Jump to content

Leaderboard


Popular Content

Showing most liked content since বৃহস্পতিবার 19 জুল 2018 in all areas

  1. 2 points
    How to Earn from Forex Market- একটু মনোযোগ সহকারে এই আর্টিকেলটি পড়ুন। কারন এটা যদি আপনি বুঝতে পারেন তাহলে ফরেক্স ট্রেড কিভাবে কাজ করে এটা আপনি বুঝতে পারবেন। এক কথায় আমরা বলতে পারি আপনি প্রায় ৮০% ফরেক্স ট্রেড বুঝে যাবেন। ফরেক্স মার্কেটে প্রায় সবকিছুই ট্রেড করা হয়ে থাকে কিন্তু তার মধ্যে সবচেয়ে বেশী পরিমাণ হচ্ছে কারেন্সি পেয়ারে ট্রেড। একটি মুদ্রার বিপরীতে অন্য একটি মুদ্রার কেনাবেচা করে প্রফিট করা যায়। মুদ্রা সর্বদায় পরিবর্তনশীল। কখনও কোনও একটি নির্দিষ্ট মুদ্রা অন্যান্য মুদ্রার বিপরীতে শক্তিশালী হয় এবং কখনও এটি দুর্বল হয়ে পরে। আপনি পত্রিকায় দেখে থাকবেন যে, কখনও কখনও ডলার টাকার বিপরীতে শক্তিশালী হচ্ছে, আবার কখনও টাকা ডলার এর বিপরীতে শক্তিশালী হচ্ছে। এরকম পৃথিবীর অধিকাংশ মুদ্রার বিপরিতেই হয়। এখন ধরুন আপনার কাছে ১০০ ডলার আছে। আপনি সেটাকে এক্সচেঞ্জ করে জাপানিজ ইয়েন করবেন। যদি ডলার শক্তিশালী হয়ে থাকে তাহলে USD/JPY এর এক্সচেঞ্জ রেট আপনি অনেক বেশী পাবেন। ধরুন, আপনি $100 er বিপরীতে 1000 Yen পেলেন। এখন আপনার কাছে 1000 Yen আছে। যখন Yen শক্তিশালী হতে থাকবে তখন আপনি সেটাকে ডলার এর বিপরীতে এক্সচেঞ্জ করলে বেশী পরিমাণ অর্থ পেতে পারেন। এটাই হচ্ছে ফরেক্স ট্রেড এর মূল সুত্র। আবার ধরুন, আপনার যদি ডলার কেনা থাকে, ডলারের বিপরীতে পাউন্ড এর দাম পরে গেলে আপনি ডলার বিক্রয় করে পাউন্ড কিনে রাখতে পারেন। আবার, পাউন্ড-ডলার এর বিপরীতে শক্তিশালী হলে, পাউন্ড বিক্রয় করে অধিক ডলার পেতে পারেন। হয়ত আপনার কাছে ১০০ ডলার ছিলো যা বিক্রয় করে আপনি ৮০ পাউন্ড ক্রয় করেছিলেন। পরবর্তীতে পাউন্ডের দাম বাড়ার পর তা বিক্রয় করে ১২০ ডলার পেলেন। এভাবে আপনি আয় করতে পারেন। শেয়ার মার্কেট এ শুধু শেয়ার এর দাম বাড়লেই (buy) আমরা প্রফিট করতে পারি। যেমন, আপনি যদি DSE তে ট্রেড করে থাকেন এবং সেখানে যদি BRAC Bank এর শেয়ার ৳১০০ করে কেনা থাকে তাহলে আপনি প্রফিট করতে পারবেন তখনি যখন BRAC Bank এর শেয়ার ৳১০০ এর উপরে পৌঁছে যাবে। অর্থাৎ আপনি শুদুমাত্র বাই (Buy) এ প্রফিট করতে পারবেন। কিন্তু ফরেক্স মার্কেটে আপনি দুই দিকেই ট্রেড করতে পারবেন। যেমন, ফরেক্স মার্কেটে আপনি Google এর শেয়ার চাইলে সেল (Sell) করেও প্রফিট করতে পারবেন। ধরুন আপনি $800 করে আপনি Google এর শেয়ারে সেল (Sell) কোট করলেন। এখন Google এর শেয়ার প্রাইস যদি $800 এর নিচে চলে আসে তাহলেই আপনার প্রফিট। অন্যদিকে, আপনি যদি Google এর শেয়ার $800 তে বাই (Buy) করেন এবং মার্কেট প্রাইস যদি $800 এর উপরে যায় তাহলেও আপনার প্রফিট। তার মানে বুঝতেই পারছেন, ফরেক্স মার্কেটে আপনার Two Way তে ট্রেড করতে পারবেন এবং এটাই হচ্ছে ফরেক্স মার্কেটের সবচেয়ে বেশী সুবিধা। আপনি কোনও কারেন্সি বাই করেও প্রফিট করতে পারবেন এবং সেল এ ও প্রফিট করতে পারেন। সুতরাং, ফরেক্স মার্কেট এ, কোন কারেন্সি শক্তিশালী অথবা দুর্বল হক, দুই ক্ষেত্রেই আমাদের প্রফিট করার সুযোগ আছে যেটা ফরেক্স মার্কেটের সবচেয়ে বড় সুবিধা।
  2. 1 point
    গত কয়েক বছর যাবত মোবাইল ফোন দিয়ে ফরেক্স ট্রেডিং বাংলাদেশ সহ বিশ্বে সব জায়গায় জনপ্রিয়তা পাচ্ছে, এর অন্যতম কারন মানুষের ব্যস্ততা এবং মোবাইলে সহজে ট্রেডিং সুবিধা, আর এখন তো অনেক চার্টিং প্রোভাইডাররা মোবাইলের জন্য তাদের সফটওয়্যার রিলিজ করছে। সুতরাং বুজতেই পারছেন মোবাইল ফোন ট্রেডিং কে কতটা গুরত্তের সাথে দেখা হচ্ছে । অনেকেই মোবাইল ফোন মোবাইল ফোন দিয়ে ট্রেড করা কি ভাল না খারাপ, কতটকু নিরাপদ এইগুলি চিন্তা করে থাকে তো মোবাইল ফোনে ট্রেডিং ভাল না খারাপ সে তর্কে না গিয়ে চলুন মোবাইল ফোন ট্রেডিং সম্পর্কে আলোচনা করা যাক। একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে গত কয়েক বছর যাবত মোবাইল ফোন ট্রেডিং এর পরিমান দিন দিন বাড়ছে, এবং মানুষ এটি নিরাপদ-বাস্তবসম্মত এবং কার্যকর মনে করছে যার কারনে এর গ্রহনযোগ্যতা ও বাড়ছে। তো কেমন মানের মোবাইল (স্মার্টফোন) ট্রেডিং এর জন্য আদর্শ ? আমরা প্রথমেই দেখতে হবে আমরা যে মোবাইল দিয়ে ট্রেডিং করতে চাই তার স্ক্রিন সাইজ, ব্যটারী লাইফ, অপারেটিং সিস্টেম কেমন, আপনি যদি ছোট স্ক্রিন সাইজের মোবাইলে ট্রেড করতে চান তাহলে চার্ট এর সাইজ স্বাভাবিক ভাবেই ছোট হবে, এতে করে আপনার চার্ট এনালাইসিস করতে একটু সমস্যা হতে পারে, তাই ৫ থেকে ৬.৫” ইঞ্চি স্ক্রিন সাইজের যেকোন মোবাইল ই ট্রেডিং এর জন্য ভাল বলা যায়, আবার দেখা গেল আপনার মোবাইলে ব্যটারী ভাল ব্যাকআপ দিতে না পারলে জরুরী মুহুর্তে আপনি ট্রেড অপারেট করতে সমস্যার স্মমুখিন হতে পারেন, আরেকটি ব্যপার হল অপারেটিং সিস্টেম , এখনকার সময়ে বাজারে প্রচলিত দুটি আপারেটিং সিস্টেম এন্ডয়েড – আই ও এস এ নির্বিগ্নে ট্রেডিং করা যায়। সুতরা বলা যায় এখনকার সময়ে বাজারে প্রচলিত যেকোন স্মার্টফোন দিয়েই আপনি ট্রেডিং করতে পারবেন, তবে এইগুলি ছাড়া ও আপনার মোবাইলে সর্বক্ষন ইন্টারনেট কানেকশান থাকা আবশ্যক । তো চলেন দেখে নেওয়া যাক বর্তমানে জনপ্রিয় কোন স্মার্টফোন এর স্ক্রিন সাইজ ও ব্যটারী লাইফ কেমন । Smartphone Screen Size Battery Life iPhone 8 4.7″ 09h 54m Google Pixel 5.0″ 08h 16m Google Pixel XL 5.5″ 10h 34m Asus ZenFone 3 Zoom 5.5″ 16h 49m iPhone 8 plus 5.5″ 11h 16m OnePlus 5 5.5″ 13h 06m LG G6 5.7″ 08h 39m iPhone X 5.8″ Unknown Galaxy s8 5.8″ 10h 39m Huawei Mate 9 5.9″ 12h 06m Galaxy s8 plus 6.2″ 11h 04m Galaxy Note 8 6.3″ 11h 11m তবে আরেকটি ব্যপার হল আপনি ইচ্ছা কররে ট্যব দিয়ে ও নির্বগ্নে আপনার ট্রেডিং পরিচালনা করতে পারবেন।
  3. 1 point
