Jump to content

ফোরাম ফিড

This stream auto-updates     

  1. Past hour
  2. EROUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেট ১.১২৪৩ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.১২৩০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৪৩, ১.১২৩০, ১.১২০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৬৫,১.১২৮০,১.১৩০০ বাই এন্ট্রি : ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১.১২৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা সেল পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.১২২৪ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১৩২৩। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২২৪, ১.১২০২, ১.১১৬৬ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৭০, ১.১৩২৩, ১.১৩৫১ সেল এন্ট্রি : টেক প্রফিট : ১.১২০২, ১.১১৬৬ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটির ১.২৯৭৭ একটি সাপোর্ট লেভেল এবং ১.২৯৭৭ একটি সেল সিগন্যাল দেওয়া হয়েছে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৫৮, ১.২৯২৯, ‍১.২৯০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০০৮, ১.৩০২৩, ১.৩০৪৮ সেল এন্ট্রি: ১.২৯৭৭ স্টপ লস : ১.৩০০৮ টেক প্রফিট : ১.২৯৫৮, ১.২৯২৯ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.৩০১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা । সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৫৫, ১.২৮৪৭, ১.২৬৭২ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০১০, ১.৩০৮০, ১.৩১৫০ সেল এন্ট্রি :
  3. Today
  4. সিঙ্গাপুরের মুদ্রাস্ফীতি মার্চ মাসে সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে! সিঙ্গাপুরের মুদ্রা কর্তৃপক্ষ এবং বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার জানিয়েছে যে সিঙ্গাপুরের মুদ্রাস্ফীতি মার্চ মাসে সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে। ভোক্তা মূল্যস্ফীতি ফেব্রুয়ারিতে 0.5 শতাংশ থেকে 0.6 শতাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। অর্থনীতিবিদরা মুদ্রাস্ফীতিতে 0.7 শতাংশ বৃদ্ধির আশা করেছিল। আরো ফরেক্স নিউজ দেখুন: https://goo.gl/FmCiZG
  5. টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস- EUR/USD পেয়ারের ইন্ট্রাডে লেভেল, ২৩শে এপ্রিল-২০১৯ বিশ্লেষণ করেছেন বিশেষজ্ঞ Arief Makmur (ইন্সটা ফরেক্স টিম) আজকের EUR/USD পেয়ারের টেকনিক্যাল লেভেলঃ ব্রেকআউট বাই লেভেল- 1.1312 স্ট্রং রেসিস্ট্যান্স- 1.1306 অরিজিনাল রেসিস্ট্যান্স- 1.1295 ইনার সেল এরিয়া- 1.1284 টার্গেট ইনার এরিয়া- 1.1258 ইনার বাই এরিয়া- 1.1232 ওরিজিনাল সাপোর্ট- 1.1221 স্ট্রং সাপোর্ট- 1.1210 ব্রেকআউট সেল লেভেল- 1.1204 মন্তব্য: আজ ইউরোপিয়ান মার্কেটে ট্রেডিং শুরু হলে ইকোনোমিক নিউজ রিলিজ করবে। যেমন: কনজুমার কনফিডেন্স। এছাড়াও আমেরিকান মার্কেটে ট্রেডিং শুরু হলে ইকোনমিক ডাটা রিলিজ করবে। কিছু যেমন: রিচমন্ড ম্যানুফ্যাকচারিং ইনডেক্স, নিউ হোমে সেলস এবং HPI এম/এম। ফলে ফান্ডামেন্টাল বিশ্লেষন থেকে আশা করা যায় মার্কেটে EUR/USD পেয়ারটিতে নিন্ম থেকে মধ্যম মাত্রার ভোলাটিলিটি থাকতে পারে। আরো ফরেক্স বিশ্লেষন দেখুন: tiny.cc/15hl5y *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  6. USA এর ট্রাম্প সরকার নানা দিক দিয়ে ইরানের উপরে আরও অবরোধ বাড়াতে চায়। মধ্যপ্রাচ্যে তাদের একমাত্র হুমকী ইরান বলেই মনে করে তারা। এদিকে এমন পরিস্থিতির মুখেই ইরাক সরাসরি ঘোষনা দিয়েছে তারা ইরানের উপর আমেরিকার কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দেবে না। রাশিয়াও গত পরশু কাস্পিয়ান সাগর ব্যবহার করে তাদের বানিজ্য প্রসারে ইরানের সাহায্য নেবে মর্মে চুক্তিও করে ফেলেছে। এটিও ট্রাম্প সরকারের উপরে চাপ ফেলেছে প্রচুর পরিমানে। এদিকে ইরান তাদের বানিজ্যিক চুক্তি বাড়িয়ে পাকিস্তানের সাথেও গতকাল বৈঠক করে ফেলেছে। উভয় দেশ সকল বৈরিতা মোকাবেলায় একে অপরের পাশে থাকবে বলে সম্মতিও হয়েছে!! অন্যদিকে ট্রাম্প সরকার তার দেশে চায়নিজ পন্যের শুল্ক কয়েকগুন বৃদ্ধি করার মৌন প্রতিশোধ হিসেবে চিনও ঘোষনা দিয়েছে, তারা ইরানের উপর আর কোন অবরোধ দেখতে চায় না। আমেরিকার বন্ধুরাষ্ট জার্মানির এঞ্জেলা মার্কেলও ঘোষনা দিয়েছে তারা ইরানের উপরে আমেরিকার অবরোধ আরোপের চিন্তাকে সমর্থন করেনা।তারা আলোচনা করে সমস্যা সমাধানের পক্ষে। এতোসব ঘটনার মাঝে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা, আয়াতুল্লাহ খোমেনী প্রকাশ্যে ঘোষনা দিয়েছে, আমেরিকার সাথে এবার যদি তাদের নুন্যতম কোন যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি হয়,তবে তারা কোন আলোচনার চিন্তাও করবেনা। সরাসরি আক্রমন করা শুরু করে দেবে।আর তার উপরে একটি ক্ষেপনাস্ত্রের জবাব তারা ১০ টি ক্ষেপনাস্ত্র দিয়ে দেবে। এতসবের প্রেক্ষিতে ট্রাম্প সরকার বর্তমানে বুদ্ধিবৃত্তিমুলক সমস্যায় ভুগছেন। তার কোন সিদ্ধান্তই সঠিকভাবে কাজ করছে না। পায়ের নিচে থাকা ইরাকও আজ মুখের উপর কথা বলছে, আফগান সিরিয়ায় চরম বিপর্যয়ের পর বর্তমানে সারা বিশ্ব থেকে এমন চোখ রাঙ্গানী, সব কিছু মিলিয়ে USD এর মুল্যমান চরম অস্থিতিশীল অবস্থায় সময় পার করছে। আর তাই ইউএস ডলারের দুর্বল হবার আশংকাই অনেক বেশি হয়ে দেখিয়েছে।যা ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে কিছু কিছু কারেন্সী পেয়ারে। তবে ট্রাম্প সরকার গুরুত্বপুর্ন কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারলেই কেবল এমন সংকটময় অবস্থা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এখন দেখার পালা, কেমন পদক্ষেপ নেয় ট্রাম্প সরকার নিজেদের অবস্থান শক্তপোক্ত করতে। সবাইকে আন্তর্জাতিক নিউজ সম্পর্কে ধারনা রাখার জন্য অনুরোধ করা হল, কারন এসব নিউজের ইফেক্ট আপনাকে নিমিষেই আপনার সকল টেকনিক্যাল এনালাইসিসকে বোকা বানিয়ে আপনাকে লুজার বানিয়ে দিতে পারে, আবার যদি ভালভাবে নিউজ ধরে ধরে ট্রেড করতে পারেন, তবে নিয়মিত ও ভালভাবে প্রফিটও করে যেতে পারেন অনায়াসে। সকলের জন্য শুভকামনা রইল <3 <3 <3 Trade with real ECN broker:
  7. Yesterday
  8. #USDJPY D1 চার্টে আমরা দেখতে পাচ্ছি Head & Shoulder প্যাটার্ন তৈরী করেছে, এমনকি উপর থেকে আসা একটা ডাউনট্রেন্ড লেভেল ব্রেক করেও ফেলেছে। আবার নিচের দিক থেকে আপট্রেন্ড কন্টিনিউ করেই চলেছে। এখন এন্ত্রি কনফার্মেশনের অপেক্ষা শুধু। আপনার নিজের ট্রেডিং স্ট্রাটেজীতে যদি এমন পজিশনে কোন এন্ট্রি কনফার্মেশন পেয়ে যান, তবে সুন্দর একটা এন্ট্রি পেয়ে যাবেন, এমন আশা করছি। পরিশেষে, ইরান ও রাশান নেতাদের বৈঠক ইস্যুতে আমেরিকাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রাশিয়া কাস্পিয়ান সাগরে ইরানের সাথে বানিজ্য কন্টিনিউ রাখার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে কি সিদ্ধান্ত নেবেন ট্রাম্প সরকার, এমন সকল ইউএস এর বানিজ্যিক সংক্রান্ত ইস্যুর দিকে নজর রাখা উচিত ফান্ডামেন্টালি। কারন ট্রাম্প প্রশাসনের একটি সিদ্ধান্ত ইউএসডি কারেন্সির মুভমেন্ট যে কোন দিকে ঘটাতে পারে। তাই, সেদিকেও একটি চোখ দিয়ে রাখা উচিত। সবার জন্য শুভকামনা রইল। Trade with real ECN Broker:
  9. BullsEye Markets Trading Accounts Bullseye Markets provide seven different kind of account types, all seven accounts are with highly competitive and distinct trading that fulfil the needs and expectations of all types of traders. Micro Account This forex trading accounts are designed for the new traders. They allow clients to trade with real money without exposing their self. They present opportunities for more experienced Forex traders to experiment. If an experienced trader doesn't have a demo account or he wants to use a new strategy without maximizing any risk, the Forex micro accounts are there for him. Client can switch to his regular account at any time. https://bullseyemarkets.com/MicroAccount Classic Account This account is for those clients who want to trade with zero additional commission and only an all-inclusive spread starting from 1 pips. With a minimum initial deposit of 500$, the account is accessible for beginners that will trade with no restriction https://bullseyemarkets.com/ClassicAccount Classic pro Account This account is ideal for those clients who want to trade with zero additional commission . Spread is starting from 1 pips. With a minimum deposit of 500$, the classic account is accessible for beginners that will trade with no restriction. All EAs and trading strategies are welcomed since no limits are put on stop and limit orders, allowing you to set as close as the entry price as you want. https://bullseyemarkets.com/ClassicPro ECN Account ECN, stands for Electronic Communication Network. It is the way of the future for the Foreign Exchange Markets. ECN can be described as a bridge linking smaller market participants with its liquidity providers . https://bullseyemarkets.com/ECNAccount ECN Max Pro accounts are based on