Jump to content

ফোরাম ফিড

This stream auto-updates     

  1. Yesterday
  2. গত সপ্তাহে পাউন্ড/ডলার পেয়ারটির প্রাইস কমেছিল। এ সপ্তাহের মূল উভেন্টগুলোর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাজ্যের কনজিউমার মুদ্রাস্ফীতি এবং রিটেইলস সেলস। এছাড়াও প্রত্যাশা করা হচ্ছে, ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বেঞ্জ মার্ক রেট শতকরা ০.৭৫% নির্ধারণ করা হবে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং পাউন্ড/ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে ব্রিটিশ ডাটা তেমন ভাল অবস্থানে ছিল না। এপ্রিল মাসে জিডিপি শতকরা ০.৪% কমেছে, এটা দ্বিতীয়বারের মত কমেছে। এছাড়াও মেনুফেকাচারিং প্রডাকশন শতকরা ৩.৯% কমেছে। এটা ২০০২ সালের লেভেলকে নির্দেশ করছে। চাকরি ডাটা মিশ্র অবস্থানে রয়েছে। বেতন শতকরা ৩.২% থেকে ৩.১% কমেছে। তবে নির্ধারিত লেভেল শতকরা ২.৯% কে অতিক্রম করেছে। যুক্তরাজ্যে ২৩.২ হাজার বেকার রয়েছে, এটা ধারণাকৃত লেভেল ১২.৩ হাজারের উপরে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রাস্ফীতি কিছুটা নমনীয় অবস্থানে রয়েছে। সিপিআই এবং কোর সিপিআই শতকরা ০.১% এসেছে। মে মাসে যুক্তরাষ্ট্রের কনজিউমার ব্যয় ডাটা প্রত্যাশিত লেভেল অনুযায়ী ‍কিছুটা ভাল এসেছে। কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ০.৫% বেড়েছে। রিটেইলস সেলসও শতকরা ০.৫% বেড়েছে। তবে ধারণা করা হয়েছিল ০.৭% আসবে। তবে ফেডারেল রিজার্ভের রেট সিদ্ধান্তের ‍উপর ভিত্তি করে, পরবর্তীতে কনজিউমার মুদ্রাস্ফীতি এবং ব্যয় সেক্টর কিছুটা খারাপ অবস্থানে আসতে পারে। মার্কেট এ বছর দ্বিতীয় বারের মতো রেট কমানোর বার্তার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সিএমআই গ্রুপে জুলাই মাসে ৬২% এবং সেপ্টেম্বর মাসে ৫৫% কমেছে। এর ফলে ডলারের প্রাইস কিছুটা কমতে পারে। পাউন্ড/ডলারের প্রতিদিনের রেজিস্ট্যান্স এবং সাপোর্ট লাইনগুলো দেওয়া হলো: ১.Inflation Data বুধবার দুপুর ০২:৩০। ব্রিটিশ সিপিআই এপ্রিল মাসে শতকরা ২.১% বেড়েছে। গত চার মাসে প্রথমবারের মত ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের মুদ্রাস্ফীতি টার্গেট শতকরা ২% উপরে এসেছে। আশা করা হচ্ছে, মে মাসের রিলিজেও সিপিআই ২.১% আসতে পারে। কোর সিপিআই গত তিন মাস ধারাবাহিকভাবে বাড়ার পর এবার ১.৬% কমেছে। ২.CBI Industrial Order Expectations বুধবার, বিকাল ০৪:০০। মেনুফেকাচারিং সেক্টর মে মাসে কিছুটা কমেছে, এ সেক্টরটি থেকে ১০ পয়েন্ট এসেছে। এ ধরণের পয়েন্ট ২০১৬ সালের অক্টোবরে দেখা গিয়েছিল। ধারণা করা হচ্ছে, জুন মাসে এ সেক্টর থেকে ১১ পয়েন্ট আসতে পারে। ৩.Retail Sales বৃহস্পতিবার, বিকাল ০৪:৩০। এপ্রিল মাসে রিটেইল সেলস সেক্টরটি একই লেভেলে রয়েছে। ( বাড়েনি বা কমেনি) মে মাসে এটা খারাপর আসতে পারে এবং ধারণা করা হচ্ছে, ০.৫% আসতে পারে। ৪.BOE Decision বৃহস্পতিবার, বিকাল ০৫:০০। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড বেঞ্জ মার্ক রেট শতকরা ০.৭৫% নির্ধারণ করবেন এবং এটা ৩য় প্রান্তীকে ৪৩৫ বিলিয়ন পাউন্ড হতে পারে। তবে মনেটারী পলিসি মিটিংয়ে ভোটের মাধ্যমে এটা নির্ধারিত হবে। মিটিংয়ে যদি Dovish সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, তাহলে পাউন্ডের প্রাইস খুব দ্রুত কমতে পারে। ৫.Public Sector Net Borrowing শ্রক্রবার বিকাল ০৪:৩০। যুক্তরাজ্যে এপ্রিল মাসে ৫.০ বিলিয়ন পাউন্ড ঘাটতি হয়েছে, তবে এটা প্রত্যাশিত লেভেল ৫.২ বিলিয়নের কম এসেছে। আশা করা হচ্ছে, মে মাসে ৩.৩ বিলিয়ন পাউন্ড ঘাটতি হবে। পাউন্ড/ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো: আমরা ১.৩০ রাউন্ডি নাম্বার থেকে শুরু করছি। পরবর্তী লেভেল ছিল ১.২৯১০। (গত সপ্তাহের সাথে সম্পর্কিত) নভেম্বরের শেষের দিকে ১.২৮৫০ একটি রিকভারি লেভেল ছিল। জানুয়ারির প্রথমার্ধে ১.২৭২৮ একটি কার্যকারী লেভেল ছিল। ১.২৬৬০ আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ লেভেল। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে ১.২৫৯০ আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ লেভেল ছিল। ২০১৭ সালের প্রথম দিকে ১.২৫ আরেকটি সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল ছিল ১.২৪২০। ২০১৭ সালের মার্চ মাসে ১.২৩৩০ আরেকটি সাপোর্ট লেভেল ছিল। বর্তমান সাপোর্ট লেভেল ১.২২১৪। শেষ কথা আমরা ধারণা করছি পাউন্ড/ডলারের প্রাইস কমতে পারে। জিডিপি এবং মেনুফেকচারিং সেক্টর খারাপ হওয়ার কারণে পাউন্ডের প্রাইস আরও কমতে পারে। এছাড়াও বেক্সিট ডেট লাইনের কারণে পাউন্ডের প্রাইস কমবে বলে আমরা আশা করছি।
  3. অস্টেলিয়ান ডলার/মার্কিন ডলার পেয়ারটির প্রাইস গত সপ্তাহে কিছুটা কমেছিল। এ সপ্তাহে পেয়ারটির জন্য চারটি ইভেন্ট রয়েছে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং অস্টেলিয়ান ডলার/মার্কিন ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। মে মাসে অস্টেলিয়ান ইকোনমিতে ৪২.৩ হাজার জব সৃষ্টি হয়েছে। এটা অস্টেলিয়ান ডলারের প্রাইস বাড়ার ক্ষেত্রে তেমন ভূমিকা রাখবে না। বিনিয়োগকারীরা অস্টেলিয়ান বেকারেত্বের হার নিয়ে সন্তুষ্ট নয়। বেকারত্বের হার প্রত্যাশিত লেভেল ৫.১% থেকে বেড়ে ৫.২% এসেছে। এছাড়াও চীনা ইকোনমিক ডাটা অস্টেলিয়ান ডলারের উপর প্রভাব ফেলবে। চীনা ইন্ডাস্ট্রীয়াল উৎপাদন প্রত্যাশার তুলনায় অধিক কমেছে। এটা ২০০২ সালের লেভেলে এসেছে। মে মাসে এ সেক্টর থেকে ৫.০% এসেছে। এটা প্রত্যাশিত লেভেল ৫.৫% এর থেকে কম এসেছে। মে মাসে চীনা অটো সেলস ১৬.৪% কমেছে। এ তেমন ভাল অবস্থান নয়। এটা গত ১১ বারের মত কমেছে। ওয়েস্টপ্যাক কনজিউমার ইনডিকেটর অনুযায়ী, জুন মাসে অস্টেলিয়ার কনজিউমার রিপোর্ট খারাপ অবস্থানে আসতে পারে। এটা আনুমানিক ০.৬% কমতে পারে। এর ফলে অ্যানালাইসিস্টরা ধারণা করছেন, রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্টেলিয়া ইন্টারেস্ট রেট কমাতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রাস্ফীতি কিছুটা নমনীয় অবস্থানে রয়েছে। সিপিআই এবং কোর সিপিআই শতকরা ০.