Jump to content

ফোরাম ফিড

This stream auto-updates     

  1. Today
  2. আমার একটি ইনডিকেটর আছে, সেটাকে রোবট বানাতে চাই, কেউ কি সাহায্য করতে পারবেন? [email protected], Breakout signal.ex4
  3. EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেট ১ম টেক প্রফিটে পৌঁছেছে। আমরা ১.১০৩৫ প্রফিট লেভেলে স্টপ লস নেব। আশা করছি, মার্কেট খুব তাড়াতাড়ি ২য় টেক প্রফিটে পৌঁছাবে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১০৩৫,১.১০০০,১.০৯৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১১৫০,১.১1৮০,১.১২২০ বাই এন্ট্রি: ১.১০৩৫ স্টপ লস: ১.১০৩৫ ট্রেডের সম্ভাবনা: সর্বোচ্চ টেক প্রফিট: ১.১০৭৫,১.১১৫০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.১০২০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে।সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১০২০,১.০৯৭০,১.০৮৯০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১১৭০,১.১২২০,১.১৩০০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেটের ১.২২৬০-তে বাই সিগন্যাল এবং ১.২২০০ সাপোর্ট লেভেল দেওয়া হয়েছে। ১.২২০০ প্রাইস ভেঙ্গে নিচে নামলে বুলিশ ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২২০০,১.২১৬০,১.২০৮০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৩৬০,১.২৪৫০,১.২৬০০ বাই এন্ট্রি: ১.২২৬০ স্টপ লস: ১.২২০০ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.২৪৫০,১.২৬০০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেটের ১.২২৬০-তে বাই সিগন্যাল এবং ১.২২০০ সাপোর্ট লেভেল দেওয়া হয়েছে। ১.২২০০ প্রাইস ভেঙ্গে নিচে নামলে বুলিশ ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। সেক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২২০০,১.২১১০,১.১৯৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৩৬০,১.২৪৬০,১.২৬২০ বাই এন্ট্রি: ১.২২৬০ স্টপ লস: ১.২২০০ ট্রেডের সম্ভাবনা: মাঝারি টেক প্রফিট: ১.২৪৬০,১.২৬২০
  4. দ্বিতীয় দিনের মতো আপট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে AUDUSD। পেয়ারটির প্রাইস বাড়ার পিছনে যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের উদ্বিগ্নতা কাজ করছে। ট্রাম্প বক্তব্যকে কেন্দ্র করে পেয়ারটির প্রাইস যে কোন দিকে মোর নিতে পারে। AUDUSD পেয়ারটি বর্তমানে ১.৬৬৪৫ প্রাইসের কাছাকাছি ট্রেডিং করছে। যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে মার্কিন ডলারের প্রাইস কমছে। অপরদিকে অস্টেলিয়ান ডলারের প্রাইস বাড়ছে। ২০০ দিনের SMA অনুযায়ী পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ০.৬৬৭০। পেয়ারটির ঊর্ধ্বমূখী শক্তিশালী হলে পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ৬৭০। অপরদিকে পেয়ারটির প্রাইস কমতে শুরু হলে ০.৬৬১০ সাপোর্ট লেভেলে আসতে পারে। পেয়ারটির পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ০.৬৫৮০।
  5. টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস অনুযায়ী আজ শুক্রবার পেয়ারটি ১.১১ প্রাইস অতিক্রম করতে পারে। ট্রেডারদের নজর থাকবে জার্মান রিটেইল সেলস এবং ইউরোজোন সিপিআই (CPI) রিপোর্টের দিকে। ইউরো/ডলার পেয়ারটি দ্বিতীয় সপ্তাহের মতো আপট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে এবং পেয়ারটি গত এক মাসের সর্বোচ্চ প্রাইস ১.১০৩৮ অতিক্রম করেছে। ১১ মার্চ পেয়ারটিকে বর্তমান অবস্থানে দেখা গিয়েছিলো। আজকের ট্রেডিং সেশনে পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কয়েকটি ইভেন্ট রয়েছে।ইভেন্টগুলোর মধ্যে অন্যতম জার্মান রিটেইল সেলস এবং ফ্রান্স জিডিপি (GDP) রিপোর্ট। এছাড়াও ইউরোজোন সিপিআই (CPI) রিপোর্টের দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে ইউরো/ডলার।মার্চ মাসে জার্মান রিটেইল সেলস ৫.৬% কমেছিল।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলের রিপোর্টে ১২% কমতে পারে। রিপোর্টটি পেয়ারটির ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। দুপুর ০২:০০ দিকে ১ম প্রান্তীকের ফ্রান্স জিডিপি(GDP) রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে,১৯ সালের চতুর্থ প্রান্তীকের মতো ১ম প্রান্তীকে জিডিপি ৪.৭% এ অপরিবর্তনীয় থাকবে।বিকাল ০৩:০০ দিকে ইউরোজোন সিপিআই (CPI) রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে। রিপোর্টটি পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। মে মাসে সিপিআই (CPI) ০.৩% থেকে কমে ০.২% এবং কোর সিপিআই (Core CPI) ০.৯% থেকে কমে ০.৮% আসতে পারে। যা পেয়ারটিকে কিছুটা ডাউনট্রেন্ডে নিয়ে আসতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে বিদ্যমান বানিজ্য উত্তেজনার কারণে মার্কিন ডলারের প্রাইস কমছে। এছাড়াও ইউরোজোনের তুলনায় এ সপ্তাহে মার্কিন ইকোনমিতে স্থবিরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যার ফলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে, উপরে উল্লেখিত ইভেন্টগুলো প্রকাশের সময় পেয়ারটির প্রাইস কমলেও পরবর্তীতে বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো যুক্তরাষ্ট্রে তেমন কোন ইভেন্ট না থাকলেও প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্পের নিউজ কনফারেন্স দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে ইউরো/ডলার। কনফারেন্স রাত ০৮:০০ দিকে অনুষ্ঠিত হবে। পেয়ারটির বর্তমান রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১.১১। পেয়ারটির পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হতে পারে ১.১১৪৫-৬৬।অপরদিকে পেয়ারটি বর্তমান অবস্থান থেকে কমতে শুরু হলে ১.১০৫৪ সাপোর্ট লেভেলে আসতে পারে। পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ১.১০১৫ এবং ১.০৯৫৩।