the ECN execution. This Account is the Ideal for trading professionals, institutional traders and hedge fund managers. The Bullseye Pro account is designed to satisfy the needs of the most demanding trader. Get the most out of your strategy here with BullsEye Markets with the ultimate trading conditions. Spreads is starting from 0 pips. Clients can trade here with unconditionally. https://bullseyemarkets.com/ECNMax ECN Pro Pro accounts are based on the ECN execution. It is designed to satisfy the needs of the most demanding trader. No commissions, no requotes and no compromises. Professional traders can take advantage of the deep liquidity here we offer directly from our tier-1 providers. Spreads starting from 0 pips. Clients can trade with freedom to use any and all trading strategies without limitations. https://bullseyemarkets.com/ECNPro Fixed Account Spread starting from 1 pips. With a minimum deposit of 500$, the classic account is accessible for beginners that they will trade with no restrictions. Absolutely all EAs and trading strategies are welcomed since no limits are put on stop and limit orders, allowing you to set as close as the entry price as you want. https://bullseyemarkets.com/fixed
  10. Market Analysis and News.

    Date : 22nd April 2019. Events to Look Out for Next Week. The shortened week starts with just one piece of news on Monday and Tuesday from the US, while Wednesday will be in focus as the UK Parliament returns from its Easter recess. US Durable Goods are out on Thursday along with the BoJ rate decision. Wednesday – 24 April 2019 CPI (AUD, GMT 01:30) – Australia’s inflation rate for Q1 is expected to have declined slightly to 1.7% y/y compared to 1.8% y/y in the final quarter of 2018. IFO (EUR, GMT 08:00) – Business climate in the largest EU country is expected to have grown marginally to 99.9 compared to 99.6 last month. Event of the week – BoC Interest Rate Decision (CAD, GMT 14:00) – At the BoC meeting, consensus expectations are that there should be no interest rate change. A sharper and more broadly based slowdown in the domestic economy, alongside a slowing in the global economy that has been more pronounced and widespread than anticipated saw the Bank state “the outlook continues to warrant a policy interest rate that is below its neutral range.” Thursday – 25 April 2019 Event of the week – Interest Rate Decision (JPY, GMT 02:00) – Among the core central banks, BoJ is firmly poised to be “low for longest”. Hence, once again BoJ is expected to keep the interest rate as it is, given that it appears to have finally had an impact on the Japanese economy. Durable Goods (USD, GMT 12:30) – March durable goods orders are expected to rise 0.2%, following a 1.6% February decline. Shipments expected to fall 1.5% in March, after a 0.2% reading in February. Tokyo CPI and Production Data (JPY, GMT 23:30) – The country’s main leading indicator of inflation is expected to have remained at 1.1% y/y in April. Industrial Production is expected to have improved, growing by 0.6% m/m in March, compared to -1.1% m/m in February, while Retail Sales are expected to have increased by 1.2% y/y, compared to 0.6% in March. Friday – 26 April 2019 US Gross Domestic Product (USD, GMT 12:30) – The economy’s most important figure, Q1 GDP is expected to rise 2.6%, following a 2.2% pace in Q4 and 3.4% growth in Q3. Always trade with strict risk management. Your capital is the single most important aspect of your trading business. Please note that times displayed based on local time zone and are from time of writing this report. Click HERE to access the full HotForex Economic calendar. Want to learn to trade and analyse the markets? Join our webinars and get analysis and trading ideas combined with better understanding on how markets work. Click HERE to register for FREE! Click HERE to READ more Market news. Andria Pichidi Market Analyst HotForex Disclaimer: This material is provided as a general marketing communication for information purposes only and does not constitute an independent investment research. Nothing in this communication contains, or should be considered as containing, an investment advice or an investment recommendation or a solicitation for the purpose of buying or selling of any financial instrument. All information provided is gathered from reputable sources and any information containing an indication of past performance is not a guarantee or reliable indicator of future performance. Users acknowledge that any investment in FX and CFDs products is characterized by a certain degree of uncertainty and that any investment of this nature involves a high level of risk for which the users are solely responsible and liable. We assume no liability for any loss arising from any investment made based on the information provided in this communication. This communication must not be reproduced or further distributed without our prior written permission.
  11. Daily Forex News By XtreamForex

    Technical Overview of USD/CAD, GBP/USD and USD/JPY Currency Pairs USD CAD The USD traded lower against the CAD and closed at 1.335. Consumer Price Index Core is released by the Bank of Canada. “Core” CPI excludes fruits, vegetables, gasoline, fuel oil, natural gas, mortgage interest, intercity transportation, and tobacco products. These volatile core 8 are considered as the key indicator for inflation in Canada. Generally speaking, a high reading anticipates a hawkish attitude by the BoC, and that is said to be positive (or bullish) for the CAD. According to the Analysis, The pair is expected to find support at 1.33294, and a fall through could take it to the next support level of 1.33094. The pair is expected to find its first resistance at 1.33861, and a rise through could take it to the next resistance level of 1.34228. Previous Day range was 56.7 and Current Day Range is 44.2. GBP USD The GBP traded higher against the USD and closed at 1.3043. Mark Carney is Governor of the Bank of England and Chairman of the Monetary Policy Committee, Financial Policy Committee and the Board of the Prudential Regulation Authority. His appointment as Governor was approved by Her Majesty the Queen on 26 November 2012. The Governor joined the Bank on 1 July 2013. The Consumer Price Index released by the National Statistics is a measure of price movements by the comparison between the retail prices of a representative shopping basket of goods and services. The purchase power of GBP is dragged down by inflation. The CPI is a key indicator to measure inflation and changes in purchasing trends. Generally, a high reading is seen as positive (or bullish) for the GBP, while a low reading is seen as negative (or Bearish). The pair is expected to find support at 1.30231, and a fall through could take it to the next support level of 1.30031. The pair is expected to find its first resistance at 1.30812, and a rise through could take it to the next resistance level of 1.31193. GBP USD previous Day range was 58.1 and Current Day Range is 34.7. USD JPY The USD traded lower against JPY and closed at 112.012. James Bullard is the President of the Federal Reserve Bank of St. Louis. Dr. Bullard took office on April 1, 2008, as the twelfth chief executive of the Eighth District Federal Reserve Bank, at St. Louis. He is currently serving a full term that began March 1, 2011. In 2013, he serves as a voting member of the Federal Open Market Committee. According to the analysis, pair is expected to find support at 111.892, and a fall through could take it to the next support level of 111.772. The pair is expected to find its first resistance at 112.087, and a rise through could take it to the next resistance level of 112.162. USD JPY previous day range was 1950 and current day range is 2410.