১% এসেছে। মে মাসে যুক্তরাষ্ট্রের কনজিউমার ব্যয় ডাটা প্রত্যাশিত লেভেল অনুযায়ী ‍কিছুটা ভাল এসেছে। কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ০.৫% বেড়েছে। রিটেইলস সেলসও শতকরা ০.৫% বেড়েছে। তবে ধারণা করা হয়েছিল ০.৭% আসবে। তবে ফেডারেল রিজার্ভের রেট সিদ্ধান্তের ‍উপর ভিত্তি করে, পরবর্তীতে কনজিউমার মুদ্রাস্ফীতি এবং ব্যয় সেক্টর কিছুটা খারাপ অবস্থানে আসতে পারে। মার্কেট এ বছর দ্বিতীয় বারের মতো রেট কমানোর বার্তার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সিএমআই গ্রুপে জুলাই মাসে ৬২% এবং সেপ্টেম্বর মাসে ৫৫% কমেছে। এর ফলে ডলারের প্রাইস কিছুটা কমতে পারে। অস্টেলিয়ান ডলার/মার্কিন ডলারের প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো: ১.RBA Monetary Policy Meeting Minutes মঙ্গলবার ভোর ০৭:৩০। জুন মাসে রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্টেলিয়া মিটিং মিনিটে ইন্টারেস্ট রেট ১.৫০% থেকে কমিয়ে ১.২৫% নিয়ে আসবেন । রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্টেলিয়া গত তিন বছরের মধ্যে এবার ইন্টারেস্ট রেট সবথেকে বেশি কমিয়েছে। এর ফলে অস্টেলিয়ান ডলারের প্রাইস ব্যাপক কমতে পারে। ২.HPI মঙ্গলবার, ভোর ০৭:৩০। গত চার বারের মত হাউজিং সেক্টর এবারও খারাপ অবস্থানে রয়েছে। এটা গত চারবারে ২.৪% কমেছে। এ বারের প্রথম প্রান্তীকেও এ সেক্টরটি বেশ খারাপ অবস্থানে থাকতে পারে। এটা আনুমানিক ২.৫% কমতে পারে। ৩.CB Leading Index মঙ্গলবার, রাত ০৮:৩০। কনফারেন্স বোর্ডের হিসেব অনুযায়ী, মার্চ মাসে এ সেক্টরটিতে শতকরা ০.৩% বেড়েছিল। তবে এপ্রিল মাসে এ সেক্টরটি কেমন হবে, তা এখনও স্পষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না। ৪.MI Leading Index বুধবার, ভোর ০৫:৩০। এপ্রিল মাসে মেলবোর্ন প্রতিষ্ঠানিক উৎপাদন শতকরা ০.১% কমেছে। এটা গত ৪ মাসের মধ্যে সর্বনিন্ম লেভেলে রয়েছে। এখন আমরা এ সপ্তাহের রিলিজের অপেক্ষায় রয়েছি। অস্টেলিয়ান ডলার/মার্কিন ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো: গত সপ্তাহে পেয়ারটির প্রাইস কমেছিল। তাই আমরা সর্বনিন্ম লেভেল থেকে শুরু করছি। সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবরে ০.৭২৪০ একটি আলাদা রেঞ্জ ছিল। এপ্রিলের শুরুর দিকে ০.৭১৬৫ একটি গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। ( গত সপ্তাহের সাথে সম্পর্কিত) সেপ্টেম্বরে ০.৭০৮৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। ২০১৯ সালে ০.৭০২২ একটি সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। এটা জানুয়ারির প্রথম পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। এপ্রিল মাসে ০.৬৯৮৮ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। মে মাসে ০.৬৮৬৪ একটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ছিল। এটা গত সপ্তাহে টেস্ট করেছিল। জানুয়ারিতে ০.৬৭৪৪ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। ২০০০ সালে ০.৬৬৮৬ আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস ছিল। শেষ কথা আমরা ধারণা করছি অস্টেলিয়ান ডলার/কানাডিয়ান ডলার পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে। এ সপ্তাহে চীনা ডাটা বেশ খারাপ অবস্থানে ছিল। যার ফলে অস্টেলিয়ান ডলারের উপর প্রভাব পড়বে এবং ডলারের প্রাইস কমবে। এছাড়াও রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্টেলিয়া ইন্টারেস্ট রেট কমাবে, যার ফলে বিনিয়োগকারীরা অস্টেলিয়ান ডলারের উপর থেকে আস্তা হারাতে পারে।
  4. মার্কিন ডলার/ কানাডিয়ান ডলার পেয়ারটি গত সপ্তাহে রিবাউন্ড করেছিল। এ সপ্তাহে পেয়ারটি কানাডিয়ান মেনুফেকচারিং সেলস রিলিজ, কনজিউমার ব্যয় ( স্পেনডিং) এবং মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে ব্যস্ততার মধ্যে থাকবে। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট আউটলুক এবং মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে পেয়ারটির মূল ফোকাস ছিল, কানাডিয়ান কন্সট্রাকশন নাম্বার। মে মাসে হাউজিং সেক্টর থেকে ২ লক্ষ ২ হাজার এসেছে। এটা এ মাসের শুরুর রিপোর্ট ২ লক্ষ ৩৫ হাজারের তুলানায় কম। বিল্ডিং তৈরির অনুমোধন শতকরা ১৪.৩% বেড়েছে। এটা গত তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ লেভেল। যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রাস্ফীতি কিছুটা নমনীয় অবস্থানে রয়েছে। সিপিআই এবং কোর সিপিআই শতকরা ০.১% এসেছে। মে মাসে যুক্তরাষ্ট্রের কনজিউমার ব্যয় ডাটা প্রত্যাশিত লেভেল অনুযায়ী ‍কিছুটা উন্নতি হয়েছে। কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ০.৫% বেড়েছে। রিটেইলস সেলসও শতকরা ০.৫% বেড়েছে। তবে ধারণা করা হয়েছিল ০.৭% আসবে। তবে ফেডারেল রিজার্ভের রেট সিদ্ধান্তের ‍উপর ভিত্তি করে, পরবর্তীতে কনজিউমার মুদ্রাস্ফীতি এবং ব্যয় সেক্টর কিছুটা খারাপ অবস্থানে আসতে পারে। মার্কেট এ বছর দ্বিতীয় বারের মতো রেট কমানোর বার্তার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সিএমআই গ্রুপে জুলাই মাসে ৬২% এবং সেপ্টেম্বর মাসে ৫৫% কমেছে। এর ফলে ডলারের প্রাইস কমতে পারে। মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের প্রতিদিনের সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লাইনগুলো দেওয়া হলো: ১.Foreign Securities Purchases সোমবার বিকাল ৬:৩০। মার্চ মাসে এ সেক্টরে ১.৪৯ বিলিয়ন কানাডিয়ান ডলার ডলারের মত কমেছে। এটা গত তিন মাসে প্রথমবারের মতো কমেছে। তবে এপ্রিলে আমরা রিবাউন্ড দেখতে পারবো কিনা এটা দেখার বিষয়। ২.Manufacturing Sales মঙ্গলবার, বিকাল ০৬:৩০। মার্চ মাসে মেনুফেকচারিং সেক্টরে ২.১% বেড়েছে। এটা প্রত্যাশিত লেভেল ১.৫% এর উপরে এসেছে। ধারাণা করা হচ্ছে, এপ্রিল মাসে ০.