  6. Yesterday
  7. কোরিয়ার রেট ডিসিশন অল্প আঘাত করলো বৃহস্পতিবার! বৃহস্পতিবার ব্যাংক অফ কোরিয়া তার আর্থিক নীতি নির্ধারনি মিটিং করবে এবং তারপরে সুদের হারের বিষয়ে তার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করবে, যা এশিয়া-প্যাসিফিক সেশনে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য একটি উল্লেখ্যযেগ্য দিন হিসাবে তুলে ধরেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার বেঞ্চমার্ক লোন দেওয়ার হারকে ০.৫ শতাংশ থেকে ০.৫০ শতাংশে ২৫ টি বেসপয়েন্ট পয়েন্ট ছাঁটাই করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিস্তারিত ইকোনমিক নিউজগুলো পেতে ভিজিট করুন: http://bit.ly/IFX_forex_news *মার্কেট এর নিউজ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  8. EUR/USD পেয়ারটির টেকনিক্যাল অ্যনালাইসিস ২৮শে মে, ২০২০) এনালাইসিসটি তৈরী করেছেন ইন্সটা ফরেক্স টিমের এনালিটিক্যাল এক্সপার্ট সেবাস্টিয়ান সেলিগ (Sebastian Seliga) টেকনিক্যাল দৃষ্টিভঙ্গি : EUR/USD পেয়ারটি 1.1010 লেভেল থেকে ব্রেক হয়েছে, যা উপরের রেজিস্টেন্স জোন রেঞ্জ এবং 1.1035 (নিবন্ধটি লেখার সময়) এর লেভেল থেকে একটি নতুন সুইং করো আরো বেড়েছে। তারপরেও বুলিশ চাপ দিচ্ছে এবং বাজারের পরিস্থিতি এখনও তাদের পক্ষে রয়েছে, তাই ক্রমবর্ধমান গতিও রয়েছে। বুলিশ এর জন্য পরবর্তী লক্ষ্য 1.1050 এবং 1.1.074 এর লেভেলে দেখা যায়। অন্যদিকে বিয়ারের পরবর্তী টার্গেটটি 1.0858 এর লেভেলে দেখা যায়, যা ফিবোনাকির রিট্রেসমেন্ট 61% বা পরবর্তী টেকনিক্যাল সাপোর্ট 1.0850। ৩য় সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স লেভেল: 1.1206, ২য় সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স লেভেল: 1.1107, ১ম সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স লেভেল: 1.0997, সাপ্তাহিক পিভট: 1.0901, ১ম সাপ্তাহিক সাপোর্টিং লেভেল: 1.0789, ২য় সাপ্তাহিক সাপোর্টিং লেভেল: 1.0688, ৩য় সাপ্তাহিক সাপোর্টিং লেভেল: 1.0567, ট্রেডিংয়ের পরামর্শ: করোনাভাইরাস মহামারির ভয়ে বিশ্বের বিনিয়োগকারীদের মধ্যে প্রভাব খুব প্রবল এবং এটি সকল আর্থিক মার্কেটগুলোতে দেখা যাচ্ছে। EUR/USD পেয়ারটি মূল ডাউন ট্রেন্ডটি হ্রাস পেয়েছে, তবে যখন করোনাভাইরাস মহামারীকে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে তখন এর বিপরীতটি চিত্র সম্ভব হবে। মূল দীর্ঘমেয়াদী টেকনিক্যাল সাপোর্টটি 1.0336 এর লেভেলে এবং প্রধান দীর্ঘমেয়াদী টেকনিক্যাল রেসিস্টেন্সটি 1.1540 লেভেলে দেখা যায়। কেবলমাত্র যদি এই স্তরের কোনও একটি পজিশনে পরিষ্কারভাবে লঙ্ঘন করা হয় তবে মূল ট্রেন্ডটি (1.1540) বিপরীত বা দেরী হতে পারে (1.0336)। https://forex-images.instaforex.org/userfiles/20200528/analytics5ecf6331e8bbe.jpg[/IMG] ফরেক্স বিশ্লেষন বিস্তারিত দেখুন: https://cutt.ly/qyD4ho7 *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  9. অধিকাংশ প্রধান মুদ্রাগুলোর বিপরীতে নিউজিল্যান্ড ডলারের দাম বেড়েছে বৃহস্পতিবার প্রাক ইউরোপীয় ট্রেডিং সেশনের সময় অন্যান্য প্রধান মুদ্রায়গুলোর বিপরীতে নিউজিল্যান্ড ডলারের দাম শক্তিশালী হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের ডলার, মার্কিন ডলারের বিপরিতে বেড়ে 0.6207 তে এবং ইয়েনের বিপরীতে 66.94 তে দাঁড়িয়েছে যা এদের আগের লো ছিল যথাক্রম 0.6173 এবং 66.53। নিউজিল্যান্ডের ডলার, ইউরো বিপরীতে বৃদ্ধি পেয়ে 1.7830 তে উঠেছে, যা এর আগের লো ছিল 1.7767 । নিউজিল্যান্ড ডলারের, এই ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা প্রসারিত হলে, এর কাছাকাছি রেসিস্টেন্স লেভেল খুজে পাওয়া যাবে, ইউরো এর বিপরীতে 1.70 ডলারের বিপরীতে 0.65, এবং ইয়েনের বিপরীতে 69.00 তে । আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  10. Last week
  11. এখন ক্রিপ্টোকারেন্সি তে ট্রেডিং আরও বেশি লাভজনক! প্রিয় গ্রাহকবৃন্দ, আমরা আপনাকে ইন্সটাফরেক্স ট্রেডিং শর্তাবলীর পরিবর্তনের বিষয়ে অবহিত করতে পেরে আনন্দিত যে এখন ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে কাজ করার সময় আপনাকে আরও বেশি সুবিধা পেতে সহায়তা করবে।*আমরা ট্রেডিং জন্য উপলব্ধ সকল ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোতে সোয়াপ কমিয়ে অর্ধেকে নিয়ে এসেছি, যা আজকের দিনে এই চুক্তিকে মার্কেটের সেরা করে তুলেছে! এখন থেকে বার্ষিক সোয়াপ রেট -১০%, যা প্রতিদিনের হিসাবে ০.০৩% এর চেয়ে কম। এখন থেকে যদি ক্রেডিট লিভারেজিং ব্যবহার করে ক্রিপ্টোকারেন্সি বা সিএফডি শেয়ারে ট্রেড করার হয় তবে শুধুমাত্র তখনি ক্রিপ্টোকারেন্সি এবং সিএফডি শেয়ারগুলোর জন্য সোয়াপ ধার্য নেওয়া হবে। যদি এই ইন্সট্রেমেন্টগুলোর সকল লেনদেন সম্পূর্ণরূপে আপনার অ্যাকাউন্টে সত্যিকারের তহবিল থেকে সরবরাহ করা হয় তবে সোয়াপ এর পরিমাণ হবে শূন্য। আমাদের সাথে ট্রেডিং করার মানে হল ইভেন্টগুলোর প্রাকৃতিক ইতিহাসে অতিরিক্ত উপার্জনের সম্ভাবনা তৈরি করা। * হালনাগাদ শর্তাদি এই টেবিলে উপস্থাপন করা হয়েছে। বিস্তারিতঃ