  12. EROUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.১২৪৮ রেজিস্ট্যান্স লেভেল দিকে ব্রেকের জন্য অপেক্ষা করছে, যেখানে বুলিশ ট্রেন্ড রিভার্সেল করবে এবং বাই পজিশন নেওয়া যাবে। ১.১২৩৫ প্রাইস লেভেল ভেঙ্গে নিচে নামলে বুলিশ ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৩৫, ১.১২১২, ১.১১৮০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৪৮, ১.১২৫৪, ১.১২৬৬ বাই এন্ট্রি : ১.১২৪৮ স্টপ লস : ১.১২৩৫ ট্রেডের সম্ভাবনা : মাঝারি টেক প্রফিট : ১.১২৫৪, ১.১২৬৬ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিটে পৌঁছেছে। আমরা ৫০% ট্রেড ক্লোজ করবো এবং ১.১২৭৭ প্রফিট লেভেলে স্টপ লস নেব। আশা করছি মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিটে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১১৮০, ১.১০৯০, ১.১০০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৭৭, ১.১৩২৩, ১.১৩৫১ সেল এন্ট্রি : ১.১২৭৭ স্টপ লস : ১.১২৬৬ ট্রেডের সম্ভাবনা : মাঝারি টেক প্রফিট : ১.১২৪০, ১.১১৮০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ডাউনট্রেন্ডে শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। আমরা ১.২৯৭৭ সাপোর্ট লেভেলে বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি। ১.৩০০৮ প্রাইস লেভেল ভেঙ্গে নিচে নামলে বিয়ারিশ ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। সে ক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৭৭, ১.২৯৫৮, ১.২৯২৯ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০০৮, ১.৩০২৩, ১.৩০৪৮ সেল এন্ট্রি: ১.২৯৭৭ স্টপ লস : ১.৩০০৮ ট্রেডের সম্ভাবনা : মাঝারি টেক প্রফিট : ১.২৯৫৮, ১.২৯২৯ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.৩০৬৪ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা । সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৫৫, ১.২৮৪৭, ১.২৬৭২ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০৬৪, ১.৩১৩১, ১.৩২৩১ সেল এন্ট্রি :
  13. গত পাঁচ সপ্তাহ ধরে পাউন্ড/ডলার পেয়ারটির প্রাইস কমছে। এ সপ্তাহে চারটি ইভেন্ট রয়েছে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং পাউন্ড/ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের ওয়েজ শতকরা ৩.৫ পার্সেন্ট বেড়েছিল। এটা ২০০৮ সালের জুলাই মাস থেকে সর্বোচ্চ পয়েন্ট। সিপিআই ( CPI ) শতকরা ১.৯ পার্সেন্ট বেড়েছে, এটা তাদের প্রত্যাশিত শতকরা ২.০ পার্সেন্টের উপরে এসেছে। রিটেইলস সেলস শতকরা ১.১ পার্সেন্ট বেড়েছে। এটাও তাদের অনুমান ০.৩% এর উপরে এসেছে। পাউন্ডের সার্বিক দিক পজিটিভ থাকলেও , এ সপ্তাহে পাউন্ডের প্রাইস কমতে পারে। ফেব্রুয়ারী মাসে যুক্তরাষ্ট্রে ভোক্তাদের ব্যয় ( Consumer Spending ) কম হয়েছিল, মার্চ মাসে এটা রিবাউন্ড করেছে। রিটেইলস সেলস শতকরা ১.৬ পার্সেন্ট বেড়েছে, এটা তাদের প্রত্যাশিত শতকরা ০.৯ পার্সেন্টের উপরে রয়েছে। কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ১.২ পার্সেন্ট বেড়েছে। তবে ধারণা করা হয়েছিল শতকরা ০.৭ পার্সেন্ট হবে। বেকারত্বের হার ১ লক্ষ ৯৯ হাজার রয়েছে। এটা ২০১৯ সালের দ্বিতীয় রিলিজ ২ কোটি এর তুলনায় কম রয়েছে। পাউন্ড/ডলারের প্রতিদিনের রেজিস্ট্যান্স এবং সাপোর্ট লাইনগুলো দেওয়া হলো: ১.Public Sector Net Borrowing বুধবার দুপুর ০২: ৩০। ‍ এ সেক্টরটি গত দুই বারের রিপোর্টে বেশ ভাল অবস্থানে ছিল । মার্চ মাসে আরেকটি ভাল রিপোর্ট আশা করা হচ্ছে। এটা আনুমানিক ০.৮ বিলিয়ন পাউন্ড হতে পারে। ২.CBI Industrial Order Expectations বৃহস্পতিবার বিকাল ০৪:০০। যুক্তরাজ্যের এ সেক্টর থেকে বেশ হতাশাজনক ফলাফল এসেছে। এপ্রিল মাসের শুরুর দিকে এ সেক্টর থেকে ৬ পয়েন্ট এসেছিল। এ বারের রিপোর্ট থেকে মাত্র ১ পয়েন্ট এসেছে। যুক্তরাজ্যের মেনুফেকচারিং সেক্টরে ধীরতা বিরাজ করছে। তবে এপ্রিল মাসের রিপোর্টে কিছুটা ভাল ফলাফল আশা করা হচ্ছে এবং আনুমানিক এটা ৩ পয়েন্ট হতে পারে। ৩.High Street Lending শুক্রবার দুপুর ০২:৩০। এ সেক্টর মোটামুটি ভাল অবস্থানে রয়েছে। ফেব্রুয়ারী মাসের রিপোর্টে ৫৩.৩ হাজার এসেছে, এটা তাদের প্রত্যাশার তুলনায় অধিক ছিল। ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে এ ধরণের পয়েন্ট দেখা গিয়েছিল। মার্চ মাসে এ সেক্টরটি আরও ভাল করতে পারে । আনুমানিক এটা ৩৮.৭ হাজার হতে পারে। ৪.CBI Realized Sales শুক্রবার বিকাল ০৪:০০। সিবিআই ( CBI ) রিপোর্ট অনুযায়ী মার্চ মাসে এ সেক্টরটি তেমন ভাল অবস্থানে নেই। মার্চ মাসে এ সেক্টর থেকে ১৮ পয়েন্ট এসেছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, এপ্রিলে এটা নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে পারে। GBP/USD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো: ২০১৮ সালের জুন মাসে ১.৩৪ রাউন্ড নাম্বার একটি গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। জুলাই মাসে ১.৩৩৭৫ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। পরবর্তী লেভেল ছিল ১.৩৩০০। জানুয়ারির শেষের দিকে ১.৩২১৭ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। নভেম্বরের শুরুর দিকে ১.৩১৭০ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। নভেম্বরের মাঝামাঝিতে ১.৩০৭০ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। পেয়ারটি ১.৩০০০ সাপোর্ট লেভেল ব্রেক করেছিল। ( গত সপ্তাহে উল্লেখিত ) ফেব্রুয়ারীর মাঝামাঝিতে ১.২৯১০ একটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ছিল। নভেম্বরের শেষের দিকে ১.২৮৫০ একটি রিভারি লেভেল ছিল। জানুয়ারির প্রথমার্ধে পেয়ারটি ১.২৭২৮ একটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ছিল। বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.২৬১৬। শেষ কথা আমরা ধারণা করছি GBP/USD পেয়ারটি প্রাইস কমতে পারে। গত সপ্তাহে ব্রিটিশ ইভেন্টগুলো বেশ ভাল অবস্থানে ছিল, তবে এটা ডলারের বিপক্ষে যথেস্ট নয়। এছাড়াও ব্রেক্সিট অক্টোবর পর্যন্ত বিলম্তিত করা হয়েছে। এরপরও পার্লামেন্ট এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন পরবর্তীতে কি অবস্থান নিতে পারে, এ বিষয়ে অনিশ্চয়তা থেকে যাচ্ছে।