৬% আসতে পারে। ৩.CPI বুধবার বিকাল ০৬:৩০। এপ্রিল মাসে সিপিআই শতকরা ০.৪% কমেছে। যার ফলে মার্কেট বেশ দুর্বল অবস্থানে রয়েছে। আশা করা হচ্ছে, এবারের রিপোর্টেও খারাপ আসতে পারে। ৪.ADP Nonfarm Employment Change বৃহস্পতিবার, বিকাল ০৬:৩০। মার্চ মাসের রিপোর্টে কানাডার জব রিপোর্ট বেশ ভাল অবস্থানে রয়েছে এবং নন ফার্ম পে-রোলস ৬১.৭ হাজার বেড়েছে। মার্কেটে এ ধরণের আরকটি ফলাফল প্রত্যাশা করা হচ্ছে। ৫.Retail Sales Data শুক্রবার, বিকাল ০৬:৩০। মার্চ মাসে রিটেইলস সেলস রিপোর্ট কিছুটা ভাল অবস্থানে রয়েছে। রিটেইলস সেলস শতকরা ১.১% বেড়েছে এবং কোর রিটেইলস সেলস শতকরা ১.৭% বেড়েছে। এটা গত দুই বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ লেভেল । তবে এপ্রিল মাসে কিছুটা দুর্বল আসতে পারে। এটিা আনুমানিক রিটেইলস সেলস ০.৩% এবং কোর রিটেইলস সেলস ০.৬% বাড়তে পারে। মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলারের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস টেকনিক্যাল লাইনগুলো উপর থেকে নিচে দেওয়া হলো: মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলার পেয়ারটি বেশ শুক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে, তাই আমরা সর্বোচ্চ লেভেল থেকে ‍শুরু করছি। ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে ১.৩৯১৫ একটি গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। ২০১৭ সালের মে মাসে ১.৩৭৫৭ আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলার পেয়ারটির জন্য ডিসেম্বরে ১.৩৬৬০ সর্বোচ্চ প্রাইস ছিল। ২০১৭ সালের জুন মাসে ১.৩৫৪৭ একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রাইস ছিল। ১.৩৪৪৫ একটি দুর্বল রেজিস্ট্যান্স লেভেল ছিল। ( গত সপ্তাহের সাথে সম্পর্কিত ) গত সপ্তাহে পেয়ারটি ১.৩৩৮৫ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হয়েছিল এবং ১.৩৩৫০ লেভেলে ক্লোজ হয়েছিল। গত সপ্তাহে পেয়ারটি ১.৩২৬৫ সাপোর্ট লেভেলে আসার পরে প্রাইস বাড়তে শুরু করেছিল। মার্চ মাসের প্রথমদিকে ১.৩২২৫ একটি গুরুত্বপূর্ণ সোপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। নভেম্বরের শেষের দিকে ১.৩১৭৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। এ মাসের শুরুর দিকে ১.৩১২৫ সর্বনিন্ম প্রাইস ছিল। নভেম্বরের শুরুতে ১.৩০৪৮ আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল হিসেবে কাজ করেছিল। শেষ কথা আমরা ধারণা করছি, মার্কিন ডলার/কানাডিয়ান ডলার পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে পারে। মধ্য পাচ্যের বৈশ্বিক উত্তেজনা এবং যুক্তরাষ্টে ও চীনের মধ্যে চলমান বানিজ্য যুদ্ধের কারণে পেয়ারটির ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফলে পেয়ারটির প্রাইস কমতে পারে।
  5. এই গ্রীষ্মের ছুটিতে আপনি $ 8,000 জিতুন! গ্রীষ্মের উত্তাপ ছাড়ানোর সাথে সাথেই ইন্সটাফরেক্স তার গ্রাহকদের $8000 জেতার একটা সুযোগ করে দিয়েছে। এই পরিমাণ ডলার মাসিক চ্যান্সি ডিপোজিট ক্যাম্পেইন এর পুরস্কারের জন্য দেওয়া হয়েছে। এই ক্যাম্পেইনটির পুরস্কারের কোন নির্দিষ্ট সীমা নেই, এটি প্রতি মাসেই আর এক মাস থেকে পরিবর্তন করা হয়। যে কোন ট্রেডারই এটা নিসন্দেহে যে কোন অবস্থান থেকে এটা তাদের অভিজ্ঞতায় জয় করতে পারেন। ক্যাম্পেইনটির নিবন্ধন এতদম সহজ একটি পদ্ধতি : আপনার অ্যকাউন্টে ডলার ডিপোজিট করুন এবং সাথে সাথেই আপনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে এই $8000 জেতার জন্য একজন প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠবেন! জুন মাসের চ্যান্সি ডিপোজিট এর পর্বটি এই মাসের শেষ দিনেই শেষ হয়ে যাবে। আর সেই দিন এলোমেলোভাবে লটারী করে বিজয়ী নির্ধারর করা হবে। বিস্তারিত: https://www.instaforex.com/bd/company_news/12041.html
  6. যদিও বানিজ্য যু্দ্ধ নিয়ে কিছুটা শীতলাতা দেখা যাচ্ছে,তবে এ নিয়ে দুশ্চিন্তা এখনও কাটেনি। এ সপ্তাহে মার্কেটে যে বিষয়গুলো প্রভাব ফেলবে তার মধ্যে রয়েছে ফেডের রেট ডিসিশন। এছাড়াও রয়েছে জাপান এবং যুক্তরাজ্যের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্ত। এখানে এ সপ্তাহের মার্কেট সম্পর্কে আলোচনা করা হলো। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ডাটাগুলো মিশ্র অবস্থানে ছিল,তারপরেও ডলারের প্রাইস কিছুটা বেড়েছিল এবং মার্কেটকে উত্তেজিত রেখেছিল। রিটেইলস সেলস প্রত্যাশিত লেভেল অনুযায়ী এসেছিল, তবে মুদ্রাস্ফীতি ধারণাকৃত লেভেলের নিচে এসেছিল। এদিকে যুক্তরাজ্যের ভোটের প্রথম রাউন্ডে বরিস জনসনের নাম উঠেছে। ওমান উপসাগরে ট্যাঙ্কারদের উপর হামলার পরবর্তীতে তেলের দাম বেড়েছিল। ১.UK Inflation বুধবার, দুপুর ০২:৩০। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বাৎসরিক কনজিউমার প্রাইস ২.১% এসেছে, এটা তাদের টার্গেটকৃত লেভেল ২% এর উপরে এসেছে। কোর সিপিআই ১.৪% এসেছে এবং রিটেইল প্রাইস কিছুটা ঊর্ধ্বমূখী অবস্থান ৩% এসেছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, মে মাসের সিপিআই কিছুটা খারাপ আসতে পারে। তবে কোর সিপিআই ভাল আসবে। ২.Fed Decision বুধবার, রাত ১২:০০। কনফারেন্স হয় ১২:৩০। ফেড ২০১৯ সালে ইন্টারেস্ট রেট বাড়ানোর পরিবর্তে কমাতে চলেছে। এ বছর এখন পর্যন্ত ফেড দু’বার ইন্টারেস্ট রেট কমাতে চলেছে। প্রথমবার কমিয়েছিল জুলাই মাসে এবং এ বার আবারও কমাতে চলেছে। ফেডের চেয়ার‌ম্যান জেরেমি পাওয়েল প্রথম প্রান্তীকের মুদ্রাস্ফীতি নিন্ম অবস্থানে থাকার কারণে ইতিমধ্যে হতাশা প্রকাশ করেছেন। ইন্টারেস্ট রেট বাড়ানোর ক্ষেত্রে তিনি সকলকে ধৈর্যশীল হওয়ার কথা বলেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইকোনমি এখন মোটামুটি ভাল চলছে। তবে সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্রের জব রিপোর্ট এবং বেতন হ্রাস পাওয়ার ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে ভাবিয়ে তুলছে। ইন্টারেস্ট রেট কমানোর কারণগুলোর মধ্যে এটা অন্যতম। ফেড তাদের প্রজেক্টের মুদ্রাস্ফীতি, প্রবৃদ্ধি, চাকরি এবং অন্যান্য বিষয় গুলো রিলিজ করেছেন, এ অনুযায়ী ইন্টারেস্ট রেট নির্ধারন করেছেন। এ বছর ফেড দুইবার ইন্টারেস্ট রেট কমাতে চলেছে। এ বার ইন্টারেস্ট রেট কমানো না হলে ডলারের দাম বৃদ্ধি পেত এবং স্টক মার্কেট ক্ষতিগ্রস্ত হত। ফেডের এ সিদ্ধান্ত ডলারের উপর প্রভাব ফেলবে। ৩.New Zealand GDP বুধবার, রাত ০২:০০। দ্বীপ রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত নিউজিল্যান্ডে প্রবৃদ্ধি ২০১৮ সালে শেষ প্রান্তীকে শতকরা ০.