  12. EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) মার্কেট ১.০৯৪০ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.১০০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.০৯১০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.০৯৪০,১.০৯১০,১.০৮৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১০০০,১.১০২০,১.১০৫০ টেক প্রফিট: ১.১০২০,১.১০৫০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.০৯১০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে।সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.০৯১০,১.০৮৫০,১.০৭৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১০১০,১.১০৯০,১.১২৩০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ১.২২৮০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে বা ১.২৩৬৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হতে পারে। সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২২৮০,১.২২৩০,১.২১৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৩৬৫,১.২৪০০,১.২৪৫০ বাই এন্ট্রি: ১.২৪০০,১.২৪৫০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.২২২০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি নিন্মমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে।সেক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল: ১.২২২০,১.১২৫০,১.২০৩০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল: ১.২৩৮০,১.২৪৮০,১.২৬৩০
  13. এপ্রিল মাসে ধীর গতিতে চীনের শিল্প মুনাফা কমেছে! আজ বুধবার চীনের জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, করোনভাইরাস মহামারী কাটিয়ে উঠার পরে ধীরে ধীরে অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপ পুনরায় শুরু হয়েছে বলে এপ্রিল মাসে চীনের শিল্প মুনাফা অনেক ধীর গতিতে হ্রাস পেয়েছে। এপ্রিল সময়কালে, শিল্প মুনাফা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৭.৪ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে, যা ২০২০ সালের প্রথম তিন মাসে ৩৬.৭ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত উদ্যোগে মুনাফা ৪ percent শতাংশ এবং বেসরকারী সংস্থাগুলির লাভ ১৭.২ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে এপ্রিল। বিস্তারিত ইকোনমিক নিউজগুলো পেতে ভিজিট করুন: http://bit.ly/IFX_forex_news *মার্কেট এর নিউজ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  14. EUR/USD পেয়ারটির টেকনিক্যাল অ্যনালাইসিস ২৭শে মে, ২০২০) এনালাইসিসটি তৈরী করেছেন ইন্সটা ফরেক্স টিমের এনালিটিক্যাল এক্সপার্ট সেবাস্টিয়ান সেলিগ (Sebastian Seliga) টেকনিক্যাল দৃষ্টিভঙ্গি : EUR/USD পেয়ারটির চার্টে একটি হ্যামার ক্যান্ডেলস্টিক প্যাটার্নটি তৈরি হওয়ার পরে 1.0870 এর লেভেলে গেছে, বুল মার্কেট দখল করেছে এবং দামটিকে পরবর্তী টেকনিক্যাল রেজিস্টেন্স এর দিকে 1.0991 তে নিয়ে যাচ্ছে। এই লেভেলটি সাপ্লাই জোন এর নিচের সীমানায় তাই এই জোনে যে কোনও ব্রেক হলেই মার্কেট ঘুরে আরও বেশি বুলিশ হবে। মার্কেটের পরিস্থিতি এখনও তাদের পক্ষেই, তাই ক্রমশ মুভমেন্ট বাড়ছে। অন্যদিকে, রিয়োরের পরবর্তী টার্গেটটি 1.0858 এর লেভেলে দেখা যায়, যা ফিবোনাকির রিট্রেসমেন্ট এর 61% বা পরবর্তী টেকনিক্যাল সাপোর্ট 1.0850 তে রয়েছে। ৩য় সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স লেভেল: 1.1206, ২য় সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স লেভেল: 1.1107, ১ম সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স লেভেল: 1.0997, সাপ্তাহিক পিভট: 1.0901, ১ম সাপ্তাহিক সাপোর্টিং লেভেল: 1.0789, ২য় সাপ্তাহিক সাপোর্টিং লেভেল: 1.0688, ৩য় সাপ্তাহিক সাপোর্টিং লেভেল: 1.0567, ট্রেডিংয়ের পরামর্শ: করোনাভাইরাস মহামারির ভয়ে বিশ্বের বিনিয়োগকারীদের মধ্যে প্রভাব খুব প্রবল এবং এটি সকল আর্থিক মার্কেটগুলোতে দেখা যাচ্ছে। EUR/USD পেয়ারটি মূল ডাউন ট্রেন্ডটি হ্রাস পেয়েছে, তবে যখন করোনাভাইরাস মহামারীকে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে তখন এর বিপরীতটি চিত্র সম্ভব হবে। মূল দীর্ঘমেয়াদী টেকনিক্যাল সাপোর্টটি 1.0336 এর লেভেলে এবং প্রধান দীর্ঘমেয়াদী টেকনিক্যাল রেসিস্টেন্সটি 1.1540 লেভেলে দেখা যায়। কেবলমাত্র যদি এই স্তরের কোনও একটি পজিশনে পরিষ্কারভাবে লঙ্ঘন করা হয় তবে মূল ট্রেন্ডটি (1.1540) বিপরীত বা দেরী হতে পারে (1.0336)। ফরেক্স বিশ্লেষন বিস্তারিত দেখুন: https://cutt.ly/wyDi06r *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  15. GBP/JPY ১ম সাপোর্ট দিকে অগ্রসর হচ্ছে, বাউন্সের সম্ভাবনা রয়েছে! ট্রেডিংয়ের পরামর্শ এন্ট্রি লেভেল: 131.744 এন্ট্রি লেভেল নির্ধারণের কারণ: হরাইজন্টাল পুলব্যাক সাপোর্ট, 61.8% ফিবানচি রিট্রাসমেন্ট, 78.6% ফিবোনাচি এক্সটেনশান টেক প্রফিট: 133.189 টেক প্রফিট লেভেল নির্ধারণের কারণ: হরাইজন্টাল সুইং হাই রেসিস্ট্যান্স, স্টপ লস: 130.744 স্টপ লস লেভেল নির্ধারণের কারণ: হরাইজন্টাল সুইং লো সাপোর্ট *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না। বিভিন্ন পেয়ারের ফরেক্স আনাল্যসিসগুলো পেতে [URL=" http://bit.ly/37CKtwI"]এই লিঙ্কটি[/URL] ভিজিট করুন