    Technical analysis on all major pairs | 13th August 2018 Technical parameters | (13th – 17th) August 2018 Possible entry point with critical support and resistance level. But when you trade at this level make sure that you are using price action confirmation signal. We have prepared these key support and resistance level based on the Fibonacci retracement levels, 100&200 SMA, key swings point and chart patterns formed in the higher time frame. Focus on AUDUSD technical analysis EURUSD Look for buying opportunity near the critical support First critical Resistance: Click here Second critical Resistance: 1.22490 First critical Support: Click here Second Critical Support: 1.14620 Overall Sentiment: Slightly bullish For GBPUSD, AUDUSD, USDCAD and GBPJPY analysis visit www.forextradingforyou.com All the technical parameters are applicable from 13th August to 17th August 2018. The overall sentiment indicates the prevailing trend of the market. We highly recommend you to trade in favor of the market sentiment (overall sentiment) to reduce the risk of exposure in trading. Trade the critical support and resistance level with price action confirmation signal. If you want to get the technical chart analysis along with logical explanations, feel free to contact us. We provide high-quality Forex trading signals, trading consultancy, and price action trading course. Please feel free to contact us for any query. A simple 5-minute conversation with our expert will change your trading career. We publish regular technical analysis on all the major pairs in every Monday. Please visit our site www.forextradingforyou.com to get details about our technical analysis. To get details about our video technical analysis along with live trade setup to visit YouTube Channel. Please subscribe our channel to stay updated with every single technical analysis. Source: www.forextradingforyou.com
  4. 1 point
    Technical parameters | (13th – 17th) August 2018 Possible entry point with critical support and resistance level. But when you trade at this level make sure that you are using price action confirmation signal. We have prepared these key support and resistance level based on the Fibonacci retracement levels, 100&200 SMA, key swings point and chart patterns formed in the higher time frame. Focus on AUDUSD technical analysis EURUSD Look for buying opportunity near the critical support First critical Resistance: Click here Second critical Resistance: 1.22490 First critical Support: Click here Second Critical Support: 1.14620 Overall Sentiment: Slightly bullish For GBPUSD, AUDUSD, USDCAD and GBPJPY analysis visit www.forextradingforyou.com All the technical parameters are applicable from 13th August to 17th August 2018. The overall sentiment indicates the prevailing trend of the market. We highly recommend you to trade in favor of the market sentiment (overall sentiment) to reduce the risk of exposure in trading. Trade the critical support and resistance level with price action confirmation signal. If you want to get the technical chart analysis along with logical explanations, feel free to contact us. We provide high-quality Forex trading signals, trading consultancy, and price action trading course. Please feel free to contact us for any query. A simple 5-minute conversation with our expert will change your trading career. We publish regular technical analysis on all the major pairs in every Monday. Please visit our site www.forextradingforyou.com to get details about our technical analysis. To get details about our video technical analysis along with live trade setup to visit YouTube Channel. Please subscribe our channel to stay updated with every single technical analysis. Source: www.forextradingforyou.com
  5. 1 point
    আপনার লিখাটা পড়ে খুবই ভাল লাগল ... ধন্যবাদ আপনাকে ...
  6. 1 point
    নাসিম ভাই, অনেকদিন পর আপনাকে বিডিপিপসে দেখলাম। ভাল লাগলো। ১. ভিপিএনের সুবিধা হল আপনার তথ্যগুলো ভিপিএন সার্ভারের মধ্যে দিয়ে যাবে, তাই আপনাকে কেউ ট্র্যাক করতে পারবে না। এবং ঐ ওয়েবসাইট আপনার আইএসপিতে ব্লক থাকলেও ভিপিএনের মাধ্যমে তা অ্যাক্সেস করতে পারবেন। কিন্তু কিছু কমদামী বা ফ্রি ভিপিএন অনেকসময় ধীরগতির হয়, তাই আপনি আপনার ইন্টারনেট কানেকশনের সর্বোচ্চ স্পিড নাও পেতে পারেন। এছাড়া অনেক ওয়েবসাইট একই আইপি দিয়ে বারবার ডাউনলোড করতে দেয় না, বা একাধিক অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য ভিন্ন আইপি প্রয়োজন হয়। ২. ভিপিএনে আপনার নিজস্ব পিসি থেকেই ট্রেড ওপেন হবে, তবে আইপি পরিবর্তন করতে পারবেন। আপনার ভিপিএন প্রভাইডার যতগুলো এবং যত দেশের আইপি প্রোভাইড করে, আপনি বেছে ইচ্ছামতটি ব্যবহার করতে পারবেন। ৩. না নিষিদ্ধ নয়। তবে ব্রোকারভেদে ব্যক্তিগত নিষেধাজ্ঞা থাকতে পারে। সাধারন সব ব্রোকারই সমর্থন করে। উল্লেখ্য, ভিপিএস ব্যবহার করার সময়ও বিদেশি আইপি ব্যবহৃত হয়, যেহুতু ভিপিএস সার্ভারগুলো বিদেশি। তাই আইপি পরিবর্তন হলে কোন সমস্যা নেই। তবে অ্যাকাউন্ট অবশ্যই দেশীয় আইপি দিয়ে খোলা উচিত। ভিন্ন আইপি দিয়ে ট্রেড করতে কোন সমস্যা নেই। ৪. আপনি অন্য কারো ট্রেড করতে পারবেন আপনার পিসি থেকে। কোন সমস্যা নেই। তবে অনেকেই একাধিক অ্যাকাউন্ট নিয়ে বোনাসের সুবিধা নিয়ে ২ অ্যাকাউন্ট থেকে বিপরীতধর্মী ট্রেড দিয়ে বোনাস ক্যাশ করার চেষ্টা করে। এমনটি করলেই শুধুমাত্র ব্রোকার অ্যাকাউন্ট সাস্পেন্ড করতে পারে। সাধারন ট্রেড করলে নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন সাস্পেন্ড করার কোন সম্ভাবনা নেই। ৫. ভিন্ন ভিন্ন পিসি থেকে একই অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে চাইলে ওয়েবট্রেডার ব্যবহার করা সবচেয়ে ভাল এবং সহজ। কোন ইন্সটলের ঝামেলা নেই এবং নিরাপদ। ইন্টারফেসও মেটাট্রেডারের কাছাকাছি। শুধুমাত্র কাস্টম ইনডিকেটর ব্যবহার করা যায় না। প্রায় সব ব্রোকারেরই ওয়েবট্রেডার আছে। যেমন - XM এর MT4 ওয়েবট্রেডারঃ https://mt4.xm.com/ এবং MT5 ওয়েবট্রেডারঃ https://mt5.xm.com/ . এছাড়া মোবাইলে MT4/MT5 অ্যাপ ব্যবহার করেও ট্রেড করা যেতে পারে। পাশাপাশি এখন খুব স্লিম উইন্ডোজ ১০ ট্যাব এবং ল্যাপটপ বের হয়েছে। সেগুলোও সাথে রাখা যেতে পারে।
