু কিছুটা স্থিতিশীল হল, EUR/USD এর মুভমেন্ট অনুমান করা অনেক সহজ হয়ে দাঁড়াবে।
  46. 1 point
    @kizir007: হে হে, আপনার এক্টিভিটি দেখে আমার কেন যেন মনে হচ্ছে আপনি বেকায়দায় পড়তে পারলেই খুশি হন। আর আপনাকে বেকায়দায় ফেলতে পেরে আমিও আনন্দিত। আশা করি কিছু শিখতে পারব।
  47. 1 point
    জিগজাগ ইন্ডিকেটরের বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। কিন্তু কেউ যদি শুধু জিগজাগ ইন্ডিকেটরের হাই-লো অনুসরণ করে ট্রেড করতে যায়, সে অচিরেই আবিস্কার করবে যে, জিগজাগ একটি প্রতারক ইন্ডিকেটর। জিগজাগ তার অতীতের ভুলগুলো শুধরে চার্টকে একদম চরম দর্শনীয় করে রাখে। দেখলেই মনে হয়, আরে আমি যে হলি গ্রেইল পেয়ে গেছি! জিগজাগের হাইয়ে সেল করব আর লোয়ে বাই করব। কিন্তু একজন নতুন ট্রেডার যখন জিগজাগ দেখে বাই আর সেল করতে যাবে, সে লাইভ মার্কেট অবজার্ভ করতে গেলে তার চক্ষুচড়ক গাছ হয়ে যাবে। দেখবে যে জিগজাগ তার সদ্য আকড়ে ধরা হাই-বা লোকে লাথি দিয়ে ফেলে দিয়ে মার্কেটের অনুসরণ করে অর্থাৎ ভুল শুধরে নতুন হাই-বা লোকে আলিঙ্গন করছে। অর্থাৎ এটি একটি চরম রিপেইন্টিং ইন্ডিকেটর। জিগজাগ একজন নতুন ট্রেডারকে তালগাছ থেকে শুরু করে ছাতরা পাতার গাছ পর্যন্ত দেখিয়ে ছাড়বে। মনের দুঃখে কথাগুলো বললাম। আমার প্রথম দিকের ট্রেডের সময়গুলোতে জিগজাগ আমাকে চরম দুঃখ দিয়েছে বলেই ...
  48. 1 point
    ঠিক আছে ততটুকুই PDF করে Upload করে দেন Please
  49. 1 point
  50. 1 point
    আপনি যে ফরেক্স ব্রোকারে ট্রেড করেন সেই ব্রোকারের নামে ভোট দিন। যদি ব্রোকারটি লিস্টে না থাকে, তাহলে অন্যান্য নির্বাচন করুন।
×
×
  • Create New...