  14. গত সপ্তাহে ইউরো/ডলার পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা কমেছিল। এ সপ্তাহে পেয়ারটির জন্য তিনটি ইভেন্ট রয়েছে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটিলুক এবং ইউরো/ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। পিএমআই ( PMI ) রিপোর্ট থেকে অবাক করার মতো তেমন কোন পয়েন্ট আসেনি। এছাড়াও মেনুফেকচারিং সেক্টর বেশ দুর্বল অবস্থানে রয়েছে। এগুলোর মধ্যে সার্ভিস সেক্টর কিছুটা ভাল অবস্থানে দেখা যাচ্ছে। মার্চ মাসে জার্মান মেনুফেকচারিং সেক্টর থেকে মাত্র ৪৪.৫ এসেছে, তবে অনুমান করা হয়েছিল ৪৫.২ পয়েন্ট আসতে পারে। সমগ্র ইউরোজোনের মেনুফেকচারিং পিএমআই ( PMI ) ক্রমাগত কমছে, এবার ইউরোজোনের পিএমআই ( PMI ) কমে ৪৭.৮ পয়েন্ট এসেছে। এটা প্রত্যাশিত ৪৮.১ পয়েন্টের কম এসেছে। তবে সার্ভিস সেক্টর ঘরোয়া চাহিদার কারণে মোটামুটি ভাল অবস্থানে রয়েছে। জার্মান সার্ভিস সেক্টর বেড়ে ৫৫.৬ পয়েন্ট এসেছে। এছাড়াও ইউরোজোনের সার্ভিস সেক্টর কিছুটা ভাল অবস্থানে রয়েছে, এ বারের রিপোর্টে ইউরোজোনের সার্ভিস সেক্টর থেকে ৫২.৫ পয়েন্ট এসেছে। তবে জিইডব্লিউ ( ZEW ) ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট সম্পর্কে একটি পজিটিভ ইঙ্গিত দিয়েছে, যেটা বিনিয়োগকারীদের কিছুটা আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে। গত ১২ মাস ধরে ইনডিকেটরটি নেগেটিভ অবস্থার ইঙ্গিত দিয়েছিল, কিন্তু এপ্রিল মাসে পজিটিভ ইঙ্গিত দিয়েছে। ইন্ড্রাস্টীয়াল বিনিয়োগকারী এবং অ্যানালাইসিস্টদের মতে, এটা ৩.১ পয়েন্ট হতে পারে। ইনডিকেটর অনুযায়ী, ইউরোজোনে ৪.৫ পয়েন্ট হতে পারে। এটা মে মাসের পরে প্রথম সর্বোচ্চ পয়েন্ট হতে পারে। ফেব্রুয়ারী মাসে যুক্তরাষ্ট্রে ভোক্তাদের ব্যয় ( Consumer Spending ) কম হয়েছিল, মার্চ মাসে এটা রিবাউন্ড করেছে। রিটেইলস সেলস শতকরা ১.৬ পার্সেন্ট বেড়েছে, এটা তাদের প্রত্যাশিত শতকরা ০.৯ পার্সেন্টের উপরে রয়েছে। কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ১.২ পার্সেন্ট বেড়েছে। তবে ধারণা করা হয়েছিল শতকরা ০.৭ পার্সেন্ট হবে। বেকারত্বের হার ১ লক্ষ ৯৯ হাজার রয়েছে। এটা ২০১৯ সালের দ্বিতীয় রিলিজ ২ কোটি এর তুলনায় কম রয়েছে। ইউরো/ডলারের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো: ১.Consumer Confidence মঙ্গলবার রাত ০৮:০০। জার্মান ইকোনমিতে স্থবির অবস্থা বিরাজ করছে, কনজিউমার কনফিডেন্স তেমন ভাল অবস্থানে নেই। ইনডিকেটরে অনুযায়ী, এ সেক্টর থেকে গত দুইবারের রিপোর্টে ৭ পয়েন্ট এসেছে। আশা করা হচ্ছে, এপ্রিলেও এ রিপোর্ট পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা কম। ২.German Ifo Business Climate বুধবার দুপুর ০২:০০। মার্চ মাসে এ সেক্টরটি প্রত্যাশার তুলনায় বেশ ভাল করেছে। এ সেক্টর থেকে মার্চ মাসে ৯৯.৬ পয়েন্ট এসেছে। আশা করা হচ্ছে, এপ্রিল মাসেও এ সেক্টর আপট্রেন্ড অবস্থায় থাকবে এবং আনুমানিক এটা ৯৯.৯ পয়েন্ট হতে পারে। ৩.Spanish Unemployment Rate বৃহস্পতিবার দুপুর ১২:০০। ই্উরোজোনের চতুর্থ বৃহত্তম ইকোনমিক দেশ স্পেনে বেকারত্বের হার কমেছে। তৃতীয় প্রান্তীকে শতকরা ১৪.৫ পার্সেন্ট কমেছে। এটা ২০০৮ সালের তৃতীয় প্রান্তীকের সর্বনিন্ম লেভেল। তবে আশা করা হচ্ছে, এ বারের রিলিজেও এর কোন পরিবর্তন হবে না। EUR/USD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো অক্টোবরের শুরুর দিকে ১.১৬২০ একটি গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১৫৭০। জানুয়ারির শেষের দিকে ১.১৫১৫ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। ফেব্রুয়ারীর শুরুর দিকে ১.১৪৩৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। জানুয়ারির শুরুর দিকে ইউরো/ডলার পেয়ারটি জন্য ১.১৩৯০ একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস ছিল। পরবর্তী লেভেলটি ছিল ১.১৩৪৫। ১.১২৯০ একটি গুরুত্বপূ্র্ণ প্রাইস ছিল। ( গত সপ্তাহে উল্লেখিত ) ২০১৮ সালে ১.১২৭০ একটি ডাবল বটোম লেভেল ছিল। পরবর্তী লেভেল ছিল ১.১২১৫ এবং ১.১১৯। ২০১৭ সালের মে মাসে একটি ১.১০২৫ গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস ছিল। বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৯৫০। সমাপনী মন্তব্য আমরা ধারণা করছি EUR/USD পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে। ইউরোজোনের ইকোনমির তুলনায় যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমি বেশ শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। ইউরোজোনের ইকোনমি ক্রমাগত স্থবির অবস্থার দিকে যাচ্ছে। এ দিকে ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইন্টরেস্ট রেট অপরিবর্তনীয় রেখেছে। সুতরাং বিনিয়োগকারীরা ডলারকে নিরাপদ কারেন্সি হিসেবে পছন্দ করতে পারেন।
  15. আপনি সাধারন যে কোন একটি ব্যবসা করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাহলে কি করবেন? প্রথমে সেই ব্যবসা সম্পর্কে ধারনা নেবার চেষ্ঠা করবেন। তা ইউটিউব, অনলাইন বিভিন্ন আর্টিকেল, পত্রিকা ইত্যাদি থেকেই মুলত বেশি চেষ্ঠা করবেন। তাই না? কারন এসব অনলাইন মাধ্যম থেকে বিভিন্নজনের মন্তব্যও জানতে পারা যায়, যারা কিনা আগে থেকেই এই ব্যবসা করছে। আপনি অনলাইনেই তাদের স্বচ্ছলতার কথা শুনে পুলকিত হোন, আপনার ভাল লাগে এই ভেবে যে এই ব্যবসা করলে আপনিও এমন স্বচ্ছল অবস্থায় যেতে পারেন। এরপর কি করেন আপনি? অনলাইন থেকে তথ্য ও বিভিন্নজনের মন্তব্য জানার পর থেকেই কি ব্যবসা শুরু করেন? উত্তর হবে না। কারন এতো কিছু জানার পরেও এই ব্যবসায় স্বচ্ছল হওয়া অভিজ্ঞ ঐসব লোকেদের মাঝে যার সঙ্গে আপনার পক্ষে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়, তার কন্ট্যাক্ট নাম্বার নিয়ে হলেও আপনি তার সাথে সরাসরি কথা বলেন, প্রয়োজনে তার বাসায় যান। কেউ কেউ উনাদের সাথে কিছুদিন থাকারও চেষ্ঠা করেন ব্যবসা ভালভাবে বোঝার জন্য। এরপর নিজে নিজে সেই ব্যবসা শুরু করার চেষ্ঠা করেন। আমার উপরের বক্তব্যের সাথে কি আপনি দ্বিমত পোষন করবেন? যদি করেন, তবে এই লেখা আপনার জন্য নয়। আপনি এভোয়েড করতে পারেন আমাকে। আর যদি একমত হোন, বা একমত হবেন কি না বুঝতে পারছেন না, তারাই লেখাটা পড়বেন। লেখাটা পড়ার পরই একটা সিদ্ধান্তে আসতে পারবেন আশা করি। উপরের বিষয় হতে এটা পরিস্কার হওয়া যায় যে, আপনি যাই করেন না কেন, যে কাজই শুরু করতে যান না কেন, নিজে নিজে চেষ্ঠা করলে সেসকল কাজ সম্পর্কে বেসিক একটা আইডিয়া পাওয়া যায় মাত্র। প্রফেশনাল হতে হলে প্রফেশনাল কারও সংস্পর্শে থাকাটা জরুরী। তাহলে আন্তর্জাতিক মুদ্রা লেনদেনের ব্যবসাক্ষেত্র ফরেক্স মার্কেটে ব্যবসা করতে আসলে কেন বয়ান করেন যে, নিজে নিজে চেষ্ঠা করেন তাহলে শিখে যাবেন, নিজে নিজেই ফরেক্স এর সব শিখতে পারবেন, নিয়মিত প্রফিট ভী করতে পারবেন, ইত্যাদি ইত্যাদি!! আপনার জানা মতে এমন কোন প্রফেশনাল ট্রেডার আছে, যারা নিজেরা নিজেরাই শিখে প্রফেশনাল হতে পেরেছে? যারা প্রফেশনাল, খোজ নিয়ে দেখবেন তারা নিশ্চয়ই কোন না কোন মেন্টরের সাপোর্ট নিয়েই কোন না কোন বিষয়ে এক্সপার্ট হয়েছে। তবেই না তারা প্রফেশনাল হতে পেরেছে। এই মেন্টরশিপ হতে পারে অফলাইন বা অনলাইন যে কোনটা। মেডিকেল ভর্তি হয়ে অভিজ্ঞ চিকিতসকের অধীনে থেকে সার্জারি অপারেশন করা না শিখলে শুধু বই পরে কোনদিন আপনি অপারেশন সার্জারি করা শিখতে পারবেন না, এটা কি বিশ্বাস করেন? বই বা আর্টিকেল আপনাকে বেসিক আইডিয়া জানাবে, কিন্ত প্র্যাকটিক্যাল, সাইকোলজিক্যাল? তার জন্য চাই সরাসরি তত্বাবধান। অনেকে আবার ভিডিও টিউওরিয়াল দেখেই সব শিখতে চায়। আমি মানছি ভিডিও