  7. 1 point
    Technical analysis on all major pairs | 23rd July 2018 Technical parameters | (23rd -27th) July 2018 Possible entry point with critical support and resistance level. But when you trade at this level make sure that you are using price action confirmation signal. We have prepared these key support and resistance level based on the Fibonacci retracement levels, 100&200 SMA, key swings point and chart patterns formed in the higher time frame. Focus on AUDUSD technical analysis EURUSD Look for buying opportunity near the critical support First critical Resistance: Click here Second critical Resistance: 1.22275 First critical Support: Click here Second Critical Support: 1.14405 Overall Sentiment: Slightly bullish For GBPUSD, AUDUSD, USDCAD and GBPJPY analysis visit www.forextradingforyou.com All the technical parameters are applicable from 23rd July to 27th July 2018. The overall sentiment indicates the prevailing trend of the market. We highly recommend you to trade in favor of the market sentiment (overall sentiment) to reduce the risk exposure in trading. Trade the critical support and resistance level with price action confirmation signal. If you want to get the technical chart analysis along with logical explanations, feel free to contact us. We provide high-quality Forex trading signals, trading consultancy, and price action trading course. Please feel free to contact us for any query. A simple 5-minute conversation with our expert will change your trading career. We publish regular technical analysis on all the major pairs in every Monday. Please visit our site www.forextradingforyou.com to get details about our technical analysis. To get details about our video technical analysis along with live trade setup visit YouTube Channel. Please subscribe our channel to stay updated with every single technical analysis. Source: www.forextradingforyou.com
  8. 1 point
    Technical parameters | (23rd -27th) July 2018 Possible entry point with critical support and resistance level. But when you trade at this level make sure that you are using price action confirmation signal. We have prepared these key support and resistance level based on the Fibonacci retracement levels, 100&200 SMA, key swings point and chart patterns formed in the higher time frame. Focus on AUDUSD technical analysis EURUSD Look for buying opportunity near the critical support First critical Resistance: Click here Second critical Resistance: 1.22275 First critical Support: Click here Second Critical Support: 1.14405 Overall Sentiment: Slightly bullish For GBPUSD, AUDUSD, USDCAD and GBPJPY analysis visit www.forextradingforyou.com All the technical parameters are applicable from 23rd July to 27th July 2018. The overall sentiment indicates the prevailing trend of the market. We highly recommend you to trade in favor of the market sentiment (overall sentiment) to reduce the risk exposure in trading. Trade the critical support and resistance level with price action confirmation signal. If you want to get the technical chart analysis along with logical explanations, feel free to contact us. We provide high-quality Forex trading signals, trading consultancy, and price action trading course. Please feel free to contact us for any query. A simple 5-minute conversation with our expert will change your trading career. We publish regular technical analysis on all the major pairs in every Monday. Please visit our site www.forextradingforyou.com to get details about our technical analysis. To get details about our video technical analysis along with live trade setup visit YouTube Channel. Please subscribe our channel to stay updated with every single technical analysis. Source: www.forextradingforyou.com
  9. 1 point
    ওয়েস্টল্যান্ডস্টোরেজ সম্পর্কে জানুন ওয়েস্টল্যান্ডস্টোরেজ । Westlandstorage.com কোম্পানিটি তাদের কার্যক্রম শুরু করে মিশিগান ২০০১ সালে । ব্র্যান্ডন এবং ব্রায়ান উইলিয়ামস ভাই তাদের প্রথম স্থানটি ইজারা নেন। এবং কেইবা বলতে পারতো তাদের ছোট কাজ একদিন তৈরি করবো বৃহৎ কোন কার্যক্রমের যার মাধ্যমে ওয়েস্টল্যান্ডস্টোরেজ । Westlandstorage.com আন্তজার্তিক কোম্পানিটির জম্ম হবে এবং তারা হবেন এটির জম্মদাতা । তারপর, তাদের করা প্রথম মুনাফা দিয়ে তারা পুনরায় আরও রিয়েল এস্টেট ক্রয় শুরু করলো । এবং মাত্র কয়েক বছরের মধ্যেই উইলিয়ামস ভাইরা যুক্তরাষ্ট্রেই বাণিজ্যিক রিয়েল এস্টেটে মালিক হয়ে ওঠে। কিন্তু এই ছিল শুধুমাত্র কোম্পানির উন্নয়নের অগ্রযাত্রা । তারপর ২০১১ সাল থেকে ডাব্লুএলএস কোম্পানি দক্ষিণ আমেরিকা, ইউরোপ ও এশিয়াতেই আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভাবে জায়গা ক্রয় করতে শুরু করে । এটি শুরুর দিকে ততটা সহজ ও কার্যকরী ছিল না, কিন্তু সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে কোম্পানি মানুষের চিন্তাধারায় প্রযুক্তিনির্ভর ও বিপ্লবী ধারণা আনার চেষ্টা করে গেছে যা আজকের আধুনিক রিয়েল এস্টেট ধারণার জম্ম দিয়েছে । এই কোম্পানির বিশেষজ্ঞরা DiceLand প্রযুক্তি ব্যবহার করে এবং এর মাধ্যমে তারা বিশ্বব্যাপী রিয়েল এস্টেট বাজারে প্রবেশের রাস্তা তৈরী করেছিল । যা বিনিয়োগের সীমাবদ্ধতা হ্রাস করে ও বিনিয়োগকৃত অর্থের ঝুঁকি হ্রাস করে । এই প্রযুক্তি বিকেন্দ্রীভূত বা সারা বিশ্বের নিকট WestLand Storage এর ধারণাকে তুলে ধরবে এবং তাদের ICO পরিচালনা ত্বরানিত করবে । যা সারা বিশ্বকে WestLand Storage এর ব্যবসায়িক ধারণাকে তুলে ধরবে । ওয়েস্টল্যান্ডস্টোরেজ ধারণা সর্বনিম্ম বিনিয়োগ ১০ USD সর্বনিম্ম উত্তোলন ==== গড় হার ===== উত্তোলনের ধরণ তাত্ক্ষণিক কোম্পানি নং ১১১৮২৮৫৯ কোম্পানি ধরণ HYIP / হাইআইপি কোম্পানি ঠিকানা 43 Whitfield St London W1T 4HD ওয়েভসাইট আইপি ১০৪.২০.৫৭.৮৪ উত্তোলন BTC, LTC, ETH, BTCCash, DASH, ZCash ওয়েভসাইট ঠিকানা ওয়েস্টল্যান্ডস্টোরেজ ওয়েস্টল্যান্ড স্টোরেজ বিনিয়োগ পরিকল্পনা আসুন এইবার আমরা ওয়েস্টল্যান্ড স্টোরেজ এর ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যানগুলো ভাল করে জেনে নিই । এবং সেই সাথে কিভাবে আপনার অর্থ ওয়েস্টল্যান্ড স্টোরেজ কোম্পানিতে বিনিয়োগ করবেন । ওয়েস্টল্যান্ড স্টোরেজ প্রথমেই আপনার জন্য বিনিয়োগ উপযোগী জায়গা নির্বাচন করে এবং পরবর্তি ধাপ হিসেবে সেটিকে ভাড়াই পরিচালিত করে । এবং তারা সর্বমোট লভ্যাংশ কে দৈনিকভাবে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বন্টন করে থাকে, যা সর্বোচ্চ বিনিয়োগের ১% । সম্পূর্ণ ধারণা কোম্পানীর বর্তমান প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির নিবন্ধিত কার্যালয় ঠিকানা হল ৪৩ হুইটফিল্ড স্ট্রিট লন্ডন W1T 4HD এ অবস্থিত । এবং মি: ম্যাথিউ বয়েড কোম্পানির কার্যকরী আইন ২০০৬ অনুযায়ী প্রথম পরিচালক নিযুক্ত হন । সেইসাথে তিনি প্রথম সচিব নিয়োগ করেন কোম্পানী আইন ২০০৬ ব্যবহার করে । কোম্পানি নং ১১১৮২৮৫৯ এর তালিকাভুক্ত হিসেবে তিনি সকল শেয়ারকে অন্তভুক্ত করেন । এটি আপনার জন্য ব্যাপক একটি সুযোগ হতে পারে একজন বিনিয়োগকারী হিসেবে রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ করে আজীবন আয়ের সুযোগ তৈরি করা । শুধুমাত্র কয়েকটি ধাপ ও সঠিক চিন্তাধারার মাধ্যমেই আপনি এখন এটি পেতে পারেন । আজই বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত আপনাকে কাল হতে মুনাফা দিতে শুরু করবে । ওয়েস্টল্যান্ড স্টোরেজ কোস্পানির সবচেয়ে পজিটিভ দিকটি হল, এরা ১০০% ভাগ বিনিয়োগের গ্যারান্টি দিচ্ছে । এবং সেইসাথে প্রতিদিনের মুনাফা প্রতিদিনই উত্তোলনের সুযোগ দেয়া । ওয়েস্টল্যান্ড স্টোরেজ এর বিশেষ বৈশিষ্ট্যগুলি সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিনিয়োগ কোম্পানিটি আপনাকে ঘরে বসেই পৃথিবীর সবচেয়ে অর্থনৈতিকভাবে আকর্ষণীয় এ উন্নত অঞ্চলগুলোর রিয়েল এস্টেটে আপনাকে বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি দিচ্ছে । দেশগুলো হল : উত্তর আমেরিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকা, পশ্চিম ইউরোপ, এশিয়া এবং প্রশান্ত মহাসাগর এর দেশ । এর ফলে আপনার বিনিয়োগগুলি সঠিকভাবে সঠিক সময়ে সঠিক জায়গায় ব্যবহৃত হতে পারে এবং আপনাদের বিনিয়োগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয় । WLS বীমা তহবিল WLS এর বিনিয়োগ পরিকল্পনা আপনাকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ বীমা তহবিল তৈরি করতে দেয় । এই তহবিলটি মূল কাজই হল বিনিয়োগকারীর অর্থের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা রক্ষা করা এবং কোম্পানির ক্রমবর্ধমান প্রবৃদ্ধি ঠিক রাখা, ও সেই সাথে প্রতিটি বিনিয়োগকারীকে আজীবনের জন্য মুনাফা দিয়ে যাওয়া । নিশ্চয়তা ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানি সকল বিনিয়োগকারীদের সমস্ত ধরণের অর্থনৈতিক দায়-দায়িত্ব গ্রহণ করে রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ে বিদ্যমান সকলধরণের ঝুঁকি হ্রাস করে থাকে । আমি আগেও বলেছি, ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানি আপনাদের আজীবনের জন্য দৈনিকভাবে মুনাফা দিয়ে যা ১০০% গ্যারান্টি দিয়ে বলা যায় । সকল ধরণের চুক্তিপত্র, অধিকার এবং বাধ্যবাধকতা সমূহ আপনারা সাইন আপের সময় পেয়ে যাবেন । আপনারা চাইলে এখনই সকল চুক্তিপত্র দেখে নিতে পারেন । WLS টোকেন এখন আমরা যেটি নিয়ে আলোচনা করবো সেটি হল, WLS টোকেন যা ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানি তৈরি করেছে কিপটোকারেন্সী নির্ভর করে । ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানি আইসিও বা ICO এর মাধ্যমে তাদের WLS টোকেনটি ভবিষ্যতের বড় বড় ট্রেডিং মাকের্টে ছাড়ার পরিকল্পনা নিয়েছে । আর বর্তমানে আমরা চাইলেই এটির সাহায্য বেশকিছু মুনাফা করতে পারি । আপনার অর্জিত WLS টোকেনগুলো প্রতিদিনই স্বয়ংক্রিতভাবে আপনার জন্য মুনাফা তৈরি করবে । সত্যিই বর্তমানে ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানিটি আপনাকে এই সুবিধা দিচ্ছে । যতবেশি আপনি WLS টোকেন অর্জন করবেন আপনার দৈনিক আয়ের পরিমাণও তত বৃদ্ধি পাবে । বর্তমানে আপনি BOUNTY প্রোগ্রামের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ১০০০+ WLS টোকেন অর্জন করতে পারবেন । যার থেকে প্রতিদিনই আপনার স্বয়ংক্রিং মুনাফা আসবে ১০ WLS টোকেন যার বর্তমান মূল্য ১০ ডলার বা ৮০০ টাকা । যাতে বিশ্বাস হয় সেই জন্য আমার বর্তমান অ্যাকাউন্টের স্কিনশর্ট নিচে দিয়ে দিলাম । ভাল সুযোগ বেশিক্ষণ থাকে না এখন আপনি চাইলেই নিজেকে একজন বিনিয়োগকারী হিসেবে ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানির সাহায্যে রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ের সুযোগ গ্রহণ করতে পারেন এবং আজীবনের জন্য মুনাফা নিশ্চিত করতে পারেন । ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানি বর্তমানে তাদের কার্যক্রম বৃদ্ধির মাধ্যমে রিয়েল এস্টেট মাকের্টে বিকেন্দ্রীকরণের চেষ্টা করছে যাতে করে খুত শিগরই তারা কোম্পানির টার্নওভার প্রয়োজনীয় স্তরে নিয়ে যেতে পারে । এর পরবর্তি ধাপ হিসেবে ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ তাদের প্ল্যাটফর্ম শুরু করতে যাচ্ছে ICO কার্যক্রম । রিভিউ এইখানে আমি নিজের তৈরি করা ওয়েস্টলন্ড স্টোরেজ কোম্পানি উপর রিভিউটি দিয়ে দিলাম । Also, Visit – Westlandstorage.Com This article is writing on 23 July,2018 based on information available online & news portal. If you feel it’s outdated or incorrect, please write here to update it. Mail us: ami_niloy1987@yahoo.com Or Whatsapp Me- +8801620899847 সতকর্তা : আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি অনলাইনে এইধরণের হাইআইপি ওয়েবসাইটগুলি ৯৯% প্রতারণার আশ্রয় গ্র্রহণ করে বিনিয়োগকারীদের অর্থ নিয়ে যায় । এবং শীর্ষস্থানে থাকা তালিকাভুক্ত সমস্ত ওয়েবসাইটগুলি ১০০% নিরাপদ নয় । যদি আপনি এইধরণের কোন ব্যবসায়ে বিনিয়োগের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন তবে সেটি নিজ দায়িত্বে করবেন এবং এর জন্য নিজেই দ্বায়ী থাকবেন । প্রথমেই ওয়েবসাইট সম্পর্কে গবেষণা করুন, বিনিয়োগের যত্ন নিন । Signup For WestLand Storage & Bounty Right Now Free! Earn 100$ Click Here To Invest In Westland Storage! Website: www.westlandstorage.com Facebook: https://www.facebook.com/westlandstorage Twitter: https://twitter.com/westlandstorage Instagram: https://www.instagram.com/westlandstorage Telegram: https://t.me/westlandstorage
  10. 1 point
    Long - ক্রয় করা- Buy Short- বিক্রয় করা-Sell Bullish- আপট্রেনড, আপট্রেনডে থাকা ট্রেড, ঊর্ধ্বমুখী Bearish-ডাউন ট্রেনড, ডাউন ট্রেনডে থাকা ট্রেড, নিম্মমুখি Indicator- যা মার্কেট সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে, যা ভবিষ্যৎ বানী করে, যা অর্থনীতির অবস্থা সম্পর্কে ইঙ্গিত দেয়, মুদ্রাস্ফীতি, সুদ, এবং অন্যান্য সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে। Chart- চার্ট হোল আগের প্রাইস একশন যা গ্রাফের মাধ্যমে চোখের সামনে উপস্থিত করে। Commodity- পণ্য, যেমন, খাদ্য, মেটাল প্রভৃতি। Expert Adviser- রোবট প্রোগ্রাম যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ট্রেড করতে পারে। Pips- দশমিকের পরে ৪থ সংখ্যার প্রতি এক একক পরিবর্তন বা মুভমেন্টকে PIP বা পিপ বলে। Pipettes- কিছু কিছু ব্রোকারে প্রাইস দশমিকের পরে ৫ ডিজিট থাকে। যেমনঃ ১.৪২৫৬১. এই পঞ্চম ডিজিট তাই হল পিপেটিস। Lot- একসাথে কতগুলো শেয়ারের সমষ্টি। সাধারণত ১০০ ইউনিটের সমষ্টি কে বুজায়। তবে ১০০০০ ও ১০০০০০ ইউনিটের লট ও রয়েছে। ব্রোকার অনুযায়ী ইউনিটের পার্থক্য হয়। Loss- মনে হয় না অর্থ বলতে হবে ! খেলে টের পাবেন ! Profit- এইটাও পেলে টের পাবেন ! Long-term- অধিক সময়। সাধারনত, বন্ডের ক্ষেত্রে বোজায়, ১০ বছরের অধিক সময়। Leverage- মূল ব্যালেন্সের অতিরিক্ত নিয়ে ট্রেড ওপেন করলে, অতিরিক্ত যে সুবিধা পাওয়া যায় তাকে লিভারেজ বলে। Margin- লিভারজের মতো। কতটুকু লিভারেজ ব্যাবহার করা হয়েছে তা মারজিন এর রেশিও দ্বারা বোজা যায়। Spread- ব্রোকারের কমিশন। ট্রেড ওপেন করলেই দেখা যায় ট্রেডটি কিছুটা লসে ওপেন হয়েছে। এটাকেই স্প্রেড বলে। ফরেক্স ব্রোকারে একটি ট্রেড ওপেন করার জন্য এই ফি, কমিশন বা চার্জ হিসেবে ব্রোকার কেটে নেয়। Ask Rat- যে রেটে বিক্রির জন্য অফার করা হয়। Bid Rate- যে রেটে একজন ট্রেডার কোন কারেন্সি ক্রয়ের জন্য ইচ্ছা করে। Base Currency- যে কারেন্সি দিয়ে একজন ট্রেডার তার ফরেক্স আকাউনট সংরক্ষণ করে। সাধারণত অ্যামেরিকান ডলার বিশ্ব জুড়ে বেইস কারেন্সি হিসেবে বেবহারিত হয়। Broker- কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান যে বা যারা ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যস্থকারবারি হিসেবে কাজ করে এবং সার্ভিস চার্জ নেয়। Chartist- কোন ব্যাক্তি, যে চার্ট ও গ্রাফ ব্যাবহার করে, ট্রেনড খুজে পেতে পূর্বের ডাটা ব্যাখ্যা করে, এবং ভবিষ্যৎ সম্ভাব্য মুভমেন্ট সম্পর্কে ভবিষ্যতবাণী করতে পারে। এদেরকে টেকনিক্যাল ট্রেডার ও বলা হয়। Choice Market- যে মার্কেটে স্প্রেড নেই। এক প্রাইজেই সকল বায় এবং সেল সংঘটিত হয়। Commission Fee- ট্রান্সজেক্সন খরচ, যা ব্রোকার কেটে নেয়। Currency Rate- কোন কারেন্সি একচেঞ্জ করার সময় মূল্য পরিবর্তনের সম্ভাব্যতা। US Prime Rate- যে রেটে অ্যামেরিকান ব্যাংকগুলো তাদের প্রাইম কর্পোরেট কাস্টমারদের লোন দেয়।
  11. 1 point
    পোস্টটা পরার আগে কিছু বলে নেয়, বুদ্ধিমানদের জন্য ঈশারাই কাফি একটা কথা আছে। এই পোস্টটা আপনাকে একটা নতুন পথ দেখাবে জেই পথ দিয়ে সব constantly profitable trader আসছে। Price action pattern অনুযায়ী আপনি এখন signal পাইছেন buy করার জন্য ! কিন্তু আপনার ভয় লাগতেসে যদি ট্রেডতাতে লস করেন, যদি ট্রেডটা মিস করেন, যদি আগে entry নিয়ে ফেলেন এগুলা কেন মনে হইতেসে ? কিসের কারণে আপনার এমন লাগতেসে ? ভয় ! ভয় কোথেকে আসে ? Expectation থেকে ভয় আসে মানুষের ভিতর universal characteristics এর মধ্যে একটা হচ্ছে expectation fulfill হতেই হবে ! তার মানে তখন ট্রেড নেওয়ার সময় আপনি এমন ভয় পাইতেসেন কারণ আপনি চাচ্ছেন এই ট্রেড যেন tp hit করে ! Price action pattern আসলে কি ? Price action pattern হচ্ছে এরকম ধরেন আপনি একটা ৫ টাকার coin নিলেন, টস করলে ৬৫% সময়ের শাপলা আসে আর ৩৫% সময়ে সেতু, এখন আমি টস করলাম এখন আপনি কোনটা বলবেন ? সাপলা না সেতু ? ৬৫% সময়ে সাপলা উঠে মাত্র ৩৫% সময়ে সেতু উঠে তারপর ও কি আপনি চিন্তা করবেন যে যে দেখি কোনটা লাগে ? আপনি শাপলাই বলবেন কারণ আপনি জানেন ১০০% এর ভিতর আপনি ৬৫% জিতবেন ! price action দিয়ে কখনই আপনি বলতে পারবেন না মার্কেট এ কি পরিমাণ order আছে ! আপনি ট্রেড নেওয়ার পর হইত মার্কেট ranging এ চলে জেতে পারে সেটা আপনি advance কি ভাবে জানবেন ? সেট কখনই জানতে পারবেন না ! অতএব