৬% বেড়েছিল। তবে ২০১৯ সালে শীথিলতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। বানিজ্য যুদ্ধের প্রভাব এবং ব্যবসায়িক মন্দাভাব নিউজিল্যান্ডের ইকোনমিতে আঘাত করতে পারে। ৪.Japanese Rate Decision বৃহস্পতিবার। ব্যাংক অব জাপান ইতিমধ্যে বন্ড হ্রাস পাওয়ার কারণে, নেতিবাচক ইন্টারেস্ট রেট বজায় রেখে উন্নত বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্র আর্থিক নীতি প্রণয়ন করেছে। তবে ব্যাংক অব জাপানের প্রত্যাশিত মুদ্রাস্ফীতি শতকরা ২% এসেছে। সুতরাং ব্যাংক অব জাপান ইন্টারেস্ট রেট কমাতে পারে। ৫.UK Retail Sales বৃহস্পতিবার, বিকাল ০৫:০০। যুক্তরাজ্যের রিটেইলস ডাটা এপ্রিল মাসেও সমান লেভেলে (বাড়েনি এবং কমেনি ) রয়েছিল। তবে মে মাসে এ সেক্টর থেকে শতকরা ০.৫% কমেছে। যদিও মার্চ মাসের রিপোর্টে কিছুটা বেড়েছিল। রিটেইলস রিপোর্ট খারাপ হওয়ার পিছনে বেক্সিট উত্তেজনাকে দায়ী করা হয়। এ সেক্টরে ওঠানামা এটা সাধারণ ঘটনা। ৬.BOE Decision বৃহস্পতিবার, দুপুর ০২:০০। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড ইন্টারেস্ট রেট বাড়াতে পারেন। যুক্তরাজ্যে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন কেন্দ্রীক কিছুটা রাজনৈতিক অস্থিরতার ছলছে। তবে প্রথম রাউন্ডের ভোটে বরিস জনসোন এগিয়ে রয়েছে। ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড ইন্টারেস্ট রেট বাড়াতে পারে। ৭.Euro-Zone PMIs শুক্রবার দুপুর ফ্রান্স ০১:১৫, জার্মান ০১:৩০ এবং ইউরোজোন ০২:০০। ইউরোজোনের ভবিষ্যত প্রবৃদ্ধি নিয়ে অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে। এর পিছনে অধিক ভাবিয়ে তুলছে জার্মান মেনুফেকচারিং সেক্টর, বেশ কয়েক মাস ধরে এটা ৫০ পয়েন্টের নিচে রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, এবারও এটা ৪৪.৩ থেকে ৪৪.৬ পয়েন্টে উন্নীত হতে পারে। ফ্রান্স পরিসংখ্যান ভাল অবস্থানে রয়েছে, এটা ৫০ পয়েন্টের উপরে রয়েছে। এটা জুন মাসের পয়েন্টকে ধরে রেখেছে।
  7. Last week
  8. সেল ১০০$ দাম : ৯২ টাকা ঠিকানা - নরসিংদী , মনোহরদী । ফোন : ০১৭২৭ ২৮০০৩৮
  9. EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট (১ঘন্টার) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন) পেয়ারটি ১.১২৯০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে । সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ন্মিমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৫০, ১.১২৩০, ১.১২০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৩৯০, ১.১৩১০, ১.১৩৪০ সেল এন্ট্রি : ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১.১২৫০ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.১৩৫০ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.১২০০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৫০,১.১২০০, ১.১১১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৩৫০, ১.১৩৯০, ১.১৪৭০ বাই এন্ট্রি : GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ১.২৭০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে । সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ন্মিমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৬৫০, ১.২৬০০, ১.২৫২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৭০০, ১.২৭২০, ১.২৭৬০ সেল এন্ট্রি: ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেটে অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে। তাই মার্কেট শান্ত হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা ভাল হবে। ট্রেন্ডের ধরণ : অপেক্ষমান। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৬৫০, ১.২৬০০, ১.২৫২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৭৬০, ১.২৮৩০, ১.২৯৩০
  10. টেকনিক্যাল আনাল্যসিসঃ USD/JPY এর জন্য ইনট্রাডে লেভেল, ১৪ জুন ২০১৯ এশিয়ায়, জাপান আজ সংশোধিত শিল্প উৎপাদন m/m এর অর্থনৈতিক ডাটা প্রকাশ করবে। অন্যদিকে আমেরিকা আজ কিছু অর্থনৈতিক তথ্য প্রকাশ করবে যেমন, প্রারম্ভিক UoM মুদ্রাস্ফীতি প্রত্যাশা, ব্যবসা উদ্ভাবন m/m, প্রারম্ভিক UoM ভোক্তা অনুভূতি, শিল্প উত্পাদন m/m, ক্ষমতার ব্যবহার হার, খুচরো বিক্রয় m/m, এবং কোর খুচরো বিক্রয় m/m। সুতরাং, প্রতিবেদনগুলো থেকে দেখা যায়, আজ USD/JPY এর ভোলাটিলিটি নিম্ম থেকে মধ্যম মানের হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আজকের দিনের টেকনিক্যাল লেভেলঃ রেসিস্ট্যান্স. 3: 108.91 রেসিস্ট্যান্স. 2: 108.70 রেসিস্ট্যান্স.1: 108.48 সাপোর্ট.1: 108.22 সাপোর্ট. 2: 108.00 সাপোর্ট. 3: 107.79 সতর্কতাঃ ফরেক্স ট্রেডিং (বৈদেশিক বিনিময়) এর ক্ষেত্রে মার্জিন উচ্চ ঝুঁকি বহন করে এবং সকল বিনিয়োগের জন্য উপযুক্ত নাও হতে পারে। অধিক লিভারেজ আপনার জন্য অধিক ঝুঁকি বহন করবে আবার অধিক লাভের উৎস হিসাবেও কাজ করবে। ফরেক্সে লেনদেন করার পূর্বে আপনি অবশ্যই আপনার বিনিয়োগের লক্ষ্য, অভিজ্ঞতার স্তর এবং ঝুঁকির প্রবন নির্ধারণ করবেন। এর ফলে লোকসান এবং প্রাথমিক বিনিয়োগ হারানোর সম্ভাবনা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন এবং এমন জায়গায় বিনিয়োগ করবেন না যেখানে সম্পূর্ণ মূলধন হারানোর সম্ভাবনা রয়েছে। আপনি বিনিয়োগ সম্পর্কিত সকল ঝুঁকি সম্পর্কে সচেতন থাকবেন এবং আপনার যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে একজন অর্থ বিষয়ক পরামর্শকের কাছে পরামর্শ চাইতে দ্বিধা করবেন না। ফরেক্স বিশ্লেষকঃ Arief Makmur, *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না। বিভিন্ন পেয়ারের ফরেক্স আনাল্যসিসগুলো পেতে এই লিঙ্কটি ভিজিট করুন