  16. অস্ট্রেলিয়ার নির্মাণ কাজ ১ম প্রান্তিকে ১.০% হ্রাস পেয়েছে অস্ট্রেলিয়ায় ২০২০ সালের প্রথম প্রান্তিকে মৌসুমে সমন্বয়কৃত সম্পন্ন নির্মাণকাজের মোট মূল্য ১.০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে – এটি ৪৯.৪৮১ বিলিয়ন অস্ট্রেলিয়ান ডলারে নেমে এসেছে। তিন মাস আগে ১.৫ শতাংশ হ্রাসের পরে এটি ৩.০ শতাংশ হ্রাসের প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে গেছে। বার্ষিক ভিত্তিতে মোট নির্মাণকাজ ছিল ৬.৫ শতাংশ। সম্পন্ন মোট নির্মাণ কাজের মৌসুমী সমন্বিত অনুমানটিও ২০২০ সালের প্রথম প্রান্তিকে ১.০ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ২৮.৯২৪ বিলিয়ন অস্ট্রেলিয়ান ডলারে দাঁড়িয়েছে। আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  17. যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের বানিজ্য উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে EURUSD ১.১০ প্রাইসের কাছাকাছি আসলেও বর্তমানে কমতে শুরু করেছে। ইসিবি(ECB) প্রেসিডেন্ট লেগার্ডের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে পুনরায় বাড়তে পারে ইউরো/ডলারের প্রাইস। যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের বানিজ্য উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে গতকাল পেয়ারটির প্রাইস বেড়ে ১.১০ এর কাছাকাছি এসেছিল। তবে আজ ইউরো/ডলার আপট্রেন্ডে থাকবে কিনা সেটা দেখার বিষয়। বর্তমানে পেয়ারটি ১.০৯৬২ প্রাইসে অবস্থান করছে। পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো আজ তেমন কোন ইভেন্ট না থাকলেও ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের (ECB)প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টার্ন লেগার্ডের কনফারেন্স পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। দুপুর ০১:৩০ দিকে কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হবে। ইউরোজোন কোভিড-১৯ এর দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান লেগার্ড ইউরোজোন অন্তর্ভূক্ত দেশগুলোকে অর্থনীতিক চাকা সচল রাখার জন্য বেশ কিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছিলেন।তবে অধিকাংশ দেশ নির্দেশনাগুলো পালন করতে সক্ষম হয়নি।যার ফলে গত কয়েক মাস পেয়ারটির প্রাইস ডাউনট্রেন্ডে রয়েছে। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়,আজ বুধবার ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন অর্থনীতিক চাকা সচল রাখার জন্য কিছু পদক্ষেপ নিতে পারে। এছাড়াও ইউরোজোন অন্তর্ভূক্ত দেশগুলোর পযটন এলাকাগুলো উন্মুক্ত করার প্রস্তাব আসতে পারে। মার্কিন মেনুফেকচারিং পিএমাই রিপোর্ট পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। এপ্রিলে মেনুফেকচারিং পিএমআই কমে ৫৩ পয়েন্ট এসেছিল।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মে মাসে মেনুফেকচারিং পিএমআই থেকে ৪৭ পয়েন্ট আসতে পারে।এর ফলে মার্কিন ডলারের প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে। আজকের সেশনের শুরুর দিকে পেয়ারটির প্রাইস কমলেও পরবর্তীতে বাড়তে পারে। বর্তমানে পেয়ারটি ১.০৯৬২ প্রাইসে অবস্থান করছে। ২০০ দিনের মুভিং অ্যাভারেজ অনুযায়ী,পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৯ এবং পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ১.০৮৭০। অপরদিকে পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে শুরু হলে ১.১০ প্রাইসে আসতে পারে এবং পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.১০২০।
  18. গত সপ্তাহে GBPUSD পেয়ারটি ক্ষেত্রে সামান্য মুভমেন্ট দেখা গিয়েছিল।এ সপ্তাহে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের ছুটি থাকার কারণে তেমন কোন ইভেন্ট নেই।এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং GBPUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে প্রকাশিত এপ্রিল মাসের ব্রিটিশ বেকারত্ব রকেটের গতিতে বেড়ে ৮৫ মিলিয়নের উপরে এসেছিল। যা প্রত্যাশিত ৬৭ মিলিয়নের উপরে ছিল। এপ্রিলে ওয়েজ(বেতন) ২.৭% থেকে কমে ২.৪% এসেছে। রিটেইল সেলস প্রত্যাশিত ১৫.৮% অতিক্রম করে ১৮.১% কমেছে।মুদ্রাস্ফীতি কমে ০.৮% এসেছে। যা ২০১৬ এর আগস্টের পরবর্তীতে সবথেকে খারাপ রিপোর্ট। মার্চে ব্রিটিশ সিপিআই(CPI) ১.৫% এসেছে। মেনুফেকচারিং পিএমআই প্রত্যাশিত ৩৫.১ থেকে বেড়ে ৪০.৬ পয়েন্ট এসেছে।সার্ভিস পিএমআই ১৩.৪ থেকে বেড়ে ২৭.৪ পয়েন্ট এসেছে। এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের কন্সট্রাকশন সেক্টর নমনীয় ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে বিল্ডিং অনুমোধন ১.৩৫ মিলিয়ন থেকে কমে ১.০৭ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে ০.৯৫ মিলিয়ন বাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু হলেও এপ্রিলে কমে ০.৮৯ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে মেনুফেকচারিং পিএমআই ৪১.৫ পয়েন্ট আসলেও এপ্রিলে কমে ৩৯.৮ পয়েন্ট এসেছে। GBPUSD প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো ১.CBI Realized Sales মঙ্গলবার,বিকাল ০৪:০০। এপ্রিলে সেক্টরটি কমে ৫৫ পয়েন্ট এসেছিল।