আপনার ট্রেড যদি লাভ হয় সেটা আপনার জানেন দেখে হইনি তখন মার্কেট যে ভাবে জাওয়ার দরকার ছিল সেটা আপানর চিন্তার সাথে মিলে গেছে তাই আপনি luckily ট্রেড টা পাইছেন আবার ঠিক একি ভাবে আপনি যখন লস করতেসেন সেটাও আপনার দোশ না কারণ মার্কেট তখন যে ভাবেই জাওয়ার দরকার ছিল সে ভাবে গেছে আমরা তা coin এর example দিয়ে বুঝতে পারছি ! কিন্তু যদি আপনার ভিতরে expectation না থাকে আপনি যদি buy ও না sell ও না অর্থাৎ যে কোন এক side না থাকলে brain কোন information block করবে না যার কারণে আপনি ট্রেড নেওয়ার পর যদি কোন কারণে price action পরিবর্তন হয় আপনি তা সাথে সাথে ধরে better decision নিতে পারবেন ! যার কারণে বলে আপনি কিছু না জানলে মার্কেট আপানকে ভুল প্রমাণ করতে পারবে না ! Price pattern হচ্ছে এরকম ! এখন কথা হচ্ছে আমরা কি জানি কোন ট্রেড এ আমাদের লাভ আছে কোন ট্রেড এ আমাদের লস আছে ? অবশ্যয় না ! যতক্ষণ না আমরা সব ট্রেড অংশগ্রহণ করতেসি ততক্ষণ আমরা জানতে পারব না ! সেটা জানার জন্য আমাকে প্রত্যেকটা ট্রেড এ অংশগ্রহণ করতে হবে ! তাহলে আমরা ৬৫% winning ratio result পাবো ! আর আপনি যদি মনে করেন যে না আমি জানি তাহলে আপনি বাস্তবতা থেকে fully disconnect ! আপনি একটা ঘরের ভিতরে থাকবেন যেটার কোন বাস্তবতা নাই! একটা কথা বলে রাখি আপনি যখন চার্ট এর দিকে তাকাবেন live market একি সময়ে আপনি যেমন buy এর evidence দার করাতে পারবেন ঠিক সে ভাবে sell এরও evidence দার করাতে পারবেন আপনার কাছে দুটো পথই খোলা এর মধ্যে আপনি যে দিক decision নিবেন সেঁতাই আপনার কাছে অর্থপূর্ণ হবে মনে হবে এটাই সত্যি। এখন চিন্তা করেন আপনি ট্রেড নিতে ভয় পাচ্ছেন expectation এর জন্য এখন যদি আমাদের expectation change করে ফেলি ধরেন ভাবলাম যে আমি জানি না এই ট্রেড কি আসবে আর এটা নিয়ে আমার তেমন মাথা বেথাও নেই কারণ এটা আমার জীবনের শেষ ট্রেড না তাহলে কি আপনি ভয় পাবেন আর ? মার্কেট এর উঠানামা by nature কোন feelings create করতে পারে না যতক্ষণ আপনি এর কোন অর্থ দিচ্ছেন ! মনে আছে ? আপনি যখন প্রথম চার্ট দেখসেন মার্কেট এর উঠা নামা আপনার কোন ভয় লাগছিল ? অবশ্যয় না ! তার মানে ভয় লাগতে হলে কোন অর্থ লাগ যেটা আপনি দিতেসেন ! আমরা demo trade দ্বারা already জানি আমাদের winning ratio কতো ( live trade এ জাওয়ার আগে live market এ demo trading আপনার method বেবহার করে দেখবেন আপনার winning ratio কতো আসে, আমরা ১ বছর ধরে গ্রুপ smart money এর price action বেবহার করে জানছি live market এ এটা কেমন কাজে দেয় ) এই expectation এর কারণে আপনার wining trade এর থেকে losing trade বেশি একজন typical trader গল্প বলব যার ভিতর consistent trader এর mindset নেই ধরেন support এ এসে price buy এর OU তৈরি করছে তার ভিতর expectation সে ট্রেড নেওয়ার পর price সোজা উপরে উঠে তার tp hit করবে অর্থাৎ সে মনে মনে চার্ট এর দান দিকের ছবি নিজে থেকে একেনিছে, সে কনটার দিকে বেশি খেয়াল করবে up ticks এর দিকে না down ticks এর দিকে ? অবশ্যয় up ticks এর দিকে ! যতবার মার্কেট উপরে যাবে তার কাছে ভাল লাগবে কিন্তু সে entry নেওয়ার পর মার্কেট এক/দুই পিপ তার against এ জেতে শুরু করল অর্থাৎ তার ভিতরে আকা ছবির সাথে না মিলায় তার ভিতরে ভয় কাজ করতে শুরু করল তার ভিতর ২ টা ভয় কাজ করতেসে ! ১। নিজেকে ভুল প্রমাণ করা ২। টাকা হারানর ভয় সে নিজেকে সঠিক প্রমাণ করার জন্য বিভিন্ন evidence gather করতে থাকবে নিজের মন গরা মত যখন তার টাকা হারানোর ভয়, নিজেকে ভুল প্রমাণ করার ভয় থেকে ১ ডিগ্রি বেশি হবে তখন সে স্বীকার করবে আমি ভুলছিলাম তখন সে ট্রেডতা close করে দিবে! ট্রেড টা লস হওয়ার পর বলবে ঈশ এটাতো sell এর price action ছিল কেন যে দেখলাম না, কেন দেখে নাই জানেন ? এতখন সে মার্কেট এর buy side এ চেল গেছে যার কারণে brain সুধু buy side এর evidence দেখাইতেসে। আচ্ছা সে যদি এ ভাবে চিন্তা করত মার্কেট আমার risk predefined করা আছে যে টুকু আমার লস করলেও সমস্যা নাই সে টুকু দেওয়ার আছে অতএব এ কি হবে আমি জানি না আমি opportunity দেখছি বাস ট্রেড নিছি এটা লাভ লস কি হবে তা আমার জানার দরকার নাই ট্রেড নেওয়ার পর মার্কেট কি ঘটবে সেটাও আমার জানার দরকার নাই কারণ আমি জানি আমি এক সাথে ২০ টা ট্রেড নিব এবং এই ২০ টা ট্রেড কে একটা ট্রেড হিসেবে ধরব এই ২০ টা ট্রেড মিলিয়ে যে result বের হবে এটা মার লাভ লস এটা ভাবার পর সে কি কোন ট্রেড এ ভাববে যে এটা আমার জীবন মরণের ট্রেড ? কোন expectation থাকবে তার ভিতর ? না কারণ সে জানে ২০ টা ট্রেড নিব যেটা আমাকে ১ টা sample size হিসেবে result দিবে আর ফরেক্স হচ্ছে number game অর্থাৎ ঐ যে coin এর কথা মনে আছে ? ঐরকম ! প্রশ্ন হচ্ছে এক সাথে ২০ টা ট্রেড কেন ? কারণ ২০ টা ট্রেড কে একটা মনে করলে আপনার আর কোন নির্দিষ্ট ট্রেড এর উপর emotional significance আসবে না ! যার কারণে বিনা emotion এ ট্রেড করতে পারবেন ! Expectation নাইতো কোন ভয় নাই আর কোন ভয় নাইতো কোন tension নাই ! আর tension নাইত আপনার চলার পথে সমস্যা নাই ! আর যেহেতু চলার পথে সমস্যা নাই ১০০ টা ট্রেড বিনা emotion এ নিতে পারবেন আর এর থেকে ৬৫ টা লাভ এর ট্রেড বের করে আনতে পারবেন নিমেষে ! এবার ধরেন এতক্ষণ মার্কেট তার against এ যাচ্ছিল কিন্তু এবার মার্কেট তার TP এর দিকে যাচ্ছে এখন সে কিসের নিজের দিকে নজর দিবে ? সে অনেক সময় ধরে down ticks দেখে ভয় পাওয়ার কারণে এখন তার পুরো নজর down ticks এর দিকে ! যখন সে একটু লাভ দেখবে তখন সে ট্রেডটা close করে দিবে কারণ সে এতক্ষণ ধরে করে দেখতেসিল যে মার্কেট তার against এ যাচ্ছে কিন্তু এর পরই দেখা গেল সে জে খানে tp দিছে মার্কেট সে খানে চলে গেছে ! এখন বলেন এটা কার দোশ ? typical ট্রেডাদের এ জন্য হাস্য রস করে বলে যে “shitting like a elephant, eating like a bird” ! মার্কেট বিভিন্ন ধরনের order mange করে smart money কখন কোনটা করবে আপনার price action তা কখনই ধরতে পারবে না ! আপনি ট্রেড নেওয়ার পর হইত মার্কেট ranging এ ও চলে জেতে পারে ! আমরা already বুঝে গেছি mindset আমাদের জন্য কতো গুরুত্বপূর্ণ ! এখন প্রশ্ন হচ্ছে কি ভাবে আমাদের mindset change করব ! এর জন্য exercise আছে যারা ডেমোতেঁ live market আপনার method apply করে বুঝতে পারছেন আপনার ratio কতো তারাই এই exercise করবেন Mindset change করার জন্য ৩ তা জিনিস লাগে ? 