  11. জার্মানির পাইকারি মূল্যস্ফীতি মে মাসে ধীর গতিতে এপ্রিল মাসে ত্বরান্বিত হওয়ার পর মে মাসে জার্মানির পাইকারি মূল্যস্ফীতির গতি কমেছে, ডেসটিসিসের পরিসংখ্যান শুক্রবার এই তথ জানিয়েছে। পাইকারি মূল্য মে মাসে মে মাসে ১.৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা এপ্রিলের ২.১ শতাংশের চেয়েও কম। বার্ষিক বৃদ্ধি মূলত খনিজ তেল পণ্যের দাম দ্বারা চালিত হয়, যা ৫.২ শতাংশ বেড়েছে। ফল, সবজি ও আলুর দাম ৫.৩ শতাংশ এবং খাদ্যশস্য, কাঁচা তামাক ও পশু খাদ্যের দাম ৭.২ শতাংশ বেড়েছে। একই সময়ে, পাইকারী মূল্যের মাসিক বৃদ্ধি ০.৬ শতাংশ থেকে ০.৩ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  12. Market Analysis and News.

    Date : 14th June 2019. MACRO EVENTS & NEWS OF 14th June 2019. FX News Today Tense geopolitical events in the Mid East injected some risk in the market, providing a boost to bonds after reports surfaced overnight that two oil tanker were damaged off the coast of Iran. Stock markets traded mixed in Asia with Hong Kong and China bourses under-performing. Australian yields marked new record lows amid concern that geopolitical trade tensions will hit global growth and prompt central banks to step up easing measures. The FTSE 100 future is posting fractional gains as Brexit supporter Boris Johnson emerges as the clear favorite to win the leadership contest in the conservative party and succeed Teresa May. Investors await data releases that are expected to show ongoing weakness in the economy. The WTI future is at USD 52.16 per barrel after yesterday’s attacks. Charts of the Day Technician’s Corner EURUSD headed to 1-week lows of 1.1269 at mid-morning, and it is now traded higher at 1.1277 area. Trade this week has been centered on the 1.1300 mark, and further consolidation is expected ahead of next week’s FOMC policy announcement. There is not much of a chance for a rate move next week, but the FOMC is expected to make an important change in its statement, removing the word “patient” and likely replacing it with language similar to Powell’s comment from June 4 where he said the Fed will be “closely monitoring the implications of these developments” on trade and other matters. Until then, EURUSD can be expected to remain between its 50-day moving average at 1.1219, and its 200-day moving average at 1.1363. USDJPY has been rangebound,topping at 108.53 before later ebbing back to 108.23 lows. Treasury yields however, continue under pressure following benign CPI on Wednesday, and soft import prices early on Thursday, putting some pressure on the Dollar. As a result, USDJPY has been nearly static. Further consolidation is expected into next Week’s Fed policy announcement. Main Macro Events Today Retail Sales and Industrial Production (USD, GMT 12:30) – Retail Sales are expected to have grown by 0.6% for May and 0.3% for ex-auto sales, following a -0.2% figure for the April headline and a 0.1% increase in ex-autos. Industrial production is projected at 0.6% in May, after a -0.5% reading in April. Michigan Consumer Sentiment Index (USD, GMT 14:00) – The preliminary result of the Sentiment Index is expected to show a return to April’s number below 100, and more specifically to 98. Support and Resistance levels Always trade with strict risk management. Your capital is the single most important aspect of your trading business. Please note that times displayed based on local time zone and are from time of writing this report. Want to learn to trade and analyse the markets? Join our webinars and get analysis and trading ideas combined with better understanding on how markets work. Andria Pichidi Market Analyst HotForex Disclaimer: This material is provided as a general marketing communication for information purposes only and does not constitute an independent investment research. Nothing in this communication contains, or should be considered as containing, an investment advice or an investment recommendation or a solicitation for the purpose of buying or selling of any financial instrument. All information provided is gathered from reputable sources and any information containing an indication of past performance is not a guarantee or reliable indicator of future performance. Users acknowledge that any investment in FX and CFDs products is characterized by a certain degree of uncertainty and that any investment of this nature involves a high level of risk for which the users are solely responsible and liable. We assume no liability for any loss arising from any investment made based on the information provided in this communication. This communication must not be reproduced or further distributed without our prior written permission.