বর্তমানে আমরা এপ্রিলের রিপোর্টের অপেক্ষা করছি। GBPUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আমরা ১.২৫৩২ রেজিস্ট্যান্স লেভেল থেকে শুরু করছি।পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল ১.২৪২০। পেয়ারটির পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হতে পারে ১.২৩৩০ এবং ১.২২। এপ্রিলের মাঝামাঝিতে ১.২২ রাউন্ড লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.২০৮০।পেয়ারটি পরবর্তীতে ১.১৯৪৪ সাপোর্ট লেভেলের দিকে যেতে পারে।পেয়ারটির সর্বশেষ সাপোর্ট লেভেল ১.১৮। শেষ কথা ফরেক্স বিশেষজ্ঞদের মতে, এ সপ্তাহে পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে। যুক্তরাজ্য এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে বিরোধ এখনও বিদ্যমান রয়েছে।এছাড়াও ব্রিটিশ ইকোনমিও তেমন ভাল যাচ্ছে না। সুতরাং এ সপ্তাহে পেয়ারটির প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে।
  19. গত সপ্তাহে পেয়ারটির প্রাইস বেড়ে ১.০৯-এর উপরে ক্লোজ হয়েছিল।এ সপ্তাহে পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো আটটি ইভেন্ট রয়েছে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং EURUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। জার্মান ZEW ইকোনমিক সেন্টিমেন্ট ২৮.২ থেকে বেড়ে ৫০.০ পয়েন্ট এসেছে।যা প্রত্যাশিত ৩০.০ পয়েন্টকে খুব সহজেই অতিক্রম করেছে। ইউরোজোন সিপিআই(CPI) এবং কোর সিপিআই(Core CPI) ০.৩% ও ০.৯% বেড়েছে।জার্মান এবং ইউরোজোন মেনুফেকচারিং ও সার্ভিস পিএমআই বেড়েছে। জার্মান মেনুফেকচারিং পিএমআই ৩৪.৫ থেকে বেড়ে ৩৬.৮ এবং ইউরোজোন মেনুফেকচারিং পিএমআই ৩৩.৪ থেকে বেড়ে ৩৯.৫ পয়েন্ট এসেছে। সার্ভিস সেক্টর বড় ধরণের পতনের পর কিছুটা ভাল অবস্থানে এসেছে। জার্মান সার্ভিস পিএমআই ১৬.২ থেকে বেড়ে ৩১.৪ এবং ইউরোজোন পিএমআই ১২.০ থেকে বেড়ে ২৮.৭ পয়েন্ট এসেছে। এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের কন্সট্রাকশন সেক্টর নমনীয় ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে বিল্ডিং অনুমোধন ১.৩৫ মিলিয়ন থেকে কমে ১.০৭ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে ০.৯৫ মিলিয়ন বাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু হলেও এপ্রিলে কমে ০.৮৯ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে মেনুফেকচারিং পিএমআই ৪১.৫ পয়েন্ট আসলেও এপ্রিলে কমে ৩৯.৮ পয়েন্ট এসেছে। EURUSD প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো ১.German Final GDP সোমবার,দুপুর ১২:০০। জার্মানকে ইকোরোজোন ইকোনমির মূল চালিকাশক্তি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।তবে কোভিড-১৯ এর কারণে ইকোনমিতে স্থবিরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।১ম প্রান্তীকে জার্মান জিডিপি কমে-২.২% এসেছে।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এবারও একই ধরণের আসতে পারে। ২.German Ifo Business Climate সোমবার,দুপুর ০২:০০। এপ্রিলে বিজনেস ক্লাইমেট ৮৬.১ থেকে কমে ৭৪.৫ পয়েন্ট এসেছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলে ৭৮.৩ পয়েন্ট আসতে পারে। ৩.German Gfk Consumer Climate মঙ্গলবার,দুপুর ১২:০০। মার্চে কনজিউমার ক্লাইমেট -২৩.৪ পয়েন্ট কমেছিল। যদিও অ্যানালাইসিস্টগণ প্রত্যাশা করে ছিলেন ১.৯ পয়েন্ট কমবে। এবারের রিপোর্টে কি আসে সেটা দেখার বিষয়। ৪.German Prelim CPI মঙ্গলবার।এপ্রিলে জার্মান সিপিআই ০.৪% বেড়েছিল।প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মে মাসে ০.১% কমতে পারে। ৫.German Retail Sales শুক্রবার,দুপুর ১২:০০। মার্চে রিটেইল সেলস ৫.৬% কমেছিল। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলে ১০.০% কমতে পারে। ৬.French Preliminary GDP শুক্রবার,দুপুর ১২:৪৫। ১ম প্রান্তীকে ইউরোজোনের দ্বিতীয় বৃহত্তম ইকোনমিক দেশ ফ্রান্সের জিডিপি কমে ৫.৮% এসেছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এবারও একই ধরণের আসতে পারে। ৭.Eurozone Monetary Data শুক্রবার,দুপুর ০২:০০। মার্চে ইউরোজোন মানি সরবরাহ ৫.৫% থেকে বেড়ে ৭.৫% এসেছে।প্রাইভেট লোন বাৎসরিক হিসেব অনুযায়ী ৩.৮% থেকে কমে ৩.৪% এসেছে। বর্তমানে এপ্রিলের ডাটার অপেক্ষা করছি। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এবার মানি সরবরাহ বেড়ে ৭.৮% এবং প্রাইভেট লোন ৩.৫% আসতে পারে। ৮.Eurozone Inflation শুক্রবার,দুপুর ০২:০০। ইউরোজোন ‍মুদ্রাস্ফীতি খারাপ অবস্থানে রয়েছে। এপ্রিরে মুদ্রাস্ফীতি ০.৩% এবং কোর মুদ্রাস্ফীতি ০.৯% এসেছে। এবারের রিপোর্টেও একই ধরণের আসার সম্ভাবনা রয়েছে। EURUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আমরা জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝির ১.১২১৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেল থেকে শুরু করছি।পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল ১.১১১৯।এপ্রিলের শুরু থেকে ১.১০২৫ গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল।পেয়ারটির পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স লেভেল হতে পারে ১.০৯।গত সপ্তাহে পেয়ারটি ১.০৯ প্রাইসের সামান্য উপলে ওপেন হয়েছিল। পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.০৮২৯।১.০৭ সাপোর্ট লেভেল রাউন্ড হিসেবে কাজ করতে পারে। মার্চ মাসের মাঝামাঝিতে পেয়ারটিকে এ অবস্থানে দেখা গিয়েছিল।পেয়ারটি পরবর্তীতে ১.০৬২০ এবং ১.০৬ সাপোর্ট লেভেলের দিকে ধাবিত হতে পারে। শেষ কথা ফরেক্স বিশেষজ্ঞদের মতে, এ সপ্তাহে পেয়ারটি নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে পারে। করোনাভাইরাসের কারণে ইউরোজোন ইকোনমিতে শিথিলতা লক্ষ্য করা গেলেও বর্তমানে কিছুটা উন্নতী হচ্ছে।ইতালি,স্পেনের লকডাউন কিছুটা শিথিল হচ্ছে। যা ইউরোর ক্ষেত্রে পজিটিভ হতে পারে।