1. Clarity 2. Sincerity 3. Desire ! একদম নিখুঁত ভাবে আপনি বুজছেন কেন আপনি mindset change করতে চান ? আপনি এই পরিবর্তন এর বেপারে serious কি না ? আপনার সেরকম ইচ্ছা আছে কি না ? যদি থাকে তাহলে এগুলো follow করেন ! আপনি আপানকে মনে মনে বললেন কিন্তু আপনি বিশ্বাস করতে পারলেন না তাহলে এটা কোন কাজেই দিবে না কারণ যখন আপনি ট্রেড করতে বসবেন তখন brain automatically আগে যে কতো বার লস করছেন ট্রেড করতে গিয়ে সেগুলো নিয়ে আপনার মাথার ভিতর চিন্তা ঘুরাতে থাকবে ! Clarity বলতে আমি কি বুঝালাম ? clarity হচ্ছে এমন একটা জিনিস যা করতে গিয়ে আপনার বিন্দু মাত্র সন্দেহ থাকবে না এবং কি করতেসেন সেটা বুঝতেছেন অন্য কোন চিন্তা এসে আপানকে বলতেসে না এটা ভুল এটা করে লাভ নাই এটা আগে করেও লস খাইছেন এই রকম যেমন আপনি যখন পানির ভিতরে দুবে যাচ্ছেন তখন আপনার মাথার ভিতরে আর কোন কথা ঘুরবে না তখন brain একদম clear যে আর একটা দম নিশ্বাস নিতে না পারলে আপনি মারা যাবেন আর তখন brain তার সরবচ্ছ দিয়ে আপানকে বাচানোর চেষ্টা শুরু করে দিবে ! আচ্ছা sincere আর desire টা কি ? আপনাদের একটা গল্প বলি জন্ম থেকে অন্ধ এক ছেলে আছে যে তার বাবার কাছে বলছে তাকে Tv game কিনে দেওয়া জন্য। যেহেতু সে জন্ম থেকে অন্ধ তাই সে অনেক বার game এর console ভেঙ্গে ফেলছে ! প্রাই বাবার সাহায্য নিত কি হচ্ছে টা জানার জন্য একটা সময় আর বাবার কাছে জিজ্ঞেস করে না নিজেই নিজেই খেলতে পারে। বিভিন্ন gaming contest এ জোগ world নাম করা সব player তাকে হারাতে আসছিল mortal combat 4 এ কিন্তু কেউ তাকে হারাতে পারে নাই, মানুষকে ভয় দেখানর জন্য সে মাঝে মাঝে screen এর উলটা দিক করে বসে খেলত! বিজ্ঞানীরা এটা নিয়ে অনেক লাগছে কি ভাবে পারে কিন্তু এখন বের করতে পারে নাই ! কিন্তু বেপার টা খুব সাধারণ তার desire ছিল যে সে gamer হবে এবং এ বেপারে sincere ছিল যে ভাবেই হউক তাকে gamer হতে হবে তাই সে পারছে ! এবার বুঝতে পারছেন আপনার কাজ কি ? এখন থেকে আমরা নতুন কারণে ট্রেড করবো যাতে আমি একজন consistent trader হতে পারি এটা মনে মনে সব সময় বলবেন ! মার্কেট খোলা থাকে এমন ৬০ দিন নিবেন এ সময় একটা journal রাখবেন mindset এর ! live market এ মার্কেট এ live account এ ঠিক যতোটুকু টাকা লস করলে আপনার তেমন ক্ষতি হবে না ততো টুকু live market এ ট্রেড করে expectation manage করতে তাহকবেন যে ভাবে নিচে লেখা আছে ! * চার্ট এর সামনে বসা পরপরই brain যখন ছবি আকা শুরু করবে তখন নিজেকে বলবেন “each and every moment is unique” অর্থাৎ এখনকার সাথে আগের কোন সম্পর্ক নাই তখন brian নিজ থেকে disconnect হয়ে যাবে তার পর মাথা ভিতর buy/sell এর চিন্তা না নিয়ে analysis করবেন এর পর signal পাওয়া মাত্র দ্বিতীয়বার চিন্তা ছাড়া ট্রেড টা নিয়ে ফেলবেন ! কারণ যতোবার চিন্তা করবেন ততো বার ভুল হওয়ার সম্ভাবনা বারতে থাকে ! elite trader রা কখনই একবার signal পাওয়ার পাওয়ার পর সেটা নিয়ে আর দ্বিতীয় বার analysis করে না ! * আপনার যদি চার্ট এর right side নিয়ে কোন expectation বা থাকে তাহলে আপনি আপনার analysis এর 100% skill বেবহার করতে পারবেন live market এ ট্রেড থাকা অবস্থায় ! * টানা ২০ টা ট্রেড নিবেন এবং ২০ টা ট্রেড কে ১ টা ট্রেড হিসেবে ধরবেন যাতে কোন একটা নির্দিষ্ট ট্রেড এ জীবন মরণের হিসেব না ধরেন ! * trade by trade হিসেব করলে আপনি win করলে ভাববেন আপনি জানতেন এটা হবে আর lose করলে ভাবতেন আপনি ভুল ছিলেন এরকম win/loss এর pattern এ পরে আপনি পরের ট্রেড এ এমনেই লস করবেন কিন্তু যদি series of trade অর্থাৎ ২০ টা ট্রেড কে একটা ধরেন তাহলে এ সমস্যা হবে না * আপনি যদি ট্রেড বাছায় করেন অর্থাৎ যদি ভাবেন যে এই ট্রেড নিব না এই ট্রেড নিব তাহলে আপনার ভিতর expectation কাজ করতেসে অর্থাৎ আপনি sure লস করবেন ট্রেড নিলে ! *একটা successful trade এর ৭০% নির্ভর করে mindset এর উপর আর ৩০% নির্ভর করে analysis এর উপর। ট্রেড নেওয়ার আগে একটা কথাই মনে করি এটা একটা সাধারণ ট্রেড এরকম আরো কতো ট্রেড নিব তাই এই ট্রেডটা আমার কাছে কিছুই না ! * আপনি যখন এটা practice করতে যাবেন brain automatic আগের দিনের সাথে মিলানো শুরু করবে যার কারণে আপনি সহজে আপনার mindset পরিবর্তন করতে পারবেন না ! তাই যখনি আপনার brain আগের দিনের সাথে মিলানো শুরু করবে আপনি নিজেকে বলবেন হা তোমার কোথায় অনেক যুক্তি আছে কিন্তু আমি শুনব না আমি যা করতেসি বুঝে শুনে করতেসি * কখনো কারো signal follow ভুলেও follow করবেন না তাহলে আপনার অভ্যাস খারাপ হয়ে যাবে আর জীবনেও আপনি trader হতে পারবেন না ! কারো signal এর সাথে নিজের টা ভুলেও মিলাবেন না ! signal দেখা মাত্র ignore করবেন ভুলেও মাথায় আইনেন না ! আনলে brain সুধু ঐ signal এর evidence খুঁজবে আর আগেই বলছি এই খজা খুঁজি তেই আপনার লস sure হবে ! * Ego problem এ ভুলেও পইরেন না ! নিজেকে সঠিক প্রমাণ করা আরেকজন এর উপর অথবা ঝগড়া করে ট্রেড নিলেন মনে রাইখেন আপনি তখন real market information দেখবেন না ! brain automatically আপনাকে right প্রমাণ করার জন্য আপনার রাগের মাথার info কেই সঠিক দেখাবে ! * beginner দের আরেকটা ভুল হচ্ছে একটু শিখেই নিজে নিজে একটা method develop করতে চায় যাতে আর বেশি সময় নষ্ট হয়য় আর real ট্রেড থেকে দূরে থাকে। minimum 1/2 year পর নিজের মত করে কিছু করা যায়। * কখনো mr. perfectionist হতে যাইয়েন না অর্থাৎ একদম আপনি যে খানে থেকে ট্রেড নিবেন মার্কেট সেইখান থেকেই reverse/continuation করতে হবে আবার একদম আপনার tp তে hit করে মার্কেট অন্য দিকে যাবে এসব ভেবে আপনি জীবনেও successful হতে পারবেন না আপনার মুল target থাকবে একটা sample size এর শেষে আপনার profit বের করে আনা অর্থাৎ income বাস আর বেশি কিছু ভাবার দরকার নাই। *আপনি যদি এ ভাবে বলেন মনে হইতেসে এই ট্রেড টা কাজ করবে বা