  13. Bullseye Markets partnership program offer clients a unique package of assets that habitat them with an important benefit on the Forex trading partnership part. Lets become a part of BullsEye Markets earn extra money and fulfill your dreams. We introduced many type of partnership programs for our clients as written below. Affiliates:- BullsEye Markets Affiliates is a program that offers you extended support and marketing tools for the clients whom are reffered to BullsEye Markets by you. We at Bullseye with all necessary tools helps you to achieve your desired revenue form this. BullsEye Affiliate provides you high commission with best designed trading structure and products that will fulfill your and your clients needs also. This program does not need any type of administrative knowledge. Our easy-to-access website is there to help your clients with any breaker at any time. https://bullseyemarkets.com/Affiliates. Introducing Broker:- IB means Intoducing Broker who introduce the company to the others traders. Bullseye Markets Forex Introducing Broker Program is an opportunity for both individuals and companies to earn a commission for introducing clients to Bullseye Markets with there references. You can earn up to 15$ commission per lot generated by your referred clients. Ib commission is daily payout by BullsEye Markets. So without wasting any time let’s become an Introducing Broker of BullsEye Markets. https://bullseyemarkets.com/IntroducingBroker Regional Representative:- Become a Regional Representative of BullsEye Markets. A unique opportunity for all interested traders to open BullsEye Markets office in their city and Run BullsEye Markets regional office and earn a stable income. Earn standard affiliate remuneration is up to $15 from each referral trade and 10% on the income of sub-affiliates, and additional payments also and the amount of which is discussed individually with the partner. How it works • Apply for participation in the program. • Register partnership with BullsEye Markets. • Promote BullsEye Markets services in your region. • Get the agent's remuneration. https://bullseyemarkets.com/ProgramsRegional BullsEye Markets White Label Program:- It means Establish your brand in the Forex Brokerage Investment market with BullsEye Markets LTD. BullsEye Markets provides institutions of all types the best chance to truly establish themselves in the world of investment. By taking up this opportunity means you will be provided with an individual platform by us and complete with your own brand or company logo. For more information about our IB Programs, please do not hesitate to contact us via email at Support@BullseyeMarkets.com https://bullseyemarkets.com/ProgramsWhitelabel
  14. XtreamForex Introducing Broker

    How to Limit your Risk while Trading? No matter what method of trading, traders use, and what strategies they follow they should constantly be paying close attention to the money they are spending and the risk they have for losing that money. This can happen though one main thing which many traders choose to ignore; Cutting losses. It’s easy to get excited with an open position and keep it open because it is gaining profits or because it could possibly gain profits, so excited that when thing take a turn for the worst you are still convinced you have a chance for profit. But cutting losing trades before they drain all your position is the biggest struggle traders have, especially at the beginning of entering the world of Forex. Leaving a losing trade is a win on its own because you save more losses, but it’s much easier said than done. And for many actually leaving a trade is emotionally hard as they truly they believe they have a shot at winning. It is always said that 90 percent of all traders fail at Forex Trading; the number is so high because traders don’t how to keep their losses to a minimum, which is one of the most important things to learn in Forex trading. Developing a Forex strategy should revolve around minimizing losses and keeping losses small usually refers to the overall number of money lost rather than how many trades lost. Because if you lose 100 dollars in 10 positions in a row, it is just the same as loosing 100 dollars on 20 positions. What matters is the money you are losing or making, and you need to learn to utilize your initial funds and trades in a manner that saves you the most money. Learning how to manage risk and money is something you learn with time and experience, as you make some mistakes and fix them, and realize where your money is being mainly lost. But you should always start off with an initial plan that will help you manage your money right and use it in the right way to save the most possible for yourself.
  15. Daily Forex News By XtreamForex

    Technical Overview of USD/CNH Currency Pair USD CNH USD traded higher against CNH and closed at 6.9286 G-20 Meeting Ahead on 28th June for US China Issues! 4 Possible outcomes at the coming G20 meeting: (1) President Xi does not show at the G20 and the US imposes more tariffs - USDCNH likely breaks 7.00 fairly quickly. (2) Xi and Trump meet but talks do not go well and US threatens further tariffs - USDCNH likely breaks 7.00 but more gradually. (3) Status quo scenario: Xi and Trump meet, agree to disagree, tariffs go up as planned but USDCNH likely tests 7.00 later in July. (4) Max bull scenario: Xi and Trump meet, agree to re-start negotiations in coming weeks, risk bounces, USDCNH to 6.80-85. According to the Analysis, The USD/CNH is expected to find support at 6.92356, and a fall through could take it to the next support level of 6.91848. The pair is expected to find its first resistance at 6.93474, and a rise through could take it to the next resistance level of 6.94084. For Detailed analysis visit XtreamForex YouTube Channel.
  16. Amar bank statement a address a kono house and street number nei. Akhon ki ami XM account open korte parbo? Ar street number sara ki account verify korbe?