টিউটরিয়াল দেখে সরাসরি শেখার মতই জানতে পারেন। কিন্ত শেখার মাঝে কোন প্রশ্ন মনে আসলে তা কিভাবে করবেন আপনি? আর হ্যা, সেই প্রশ্ন না করার কারনে বা প্রশ্নের উত্তর না পাবার কারনে আপনার মনে ভুল তথ্য জমা হয়ে থাকতে পারে, যা আপনাকে লুজার বানাতে যথেষ্ঠ। আশা করি পরিস্কার বুঝতে পারছেন আমার কথা। এবার আসুন সঠিক গাইডলাইনের কথায় আসি, যার মাধ্যমে আপনি ধীরে ধীরে প্রফেশনাল ট্রেডারের পর্যায়ে যেতে থাকবেনঃ ð যে কোন ব্যবসা করতে যান, যে কোন একটা আইটেমের পন্য নিয়েই ত আপনি ব্যবসা শুরু করবেন। তাই না? তাহলে ফরেক্স করতে এসে কেন আপনি একাধারে ২৮ টি পেয়ার নিয়ে আপনার চর্চা শুরু করে দেন? আপনি কি জানেন, একেকটি পেয়ার একেকটা আলাদা আলাদা দেশের অর্থনৈতিক বিষয়কে প্রতিনিধিত্ব করে? আপনি কেবল ফরেক্স ট্রেডিং শিখছেন, সেখানে আপনি এক সাথে ২৮ টি পেয়ার নিয়ে এনালাইসিস করার মত ভুল পরামর্শ কই থেকে পান? যা আপনাকে শুধু লসই করে দিতে পারে? ð যে কোন একটা স্ট্রাটেজী ভালভাবে শিখে নির্দিষ্ট কোন কারেন্সী পেয়ারে তা প্রয়োগ করতে থাকুন ও টানা ৫-৬ মাস তা ফলো করে যান। লাভ হোক বা লস হোক, অন্ধের মত এটা ফলো করবেন আপনি। কয়েকটা ট্রেড লস হলেই ধুম করে সিদ্ধান্ত নেবেন না যে, এটি বোধহয় খারাপ স্ট্রাটেজী, এটা দিয়ে হবে না, এটা চেঞ্জ করে ফেলি!! এমন করতে থাকলে সারা জীবনই শুধু স্ট্রাটেজী চেঞ্জ করতে করতে ও লস করতে করতেই আপনার সময় চলে যাবে! লসগুলো রিকভার করা ও প্রফিট করা আর হয়ে উঠবে না। ð কোন স্ট্রাটেজীর ব্যাক টেস্ট করে যদি দেখতে পান, কোন স্ট্রাটেজী কোন একটি নির্দিষ্ট পেয়ারে ভাল কাজ করছে। তাহলে সেই স্ট্রাটেজী দিয়ে ঐ একটা পেয়ারেই ট্রেড করতে থাকুন। ভুলেও একের অধিক পেয়ারে এপ্লাই করতে যাবেন না। মনে রাখবেন, মাছের ব্যবসার সিস্টেম দিয়ে আলুর ব্যবসা করতে পারবেন না। আবার পিয়াজ রসুনের ব্যবসার সিস্টেম দিয়ে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা করতে পারবেন না। তাহলে কোন যুক্তিতে আপনি একটি ট্রেডিং সিস্টেম দিয়ে একাধিক পেয়ারে ট্রেড করার সাহস পান? আবার নিয়মিত প্রফিটও করতে চান? যেখানে আলাদা আলাদা দেশের মুদ্রা আছে, ভুলে যাবেন না আলাদা আলাদা দেশ মানে আলাদা আলাদা অর্থনৈতিক ব্যবস্থা। যেমন সাধারন ব্যবসায় আলাদা আলাদা পন্য হচ্ছে মাছ, আলু, রসুন ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসাও!! ð তাহলে আপনি কি পেলেন?নির্দিষ্ট একটা পেয়ার বেছে নিলেন, ভাল একটা স্ট্র্যাটেজী হাতে পেলেন। এবার চর্চা শুরু করুন। ৫-৬ মাস ডেমোতে চর্চা করুন। এর সাথে সাপোর্ট রেসিস্ট্যান্স ও ট্রেন্ডলাইন ফলো করতে শিখুন। ভুলেও ট্রেন্ড লাইনের বিপরিতে ট্রেড করতে যাবেন না। আবার সাপোর্ট বা রেসিস্ট্যান্স লেভেলেও উলটো ট্রেড প্লেস করবেন না। এগুলো আপনার ট্রেডিং সিস্টেমকে ইউনিক ও আরও প্রফিটেবল করে তুলবে। ট্রেডলাইন ও সাপোর্ট রেসিস্ট্যান্ট লেভেলগুলো দ্বারা আপনি আপনার লসের সম্ভাবনার ট্রেডগুলোকে ফিল্টারিং করে ফেলতে পারেন। আর আপনার ট্রেডিং লাইফকে করে তুলতে পারেন প্রফিটেবল। <3 ð ভুলেও অন্য পেয়ারে যাবেন না, অন্যের প্রফিট দেখে তার দিকে নজর দিতে যেয়ে নিজের সিস্টেমকে অকেজো মনে করবেন না। নিজের কাজ নিয়ে থাকুন, প্রফেশনাল কোন মেন্টরের তত্বাবধানে থেকে এগুলি ফলো করতে পারলে আপনি আরও বেশি পারফেক্ট হয়ে উঠতে পারবেন সহজেই। আপনার ভুল করার সম্ভাবনা একেবারেই কমে যাবে। কারন সেই মেন্টর আপনার ভুল ধরিয়ে দেবে। এতে আপনার সাইকোলজি পজিটিভ হতে শুরু করবে, নিজের উপর কন্ট্রোল আসতে শুরু করবে। ভুলে যাবেন না, আর্মি বা সেনাবাহিনীর ট্রেনিং এ সবসময়ের জন্য একজন মেন্টর থাকে। যার নাঙ্গা লাঠির বাড়ী খাবার ভয়েই সেনারা ত্রুটি মুক্ত ট্রেনিং করে যেতে পারে। ফলে একেকজন চৌকস প্রতিরক্ষাবাহিনীর সদস্য হয়ে গোটা জীবন রুটিন মাফিক নিজেদের রাষ্ট্রকে রক্ষা করে যেতে পারে চৌকস থেকেই। নিজে নিজে কয়েক জনম চেষ্ঠা করেও সেই ট্রেনিং আপনি নিজের মাঝে নিতে পারবেন না। এটা সম্ভব হয় না। ফরেক্স ট্রেডিংও ঠিক তেমনি। আশা করি বুঝতে কোন অসুবিধা হচ্ছে না কোন প্র্যাকটিক্যাল কিছু ভালভাবে আয়ত্ত করতে হলে মেন্টরের গুরুত্ব কতটুকু। ð এবার ফান্ডামেন্টাল বিষয়ে একটু ধারনা দেই। ট্রেড করার জন্য যে কোন একটা কারেন্সি পেয়ার বেছে নিন। এরপর সেই পেয়ারে থাকা দুই দেশের অনলাইনে যে কয়টা পাওয়া যায়, ইংরেজী ভাষার নিউজ পোর্টাল এর লিংক বুকমার্ক করে রাখুন। এবার সেই অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোর উপরে রেগুলার চোখ বুলাবার দেখার চেষ্ঠা করুন। অর্থনৈতিক পেইজ ভিজিট করার চেষ্ঠা করবেন বেশি। ডেইলি আপডেট জানার চেষ্ঠা করবেন। প্রয়োজনে নোট করে রাখবেন সেগুলো। সেই দেশের কারেন্সির উপরে ফান্ডামেন্টাল একটা বেইজ তৈরি হবে আপনার মাঝে ধীরে ধীরে। যা আপনাকে ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস বুঝতে ও শিখতে সাহায্য করবে। যদিও আরও বিষয় আছে ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস এর ভিতরে। তবে আমি যা বললাম তা আপনাকে একটা ফান্ডামেন্টাল বেইজ তৈরি করে দিতে সাহায্য করবে মাত্র। বাকি বিষয়গুলো আপনি আরও বেশি স্টাডি করলে আরও পরিস্কার হতে পারবেন বা আপনার ফরেক্স গুরু বা মেন্টরদের কাছ থেকে ভালভাবে জানতে পারবেন আশা করি। ð সর্বশেষ বলি, যে প্রফিট করে, সে লাল শাক বিক্রি করেও প্রফিট করে। আর যে প্রফিট করতে পারে না, সে অন্যের মুখে শুনে স্টক মার্কেটে কোটি টাকার শেয়ার কিনেও ফতুর হয়ে যায়। লাখ লাখ রুপি খরচ করে বিশাল ব্যবসা দাড় করিয়েও কয়েক মাসের লসে একেবারে নিঃস্ব হয়ে যায়। সুতরাং ব্যবসাকে মন থেকে ভালবাসতে শিখুন। নিজের সন্তানের মত মনে করুন। দুই একটি ট্রেড ভুল হলেই যে সেই ট্রেডিং সিস্টেম বাদ দিয়ে নতুন সিস্টেম ফল করা শুরু করবেন এমন মেন্টালিটি ত্যাগ করুন। সন্তান দুই একটা ভুল করলে বাবা-মা কিন্ত সন্তানকে বাদ দিয়ে নতুন সন্তান নিয়ে আবার শুরু করতে চায় না। আগের সন্তানকেই বুঝিয়ে শুনিয়ে ভালভাবে বেড়ে তোলার চেষ্ঠা করে। আপনিও তাই করুন না। আপনার ট্রেডিং সিস্টেমকে আদর দিয়ে, আন্তরিকতা দিয়ে ভালভাবে কন্টিনিউ ফলো করার মাধ্যমে ধীরে ধীরে আপনার একাউন্ট ব্যালান্সকে বড় করে তুলুন। তবেই না আপনি নিজেকে সফল ট্রেডার হিসেবে মনে করতে পারবেন। তা নয়তো বৃদ্ধাশ্রমে জায়গা পাওয়া বাবা-মায়ের মত আপনিও দেনার দায়ে, লোনের দায়ে, ফরেক্স মার্কেটে লুজার হয়ে নিজেকে একসময় আত্মবন্দি করে ফেলবেন। আর এমন নিদারুন ভাবেই আপনার মুল্যবান জীবনের করুণ ইতি ঘটতে পারে। নিশ্চয় আপনি তা চান না। আমরা কেউই তা চাই না। সুতরাং ফরেক্স নামের বিশাল সম্ভাবনাময় মার্কেটে যদি নিয়মিত আপনার রিজিক সন্ধান করতেই চান, তবে ভালভাবে ও সঠিকভাবেই শুরু করুণ না। কেন আপনার মুখ দিয়ে এমন কথা বের হবে- “দাদা, আমি ফরেক্স করছি ৩-৪ বছরেরও বেশি সময় ধরে, কিন্ত আজও ভাল ট্রেডিং সিস্টেম পাইনি, আর হাজার হাজার ডলার লস করে ফেলেছি! প্লিজ আমায় একটু সাপোর্ট দিন না!!” পরিশেষে, আপনার সার্বিক দিক দিয়ে সাফল্য কামনা করছি। আর আমার লেখা এখানেই শেষ করছি। সবাই ভাল থাকবেন। সকলের জন্য শুভকামনা রইল।। আমার অন্যান্য লেখাগুলো আমার ফেসবুকে দেখতে পারেনঃ M B FX Facebook Trade with real ECN broker:
  16. Last week
  17. গত সপ্তাহে মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস মোটামুটি বেড়েছিল। এ সপ্তাহের মূল ইভেন্ট হিসেবে থাকবে ব্যাংক অফ কানাডার রেট সিদ্ধান্ত। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে কানাডিয়ান মুদ্রাস্ফীতি ( Inflation ) এবং রিটেইলস সেলস বেশ ভাল অবস্থানে ছিল, তবে পূর্বের সপ্তাহগুলোতে যে লস হয়েছে সেটা তেমনভাবে কাভার করতে পারেনি। সিপিআই ( CPI ) ধীরগতিতে ০.৭ পার্সেন্ট বেড়েছে। রিটেইলস সেলস গত তিনবার খারাপ অবস্থানে থাকার পরে, এ বারে হঠাৎ করে ০.৮ পার্সেন্ট বেড়েছে। কোর রিটেইলস সেলসও মোটামুটি ভাল অবস্থানে রয়েছে, এটা শতকরা ০.৬ পার্সেন্ট বেড়েছে। মার্চ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের রিটেইলস সেলস কিছুটা খারাপ অবস্থানে ছিল,তবে বর্তমানে শতকরা ১.৬ পার্সেন্ট বেড়েছে। এটা তাদের ধারণা ০.৯ পার্সেন্টের উপরে। কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ১.২ পার্সেন্ট বেড়েছে। তবে ধারণা করা হয়েছিল ০.৭ পার্সেন্ট হবে। এটাও ধারণার থেকে বেশি। তবে বেকারত্বের হার ১ কোটি ৯৯ হাজার রয়েছে। এটা ২০১৯ সালের দ্বিতীয় রিলিজ ২ কোটি এর তুলনায় কিছুটা কম। মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো ১.Wholesale Sale মঙ্গলবার বিকাল ০৫:৩০। হোল সেলসের সফলতা এবং ব্যর্থতা নির্ভর করে ক্রেতাদের ব্যয়ের উপর, তবে এটা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধিতে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। তবে এ বারে গত তিন মাসের তুলানায় বেশ ভাল এসেছে। জানুয়ারিতে এ সেক্টরে শতকরা ০.৬ পার্সেন্ট বেড়েছে। ২.Canadian Rate Decision বুধবার রাত ০৮:০০। কনফারেন্স হয় রাত ০৯:১৫। ব্যাংক অফ কানাডা ২০১৮ সালে ইন্টারেস্ট রেট তুলানামুলকভাবে বেশ ভালই বাড়িয়ে ছিলেন,তবে ২০১৯ সালে ব্যাংক Dovish অবস্থানে রয়েছে। গত চার মাসে ব্যাংকের ইন্টারেস্ট রেট ছিল শতকরা ১.৭৫ পার্সেন্ট। ইকোনমিতে স্থবির অবস্থা বিরাজ করার কারণে ব্যাংক অফ কানাডার নীতিনির্ধারকেরা বলেন, এ অবস্থা চলতে থাকলে পরবর্তীতে ইন্টারেস্ট রেট কমানো হতে পারে। এ সপ্তাহে কানাডার ব্যাংক মিটিংয়ে বসবেন, তবে আশা করা হচ্ছে ব্যাংক Dovish অবস্থানে থাকবে। এর ফলে কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস কমতে পারে। USD/CAD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো: আমরা ১.৩৭৫৭ প্রাইস থেকে শুরু করছি, এটা ২০১৭ সালের মে মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। ডিসেম্বরে মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল ১.৩৬৬০। ২০১৭ সালের জুন মাসে পেয়ারটির সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল ১.৩৫৪৭ । পরবর্তীতে ডিসেম্বরের শুরুর দিকে ১.৩৪৪৫ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। পেয়ারটি ১.৩৩৮৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে টেস্টিং করেছিল এবং পেয়ারটি এ লেভেলেই ব্রেক করেছিল। (গত সপ্তাহে উল্লেখিত ) এপ্রিল মাসে ১.৩৩৫০ একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস। নভেম্বরের মাঝামাঝিতে ১.৩২৬৫ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। মার্চের শুরুর দিকে ১.৩২২৫ সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। নভেম্বরের শেষের দিকে ১.৩১৭৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। এ মাসের শুরুর দিকে ১.৩১২৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। নভেম্বরের শুরুর দিকে ১.৩০৪৮ একটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। ১.৩০০০ প্রাইসের সামান্য নিচে ১.২৯৭০ একটি গুরুত্বপূর্ণ রাউন্ড লেভেল ছিল। এ লেভেলটি অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত কাজ করেছিল। অক্টোবরের মাঝামাঝিতে ১.২৯১৫ গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ছিল। বর্তমান লেভেলও এটাই। শেষ কথা আমরা ধারণা করছি USD/CAD পেয়ারটি নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে পারে। কানাডিয়ান ডলার যদিও সাইডওয়ে অবস্থায় থাকে, তবে সেটা বেশিক্ষণ স্থায়ী হবে না। তেলের প্রাইস ক্রমাগত বাড়ছে, যেহেতু কানাডা তেল সরবরাহকারী কয়েকটি প্রধান দেশের মধ্যে অন্যতম, তাই কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এদিকে কিছুটা উদ্বিগ্নতা থেকে যাচ্ছে, কানাডিয়ান ব্যাংক ইন্টারেস্ট রেট কমাতে পারে। যার ফলে কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস আরও কমতে পারে। কানাডিয়ান ইকোনমি তেমন ভালভাবে চলছে না, কারণ যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের বানিজ্য যুদ্ধের প্রভাব কানাডিয়ান রপ্তানি সেক্টরের উপর প্রভাব ফেলেছে।
  18. Tren 100 Half Life Turning into thinking about the artistry is a great way to assist you to overcome your depressive disorders. If you love works of art or sculpture make sure you plan lots of appointments to neighborhood museums. Also if you like songs make sure to visit as many shows and demonstrates as you are able to. Dianabol For Sale Do not automatically redirect end users to a different internet site. Search engines like yahoo check this out being a malicious practice. Although you may seriously would like to hook up customers to a new domain, it can nonetheless appearance as though you are attempting to cheat the search engine. As an alternative, give links for the new information, and motivate targeted traffic to just click to the principle webpage. Anavar And Tren Delay until you visit school before buying your college textbooks. When you start type, you will definately get a syllabus along with the teacher will speak to you about which books you want immediately. You might be able to obtain the reserve with the local library, or perhaps you just might purchase one guide quickly and not should buy other textbooks until afterwards from the semester. That could help you save funds. Sustanon 250 Organon India