  20. গত সপ্তাহে পেয়ারটির প্রাইস বেড়েছিল।পেয়ারটিকে প্রভাবিত করার মতো এ সপ্তাহে তিনটি ইভেন্ট রয়েছে।এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং AUDUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। কোভিড ১৯-এর কারণে অস্টেলিয়ার ইকোনমি যথেষ্ট খারাপ করতে পারে,যার ফলে জিডিপি কমার সম্ভাবনা রয়েছে। এমন পূর্বাভাস দিয়েছেন রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্টেলিয়া ।মার্চে অস্টেলিয়ার রিটেইল সেলস ১৭.৯% কমেছে। মেনুফেকচারিং এবং সার্ভিস পিএমআই থেকে ৪২.৮ এবং ২৫.৫ পয়েন্ট এসেছিল।যা অর্থনীতিক মন্দাকে নির্দেশ করছে। এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের কন্সট্রাকশন সেক্টর নমনীয় ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে বিল্ডিং অনুমোধন ১.৩৫ মিলিয়ন থেকে কমে ১.০৭ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে ০.৯৫ মিলিয়ন বাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু হলেও এপ্রিলে কমে ০.৮৯ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে মেনুফেকচারিং পিএমআই ৪১.৫ পয়েন্ট আসলেও এপ্রিলে কমে ৩৯.৮ পয়েন্ট এসেছে। AUDUSD প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো দেওয়া হলো ১.Construction Work Done বুধবার,সকাল ০৭:৩০। অস্টেলিয়ার কন্সট্রাকশন সেক্টর ক্রমাগত খারাপ করছে। কোভিড-১৯ ডাউনট্রেন্ড আরও শক্তিশালী করেছে।সেক্টরটি গত ছয় মাস ক্রমাগত খারাপ করছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এবারও সেক্টরটি ১.৫% কমতে পারে। ২.Private Capital Expenditure বৃহস্পতিবার,সকাল ০৭:৩০।কোয়াটারলি রিপোর্টগুলোর ভাল মন্দ নির্ভর করা যায় বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের মাত্রা দেখে।এটা সবথেকে ভাল দেখা যায় রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্টেলিয়ার দিকে লক্ষ্য করলে। ৪র্থ প্রান্তীকে প্রাইভেট ক্যাপিটাল কমে ২.৮% এসেছিল।যেখানে অ্যানালাইসিস্টগণ প্রত্যাশা করেছিলেন ০.৫% বাড়বে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, ২০২০ সালের ১ম প্রান্তীকে সেক্টরটি কিছুটা পরিবর্তন হয়ে ২.৭% আসতে পারে। ৩.Private Sector Credit শুক্রবার,সকাল ০৭:৩০।ফেব্রুয়ারিতে প্রাইভেট ক্রেডিট ১.১% বেড়েছে। যেখানে প্রত্যাশা করা হয়েছিল ০.৩% বাড়তে পারে। মার্চ মাসের রিপোর্টেও এ রকম আরেকটি রিবাউন্ড লক্ষ্য করা যেতে পারে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, মার্চে ক্রেডিট ০.৬% বাড়তে পারে। AUDUSD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস ২০১৬ সালের শেষ এবং ১৭ সালের শুরুর দিকে পেয়ারটির জন্য ০.৬৮২৫ গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস ছিল। জানুয়ারিতে ০.৬৭৪৪ গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স ছিল। মার্চের শুরুতে ০.৬৬২৭ রেজিস্ট্যান্স হিসেবে কাজ করে ছিল। পরবর্তী রেজিস্ট্যান্স ছিল ০.৬৫৬০। গত সপ্তাহে পেয়ারটির জন্য ০.৬৩৮০ গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ছিল।পেয়ারটির পরবর্তী সাপোর্ট লেভেলগুলো হতে পারে ০.৬২৪০ এবং ০.৬১৫০। শেষ কথা ফরেক্স বিশেষজ্ঞদের মতে, এ সপ্তাহে AUDUSD পেয়ারটি নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে পারে। মার্কিন ডলাররের বিপরীতে অস্টেলিয়ান ডলার বেশ ভাল করছে।যার ফলে এ সপ্তাহে পেয়ারটি নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকতে পারে।
  21. গত সপ্তাহের শুরুর দিকে USDCAD পেয়ারটির প্রাইস বাড়লেও শেষের দিকে কমে ১.৪০ প্রাইসে ক্লোজ হয়েছিল।এ সপ্তাহে কানাডিয়ান মুদ্রাস্ফীতি(Inflation),জিডিপি(GDP) এবং রিটেইল সেলস রিপোর্ট পেয়ারটিকে প্রভাবিত করতে পারে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং USDCAD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে কানাডিয়ান ইভেন্টগুলো খারাপ আসলেও মার্কিন ডলারের বিপরীতে কানাডিয়ান ডলারের প্রাইস বেড়েছিল।কানাডিয়ান মুদ্রাস্ফীতি দ্বিতীয় মাসের মতো ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে। এপ্রিলে সিপিআই(CPI) কমে ০.৭% এবং কোর সিপিআই (Core CPI) ০.৪% এসেছে। কোর সিপিআই গত চার মাসে প্রথমবারের মতো খারাপ এসেছে। ননফার্ম পেরোলস ২লক্ষ২৬ হাজারের মতো কমেছে।মার্চে রিটেইল সেলস ১০% এবং কোর রিটেইল সেলস ০.৪% কমেছে। এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের কন্সট্রাকশন সেক্টর কিছুটা নমনীয় ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে বিল্ডিং অনুমোধন ১.৩৫ মিলিয়ন থেকে কমে ১.০৭ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে ০.৯৫ মিলিয়ন বাড়ি নির্মাণের কাজ শুরু হলেও এপ্রিলে কমে ০.৮৯ মিলিয়ন এসেছে। মার্চে মেনুফেকচারিং পিএমআই থেকে ৪১.৫ পয়েন্ট আসলেও এপ্রিলে কমে ৩৯.৮ পয়েন্ট এসেছে। USDCAD প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো ১.Current Account বৃহস্পতিবার,সন্ধ্যা ০৬:৩০।