  17. ইন্সটাফরেক্সের তিনটি প্রতিযোগিতার ফলাফলের সারসংক্ষেপ এফএক্স-১ রেলি এফএক্স-১ রেলি সাম্প্রতিক পর্যায়ে দূরত্বের সঙ্গে মোকাবেলা করার জন্য বেলারুসিয়ার ট্রেডার Mikhailovich Kalatsky সেরা নৈপুণ্য দেখিয়েছেন। তিনি সেরা ট্রেডিং এবং রেসিং দক্ষতা প্রদর্শন করতে সক্ষম হয়েছিলেন। আমরা তার অসামান্য পারফরম্যান্স এর জন্য অভিনন্দন জানাই এবং পরবর্তী প্রতিযোগিতায় তার সেরা ড্রাইভিংয়ের সন্মান ধরে রাখতে পারবেন বলে আশা করছি! যদি আপনিও আর একটি কঠিন যুদ্ধের রোমাঞ্চকর অনুভুতি উপলদ্ধি করতে চান এবং এর প্রকৃত রোমাঞ্চ অনুভব করার জন্য প্রস্তুত হন, পরবর্তী এফএক্স-১ রেলি সফরের শুরুতে আপনাকে স্বাগত জানাচ্ছি। আপনি পরবর্তী এফএক্স-১ রেলি নিবন্ধন করতে পারেন যা ১৪ জুন ২০১৯ এর ০০:০০ ঘটিকা থেকে শুরু হয়ে ১৪ জুন ২০১৯ এর ২৩:৫৯ ঘটিকা পর্যন্ত চলবে। ওয়ান মিলিয়ন অপশন ওয়ান মিলিয়ন অপশন ইন্সটাফরেক্স প্রতিযোগিতাগুলোর মধ্যে জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশী। প্রতিটি পর্যায়ে বিপুল সংখ্যক প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করছে এবং তারা সেরা অপশন ট্রেডার শিরোনামের মুকুটের জন্য যুদ্ধ করছে। সর্বশেষ পর্যায়ের, চূড়ান্ত বিজয়ী অর্জন করেছেন ভারতের ট্রেডার Adhishek Tripathi । আমরা আপনাকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি এবং স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি যে ওয়ান মিলিয়ন অপশনের পরবর্তী পর্যায়ে খুব শীঘ্রই শুরু হবে – ১৭ জুন ২০১৯ থেকে শুরু এবং ২১ জুন ২০১৯ তে শেষ হবে। লাকি ট্রেডার আত্মবিশ্বাস, দূরদর্শিতা এবং মনোযোগ দ্বারা জয়লাভ এবং চমৎকার ফলাফলের সাফল্য অর্জনের জন্য মূল হল দুই সপ্তাহের ব্যাপি চলমান লাকি ট্রেডার। যদি আপনি দুই সপ্তাহ ব্যাপী কোন ট্রেড পুরোপুরি নিখুঁতভাবে পরিচালনা করেন, তাহলে আপনিও নাইজেরিয়ার Olioku Chinedu Josephat মতো বিজয়ী ছিনিয়ে আনতে পারবেন। কে জানে? আপনিও হতে পারেন পরবর্তী অন্তর্বর্তী টুর্নামেন্ট বিজয়ী। নিশ্চিন্তে পরবর্তী লাকি ট্রেডার প্রতিযোগিতার নিবন্ধন করুন যা ২৪শে জুন ২০১৯ থেকে শুরু হয়ে ৫ই জুলাই ২০১৯ পর্যন্ত চালু থাকবে। প্রতিযোগিতা সম্পর্কে আরও জানুন ছবি এবং বিজয়ীদের মন্তব্য
  18. AUDUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ ঘন্টার ) চার্টের সিগন্যাল ( পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ০.৬৯৩০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ০.৬৮৯০, ৬৮৭০, ০.৬৮৪০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ০.৬৯৩০, ০.৬৯৪৫, ০.৬৯৬৭ সেল এন্ট্রি : ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগন্যাল ( পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ০.৬৯৬০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ০.৬৮৮০, ০.৬৫০০, ০.৬৮০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ০.৬৯৬০, ০.৬৯৯০, ০.৭০৩০ সেল এন্ট্রি : USDJPY সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ ঘন্টার ) চার্টের সিগন্যাল ( পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১০৮.৪৫ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা সেল পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১০৮.১৫ সাপোর্ট লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্যান্স লেভেল ১০৮.৬০। ট্রেন্ডের ধরণ: মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১০৮.১৫, ১০৮.০০, ১০৭.৮০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১০৮.৪৫, ১০৮.৬০, ১০৯.৮০ সেল এন্ট্রি : টেক প্রফিট: ১০৮.০০, ১০৭.৮০ ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগন্যাল ( পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ১০৮.৭০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টের সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১০৮.০০, ১০৭.৫০, ১০৬.৮০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১০৮.৭০, ১০৯.১০, ১০৯.৯০ সেল এন্ট্রি :
  19. EURUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) পেয়ারটি ১.১৩১০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টর সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে সেল পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট নিন্মমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৭০, ১.১২৫০, ১.১২২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৩১০, ১.১৩৩০, ১.১৩৬০ সেল এন্ট্রি : ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) মার্কেট ১.১২৫০ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি বা ১.১৩৫০ রেজিস্ট্যান্স লেভেলে ব্রেক হতে পারে। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.১২০০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.১২৫০, ১.১২০০, ১.১১১০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.১৩৫০, ১.১৩৯০, ১.১৪৭০ বাই এন্ট্রি : টেক প্রফিট : ১.১৩৯০, ১.১৪৭০ GBPUSD সিগন্যাল ৬০ মিনিট ( ১ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল (পরবর্তী ৩ দিন ) মার্কেট ১.২৬৮০ সাপোর্ট লেভেলে টেস্টিং করছে। আমরা বাই পজিশন নেওয়ার জন্য কিছু সিগন্যালের অপেক্ষা করছি। পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট লেভেল ১.২৬৫০। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৬৮০, ১.২৬৫০, ১.২৬০০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল :১.২৭৬০, ১.২৭৯০, ১.২৮৪০ বাই এন্ট্রি : ২৪০ মিনিট (৪ ঘন্টার ) চার্টের সিগনাল ( পরবর্তী ৩ সপ্তাহ ) পেয়ারটি ১.২৬৫০ সাপোর্ট লেভেলের দিকে একটি ঊর্ধ্বমূখী প্রাইস রিট্রেসমেন্টর সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে বাই পজিশন নেওয়া যেতে পারে। ট্রেন্ডের ধরণ : মার্কেট ঊর্ধ্বমূখীভাবে শক্তিশালী। সাপোর্ট লেভেল : ১.২৬৫০, ১.২৬০০, ১.২৫২০ রেজিস্ট্যান্স লেভেল : ১.২৭৬০, ১.২৮৩০, ১.২৯৩০ বাই এন্ট্রি :
  20. ডাচ মুদ্রাস্ফীতি ৪ মাসের মধ্যে সর্বনিন্ম! নেদারল্যান্ডসের সেন্ট্রাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিস্টিক্সের তথ্য অনুসারে আজ বৃহস্পতিবার জানিয়েছে যে ভোক্তা মূল্যস্ফীতির দাম মে মাসে চতুর্থবারের মত সর্বনিম্ন অবস্থানে দাঁড়িয়েছে। এপ্রিল মাসে 2.9 শতাংশ বৃদ্ধি পাওয়ার পর মে মাসে ভোক্তাদের মূল্য সূচক 2.4 শতাংশ বেড়েছে। সর্বশেষ হার জানুয়ারী থেকে এটা সর্বনিম্ন ছিল, যখন মুদ্রাস্ফীতি 2.2 শতাংশের ঘরে ছিল। আরো ফরেক্স নিউজ দেখুন: https://goo.gl/FmCiZG
  21. EUR/USD পেয়ারের এই সপ্তাহের টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস- ১৩ই জুন-২০১৯ বিশ্লেষণ করেছেন বিশেষজ্ঞ Arief Makmur (ইন্সটা ফরেক্স টিম) আজকের EUR/USD পেয়ারের টেকনিক্যাল লেভেলঃ ব্রেকআউন্ট ক্রয় লেভেলঃ 1.1347. স্ট্রং রেসিস্ট্যান্সঃ 1.1341. অরিজিনাল রেসিস্ট্যান্সঃ 1.1330. ইনার সেল এরিয়াঃ 1.1319. টার্গেট ইনার এরিয়াঃ 1.1293. ইনার বাই এরিয়াঃ1.1267. ওরিজিনাল সাপোর্ট: 1.1256. স্ট্রং সাপোর্ট: 1.1245. ব্রেকআউট সেল লেভেল:1.1239 মন্তব্য: আজ ইউরোপিয়ান মার্কেটে ট্রেডিং শুরু হলে শিল্প উৎপাদন এম/এম, ইতালীয় ত্রৈমাসিক বেকারত্বের হার এবং জার্মান চূড়ান্ত CPI এম/এম ইকোনমিক ডাটা রিলিজ করবে। পাশাপাশী আমেরিকান মার্কেটে ট্রেডিং শুরু হলে ৩০- বছরের বন্ড অকশন, প্রাকৃতিক গ্যাস সংরক্ষণ, বেকারত্ব হার এবং আমদানি মূল্য এম/এম ইকোনমিক ডাটাগুলো রিলিজ করবে। ফলে ফান্ডামেন্টাল বিশ্লেষন থেকে আশা করা যায় মার্কেটে EUR/USD পেয়ারটিতে নিন্ম থেকে মধ্যম মাত্রার ভোলাটিলিটি থাকতে পারে। আরো ফরেক্স বিশ্লেষন দেখুন: https://www.instaforex.com/bd/forex_analysis/145035 *মার্কেট বিশ্লেষণ ট্রেডিং সম্পর্কে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করবে, কিন্তু আপনাকে ট্রেডিং সম্পর্কিত নির্দেশ প্রদান করবে না।