  19. খ্রীস্টানদের ধর্মীয় উৎসব স্টারের পূর্বে গত সপ্তাহে মার্কেট কিছুটা শান্ত ছিল,বিশেষ করে এ প্রভাবটি বানিজ্য ক্ষেত্রে পরিলক্ষিত হয়। তবে যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপি ( GDP ) রিলিজ মার্কেটকে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করবে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট ওভারভিউ আলোচনা করা হলো। ১. US Existing Home Sales সোমবার রাত ০৮:০০। ফেব্রুয়ারী মাসে যুক্তরাষ্ট্রে সেকেন্ড হ্যান্ড বাড়ি বিক্রি হয় ৫.৫১ মিলিয়ন। এটা বেশ ভাল রিপোর্ট। বর্তমানে হাউজিং সেক্টর ভাল অবস্থানে রয়েছে। আশা করা হচ্ছে, মার্চ মাসেও মার্কেট আপট্রেন্ডে থাকবে। ২.US New Inflation Data মঙ্গলবার রাত ০৮:০০। এ মাসে যুক্তরাষ্ট্রে নতুন বাড়ি বিক্রি তুলনামূলকভাবে কম হয়েছে। আর এই ফেব্রুয়ারী মাসে নতুন বাড়ি বিক্রি ৬ কোটি ৬৭ হাজার হয়েছে। ৩.Australian Inflation Data বুধবার ভোর ০৭:৩০। রিজার্ভ ব্যাংক অফ অস্টেলিয়া বর্তমানে Dovish অবস্থানে রয়েছে। তবে পরবর্তীতে রেট ডিসিশন ‍যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমিক অবস্থার পরিপেক্ষিতে নেওয়া হবে। ২০১৮ সালের চতুর্থ প্রান্তীকে কনজিউমার প্রাইস ইনডেক্স শতকরা ০.৫ পার্সেন্ট বেড়েছে। কোর সিপিআই শতকরা ০.৪ পার্সেন্ট কমেছে। ৪.German Ifo Business Climate বুধবার দুপুর ০২:০০। জার্মানের বিজনেস ক্লাইমেন্ট তেমন ভাল যাচ্ছে না। তবে জিইডব্লিউ ( ZEW ) রিপোর্ট মোটামুটি ভাল এসেছে। মার্চ মাসে এ সেক্টরের স্কোর ছিল ৯৯.৬ পয়েন্ট। এখন আমরা এপ্রিল মাসের ডাটার অপেক্ষা করছি। ৫.Canadian Rate Decision বুধবার রাত ০৮:০০। ব্যাংক অফ কানাডা থেকে বর্তমানে Dovish অবস্থানের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। ব্যংক অফ কানাডার পরিসংখ্যানে দেখা যায়, তাদের ইকোনমিতে মন্দাভাব বিরাজ করছে। এ পরিস্থিতে মনে হচ্ছে না যে ব্যাংক অফ কানাডা তাদের ইন্টারেস্ট রেট কমাবে। তবে পরবর্তী পলিসি গর্ভনর স্টিফেন পোলজের কনফারেন্সে জানা যাবে। ৬.Japan Rate Decision বৃহস্পতিবার দিনের প্রথমভাগে। কিছু কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতো ব্যাংক অফ জাপানও Dovish অবস্থানে থাকতে পারে। ব্যাংক অফ জাপান তাদের ইন্টারেস্ট রেট শতকরা ০.১০ কমাতে পারে। এটা গত ১০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে নিন্ম লেভেল। ব্যাংক অফ জাপানের গর্ভনর হারুহিকো কুড়োডা কনফারেন্সের মাধ্যেমে ইউরোপিয়ান সেশন এবং রেট ডিসিশনের ব্যাপারে জানিয়ে দিবেন। ৭.US Durable Goods Orders বৃহস্পতিবার বিকাল ০৪:৩০। ফেডারেল রিজার্ভ এবং বিনিয়োগকারীদের পরিসংখ্যানে স্থায়ী পণ্য ( Durable goods ) বেশ ভাল অবস্থানে রয়েছে। মার্চের জন্য এটা বেশ ভাল অবস্থান। এর ফলে আশা করা হচ্ছে, পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপি ( GDP ) রিপোর্টও ভাল আসবে। তবে ফেব্রুয়ারী শতকরা ১.৬ পার্সেন্ট অর্ডার কমেছিল, তবে কোর অর্ডার শতকরা ০.১ পার্সেন্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, পরবর্তীতেও আপট্রেন্ড অব্যাহত থাকতে পারে। ৮.US GDP শুক্রবার বিকাল ০৪:৩০। যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপি (GDP) রিলিজ মার্কেটে বেশ ভাল প্রভাব ফেলে থাকে। ২০১৮ সালের চতুর্থ প্রান্তীকে যুক্তরাষ্ট্রের জিডিপি শতকরা ২.২ পার্সেন্ট বৃদ্ধি পেয়েছিল। ২০১৯ সালের প্রথম কোয়াটারের প্রবৃদ্ধি কিছুটা কম হতে পারে, এর পিছনে সরকারের শার্ট ডাউনকে দায়ী করা হতে পারে। এটা মার্কেটে বেশ গুরুত্ব বহন করবে।
  20. Market Analysis and News.

    Date : 19th April 2019. MACRO EVENTS & NEWS OF 19th April 2019. FX News Today Wall Street was higher overnight, with the Dow up 0.4% and outperforming on the back of strong retail sales data and better earnings from Travelers and American Express. Core European bourses were mixed, with the DAX up nearly 0.6%, the CAC 40 up 0.3%, and the FTSE slightly underwater. Japan released its March national CPI, which as expected remained well below the 2% BoJ’s target. The overall rose to 0.5% y/y from 0.2%, and the core is at 0.8% from the 0.7% y/y. The Japanese inflation supports once again the BoJ’s large-scale easy monetary policy. The US, Canada, the UK and several other European and Asian markets are closed for Good Friday, with Europe remaining shut for Easter Monday. Only Japan is open from the Asia trading centres. Charts of the Day Technician’s Corner EURUSD is still trading below the 1.13 level, retracing nearly 23% of yesterday’s losses. The April low of 1.1184, then the March 7 bottom of 1.1177 will be in the cross hairs in the coming sessions if we face a move below 1.1220. GBPUSD has been stable at the upper 1.29 level, still unable to break through 1.30, fluctuating between the 1.3006 and 1.2960, which are Resistance and Support (PP) level respectively. Indicators are giving negative signals. Main Macro Events Today Housing Data (USD, GMT 12:30) – Both Building Permits and Housing Starts are expected to have increased in March, by 1.299M and 1.230M respectively, up from 1.291M and 1.162M in February. Support and Resistance Always trade with strict risk management. Your capital is the single most important aspect of your trading business. Please note that times displayed based on local time zone and are from time of writing this report. Want to learn to trade and analyse the markets? Join our webinars and get analysis and trading ideas combined with better understanding on how markets work. Andria Pichidi Market Analyst HotForex Disclaimer: This material is provided as a general marketing communication for information purposes only and does not constitute an independent investment research. Nothing in this communication contains, or should be considered as containing, an investment advice or an investment recommendation or a solicitation for the purpose of buying or selling of any financial instrument. All information provided is gathered from reputable sources and any information containing an indication of past performance is not a guarantee or reliable indicator of future performance. Users acknowledge that any investment in FX and CFDs products is characterized by a certain degree of uncertainty and that any investment of this nature involves a high level of risk for which the users are solely responsible and liable. We assume no liability for any loss arising from any investment made based on the information provided in this communication. This communication must not be reproduced or further distributed without our prior written permission.