গত বছর কানাডিয়ান ট্রেড ব্যালেন্স বেশি ভাগ সময় ঘাটতির মধ্যে থাকলেও মাঝে মধ্যে উদ্বৃত্তি দেখা গিয়েছিল।১৯ সালের ৩য় প্রান্তীকে ট্রেড ব্যালেন্সে ৯.০ বিলিয়ন ঘাটতি থাকলেও ৪র্থ প্রান্তীকে ঘাটতি কমে ৮.৮ বিলিয়ন এসেছে।এবারের রিপোর্টে আপট্রেন্ড দেখতে পারবো কিনা সেটা দেখার বিষয়। ২.GDP শুক্রবার,সন্ধ্যা ০৬:৩০। ফেব্রুয়ারিতে কানাডিয়ান জিডিপি ০.১% থেকে কমে ০.০%- এসেছিল। বর্তমানে মার্চ মাসের রিপোর্টের অপেক্ষা করছি। ৩.Raw Materials Price Index শুক্রবার,সন্ধ্যা ০৬:৩০।মুদ্রাস্ফীতি নির্ধারণে RMPI রিপোর্টটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। মার্চে মেটারিয়াল প্রাইস ১৫.৬% কমেছিল।যার ফলে মুদ্রাস্ফীতিও কমেছিল।প্রত্যাশা করাহচ্ছে এপ্রিলে সেক্টরটি ডাউনট্রেন্ডে থাকতে পারে। USDCAD টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস ২০০০ সালের এপ্রিলে ১.৪৪৮০ গুরুত্বপূর্ণ একটি রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। পরবর্তীতে ১.৪৩১০ রেজিস্ট্যান্স হিসেবে কাজ করেছিল।গত সপ্তাহে ১.৪১৫৯ রেজিস্ট্যান্স হিসেবে কাজ করেছিল।তবে ১.৪০১৯ দুর্বল রেজিস্ট্যান্স হিসেবে কাজ করতে পারে। পেয়ারটির বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.৩৯০০।পেয়ারটির পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হতে পারে মার্চ মাসের মাঝামাঝির প্রাইস ১.৩৭৫৭। এ সপ্তাহে পেয়ারটির সর্বশেষ সাপোর্ট লেভেল হতে পারে ১.৩৬৬১। শেষ কথা গত সপ্তাহে কানাডিয়ান মুদ্রাস্ফীতি এবং এমপ্লোয়মেন্ট রিপোর্ট ‍দুর্বল হওয়ার কারণে পেয়ারটি কিছুটা নমনীয় ছিল। তবে এ সপ্তাহে জিডিপি রিপোর্ট কানাডিয়ান ডলারকে প্রভাবিত করতে পারে।
  22. Earlier
  23. Date : 22nd May 2020.EURUSD – Rejection, Retrace, Sell-Off.EURUSD, H1EURUSD has drifted down to a fresh four-day low at 1.0886, driven lower by a broad haven-bid for Dollars as Hong Kong re-emerges as a flash point in US-China, and West-China, relations. The narrow trade-weighted USDIndex (DXY) rose to a three-day high at 99.62, extending the rebound from the 18-day low seen on Wednesday at 99.01. EURUSD continues to trade in a broad consolidation range near the halfway mark of the volatile range that was seen during the height of the global market panic in March, which was marked by 1.0637 on the downside and 1.1494 on the upside. Expectations are for the pair to lack sustained directional bias for now, though political tensions among Eurozone members, coupled with the dollar’s role as a haven, suggest the risks are to the downside, as demonstrated in the H1 chart. Below we can see that there was a rejection of 1.1000 yesterday (1) and a retrace of the initial fall to the 50-hour moving average (2), followed by the sell-off during the Asian and European sessions today (3).There is little divergence in central bank policy currently, with both the ECB and the Fed pursuing aggressively accommodative policy, with both Europe and the US facing significant economic headwinds from virus-containing lockdown measures. Both are amid the early stages of reopening from lockdowns.Always trade with strict risk management. Your capital is the single most important aspect of your trading business.Please note that times displayed based on local time zone and are from time of writing this report.Click HERE to access the full HotForex Economic calendar.Want to learn to trade and analyse the markets? Join our webinars and get analysis and trading ideas combined with better understanding on how markets work. Click HERE to register for FREE!Click HERE to READ more Market news. Stuart Cowell Head Market Analyst HotForex Disclaimer: This material is provided as a general marketing communication for information purposes only and does not constitute an independent investment research. Nothing in this communication contains, or should be considered as containing, an investment advice or an investment recommendation or a solicitation for the purpose of buying or selling of any financial instrument. All information provided is gathered from reputable sources and any information containing an indication of past performance is not a guarantee or reliable indicator of future performance. Users acknowledge that any investment in FX and CFDs products is characterized by a certain degree of uncertainty and that any investment of this nature involves a high level of risk for which the users are solely responsible and liable. We assume no liability for any loss arising from any investment made based on the information provided in this communication. This communication must not be reproduced or further distributed without our prior written permission.