করবে না তাইলে আপনার ভিতর automatically expectation চলে আসবে কারণ আপনি চাচ্ছেন আপনার মন এর টা মিলুক , আর expectation মানে তো বুঝেন চোখ বন্ধ করে ভুল decision নিতেসেন ! এটা থেকে বাছতে হলে আপনার price action এর signal আসা মাত্রই ট্রেড নিতে হবে কন কিছু ভাবা যাবে না ! একবার ভাবেন আপনার জীবনে যে ট্রেডটা TP hit করছে সেটাতেঁ আপনি একদমই কম effort দিছেন সেটা নিয়ে আপনার বেশী ঘাটতেও হই নাই ! এর দ্বারা কি বুঝলেন ? জহন আপনি ট্রেড নিতে গিয়ে আপনি আর কোন pressure feel করবেন না তখন আপনি একজন সত্যিকারের ট্রেডার হয়ে গেছেন কারণ আপনি যখন কোন কিছু pressure ছাড়া করছেন তার মানে এটা আপনার brain এর একটা part যেমন আপনি যে হাঁটেন আপনাকে কি চিন্তা করে হাটতেঁ হয় ? অবশ্যয় না ! ঠিক ট্রেড নিতে গিয়ে যখন আপনার হাটার মত আর কোন feel আসবে না তখন বুঝবেন আপনি একজন consistent trader হইছেন ! এ ভাবে প্রতি দিন নিজের চিন্তা কে control করতে থাকলে একদিন সকালে উঠে দেখবেন আপনি ট্রেড নিতে গেলে brain আর কোন উলটা পাল্টা চিন্তা করবে না। insider update পেতে আমাদের সাথে থাকুনঃ BDFS
  12. 0 points
    যেকোনো সাধারন মানুষই হোক বা ফরেক্স ট্রেডার, আমরা সবাই অভ্যাসের দাস। আসল ব্যাপারটি এমন, আমরা যদি কোন কাজে সফল হই বা সত্যিকারভাবে কাজ করে এমন কোন কিছুর সন্ধান পাই, তখন সে কাজটিই আমরা বারবার করতে থাকি। আর ফরেক্স ট্রেডেও ঠিক এমন ব্যাপারটিই ঘটে। যখন আমরা নতুন ফরেক্স ট্রেডিং করতে শুরু করি, তখন মূলত একটি বা ২টি কারেন্সি পেয়ার নিয়ে ট্রেড করতে থাকি। কিন্তু অনেক বছর পেরিয়ে গেলেও দেখা যায় সে পেয়ারগুলো থেকে আমরা আর বের হতে পারি না। নতুন ট্রেডারদের জন্য অল্প কারেন্সি পেয়ার নিয়ে ট্রেড করায় ভালো। কিন্তু, আপনি যখন একজন পরিনত ফরেক্স ট্রেডার হবেন, তখন আপনি একটি বা দুটি পেয়ারের পেছনে পড়ে না থেকে, অন্যান্য পেয়ারের খোঁজ খবর রাখাটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। নতুন ফরেক্স ট্রেডারগন প্রতিনিয়ত ইউরো/মার্কিন ডলার (EUR/USD) এবং ব্রিটিশ পাউন্ড/মার্কিন ডলার (GBP/USD), পেয়ার দুটির প্রতি বেশী মনযোগী হয়। ফরেক্স মার্কেটে ট্রেড করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কারেন্সি পেয়ার রয়েছে, এবং বিভিন্ন ধরনের পেয়ার ট্রেড করতে বিভিন্ন রকম পড়াশোনা বা জ্ঞান থাকা দরকার। আর হাজার কারেন্সি এবং পেয়ারের ভীরে আপনার কোনগুলো ট্রেড করা সবচেয়ে উপযুক্ত হবে বা কিভাবে এগোতে পারেন তাই নিয়েই এ আলোচনা। যেহুতু আপনি ফরেক্স ট্রেড করছেন, তাই আপনার সামনে যতরকমের সুযোগ আছে ট্রেড করার, সবগুলো সম্পর্কেই আপনার জানা উচিত। EURUSD এবং GBPUSD এর পাশাপাশি আরোও দুটি গুরুত্বপূর্ণ পেয়ার ফরেক্স ট্রেডারদের বেশ পছন্দের। কিন্তু অনেক ট্রেডাররাই এই পেয়ার ২টিকে গুরুত্ব দেন না। পেয়ার দুটি হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ান ডলার/ মার্কিন ডলার (AUD/USD) এবং নিউজিল্যান্ড ডলার/মার্কিন ডলার (NZD/USD)। মজার ব্যাপার হচ্ছে, নিউজিল্যান্ড ডলার এবং অস্ট্রেলিয়ান ডলার উভয়ই ফরেক্স মার্কেটে অন্যতম ২টি বেশ পরিবর্তনশীল কারেন্সি পেয়ার। তাই বুঝতেই পারছেন, বুঝে শুনে কোপ মারতে পারলে লাভও বেশ ভালোই করা সম্ভব এই পেয়ারগুলোতে। নতুন পেয়ার ট্রেড করতে গেলে প্রথমে নিশ্চিত করে নেয়া জরুরী যে আপনার ফরেক্স ব্রোকার আপনাকে উক্ত পেয়ার দুটিতে ট্রেড করার সুযোগ দিচ্ছে কিনা। এই পেয়ার ২টি মেজর পেয়ার বিধায় প্রায় সব ব্রোকারেই AUD/USD এবং NZD/USD ট্রেড করা যায়। XM ব্রোকারে এই পেয়ার দুটির স্প্রেড অন্য ব্রোকারগুলোর তুলনায় বেশ কম। বর্তমান মার্কেটের প্রেক্ষাপটে অস্ট্রেলিয়ান ডলার এবং নিউজিল্যান্ড ডলার দুটি কারেন্সিই ট্রেড করার জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। গ্লোবাল ইকুইটি বৃদ্ধির সাথে সাথে, বিশেষ করে ইউএস এবং চায়নার স্টক মার্কেটে পরিবর্তনের ফলে ফরেক্স মার্কেটেও পরিবর্তনের সুযোগও বেশি তৈরি হয়। তাই ফরেক্সে বিনিয়োগকারীরা সেফ হেভেন কারেন্সি যেমন আমেরিকান ডলার, জাপানিজ ইয়েন, সুইস ফ্র্যাঙ্ক ইত্যাদি থেকে সরে এসে বেশি লাভ হতে পারে এমন কারেন্সি যেমন Aussie (অস্ট্রেলিয়ান ডলার) এবং Kiwi (নিউজল্যান্ড ডলার) এর প্রতি আকৃষ্ট হয়। এছাড়াও, বিভিন্ন গবেষনামূলক প্রতিবেদনে দেখা গেছে , প্রধান প্রধান কারেন্সিগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়ান ডলার ফান্ডামেন্টাল দিক থেকে বেশ স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে। বিশ্বের অর্থনীতিতে মন্দা চললেও অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতিতে এর প্রভাব পড়েনি। রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্ট্রেলিয়া স্বভাবতই তাদের সুদের হার একটু বেশী রেখেছিল যেটা মূলত অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতিকে চাঙ্গা রাখতে সহায়তা করেছে। গোল্ড ট্রেডারের কাছেও কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান ডলার খুবই গুরুত্ব পায়, কারণ স্বর্ণের দাম বৃদ্ধির সাথে সাথে অস্ট্রেলিয়ান ডলারের দামও বৃদ্ধি পায় কারণ স্বর্ণ রপ্তানিতে অস্ট্রেলিয়া অন্যতম বৃহতম দেশ। কিউই (Kiwi) অর্থাৎ নিউজিল্যান্ড ডলার বেশ প্রাধান্য পায় কারণ এর মূল্য স্টক প্রাইসের সাথে সম্পর্কযুক্ত। S&P 500 ইন্ডেক্স ওপরের দিকে গেলে, নিউজিল্যান্ড ডলার (Kiwi) মার্কিন ডলারের (USD) বিপরীতে শক্তিশালী হয়। তাই ফরেক্স ট্রেডাররা নতুন পেয়ার নির্বাচনের সময় NZD/USD পেয়ারটিকে তাদের তালিকায় রাখতে পারেন। কমোডিটিগুলোর চাহিদা বৃদ্ধি পেলেও নিউজিল্যান্ড ডলারের দাম বৃদ্ধি পায়, যদিও নিউজিল্যান্ড বিশেষ কোন কমোডিটি উৎপাদন বা রপ্তানীর জন্য বিখ্যাত নয়। পরিশেষে বলা যায়, যদি আপনি ফরেক্স ট্রেড করেই থাকেন, তাহলে সচরাচর ট্রেডকৃত পেয়ারগুলোর পাশাপাশি অন্য কোন পেয়ার ট্রেড করলে লাভ করা যেতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আর সেদিক থেকে AUD/USD এবং NZD/USD পেয়ার দুটি আপনার চার্টে ওপরের দিকে রাখার কথা ভাবতে পারেন।

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×