  21. GBP/USD এর উপর টেকনিক্যাল আনাল্যসিসঃ ১৯ এপ্রিল ২০১৯ টেকনিক্যাল মার্কেট পর্যালোচনা: আমাদের শেষ পর্যন্ত GBP/USD পেয়ারের কিছুটা ওঠানামা হয়েছে। 1.3012 এবং 1.2996 লেভেলে টেকনিক্যাল সাপোর্ট লেভেলের নীচে মার্কেটের পতন হয়েছে। বর্তমানে, মূল্য টেকনিক্যাল সাপোর্ট লেভেল 1.2977 তে রয়েছে এবং অল্প বাউন্স করেছে। এটি প্রদর্শন করছে যে নীচের দিকের গতি ওভারসোল্ড মার্কেট অবস্থায়মোমেন্টাম দুর্বল এবং নেতিবাচক রয়েছে। বেয়ারের পরবর্তী টার্গেট দেখা যাচ্ছে 1.2960 - 1.2930 লেভেলে( প্রধান টেকনিক্যাল সাপোর্ট অঞ্চল)। সাপ্তাহিক পিভট পয়েন্ট: WR3 - 1.3225 WR2 - 1.3177 WR1 - 1.3116 Weekly Pivot - 1.3067 WS1 - 1.3006 WS2 - 1.2961 WS3 - 1.2904 ট্রেডিং পরামর্শ: ডে ট্রেডারদের জন্য এই মার্কেটের সেরা ট্রেডিং কৌশল হলো ওভার সোল্ড/ ওভার ব্রড শর্তাবলী সাপোর্ট-রেসিস্ট্যান্স লেভেল। সুইং ট্রেডারেরা অবশ্যই ধৈর্যশীল থাকবে এবং একটি ব্রেক আউন্টের জন্য অপেক্ষা করবে। প্রধান সাপোর্ট এবং রেসিস্ট্যান্স লেভেল নীচের চ্যাটে অংকন করা হয়েছে। বিভিন্ন পেয়ারের ফরেক্স আনাল্যসিসগুলো পেতে এই লিঙ্কটি ভিজিট করুন
  22. EROUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.১২৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা । সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। পোসার্ট লেভেল : ১.১২৩৩, ১.১১৮৯, ১.১১১৯ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১২৬০, ১.১২৭৭১.১৩০৪ সেল এন্ট্রি : ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১ম টেক প্রফিটে পৌঁছেছে। আমরা ৫০% ট্রেড ক্লোজ করবো এবং ১.১২৭৭ প্রফিট লেভেলে স্টপ লস নেব। আশা করছি মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিটে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১১৮০, ১.১০৯০, ১.১০০০ রেজিন্স লেভেস্ট্যাল : ১.১২৭৭, ১.১৩২৩, ১.১৩৫১ সেল এন্ট্রি : ১.১২৭৭ স্টপ লস : ১.১২৭৭ ট্রেডের সম্ভাবনা : মাঝারি টেক প্রফিট : ১.১২৪০, ১.১১৮০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ১.৩০৫৪ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.২৯৭৫ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৭৫, ১.২৯৬২, ১.২৯৩৯ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০৫৪, ১.৩০৭৭, ১.৩১২৪ সেল এন্ট্রি: টেক প্রফিট : ১.২৯৬২, ১.২৯৩৯ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.৩০৬৪ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা । সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৯৫৫, ১.২৮৪৭, ১.২৬৭২ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.৩০৬৪, ১.৩১৩১, ১.৩২৩১ সেল এন্ট্রি :
  23. যুক্তরাষ্ট্রের রিটেইলস সেলস রিপোর্ট মোটামুটি ভাল এসেছে, যার ফলে ডলারের প্রাইস বেড়েছে। বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির উদ্ধিগ্নতার কারণে ডলার নিরাপধ কারেন্সি হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। ট্রেডাররা বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের মাসিক রিটেইলস সেলস রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে শর্ট টার্ম ট্রেড করতে পারে। পাউন্ড/ডলার পেয়ারটির প্রাইস যুক্তরাষ্ট্রের রিটেইলস সেলস রিপোর্টের কারণে কমেছে। পরবর্তীতে পেয়ারটির ১.৩০ প্রাইসের নিচে নামতে পারে। পেয়ারটির লক্ষ্য মাত্রা ছিল ১.৩১০০ কিন্তু হঠাৎ করে প্রাইস কমতে শুরু করে। যার ফলে আজকে দিনের মতো পেয়ারটি ১.৩১০০ প্রাইসে ওঠার সম্ভাবনা খুবই সংকীর্ন । বর্তমানে পেয়ারটি সেলিং প্রেসারে রয়েছে। পেয়ারটির প্রাইস গত দুই সপ্তাহের নিন্ম লেভেলকে স্পর্শ করেছে। অপর দিকে ডলারের প্রাইস বাড়ছে। আজকে ইউরোজোনের পিএমআই (PMI ) রিপোর্ট বেশ হতাশাজনক এসেছে, যার ফলে বৈশ্বিক ইকোনমিতে উদ্ধিগ্নতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলশ্রুতিতে বিনিয়োগকারীরা পাউন্ডের বিপরীতে ডলারকে নিরাপধ কারেন্সি হিসেবে দেখতে পারেন। এছাড়াও ব্রেক্সিট অনিশ্চয়তা পাউন্ডের প্রাইস কমার প্রতি সহায়তা করছে। আগামী সপ্তাহে ব্রেক্সিট নিয়ে পার্লামেন্ট বসবেন এবং এটা পাউন্ডের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন। যার ফলে পাউন্ডের প্রাইস কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে। আজকে যুক্তরাষ্ট্রের মাসিক রিটেইলস সেলস রিপোর্ট ভাল হওয়ার কারণে ডলার মোটামুটি ভাল অবস্থানে রয়েছে। এটা শর্ট টার্ম ট্রেডারদের জন্য একটি ভাল পয়েন্ট হতে পারে।
  24. পেয়ারটির প্রাইস যদিও কম ছিল, তবে বর্তমানে কিছুটা বেড়ে ০.৭১৫০ প্রাইসের উপরে ট্রেডিং করছে। ধারণা করা হচ্ছে, পেয়ারটির আপট্রেন্ড অবস্থান আরও কিছু সময় থাকতে পারে। এপ্রিলের শুরুর দিকে পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা বেড়েছিল। তবে বর্তমানে পেয়ারটি ০.৭১৫০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। ৫০ এসএমএ ( SMA ) ৪ ঘন্টার চার্ট অনুযায়ী পেয়ারটি ০.৭১৫৫ প্রাইসের কাছাকাছি যেতে পারে। তবে পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল ০.৭১৪০ হতে পারে এবং ০.৭১১৫ ও ৭০৮৫ কে অনুসরণ করা যেতে পারে। এখন আমরা ০.৭১৭৫ ও ০.৭২১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের জন্য অপেক্ষা করছি। চার্টে দুইটি ফান্ডামেন্টাল দিক দেখানো হয়েছে। একটি অস্টেলিয়ান জব রিপোর্ট, যার ফলে অস্ট্রেলিয়ান ডলারের প্রাইস বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মার্চ মাসে অস্ট্রেলিয়ার ইকোনমিতে ২৫ হাজার ৭ শত জব সৃষ্টি হয়েছে, ‍এটা প্রত্যাশার তুলনায় অধিক। অপর দিকে অস্টেলিয়ায় বেকারত্বে হার শতকরা ৫ পার্সেন্ট রয়েছে। আরেকটি ক্যাবলে দেখানো হয়েছে, বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি সম্পর্কে উদ্ধিগ্নতা বৃদ্ধির দিক। ইউরোজোনের অর্থনৈতিক ইঞ্জিন হিসেবে পরিচিত জার্মানের মেনুফেকচারিং সেক্টর বেশ নাজেহাল অবস্থার মধ্যে রয়েছে। এদিকে পিএমআই ( PMI ) রিপোর্ট বেশ হতাশাজনক এসেছে। ইউরোজোনের এই স্থবির অবস্থা অন্য দিকেও পরিলক্ষিত হতে পারে।
  25. USD/JPY রেসিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে, পতনের সম্ভাবনা রয়েছে! USDJPY আমাদের প্রথম রেসিস্ট্যান্স লেভেল 112.12 এর দিকে অগ্রসর হচ্ছে (আনুভূমিক সুইং হাই রেসিস্ট্যান্স, 76.4% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট, 61.8% ফিবোনাচি এক্সটেনশন) যেখানে আমাদের প্রধান সাপোর্ট লেভেল 111.35 তে একটি শক্তিশালী পতন হতে পারে (61.8% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট,আনুভূমিক সুইং লো রেসিস্ট্যান্স, 76.4% ফিবোনাচি রিট্রেসমেন্ট)। স্টচাস্টিক রেসিস্ট্যান্সলেভেলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে যেখানে আমরা মুল্যের সংশ্লিষ্ট পতন দেখতে পাব । CFDs মার্জিন ট্রেডিং এর ক্ষেত্রে অধিক ঝুঁকি থাকে। ক্ষতি প্রাথমিক বিনিয়োগের থেকে অধিক হতে পারে, সেজন্য আপনি ঝুঁকি সম্পর্কে সম্পূর্ণরূপে নিশ্চিত হবেন। *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না। বিভিন্ন পেয়ারের ফরেক্স আনাল্যসিসগুলো পেতে এই লিঙ্কটি ভিজিট করুন
  26. পেয়ারটি পুনরায় ১.১৩২০ থেকে ১৩২০ প্রাইসের কাছাকাছি ব্যর্থ হয়েছে , পেয়ারটি সেল প্রেসারে রয়েছে । এটা ইউরোজোনের সাপ্তাহিক পিএমআই ( PMI ) এর বিপর্যায়ের কারণে হয়েছে। ২০০ ঘন্টার এসএমএ ( SMA ) অনুযায়ী পেয়ারটিকে নেগেটিভ অবস্থানে দেখা যাচ্ছে। পরবর্তী টার্মেও এটা বিয়ারিশ অবস্থান থাকতে পারে। পেয়ারটিকে বিয়ারিশ অবস্থানে দেখা যাচ্ছে, যার ফলে পেয়ারটি ১.১২০০ প্রাইসের কাছাকাছি টেস্টিং করতে পারে। ইউরো/ডলারের এক ঘন্টার চার্ট
  27. যুক্তরাজ্যের খুচরা বিক্রয় প্রকাশের পর পাউন্ড আংশিক বৃদ্ধি পেয়েছে আজ বৃহস্পতিবার ET সময় ভোর ৪:৩০ জাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয় মার্চ মাসের খুচরা বিক্রয় এর ডাটা প্রকাশ করা হয়েছে। এই ডাটা প্রকাশের পরে, পাউন্ড তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী মুদ্রাগুলোর বিপরীতে আংশিক বৃদ্ধি পেয়েছে ET সময় ভোর ৪:৩২ এ পাউন্ড ইয়েনের বিপরীতে 145.67, ফ্রাঙ্কের বিপরীতে 1.3157, ইউরোর বিপরীতে 0.8640 এবং ডলারে বিপরীতে 1.3026 তে ট্রেডিং হয়েছিল ছিল। আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  1. Load more activity

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×