  24. Date : 21st May 2020.Market Update | 21 May.Wall Street had closed higher yesterday, but risk appetite started to wane in quiet trade during the course of the Asian session. The US Senate passed a bill that could bar some Chinese companies from listing on US exchanges and fresh criticism from U.S. President Trump of China’s leadership added to concerns that we are heading for a new trade war. The minutes of the last Fed meeting also highlighted the risk to not just economic growth, but also financial stability.More precisely, the Holding Foreign Companies Accountable Act requires that Chinese companies show that they are not controlled by a foreign government, reports MarketWatch. Moreover, the firms would have to produce an audit that conforms to the standards of the Public Company Accounting Oversight Board.FOMC minutes had a few points of interest, but none that suggested any changes to the policy stance any time in the foreseeable futures. The minutes of course headlined the economic and human hardships, and worried about potential risks to financial stability. There was the usual run-down on what’s been done in terms of the rate cut and QE. There were a few interesting points of discussion, though the ideas mostly came from the minority on the Committee. The minutes reiterated that while the current stance was seen as “appropriate,” the Committee could “clarify” its forward guidance (which it didn’t really give because of the unprecedented uncertainties). Some participants though they could make guidance more explicit by either adopting an “outcome-based” approach that specified macro outcomes including a certain level of unemployment or and inflation rate. A “date-based” approach could also be used considered and would specify that the target range could be raised after a certain time had elapsed. Several also thought the Fed might also have to further clarify its asset purchase plans, as without which there could be increased uncertainty over time. An ongoing program of Treasury purchases could also be used to “keep long term rates low” — that boarders on yield curve control. And a few suggested the balance sheet could be used to to cap shorter and medium term yields. And of interest, the Open Market Desk surveys showed respondents “attached almost no probability to the FOMC implementing negative policy rates.” Some survey respondents indicated that they expected modifications to the Committee’s forward guidance, but not at the current meeting.Against that background Wall Street had come off its best levels after FOMC and White house reports, though the major indexes are holding gains of better than 1%. Topix and Nikkei are down -0.07% and up 0.06% respectively, the Hang Seng is down -0.05% and the CSI 300 unchanged on the day, while the ASX is down -0.03%.In FX markets , the Dollar has picked up safe haven demand as stock markets flagged in the Asia-Pacific region, and with S&P 500 futures correcting most of the gains seen during Wednesday’s regular session on Wall Street. The narrow trade-weighted USD index rebounded to a high at 99.43, up from the 17-day low seen yesterday at 99.01.The biggest mover out of the main currencies has been AUDUSD, which dropped by nearly 0.5% in printing a low at 0.6549, correcting from yesterday’s 10-week high at 0.6618. Another ratchet higher in the U.S. attacks on China catalysed a risk-off mood in markets, with the White House publishing a 20-page dossier of complaint on China, accusing Beijing of predatory economic policies, military build-up, disinformation, human rights violations. A senior administration official was reported a saying that this does not signal a shift in US policy, and while some may downplay it as part of President Trump’s election strategy, it is clear that the US, and other Western nations, have been growing uneasy about China’s power on the world stage, and are feeling a need to reassert themselves.Given the potential and realized impact on trade, this is fostering a re-emergence of nervousness in markets. In other news, RBA Governor Lowe warned that without a Covid-19 medical breakthrough the economic recovery will be slow. The New Zealand government said it will allow bars to reopen, and that it is considering a four-day work week. On the data front, preliminary PMIs reported from Australia and Japan showed predictably sharp contractions for manufacturing along with and a deeply contracted but slightly improved reading for services. Export data from South Korea and Japan were also weak. New Zealand credit card spending for April fell 41.3% m/m. Andria Pichidi Market Analyst HotForex Disclaimer: This material is provided as a general marketing communication for information purposes only and does not constitute an independent investment research. Nothing in this communication contains, or should be considered as containing, an investment advice or an investment recommendation or a solicitation for the purpose of buying or selling of any financial instrument. All information provided is gathered from reputable sources and any information containing an indication of past performance is not a guarantee or reliable indicator of future performance. Users acknowledge that any investment in FX and CFDs products is characterized by a certain degree of uncertainty and that any investment of this nature involves a high level of risk for which the users are solely responsible and liable. We assume no liability for any loss arising from any investment made based on the information provided in this communication. This communication must not be reproduced or further distributed without our prior written permission.
  25. Are you looking to trade the forex market speedily with one of the best international forex brokers? Then you are in the right place. Trading the forex market just got easier with a dependable forex broker like CWG Markets. CWG Markets is a leading forex broker across the world, providing opportunity and a platform for traders to trade different financial instruments, including crude oil, forex, index, futures, and precious metals. CWG provides best-in-class institutional services across Asia, Africa, Australia, Europe, and other great countries of the world. Plus, they offer extremely low spread, financial security, stable trading environment, as well as a dependable customer support team to walk you through every step of the way. Features of CWG Markets 1. Convenient deposit and withdrawal 2. Instant account opening 3. Up to 500 leverage 4. 100% withdrawable bonus 5. 100% bonus 6. Get started with at least $10 7. Unlimited trading period Why You Should Get On CWG Markets If you're an experienced trader and you're tired of your present broker, you can turn to CWG Markets for a memorable trading experience. In addition to the features above, below are other benefits you will enjoy as a registered user of CWG Markets: => Financial security => Price and execution advantage => Several trading tools and platforms => Deep liquidity => A wide range of trading products => Robust customer service Wondering how to get started? Visit the official website of CWG Markets, complete the account registration form, and submit the form for processing. Once your account is approved, you would be a step away from enjoying speedy trading experience. Happy Trading!
  1. Load more activity
×
×
  • Create New...