  22. ইউরো/ডলার পেয়ারটি তার নিন্মমূখী অবস্থান কিছুটা রিকভার করেছে এবং পেয়ারটি ১.১৩০০ প্রাইসের দিকে রয়েছে। জার্মান সিপিআই মাসিক ০.২% এসেছে এবং বাৎসরিক ১.৪% এসেছে। ইউরো/ডলার পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে শুরু করেছে এবং পেয়ারটি ১.১৩০০ প্রাইসের কাছাকাছি রয়েছে। ইউরো/ডলারের বর্তমান অবস্থান গতকাল ইউরো/ডলার পেয়ারটি ১.১৩৩০ প্রাইসে ওঠার পর, পেয়ারটির প্রাইস কমতে শুরু করে এবং পেয়ারটি ১.১২৯০/৮৫ প্রাইসে নেমে আসে। তবে বর্তমানে পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা বাড়তে শুরু করেছে। যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের বানিজ্য আলোচনার বিষয়ে ট্রাম্পের পজিটিভ মন্তব্যবের কারণে গতকাল ডলারের প্রাইস বেড়ে ৯৭ এসেছিল। জার্মানের সিপিআই মাসিক ০.২% বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বাৎসরিক হিসেবে ১.৪% বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে পেয়ারটির প্রাইস কিছুটা বাড়ছে।
  23. সুইস উৎপাদক মুল্য এবং আমদানি মূল্য এর সংবাদ প্রকাশের পরে ফ্রাঙ্কের আংশিক পরিবর্তন বৃহস্পতিবার ET সময় 2:30 am টায় সুইজারল্যান্ডের ফেডারেল পরিসংখ্যান অফিস সুইস প্রযোজক এবং আমদানি মূল্যের সংবাদ প্রকাশ করেছে। এর ডাটা প্রকাশের পর, সুইস ফ্রাঙ্ক তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী মুদ্রাগুলোর বিপরীতে আংশিক পরিবর্তন হয়েছে। ET সময় 2:32 am এর দিকে ফ্রাঙ্কের বিপরীতে ইয়েনের 108.88 তে, ইউরোর বিপরীতে 1.1242 তে, পাউন্ডের বিপরীতে 1.2629, এবং ডলারের বিপরীতে 1.2975 তে লেনদেন হয়। আরো ফরেক্স সংবাদঃ
  24. ইউরো/ইয়েন পেয়ারটি ১২৩.০০ এর কাছাকাছি অবস্থান করছিল। তবে পেয়ারটি তার উর্ধ্বমূখী অবস্থানে ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। বর্তমানে পেয়ারটি প্রাইস কমতে শুরু করেছে এবং পেয়ারটি ১২২.০০ প্রাইসের কাছাকাছি অবস্থান করছে। মঙ্গলবার পেয়ারটি ১২৩.১৭ প্রাইসে ট্রেডিং করেছিল। পরবর্তীতে পেয়ারটি ১২৩.৭০/৭৫ প্রাইসকেও অতিক্রম করেছিল। কয়েক মাসের রেজিস্ট্যান্স লেভেল পর্যালোচনা করে দেখা যাচ্ছে, পেয়ারটির প্রাইস বাড়তে থাকলে আজ পেয়ারটি সর্বোচ্চ ১২৫.১৪ প্রাইসে আসতে পারে। ইউরো/ইয়েনের প্রতিদিনের চার্ট
  25. Market Analysis and News.

    Date : 13th June 2019. MACRO EVENTS & NEWS OF 13th June 2019. FX News Today Treasury yields have fallen back -1.2 bp to 2.108%, as weaker than expected CPI numbers out of the U.S. yesterday adding to speculation of rate cuts in the US. Fed funds futures price in about 80% chance for rate cut by by end of July. Asian bond markets were mostly supported, although JGBs corrected and the 10-year yield moved up 0.5 bp to -0.118% as a stronger Yen curbed investor appetite for Japanese assets. Stock markets mostly remained under pressure in Asia, with the Hang Seng declining -0.79% as large political demonstrations continue to unsettle investors. In Europe German HICP for May was confirmed at just 1.3% y/y this morning, which together with the decline in market based indicators for inflation expectations will also keep easing speculation alive as stock markets remain weighed down by geopolitical trade jitters. Oil prices continued to decline, with trade jitters continuing to weigh on sentiment and the WTI future is currently trading at USD 51.43 per barrel, up from yesterday’s lows, following the EIA inventory data which showed a 2.2 mln bbl rise in crude stocks. Charts of the Day Technician’s Corner WTI crude fell at $50.70 following the EIA inventory data which showed a 2.2 mln bbl rise in crude stocks. The street had been expecting a 0.5 mln bbl decrease, though the API revealed a 4.9 mln bbl build after the close on Tuesday. Overall, a fairly bearish report, which added further pressure on the USOIL downtrend. In the near-term the outlook remains bearish as well, while only a break above 52.80 could suggest a short term reversal to the upside. Main Macro Events Today SNB Interest Rate Decision and Press Conference (CHF, GMT 07:30) – The SNB is not expected to surprise markets as the Swiss rate is forecast to remain at -0.75%. However, the recent strengthening of the Swiss franc will have rekindled SNB concerns of its disinflationary impact. Unemployment Claims (USD, GMT 12:30) – Initial jobless claims for the week of June 7 are estimated to fall to 217k, after holding at 218k in the week of June 1. Support and Resistance levels Always trade with strict risk management. Your capital is the single most important aspect of your trading business. Please note that times displayed based on local time zone and are from time of writing this report. Want to learn to trade and analyse the markets? Join our webinars and get analysis and trading ideas combined with better understanding on how markets work. Andria Pichidi Market Analyst HotForex Disclaimer: This material is provided as a general marketing communication for information purposes only and does not constitute an independent investment research. Nothing in this communication contains, or should be considered as containing, an investment advice or an investment recommendation or a solicitation for the purpose of buying or selling of any financial instrument. All information provided is gathered from reputable sources and any information containing an indication of past performance is not a guarantee or reliable indicator of future performance. Users acknowledge that any investment in FX and CFDs products is characterized by a certain degree of uncertainty and that any investment of this nature involves a high level of risk for which the users are solely responsible and liable. We assume no liability for any loss arising from any investment made based on the information provided in this communication. This communication must not be reproduced or further distributed without our prior written permission.
  1. Load more activity

বিডিপিপস কি এবং কেন?

বিডিপিপস বাংলাদেশের সর্বপ্রথম অনলাইন ফরেক্স কমিউনিটি এবং বাংলা ফরেক্স স্কুল। প্রথমেই বলে রাখা জরুরি, বিডিপিপস কাউকে ফরেক্স ট্রেডিংয়ে অনুপ্রাণিত করে না। যারা বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, শুধুমাত্র তাদের জন্যই বিডিপিপস একটি আলোচনা এবং অ্যানালাইসিস পোর্টাল। ফরেক্স ট্রেডিং একটি ব্যবসা এবং উচ্চ লিভারেজ নিয়ে ট্রেড করলে তাতে যথেষ্ট ঝুকি রয়েছে। যারা ফরেক্স ট্রেডিংয়ের যাবতীয় ঝুকি সম্পর্কে সচেতন এবং বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করছেন, বিডিপিপস শুধুমাত্র তাদের ফরেক্স শেখা এবং উন্নত ট্রেডিংয়ের জন্য সহযোগিতা প্রদান করার চেষ্টা করে।

×